| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ১ অক্টোবর সৌদিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু : ল্যান্ডিং পারমিশন মেলেনি   * স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে ১৭ লাখ টাকায় হাতি কিনে দিলেন স্বামী   * অ্যাটর্নি জেনারেলের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন   * স্বাস্থ্য খাতের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ ২০ জনের সম্পদের বিবরণী চেয়ে দুদকের নোটিশ   * সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৬   * ইয়াঙ্গুনে লকডাউন জারি   * করোনার প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় চেক রিপাবলিকের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ   * তিন দিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ   * ইরাক দিয়ে তেল চুরি করে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র: সিরিয়া   * অনুমতি মিলেছে এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের  

   অপরাধ ও অনিয়ম -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৬

অনলাইন ডেস্ক : সাভারে বিয়ের প্রলোভনে এক তরুণীকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে তার প্রেমিকসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে গ্রেফতার আসামিদের আদালতে প্রেরণ করে সাভার মডেল থানা পুলিশ।

এর আগে রবিবার রাতে উপজেলার হেমায়েতপুর নতুনপাড়া এলাকার একটি নির্মাণাধীন ভবনের তৃতীয় তলায় এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার বিষ্ণপুর গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে সাকিবুর রহমান রিফাত (২০), চাপাইনববাগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর থানার মিনি বাজার গ্রামের মমিন মিয়ার ছেলে মোঃ বাবু(২৬), একই থানার বমপুর গ্রামের তহুরুল ইসলামের ছেলে ইউসুফ আলী(১৯), একই জেলার ভোলাহাট থানার পীরগাছি বাজার এলাকার মহিবুল হকের ছেলে সোহেল রানা (৩০), একই থানার বারইপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে মাইনুল ইসলাল (৩০) ও সদর থানার নামেরাই হাজীপাড়া গ্রামের নুরুল হুদার ছেলে মোকারম মিয়া (২৬)।

পুলিশ জানায়, বেশ কিছুদিন ধরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমের ভুক্তভোগী তরুণীর সাথে অভিযুক্ত ধর্ষক সাকিবুর রহমান রিফাতের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই সূত্র ধরে রবিবার বিকেলে সাভারের হেমায়েতপুর এলাকায় প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে আসে রিফাত। পরবর্তীতে তাকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে রাতে হেমায়েতপুর নতুনপাড়া এলাকায় একটি নির্মাণাধীন ভবনে নিয়ে যায়। সেখানে তার বন্ধুদের সহায়তায় ওই তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সাকিবুর রহমান রিফাত। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ভুক্তভোগী তরুণীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করে। পরে এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই তরুণীর প্রেমিক ও তার পাঁচ সহযোগীকে আটক করা হয়।

সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন এন্ড কমিউনিটি পুলিশ) মোহাম্মদ আল-আমিন তালুকদার বলেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রবিবার রাতে সাভারের কলমা এলাকা থেকে ওই তরুণীকে ডেকে নিয়ে আসে প্রেমিক সাকিবুর রহমান রিফাত। পরে তাকে হেমায়েতপুর এলাকার একটি নির্মাণাধীন ভবনে নিয়ে ধর্ষণ করে। এঘটনায় ধর্ষক ও তার পাঁচ সহযোগীসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে সোমবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৬
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সাভারে বিয়ের প্রলোভনে এক তরুণীকে ডেকে নিয়ে ধর্ষণের অভিযোগে তার প্রেমিকসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

সোমবার দুপুরে গ্রেফতার আসামিদের আদালতে প্রেরণ করে সাভার মডেল থানা পুলিশ।

এর আগে রবিবার রাতে উপজেলার হেমায়েতপুর নতুনপাড়া এলাকার একটি নির্মাণাধীন ভবনের তৃতীয় তলায় এই ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে।
গ্রেপ্তারকৃতরা হলো- ফরিদপুর জেলার ভাঙ্গা থানার বিষ্ণপুর গ্রামের মতিউর রহমানের ছেলে সাকিবুর রহমান রিফাত (২০), চাপাইনববাগঞ্জ জেলার গোমস্তাপুর থানার মিনি বাজার গ্রামের মমিন মিয়ার ছেলে মোঃ বাবু(২৬), একই থানার বমপুর গ্রামের তহুরুল ইসলামের ছেলে ইউসুফ আলী(১৯), একই জেলার ভোলাহাট থানার পীরগাছি বাজার এলাকার মহিবুল হকের ছেলে সোহেল রানা (৩০), একই থানার বারইপাড়া গ্রামের মজিবুর রহমানের ছেলে মাইনুল ইসলাল (৩০) ও সদর থানার নামেরাই হাজীপাড়া গ্রামের নুরুল হুদার ছেলে মোকারম মিয়া (২৬)।

পুলিশ জানায়, বেশ কিছুদিন ধরে মোবাইল ফোনের মাধ্যমের ভুক্তভোগী তরুণীর সাথে অভিযুক্ত ধর্ষক সাকিবুর রহমান রিফাতের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে উঠে। সেই সূত্র ধরে রবিবার বিকেলে সাভারের হেমায়েতপুর এলাকায় প্রেমিকাকে ডেকে নিয়ে আসে রিফাত। পরবর্তীতে তাকে বিভিন্ন স্থানে ঘুরিয়ে রাতে হেমায়েতপুর নতুনপাড়া এলাকায় একটি নির্মাণাধীন ভবনে নিয়ে যায়। সেখানে তার বন্ধুদের সহায়তায় ওই তরুণীকে জোরপূর্বক ধর্ষণ করে সাকিবুর রহমান রিফাত। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে ভুক্তভোগী তরুণীকে উদ্ধার করে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ওয়ানস্টপ ক্রাইসিস সেন্টারে প্রেরণ করে। পরে এঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগে ওই তরুণীর প্রেমিক ও তার পাঁচ সহযোগীকে আটক করা হয়।

সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (অপারেশন এন্ড কমিউনিটি পুলিশ) মোহাম্মদ আল-আমিন তালুকদার বলেন, বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে রবিবার রাতে সাভারের কলমা এলাকা থেকে ওই তরুণীকে ডেকে নিয়ে আসে প্রেমিক সাকিবুর রহমান রিফাত। পরে তাকে হেমায়েতপুর এলাকার একটি নির্মাণাধীন ভবনে নিয়ে ধর্ষণ করে। এঘটনায় ধর্ষক ও তার পাঁচ সহযোগীসহ ৬ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। পরে তাদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করে সোমবার দুপুরে আদালতে পাঠানো হয়েছে বলেও জানান তিনি।

তিন দিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ-ডাকবাংলা সড়কের ২৩ কিলোমিটার সড়কের নির্মাণ কাজ শেষ হওয়ার ৩দিন পরই উঠে যাচ্ছে পিচ। সড়কটি নির্মাণের কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। ২৩ কিলোমিটার সড়কের মধ্যে ৪ কিলোমিটার রাস্তায় পিচ ঢালাই দেওয়া হয়েছে। ঢালাইয়ের পাঁচদিনের মাথায় কালীগঞ্জ উপজেলার শ্রীরামপুর এলাকায় প্রায় আধাকিলোমিটার রাস্তার পিস ঢালাই উঠে যাচ্ছে, সরে যাচ্ছে খোয়া। স্থানীয়রা সড়কের পিচ-খোয়া হাত দিয়েই উঠিয়ে ফেলছে।

জানা গেছে, পিএমপি প্রকল্পের অধীন ঝিনাইদহের ডাকবাংলা বাজার-কালীগঞ্জ সড়কের ২৩ কিলোমিটার মজবুতিসহ ওয়ারিংকোর্সের কাজ চলছে।
খুলনার ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মোজাহার এন্টারপ্রাইজ প্রাইভেট লিমিটেড কাজটির প্রকৃত ঠিকাদার। তবে বাস্তবে কাজটি করছেন স্থানীয় ঠিকাদার মিজানুর রহমান মাসুম। এ সড়কটির নির্মাণে ব্যয় ধরা হয়েছে প্রায় ২০ কোটি টাকা।

এলাকাবাসী জানায়, পাঁচদিন আগে পিচ ঢালাই দেওয়া হয়েছে নতুন এ সড়কটিতে। কিন্তু নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করায় ঢালাইয়ের পাঁচদিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে পিচ এবং সড়কটির মাঝে মাঝে বড় ধরনের ফাটল দেখা দিয়েছে। এলাকাবাসী সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষণ করেছেন।
এ ব্যাপারে ঝিনাইদহ সড়ক বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহম্মদ জিয়াউল হায়দারের মোবাইলে কল দেওয়া হলেও তিনি ধরেননি।

মানিকগঞ্জে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসে ধর্ষণের শিকার তরুণী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মানিকগঞ্জের সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসা নিতে আসা এক তরুণী ধর্ষণের শিকার হয়েছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। গত ১১ সেপ্টেম্বর রাতে এ ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি গোপন রাখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। অবশেষে ভুক্তভোগী তরুণীর পরিবার মুখ খুললে এ ঘটনা জানাজানি হয়।

হাসপাতালে সিসি ক্যামেরা থাকলেও ধর্ষককে চিহ্নিত করা যায়নি। এ ঘটনায় ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। কমিটি দুই দিনের মধ্যে প্রতিবেদন দাখিল করবেন। এ ঘটনায় থানায় কোনো মামলাও হয়নি।

ভুক্তভোগী তরুণীর মা জানান, জ্বর ও শরীর ব্যথা থাকায় তার মেয়েকে গত ৩ সেপ্টেম্বর সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। তার শারীরিক অবস্থার উন্নতি হলে ১১ সেপ্টেম্বর রাতে ১২ সেপ্টেম্বর তাকে ছাড়পত্র দেয়া হবে বলে জানান নার্সরা। কিন্তু ১১ সেপ্টেম্বর রাত ১১টার দিকে তার মেয়েকে বেডে না পেয়ে অনেক খোঁজাখুঁজি করেন। এক পর্যায়ে বারান্দায় অচেতন অবস্থায় মেয়েটিকে পড়ে থাকতে দেখেন। কাছে গিয়ে দেখেন অতিরিক্ত রক্তক্ষরণ হচ্ছে। এ সময় ডাক্তার ও নার্সদের ডেকে আনলে তারা দ্রুত অ্যাম্বুলেন্সে করে জেলা সদর হাসপাতালে পাঠিয়ে দেন। পরে মেয়ের কাছে থেকে জানতে পারেন ওই রাতে এক যুবক তাকে হাসপাতালের বেড থেকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করে।

তরুণীর বাবা জানান, তিনি একজন ভ্যানচালক। ধর্ষককে চিনতে না পারায় এবং মানসম্মানের ভয়ে তিনি কোনো অভিযোগ করেননি। মেয়ের ভবিষৎ চিন্তা করেই তিনি চুপ ছিলেন।

এদিকে এক সপ্তাহ আগে হাসপাতালের ভেতরে রোগীকে ধর্ষণের ঘটনা ঘটলেও বিষয়টি গোপন রাখে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ দেখে ধর্ষককে শনাক্ত না করে বিষয়টি থামাচাপা দেয়ায় নিন্দা জানিয়েছেন স্থানীয়রা।

সাটুরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মামুনুর রশীদ জানান, তরুণী ধর্ষণের অভিযোগের বিষয়ে হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. সাদিককে প্রধান করে শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ৭ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই কমিটি আগামী দুই কর্মদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দাখিল করবেন। এই ঘটনার সাথে যেই জড়িত থাকুক না কেন তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

গৌরনদীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বরিশালের গৌরনদী উপজেলার এক মাদ্রাসার ছাত্রীকে অপহরণ করে দু`দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করেছে।

এ ছাড়া গৌরনদী পৌরসভার এক নুরানি মাদ্রাসার শিশু ছাত্রীকে ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ঘটনায় রোববার থানায় পৃথক দুটি মামলা করা হয়েছে। পুলিশ অপহরণ ও ধর্ষণ মামলার আসামি আবদুস সালাম হাওলাদারকে গ্রেফতার করেছে। অপর ধর্ষণচেষ্টার মামলার আসামি আবু বক্কর বেপারিকে গ্রেফতারের চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও থানার এসআই কেএম আবদুল হক জানান, উপজেলার উত্তর বিজয়পুরের আবদুল মজিদ হাওলাদারের ছেলে আবদুস সালাম হাওলাদার শুক্রবার এক বন্ধুর সহযোগিতায় ওই ছাত্রীকে অপহরণ করে নিয়ে যায়। বরিশাল শহরে দু`দিন আটকে রেখে ধর্ষণ করে আবদুস সালাম। এ ঘটনায় ছাত্রীর মা বাদী হয়ে আবদুস সালাম হাওলাদার ও তার এক বন্ধুকে আসামি করে রোববার থানায় অপহরণ ও ধর্ষণ মামলা করেন।

থানা পুলিশ তাৎক্ষণিক উত্তর বিজয়পুর থেকে মামলার এজাহারভুক্ত আসামি আবদুস সালামকে গ্রেফতার করে। তার বন্ধুকে গ্রেফতারের চেষ্টা চলছে। এছাড়া ধর্ষণচেষ্টার অভিযোগে শিশুটির মা বাদী হয়ে আবু বক্কর বেপারিকে আসামি করে রোববার থানায় মামলা করেন। জবানবন্দি দেয়ার জন্য শিশুটিকে বরিশাল আদালতে পাঠানো হয়েছে। অভিযুক্ত আসামিকে গ্রেফতারের জোর প্রচেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই আবদুল হক জানান।

নামাজ পড়িয়ে ফেরার পথে খুন হলেন ইমাম
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ময়মনসিংহের গফরগাঁও উপজেলার পাগলা থানার বেলদিয়া গ্রামে শনিবার (১৯ সেপ্টেম্বর) রাতে মসজিদে এশার নামাজের ইমামতি শেষে বাড়ি ফেরার পথে হাফেজ মাওলানা মো. আজিম উদ্দিন নামে এক ইমামকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বত্তরা। পাগলা থানার ওসি মো. শাহিনুজ্জামান খান ঘটনাটি নিশ্চিত করেছেন।

নিহত ইমাম বেলদিয়া গ্রামের মৃত শেখ মজরত আলীর ছেলে। তিনি গত ২০ বছর ধরে সাধুয়া জামে মসজিদে ইমামতি করেন।

নিহতের পরিবার, এলাকাবাসী ও থানা পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, হাফেজ মাওলানা মো. আজিম উদ্দিন প্রতিদিনের ন্যায় সাধুয়া জামে মসজিদে এশার নামাজের ইমামতি করে রাত সোয়া আটটার দিকে বাড়ি ফিরছিলেন। সাধুয়া-নিগুয়ারি খালের পাশে সাধুয়া মার্কেটের নিকটে অজ্ঞাতনামা দুর্বত্তরা তার গলা কেটে জবাই করে খুন করে ফেলে রেখে যায়। নিহতের শরীরের বিভিন্ন স্থানে আরো আরও পাঁচ/ ছয়টি ধারোলো অস্ত্রের আঘাত আছে। পথচারীরা দেখতে পেয়ে চিৎকার করলে এলাকাবাসী উপস্থিত হয়ে পাগলা থানা পুলিশকে খবর দেয়।

নিহতের স্ত্রী বিলকিস বেগম জানান, তার স্বামী সাদাসিদা মানুষ, কোন শক্র নাই । কারা, কেন এই খুন করল জানি না।

পাগলা থানার ওসি মো. শাহিনুজ্জামান খান জানান, খবর পেয়ে পাগলা থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে মরদেহ উদ্ধার করেছে। খুনের রহস্য উদঘাটন ও জড়িতদের গ্রেফতারে অভিযান চলছে।

সাভারে অপহৃত শিশু রংপুর থেকে উদ্ধার, অপহরণকারী দম্পতি গ্রেফতার
                                  

সাভার থেকে অপহরণের চারদিন পর আমেনা খাতুন নামে দুই বছর ৬ মাস বয়সী এক শিশুকে রংপুর থেকে উদ্ধার করেছে সাভার মডেল থানা পুলিশ। এ সময় শিশুটিকে অপহরণ করে মুক্তিপণ দাবিকারী অপহরণকারী দম্পতিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

গ্রেফতাররা হলেন-নীলফামারী জেলার জলঢাকা থানার বারইপাড়া গ্রামের আলিয়ার হোসেনের ছেলে আশরাফুল ইসলাম (২২) ও তার স্ত্রী বগুড়া জেলার শিবগঞ্জ থানার শোলাগাড়ি গ্রামের দেলোয়ার হোসেনের মেয়ে সামসুর নাহার (৩২)।

সাভার মডেল থানার উপ-পরিদর্শক হামিদুর রহমান জানান, পোশাকশ্রমিক আসাদুল ইসলাম সাভার পৌর এলাকার পশ্চিম ব্যাংক টাউন এলাকায় পরিবার নিয়ে ভাড়া থাকেন। গত চারদিন আগে তাদের প্রতিবেশী সামসুর নাহার আসাদুলের আড়াই বছর বয়সী কন্যা শিশুকে নিয়ে দোকানে চকলেট কিনতে গিয়ে আর ফিরে আসেননি। পরবর্তীতে আসাদুলের মোবাইলে ফোন করে মেয়েকে অপহরণ করা হয়েছে জানিয়ে এক লাখ টাকা মুক্তিপণ দাবি করেন। অন্যথায় তাকে হত্যা করে লাশ গুম করার হুমকি দেয়া হয়। ওইদিনই ঘটনাটি জানিয়ে সাভার মডেল থানায় বিষয়টি জানিয়ে একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন অপহৃত শিশুর বাবা।

সাভার মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) সাইফুল ইসলাম জানান, শিশু অপহরণ এবং মুক্তিপণের বিষয়টি আমাদেরকে জানানো হলে বিষয়টি গুরুত্ব দিয়ে অপহৃত শিশুটিকে উদ্ধারে রংপুর, নীলফামারী, বগুড়া ও গাইবান্ধার বিভিন্ন এলাকায় অভিযান পরিচালনা করা হয়। টানা তিন দিনের অক্লান্ত পরিশ্রমের তথ্যপ্রযুক্তির সহায়তায় রংপুর মডার্ন মোড় এলাকায় অপহরণকারীদের অবস্থান শনাক্ত করা হয়। পরে শুক্রবার (১৮ সেপ্টেম্বর) দুপুরে তাদেরকে গ্রেফতার এবং অপহৃত শিশু আমেনা খাতুনকে অক্ষত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়।

শিশুটিকে শুক্রবার রাতেই তার বাবা-মায়ের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হয়। গ্রেফতারদের বিরুদ্ধে সাভার মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে। মামলা নম্বর ৩৫।

ধর্ষণ মামলায় তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র গ্রেফতার!
                                  

অনলাইন ডেস্ক : গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া ইউনিয়নের দুর্গাপুর গ্রামে পাঁচ বছরের শিশুকে ধর্ষণের মামলায় ৯ বছরের এক শিশুকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। অভিযুক্ত শিশুটি স্থানীয় আলোক বর্তিকা স্কুলের তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র।

বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) বিকেলে অভিযুক্ত শিশুটিকে গাইবান্ধা আমলি আদালতে হাজির করে সাঘাটা থানা পুলিশ। পরে সন্ধ্যায় আদালতের বিচারক কাজী ফখরুল ইসলাম শিশুটিকে গাইবান্ধা জেলা কারাগারের মাধ্যমে যশোর শিশু উন্নয়ন কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

গাইবান্ধা কোর্ট পুলিশের পরিদর্শক তোফাজ্জল হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, ৯ বছরের শিশুটি গত শনিবার (১২ সেপ্টেম্বর) পাশের বাড়ির পাঁচ বছরের এক শিশুকে জোড় করে একটি নির্মাণাধীন বাড়িতে নিয়ে ধর্ষণ করে। এ সময় নির্যাতনের শিকার শিশুটির চিৎকারে ওই শিশুটি পালিয়ে যায়। পরে তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার সাক্ষী সাত বছর বয়সী দুই শিশু। ঘটনার পাঁচদিন পর বৃহস্পতিবার (১৭ সেপ্টেম্বর) নির্যাতনের শিকার শিশুটির বাবা বাদী হয়ে সাঘাটা থানায় ধর্ষণ মামলা করেন।

অভিযুক্ত শিশুর বড় ভাই বলেন, বিষয়টি সাজানো। সামাজিক ও অর্থনৈতিকভাবে আমাদের ক্ষতিগ্রস্ত করতে এ মামলা করা হয়েছে।

অভিযুক্ত শিশুর বাবা বলেন, পারিবারিকভাবে আমাদের হেনস্তা করতে মামলাটি করা হয়েছে। আমার ছেলে একটি শিশু মেয়েকে জোর করে ধর্ষণ করার উপযুক্ত বয়সে এখনও পৌঁছায়নি। আমি ঘটনার সুষ্ঠু তদন্ত করে ব্যবস্থা গ্রহণে প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করছি।

আসামিপক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট মঞ্জুর মোর্শেদ বাবু বলেন, বিষয়টি সাজানো। ৯ বছরের একটি শিশুর শরীর ধর্ষণ করার জন্য কতটা উপযোগী এটা সবাই জানেন। এ ছাড়া ভিকটিমকে স্থানীয়ভাবে ডাক্তারি পরীক্ষা না করিয়ে রংপুরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়টিও প্রশ্নবিদ্ধ।

সাঘাটা থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. বেলাল হোসেন বলেন, এ ঘটনায় সাঘাটা থানায় একটি মামলা করা হলে বিকেলে অভিযুক্ত শিশুটিকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়।

টেকনো ড্রাগসকে সাড়ে ১০ লাখ টাকা জরিমানা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : নরসিংদীতে ওষুধ তৈরির লাইসেন্স না থাকায় টেকনো ড্রাগসকে সাড়ে ১০ লাখ টাকা জরিমানা ও ৪০ লাখ টাকার অনুমোদনহীন ওষুধ ধ্বংস করেছেন ভ্রাম্যমাণ আদালত।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত শিবপুরের বিসিক শিল্পনগরীতে অবস্থিত টেকনো ড্রাগস লিমিটেডের ৩নং ইউনিটে এ অভিযান পরিচালনা করেন জেলা প্রশাসনের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

নরসিংদী জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, মৎস্য ও পশু খাদ্যের প্রিমিক্স তৈরি করার লাইসেন্স এবং মানবদেহের জন্য বিভিন্ন এন্টিবায়োটিক, হরমোন, ডেক্সামিথাজন, স্টেরয়েড ড্রাগ উৎপাদনের জন্য ওষুধ প্রশাসনের কোনো অনুমোদন নেই টেকনো ড্রাগসের। এজন্য ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রইছ আল রেজুয়ান ১০ লাখ ৫০ হাজার টাকা জরিমানা করেন। এসময় প্রায় ৪০ লাখ টাকার অনুমোদনহীন ওষুধ ও ওষুধ তৈরিতে ব্যবহৃত কাঁচামাল ধ্বংস করা হয়।

ভ্রাম্যমাণ আদালত পরিচালনার সময় শিবপুর উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা মো. কাবিরুল ইসলাম ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) শ্যামল চন্দ্র বসাক উপস্থিত ছিলেন।

খাগড়াছড়িতে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, পুলিশ সদস্য গ্রেফতার
                                  

অনলাইন ডেস্ক : খাগড়াছড়ির দীঘিনালায় ৬ষ্ঠ শ্রেণি পড়ুয়া এক স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের ঘটনায় মো. নাজমুল হাসান নামে এক পুলিশ কনস্টেবলকে আটক করা হয়েছে।

দীঘিনালা উপজেলার মেরুং ইউনিয়নের ভারী এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় ওই শিশুর বাবা বাদী হয়ে ক্যাম্পের সদস্য নাজমুল হাসানের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, পুলিশ সদস্য নাজমুল হাসান দীঘিনালা থানার আওতাধীন অটল টিলা পুলিশ ক্যাম্পে কর্মরত ছিল। ক্যাম্পের পাশে তাদের বাড়ির হওয়ায় ওই স্কুলছাত্রীর সাথে পুলিস সদস্য নাজমুল হাসানের পরিচয় হয়। সোমবার বিকেলে ক্যাম্পের পাশে জনজাগরণ বৌদ্ধ বিহারের পাশে বাগানে নিয়ে গিয়ে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ করে সে। এসময় স্থানীয়রা দেখে এবং নাজমুল হাসানকে আটক করে মারধর করে। পরে তারা পুলিশ ক্যাম্প ইনচার্জ সন্তোষ কুমার মজুমদারের জিম্মায় ছেড়ে দেয়।

মঙ্গলবার (১৫ সেপ্টেম্বর) সকালে তাকে আটক করে আদালতে পাঠানো হয়। দীঘিনালা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা উত্তম চন্দ্র দেব ঘটনার সত্যতা স্বীকার করেছেন। জানান, ধর্ষণের অভিযোগে অটল টিলা পুলিশ ক্যাম্পের সদস্য নাজমুল হাসানকে গ্রেফতার করে আদালতে পাঠানো হয়েছে। তার বিরুদ্ধে আইনি প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে।

ছেলে সেজে মেয়েদের সাথে সমকামিতা, অবশেষে গ্রেফতার সেই টিকটকার
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ছেলে সেজে মেয়েদের প্রেমের জালে ফাঁসিয়ে সমকামিতায় বাধ্য করা নাটোরে আলোচিত নারী রুপ ওরফে সুফিয়া বেগম রুপাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। সোমবার সকালে নাটোর শহরের উপরবাজার এলাকার বাসা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়।

নাটোর সদর থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল মতিন জানান, রুপা খাতুন তারই ছোট বোনের ননদ সাদিয়া ইসলাম মৌকে প্রেমের ফাঁদে ফেলে সমকামিতায় বাধ্য করে। এক পর্যায়ে গত ২১ আগস্ট মৌকে নিয়ে পালিয়ে যায় রুপা। তিনদিন পর ২৪ আগস্ট মৌকে নিয়ে নিজ বাড়িতে ফিরে রুপা। ওই দিনই রুপার বাসায় মৌ এবং রুপা দু`জনকেই বিষ পান করা অবস্থায় উদ্ধার করে তাদের স্বজনরা। উভয়কেই নেয়া হয় রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। সেখানে মারা যায় মৌ। সুস্থ হয়ে নিরুদ্দেশ হয় রুপা।

এ ঘটনায় মৌয়ের বাবা হত্যার অভিযোগ এনে সুফিয়া বেগম রুপাসহ চারজনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা দায়ের করেন। নাটোরের পুলিশ সুপার লিটন কুমার সাহা জানান, রুপাকে গ্রেফতারের পরই আদালতের মাধ্যমে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। রুপার বাবা নাটোর শহরের ভাবানীগঞ্জ এলাকার এক পান বিক্রেতা রুবেল হোসেন জানান, তিনি তার মেয়ের এ ধরনের কর্মকাণ্ড সম্পর্কে অবগত নন।

উল্লেখ্য, আলোচিত রুপা খাতুন চলাফেরা করতো পুরুষের পোশাকে। বাইরে থেকে নিজেকে পুরুষ বানিয়ে রাখতো সে। নিজেকে পরিচয় করাতো বিজিএমসির একজন কর্মকর্তা হিসাবে। রুপ নামে কিছু ভিডিও বানিয়ে টিকটকে আপলোড করে তরুণীদের মাঝে পেয়েছিল জনপ্রিয়তা। সেই জনপ্রিয়তাকে কাজে লাগিয়ে মেয়েদের প্রেমের ফাঁদে ফেলে তুলে রেখেছিলেন তাদের কিছু গোপন ছবি। রুপের গোপন খবর জেনে যাওয়ার পর তার সঙ্গ ত্যাগ করতে গিয়ে বিপদে পড়েছে বেশ কয়েকজন। টিকটকে এসব গোপন ছবি ছেড়ে দেয়ার ভয় দেখিয়ে রুপা তাদের বাধ্য করেছে তার সাথে সমকামিতায় জড়াতে।

প্রতিবেশির ফ্রিজে রাখা মাছ আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার পদমদি গ্রামে ৭ বছরের এক শিশুকে ধর্ষণের অভিযোগ উঠেছে প্রতিবেশী কলেজ ছাত্রের বিরুদ্ধে। সোমবার সকালে শৈলকুপা উপজেলার পদমদি গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

ওই শিশুর স্বজনরা জানান, সকালে শিশুটি প্রতিবেশী আলমগীর হোসেনের বাড়ির ফ্রিজে রাখা মাছ আনতে যায়। এ সময় আলমগীর হোসেনের ছেলে কলেজ ছাত্র আশিক তাকে একা পেয়ে ধর্ষণ করে। শিশুটি বাড়িতে এসে বাবা-মাকে ঘটনা বললে তাকে শৈলকুপা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়। সেখান থেকে ডাক্তারি পরীক্ষার জন্য সদর হাসপাতালে রেফার্ড করা হয় তাকে। ঘটনার পর থেকে পলাতক রয়েছে অভিযুক্ত আশিক।

শৈলকুপা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহাঙ্গীর আলম জানান, শিশুর পরিবারের লোকজন থানায় এসেছিল। তবে এখন পর্যন্ত তারা লিখিত অভিযোগ দেয়নি। ঘটনার সঙ্গে জড়িতকে আটক করতে অভিযান চলছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫০ কেজি গাঁজাসহ আটক ১
                                  

জেলা প্রতিনিধি : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা থেকে ৫০ কেজি গাঁজাসহ উবায়দুল্লাহ্ (৪০) নামে এক ব্যক্তিকে আটক করেছে র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব)।

রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যায় র‌্যাব-১৪ এর ভৈরব ক্যাম্পের সদস্যরা বিজয়নগর উপজেলার পাইকপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে আটক করে।

র‌্যাবের পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গোপন খবরের ভিত্তিতে ভৈরব ক্যাম্পের কোম্পানি অধিনায়ক রফিউদ্দীন মোহাম্মদ যোবায়ের ও স্কোয়াড কমান্ডার মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেনের নেতৃত্বে র‌্যাবের একটি দল সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টায় পাইকপাড়া এলাকার বাসিন্দা উবায়দুল্লাহ্`র বাড়িতে অভিযান চালায়। এ সময় ঘর থেকে ৫০ কেজি গাঁজা, ১১ বোতল ফেনসিডিল, তিন বোতল ইস্কফ ও এক ক্যান বিয়ার উদ্ধার করা হয়।

র‌্যাব কর্মকর্তা মোহাম্মদ বেলায়েত হোসেন জানান, মাদক উদ্ধারের ঘটনায় উবায়দুল্লাহ্কে আটক করা হয়। পরবর্তীতে তার বিরুদ্ধে বিজয়নগর থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে।

রংপুরে বাসা ভাড়া দিয়ে বিপাকে শিক্ষক দম্পতি
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রংপুরের মিঠাপুকুর উপজেলায় এক ভাড়াটিয়া পরিবারের বিরুদ্ধে বাসা ভাড়া পরিশোধ না করে বাসায় জোরপূর্বক অবস্থান এবং বাসা মালিককে বিভিন্নভাবে হুমকি দেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এ নিয়ে মিঠাপুকুর থানা পুলিশ ওই বাসা ছেড়ে দিতে বলার পরও অজ্ঞাত প্রভাবে বাসা ছাড়ছেন না ভাড়াটিয়া পরিবার। এমন পরিস্থিতিতে চরম নিরাপত্তাহীনতায় থাকা বাসার মালিক ভয়ে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন।

রোববার (১৩ সেপ্টেম্বর) বিকেলে রংপুর নগরীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে এসব অভিযোগ করেন বাসার মালিক শিক্ষক দম্পতি শাহ মোহাম্মদ নুরুল রওশন ও কাওছারী আক্তার বানু।

সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে নুরুল রওশন বলেন, মিঠাপুকুর উপজেলা সদরে থানার কাছে চিথলী দক্ষিণপাড়ায় আমার বাবার সম্পত্তিতে নির্মাণ করা বাড়ি রয়েছে। সেখানে প্রতি মাসে দুই হাজার টাকা ভাড়া পরিশোধ করা এবং তিন বছর পর বাসা ছেড়ে দেয়ার শর্তে ২০১৭ সালের ১ জানুয়ারি ভাড়াটিয়া আব্দুল আলীম মিঠু ও তার স্ত্রী বাসায় ওঠেন। এজন্য ৩০০ টাকার নন-জুডিশিয়াল স্ট্যাম্পে বাসা ভাড়ার চুক্তিপত্র সম্পাদন করা হয়। কিন্তু ওই চুক্তি গত বছরের ডিসেম্বরের ৩১ তারিখ শেষ হলেও এখন পর্যন্ত বাসা ছেড়ে দেননি ভাড়াটিয়া মিঠু ও তার পরিবার। এমনকি সাত মাস ধরে বকেয়া ভাড়া পরিশোধে অস্বীকৃতি জানিয়ে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিচ্ছেন তারা।

তিনি অভিযোগ করেন, মিঠু এক সময় মিঠাপুকুর থানার মামলা লেখালেখি ও দালালি করতেন। সেই প্রভাবে মিঠুর লেলিয়ে দেয়া বাহিনী আমাকে অব্যাহত হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। পুলিশ তাকে বাসা ছাড়ার কথা বলার পরও ছাড়েননি। তার হুমকিতে স্ত্রী-সন্তান নিয়ে নিরাপত্তাহীনতার কারণে পালিয়ে বেড়াচ্ছি। বাসা ভাড়া দিয়ে ঘরছাড়া হয়েছি। ভাড়াটিয়ার মিঠুর দখলে থাকা বাসা উদ্ধারে রংপুর রেঞ্জ ডিআইজি, পুলিশ সুপারসহ প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করছি।

এসব অভিযোগ অস্বীকার করে আব্দুল আলীম মিঠু বলেন, ওই শিক্ষক দম্পতি বাসার মালিক নন। আমি ভাড়া থাকি না। এই বাড়ি আমার, নিজের সম্পত্তিতে বাড়ি করেছি। এ ব্যাপারে আদালতে মামলা বিচারাধীন।

ছাতকে লন্ডন প্রবাসীর বাসা দখলের অভিযোগে গ্রেফতার ৩ জন
                                  

আরিফুর রহমান মানিক, ছাতক (সুনামগঞ্জ) প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের ছাতকে লন্ডন প্রবাসী অধুনা মৃত জাহানারা বেগমের মালিকানাধীন মন্ডলীভোগ মৌজার এসএ ৪৭৪ দাগের ২২শতক ভূমির মধ্যে অবস্থিত জাহানারা মঞ্জিল নামীয় পৌরসভা রোড মন্ডলী ভোগের বাসাটি বৌলা গ্রামের মৃত ইলিয়াছ আলীর পুত্র ভূমি খেকো বদরুল ও তার ভাই ওসমান তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে গত ৮/৯/২০ইং তারিখ রাত অনুমান সাড়ে ১১টার সময় জবর দখল করল।জাহনানারা বেগম বর্ণিত বাসার ২২শতক ভূমি সরকার হতে অনুমান ৪৩ বছর পূর্বে োলীজ নিয়ে তথায় উক্ত বাসা নির্মান করে ভোগদখল করিতেন।উক্ত জায়গার প্রতি লোভের বশঃবর্তী হইয়া বদরুল বিভিন্ন যোগাযোগি জাল দলিল সৃজন করিয়া বিধবা প্রবাসী জাহানারা বেগমের বাসাটি দীর্ঘদিন যাবৎ জবর দখলের অপচেষ্টা করিয়া আসিতে থাকে।ইদানিং জাহানারা বেগম দেশে আসার পরে বদরুল তার বাহিনী নিয়ে তাকে বিভিন্ন সময়ে মারপিট ও নির্যাতন করে।কিছুদিন পূর্বে জাহানারা বেগম মারা যান।তার সন্তানগন লন্ডনে থাকায় তার আপন বোন ও আত্মীয় স্বজনরা তার বাসায় থাকেন।গত ৮/৯/২০ ইং তারিখ দিনের বেলা তার বোন সুবেরা বেগম তার নিজ বাড়ীতে যাওয়ার সময আহাদ ও সমুজ আলী নামীয় দুজন পাহারাদার রাখিয়া যান। এই সুযোগে বদরুল ও তার ভাই ওসমান তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী নিয়ে রাত সাড়ে ১১ঘটিকায় দেশীয় প্রাননাশক অস্ত্র দ্বারা পাহারাদারদের মারপিট করিয়া বাসাটি জবর দখল করায় জাহানারা বেগমের আত্মীয় মোঃ এহিয়া বাদী হইয়া ছাতক থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে তাহা ছাতক থানার মামলা নং ১২তারিখ ১০/০৯/২০ইং ধারা ১৪৩/১৪৭/৪৪৮/ ৩২৩/৩২৪/৩০৭/৪২৭/৩৮০/৫০৬/৩৪ মতে বদরুল গং ১৪জনের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করে ঘটনাস্থল বাসা হতে জবর দখলকারী বদরুল বাহিনীর বৌলা গ্রামের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে মইনুল মিয়া (৩৫), মৃত ছিদ্দিক আলীর ছেলে ফয়ছল আহমদ (৪০), আলতাব আলীর ছেলে রহিম হোসেন (২০) কে গ্রেফতার করে জেল হাজতে প্রেরন করেন।

ভূমিখেকো বদরুল তার বাহিনীকে নিয়ে বাসার সকল মালামাল সরাইয়া নিয়া বাসায় প্রবেশের মূল দরজাটি ইটের গাঁথুনি দিয়া বন্ধ করিয়া তার সন্ত্রাসী বাহিনী বসাইয়া রাখিয়াছে।মরহুম জাহানারা বেগমের আত্মীয় স্বজন বাসায় গেলে তাদেরকে মারপিটসহ খুনখারবির মত ঘটনা সংঘটিত করতে পারে##

ছাত্রীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের অশ্লীল ফোনালাপ ফাঁস
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সাভারের গণবিশ্ববিদ্যালয়ের (গবি) রেজিস্ট্রার মো. দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে একই প্রতিষ্ঠানের এক ছাত্রীর অশ্লীল ফোনালাপ ফাঁস হয়েছে। এ সংক্রান্ত ২৬ মিনিট ৩২ সেকেন্ডের একটি ফোনালাপ জাগো নিউজের হাতে এসেছে।

মঙ্গলবার (০৮ সেপ্টেম্বর) বিকেলে এ ফোনালাপ পাওয়া যায়। ফোনালাপে শিক্ষার্থীকে বিভিন্ন ধরনের অশ্লীল কথাবার্তা বলেন এবং অবৈধ সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দেন রেজিস্ট্রার। ফোনালাপ ফাঁসের পর বিশ্ববিদ্যালয়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে।

ফোনালাপে ছাত্রীকে রেজিস্ট্রার বলেন, `হালকা কিস দেয়া, বুকে নেয়া, তেমন কিছু না। তেমন কিছু কী? আমি কত আগ্রহ নিয়ে আসছি। একাডেমিক ভবনে মিটিং রেখে তাড়াতাড়ি চলে আসছি। তোমার বোঝা উচিত ছিল লোকটা তাড়াহুড়ো করে আসছে। একটু আদর দিয়ে দেই। নদীর পাড়ে বসব, শেখাব। এরপর রুমে রেস্ট নেব। কিছু ঘটবে। দুটো মানুষ একসঙ্গে রেস্ট নিলে তো কিছু ঘটবার সম্ভাবনা থাকে; তাই না।`

ছাত্রীকে অবৈধ সম্পর্ক স্থাপনের প্রস্তাব দিয়ে ফোনালাপে রেজিস্ট্রার বলেন, `যুবক-যুবতী যখন একসঙ্গে থাকে, তখন কি হয় তুমি বোঝো না? ভালোবাসা গভীর হয়। একটা আত্মা আরেকটা আত্মার সঙ্গে মিশে যায়। সে সুখ স্বর্গীয় সুখ, যেটা কিনতে বা খেতে পাওয়া যায় না।`

ফোনালাপে রেজিস্ট্রার আরও বলেন, `আমার সঙ্গে কবে যাবা? আগামী অক্টোবর মাসের ৬-৭ তারিখে। আমরা সকালে যাব, বিকেলে ফিরে আসব। আমার গাড়ি আছে, সমস্যা হবে না।`

এছাড়া ফোনালাপে রেজিস্ট্রার ওই ছাত্রীকে যৌন সম্পর্কের প্রস্তাব দিয়ে এমন কিছু কথা বলেছেন, যা প্রকাশযোগ্য নয়। এজন্য পুরো কথোপকথন প্রকাশ করেনি জাগো নিউজ।

এমন ফোনালাপের বিষয়ে নিন্দা জানিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক (জিএস) মো. নজরুল ইসলাম রলিফ বলেন, ফাঁস হওয়া ফোনালাপের বিষয়ে জানতে বিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টিদের সঙ্গে আলোচনায় বসব আমরা। আমরা তাদের সিদ্ধান্ত সম্পর্কে জানব। যদি সিদ্ধান্ত শিক্ষার্থীবান্ধব না হয় তাহলে আমাদের পক্ষ থেকে বড় ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে।

এ বিষয়ে জানতে রেজিস্ট্রার মো. দেলোয়ার হোসেনের সঙ্গে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তিনি ফোন ধরেননি। পরবর্তীতে ফাঁসকৃত ফোনালাপের বিষয়ে জানতে চেয়ে ক্ষুদেবার্তা পাঠালেও কোনো উত্তর দেননি।

একই বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (ভারপ্রাপ্ত) লায়লা পারভীন বানুর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে সাংবাদিক পরিচয় পাওয়ার পর এ নিয়ে কোনো কথা বলতে রাজি হননি।

এ ব্যাপারে কি পদক্ষেপ নেয়া হবে জানতে চাইলে গণবিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সদস্য ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী বলেন, আমরা কি করব, সেটি আপনারা বলে দেবেন নাকি? যা প্রয়োজনীয় তাই করব। আপনার যা ভালো মনে হয়, করেন। এটা নিয়ে বেশি নাক গলানো ঠিক নয়। আমাদের প্রশাসন চালাতে দেন। এসব কাহিনি প্রকাশ করে নিজেদের ঝামেলা বাড়াবেন না। আগে দেখেন আমরা কি ব্যবস্থা নিই।`

গণবিশ্ববিদ্যালয়ের ট্রাস্টি বোর্ডের সভাপতি অধ্যাপক ড. সিরাজুল ইসলাম চৌধুরী বলেন, এ ফোনালাপসহ ওই রেজিস্ট্রারের কীর্তিকলাপ আমাদের জানা আছে। তিনি থাকবেন না, এটা করোনার আগেই সিদ্ধান্ত হয়েছে। করোনা আসায় আর ভিসি বাইরে থাকায় কার্যকর হয়নি। এখন শুধু আদেশ কার্যকরের অপেক্ষা। ওই রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে অনেক ডকুমেন্ট আছে। তিনি পদে থাকছেন না, এটা নিশ্চিত। আইনি পদক্ষেপ নেয়ার বিষয়েও সব তথ্য-উপাত্ত সংগ্রহ করছি আমরা।

প্রসঙ্গত, ২০১৭ সালে এই রেজিস্ট্রারের বিরুদ্ধে যৌন নিপীড়নের অভিযোগ ইউজিসিতে দিয়েছিল একই বিশ্ববিদ্যালয়ের এক ছাত্রী। এর পরিপ্রেক্ষিতে তখন তদন্ত কমিটি গঠন করে অভিযোগের বিষয়ে রেজিস্ট্রারের কাছে জবাব চাওয়া হয়। কিন্তু তিনি কোনো সদুত্তর দিতে পারেননি বলে জানায় ইউজিসি। এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের একাধিক নারী শিক্ষক রেজিস্ট্রার কর্তৃক নানাভাবে যৌন হয়রানির শিকার হয়েছেন বলেও অভিযোগ রয়েছে। সূত্র: জাগোনিউজ২৪

কুমিল্লায় ট্রলি ব্যাগে তরুণীর লাশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : কুমিল্লার মনোহরগঞ্জ উপজেলায় সড়কের পাশ থেকে ট্রলি ব্যাগে অজ্ঞাত পরিচয়ে এক তরুণীর অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

সোমবার রাতে উপজেলার বিপুলাসার ইউনিয়নের বড়কাঁচি এলাকার কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক সড়কের পাশ থেকে ওই মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। নিহত তরুণীর পরিচয় তাৎক্ষণিকভাবে জানা যায়নি। তবে তার বয়স আনুমানিক ৩০ বছর।

নাথেরপেটুয়া পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ মো. জাফর ইকবাল জানান, রাতে স্থানীয়দের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে কুমিল্লা-নোয়াখালী আঞ্চলিক সড়কের পাশে ট্রলি ব্যাগ থেকে ওই তরুণীর মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে।


   Page 1 of 32
     অপরাধ ও অনিয়ম
সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৬
.............................................................................................
তিন দিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ
.............................................................................................
মানিকগঞ্জে হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে এসে ধর্ষণের শিকার তরুণী
.............................................................................................
গৌরনদীতে মাদ্রাসাছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে যুবক গ্রেফতার
.............................................................................................
নামাজ পড়িয়ে ফেরার পথে খুন হলেন ইমাম
.............................................................................................
সাভারে অপহৃত শিশু রংপুর থেকে উদ্ধার, অপহরণকারী দম্পতি গ্রেফতার
.............................................................................................
ধর্ষণ মামলায় তৃতীয় শ্রেণির ছাত্র গ্রেফতার!
.............................................................................................
টেকনো ড্রাগসকে সাড়ে ১০ লাখ টাকা জরিমানা
.............................................................................................
খাগড়াছড়িতে স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণ, পুলিশ সদস্য গ্রেফতার
.............................................................................................
ছেলে সেজে মেয়েদের সাথে সমকামিতা, অবশেষে গ্রেফতার সেই টিকটকার
.............................................................................................
প্রতিবেশির ফ্রিজে রাখা মাছ আনতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার ৭ বছরের শিশু
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ৫০ কেজি গাঁজাসহ আটক ১
.............................................................................................
রংপুরে বাসা ভাড়া দিয়ে বিপাকে শিক্ষক দম্পতি
.............................................................................................
ছাতকে লন্ডন প্রবাসীর বাসা দখলের অভিযোগে গ্রেফতার ৩ জন
.............................................................................................
ছাত্রীর সঙ্গে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষকের অশ্লীল ফোনালাপ ফাঁস
.............................................................................................
কুমিল্লায় ট্রলি ব্যাগে তরুণীর লাশ
.............................................................................................
ঝিনাইদহে প্রবাসীর স্ত্রীর লাশ উদ্ধার
.............................................................................................
সরকারি বাসভবনে ঢুকে বাবাসহ ইউএনওকে কুপিয়ে জখম
.............................................................................................
গাংনীতে মুয়াজ্জিনকে কুপিয়ে হত্যা
.............................................................................................
ডাকাতির টাকা ভাগ নিয়ে যুবককে গুলি করে হত্যা, আটক ১
.............................................................................................
বন্ধুদের নিয়ে সাবেক স্ত্রীকে গণধর্ষণের অভিযোগ
.............................................................................................
শায়েস্তাগঞ্জে রাস্তা নিয়ে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ৫০
.............................................................................................
রেল লাইনে পাথরের পরিবর্তে ইট ব্যবহারের অভিযোগ
.............................................................................................
সাপাহারে বটতলা সুইচগেট খাড়ি থেকে এক ব্যাক্তির অর্ধগলিত লাশ উদ্ধার
.............................................................................................
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় খাটের নিচে ভাই-বোনের গলা কাটা লাশ
.............................................................................................
বড়লেখায় মায়া হরিণের চামড়া উদ্ধার
.............................................................................................
অসুস্থ বাবার ওষুধ কিনতে আসা কিশোরীকে গণধর্ষণ, গ্রেফতার ৪
.............................................................................................
সিরাজগঞ্জে ৩ সন্তানের জননীকে গণধর্ষণ, আটক ১
.............................................................................................
শ্রীপুরে ৭ মাসের অন্তঃসত্ত্বা নারীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ১
.............................................................................................
দিনাজপুরে ২ যুবতি ও জেলা পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান সহ ৬ জনকে মদ্যপান অবস্থায় আটক করেছে পুলিশ
.............................................................................................
প্রকাশ্যে সহকর্মীকে থাপ্পড় দিলেন বামনা থানার ওসি: ভিডিও ভাইরাল
.............................................................................................
সাজানো মামলায় থানায় ডেকে সাদা কাগজে সই
.............................................................................................
জেকেজিকে সহায়তা করেও আসামি নন সাবেক স্বাস্থ্য ডিজি !
.............................................................................................
কক্সবাজারে নেয়া হচ্ছে ওসি প্রদীপকে
.............................................................................................
রাতের অন্ধকারে টেকনাফ ছাড়লেন ওসি প্রদীপ!
.............................................................................................
সিনহা হত্যায় বোনের মামলা, আসামি টেকনাফ থানার ওসিসহ ৯ পুলিশ
.............................................................................................
বিস্ফোরণে জঙ্গি সংশ্লিষ্টতা নেই, আটককৃতরা ডাকাত দলের সদস্য- স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী
.............................................................................................
২০ হাজার টাকার জন্য বড় ভাইকে গুলি করে হত্যা!
.............................................................................................
অর্থ পাচার মামলায় পাপিয়া দম্পতিসহ চারজন কারাগারে
.............................................................................................
প্রতারক শাহেদের ৪০ দিনের রিমান্ড চায় পুলিশ
.............................................................................................
দ্রুত বড়লোক হতে বিপথে গেলেন তাঁরা
.............................................................................................
কুয়েতের শাস্তির ওপর নির্ভর এমপি পাপুলের ভবিষ্যৎ
.............................................................................................
কখনো সচিব, কখনো পুলিশ কর্মকর্তা... অবশেষে গ্রেফতার
.............................................................................................
প্রকাশ্যে অস্ত্রের মহড়া চালানো সেই সন্ত্রাসী ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত
.............................................................................................
অনলাইনে জেএমবির সঙ্গে প্রজ্ঞার পরিচয়, পরে ধর্ম পরিবর্তন ও বিয়ে
.............................................................................................
সাহেদের সহযোগী তারেক শিবলীর দোষ স্বীকার
.............................................................................................
নকল এন-৯৫ মাস্ক সরবরাহে শারমিনের বিরুদ্ধে মামলা
.............................................................................................
পদত্যাগ করা স্বাস্থ্যের ডিজি ও বর্তমান এডিজিকে ডিবি`র জিজ্ঞাসাবাদ
.............................................................................................
৯৯৯ নম্বরে ফোন, ২ লাখ টাকার বিল হয়ে গেল ১৫ হাজার
.............................................................................................
‘ষড়যন্ত্রের শিকার’ পাপুল, এমপি সেলিনা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD