| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ডিএনসিসির কবরস্থানগুলোতে জিয়ারত বন্ধ   * করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের চিকিৎসায় মিস ইংল্যান্ড   * নতুন আক্রান্তদের মধ্যে ঢাকার ২০ জন, নারায়ণগঞ্জের ১৫   * বঙ্গবন্ধুর খুনি আবদুল মাজেদ গ্রেফতার   * করোনা: নতুন শনাক্ত ৪১ জন, মৃত্যু ৫   * ২৪ ঘণ্টায় সর্বোচ্চ নমুনা পরীক্ষা   * মানিকগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে স্বউদ্যোগে লকডাউন   * করোনা নিয়ে গুজব ছড়িয়ে কলেজ শিক্ষক গ্রেপ্তার   * করোনায় বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা ৭৪ হাজার ছাড়ালো   * যুক্তরাষ্ট্র ও ফ্রান্সে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মৃত্যু  

   মতামত -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
নিজে সচেতন হোন, অন্যকেও সচেতন হতে বলুন : হানিফ সংকেত

অনলাইন ডেস্ক:
কভিড-১৯ করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক একটি ভিডিওবার্তা প্রকাশ করেছেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও জনপ্রিয় উপস্থাপক হানিফ সংকেত। এতে তিনি সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। ভিডিওবার্তায় তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের দৈনন্দিন আচরণ ও চলাফেরাতে পরিবর্তন আনতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে যাওয়া কারোরই উচিত হবে না। আমরা যে কেউ যেকোনো সময় এই রোগে আক্রান্ত হতে পারি। কারণ আমরা সবাই এখন এই রোগের ঝুঁকিতে এ রয়েছি। তাই প্রয়োজন সচেতনতা ও সতর্কতা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চিকিৎসক ও সর্বস্তরের মানুষকেই এই বিষয়ে সচেতন করছেন। শুধু নিজে সতর্ক থাকলেই চলবে না। সবাইকেই সচেতন থাকতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এই মুহূর্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কোনো গুজবে কান দেবেন না। গুজব ছড়ানোটা বিভ্রান্তিকর ও অপরাধও। তাই গুজবে কান দেন দেবেন না, আতঙ্কিত হবেন না। নিজে সচেতন হোন, অন্যকেও সচেতন হতে বলুন।

 
নিজে সচেতন হোন, অন্যকেও সচেতন হতে বলুন : হানিফ সংকেত
                                  

অনলাইন ডেস্ক:
কভিড-১৯ করোনাভাইরাস প্রতিরোধে সচেতনতামূলক একটি ভিডিওবার্তা প্রকাশ করেছেন সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব ও জনপ্রিয় উপস্থাপক হানিফ সংকেত। এতে তিনি সবাইকে সচেতন হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন। ভিডিওবার্তায় তিনি বলেছেন, করোনাভাইরাস থেকে মুক্তি পেতে হলে আমাদের দৈনন্দিন আচরণ ও চলাফেরাতে পরিবর্তন আনতে হবে। জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ির বাইরে যাওয়া কারোরই উচিত হবে না। আমরা যে কেউ যেকোনো সময় এই রোগে আক্রান্ত হতে পারি। কারণ আমরা সবাই এখন এই রোগের ঝুঁকিতে এ রয়েছি। তাই প্রয়োজন সচেতনতা ও সতর্কতা। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা চিকিৎসক ও সর্বস্তরের মানুষকেই এই বিষয়ে সচেতন করছেন। শুধু নিজে সতর্ক থাকলেই চলবে না। সবাইকেই সচেতন থাকতে হবে।

তিনি আরও বলেন, এই মুহূর্তে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের কোনো গুজবে কান দেবেন না। গুজব ছড়ানোটা বিভ্রান্তিকর ও অপরাধও। তাই গুজবে কান দেন দেবেন না, আতঙ্কিত হবেন না। নিজে সচেতন হোন, অন্যকেও সচেতন হতে বলুন।

 
মহামারী রোধে মহানবী (সা.) এর নির্দেশনা অত্যন্ত কার্যকর: মার্কিন গবেষক
                                  

অনলাইন ডেস্ক: বিশ্বে এখন আতঙ্কের নাম করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে বিশ্বের ১৯৫টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়ে পড়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। চীনের উহান থেকে উৎপত্তি এই ভাইরাস এখন তাণ্ডব চালাচ্ছে ইউরোপজুড়ে। তবে সবচেয়ে ভয়াবহ পরিস্থিতি বিরাজ করছে ইউরোপের ইতালিতে। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশটিতে এই ভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে ৬০১ জন, আর স্পেনে মারা গেছে ৫৩৯ জনের। ইতোমধ্যেই করোনাভাইরাসের এই প্রকোপকে ‘বিশ্ব মহামারী’ হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

ভয়াবহ এই পরিস্থিতি থেকে রক্ষা পেতে অসংখ্য উপায় ও উপকরণের শরণাপন্ন হচ্ছেন গবেষকরা। কিন্তু এ থেকে পরিত্রাণের তেমন কোনও আশার আলো দেখা যাচ্ছে না।
এই সংকটাপন্ন সময়ে তরুণ মার্কিন গবেষক ড. ক্রেগ কন্সিডাইন করোনা প্রতিরোধে মহানবী (সা.)-এর নির্দেশনার প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন। তিনি যুক্তরাষ্ট্রের টেক্সাসে অবস্থিত রাইস ইউনিভার্সিটির একজন গবেষক হিসেবে কর্মরত। খবর দ্য নিউজ উইকের।

প্রতিবেদনে বলা হয়, ইমিউনোলজিস্ট বিশেষজ্ঞ ডাক্তার অ্যান্থনি ফসি এবং মেডিক্যাল রিপোর্টার ডাক্তার সঞ্জয় গুপ্তের মতো বিজ্ঞ চিকিৎসকরা করোনা থেকে সুরক্ষিত থাকতে পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার পাশাপাশি সুন্দর ব্যবস্থাপনায় হোম কোয়ারেন্টিনের কথা বলেছেন। একই সঙ্গে সুস্থ লোকদের জন্য জনসমাগম এড়িয়ে একাকী জীবনযাপনের পরামর্শ দিয়েছেন। তারা দাবি করেছেন, এসব উপায়ই করোনা থেকে বেঁচে থাকার সবচেয়ে কার্যকর মাধ্যম।

অথচ আপনারা কি জানেন মহামারির সময়ে সর্বপ্রথম কে এই কোয়ারেন্টাইনের উদ্ভাবন করেছেন? আজ থেকে প্রায় ১৩শ’ বছর আগে ইসলাম ধর্মের নবী মুহাম্মাদই (সা.) পৃথিবীর ইতিহাসে সর্বপ্রথম ‘কোয়ারেন্টাইন’-এর ধারণা দেন। তাঁর সময়ে উল্লেখযোগ্য কোনও সংক্রামক ব্যাধি বিশেষজ্ঞ ছিল না। তবে তিনি এসব রোগব্যাধিতে করণীয় সম্পর্কে তার অনুসারীদের যে নির্দেশনা দিয়েছেন এককথায় তা ছিল দুর্দান্ত! তাঁর মূল্যবান সেই পরামর্শ মানলেই করোনার মতো যেকোনও মহামারী থেকে যথেষ্ট সচেতনতা অবলম্বন করা যায়।

এ প্রসঙ্গে তিনি (মহানবী) বলেছেন, “যখন তুমি কোনো ভূখণ্ডে প্লেগ ছড়িয়ে পড়ার খবর শুনতে পাও তখন সেখানে প্রবেশ কোরো না। পক্ষান্তরে প্লেগ যদি তোমার অবস্থানস্থল পর্যন্ত পৌঁছে যায় তাহলে ওই জায়গা ত্যাগ কোরো না।” তিনি আরও বলেছেন, “সংক্রামক ব্যাধিতে আক্রান্ত ব্যক্তি সুস্থ মানুষের থেকে দূরে থাকবে।”

এভাবে বিভিন্ন সময়ে নানা পরিস্থিতিতে ইসলামের নবী মুহাম্মাদ (সা.) তাঁর অনুসারীদের বিশেষ করে রোগব্যাধিতে আক্রান্ত লোকদের পরিচ্ছন্নতার ব্যাপারেও উদ্বুদ্ধ করতেন। এ ব্যাপারে তাঁর অমূল্য কিছু কথামালা হল, ‘পরিচ্ছন্নতা ঈমানের অংশ’, ‘ঘুম থেকে জেগেই দুই হাত ধৌত করো। কেননা ঘুমের মধ্যে তোমার হাত কোথায় স্পর্শ করেছে তুমি জান না’, ‘খাওয়ার আগে ও পরে ধৌতকরণের মধ্যেও বরকত রয়েছে’ ইত্যাদি।

মোটকথা, তাঁর অনুসারীরা যেকোনও পরিস্থিতির সম্মুখীন হোক তা থেকে পরিত্রাণের ব্যাপারেই তিনি তাদের নির্দেশনা দিয়েছেন। ধর্মীয় ক্ষেত্রে তিনি যেমন ব্যাপক অবদান রেখে অমর হয়ে আছেন, ঠিক তেমনই মানুষের জীবনযাপন বিষয়ক মহামূল্যবান যে পরামর্শ তিনি দিয়ে গেছেন তা আজও অনুকরণীয়।

 
করোনা প্রতিরোধে বিনামূল্যে মাস্ক দিতে হাইকোর্টে ব্যারিস্টার মওদুদের পরামর্শ
                                  

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে দেশের জনগণকে বিনামূল্যে মাস্ক সরবরাহের জন্য আদালতকে নির্দেশনা দিতে পরামর্শ দিয়েছেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধ সংক্রান্ত প্রতিবেদনের শুনানির সময় সোমবার বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের হাইকোর্ট বেঞ্চকে তিনি এ পরামর্শ দেন। ব্যারিস্টার মওদুদ আদালতকে বলেন, ‘করোনাভাইরাস বিশ্বব্যাপী ভয়াবহ রূপ নিয়েছে।

আমাদের দেশে সরকার করোনাভাইরাস মোকাবিলায় ইতোমধ্যে কিছু পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু ২০ টাকার মাস্কের দাম ১২০ টাকা করে বিক্রি করা হচ্ছে। দেশের জনগণকে মাস্ক বিনামূল্যে সরবরাহ করতে আদালত সরকারকে আদেশ দিতে পারে।
তখন আদালত বলেন, ‘আমরা এ মুহূর্তে কোনও আদেশ দিচ্ছি না।

কারণ সরকার করোনাভাইরাস মোকাবিলায় যথেষ্ট পদক্ষেপ নিচ্ছে। তবে করোনা আক্রান্ত বা সম্ভাব্য আক্রান্তদের ক্ষেত্রে মাস্ক বিনামূল্যে সরবারহ করা যেতে পারে।’ মাস্ক বা করোনাভাইরাস মোকাবিলার কোনও সরঞ্জাম নিয়ে কেউ কালোবাজারি করলে ছাড় দেওয়া হবে না বলে মন্তব্য করেন আদালত।

 
করোনা নিয়ে মোদির পরামর্শ
                                  

ডেস্ক রিপোর্ট:
চীন থেকে দ্রুত বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়ছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। এরই মধ্যে ৯০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে এই ভাইরাস। আক্রান্ত দেশের তালিকায় রয়েছে এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম জনসংখ্যার দেশ ভারতও। এরই মধ্যে ভারতে ৩১ জন আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানিয়েছে দেশটির স্বাস্থ্য অধিদফতর।

আক্রান্তের সংখ্যা যাই হোক আতঙ্কে ভারতের বাজারে স্যানিটাইজার থেকে মাস্ক, সবকিছুরই চাহিদা এখন তুঙ্গে। এই অবস্থায় অযথা আতঙ্কিত না হতে ভারতের সাধারণ মানুষকে পরামর্শ দিয়েছেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শনিবার এক ভিডিও কনফারেন্সে ভারতীয় ওষুধ পরিযোজনা কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলেন মোদি। এ সময় তিনি গুজব না ছড়াতে এবং গুজবে কান না দিতে সবাইকে অনুরোধ করেন।

মোদি বলেন, এ রকম সময়ে নানা ধরনের গুজব ছড়িয়ে পড়ে। অনেকেই আপনাকে বলবে, এটা খাবেন না, ওটা করবেন না। প্রতিদিন নতুন নতুন উপদেশ আপনি শুনতে পাবেন। কেউ বলবে এটা খেলে করোনাভাইরাস সেরে যায়। এ ধরনের গুজব থেকে দূরে থাকুন। তিনি আরও বলেন, যাই করুন, অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ মেনে চলুন। করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন-এমন ব্যক্তিদের বাড়ির লোকেরাও সাবধানে থাকুন। মাস্ক ও গ্লাভস পরে থাকুন অবশ্যই এবং ভিড়ের জায়গা এড়িয়ে চলুন।

 
বিদেশিদের ঘরে থাকার পরামর্শ আইইডিসিআরের
                                  

স্টাফ রিপোর্টার:
অর্ধ শতাধিক দেশে নভেল করোনাভাইরাস ছড়িয়ে পড়ায় এসব দেশ থেকে কেউ কোনো উপসর্গ না নিয়ে দেশে ফিরলেও কয়েকদিন ঘরে থাকার পরামর্শ দিয়েছে আইইডিসিআর। করোনাভাইরাস সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে আজ রবিবার রোগতত্ত্ব, রোগ নিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা ইনস্টিটিউটের (আইইডিসিআর) নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে এই পরামর্শ দেন প্রতিষ্ঠানের পরিচালক অধ্যাপক ডা. মীরজাদী সেব্রিনা ফ্লোরা। এখন পর্যন্ত ৫৪ দেশে কভিড-১৯ রোগী ধরা পড়ার তথ্য জানিয়ে তিনি বলেন, “এখন পর্যন্ত আমাদের এখানে কোনো করোনাভাইরাস সংক্রমণ হয়নি।

আমরা জানি, কেউ যদি আক্রান্ত হয়, তাহলে কোনো দেশ থেকেই সেটা আসবে বলে আমরা আশঙ্কা করছি। “তাই সেসব দেশ থেকে ফিরলেও তারা যেন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকেন। খুব প্রয়োজন না হলে বাড়ির বাইরে বের না হন।” বাংলাদেশে এখন পর্যন্ত ৮৮টি নমুনা পরীক্ষা করে কারও মধ্যে এই রোগের জীবাণু পাওয়া না গেলেও সতর্ক থাকার উপর জোর দিচ্ছে আইডিসিআর; কেননা যেখানে করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঘটেছে, সেখানে দ্রুত তা ছড়িয়ে পড়ছে। ডা. ফ্লোরা আরও বলেন, “এজন্য আমরা সবাইকে পরামর্শ দিচ্ছি, যারা বাইরে থেকে আসবেন, তারা বিমানবন্দর থেকে বাসায় যাওয়ার পথে গাড়িতে মাস্ক ব্যবহার করবেন।

সম্ভব হলে গণপরিবহনে না গিয়ে নিজস্ব যানবাহনে যাবেন, এ সময় পরিবহনের জানালা খোলা রাখবেন। “আমরা অনুরোধ করছি, আপনারা আবশ্যিকভাবে বাড়িতে অবস্থান করুণ। জনসমাগম এড়িয়ে চলুন। যদি বাইরে যাওয়া খুবই দরকার হয়, তাহলে মাস্ক ব্যবহার করবেন।” আক্রান্ত হয়ে কেউ এলে বিমানবন্দরে স্ক্রিনিংয়ের মাধ্যমেই তাকে শনাক্ত করে চিকিৎসা দেওয়ার প্রস্তুতি রাখা হয়েছে বলে জানান আইইডিসিআর পরিচালক। বিদেশ থেকে আসা কারও মধ্যে কোনো লক্ষণ দেখা দিলে আইইডিসিআরের হটলাইনে যোগাযোগের পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

 
ঢাকা প্রেসক্লাব দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ২০২০-২১ : সভাপতি- মোঃ মাসুদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক- মোঃ মোসলেহ উদ্দিন বাচ্চু
                                  

প্রেস বিজ্ঞপ্তি :
ঢাকা প্রেস ক্লাবের দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ২৫শে ডিসেম্বর/১৯, রোজ: বুধবার সারাদিন ব্যাপী উৎসব মুখর পরিবেশে পল্টন কমিউনিটি সেন্টার, ৪২ নয়াপল্টন, ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচন পরিচালনা করেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার জনাব অধ্যাপক রফিক উল্যাহ সিকদার, সম্পাদক- দৈনিক আলোর বার্তা, সহ-সভাপতি বাংলাদেশ সংবাদপত্র পরিষদ। নির্বাচন কমিশনার জনাব ওবায়দুল হক খান, সদস্য- জাতীয় প্রেস ক্লাব ও সদস্য- ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন। নির্বাচন কমিশনার জনাব লায়ন এম.এইচ মারুফ সিকদার, প্রতিষ্ঠাতা সভাপতি- বাংলাদেশ আওয়ামী যুব স্বেচ্ছাসেবক লীগ, কেন্দ্রীয় কমিটি। ঢাকা প্রেস ক্লাবের নির্বাচনে নির্বাচিত হয়েছেন:- সভাপতি- মোঃ মাসুদুর রহমান, সহ-সভাপতি- মোঃ শাহজাহান মিয়া, সহ-সভাপতি- মোঃ জামিল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক- মোঃ মোসলেহ উদ্দিন বাচ্চু, যুগ্ম সম্পাদক- মোঃ নজরুল ইসলাম, অর্থ সম্পাদক- মোঃ মনির হোসেন, প্রচার ও তথ্য গবেষণা সম্পাদক- মোঃ ওবায়দুল হক, দপ্তর সম্পাদক- মোঃ দেলোয়ার হোসেন ভূঁইয়া, সমাজ কল্যাণ ও ত্রাণ সম্পাদক- মোসাঃ রাজিয়া আক্তার সুলতানা, সাংগঠনিক সম্পাদক- এম.এইচ মাহফুজ, নির্বাহী সদস্য- মোঃ শরীফ আহমেদ।

আগামী সপ্তাহ থেকে অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন শুরু : তথ্যমন্ত্রী
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক

আগামী সপ্তাহ থেকে সরকার অনলাইন নিউজ পোর্টালের নিবন্ধন দেয়া শুরু করবে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

সোমবার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ে তথ্যমন্ত্রী এ কথা জানান। একই সঙ্গে পত্রিকা ও টেলিভিশন চ্যানেলগুলোকে অনলাইন পরিচালনার জন্য অনুমোদন নিতে হবে বলে জানিয়েছেন তিনি।


হাছান মাহমুদ বলেন, ‘বাংলাদেশে যে অনলাইনগুলো আছে সেই অনলাইনগুলোকে নিবন্ধনের আওতায় আনার জন্য দরখাস্ত আহ্বান করেছিলাম। আমাদের তথ্য মন্ত্রণালয়ে ৩ হাজার ৫৯৭টি দরখাস্ত জমা পড়েছে। সেগুলো তদন্ত করার জন্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের কাছে পাঠিয়েছিলাম। পরবর্তী সময়ে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়, টেলিকম মিনিস্ট্রি, আইসিসি মিনিস্ট্রিসহ একটি সভা করেছিলাম।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ জানিয়েছিলাম যত দ্রুত সম্ভব অনলাইনগুলোর ব্যাপারে তদন্ত শেষ করে আমাদের কাছে জানানোর জন্য, যাতে আমরা নিবন্ধনের কাজটি শুরু করতে পারি। ইতোমধ্যে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে আমার কথা হয়েছে। আজ বা কালকের মধ্যে তারা তদন্ত শেষ করে কয়েকশ অনলাইনের তথ্য আমাদের কাছে পাঠিয়ে দেবে।’

‘আমরা আগামী সপ্তাহ থেকে অনলাইনের নিবন্ধন দেয়া শুরু করব। এ প্রক্রিয়া শেষ করতে কিছুদিন সময় লাগবে। ৩ হাজার ৬০০ অনলাইনের তদন্ত শেষ করা সহজ কাজ নয় এবং কয়েকটি সংস্থা তদন্ত করছে,’- বলেন হাছান মাহমুদ।

সাংবাদিক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আর নেই
                                  

এশিয়া বাণী ডেস্ক : দেশের প্রখ্যাত সাংবাদিক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রাজিউন)। দুই দিন লাইফ সাপোর্টে থাকার পর মঙ্গলবার (৯ জুলাই) রাত ১২টা ৫০ মিনিটে গেণ্ডারিয়ার আসগর আলী হাসপাতালে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন।

তিনি দীর্ঘদিন ধরে রক্ত জনিত রোগ মাইলো ফাইব্রোসেস (রক্তের ক্যানসার) এ আক্রান্ত ছিলেন।

মুহাম্মদ জাহাঙ্গীরের ছেলে অপূর্ব জাহাঙ্গীর তার জানান, ৮ জুলাই বেলা ১১টা থেকে লাইফ সাপোর্টে ছিলেন বাবা। মঙ্গলবার রাত ১২টা ৪০ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি।

তিনি জানান, বাবার মরদেহ হিমঘরে রাখা হয়েছে। বুধবার (১০ জুলাই) সকাল ৮টায় বাসায় নেওয়া হবে। দাফন ও জানাজার বিষয়ে সকালে পারিবারিকভাবে সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর ১৯৭০-এর দশকের প্রথম দিকে প্রিন্ট মিডিয়ায় সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরে তিনি ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ায় যুক্ত হন।

এছাড়া সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলেও যুক্ত ছিলেন তিনি। নাচের সংগঠন নৃত্যাঞ্চল ড্যান্স কোম্পানির সমন্বয়কের পাশাপাশি আন্তর্জাতিক থিয়েটার ইন্সটিটিউট (আইটিআই) বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের নির্বাহী কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি।

ক্র্যাবের সাবেক সভাপতি লাবলু আর নেই
                                  

ডেস্ক রিপাের্ট : বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাবেক সভাপতি সৈয়দ আখতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাবলু আর নেই (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্নাহ ইলাহি রাজিউন)। গতকাল সোমবার রাত ৯টা ৫০ মিনিটে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় (বিএসএমএমইউ) হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান। এর আগে রোববার দুপুরে শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাকে লাইফসাপোর্টে নেওয়া হয়।

তিনি লিভার ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন ঢাকা ও দিল্লিতে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

লাবলুর পারিবারিক সূত্রে জানা যায়, তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় শনিবার তাকে কেবিন থেকে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। রোববার দুপুর পৌনে ৩টায় তাকে লাইফসাপোর্ট দেয়া হয়।

ক্র্যাবের সাধারণ সম্পাদক দীপু সারোয়ার জানান, আজ মঙ্গলবার বেলা ১১টার দিকে তার মরদেহ ভোরের কাগজ অফিসে (তার কর্মস্থল) নেয়া হবে। সেখানে প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর দুপুর ১২টার দিকে সেগুনবাগিচার ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি (ডিআরইউ) ও বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) কার্যালয়ের সামনে দ্বিতীয় জানাজা এবং দুপুর ১টা ৩০ মিনিটে (বাদ জোহর) জাতীয় প্রেসক্লাবে তার তৃতীয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। সেখান থেকে তাকে দাফনের জন্য আজিমপুর কবরস্থানে নিয়ে যাওয়া হবে।

ভোরের কাগজের সাংবাদিক সৈয়দ আখতারুজ্জামান সিদ্দিকী লাবলু টানা ছয় বার (২০১২-২০১৬ সাল পর্যন্ত) বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সভাপতি নির্বাচিত হয়ে দায়িত্ব পালন করেন।

দুদককে ক্ষমা চাইতে হবে, সাংবাদিকদের বিক্ষোভ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে বক্তব্য দিতে দুই সাংবাদিককে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক) কার্যালয়ে তলফ ও উপস্থিত হয়ে বক্তব্য না দিলে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণের নোটিশ দেওয়ায় বিক্ষোভ করছেন সাংবাদিকরা। বুধবার (২৬ জুন) সকালে দুদক কার্যালয়ের সামনে তারা এ বিক্ষোভ শুরু করেন।

রাজধানীর সেগুন বাগিচায় দুদক কার্যালয়ের প্রধান গেটের সামনে অবস্থা নিয়ে ঢাকায় কর্মরত বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমের প্রায় শতাধিক সংবাদকর্মী বিক্ষোভ করছেন। অঘোষিত এ বিক্ষোভ কর্মসূচি থেকে দুদককে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান করা হয়।

বাংলাদেশ ক্রাইম রিপোর্টার্স অ্যাসোসিয়েশনের (ক্র্যাব) সাংগঠনিক সম্পাদক রাশেদ নিজাম বলেন, এটা কোনো চিঠির ভাষা হতে পারে না। তারা (দুদক) সাংবাদিকদের কাছ থেকে অনুসন্ধানের বিষয়ে সহযোগিতা চাইতে পারতো। কিন্তু তারা যে ভাষায় চিঠি দিয়েছে তা গ্রহণযোগ্য নয়। এ চিঠির জন্য তাদেরকে (দুদক) ক্ষমা চাইতে হবে।

অনলাইন নিউজ পোর্টাল বাংলা ট্রিবিউনের বিশেষ প্রতিনিধি দীপু সারোয়ার ও বেসরকারি টেলিভিশন এটিএন নিউজের জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক ইমরান হোসেন সুমনকে প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে বক্তব্য দিতে তলব করেছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। মঙ্গলবার (২৫ জুন) সংস্থাটির পরিচালক ও অনুসন্ধান দলের প্রধান শেখ মো. ফানাফিল্যা স্বাক্ষরিত পৃথক চিঠিতে তাদের আজ (২৬ জুন, বুধবার) সকাল সাড়ে ১০টায় দুদকের প্রধান কার্যালয়ে হাজির হতে বলা হয়।

দুদকের দুটি চিঠিতেই অভিযোগের সংক্ষিপ্ত বিবরণী হিসেবে উল্লেখ করা হয়, দুদকের পরিচালক খন্দকার এনামুল বাছিরের বিরুদ্ধে ডিআইজি মিজানুর রহমানের কাছ থেকে ৪০ লাখ টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ প্রসঙ্গে আপনার সাক্ষ্যগ্রহণ ও শ্রবণ একান্ত প্রয়োজন।

আরও বলা হয়, ‘উল্লিখিত অভিযোগের বিষয়ে আগামী ২৬/০৬/২০১৯ খ্রি. তারিখ ১০.৩০ ঘটিকায় নিম্নস্বাক্ষরকারীর কার্যালয়ে উপস্থিত হয়ে বক্তব্য প্রদানের জন্য আপনাকে অনুরোধ করা হলো। অন্যথায় আইনানুগ কার্যধারা গৃহীত হবে।’

এদিকে দুদকের দুর্নীতি নিয়ে প্রতিবেদন করার কারণেই দুই সাংবাদিককে নোটিশ দিয়ে পক্ষান্তরে রাষ্ট্রীয় সংস্থাটি ‘হুমকি’ দিচ্ছে বলে অভিযোগ করছেন গণমাধ্যকর্মীরা। নোটিশের বিষয়টি প্রকাশ পাওয়ার পরপরই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে বিষয়টি নিয়ে তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়।

নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড নিয়ে নোয়াবের বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করেছে বিএফইউজে-ডিইউজে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বিএফইউজে- বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের (ডিইউজে) নেতৃবৃন্দ নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড নিয়ে নোয়াবের বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করেছেন।

বিএফইউজে সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ডিইউজে সভাপতি আবু জাফর সূর্য ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী আজ শনিবার এক যৌথ বিবৃতিতে বলেন, নোয়াবের বক্তব্য অগ্রহণযোগ্য, অবাস্তব, প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করার অপপ্রয়াস ও নৈতিকতা বিবর্জিত।

তারা বলেন, গত ১৩ জুন মঙ্গলবার দেশের বিভিন্ন জাতীয় সংবাদপত্রে প্রকাশিত নিউজ পেপার ওনারস এসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (নোয়াব) ‘নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের সুপারিশ কতটা বাস্তব?’ শীর্ষক বিবৃতিটি সাংবাদিক সমাজকে দারুণভাবে মর্মাহত ও উদ্বিগ্ন করেছে।
সহকর্মী ও সহযোগীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে মালিক পক্ষের এ ধরনের ধারণা প্রসূত বক্তব্য বিএফইউজেÑ ডিইউজের কাছে অগ্রহণযোগ্য, অবাস্তব, প্রকৃত ঘটনাকে আড়াল করার অপপ্রয়াস ও নৈতিকতা বিবর্জিত বলে বিবেচিত হয়েছে।

বিবৃতিতে নেতারা বলেন, মালিক পক্ষের প্রতিষ্ঠানকে নিজের প্রতিষ্ঠান মনে করে সবসময় কাজ করে থাকেন সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীরা। সেখানে ৯ম মজুরি বোর্ড ঘোষণার চূড়ান্ত সময়ে গণমাধ্যমকর্মীদের রুটি-রুজি ও মর্যাদার জায়গাটিকে মালিক পক্ষ যেভাবে প্রশ্নবিদ্ধ করার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন তা সংবাদপত্র শিল্পের জন্য নতুন সঙ্কট তৈরি করবে। মালিকের সঙ্গে শ্রমিক তথা গণমাধ্যমকর্মীদের দূরত্ব ও বৈরী সম্পর্ক সৃষ্টি করবে, যার প্রভাব পুরো শিল্পকেই ক্ষতিগ্রস্ত করবে।

নোয়াবের দেয়া বিবৃতিতে ‘সরকারি বেতন স্কেলের অধীনে সেরা ছাত্ররা একজন সিভিল ক্যাডার শুরুতে গ্রেড-৯ এ যোগদান করেন ৩৫,৬০০ টাকা বেতনে।’-এটি সাংবাদিকদের সম্পর্কে অমর্যাদাকর বক্তব্য বলে মনে করে বিএফইউজে ও ডিইউজে।

তারা বলেন, অংশটি পড়ে মনে হয়েছে সাংবাদিকদের মধ্যে সেরা ছাত্র নেই। ক্যাডাররাই একমাত্র সেরা। অথচ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সর্বোচ্চ ডিগ্রীধারী অসংখ্য সেরা ছাত্র সাংবাদিকতা পেশায় রয়েছেন।
বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতারা বিবৃতিতে বলেন, ২০১৩ সালের ৯ সেপ্টেম্বর সরকার ৮ম মজুরি বোর্ড রোঁয়েদাদ ঘোষণা করে গেজেট প্রজ্ঞাপন জারি করলেও সংবাদপত্র মালিকরা নানা প্রতিবন্ধকতা তৈরি করছেন। একই ভাবে ২০১৮ সালে সরকার ৯ম মজুরি বোর্ডে ৪৫ শতাংশ হারে মহার্ঘ্য ভাতা প্রদানের প্রজ্ঞাপন জারি করলেও সংবাদপত্র মালিকরা সেটিকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে প্রায় একবছর ধরে গণমাধ্যমকর্মীদের মহার্ঘ্য ভাতা পরিশোধ না করে বঞ্চিত করছেন, যেটি বেআইনি।

নেতৃবৃন্দ বলেন, ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডে সাংবাদিক-কর্মচারীদের পক্ষ থেকে ২৫০ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছিল। মালিক পক্ষের চাপে সেসময় ৭৫ শতাংশ বেতন বৃদ্ধি করা হয়। ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড ৮৫ শতাংশ বেতন বৃদ্ধির প্রস্তাব করেছে। অথচ সভায় গণমাধ্যমকর্মীদের জন্য ২০০ শতাংশ বেতন-ভাতা বৃদ্ধির প্রস্তাব করা হয়েছিল। একইসঙ্গে মালিকদের প্রয়োজনীয় সুবিধা নিশ্চিতের বিষয়টিও আমলে নেয়ার জন্য অনুরোধ জানানো হয়েছিল।

নোয়াবের বক্তব্যের একটি অংশে বলা বলা হয়েছে ‘নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের চেয়ারম্যান এককভাবে মজুরি বোর্ডের রোঁয়েদাদ চূড়ান্ত করে এ সংক্রান্ত সুপারিশ মন্ত্রণালয়ে জমা দিয়েছেন।.সপ্তম ও অষ্টম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডও এভাবে একতরফাভাবে ঘোষণা করা হয়েছিল।’ যা সম্পূর্ণ অসত্য।
নেতৃবৃন্দ বলেন, ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের সভায় মালিক পক্ষের প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডে নোয়াবের নেতা মাহফুজ আনাম, মতিউর রহমান, এনায়েত উল্লাহ খান, মতিউর রহমান চৌধুরী, এম এ মালেক, এ এস এম শহীদুল্লাহ খান মালিক প্রতিনিধি হিসেবে ছিলেন।
ধারাবাহিকভাবে তারা বৈঠক করেছেন। মালিক পক্ষ লিখিত বক্তব্য উপস্থাপন করেন এবং বিভিন্ন অজুহাতে ওয়েজ বোর্ড বাস্তবায়নে বিরোধিতা করেছিলেন। মালিকদের সুপারিশের ভিত্তিতে সার্কুলেশন এবং গ্রস আয়ের ভিত্তিতে পত্রিকার ক্যাটাগরি নির্ধারণ করা হয়েছিল। প্রতিষ্ঠানের কোনো জনবল কাঠামো এবং ভৌত অবকাঠামোর কথা সেসময় উল্লেখ করা হয়নি, যা ছিল বেআইনি।
তারা বলেন, ৮ম মজুরি বোর্ড বেতন কাঠামো ৫টি ক্যাটাগরিতে ভাগ করা হলেও নোয়াব বিবৃতিতে শুধুমাত্র ’ক’ ক্যাটাগরির হিসাব দিয়েছে। গণমাধ্যমকর্মীদের প্রারম্ভিক গ্রেড-৩ বলে যে তথ্য দেয়া হয়েছে তাও সঠিক নয়। গ্রেড-৩ হচ্ছে স্টাফ রিপোর্টারের গ্রেড। ওয়েজ বোর্ড অনুযায়ী প্রারম্ভিক বেতন গ্রেড হচ্ছে-৪। ‘ক’ ক্যাটাগরির একটি পত্রিকায় গ্রেড-৪ এর বেতন স্কেল হচ্ছে ১২,৬০০/টাকা, আর ঙ’ গ্রেডের পত্রিকায়-৫,২৫০টাকা।

নোয়াব বা সংবাদপত্র মালিকেরা নিশ্চয়ই স্বীকার করবেন, সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা একটি বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান ও পেশা। সুতরাং এ বিশেষায়িত প্রতিষ্ঠান বা পেশার জন্য বিশেষভাবেই রাষ্ট্রকে ভাবতে হয়। সেখানে সরকারি চাকরির কোনো গ্রেডের সঙ্গে এর তুলনা করা মানেই গণমাধ্যমকর্মীদের মর্যাদা নিয়ে প্রশ্œ তোলা, যা কখনোই মালিক পক্ষের কাছ থেকে কাম্য নয়।
বিবৃতিতে বলা হয় , বিশেষায়িত পেশার কারণে অন্য কোনো পেশার গ্রেডিংয়ের সঙ্গে গণমাধ্যমকর্মীদের গ্রেডের তুলনা চলে না বা এর সুবিধাদি নিয়েও প্রশ্ন তোলা অবান্তর।

নোয়াবের বিবৃতিতে আয়কর নিয়ে যে প্রশ্ন তোলা হয়েছে সেটি ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডেও তোলা হয়েছিল উল্লেখ করে সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, ৫ম মজুরি বোর্ড রোঁয়েদাদে আয়কর সংবাদপত্র মালিক পক্ষ কর্তৃক প্রদেয় হবে উল্লেখ ছিল এবং প্রতিষ্ঠানের মালিক পক্ষ বরাবরই আয়কর প্রদানের দায়িত্ব পালন করে আসছে। ৭ম মজুরি বোর্ডের সুপারিশমালায়ও তা উল্লেখ ছিল। এরই ধারাবাহিকতায় ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের রোঁয়েদাদে আয়কর প্রদানের দায়িত্ব কর্তৃপক্ষের উপর ন্যস্ত করা হয়।
এছাড়া হাইকোর্টে দায়ের করা রিট পিটিশন ১২০৩/১৯৯১ মামলায়ও নির্দেশনা রয়েছে বলে উল্লেখ করা হয় জানিয়ে নেতৃবৃন্দ বলেন, পত্রিকা মালিকদের পক্ষ থেকে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগে মালিকপক্ষের দায়েরকৃত আপিল মামলায় চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের অপেক্ষায় রয়েছে।

সুতরাং আদালতে বিচারাধীন বিষয়ে প্রশ্ন তুলে নোয়াব আদালত অবমাননার কাজটি করলো কিনা প্রশ্ন তুলে নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, নোয়াবের বিবৃতিতে ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের সুপারিশে বেতন-ভাতা বিষয়ে আপত্তি জানিয়ে বলা হয়েছে, ‘২০১৩ সালের সেপ্টেম্বরে ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডে বৃদ্ধির পরিমাণ ছিল ৭৫ শতাংশ। এ কারণে গুটি কয়েক পত্রিকা ছাড়া অন্যরা ৮ম মজুরি বোর্ড বাস্তবায়ন করতে পারেনি।’ প্রশ্ন হলো বিষয়টি জানার পর নোয়াব কি পদক্ষেপ নিয়েছে?
“নোয়াব কি শুধুমাত্র নিজেদের স্বার্থ সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ভাববে, নাকি গণমাধ্যমকর্মীদের প্রতি দায়িত্ব পালনও তাদের নৈতিকতার মধ্য পড়ে? ৯ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের বিরুদ্ধে তথা গণমাধ্যমকর্মীদের স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়ে তারা যে বিরোধিতা করছে সেটি না করে সরকারি সুযোগ-সুবিধা নিয়ে যারা নিজেদের আখের গুছিয়েছে সেই মালিক পক্ষের বিরুদ্ধে তারা অবস্থান নিলে মনে হতো যথাযথ দায়িত্ব পালন করেছেন। সেটি তারা করেননি কেন সেই প্রশ্নও রাখেন নেতৃবৃন্দ।

সাংবাদিক নেতারা বলেন, বাংলাদেশ শ্রম আইন ২০০৬ বিধান অনুযায়ী দেশের সংবাদপত্র এবং সংশ্লিষ্ট গণমাধ্যমকর্মীরা পরিচালিত হন। আইনের ১৪৩ ধারা অনুযায়ী সরকার মজুরি বোর্ড গঠন এবং ১৪৫ ধারা অনুযায়ী বোর্ড তাদের সিদ্ধান্ত প্রকাশ করে। ১৪৬ ধারায় অন্তবর্তীকালীন মজুরী ঘোষণা করা হয়। ১৪৮ ধারা অনুযায়ী ১৪৫ ধারার অধীন ঘোষিত ন্যূনতম মজুরি প্রদানের বাধ্যবাধকতা আছে। কিন্তু নোয়াব সদস্যরা এসব আইন দীর্ঘদিন ধরে লংঘন করে আসছেন।
বিবৃতিতে বলা হয় , বিএফইউজে ও ডিইউজে মনে করে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে মিথ্যা তথ্য দিয়ে যেসব পত্রিকা সরকারি সুযোগ-সুবিধা গ্রহণ করেছে তার বিরুদ্ধেও আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন। নোয়াবের বিবৃতিতে যে সব তথ্য ও পরিসংখ্যান তুলে ধরা হয়েছে সেগুলো আমলে নিয়ে ৮ম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ডের সুপারিশ অনুযায়ী বেতন ভাতা পরিশোধ করা হচ্ছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে তদন্ত কমিটি গঠন করে দোষী মালিকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া উচিত।

শ্রম আইনের ২ (১০) ধারার কথা উল্লেখ করে নোয়াব বলেছে, ‘প্রতি বছর চাকরির জন্য একটি গ্র্যাচুইটির বিধান আছে।…সেখানে মজুরি বোর্ডে প্রতি বছরের জন্য ২টি গ্র্যাচুইটির বিধান একটি অবাস্তব আর্থিক চাপ।’ এছাড়া প্রতি ৩ বছর পরপর এক মাসের মোট বেতন ও ৩০ দিনের বিনোদন ছুটির বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছে। এর জবাবে নেতৃবৃন্দ বলেন, নোয়াবের সঙ্গে যুক্তরা নিশ্চয়ই স্বীকার করবেন অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংবাদপত্রের কর্মপ্রকৃতির তুলনা চলে না।

তারা বলেন, বিশেষায়িত জরুরি পর্যায়ের পেশার কারণে সংবাদপত্রে কর্মরতরা সার্বক্ষণিক কর্মকা-ে বা কর্ম অপেক্ষায় থাকেন। যেটি বাংলাদেশে বা পৃথিবীতে আর ৪টি পেশায় নিয়োজিতদের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য। এছাড়া সরকারি-বেসরকারি অন্যান্য সেক্টরে কর্মরতরা ছুটি বা অবসর গ্রহণ অথবা অন্যান্য কারণে যে সুযোগ-সুবিধা পেয়ে থাকেন সংবাদপত্রে তার অনেকাংশই নেই। সে কারণে বছরে দু’টি গ্র্যাচুইটি এবং এক মাসের বেতনসহ বিনোদন ছুটি অত্যন্ত যুক্তিসঙ্গত। মিমাংসিত বিষয়টি নিয়ে নতুনভাবে বিতর্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্য রহস্যজনক বলেও বিবৃতিতে উল্লেখ করেন তারা।

গণমাধ্যমকর্মী আর সরকারি-বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে কর্মরতদের চাকরির ধরণ একরকম নয় উল্লেখ করে নেতারা বলেন, সরকারি-বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে সপ্তাহে দুই দিন ছুটি থাকলেও গণমাধ্যমকর্মীরা তা পান না। এমনকি সংবাদপত্রের জন্য নির্ধারিত ছুটির দিনেও তাদেরকে দায়িত্ব পালন করতে হয়। বিনিময়ে প্রাপ্য তেমন নেই বললেই চলে। সাংবাদিকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে কাজ করলেও তাদের সমস্যা-সঙ্কটে ন্যায্য পাওনাটুকু থেকেও বঞ্চিত হন। অসংখ্য সংবাদপত্রে নিয়োগপত্র, পরিচয়পত্র, বাৎসরিক ইনক্রিমেন্ট, গ্রুপ ইন্স্যুরেন্সসহ শ্রম আইন ও মজুরি বোর্ড অনুযায়ী অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা দেয়া হচ্ছে না।

সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীরা বিপণন কর্মী নন উল্লেখ করে বিএফইউজে ও ডিইউজে নেতারা বলেন, একজন সাংবাদিককে নানাভাবে প্রশিক্ষিত এবং বহুমুখী দায়িত্ব পালন করতে হয়। সংবাদপত্র ও সাংবাদিকতা অন্য কোনো শিল্প ও পেশার মতো নয়। সেটা মালিকরা নিজেরাও জানেন।
তারা বলেন, যে কোনো শিল্প প্রতিষ্ঠান রুগ্ন হয় তার অব্যবস্থাপনা অদক্ষতা এবং স্বেচ্ছাচারিতার কারণে। এর দায়-দায়িত্ব সরকার বা সংশ্লিষ্ট শ্রমিক-কর্মচারী নয়, পরিচালকদের উপরই বর্তায়। সেটি আমলে না নিয়ে গণমাধ্যমকর্মীদের বেতন-ভাতা ও সুবিধাদি নিয়ে প্রশ্ন তোলা গর্হিত কাজ।

নেতৃবৃন্দ বলেন, সংবাদপত্র শিল্পের উৎকর্ষ ও সাংবাদিক শ্রমিক-কর্মচারীদের যথাযথ কল্যাণে নোয়াব বা মালিকপক্ষ সরকারের কাছ থেকে আরো সুযোগ-সুবিধা পেলে বিএফইউজে ও ডিইউজের কোনো আপত্তি নেই। তবে মজুরি বোর্ড ঘোষণার সূত্র ধরে সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারি ছাটাই করা হলে বা তাদেরকে ন্যায্য সুবিধা থেকে বঞ্চিত করা হলে অবশ্যই তা মেনে নেয়া হবে না।
প্রয়োজনে গণমাধ্যমকর্মী তথা সাংবাদিক-শ্রমিক-কর্মচারীদের ঐক্যবদ্ধ দুর্বার আন্দোলন গড়ে তোলার কথাও বলেন নেতৃবৃন্দ। বাসস

ডিআরইউ`র দুই যুগ পূর্তি উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত
                                  

অনলাইন ডেস্ক : পেশাদার রিপোর্টারদের সংগঠন ‘ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটি’র (ডিআরইউ) দুই যুগ পূর্ণ হলো আজ রোববার।

ডিআরইউ সভাপতি ইলিয়াস হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক কবির আহমেদ খান সেগুনবাগিচায় অবস্থিত সংগঠন চত্বরে আজ বেলা সাড়ে ১১টায় বর্তমান ও সাবেক নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে জাতীয় পতাকা ও সংগঠনের পতাকা উত্তোলন করেন। এসময় জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। পরে নেতৃবৃন্দ বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে ডিআরইউ’র দুই যুগ পূর্তির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।
এরপর ডিআরইউ চত্বর থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়। র‌্যালিটি সেগুনবাগিচার বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে পুনরায় সংগঠন চত্বরে এসে শেষ হয়।

এসময় ডিআরইউ’র সাবেক সভাপতি সাখাওয়াত হোসেন বাদশা ও সাইফুল ইসলাম, সাবেক সাধারণ সম্পাদক রাজু আহমেদ, মুরসালিন নোমানী ও সৈয়দ শুকুর আলী শুভ, ডিআরইউ’র বর্তমান যুগ্ম-সম্পাদক জামিউল আহসান সিপু, অর্থ সম্পাদক জিয়াউল হক সবুজসহ সংগঠনের বিপুল সংখ্যক সদস্য উপস্থিত ছিলেন।

আনন্দঘন পরিবেশে দুইযুগ পূর্তি উদযাপনের জন্য দিনব্যাপী অন্য কর্মসূচির মধ্যে রয়েছে- আজ বিকেল ৪টায় আলোচনা ও স্মৃতিচারণ এবং সন্ধ্যা ৬টায় বর্তমান ও সাবেক নেতৃবৃন্দকে সাথে নিয়ে কেক কাটা। এছাড়া সন্ধ্যা ৬টা ৪৩ মিনিটে দোয়া ও ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে।
উল্লেখ্য, রাজধানী ঢাকায় বিভিন্ন গণমাধ্যমে কর্মরত রিপোর্টারদের অধিকার আদায়, পেশাগত উন্নতি আর মর্যাদা প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে ১৯৯৫ সালের ২৬ মে ডিআরইউ প্রতিষ্ঠিত হয়। বাসস

৬৫ বারের মতো পেছালো সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ৬৫ বারের মতো পেছালো সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরোয়ার ও মেহেরুন রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল।

রবিবার (১২ মে) প্রতিবেদন দাখিলের দিন ধার্য থাকলেও জমা দেয়নি মামলার তদন্ত সংস্থা র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)। ঢাকা মহানগর হাকিম দেবব্রত বিশ্বাস আগামী ২৬ জুন প্রতিবেদন জমা দেওয়ার পরবর্তী দিন ধার্য করেন। শেরেবাংলা নগর থানার সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা ইউসুফ এ তথ্য জানিয়েছেন।

২০১২ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর পশ্চিম রাজাবাজারের ভাড়া বাসায় খুন হন মাছরাঙা টেলিভিশনের বার্তা সম্পাদক সাগর সরওয়ার ও এটিএন বাংলার জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক মেহেরুন রুনি। পরের দিন ভোরে তাদের ক্ষতবিক্ষত মৃতদেহ উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় রুনির ভাই বাদী হয়ে আদালতে একটি মামলা করেন। পরে চাঞ্চল্যকর এ হত্যা মামলার তদন্তভার ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) কাছে হস্তান্তর করা হয়।

এ মামলায় মোট আসামি ৮ জন। এরা হলো, রুনির বন্ধু তানভীর রহমান, বাড়ির নিরাপত্তারক্ষী এনাম আহমেদ ওরফে হুমায়ুন কবির, রফিকুল ইসলাম, বকুল মিয়া, মিন্টু ওরফে বারগিরা মিন্টু ওরফে মাসুম মিন্টু, কামরুল হাসান অরুণ, পলাশ রুদ্র পাল ও আবু সাঈদ। আসামিদের প্রত্যেককে একাধিবার রিমান্ডে নেওয়া হলেও তাদের কেউই স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়নি।

বাসস`র সাবেক বিশেষ সংবাদদাতা মুজিবুল হকের ইন্তেকাল
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থার (বাসস) সাবেক বিশেষ সংবাদদাতা মুজিবুল হক ভূইয়া (৬৩) আজ ভোরে নগরীর মিরপুরে নিজ ভাড়া বাসায় ইন্তেকাল করেছেন। ইন্নালিল্লাহি… রাজিউন।

পারিবারিক সূত্র জানায়, মুজিবুল হক রুপনগর থানা সংলগ্ন ডি-৩২ আরামবাগ হাউজিংয়ে আজ ভোর সাড়ে ছয়টায় ইন্তেকাল করেন। তিনি দীর্ঘদিন ধরে ডায়াবেটিকস ও কিডনি রোগে ভুগছিলেন।

মৃত্যুকালে তিনি স্ত্রী,এক ছেলে ও এক মেয়ে এবং অনেক আত্মীয়স্বজন, শুভাকাক্সক্ষী রেখে গেছেন।
আজ বাদ মাগরিব স্থানীয় স্কুল মাঠে নামাজে জানাজা শেষে ফেনী জেলার ছাগলনাইয়া উপজেলার নিজ গ্রাম গুটিয়া সোনাপুরে পারিবারিক কবরস্থানে তার দাফন সম্পন্ন হবে।

বাসস’র ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও প্রধান সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ মুজিবুল হকের ইন্তেকালে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

তিনি মরহুমের রুহের মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানান। বাসস

নবম ওয়েজ বোর্ড কার্যকর ও গণমাধ্যম কর্মী আইন পাসের দাবি সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মহান মে দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ সংবাদপত্রসেবীদের জন্য গঠিত নবম ওয়েজ বোর্ড কার্যকর ও অবিলম্বে গণমাধ্যম কর্মী আইন পাস ও সাংবাদিকদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানিয়েছেন।

বিএফইউজে-বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন ও ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে) আজ দুপুরে মহান মে দিবস উপলক্ষে ইউনিয়ন কার্যালয়ে যৌথভাবে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

বিএফইউজের সভাপতি মোল্লা জালালের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে’র মহাসচিব শাবান মাহমুদ, সহ-সভাপতি সৈয়দ ইশতিয়াক রেজা, কার্য নির্বাহী কমিটির সদস্য নূরে জান্নাত আখতার সীমা, ডিইউজে’র সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরী, বিএফইউজের সাবেক কোষাধ্যক্ষ আতাউর রহমান, সাংবাদিক মানিক লাল ঘোষ ও আসাদুজ্জামান।

সভা পরিচালনা করেন ডিইউজে’র যুগ্ম সম্পাদক আখতার হোসেন।
সভায় সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ বলেন, নবম ওয়েজবোর্ড কার্যকরে বিলম্ব হওয়ায় গণমাধ্যম কর্মীরা চরম অর্থনৈতিক টানা পোড়েনে দিনাতিপাত করছেন। বর্তমান বাজার পরিস্থিতিতে গণমাধ্যম কর্মীদের জীবন যাত্রা দুর্বিষহ হয়ে ওঠেছে। সাংবাদিক নেতৃবৃন্দ তাই অবিলম্বে সব প্রতিবন্ধকতা দূর করে নবম ওয়েজবোর্ড কার্যকরের জন্য সরকারের প্রতি আহ্বান জানান। বাসস

মাহফুজ উল্লাহর দ্বিতীয় জানাজা হবে জাতীয় প্রেসক্লাবে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বিশিষ্ট সাংবাদিক ও লেখক মাহফুজ উল্লাহর প্রথম জানাজা আজ রোববার জোহর নামাজের পর গ্রিনরোড ডরমিটরি মসজিদে অনুষ্ঠিত হবে। পরে বাদ আসর জাতীয় প্রেসক্লাবে দ্বিতীয় জানাজা শেষে তার ইচ্ছানুযায়ী তাকে মিরপুর শহিদ বুদ্ধিজীবী কবরস্থানে সমাহিত করা হবে।

তার পরিবারের পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হযেছে।
এর আগে শনিবার দিবাগত রাত পৌনে একটার দিকে তার মরদেহ থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এসে পৌঁছায়। মাহফুজ উল্লাহর মরদেহ তার মোহাম্মদপুর বাসায় রাখা হয়েছে।
শনিবার বেলা ১১টা পাঁচ মিনিটের দিকে ব্যাংককের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৯ বছর।

গত ২ এপ্রিল হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে পড়লে মাহফুজ উল্লাহকে রাজধানীর স্কয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। চিকিৎসকরা জানান, হৃদরোগ, কিডনি ও ফুসফুসের জটিলতায় ভুগছিলেন তিনি। তাকে সেখানে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) রেখে চিকিৎসা দেয়া হয়।
পরবর্তীতে শারীরিক অবস্থার তেমন উন্নতি না হওয়ায় গত ১১ এপ্রিল (বুধবার) রাত ১১টা ৫২ মি‌নি‌টে তাকে এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে করে ব্যাংককে নিয়ে যাওয়া হয়। এ সময় তার সঙ্গে তার অষ্ট্রেলিয়া প্রবাসী বড় মেয়ে ডা. মেঘলা ও জামাতা ছিলেন।


দেশের একজন প্রথিতযশা সাংবাদিক মাহফুজ উল্লাহ। ছাত্রজীবনে বাম রাজনীতি করা মাহফুজ উল্লাহ ষাটের দশকে ছাত্র ইউনিয়নের সভাপতি ছিলেন। তিনি সাংবাদিকতা ছাড়া খণ্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেছেন। পরে তিনি ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ে সাংবাদিকতা ও গণযোগাযোগ বিভাগে শিক্ষকতায় নিয়োজিত ছিলেন।
উল্লেখ্য, এর আগে গেল ২১ এপ্রিল মাহফুজ উল্লাহ মারা গেছেন- গণমাধ্যমে এ খবর প্রকাশিত হলে তার ছোট মেয়ে জানিয়েছিলেন তিনি বেঁচে আছেন।


   Page 1 of 3
     মতামত
নিজে সচেতন হোন, অন্যকেও সচেতন হতে বলুন : হানিফ সংকেত
.............................................................................................
মহামারী রোধে মহানবী (সা.) এর নির্দেশনা অত্যন্ত কার্যকর: মার্কিন গবেষক
.............................................................................................
করোনা প্রতিরোধে বিনামূল্যে মাস্ক দিতে হাইকোর্টে ব্যারিস্টার মওদুদের পরামর্শ
.............................................................................................
করোনা নিয়ে মোদির পরামর্শ
.............................................................................................
বিদেশিদের ঘরে থাকার পরামর্শ আইইডিসিআরের
.............................................................................................
ঢাকা প্রেসক্লাব দ্বি-বার্ষিক নির্বাচন ২০২০-২১ : সভাপতি- মোঃ মাসুদুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক- মোঃ মোসলেহ উদ্দিন বাচ্চু
.............................................................................................
আগামী সপ্তাহ থেকে অনলাইন পোর্টালের নিবন্ধন শুরু : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
সাংবাদিক মুহাম্মদ জাহাঙ্গীর আর নেই
.............................................................................................
ক্র্যাবের সাবেক সভাপতি লাবলু আর নেই
.............................................................................................
দুদককে ক্ষমা চাইতে হবে, সাংবাদিকদের বিক্ষোভ
.............................................................................................
নবম সংবাদপত্র মজুরি বোর্ড নিয়ে নোয়াবের বিবৃতি প্রত্যাখ্যান করেছে বিএফইউজে-ডিইউজে
.............................................................................................
ডিআরইউ`র দুই যুগ পূর্তি উপলক্ষে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
৬৫ বারের মতো পেছালো সাগর-রুনি হত্যা মামলার তদন্ত প্রতিবেদন
.............................................................................................
বাসস`র সাবেক বিশেষ সংবাদদাতা মুজিবুল হকের ইন্তেকাল
.............................................................................................
নবম ওয়েজ বোর্ড কার্যকর ও গণমাধ্যম কর্মী আইন পাসের দাবি সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের
.............................................................................................
মাহফুজ উল্লাহর দ্বিতীয় জানাজা হবে জাতীয় প্রেসক্লাবে
.............................................................................................
পিআইবির নতুন চেয়ারম্যান আবেদ খান
.............................................................................................
ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের সংশোধন চেয়ে রাস্তায় সম্পাদকরা
.............................................................................................
গোলাম সারওয়ারের মরদেহ দেশে
.............................................................................................
গোলাম সারওয়ারের মরদেহ আসছে আজ, বৃহস্পতিবার দাফন
.............................................................................................
বদি মাদকের গডফাদার, প্রমাণ কী?
.............................................................................................
কারা তুলে নিয়েছিলেন জানেন না উৎপল
.............................................................................................
প্রধানমন্ত্রীর সংবাদ সম্মেলন আজ
.............................................................................................
ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নির্বাচনে ভোটগ্রহণ চলছে
.............................................................................................
বিসিএস শিক্ষা ক্যাডারদের আন্দোলনে নামার হুমকি
.............................................................................................
এভ্রিল বাদ, ‘সেরা সুন্দরী’র মুকুট জেসিয়ার
.............................................................................................
ভারতে গরু মেরে সাম্প্রদায়িক অশান্তি সৃষ্টির ষড়যন্ত্র ফাঁস
.............................................................................................
কাঁদলেন এভ্রিল
.............................................................................................
ঢাকায় ভারতের অর্থমন্ত্রী
.............................................................................................
নবম ওয়েজবোর্ড গঠনের দাবিতে ২০ সেপ্টেম্বর দিনব্যাপী অনশন কর্মসূচি
.............................................................................................
বাসস`র সাবেক সিনিয়র সাংবাদিক নজরুল ইসলামের ইন্তেকাল
.............................................................................................
নবম ওয়েজবোর্ড ঘোষণার দাবিতে ৩০ জুলাই থেকে কঠোর আন্দোলন
.............................................................................................
তাড়াশ রিপোর্টার্স ইউনিটির ইফতার মাহফিল অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
সাংবাদিক মেহেদী হাসান পলাশের মাতার ইন্তেকাল, ডিআরইউ`র শোক
.............................................................................................
রমজানের আগেই নবম ওয়েজ বোর্ড ঘোষণার দাবি
.............................................................................................
চলে গেলেন সমকাল পত্রিকার সার্কুলেশন প্রধান অমিত রাইহান
.............................................................................................
ইনকিলাব সাংবাদিকদের গণচাকুরিচ্যুতিতে ডিআরইউ`র উদ্বেগ ও প্রতিবাদ
.............................................................................................
​দুই মামলায় জামিন পেলেন নতুন সময়ের নির্বাহী সম্পাদক
.............................................................................................
আজ বিশ্ব মুক্ত গণমাধ্যম দিবস
.............................................................................................
অবিলম্বে নবম ওয়েজবোর্ড ঘোষণার দাবি সাংবাদিক নেতৃবৃন্দের
.............................................................................................
চলে গেলেন সাংবাদিক ওমর ফারুক
.............................................................................................
সংবাদ বিনিময় ও গণমাধ্যম সহযোগিতা বিষয়ে বাংলাদেশ ও রাশিয়ার মধ্যে দুটি সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর
.............................................................................................
বাসসের সাবেক প্রধান সম্পাদক হোসাইন-উজ-জামান চৌধুরীর ইন্তেকাল
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD