| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * রুম্পা হত্যার বিচারের দাবিতে উত্তাল স্টামফোর্ড   * প্রধান বিচারপতির প্রস্তাব ভালো লেগেছে প্রধানমন্ত্রীর   * ভালোই আছেন খালেদা জিয়া, ভুগছেন শুধু গিরার ব্যথায়   * খালেদার মুক্তির দাবিতে রোববার বিক্ষোভ করবে বিএনপি   * মৃত্যুর কাছে হেরে গেলেন সেই অগ্নিদগ্ধ ধর্ষিতা তরুণী   * বাগদাদে বিক্ষোভে অস্ত্রধারীদের হামলায় পুলিশসহ নিহত ১৯   * সিঙ্গাপুরের ৪০ শীর্ষ ধনীর তালিকায় বাংলাদেশি আজিজ   * আবারও আনোয়ার ইব্রাহিমের বিরুদ্ধে সমকামিতার অভিযোগ   * পাকিস্তানের গর্বে আঘাত হেনেছে অস্ট্রেলিয়া!   * কোহলি ঝড়ে রেকর্ডগড়া জয় ভারতের  

   সারা দেশ -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
‘তোমরা আমাকে নিয়ে যাও আমি বাঁচবোনানে’

নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলের কালিয়ায় তামান্না বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার পুরুলিয়া ইউনিয়নের পারবিষ্ণুপুর গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত তামান্না পারবিষ্ণুপুর গ্রামের শিপন শেখের স্ত্রী এবং উপজেলার পেড়োলী ইউনিয়নের খড়রিয়া গ্রামের আকতার মোল্যার মেয়ে।

আকতার মোল্যা বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে তামান্না ফোন করে বলেছিল, ‘তোমাদের জামাই, বেয়াই, বেয়াইন টাকার জন্য আমাকে অনেক মেরেছে। তোমরা আমাকে নিয়ে যাও আমি বাঁচবোনানে।’

তিনি জানান, তিন বছর আগে মেয়েকে কালিয়ার পারবিষ্ণুপুর গ্রামের রব্বেল শেখের ছেলে শিপন শেখের সঙ্গে বিয়ে দেই। বিয়ের সময় সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে লক্ষাধিক টাকার সংসারের নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল কিনে দেই। কিছুদিন ভালোভাবেই তাদের সংসার চলছিল। তাদের একটা মেয়েও হয়েছে।

আকতার মোল্যা বলেন, কিছুদিন পর বিদেশ যাবে বলে আরও টাকা চেয়ে আমার মেয়েকে শারীরিক নির্যাতন শুরু করে জামাই। আমি ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাই। তাদের চাহিদা অনুযায়ী টাকা দিতে পারিনি বলেই তারা আমার মেয়েকে মেরে ফেলেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

এ ব্যাপারে কালিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি ঘটনাস্থলে আছি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তামান্নার শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক।

‘তোমরা আমাকে নিয়ে যাও আমি বাঁচবোনানে’
                                  

নড়াইল প্রতিনিধি

নড়াইলের কালিয়ায় তামান্না বেগম (২০) নামে এক গৃহবধূকে শ্বশুরবাড়ির লোকজন পিটিয়ে হত্যা করেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে উপজেলার পুরুলিয়া ইউনিয়নের পারবিষ্ণুপুর গ্রামের শ্বশুরবাড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ।

নিহত তামান্না পারবিষ্ণুপুর গ্রামের শিপন শেখের স্ত্রী এবং উপজেলার পেড়োলী ইউনিয়নের খড়রিয়া গ্রামের আকতার মোল্যার মেয়ে।

আকতার মোল্যা বলেন, গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে তামান্না ফোন করে বলেছিল, ‘তোমাদের জামাই, বেয়াই, বেয়াইন টাকার জন্য আমাকে অনেক মেরেছে। তোমরা আমাকে নিয়ে যাও আমি বাঁচবোনানে।’

তিনি জানান, তিন বছর আগে মেয়েকে কালিয়ার পারবিষ্ণুপুর গ্রামের রব্বেল শেখের ছেলে শিপন শেখের সঙ্গে বিয়ে দেই। বিয়ের সময় সমিতি থেকে ঋণ নিয়ে লক্ষাধিক টাকার সংসারের নিত্যপ্রয়োজনীয় মালামাল কিনে দেই। কিছুদিন ভালোভাবেই তাদের সংসার চলছিল। তাদের একটা মেয়েও হয়েছে।

আকতার মোল্যা বলেন, কিছুদিন পর বিদেশ যাবে বলে আরও টাকা চেয়ে আমার মেয়েকে শারীরিক নির্যাতন শুরু করে জামাই। আমি ভ্যান চালিয়ে সংসার চালাই। তাদের চাহিদা অনুযায়ী টাকা দিতে পারিনি বলেই তারা আমার মেয়েকে মেরে ফেলেছে। আমি আমার মেয়ে হত্যার বিচার চাই।

এ ব্যাপারে কালিয়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. রফিকুল ইসলাম বলেন, আমি ঘটনাস্থলে আছি। মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য নড়াইল সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। তামান্নার শ্বশুরবাড়ির লোকজন পলাতক।

ঘিরে রাখা বস্তুটি বোমা নয়
                                  

মেহেরপুর প্রতিনিধি 

 

মেহেরপুরে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের সামনে গত বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) থেকে ঘিরে রাখা সার্কিটযুক্ত বোমাসদৃশ বস্তুটি আসলে বোমা নয়। এটি আতঙ্ক সৃষ্টির জন্য কেউ ওই স্থানে রেখেছিল বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার শেখ জাহিদুল ইসলাম।

 

তিনি জানান, শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে কাউন্টার টেরোরিজম ইউনিটের বোম্ব ডিসপোজাল ইউনিট ঘটনাস্থলে এসে পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে দেখেছে এটি বোমা নয়। আতঙ্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যে কেউ ব্যাগের ভেতর বোমাসদৃশ বস্তুটি রেখেছিল।

 

 

 

উল্লেখ্য, গত বৃহস্পতিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে মেহেরপুর জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের কর্মচারীরা গেটের পাশে প্রাচীরের সঙ্গে একটি ব্যাগে বোমাসদৃশ বস্তু দেখতে পেয়ে পুলিশে খবর দেন। পরে পুলিশের একাধিক দল ঘটনাস্থলে এসে ব্যাগের ভেতরে একটি সার্কিটযুক্ত বোমাসদৃশ বস্তু দেখতে পায়। তারপর থেকে জায়গাটি ঘিরে রাখে পুলিশ। একই স্থান থেকে আনছারুল ইসলাস (আল কায়দা) নামের একটি সংগঠনের হাতে লেখা চিরকুটও উদ্ধার করা হয়।

মাটি দিয়ে পাকা রাস্তা সংস্কার
                                  

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি 

 

মাটিমিশ্রিত পাথর আর নিম্নমানের ইটের খোয়া দিয়েই চলছে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ উপজেলার একটি সড়কের সংস্কারকাজ। এতে স্থানীয় বাসিন্দারা বাধা দিলেও কাজ চালিয়ে যাচ্ছে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এতে স্থানীয়দের মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় ওই সড়ক এলাকার তিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যানরা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের (এলজিইডি) প্রধান প্রকৌশলীর কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন।

 

গত বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো. সালাহ উদ্দিন, তালশহর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু সামা ও আড়াইসিধা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সেলিমের লিখিত অভিযোগে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের পাশাপাশি সড়কের কাজ যথাযথভাবে সম্পন্নের দাবি জানানো হয়।

 

অভিযোগের অনুলিপি চট্টগ্রাম বিভাগীয় কমিশনার, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক ও এলজিইডির ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নির্বাহী প্রকৌশলীকেও দেয়া হয়েছে।

 

 

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, আশুগঞ্জ উপজেলার আশুগঞ্জ-তালশহর সড়ক দিয়ে কয়েকটি ইউনিয়নের মানুষ যাতায়াত করে। দীর্ঘদিন ধরে এই সড়কটির বেহাল অবস্থার কারণে সংস্কারের উদ্যোগ নেয় এলজিইডি ব্রাহ্মণবাড়িয়া। সংস্কারকাজের জন্য গত বছরের ১৬ জুন দরপত্রসহ সব আনুষঙ্গিক কাজ শেষ করে কর্তৃপক্ষ।

 

মেসার্স লোকমান হোসেন অ্যান্ড মোস্তফা কামাল জয়েন্ট ভেঞ্চার কাজটি পায়। তাদের সঙ্গে ৮ কিলোমিটার ওই সড়কের সংস্কারকাজের জন্য ৫ কোটি ২৭ লাখ টাকায় চুক্তি হয়। চুক্তি মতে, চলতি বছরের জুন মাসে সংস্কারকাজ শুরু হওয়ার কথা থাকলেও নভেম্বর মাসের মাঝামাঝি সময়ে কাজ শুরু হয়। তবে কাজ শুরুর পর থেকেই নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ তোলেন স্থানীয়রা। শিডিউলে যে মানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করার কথা ছিল ঠিকাদারি দুই প্রতিষ্ঠান তারচেয়ে নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করছে বলে অভিযোগ করেন স্থানীয়রা। এসব বিষয়ে অভিযোগ জানিয়েও কোনো প্রতিকার পাওয়া যাচ্ছে না।

 

 

গতকাল শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) দুপুরে সরেজমিন ওই সড়কে গিয়ে দেখা গেছে, নিম্নমানের ইটের খোয়া, বিটুমিন এবং মাটি মিশ্রিত পাথরসহ অন্যান্য উপকরণ দিয়ে চলছে সংস্কারকাজ। ফলে হাত দিয়ে টান দিলেই উঠে আসছে সড়কের কার্পেটিং। নিম্নমানের এ কাজ দেখে ক্ষোভ প্রকাশ করেন ইউপি চেয়ারম্যান মো. সালাহ উদ্দিনসহ স্থানীয়রা।

 

 

স্থানীয় তল্লা গ্রামের বাসিন্দা ও মুক্তিযোদ্ধা মো. সিরাজ উদ্দিন বলেন, এ সড়কটি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘদিন পর সড়কটি সংস্কার হওয়ার খবরে আমরা আনন্দিত হয়েছিলাম। কিন্তু সড়কটি সংস্কারে যে মানের সামগ্রী ব্যবহারের কথা ছিল সেটি হচ্ছে না। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ চলছে। আমরা বাধা দিলেও ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান সেটি মানছে না।

 

ওই গ্রামের আরেক বাসিন্দা মো. দুলাল মিয়া জানান, সড়কটির কাজ শিডিউল মতো হচ্ছে না। উপরে কিছু পাথর দিয়ে নিচে সব মাটি দিয়ে রাস্তার কাজ করছে। আমরা চাই ভালো সামগ্রী দিয়ে রাস্তাটি যেন মজবুত করে সংস্কার করা হয়।

 

আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদের ৭নং ওয়ার্ডের সদস্য হারুনুর রশীদ বলেন, এই রাস্তাটি দিয়ে তিন ইউনিয়নের মানুষ চলাফেরা করে। অনেক দিন ধরে রাস্তাটি বেহাল ছিল। অনেক কষ্টের পর রাস্তাটির দরপত্র হওয়ায় আমরা খুশি হয়েছিলাম। কিন্তু এখন কাজ দেখে মনে হচ্ছে এর চেয়ে নিম্নমানের কাজ আর হতে পারে না। ৫ কোটি ২৭ লাখ টাকার বাজেট হলেও যে কাজ হচ্ছে তাতে দুই কোটি টাকাও লাগবে না।

 

আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. সালাহ উদ্দিন বলেন, কয়েক দফায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে সতর্ক করার পরও তারা নিম্নমানের সামগ্রী দিয়েই কাজ করে যাচ্ছে। আমরা এলজিইডির প্রধান প্রকৌশলীর কাছে অভিযোগ দিয়েছি। নিম্নমানের সামগ্রী দিয়ে কাজ করা বন্ধ না হলে আমরা আন্দোলন করব।

 

 

সংস্কারকাজে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগ অস্বীকার করে ঠিকাদার লোকমান হোসেন বলেন, যেটা মাটি বলছে- সেটা পাথরের ডাস্ট। ৩০ শতাংশ পাথরের সঙ্গে ডাস্ট ধরা থাকে। ডাস্ট দিলে তো বিটুমিন বেশি লাগে। এটা শিডিউলে ধরাই আছে এভাবে।

 

এ ব্যাপারে জানতে চাইলে এলজিইডির আশুগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মরিয়ম আখতার বলেন, নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারের অভিযোগটি আমরা খতিয়ে দেখছি। কিছু সামগ্রীতে সমস্যা থাকার কারণে আমরা ইতোমধ্যে ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানকে চিঠি দিয়েছি।

৩২ টাকা কেজি পেঁয়াজ কিনে ২৩০ টাকায় বিক্রি
                                  

কক্সবাজার প্রতিনিধি

টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে মিয়ানমার থেকে আমদানি করা পেঁয়াজ ট্রাকে ওঠা পর্যন্ত কেজিতে ৪০-৪৫ টাকা খরচ পড়লেও সেই পেঁয়াজ স্থানীয় বাজারে বিক্রি করা হচ্ছে ২০০-২৩০ টাকা। এভাবে কেজিতে লাভ হচ্ছে ১৬০-১৮০ টাকা।

কক্সবাজারের পুলিশ সুপার এবিএম মাসুদ হোসেন বলেন, দীর্ঘ দুই মাস ধরে মিয়ানমার থেকে পেঁয়াজ আমদানি বাড়লেও টেকনাফ-কক্সবাজারের স্থানীয় বাজারে বাড়তি আমদানির কোনো প্রভাব পড়েনি। বিভিন্ন সময় ‘সিন্ডিকেটের কারসাজি’র কথা উঠলেও বিষয়টি প্রকাশ পায়নি। কিন্তু গত বুধবার (৪ ডিসম্বের) অজ্ঞাত এক ফোনের মাধ্যমে সিন্ডিকেটের কারসাজির বিষয়টি নজরে এলে টেকনাফ থানা পুলিশের পরিদর্শক (অপারেশন) রাকিবুল ইসলামকে দ্রুত তদন্তের নির্দেশনা দেয়া হয়।

তিনি বলেন, হঠাৎ বন্দরে গেলে ওসি রাকিবকে বন্দর কর্তৃপক্ষ অসহযোগিতা করে। পরে উখিয়া সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নিহাদ আদনান তাইয়ানের নেতৃত্বে পুলিশের একটি দল বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর) বন্দরে প্রাথমিক তদন্তে দেখতে পায়, আমদানির সঙ্গে বাজারে পেঁয়াজের সরবরাহের কোনো মিল নেই। সিন্ডিকেট আমদানির কাগজপত্রে হাজার হাজার টন পেঁয়াজ আনার চিত্র দেখালেও বাজারে ছাড়া হয়েছে সামান্য। এভাবে কৃত্রিম সংকট দেখিয়ে পেঁয়াজ বিক্রি করে লাখ লাখ টাকা আদায় করে নেয়া হয়েছে। অথচ মিয়ানমারে প্রতি কেজি পেঁয়াজ কেনা হয়েছে মাত্র ৩২ টাকায়।


পুলিশের তদন্তে উঠে এসেছে প্রতারণার ভয়াবহ চিত্র। আমদানিকারক, শুল্ক কর্তৃপক্ষ, সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ও বন্দর কর্তৃপক্ষের লোকজন একীভূত হয়ে দেশের পরিস্থিতি বেসামাল করছে আর সাধারণ মানুষকে ঠকাচ্ছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নিহাদ আদনান তাইয়ান জানান, তদন্তে দেখা গেছে গত অক্টোবর এবং নভেম্বর মাসে ৪২ হাজার ৪০৩ টন পেঁয়াজ আমদানি করা হয়েছে। হিসাব মতে, দৈনিক গড়ে ৭০০ টন পেঁয়াজ মিয়ানমার থেকে আমদানি হয়। আমদানির নথি, বিল অব এন্ট্রি পর্যন্ত ঠিক দেখানো হলেও সিন্ডিকেট কারসাজিতে বাস্তবে কি পরিমাণ পেঁয়াজ বাজারে ছাড়া হয়েছে তার কোনো প্রমাণ সংশ্লিষ্টরা দেখাতে পারেননি। আমদানির কাগজ মিললেও বন্দর থেকে ট্রাকে ডেলিভারির কোনো কাগজ বা প্রমাণ নেই। এমনকি গত ২৫ নভেম্বর এক হাজার বস্তা ও ৩০ নভেম্বর এক হাজার ৮০০ বস্তা আমদানি করা পেঁয়াজের কোনো হদিস বন্দর, আমদানিকারক এবং সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট কর্তৃপক্ষ দেখাতে পারেনি।


এদিকে বিষয়টি নজরে আনা হলে বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় কক্সবাজারের জেলা প্রশাসক মো. কামাল হোসেন টেকনাফ সীমান্তের পেঁয়াজ সিন্ডিকেট ও আমদানির জালিয়াতি-প্রতারণার তদন্তে একটি টাস্কফোর্স তদন্ত কমিটি গঠন করেন। অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট (এডিএম) মো. শাজাহান আলীকে প্রধান করে একজন পুলিশ কর্মকর্তা ও টেকনাফ উপজেলা প্রশাসনের এক নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটের সমন্বয়ে গঠিত কমিটিকে তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত প্রতিবেদন দিতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

অন্যদিকে পেঁয়াজ নিয়ে কেলেঙ্কারির ঘটনা প্রচার পাওয়ার পর স্থানীয় পর্যায়ে ব্যাপক সমালোচনা চলছে। সচেতন মহলের মতে, সংকটকালীন বিনা শুল্কে পেঁয়াজ আমদানির সুযোগ পেয়ে হাজার হাজার ডলার মিয়ানমারে পাচার করছেন আমদানিকারকরা। সেই সঙ্গে প্রতারণা ও জালিয়াতির মাধ্যমে ভোক্তা সাধারণকে হয়রানি ও সরকারকে বেকায়দায় ফেলার চেষ্টা করছে পেঁয়াজ সিন্ডিকেট। টেকনাফ স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানিকারকের সংখ্যা ৩৫-৪০ জন। সিন্ডিকেট না হয়ে ব্যবসায়িক প্রতিযোগিতার মাধ্যমে পেঁয়াজ আমদানি হলে মিয়ানমারের পেঁয়াজেই দেশের বাজারের সংকট অনেকখানি নিরসন করা সম্ভব।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে সীমান্তে ব্যবসার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট এক ব্যক্তি বলেন, আমদানি করা কিছু পেঁয়াজ বাংলাদেশের বাজারে ছাড়া হলেও বাকি পেঁয়াজ মিয়ানমারের গুদামেই মজুত থেকে যায়। সংকট বিরাজ রেখে ‘সিন্ডিকেট’ কেজিতে ১৬০-১৮০ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে।

অভিযোগ সম্পর্কে টেকনাফ স্থলবন্দরের শুল্ক কর্মকর্তা মো. আবছার উদ্দিন বলেন, জাতীয় চাহিদার ভোগ্যপণ্য হিসেবে পেঁয়াজ আমদানির যে কোনো কাগজ এলেই দ্রুত পাস করে দেয়া হচ্ছে। কোনো আমদানিকারক ক্রয় করা পেঁয়াজের বিপরীতে পরিবহন ছোট পেলে দুই ধাপে মালামাল আনতে বাধ্য হন। তখন হয়তো দিন ক্ষেপণ হয়, যা আমদানি হয়েছে তা সরবরাহ হওয়ার কথা।

বরিশালে একই পরিবারের তিনজনের মরদেহ উদ্ধার
                                  

 বরিশাল প্রতিবেদক  

 

বরিশালের বানাড়ীপাড়া উপজেলার সলিয়াবাকপুর থেকে একই পরিবারের তিনজনের মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। শনিবার (৭ ডিসেম্বর) সকালে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়।

 

নিহতরা হলেন- সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের কুয়েত প্রবাসী হাফেজ আব্দুর রবের মা মরিয়ম বেগম (৭০), ভগ্নিপতি শফিকুল আলম (৬০) ও খালাতো ভাই ইউসুফ (৩২)।

 

পুলিশ জানায়, বৃদ্ধা মরিয়মের মরদেহ মেলে ঘরের বেলকনিতে, শফিকুল আলমের মরদেহ অন্য ঘরে এবং পুকুরে হাত-পা বাঁধা অবস্থায় ইউসুফের মরদেহ পাওয়া যায়। শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) গভীর রাতে উপজেলার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে এ হত্যাকাণ্ড ঘটে।

 

বানারীপাড়া থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাফর আহম্মেদ জানান, কুয়েতের একটি মসজিদের ইমাম হাফেজ আবদুর রবের বৃদ্ধা মা মরিয়মসহ ওই তিনজন রাতের খাবার খেয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। গভীর রাতে দুর্বৃত্তরা প্রবাসীর একতলা বাড়িতে ঢুকে তাদের হত্যা করে মরদেহ ফেলে রেখে যায়। ঘরের বেলকনি থেকে বৃদ্ধা মায়ের মরদেহ এবং একটি কক্ষ থেকে আবদুর রবের ভগ্নিপতির মরদেহ উদ্ধার করা হয়। এছাড়া রবের খালাতো ভাইয়ের মরদেহ হাত-পা বাঁধা অবস্থায় বাড়ির পেছনের পুকুর থেকে উদ্ধার করা হয়েছে।

 

তিনি আরও বলেন, ওই বাড়ির সব ঘরের দরজা জানালা বন্ধ ছিল, শুধু ছাদের দরজা খোলা পাওয়া যায়। ধারণা করা হচ্ছে, দুর্বৃত্তরা আগে থেকেই সেখানে উপস্থিত ছিলেন। হত্যাকাণ্ডের পর তারা ছাদ দিয়ে পালিয়ে গেছেন। নিহতদের মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে। ঘটনাটি তদন্ত করা হচ্ছে।

দোকানের নিচে পয়সার খনি, ৫ বস্তা বাড়ি নিলেন দোকানদার
                                  

সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি

সিরাজগঞ্জের কাজীপুর উপজেলায় মুদি দোকানের মাটি খুঁড়তে গিয়ে পাঁচ বস্তা পয়সা পাওয়া গেছে। পয়সাগুলোর মধ্যে রয়েছে ১, ২ ও ৫ টাকার কয়েন।

মঙ্গলবার (০৩ ডিসেম্বর) উপজেলার হরিণাথপুর সকালবাজারে দোকানের মাটি খুঁড়তে গিয়ে এসব পয়সা পাওয়া যায়। বুধবার (০৪ ডিসেম্বর) বিকেলে এ তথ্য নিশ্চিত করেন কাজীপুর থানা পুলিশের ওসি একেএম লুৎফর রহমান।

সকালবাজারের দোকানিদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, যে দোকানের মাটির নিচে পয়সার বস্তা পাওয়া গেছে ওই দোকানির বাড়ি উপজেলার হরিণাথপুর সাহাপাড়ায়। মঙ্গলবার দোকানের সামনে খরিদদারদের বসার মাচা ভেঙে গেলে নতুন করে মাচা তৈরির জন্য মাটি খুঁড়তে গেলে পাওয়া যায় পয়সার খনি। একে একে বের হয় ১, ২ ও ৫ টাকার পাঁচ বস্তা পয়সা। পরে ওই মুদি দোকানি ভ্যানে করে পয়সার বস্তাগুলো বাড়িতে নিয়ে যান।

দোকানি মৃদুল বলেন, দীর্ঘদিন দোকানদারি করতে গিয়ে নিচে পয়সা পড়ে এতগুলো জমে হয়েছে। তবে পাঁচ বস্তা পয়সায় মোট কত টাকা হয়েছে তা এখনো গণনা করে দেখিনি।

কাজীপুর থানা পুলিশের ওসি একেএম লুৎফর রহমান বলেন, পাঁচ বস্তা পয়সা উদ্ধারের কথা শুনেছি। এ বিষয়ে এখনো কোনো অভিযোগ পাইনি। তবে বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হবে।

‘বোর্ডপ্রধান অসুস্থ, খালেদার অবস্থা সেভাবে পর্যালোচনা হয়নি’
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

 

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কেবিনে চিকিৎসাধীন কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার বিস্তারিত প্রতিবেদন আজ (বৃহস্পতিবার) আদালতে দাখিল করার কথা থাকলেও তা আজ দাখিল করা হয়নি।

 

বিএসএমএমইউয়ের ইন্টারনাল মেডিসিন বিভাগের অধ্যাপক ডা. মো. জিলন মিঞা সরকারের নেতৃত্বে সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার সার্বিক দায়িত্ব পালন করছেন।

 

 

নাম প্রকাশ না করার শর্তে মেডিকেল বোর্ডের এক সদস্য আজ দুপুরে এ প্রতিবেদকের সঙ্গে আলাপকালে বলেন, ‘মেডিকেল বোর্ডপ্রধান জিলন মিঞা সরকার গত কয়েকদিন ধরে অসুস্থ থাকায় খালেদার শারীরিক অবস্থা সেভাবে পর্যালোচনা করা হয়নি, বিচ্ছিন্নভাবে চিকিৎসকরা কথা বলেছেন। আগে যে ওষুধ ছিল সে ওষুধই চলছিল।’

 

বোর্ডের ওই সদস্য বলেন, ‘বেগম খালেদা জিয়াকে দেখতে তারা এ মুহূর্তে (দুপুর ১টা) কেবিনে যাচ্ছেন। হুট করে চাইলেই খালেদা জিয়ার সাক্ষাৎ পাওয়া যায় না। তিনি দেরি করে ঘুম থেকে ওঠেন। এ কারণে তার অনুমতি নিয়ে দেখা করতে হয় বোর্ড সদস্যদের।’

 

যত দূর তারা জানেন তাতে বেগম খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থা নিয়ে উদ্বিগ্ন হওয়ার মতো কোনো ঘটনা ঘটেনি।

 

এদিকে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার সর্বশেষ স্বাস্থ্যগত অবস্থা জানাতে মেডিকেল বোর্ডের প্রতিবেদন দাখিলে আদালতের নির্দেশনা ছিল আজ বৃহস্পতিবার (৫ ডিসেম্বর)। তবে নির্ধারিত সময়ে এ প্রতিবেদন তৈরি না হওয়ায় তা আজ আদালতে দাখিল করা হয়নি।

 

 

এদিন খালেদার স্বাস্থ্যগত তথ্যের বিষয়ে আদালতের কাছে সময় চেয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। প্রধান বিচারপতি এ প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ১২ ডিসেম্বর দিন ধার্য করেন। খালেদার আইনজীবীরা অবশ্য চাচ্ছিলেন ৭ ডিসেম্বর যেন এ দিন ধার্য করা হয়।

 

এ প্রতিবেদক আজ দুপুরে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য় অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়ার কাছে আদালতের নির্দেশনা অনুয়ায়ী আজ কেন খালেদা জিয়ার সর্বশেষ শারীরিক অবস্থার প্রতিবেদন দাখিল করা হয়নি? জানতে চাইলে তিনি বলেন, সাত সদস্যের মেডিকেল বোর্ড সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা পর্যালোচনা করে প্রতিবেদন দাখিল করবে। কিন্তু তারা প্রতিবেদন দাখিল না করায় তা পাঠানো যায়নি।

 

কনক কান্তি বড়ুয়া আরও বলেন, সর্বশেষ শারীরিক অবস্থা জানার জন্য হয়তো কিছু পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলছে। এ কারণে মেডিকেল বোর্ড প্রতিবেদন দাখিল করেনি। ১২ ডিসেম্বরের পুনর্নির্ধারিত দিনে প্রতিবেদন দাখিল করা সম্ভব বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

নিরাপত্তা পরিষদকে উত্তর কোরিয়ার হুঁশিয়ারি
                                  

আন্তর্জাতিক ডেস্ক

মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনার পরিণতির বিষয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদকে হুঁশিয়ারি দিয়েছে উত্তর কোরিয়া।

নিরাপত্তা পরিষদে নিযুক্ত উত্তর কোরিয়ার স্থায়ী প্রতিনিধি কিম সুং এক চিঠিতে বলেছেন, তার দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য নিরাপত্তা পরিষদের যে বৈঠক ডাকা হয়েছে তা একটি ষড়যন্ত্র এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের বিদ্বেষী নীতির প্রতি প্রকাশ্য সমর্থন। পিয়ংইয়ং যে কোনো ষড়যন্ত্রের পাল্টা জবাব দিতে প্রস্তুত রয়েছে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। খবর পার্স ট্যুডে।

 

উত্তর কোরিয়া এ ধরণের পদক্ষেপকে উসকানি ও ষড়যন্ত্র হিসেবে গণ্য করছে বলেও ওই প্রতিনিধি জানিয়েছেন। কিম সুং আরও লিখেছেন, জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদের এই পদক্ষেপ কোরীয় উপদ্বীপে উত্তেজনা কমানোর পরিবর্তে সেটাকে আরও বাড়িয়ে তুলবে।

চলতি মাসেই উত্তর কোরিয়ার মানবাধিকার পরিস্থিতি পর্যালোচনার জন্য বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ।

যুক্তরাষ্ট্রের প্ররোচনায় জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ বিভিন্ন দেশের মানবাধিকার পরিস্থিতিকে চাপ প্রয়োগের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করছে বলে অভিযোগ রয়েছে।

দেশকে বাঁচতে হলে শেখ হাসিনাকে বাঁচতে হবে : ওবায়দুল কাদের
                                  

সিলেট ব্যুরো

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বাংলাদেশকে বাঁচাতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচতে হবে। মুক্তিযুদ্ধ ও গণতন্ত্রকে বাঁচতে হলে আওয়ামী লীগকে বাঁচাতে হবে। দেশকে বাঁচতে হলে শেখ হাসিনাকে বাঁচতে হবে।

 

বৃহস্পতিবার দুপুর ১টায় সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের উদ্বোধনী বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

 

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, ঐতিহ্যের সাথে প্রযুক্তির সমন্বয় ঘটিয়ে ২০২১ সালে উন্নয়নশীল দেশের মডেল তৈরি করতে আওয়ামী লীগকে নতুন করে গড়া হচ্ছে।

 

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে স্মরণ করে তিনি বলেন, আমি শ্রদ্ধা জানাই আমাদের ইতিহাসের মহানায়ক বাংলাদেশের স্বপ্নদ্রষ্টা ও স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অমর স্মৃতির প্রতি। জাতীয় চার নেতাসহ বাংলার স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধসহ বিভিন্ন পর্যায়ে আত্মাহুতি দিয়েছেন তাদের স্মৃতির প্রতিও শ্রদ্ধা জানাই।

 

 

দীর্ঘ ১৪ বছর পর সিলেটে আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ।

 

 

এর আগে দুপুর সাড়ে ১২টায় জাতীয় সংগীত গেয়ে পতাকা উত্তোলনের মধ্য দিয়ে সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলনের উদ্বোধন করেন দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। পরে অন্যান্য অতিথিদের সঙ্গে নিয়ে বেলুন ও পায়রা উড়ান তিনি। এরপর কোরআন তেলাওয়াত, গীতা, বাইবেল ও ত্রিপিঠকও পাঠ করা হয়।

 

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত আছেন আওয়ামী লীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থানমন্ত্রী ইমরান আহমদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন, আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা ইনাম আহমদ চৌধুরী, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, কেন্দ্রীয় সদস্য সুজিত রায় নন্দী, অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান প্রমুখ।

 

এছাড়াও স্থানীয় নেতৃবৃন্দের মধ্যে উপস্থিত আছেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শফিকুর রহমান চৌধুরী, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বদর উদ্দিন আহমদ কামরান, সাধারণ সম্পাদক আসাদ উদ্দিন আহমদসহ জেলা ও মহানগরের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীরা।

 

 

সম্মেলন ঘিরে সকাল থেকেই নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে আলিয়া মাদরাসা মাঠে জড়ো হন। এ সময় নেতাকর্মীদের হাতে বর্ণিল প্ল্যাকার্ড ও ফেস্টুন শোভা পায়। বিভিন্ন স্লোগানে স্লোগানে মুখরিত হয়ে ওঠে সম্মেলনস্থল।

 

প্রথম পর্বে জাতীয় সংগীতের সঙ্গে সঙ্গে জাতীয় ও দলীয় পতাকা উত্তোলনের মাধ্যমে সম্মেলন উদ্বোধন করবেন কেন্দ্রীয় ও স্থানীয় নেতৃবৃন্দ। সম্মেলনে সরব উপস্থিতি দেখা যাচ্ছে মহিলা আওয়ামী লীগের নেত্রীদেরও।

 

সম্মেলনকে সফল করতে সব ধরনের প্রস্তুতি সম্পন্ন হয়েছে বলে জানিয়েছেন সিলেটের আওয়ামী লীগ নেতারা।

আশুলিয়ায় পাঁচ তলা ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিক নিহত
                                  

উপজেলা প্রতিনিধি সাভার (ঢাকা)

সাভারে আশুলিয়ায় নির্মাণাধীন ভবনের পাঁচ তলা থেকে পড়ে আল আমিন (১৮) নামের এক শ্রমিক নিহত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার সকালে আশুলিয়ার কুরগাঁও এলাকার অ্যাডভোকেট সাহাবুদ্দিনের মালিকানাধীন ভবন থেকে পড়ে তিনি নিহত হন।

নিহত আল আমিন নীলফামারী জেলারা জলঢাকা উপজেলার পূর্ব শিমুলবাড়ি গ্রামের মো. আহিনূরের ছেলে।

নিহতের সহকর্মীরা জানান, সকালে কুরগাঁও এলাকার নির্মাণাধীন ওই ভবনে কাজ করতে যান আল আমিনসহ কয়েকজন নির্মাণ শ্রমিক। আল আমিন ভবনের পঞ্চম তলায় ছাদের কিনারে দাঁড়িয়ে নিচ থেকে রড টেনে তোলার কাজ করছিলেন। এ সময় হঠাৎ তিনি সেখান থেকে পড়ে প্রথমে বিদ্যুৎ সঞ্চালন লাইনের তারের ওপর এবং পরে নিচে পড়ে যান। গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র হাসপাতালে নেয়া হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

আশুলিয়া থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) মো. বদরুজ্জামান জানান, কুরগাঁও এলাকায় নির্মাণাধীন ভবনে কাজ করার সময় পাঁচ তলা থেকে পড়ে ওই শ্রমিকের মৃত্যু হয়েছে। ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে নিহতের মরদেহ থানায় আনা হয়েছে। এ ঘটনায় নিহতের স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে পরবর্তী আইনগত প্রক্রিয়া সম্পন্ন করা হবে।

মিছিলে মিছিলে প্রকম্পিত সিলেট নগর
                                  

 সিলেট প্রতিবেদক

 

দীর্ঘ ১৪ বছর পর সিলেট জেলা ও মহানগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হচ্ছে আজ (৫ ডিসেম্বর)। এ নিয়ে উচ্ছ্বসিত দলীয় নেতা-কর্মীরা। সম্মেলন উপলক্ষে সিলেট সরকারি আলিয়া মাদরাসা মাঠে নৌকার আদলে তৈরি করা হয়েছে ১৮শ বর্গফুটের বিশাল মঞ্চ। সামিয়ানা দিয়ে সাজানো হয়েছে পুরো মাঠ। নিরাপত্তা নিশ্চিতে মাঠজুড়ে লাগানো হয়েছে সিসি ক্যামেরা।

 

 

এদিকে সম্মেলনকে স্বাগত জানিয়ে নগরের ২৭টি ওয়ার্ড থেকে একের পর এক মিছিল বের হচ্ছে। সেই সঙ্গে জেলার ১৩ উপজেলা থেকেও মিছিল নিয়ে সম্মেলন স্থলে আসছেন নেতা-কর্মীরা। ফলে পুরো সিলেট শহর এখন মিছিলের নগরে পরিণত হয়েছে। রঙ-বেরঙের নৌকা, ব্যানার, ফেস্টুন নিয়ে সম্মেলনস্থলের অভিমুখে রওয়ানা হয়েছেন নেতাকর্মীরা।

 

 

সকাল ১০টা থেকে সিলেটের বিভিন্ন উপজেলা ও নগরের বিভিন্ন ওয়ার্ড থেকে নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে আলিয়া মাদরাসার মাঠে আসতে শুরু করেছেন। জেলা ও মহানগরের সভাপতি/ সাধারণ সম্পাদক পদপ্রত্যাশীদের পক্ষ থেকে সমর্থকরা মিছিল নিয়ে আসছেন। নেতাকর্মীদের খণ্ড খণ্ড মিছিলে মুখর হয়ে আছে নগরের চৌহাট্টা, রিকাবিবাজার, আম্বরখানা ও জিন্দাবাজারসহ বিভিন্ন অলিগলি।

 

 

 

স্থানীয় নেতা-কর্মীদের পাশাপাশি সম্মেলন স্থলে পৌঁছাতে শুরু করেছেন দলের কেন্দ্রীয় নেতারাও। ইতোমধ্যে সম্মেলন মঞ্চে এসে উপস্থিত হয়েছেন সাবেক বিএনপি নেতা ও বর্তমানে আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য ইনাম আহমদ চৌধুরী। দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে তিনি সম্মেলনস্থলে এসে মঞ্চের সামনের সারিতে বসেছেন।

 

ইনাম আহমদ চৌধুরী এক সময় বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ছিলেন। ২০১৮ সালের ১৯ ডিসেম্বর নির্বাচনের আগ মুহূর্তে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। তিনি বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-১ আসন থেকে বিএনপির মনোনয়ন চেয়েছিলেন। না পেয়ে আওয়ামী লীগে যোগ দেন। পরে চলতি বছরের ৮ তাকে দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য হিসেবে মনোনয়ন দেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী শেখ হাসিনা।

 

 

সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখবেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন প্রেসিডিয়াম সদস্য ও সাবেক শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদ, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, প্রবাসীকল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইমরান আহমদ, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. একে অব্দুল মোমেন, কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, অ্যাডভোকেট মিসবাহ উদ্দিন সিরাজ, কেন্দ্রীয় সদস্য সুজিত রায় নন্দী, অধ্যাপক মো. রফিকুর রহমান প্রমুখ।

লক্ষ্মীপুরে ‘গোলাগুলিতে’ ২ যুবক নিহত
                                  

লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধি 

 

লক্ষ্মীপুরে দুই যুবকের গুলিবিদ্ধ মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। বৃহস্পতিবার ভোররাতে সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের বকুলতলা এলাকা থেকে তাদের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পুলিশের ধারণা, দুই দল সন্ত্রাসীদের মধ্যে সংঘটিত গোলাগুলিতে তারা নিহত হয়েছেন।

 

নিহতরা হলেন সদর উপজেলার দর্জিপাড়া গ্রামের আবু তাহেরের ছেলে শাহাদাত ও বড়ইতলা গ্রামের তোফায়েল আহমেদের ছেলে খোরশেদ।

 

দত্তপাড়া পুলিশ ফাঁড়ির এসআই মজিবুর রহমান জানান, বৃহস্পতিবার ভোররাতে সদর উপজেলার দত্তপাড়া ইউনিয়নের বকুলতলা এলাকায় গোলাগুলির শব্দ পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। পরে সেখানে দুই যুবককে গুলিবিদ্ধ অবস্থায় দেখতে পেয়ে হাসপাতালে নেয়া হয়। হাসপাতালের চিকিৎসক তাদের পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে মৃত ঘোষণা করেন।

 

তিনি আরও জানান, ধারণা করা হচ্ছে, দুই দল সন্ত্রাসীদের মধ্যে গুলিবিনিময়ের ঘটনায় তারা নিহত হয়েছেন। ঘটনাস্থল থেকে একটি বন্দুক, চার রাউন্ড গুলি, পাঁচটি গুলির খোসা এবং দেশীয় অস্ত্র উদ্ধার করা হয়েছে।

ধান চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা
                                  

রাজবাড়ী প্রতিনিধি  

 

  

 

এখন আর লাভের আশায় ধান চাষ করছেন না রাজবাড়ীর কৃষকরা। নিজেদের খাওয়ার জন্যই তারা ধান চাষ করছেন। খরচের তুলনায় ন্যায্যমূল্য না পাওয়ায় দিন দিন ধান চাষে আগ্রহ হারিয়ে ফেলছেন কৃষকরা।

 

ধান উৎপাদনে রাজবাড়ী জেলা অন্যতম এবং কৃষি প্রধান জেলার মধ্যে একটি। এ জেলায় ধান, পাট, পেঁয়াজ, গম, রসুনসহ বিভিন্ন ধরনের কৃষিপণ্য উৎপাদন হয়। যা দেশের কৃষিপণ্যতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে। চলতি মৌসুমে রাজবাড়ীতে প্রায় ৪৭ হাজার হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। আবহাওয়া ভালো থাকায় এবার ফলনও ভালো হয়েছে। কিন্তু ধান চাষে শুরু থেকে মাড়াই পর্যন্ত যে খরচ সে তুলনায় বাজারে দাম পাচ্ছেন না কৃষকরা। যে কারণে তারা আগামীতে ধানের পরিবর্তে অন্য ফসল আবাদের প্রস্তুতি নিচ্ছেন। ধানের দাম ন্যুনতম ৮০০ টাকা মণ করার দাবি কৃষকদের।

 

 

 

 

 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতর সূত্রে জানা গেছে, এ বছর রাজবাড়ীতে ৪৬ হাজার ৪৮০ হেক্টর জমিতে আমন ধানের আবাদ হয়েছে। এর মধ্যে উচ্চ ফলনশীল ধান বেশি। সদর উপজেলায় ১২ হাজার ৮৯০ হেক্টর, পাংশায় ১১ হাজার ৭২৫ হেক্টর, বালিয়াকান্দিতে ১২ হাজার ৩৮০ হেক্টর, কালুখালীতে ৮ হাজার ১১৫ হেক্টর ও গোয়ালন্দে ১ হাজার ৩৫৬ হেক্টর জমিতে ধান আবাদ হয়েছে।

 

কৃষকর বলছেন, ধান চাষে শুরু থেকে মাড়াই পর্যন্ত প্রতিবিঘা জমিতে তাদের খরচ হয় প্রায় সাড়ে ৫ হাজার টাকা এবং প্রতিবিঘায় ধান পান ১০ থেকে ১২ মণ। ধানের দাম ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা মণ হওয়া উচিত।

 

 

কৃষি অফিস বলছে, এ বছর প্রতিবিঘা জমিতে গড়ে প্রায় ১৮ মণ ধান উৎপাদন হয়েছে। প্রতিমণ ধানের দাম এক হাজার টাকা হলে কৃষকরা ন্যায্যমূল্য পাবেন।

 

 

ধান চাষি মো. আলাউদ্দিন শেখ জানান, বহু বছর ধরে তিনি ধানসহ বিভিন্ন ধরনের কৃষিপণ্য চাষাবাদ করছেন। কিন্তু কৃষি পণ্যের ন্যায্যমূল্য পাচ্ছেন না। এ বছর তিনি প্রায় ১৬ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছেন এবং ফলনও ভালো হয়েছে। সব মিলিয়ে প্রায় ৪০০ থেকে ৪৫০ মণ ধান পাবেন বলে আশা করছেন। বর্তমান বাজারে সর্বোচ্চ সাড়ে ৬০০ টাকা মণ ধান বিক্রি করছেন। এ দামে ধান বিক্রি করলে তাদের কিছুই থাকে না। তার মত কৃষকদের বাঁচাতে হলে ধানের দাম ন্যূনতম ৮০০ টাকা মণ করে সরকারের ভর্তুকি দেয়া উচিত।

 

 

 

আরেক চাষি গোবিন্দ চন্দ্র দাস জানান, তিনি ৯ বিঘা জমিতে ধান চাষ করেছেন। এ বছর যে ফলন হয়েছে তাতে প্রায় ১০০ মণের মত ধান পাবেন। ধান চাষের শুরু থেকে কেটে মাড়াই পর্যন্ত যে খরচ তাতে লাভ হওয়ার কোনো সম্ভাবনা নাই। ধান চাষে পুরো লস।

 

 

তিনি বলেন, সরকার কার্ডের মাধ্যমে ন্যায্যমূল্যে ধান কিনবে বলে শুনেছি। সে সুবিধা পেলে একটু বাঁচতাম। এখন লাভের আশায় নয়, নিজেরা খাওয়ার জন্য ধান চাষ করছি। এ রকম ধানের বাজার থাকলে অন্য ফসল আবাদ করবো ভাবছি।

 

ধান চাষি আলম শেখ বলেন, আমাদের কয়েক বিঘা জমিতে ধান চাষ করা হতো। কিন্তু ধানের দাম কম হওয়াতে এ বছর অনেক কম জমিতে ধান চাষ করা হয়েছে। ধান চাষে যে পরিমাণ খরচ হয় তাতে প্রতিমণ ধানের দাম ৮০০ থেকে ১ হাজার টাকা হওয়া উচিত। মাঠের ৬টি গভীর নলকূপ বন্ধ হয়ে রয়েছে শুধুমাত্র লোকসানের কারণে। এখন যারা ধান চাষ করছেন তা শুধু নিজেরা খাওয়ার জন্য। এছাড়াও গরুর খড়ের জন্য।

 

 

 

সদর উপজেলা কৃষি অফিসার মো. বাহাউদ্দিন সেক জানান, এ বছর আমন ধানের ফলন ভালো হয়েছে । তবে কৃষকরা ধানের ন্যায্যমূল্য পাওয়া নিয়ে শঙ্কিত। এক হাজার টাকা মণ ধান বিক্রি করতে পারলে কৃষকরা ন্যায্যমূল্যে পাবেন ও কিছুটা লাভবান হবেন।

 

 

তিনি আরও জানান, নতুন করে কৃষকরা বোরো ধানের বীজতলা দেয়া শুরু করলেও বোরো ধানের আবাদ অনেকটা কম হবে। ধানের ন্যায্যমূল্যে না পাওয়ার কারণে আবাদের লক্ষ্যমাত্রা কমে যাচ্ছে। দিন দিন কৃষকরা ধান চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন। তারা ধানি জমিতে খেসারি, মসুর, সরিষা জাতীয় ফসল চাষে আগ্রহী হচ্ছেন।

 

জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদফতরের উপ-পরিচালক মো. ফজলুর রহমান বলেন, এ বছর রাজবাড়ীতে ৭৭ হাজার হেক্টর জমিতে ধান আবাদের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে। এর মধ্যে ৪৬ হাজার ৭৮০ হেক্টর জমিতে আমান ধানের আবাদ হয়েছে। বিশেষ করে উচ্চ ফলনশীল বীণা ধান ৭, বিরি ধান ৩৩-৩৯-৪৯ এবং নতুন জাত বিরি ধান ৮৭ চাষ হয়েছে। কৃষকদের নতুন ধান আবাদে বিভিন্ন প্রশিক্ষণের মাধ্যমে উদ্বুদ্ধ করা হচ্ছে।

 

 

 

তিনি বলেন, ইতোমধ্যে ধান কাটা শুরু হয়েছে, ফলনও ভালো হয়েছে। সরকারিভাবে ধান ক্রয়ের জন্য চাষিদের তালিকা তৈরি করা হচ্ছে। সেই তালিকার ভিত্তিতে ধান কেনা হবে। এতে কৃষকরা লাভবান হবেন।

 

রাঙ্গামাটিতে ইউপিডিএফ কর্মীকে গুলি করে হত্যা
                                  

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি

রাঙ্গামাটির নানিয়ারচর উপজেলায় সোভা চাকমা ওরফে গিরি চাকমা (৪০) নামে ইউনাইটেড পিপলস ডেমোক্রেটিক ফ্রন্টের (ইউপিডিএফ) এক কর্মীকে গুলি করে হত্যা করেছে প্রতিপক্ষের লোকজন। বুধবার (৪ নভেম্বর) সকালে উপজেলার দুর্গম সাবেক্ষং ইউনিয়নের বড়পুল এলাকা থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহত সোভা চাকমা ওরফে গিরি চাকমা ওই এলাকার বাসিন্দা গোপাল চন্দ্র চাকমার ছেলে। তিনি ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের সদস্য বলে জানা গেছে।

নানিয়ারচর থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. কবির হোসেন জানান, সকালে সাবেক্ষং ইউনিয়নের বড়পুল এলাকায় একটি গুলিবিদ্ধ মরদেহ দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেন স্থানীয়রা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থল গিয়ে নিহতের মরদেহ উদ্ধার করা হয়েছে।

তিনি আরও জানান, নিহত সোভা চাকমা ওরফে গিরি চাকমা ইউপিডিএফ প্রসীত গ্রুপের কর্মী হিসেবে এলাকায় পরিচিত। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি রাঙ্গামাটি জেনারেল হাসপাতাল মর্গে পাঠানোর প্রক্রিয়া চলছে।

সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত
                                  

সাতক্ষীরা প্রতিনিধি

সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হয়েছে। একই সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমানের বিরুদ্ধে গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগে তাকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (৩ ডিসেম্বর) ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য এক প্রেস বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানান।


বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, সাতক্ষীরা জেলা শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমানের গঠনতন্ত্র পরিপন্থী কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় তাকে ছাত্রলীগ থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হলো। সেই সঙ্গে কমিটির মেয়াদোত্তীর্ণ হওয়ায় কমিটি বিলুপ্ত ঘোষণা করা হলো। আগামী ১৮ ডিসেম্বরের মধ্যে পদ প্রত্যাশীদের কেন্দ্রীয় দফতরে জীবন বৃত্তান্ত জমা দেয়ার আহ্বান জানানো হলো।

উল্লেখ্য, গত শনিবার (১ ডিসেম্বর) ভোররাতে সাতক্ষীরায় পুলিশের সঙ্গে বন্দুকযুদ্ধে ছাত্রলীগ কর্মী শহরের মুনজিতপুর এলাকার মইনুল ইসলামের ছেলে দ্বীপ (২২) ও সাতক্ষীরার কালিগঞ্জ উপজেলার চম্পাফুল ইউনিয়নের সাইহাটি গ্রামের বাসিন্দা সাইফুল ইসলাম (২৮) নিহত হন। অস্ত্রও উদ্ধার করে পুলিশ।

পুলিশের দাবি- নিহত দুইজনই ছিনতাইকারী। সাতক্ষীরার কালিগঞ্জে বিকাশের ২৫ লাখ টাকা ছিনতাইয়ের ঘটনায় তারা জড়িত।

পুলিশ বলছে, এ ঘটনার মূল পরিকল্পনাকারী জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ সাদিকুর রহমান। নিহত দুইজন সাদিকুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহযোগী। অস্ত্র উদ্ধারের ঘটনায় জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদককে আসামি করে সদর থানায় একটি অস্ত্র আইনে মামলাও হয়েছে।

কেরানীগঞ্জে কৃষি ফসল নষ্ট কৃষককে হত্যার হুমকী
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান

ঢাকা জেলার কেরানীগঞ্জ মডেল থানাধীন রুহিতপুর ইউনিয়নের দক্ষিণ ধর্মশুর এলাকায় এক কৃষকের বাণিজ্যিক ভাবে চাষ করা প্র্য় অর্ধশত পেঁপে গাছ কেটে ফেলেছে দুবৃত্তরা। এতে কৃষক মোশারফ মিয়ার প্রায় ৫০ হাজার টাকার ক্ষতি হয়েছে। এছাড়াও ঐ কৃষককে একাধীকবার হত্যার হুমকী দেয় দৃবৃত্তরা। এঘটনায় কৃষক মোশারফ সোমবার রাতে কেরানীগঞ্জ মডেল থানায় একটি সাধারন ডায়েরী করেন।
কৃষক মোশারফ জানান, তিনি প্রতি বছর শীতের সময় কয়েক বিঘা জমিতে সবজি চাষ করেন। এবার সে তার জমিতে প্রায় শতাধিক পেঁপে গাছ রোপন করেন। পেঁপে ধরতে শুরু করেছে। এমন সময় একই গ্রামের মোক্তার হোসেন, আক্তার হোসেন ও তাদের পিতা আলতাফ হোসেন পূর্ব শত্রুতার জের ধরে তার অর্ধশত পেঁপে গাছ কেটে ফেলেন। এ ঘটনায় তার প্রায় ৫০ হাজার টাকার কৃষি ফসল নষ্ট হয়। এতে পূর্বেও তারা তার লাউ গাছ কেটে প্রয় ২শতাধিক লাউ নষ্ট করে দেয়। এ ঘটনায় ইউপি চেয়ারম্যানের কাছে বিচার দিলে তার চেয়ারম্যানের নোটিশ পেয়েও গ্রাম্য শালিসে আসেনা। পার্শ্ববর্তী বর্গাচাষী আলতাফ হোসেন (আলতা) জানান এই কাজটি একেবারেই জঘণ্যতম কাজ,আমার মনে হয় তৃতীয় ব্যক্তি ঝসড়া বাধানোর জন্য এই কাজটি করছে। মোঃ জজ মিয়া বলেন গাছ কাটা, কৃষি ফসল নষ্ট করা ভালো মানুষের কাজ নয়। এদেও কঠোর শাস্তি ও বিচার হওয়া উচিত যারা এমন জঘণ্য কাজটি করেছে।
কেরানীগঞ্জ মডেল থানার ওসি শাকের মোহাম্মদ যুবায়ের বলেন, কৃষকের জমিতে কৃষি ফসল কেটে নষ্ট করে ফেলা এটা খুবই দুঃখ জনক। থানায় একটি সাধারন ডায়েরী হয়েছে। এব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।


   Page 1 of 114
     সারা দেশ
‘তোমরা আমাকে নিয়ে যাও আমি বাঁচবোনানে’
.............................................................................................
ঘিরে রাখা বস্তুটি বোমা নয়
.............................................................................................
মাটি দিয়ে পাকা রাস্তা সংস্কার
.............................................................................................
৩২ টাকা কেজি পেঁয়াজ কিনে ২৩০ টাকায় বিক্রি
.............................................................................................
বরিশালে একই পরিবারের তিনজনের মরদেহ উদ্ধার
.............................................................................................
দোকানের নিচে পয়সার খনি, ৫ বস্তা বাড়ি নিলেন দোকানদার
.............................................................................................
‘বোর্ডপ্রধান অসুস্থ, খালেদার অবস্থা সেভাবে পর্যালোচনা হয়নি’
.............................................................................................
নিরাপত্তা পরিষদকে উত্তর কোরিয়ার হুঁশিয়ারি
.............................................................................................
দেশকে বাঁচতে হলে শেখ হাসিনাকে বাঁচতে হবে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
আশুলিয়ায় পাঁচ তলা ভবন থেকে পড়ে নির্মাণ শ্রমিক নিহত
.............................................................................................
মিছিলে মিছিলে প্রকম্পিত সিলেট নগর
.............................................................................................
লক্ষ্মীপুরে ‘গোলাগুলিতে’ ২ যুবক নিহত
.............................................................................................
ধান চাষে আগ্রহ হারাচ্ছেন কৃষকরা
.............................................................................................
রাঙ্গামাটিতে ইউপিডিএফ কর্মীকে গুলি করে হত্যা
.............................................................................................
সাতক্ষীরা জেলা ছাত্রলীগের কমিটি বিলুপ্ত
.............................................................................................
কেরানীগঞ্জে কৃষি ফসল নষ্ট কৃষককে হত্যার হুমকী
.............................................................................................
অপরাধ দমনে বিট পুলিশিং কার্যক্রমের আওতায় কক্সবাজার জেলা পুলিশ : অতিরিক্ত পুলিশ সুপার ইকবাল হোছাইন
.............................................................................................
খালেদার স্বাস্থ্য : হাইকোর্টের আদেশের কপি বিএসএমএমইউতে
.............................................................................................
বিঘাপ্রতি পেঁয়াজের ফলন ২০০ মণ, তবুও লোকসান
.............................................................................................
নৌযান শ্রমিকদের ধর্মঘট প্রত্যাহার
.............................................................................................
পুলিশের সঙ্গে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ দুই ছাত্রলীগ কর্মী নিহত
.............................................................................................
কাদিয়ানীদের রাষ্ট্রীয়ভাবে অমুসলিম ঘোষণা করুন: পীর সাহেব মাওলানা আব্দুল হামিদ
.............................................................................................
র‌্যাব-পুলিশ দিয়েও পেঁয়াজের বাজার নিয়ন্ত্রণ করা যাবে না
.............................................................................................
একটি পেঁয়াজের দাম ১০০ টাকা
.............................................................................................
আ.লীগ নেতার পুরুষাঙ্গ কর্তন নিয়ে রহস্য
.............................................................................................
এক ট্রেনের ইঞ্জিন বিকলে আটকা পড়ল ১০টি ট্রেন
.............................................................................................
স্ত্রীকে মেরে সেপটিক ট্যাংকে ফেলে দিল স্বামী
.............................................................................................
পর্দা কেলেঙ্কারিসহ ১০ কোটি টাকা আত্মসাৎ, ৬ জনের নামে মামলা
.............................................................................................
অনশনে বসেছেন রাজশাহী-নরসিংদী-খুলনার পাটকল শ্রমিকরা
.............................................................................................
নৌযান শ্রমিকদের কর্মবিরতি প্রত্যাহার
.............................................................................................
রাষ্ট্রীয় মর্যাদা প্রত্যাখ্যান করলেন আরেক মুক্তিযোদ্ধা
.............................................................................................
দেশে ফেরার আকুতি জানানো সেই নারী উদ্ধার
.............................................................................................
মেয়েকে কোলে নিয়েই বিদ্যুৎস্পর্শ, বাবা-মেয়ের মৃত্যু
.............................................................................................
বাসের মধ্যে ঢুকে গেল ট্রাক, চালকসহ নিহত ৩
.............................................................................................
আ.লীগের সম্মেলনে চেয়ার দখল নিয়ে সংঘর্ষ
.............................................................................................
মাইকিং করে ‘কম’ দামে চাল বিক্রি
.............................................................................................
১১ দফা দাবিতে রাষ্ট্রায়ত্ত পাটকল শ্রমিকদের ভুখা মিছিল
.............................................................................................
মালয়েশিয়া বলে সোনাদিয়া দ্বীপে রেখে পালাল দালালরা
.............................................................................................
রাজধানীতে স্বাভাবিক হয়েছে যানচলাচল
.............................................................................................
শ্রীমঙ্গলে ৮ মন্দিরে চুরির মালামাল মিললো পুকুরে
.............................................................................................
চাঁদপুরে এতিমখানার বারান্দা ধসে আহত ৩৫
.............................................................................................
অ্যাম্বুলেন্স সিন্ডিকেটের বলি হলেন বৃদ্ধা ফুলচান
.............................................................................................
রাস্তার পাশ থেকে ফুটফুটে নবজাতক উদ্ধার
.............................................................................................
ড্রেজারের সঙ্গে ধাক্কায় ট্রলারডুবি, একজনের মৃত্যু
.............................................................................................
বন বিভাগের তালিকায় সাড়ে ৪ হাজার ভাঙা গাছ, বাস্তবে কয়টি?
.............................................................................................
শেখ হাসিনার নামে জমি লিখে দিয়ে ২১ বছর খাজনা দিচ্ছেন তিনি
.............................................................................................
সাতক্ষীরায় কৃষকের গায়ে পেট্রল ঢেলে আগুন দিল দুর্বৃত্তরা
.............................................................................................
ঘরে তালা মেরে মসজিদে স্বামী, আগুনে পুড়ে মরলো স্ত্রী
.............................................................................................
ঘরে তালা মেরে মসজিদে স্বামী, আগুনে পুড়ে মরলো স্ত্রী
.............................................................................................
একসঙ্গে মৃত্যু, একই কবরস্থানে ৮ জনের দাফন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]