| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ১৬ টি আন্তর্জাতিক রুটে ফ্লাইট বাতিল করেছে বিমান বাংলাদেশ এয়ারলাইন্স   * ক্রেডিট কার্ড ‘জালিয়াত চক্রের’ চারজন গ্রেফতার   * আমরাই ধরি আবার আমাদেরকেই দোষারোপ: প্রধানমন্ত্রী   * আক্রান্ত ছাড়াল পৌনে দুই লাখ, মৃত্যু ২২শ’   * বুড়িগঙ্গায় লঞ্চডুবি: ময়ূর-২ এর মালিক মোসাদ্দেক গ্রেফতার   * রিজেন্টের চেয়ারম্যান সাহেদের দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা   * মাস্ক দুর্নীতি: মেডিটেকের পরিচালক হুমায়ুনকে জিজ্ঞাসাবাদ   * বাংলাদেশে আরও উদ্বেগজনক পরিস্থিতির আশঙ্কা   * শিক্ষার্থীদের অটোপাসের খবর ‘গুজব - শিক্ষা মন্ত্রণালয়   * রিজেন্ট হাসপাতাল কেলেঙ্কারি: সাহেদের অন্যতম সহযোগী গ্রেপ্তার  

   উপ-সম্পাদকীয়
  লাখো কন্ঠে বিদ্রোহী কবিতা
 

একটা জাতীয় দৈনিকে প্রকাশ পেয়েছে, এবার লাখো কন্ঠে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের `বিদ্রোহী` কবিতাটি আবৃত্তির আয়োজন করতে যাচ্ছে নজরুল চর্চা কেন্দ্র `বাঁশরী`। বিদ্রোহী কবির মানবতাবোধ, বিভেদহীন সমাজ গঠনের চেতনাকে বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে দেয়ার লক্ষ্যে এই আয়োজনটি করা হচ্ছে বলে জানান বাঁশরীর সভাপতি মোঃ খালেকুজ্জামান। তিনি জানান, ১ মে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় বিকেল ৪টায় লাখো কন্ঠে `বিদ্রোহী` কবিতা পাঠের আয়োজন হবে।

এই আয়োজনকে আমরা অবশ্যই স্বাগত জানাবো। `বিদ্রোহী` কবিতাটি নজরুল রচনা করেছিলেন ১৯২২ সালে। `বিদ্রোহী` কবিতা প্রথম ছাপা হয় বিপ্লবী বারীন ঘোষের সহবন্দী শ্রী অবিনাশ চন্দ্র ভট্টাচার্য সম্পাদিত সাপ্তাহিক বিজলী পত্রিকায় ১৯২২ সালের ৬ জানুয়ারী তারিখে, শুক্রবার। মুজফ্ফর আহমদ জানিয়েছেন, `আসলে `বিদ্রোহী` কবিতা রচিত হয়েছিল ১৯২১ সালের ডিসেম্বর মাসের শেষ সপ্তাহে।` (নজরুল ইসলাম: স্মৃতিকথা, মুক্তধারা ১৯৯৯, পৃ: ১৬৭)। তখনো পর্যন্ত নজরুলের কোনো গ্রন্থ প্রকাশিত হয়নি। এই একটি কবিতা তাঁকে এতটা খ্যাতি এনে দিয়েছিলো যে, তিনি বাংলা সাহিত্যে রবীন্দ্রনাথের পাশে দাঁড়াবার যোগ্যতা অর্জন করেন। নজরুল বিদ্রোহী অভিধা পেয়ে যান এই কবিতাটি প্রকাশিত হওয়ার পর থেকেই। নজরুলের অন্য কোনো কবিতা, কোনে গল্প, প্রবন্ধ কিংবা উপন্যাস তাঁকে এত খ্যাতি এনে দিতে পারেনি। হ্যাঁ, তবে এরপর `কারার ঐ লৌহ কপাট` গানটি প্রায় বিদ্রোহীর সমতুল খ্যাতি এনে দিয়েছে।

নজরুলের বহুমুখী প্রতিভা এবং তাঁর দ্রোহী সত্তার সর্বোচ্চ বাঙময় প্রকাশ ঘটেছে এই কবিতায়। এই কবিতার অগ্নিকুন্ডু ইংরেজ শক্তির বিরুদ্ধে উত্তাপ ছড়িয়ে দিয়েছিলো। নজরুলের সাহিত্যিক-সাহসের চূড়ান্ত প্রকাশ ঘটেছিলো `বিদ্রোহী` কবিতার ভেতরে। তিনি যখন বলেন, `আমি মানি নাকো কোনো আইন,` তখন স্বভাবতই এই ঘোষণা ইংরেজ সরকারের বিরুদ্ধে চলে যায়। ইংরেজের টনক নড়ে যায়। ইংরেজ দুই বাঙালিকে নিয়ে বিচলিত থাকতো, নেতাজী সুভাস চন্দ্র বোস এবং বিদ্রোহী কবি কাজী নজরুল ইসলাম। তাই দেখা যায় প্রেমের কাব্যগুলো বাদ দিয়ে নজরুলের প্রায় সব কাব্য ও প্রবন্ধ গ্রন্থ ইংরেজ সরকার বাজেয়াপ্ত করেছিলো। তিনি জেল খেটেছিলেন `আনন্দময়ীর আগমনে` কবিতা লেখার অপরাধে, `ধূমকেতু` পত্রিকাও ইংরেজ সরকার বাজেয়াপ্ত করেছিলো। কারণ ওই কবিতায়ও যে বিদ্রোহের প্রকাশ ঘটেছিলো, তাও ইংরেজ সরকার মেনে নিতে পারেনি।

কিন্তু `বিদ্রোহী` কবিতার ধরণ আলাদা, তার পৌরুষত্ব আলাদা, তার আত্মপ্রত্যয়ের সংহত প্রকাশ আলাদা, তার বলিষ্ঠতা আলাদা, তার দ্রোহ আলাদা। শুধু ইংরেজ নয় তিনি স্বসম্প্রদায়েরও শত্রু হয়েছিলেন। তিনি যখন বলেন, `খোদায় আসন আরশ ছেদিয়া উঠিয়াছি চির বিস্ময় আমি বিশ্ববিধাত্রীর,` তখন তিনি ইংরেজ সরকারের চেয়েও ক্রুর তাঁর সম্প্রদায়ের বিরাগভাজন হয়েছিলেন। `বিদ্রোহী` কবিতা লেখার পর থেকেই তিনি `কাফের` উপাধী পেতে থাকেন।

`বিদ্রোহী` কবিতার প্রচন্ডতা দিয়ে বাংলা কবিতার এমন কি বাংলা সাহিত্যের যাত্রাপথ পাল্টে দিয়েছিলেন। বলাই বাহুল্য যে, ১৯৭১ সালে যখন আমাদের মুক্তিযুদ্ধ চলে তখন কবির জ্যেষ্ঠপুত্র সব্যসাচী স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্র থেকে `বিদ্রোহী` কবিতাটি আবৃত্তি করে মুক্তিযোদ্ধাদের অনুপ্রাণিত করেছিলেন। নজরুল প্রতিভার মূল বৈশিষ্ট্য প্রকাশ পেয়েছিলো এ কবিতায়। বাঙালি জাতিকে জাগিয়ে দিয়েছিলেন এই একটি কবিতা দিয়ে। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মতো বিপদের ঝুঁকি নিয়েছিলেন `বিদ্রোহী` লিখে। `আমপারা পড়া` হামবড়া মোল্লাদের প্রচলিত ধ্যান ধারনাকে তিনি এ কবিতায় তছনছ করে দিয়েছেন।
তিনি যখন বলেন, `আমি স্রষ্টা সূদন, শোক-তাপ-হারা খেয়ালী বিধির বক্ষ করিব ভিন্ন।`

তখন তিনি সবচেয়ে বেশি বিপজ্জনক সাহসের পরিচয় দেন। স্বসম্প্রদায়ের প্রচলিত ধর্মানুভূতিকে উত্তীর্ণ হওয়া সর্বাধিক বিপজ্জনক। এ কাজটি তিনি করেছিলেন- সাহসের দিগন্ত খুলে দিয়েছিলেন। অসামান্য সাফল্যের সঙ্গে নজরুল এই কবিতায় হিন্দু মুসলমানের পৌরাণিক ঐতিহ্য ব্যবহার করেছেন। এ ক্ষেত্রে তাঁর ষোলো আনা মুনশিয়ানার প্রকাশ ঘটেছে। হিন্দু মুসলমানের মিলনের কবি তিনি। যথার্থ বাঙালি তিনি। `বিদ্রোহী` কবিতায়ও হিন্দু-মসুলমানের মিলিত ঐতিহ্য ব্যবহার করেছেন।

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শতাব্দীর শ্রেষ্ঠ বাঙালি হয়েছেন ৭ মার্চের অগ্নিগর্ভ ভাষণের গুনে, নজরুলও শতাব্দীর অন্যতম শেষ্ঠ বাঙালি হয়েছেন `বিদ্রোহী` কবিতার গুনে। আর মাত্র দু`বছর পরে `বিদ্রোহী` কবিতার ১০০ বছর পূর্তি হবে, বঙ্গবন্ধুর ভাষণটিও অর্ধশতাব্দীতে পা দিতে চলেছে। এই কবিতাটি লিখে নজরুল বাঙালি জাতিকে জাগিয়ে দিয়েছিলেন, বাঙালিকে অসাম্প্রদায়িক-ধর্মনিরপেক্ষতা দান করেছিলেন এই কবিতায় যৌথ ঐতিহ্যচেতনা ব্যবহার করে; আর সেই জাতিকে বঙ্গবন্ধু একটি সেক্যুলার স্টেট এনে দিয়েছিলেন একটি ভাষণ দিয়ে। বঙ্গবন্ধুও উপাধী পেয়েছিলেন `রাজনীতির কবি`। আর নজরুল তাঁর `বিদ্রোহী` কবিতায় রাজনৈতিক, অর্থনৈতিক চেতনার প্রতিফলন ঘটিয়েছেন, সামন্তবাদ ও সাম্রাজ্যবাদ বিরোধিতার প্রকাশ ঘটিয়েছেন। ঘোষণা দিয়েছেন যতদিন পর্যন্ত উৎপাড়িতের ক্রন্দন বন্ধ না হবে, ততদিন তিনি অশান্ত থাকবেন।

আজ ১০০ বছর হতে চলেছে নজরুল `বিদ্রোহী` কবিতা লিখেছেন কিন্তু এর আবেদন এক বিন্দুও কমেনি। আরো ১০০ বছরেও এই কবিতার আবেদন কমবে বলে মনে হয় না। আমরা দৃঢ়ভাবে আশা করছি, `লাখো কন্ঠে বিদ্রোহী কবিতা` আবৃত্তির অনুষ্ঠানটি সার্বিক ভাবে সফল হবে।

মাহমুদুল বাসার
কলাম লেখক, গবেষক।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 1032        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     উপ-সম্পাদকীয়
করোনা ভাইরাস: সরকারী ত্রাণ, প্রণোদনা ও রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন
.............................................................................................
ছুটি শেষে সচল দেশ: স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা জরুরি
.............................................................................................
প্রাথমিকে প্রয়োজন কাঠামোগত সংযোজন বা সংশোধন
.............................................................................................
দুর্গম পথচলা সুগম করতে হবে
.............................................................................................
সাইবার অপরাধ
.............................................................................................
প্রসঙ্গ ভ্রাম্যমাণ ফায়ার সার্ভিস ও Fire hydrant
.............................................................................................
পরমাণু অস্ত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিমুখী আচরণ
.............................................................................................
আমার গেলাস সদাই থাক অর্ধেক পূর্ণ
.............................................................................................
লাখো কন্ঠে বিদ্রোহী কবিতা
.............................................................................................
বৈশাখ বাঙালির সার্বজনীন অসাম্প্রদায়িক উৎসব
.............................................................................................
সিরিয়া হামলায় মধ্যপ্রাচ্য বনাম রুশ হিসাব
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD