| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ২৯ তারিখ থেকে ট্রেনের আগাম টিকিট বিক্রি শুরু   * এখন পর্যন্ত ৬ জন বাংলাদেশি হজযাত্রী মারা গেছেন   * উচ্চ মাধ্যমিকে পাসের হার ৭৩.৯৩%   * ৮ দিন পর বান্দরবানের সঙ্গে সড়ক যোগাযোগ স্বাভাবিক   * রাজবাড়ীতে বিপৎসীমার ওপরে পদ্মার পানি   * মামলার প্রধান সাক্ষী থেকে আসামি মিন্নি   * রংপুরবাসীর ভালোবাসায় পল্লী নিবাসে চিরশায়িত এরশাদ   * প্রতি উপজেলায় মিনি স্টেডিয়াম নির্মাণের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর   * আদালতে খুন : বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট   * এইচএসসি পরীক্ষার ফল বুধবার  

   আদালত -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
আদালতে খুন : বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট

অনলাইন ডেস্ক : আদালত অঙ্গন ও বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে আজ রিট পিটিশন দায়ের করা হয়েছে। সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান এ রিট দায়ের করেন।

কুমিল্লা জেলা আদালতে বিচারকের সামনে হত্যা মামলার এক আসামির ছুরিকাঘাতে অপর আসামি খুন হওয়ার ঘটনায় এ রিট করেন ইশরাত হাসান। আগামীকাল বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনটির শুনানি হতে পারে।

এডভোকেট ইশরাত হাসান সাংবাদিকদের বলেন, গতকাল আদালত কক্ষে বিচারকের সামনে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে, সচেতন নাগরিক হিসেবে এ ঘটনায় আমি উদ্বিগ্ন। এ কারণে আমি সমগ্র আদালত অঙ্গন ও বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেছি।

রিটে মন্ত্রিপরিষদ সচিব,আইন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী (রেসপনডেন্ট) করা হয়েছে।
কুমিল্লার তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফাতেমা ফেরদৌসের আদালতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় নিহত যুবকের নাম ফারুক হোসেন (২৭)। খুনী আবুল হাসানকে (২৫) গ্রেফতাার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জেলা পুলিশ তদন্ত কমিটি করেছে। বাসস

আদালতে খুন : বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আদালত অঙ্গন ও বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে আজ রিট পিটিশন দায়ের করা হয়েছে। সুপ্রিমকোর্টের আইনজীবী ইশরাত হাসান এ রিট দায়ের করেন।

কুমিল্লা জেলা আদালতে বিচারকের সামনে হত্যা মামলার এক আসামির ছুরিকাঘাতে অপর আসামি খুন হওয়ার ঘটনায় এ রিট করেন ইশরাত হাসান। আগামীকাল বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চে রিট আবেদনটির শুনানি হতে পারে।

এডভোকেট ইশরাত হাসান সাংবাদিকদের বলেন, গতকাল আদালত কক্ষে বিচারকের সামনে যেভাবে হত্যা করা হয়েছে, সচেতন নাগরিক হিসেবে এ ঘটনায় আমি উদ্বিগ্ন। এ কারণে আমি সমগ্র আদালত অঙ্গন ও বিচারকদের যথাযথ নিরাপত্তা দেয়ার নির্দেশনা চেয়ে হাইকোর্টে রিট করেছি।

রিটে মন্ত্রিপরিষদ সচিব,আইন সচিব, স্বরাষ্ট্র সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের বিবাদী (রেসপনডেন্ট) করা হয়েছে।
কুমিল্লার তৃতীয় অতিরিক্ত জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক ফাতেমা ফেরদৌসের আদালতে এ ঘটনা ঘটে। ঘটনায় নিহত যুবকের নাম ফারুক হোসেন (২৭)। খুনী আবুল হাসানকে (২৫) গ্রেফতাার করেছে পুলিশ। এ ঘটনায় জেলা পুলিশ তদন্ত কমিটি করেছে। বাসস

শিমুল বিশ্বাসকে দুই সপ্তাহের মধ্যে আত্মসমর্পণে নির্দেশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : পুলিশের কাজে বাধাদানের এক মামলায় বিএনপির চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাসকে দুই সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণে নির্দেশ দিয়েছে হাইকোর্ট।

এ মামলায় তার জামিন চেয়ে করা আবেদনের পর আজ সোমবার বিচারপতি জাহাঙ্গীর হোসেন ও বিচারপতি মো.রিয়াজ উদ্দিন খানের সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেয়।

আদালতে আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী খন্দকার মাহবুব হোসেন ও আইনজীবী মাসুদ রানা। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল জাহিদ সরওয়ার কাজল।

আইনজীবী মাসুদ রানা বলেন, ২০১৭ সালের ১৬ নভেম্বর বিএনপি চেয়ারপার্সন আদালতে হাজিরা দিতে যাওয়ার ঘটনায় মিছিল করে পুলিশের কর্তব্যকাজে বাধা দেয়ার অভিযোগে শাহবাগ থানায় এ মামলা করা হয়। এজাহারে শিমুল বিশ্বাসের নাম ছিলো না। পরে ২০১৮ সালের ২০ নভেম্বর চার্জশিটে তার নাম আসে। এ মামলায় জামিন চেয়ে তিনি হাইকোর্টে আবেদন করেন। আজ আদালত তাকে দুই সপ্তাহের মধ্যে নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণে নির্দেশ দিয়েছে। বাসস

ওয়াসার পানিতে বর্জ্য ও ব্যাকটেরিয়ার বিষয়ে পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা ওয়াসার কিছু কিছু এলাকার পানিতে মল ও ব্যাকটেরিয়ার অস্তিত্ব পাওয়ার ঘটনায় কী পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে তা জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের প্রতিবেদন দাখিল করতে বলা হয়েছে। এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিল করার পর বিচারপতি জেবিএম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলম সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট ডিভিশন বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেয়। আদালতে প্রতিবেদনটি দাখিল করেন ডেপুটি এটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু। এসময় রিটকারী আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রিটকারী আইনজীবী মো. তানভীর আহমেদ সাংবাদিকদের জানান, ঢাকা ওয়াসার বিভিন্ন এলাকা থেকে সংগৃহীত আটটি নমুনার পানিতে দূষণের তথ্য প্রতিবেদন আকারে দাখিল করা হয়। এসব এলাকার পানিতে ব্যাকটেরিয়া ও উচ্চ মাত্রার অ্যামোনিয়া পাওয়া গেছে এবং কিছু কিছু নমুনাতে মলের অস্তিত্বও পাওয়া গেছে বলে প্রতিবেদনে উঠে এসেছে। এ বিষয়ে কর্তৃপক্ষ কী পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে তা আদালতকে দুই সপ্তাহের মধ্যে জানাতে বলা হয়েছে।
উল্লেখ্য প্রতিবেদনে বলা হয়, ওয়াসার ১০টি মডস জোনের মধ্যে চারটি জোন এবং সায়েদাবাদ ও চাঁদনীঘাট এলাকা থেকে সংগৃহীত ৮টি নমুনা পানিতে দূষণ পেয়েছে হাইকোর্টের নির্দেশে গঠিত কমিটি। এইসব এলাকার পানিতে ব্যাকটেরিয়া, উচ্চ মাত্রার অ্যামোনিয়া পাওয়া গেছে। এ ছাড়া কিছু কিছু নমুনাতে মলের অস্তিত্ব পাওয়া গেছে।

গত ২১ মে এক আদেশে ঢাকা ওয়াসার পানির উৎস, ১০টি বিতরণ জোন, গ্রাহকদের অভিযোগের ভিত্তিতে ১০টি ঝুঁকিপূর্ণ স্থান এবং দৈবচয়নের ভিত্তিতে ১০টি স্থান থেকে নমুনা সংগ্রহ করতে নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট। এরপর ৩৪টি স্থান থেকে পানির নমুনা সংগ্রহ করে তা আইসিডিডিআরবি, বুয়েট ও ঢাবি অনুজীব বিজ্ঞান বিভাগের ল্যাবে পরীক্ষা করা হয়। এর মধ্যে ৮টি নমুনাতে দূষণ পেয়েছে কমিটি।

গত বছর ৬ নভেম্বর হাইকোর্টের দেয়া এক নির্দেশে ঢাকা ওয়াসার পানি পরীক্ষার জন্য চার সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়, বুয়েট, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) এবং আইসিডিডিআরবির প্রতিনিধির সমন্বয়ে এ কমিটি গঠন করা হয়। এই কমিটিকে গত ২১ মে পানি পরীক্ষার নির্দেশ দেয় হাইকোর্ট।
এর আগে ২০১৮ সালের ১১ অক্টোবর বিশ্বব্যাংক একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করে। ওই প্রতিবেদনে বলা হয়, দেশের সাড়ে সাত কোটি মানুষ অনিরাপদ উৎসের পানি পান করে। ৪১ শতাংশ পানির নিরাপদ উৎসগুলোতে রয়েছে ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া। ১৩ শতাংশ পানিতে রয়েছে আর্সেনিক। পাইপের মাধ্যমে সরবরাহ করা পানিতে এই ব্যাকটেরিয়ার উপস্থিতি সবচেয়ে বেশি, প্রায় ৮২ শতাংশ। পরে পত্রিকায়ও এসব তথ্য প্রকাশিত হয়। প্রকাশিত সেইসব প্রতিবেদন যুক্ত করে জনস্বার্থে হাইকোর্টে রিট দায়ের করেন আইনজীবী তানভীর আহমেদ। বাসস

নুসরাতের শ্লীলতাহানির মামলা নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে শ্লীলতাহানির অভিযোগে দায়ের করা মামলা নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালে পাঠানো হয়েছে। বৃহস্পতিবার ফেনীর জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম মো. জাকির হোসাইন মামলার সকল নথিপত্র নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মামুনুর রশিদের আদালতে পাঠানোর নির্দেশ দেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও পিবিআইয়ের পরিদর্শক মো. শাহ আলম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এর আগে বুধবার মাদরাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফিকে পুড়িয়ে হত্যার আগে যৌন হয়রানির মামলায় অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলার বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র (চার্জশিট) দাখিল করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)। বৃহস্পতিবার চার্জশিটের ওপর আদালতে শুনানি হয়। শুনানি শেষে মামলাটি নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মামুনুর রশিদের আদালতে পাঠানো হয়।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ও ফেনী পিবিআইয়ের পরিদর্শক শাহ আলম জানান, গত ২৭ মার্চ অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলা নুসরাতকে তার কক্ষে ডেকে নিয়ে শ্লীলতাহানি করেন। নুসরাতের মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা দায়ের করলে পুলিশ অধ্যক্ষ সিরাজকে গ্রেফতার করে। পরে পুলিশ সদর দফতর থেকে মামলাটি পিবিআইকে তদন্তের দায়িত্ব দেয়। পিবিআই ৯৬ দিনের মাথায় বুধবার আদালতে অভিযোগপত্র দাখিল করে। ২৭১ পৃষ্ঠার অভিযোগপত্রে ডাক্তার ও পুলিশসহ মোট ২৯ সাক্ষী রয়েছে।

পিবিআইয়ের চট্টগ্রাম বিভাগের বিশেষ পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইকবাল জানান, অধ্যক্ষ সিরাজ নুসরাতকে যৌন হয়রানির কথা স্বীকার করেছেন। হত্যা মামলায় তিনি আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জবানবন্দিতে ২৭ মার্চ যৌন হয়রানির বিষয়টি স্বীকার করেছেন। যার কারণে এই মামলায় নতুন করে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেয়ার প্রয়োজন হয়নি।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৭ মার্চ ফেনীর সোনাগাজী ইসলামিয়া ফাজিল মাদরাসার আলিম পরীক্ষার্থী নুসরাত জাহান রাফিকে যৌন নিপীড়নের অভিযোগে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদ দৌলাকে গ্রেফতার করে পুলিশ। ৬ এপ্রিল ওই মাদরাসার সাইক্লোন শেল্টারের তিন তলার ছাদে নিয়ে অধ্যক্ষের সহযোগীরা নুসরাতের শরীরে আগুন ধরিয়ে দেয়। ১০ এপ্রিল রাতে ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে মারা যান নুসরাত।

গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত স্থগিতে আবেদনের শুনানি ৯ জুলাই
                                  

অনলাইন ডেস্ক : গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) সম্পূরক আবেদনের শুনানির জন্য আগামী মঙ্গলবার ৯ জুলাই দিন ধার্য করেছে হাইকোর্ট।

পেট্রোবাংলার পক্ষে সময় আবেদনের প্রেক্ষিতে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদের সমন্বয়ে গঠিত একটি হাইকোর্ট বেঞ্চ আজ এ আদেশ দেয়।

১ জুলাই থেকে গ্যাসের দাম বাড়ানো হয়। এক চুলার দাম ৭৫০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ৯২৫ টাকা। আর দুই চুলা ৮০০ থেকে হয়েছে ৯৭৫ টাকা। এ ছাড়া গৃহস্থালি কাজে মিটারভিত্তিক গ্রাহকদের জন্য দাম বেড়েছে ঘনমিটার প্রতি ১২ টাকা ৬০ পয়সা। গড়ে প্রতি ঘনমিটারে বেড়েছে ৯ টাকা ৮০ পয়সা। গ্যাসের এ দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত স্থগিত চেয়ে গত ১ জুলাই সম্পূরক আবেদন করে ক্যাব। ক্যাবের পক্ষে শুনানি করেন ব্যারিস্টার জ্যোর্তিময় বড়ুয়া।

ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, আদালতের অবকাশের আগে একটা আবেদন ছিল। মূল রিট মামলায় আমরা কতগুলা প্রতিবেদন দেখিয়েছিলাম। তার মধ্যে একটা প্রতিবেদন আছে যেখানে বলা হয়েছে, দুদক তদন্ত করে দুর্নীতির প্রমাণ পেয়েছে। সেখানে দুদক বলেছিল ওই দুর্নীতি রোধ করা গেলে গ্যাসের দাম বাড়ানোর প্রয়োজন হত না। এমন পর্যবেক্ষণ দুদক ও ক্যাবের পক্ষ থেকেও দেয়া হয়েছে। তিনি বলেন, রিটের প্রেক্ষিতে জারি করা রুল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় আবারও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর বিরুদ্ধে আমরা একটি সম্পূরক আবেদন করেছি।

ব্যারিস্টার জ্যোতির্ময় বড়ুয়া বলেন, প্রথমবার গ্যাসের দাম বৃদ্ধির আদেশের বিরুদ্ধে রিট করলে হাইকোর্ট রুল জারি করেন। ওই রুল বিচারাধীন থাকা অবস্থায় আবারও গ্যাসের মূল্য বৃদ্ধির প্রস্তাব করে গত ১১ই মার্চ থেকে ১৪ই মার্চ পর্যন্ত গণশুনানি গ্রহণ বে-আইনি। তিনি বলেন, ২০১০ সালের আইনে গ্যাসের বিতরণ ও সঞ্চালন সংক্রান্ত প্রবিধান মালায় গ্যাসের দাম বৃদ্ধির ক্ষেত্রে কতগুলো সুনির্দিষ্ট প্রক্রিয়া অনুসরণের কথা বলা আছে। এসব প্রক্রিয়া অনুসরণ না করেই অযৌক্তিকভাবে গ্যাসের দাম বাড়িয়েছে পেট্রোবাংলা ও বিইআরসি বলে দাবী করেন এ আইনজীবী।

দাম বৃদ্ধির প্রক্রিয়া স্থগিত চেয়ে গত ২৭শে ফেব্রুয়ারি গ্যাসের হাইকোর্টে আবেদন করে ক্যাব। ক্যাবের আবেদনে বলা হয়, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গত বছরের ১৬ই অক্টোবর গ্যাসের সঞ্চালন ও বিতরণ ফি বৃদ্ধির আদেশ দিয়েছিল। এ আদেশের বিরুদ্ধ রিট করলে হাইকোর্ট রুল জারি করে। বাসস

ডিআইজি মিজানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে বরখাস্তকৃত পুলিশের ডিআইজি মিজানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দিয়েছেন আদালত। মঙ্গলবার (০২ জুলাই) সকাল ১১ টায় জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন বিচারক।

এর আগে, সোমবার (১ জুলাই) তার আগাম জামিন আবেদন খারিজ করে শাহবাগ থানা পুলিশের কাছে তুলে দেন আদালত। দুদকের মামলায় গ্রেফতার মিজানকে রাতে শাহবাগ থানায় রাখা হয়।

অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে দুর্নীতি দমন কমিশন- দুদকের করা মামলায় রোববার হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় জামিন চেয়ে আবেদন করেন পুলিশের বরখাস্তকৃত ডিআইজি মিজানুর রহমান। সোমবার বিচারপতি ওবায়েদুল হাসান ও বিচারপতি কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে শুনানির জন্য ওঠে আবেদনটি। আদালত শুনানি শেষে জামিন আবেদন নামঞ্জুর করে তাকে গ্রেফতার করতে শাহবাগ থানা পুলিশকে নির্দেশ দেন।

এর আগে, গত ২৪ জুন দুর্নীতি দমন কমিশন পুলিশের বিতর্কিত এই ডিআইজিসহ চারজনের বিরুদ্ধে মামলা করে। মামলায় আসামিদের বিরুদ্ধে তিন কোটি ২৮ লাখ ৬৮ হাজার টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জন ও তিন কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্য গোপনের অভিযোগ আনা হয়েছে।

পুলিশের হাতে ডিআইজি মিজান
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সাময়িক বরখাস্তকৃত পুলিশের বিতর্কিত ডিআইজি মিজানের জামিন আবেদন খারিজ করে পুলিশের হাতে তুলে দিয়েছেন আদালত।

সোমবার (০১ জুলাই) দুপুরে আগাম জামিন নিতে গেলে ডিআইজি মিজানের জামিন আবেদন খারিজ করেন বিচারপতি ওবায়দুল হাসান ও বিচারপতি এস এস কুদ্দুস জামানের হাইকোর্ট বেঞ্চ।

এ সময় আদালত বলেন, ‘ডিআইজি মিজানের কর্মকাণ্ড পুলিশের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন করেছে।’

ডিআইজি মিজানকে আদালত থেকে সরাসরি রাজধানীর শাহবাগ থানায় নেয়া হচ্ছে। এছাড়া দুর্নীতির অভিযোগে ডিআইজি মিজানের ভাগ্নেকে আগামী ৭২ ঘণ্টার মধ্যে আত্মসমর্পণ করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

এর আগে ৩ কোটি ৭ লাখ টাকার সম্পদের তথ্যগোপন এবং ৩ কোটি ২৮ লাখ টাকা অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগের মামলায় ডিআইজি মিজানুর রহমান জামিনের জন্য হাইকোর্টে হাজির হন।

২৫ জুন মিজানুর রহমানকে সাময়িক বরখাস্ত করার প্রস্তাবে অনুমোদন দেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। পরে তাকে পুলিশ সদর দপ্তরে সংযুক্ত করা হয়।

ডিআইজি মিজান ঢাকা মহানগর পুলিশে (ডিএমপি) অতিরিক্ত কমিশনার হিসেবে কর্মরত ছিলেন। বিয়ে গোপন করতে নিজের ক্ষমতার অপব্যবহার করে স্ত্রীকে গ্রেফতার করানোর অভিযোগ উঠেছিল তার বিরুদ্ধে।

এছাড়া এক সংবাদপাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে রাজধানীর বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করা হয়। নারী নির্যাতনের অভিযোগে গত বছরের জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়।

সম্প্রতি দুদক কর্মকর্তাকে ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি সামনে এলে তড়িঘড়ি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় মিজানকে সাময়িক বরখাস্তের একটি প্রস্তাব রাষ্ট্রপতির অনুমোদনের জন্য পাঠায়। মিজানের ঘুষ লেনদেনের বিষয়টি খতিয়ে দেখতে তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করেছে পুলিশ অধিদফতর।

কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। যদিও নারী নির্যাতন, ঘুষ প্রদান, অবৈধ সম্পদ অর্জনসহ নানা অপকর্মের অভিযোগে দুই বছর ধরে মিজানের নাম আলোচনায় এলেও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়নি।

স্থগিতই থাকল সাবেক এমপি রানার জামিন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : টাঙ্গাইল-৩ আসনের আওয়ামী লীগের সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) আমানুর রহমান খান রানাকে হাইকোর্টের দেয়া জামিন আদেশ স্থগিত করে চেম্বার জজ আদালতের দেয়া স্থগিতাদেশ বহাল রেখেছেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। একই সঙ্গে, নিয়মিত আপিল আবেদন (সিপি ফাইল) করার নির্দেশ দিয়েছেন আপিল বিভাগ।

রাষ্ট্রপক্ষের আপিল আবেদন শুনানি নিয়ে সোমবার প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে চার সদস্যের আপিল বিভাগ এই আদেশ দেন।

এ বিষয়ে পরবর্তী শুনানি অনুষ্ঠিত হবে ৮ জুলাই। সেই সময় পর্যন্ত জামিন স্থগিত থাকবে বলে জানান রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ।

আদালতে আজ রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। তার সঙ্গে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ড. মো. বশির উল্লাহ ও কাজী মো. মাহমুদুল করিম রতন।

অন্যদিকে, আমানুর রহমানের পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী মনসুরুল হক চৌধুরী। তার সঙ্গে ছিলেন অ্যাডভোকেট রুশো মোস্তাফা।

গত ২০ জুন আজ (১ জুলাই) পর্যন্ত আমানুর রহমান খান রানার জামিন স্থগিত করে আদেশ দেন আপিল বিভাগের চেম্বার জজ আদালত। এর আগের দিন ১৯ জুন বহুল আলোচিত যুবলীগের দুই নেতা হত্যা মামলায় রানার স্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেন হাইকোর্ট।

দুই যুবলীগ নেতা হত্যা মামলায় রানাকে ৬ মাসের অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়ে গত ৬ মার্চ রুল জারি করেন হাইকোর্ট। এরপর রাষ্ট্রপক্ষের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ওই জামিন স্থগিত করে হাইকোর্টকে রুল নিষ্পত্তি করার জন্য নির্দেশ দেন সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ। ওই রুল যথাযথ ঘোষণা করে বুধবার (১৯ জুন) হাইকোর্টের বিচারপতি এ কে এম আসাদুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মজিবুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ তার স্থায়ী জামিন মঞ্জুর করেন। সেই রায়ের বিরুদ্ধে আপিল করেন রাষ্ট্রপক্ষ। ওই আবেদন শুনানি নিয়ে আপিল বিভাগ এই আদেশ দেন।

টাঙ্গাইল সদর উপজেলার বাঘিল ইউনিয়ন যুবলীগের নেতা শামীম ও মামুন ২০১২ সালের ১৬ জুলাই তাদের বাড়ি থেকে মোটরসাইকেলে করে টাঙ্গাইল শহরে এসে নিখোঁজ হন। পরদিন শামীমের মা আছিয়া খাতুন সদর থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করেন।

এক বছর পর ২০১৩ সালের ৯ জুলাই নিখোঁজ মামুনের বাবা টাঙ্গাইল আদালতে হত্যা মামলা করেন। পরে তদন্ত করে পুলিশ ওই বছর ২১ সেপ্টেম্বর মামলাটি তালিকাভুক্ত করে। ওই মামলায় গ্রেফতার হওয়া শহরের বিশ্বাস বেতকা এলাকার খন্দকার জাহিদ, শাহাদত হোসেন ও হিরণ মিয়া হত্যার ঘটনার সঙ্গে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে জবানবন্দি দেন।

জবানবন্দিতে তারা সাংসদ আমানুরের দিকনির্দেশনায় যুবলীগ নেতা শামীম ও মামুনকে হত্যা করে লাশ নদীতে ভাসিয়ে দেয়ার কথা স্বীকার করেন। আমানুর রহমান খান রানা মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলারও আসামি।

নুসরাত হত্যা : ওসি মোয়াজ্জেমের চার্জ গঠন শুনানি ১০ জুলাই
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ফেনীর মাদরাসায় গায়ে আগুন দিয়ে হত্যার শিকার নুসরাত জাহান রাফির বক্তব্য ভিডিও করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযোগে করা মামলায় সোনাগাজী মডেল থানার সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে করা মামলার অভিযোগ গঠন শুনানির জন্য আগামী ১০ জুলাই দিন ধার্য করেছেন আদালত।

রোববার মামলার অভিযোগ গঠনের শুনানির দিন ধার্য ছিল। এদিন মোয়াজ্জেম হোসেনের আইনজীবী অভিযোগ গঠনের শুনানি পেছানোর জন্য সময়ের আবেদন করেন। বিচারক সময়ের আবেদন মঞ্জুর করে ১০ জুলাই দিন ধার্য করেন।

অপরদিকে আসামির আইনজীবী আদালতে আরও দুটি আবেদন করেন, প্রথমত তিনি এজলাসে পুলিশের উপস্থিতিতে আসামির সঙ্গে আইনজীবীদের প্রয়োজনীয় কথাবার্তা বলার সুযোগ চান, দ্বিতীয়ত মামলার আর্জিতে বর্ণিত (সংযুক্ত) পেনড্রাইভের কপির জন্য আবেদন করেন। আদালত পেনড্রাইভের কপির মঞ্জুর করলেও এজলাসে কথা বলার আবেদন মঞ্জুর করেননি।

এর আগে রোববার সকাল ৯টার দিকে মোয়াজ্জেম হোসেনকে কাশিমপুর কারাগার থেকে প্রিজন ভ্যানে আদালতে আনা হয়। এসময় তাকে আদালতের হাজতখানায় রাখা হয়। বেলা ২টার দিকে তাকে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালে তোলা হয়।

আদালতের হাজতখানার ওসি পুলিশের পরিদর্শক মইনুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস সামশ জগলুল হোসেনের আদালতে তার বিচারকাজ চলবে। আজ (রোববার) ওই মামলার চার্জ গঠন শুনানির জন্য এ দিন ধার্য ছিল।

এর আগে ২৪ জুন জেল কোড অনুযায়ী ওসি মোয়াজ্জেমের ডিভিশনের বিষয় প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে কারা কর্তৃপক্ষকে নির্দেশ দেন।

১৭ জুন বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক মোহাম্মদ আস শামস জগলুল হোসেন ওসি মোয়াজ্জেমের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন। ১৬ জুন রাজধানীর শাহবাগ থেকে তাকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

২৭ মে বাংলাদেশ সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক পিবিআইয়ের প্রতিবেদন আমলে নিয়ে এ গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। মামলার বাদী সুমন আসামি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদন করেন। আদালত বাদীর আবেদন আমলে নিয়ে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন। এদিন সকালে মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সদর দফতরের সিনিয়র এএসপি রিমা সুলতানা।

গত ১৫ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (প্রত্যাহার হওয়া) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে মামলার আবেদন করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন। আদালত তার জবানবন্দি নিয়ে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২৬, ২৯ ও ৩১ ধারায় করা অভিযোগটি পিটিশন মামলা হিসেবে গ্রহণ করেন। এ-সংক্রান্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন আদালত।

গত ২৭ মার্চ নুসরাত জাহান রাফিকে মাদরাসার অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলা শ্রেণিকক্ষে নিয়ে যৌন নিপীড়ন করেন। এমন অভিযোগ উঠলে দুজনকে থানায় নিয়ে যান ওসি মোয়াজ্জেম হোসেন। ওসি নিয়ম ভেঙে জেরা করতে নুসরাতের বক্তব্য ভিডিও করেন।

মৌখিক অভিযোগ নেয়ার সময় দুই পুরুষের কণ্ঠ শোনা গেলেও সেখানে নুসরাত ছাড়া অন্য কোনো নারী বা তার আইনজীবী ছিলেন না। ভিডিওটি প্রকাশ হলে অধ্যক্ষ ও তার সহযোগীদের সঙ্গে ওসির সখ্যতার বিষয়টি স্পষ্ট হয়।

ভিডিওতে দেখা যায়, থানার ওসির সামনে অঝোরে কাঁদছেন নুসরাত। সেই কান্নার ভিডিও করছিলেন সোনাগাজী থানার ওসি। নুসরাত তার মুখ দুই হাতে ঢেকে রেখেছিলেন। তাতেও ওসির আপত্তি। বারবারই ‘মুখ থেকে হাত সরাও, কান্না থামাও’ বলার পাশাপাশি তিনি এ-ও বলেন, ‘এমন কিছু হয়নি যে এখনো তোমাকে কাঁদতে হবে।’

মামলায় অভিযোগ করা হয়েছে, ওসি মোয়াজ্জেম অনুমতি ছাড়া নিয়মবহির্ভূতভাবে নুসরাতকে জেরা এবং তা ভিডিও করেন। পরবর্তীতে ওই ভিডিও ফেসবুক ও ইউটিউবসহ বিভিন্ন মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

ভিডিওতে দেখা যায়, ওসি মোয়াজ্জেম অত্যন্ত অপমানজনক ও আপত্তিকর ভাষায় একের পর এক প্রশ্ন করে যাচ্ছেন নুসরাতকে। নুসরাতের বুকে হাত দিয়ে শ্লীলতাহানি করা হয়েছে কি না- এমন প্রশ্নও করতে দেখা যায় ওসি মোয়াজ্জেমকে।

অধ্যক্ষের নিপীড়নের ঘটনায় রাফির মা শিরিন আক্তার বাদী হয়ে সোনাগাজী মডেল থানায় মামলা করেন। এরপর গত ৬ এপ্রিল সকালে রাফি আলিম পরীক্ষা দিতে সোনাগাজী ইসলামিয়া সিনিয়র ফাজিল মাদরাসায় যান। এ সময় মাদরাসার এক ছাত্রী তার বান্ধবী নিশাতকে ছাদের ওপর কেউ মারধর করছে- এমন সংবাদ দিলে তিনি ওই বিল্ডিংয়ের চার তলায় যান। সেখানে মুখোশ পরা চার-পাঁচজন তাকে অধ্যক্ষ সিরাজ উদদৌলার বিরুদ্ধে মামলা ও অভিযোগ তুলে নিতে চাপ দেয়। রাফি অস্বীকৃতি জানালে তারা তার গায়ে আগুন দিয়ে পালিয়ে যায়। গত ১০ এপ্রিল ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় নুসরাতের মৃত্যু হয়।

হাইকোর্টে ডিআইজি মিজানের জামিন আবেদন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সাময়িক বরখাস্তকৃত পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) মিজানুর রহমান হাইকোর্টে জামিনের আবেদন করেছেন। হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় আইনজীবীর মাধ্যমে জামিনের আবেদন করেন তিনি।

রোববার দুদকের আইনজীবী মো.খুরশীদ আলম খান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

হাইকোর্টের বিচারপতি ওবায়েদুল হাসান ও বিচারপতি কুদ্দুস জামানের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে জামিন আবেদনের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে।

এর আগে গত ২৫ জুন রাতে তাকে বরখাস্ত করে পুলিশ অধিদফতরে সংযুক্ত করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগ থেকে আদেশ জারি করা হয়।

তিন কোটি সাত লাখ টাকার সম্পদ গোপন এবং তিন কোটি ২৮ লাখ টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগে গত ২৪ জুন ডিআইজি মিজানসহ আরও তিনজনকে আসামি করে মামলা করে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

মামলার বাকি তিন আসামি হলেন- মিজানুর রহমানের স্ত্রী সোহেলিয়া আনার রত্না, ছোট ভাই মো. মাহবুবুর রহমান ও ভাগ্নে মাহমুদুল হাসান। এ মামলার পরপরই আসামিরা গা ঢাকা দিয়েছেন।

উল্লেখ্য, গত বছরের জানুয়ারিতে এক নারীকে জোর করে বিয়ের পর নির্যাতন চালানোর অভিযোগ ওঠে মিজানের বিরুদ্ধে। এরপর তাকে ডিএমপির অতিরিক্ত কমিশনারের পদ থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। মিজানুরের বিরুদ্ধে এক সংবাদ পাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগ রয়েছে।

সংবাদ পাঠিকাকে প্রাণনাশের হুমকি ও উত্ত্যক্ত করার অভিযোগে মিজানুরের বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সাধারণ ডায়েরিও (জিডি) করা হয়। নারী নির্যাতনের অভিযোগে গত বছরের জানুয়ারির শুরুর দিকে তাকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়।

রিফাতের খুনিদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশনা চেয়ে রিট
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বরগুনার আলোচিত রিফাত শরীফের অভিযুক্ত হত্যাকারীদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশনা চেয়ে রিট করেছেন সুপ্রিম কোর্টের এক আইনজীবী।

একইসঙ্গে, খুনিরা যেন দেশ ত্যাগ করতে না পারে সে বিষয়ে দেশের সব বন্দরে রেড অ্যালার্ট জারির নির্দেশনা চাওয়া হয়েছে রিটে।

রোববার সকালে সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ইউনুছ আলী আকন্দ হাইকোর্টের সংশ্লিষ্ট শাখায় এই রিট করেন। রিটের বিষয়টি গনমাধ্যমে নিশ্চিত করেন তিনি নিজেই।

রিটের বিবাদীরা হলেন, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব ,আইন বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের সচিব, পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি), র‌্যাবের ডিজি, বিজিবি মহাপরিচালক (ডিজি), বরিশাল বিভাগীয় পুলিশের ডিআইজি, জেলা প্রশাসক (ডিসি), পুলিশ সুপার (এসপি) ও সংশ্লিষ্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি)।

রোববার হাইকোর্টের বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি মো. আশরাফুল কামালের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চে এই রিটের শুনানির জন্য উপস্থাপন হবে বলে জানান এই আইনজীবী।

হাইকোর্ট থেকে রেড অ্যালার্ট জারির নির্দেশনা থাকা সত্ত্বেও কেন আবার রিট করা হয়েছে জানতে চাইলে ইউনুছ আলী বলেন, এর আগে হাইকোর্ট থেকে মৌখিক আদেশ দেয়া হয়েছে। যেহেতু মৌখিক আদেশ দেয়া হয়েছে আমরা এখন একটি লিখিত আদেশ চাই। তাই এ রিট করেছি। রিফাত হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটার তিন-চার দিন অতিবাহিত হচ্ছে তারপরও খুনের পরিকল্পনাকারী এবং মূল আসামিদের কেউ গ্রেফতার হয়নি।

রেড অ্যালার্ট জারির জন্য স্থল, বিমান ও নৌবন্দরে যাতে পাহারা বসানো হয় তার জন্য লিখিত আদেশ চেয়েছেন বলে জানান তিনি।

এর আগে গত ২৭ জুন রিফাত শরীফের হত্যাকারীরা যেন দেশ ত্যাগ করতে না পারে সে বিষয়ে দেশের সব থানায় অ্যালার্ট জারি করতে বলেছিলেন হাইকোর্ট। পুলিশের মহাপরিদর্শককে (আইজিপি) এ বিষয়ে ব্যবস্থা নিতে বলেছিলেন আদালত।

ওইদিন সকালে বরগুনায় প্রকাশ্যে কুপিয়ে খুন করার ঘটনা দেশের বাংলা ও ইংরেজি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত সংবাদ সুপ্রিম কোর্টের আইনজীবী ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল আদালতের নজরে আনেন। এ সময় সংশ্লিষ্ট আদালত রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এ বি এম আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশারকে এ বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পদক্ষেপ জানানোর নির্দেশ দেন।

পরে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ঘটনার বিষয়ে বরগুনার জেলা প্রশাসক (ডিসি) ও পুলিশ সুপারকে (এসপি) ফোন দিয়ে তাদের পদক্ষেপ গ্রহণের বিষয়ে জানেন। এরই ধারাবাহিকতায় দুপুরে আবদুল্লাহ আল মাহমুদ আদালতকে জানান, আপনাদের (আদালতের) আদেশের পর বরগুনার ডিসি, এসপি ও সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার (ওসি) সঙ্গে কথা হয়েছে। তারা জানিয়েছেন, ওই ঘটনায় ভিকটিমের বাবা আজ (বৃহস্পতিবার) ১২ জনকে আসামি করে মামলা করেছেন।

তিনি আরও বলেন, তাদের মধ্যে মামলায় চন্দন নামের ৪ নম্বর আসামিকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী এখনও মাঠে আছেন। আসামিদের গ্রেফতারে আইন-শৃঙ্খলাবাহিনী তৎপর রয়েছে, তাদের চিরুনি অভিযান চলছে।

পরে আদালত বলেন, ‘একটি কলেজের সামনে রাস্তার ওপরে দিনে দুপুরে এ ঘটনা ঘটেছে। গত (২৬ জুন) বেলা ১১টার ঘটনা অথচ আজ মামলা হয়েছে। আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর পদক্ষেপ জোড়ালো মনে হচ্ছে না।’ আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার বলেন, সবাইকে গ্রেফতার করে যথাযথ পদক্ষেপ নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন।

এ সময় আদালত বলেন, ‘মূল অভিযুক্তকে কি গ্রেফতার করা হয়েছে? কলেজের সামনে দিনে দুপুরে এ ঘটনা ঘটেছে। পুলিশের কার্যক্রম তৎপর মনে হচ্ছে না।’

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল বলেন, ‘আসামিদের চিহ্নিত করা হয়েছে। তিনটি টিম কাজ করছে। র‍্যাবও সঙ্গে যুক্ত আছে। আসামিদের বাড়ি ও তাদের স্বজনদের বাড়িতে অভিযান চালানো হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব আসামিদের গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হবে।’

আদালত বলেন, ‘বরগুনার পাশে পিরোজপুর জেলা আছে। এটি একটি উপকূলীয় এলাকা। এর আগে একটি মামলায় আসামি ধরার সময় উধাও হয়ে গেছেন। এ ক্ষেত্রে (রিফাত হত্যা) এমনটি হলে তা হবে দুঃখজনক। আসামিরা যেন দেশত্যাগ করতে না পারে, এ ব্যাপারে পুলিশপ্রধানকে জানিয়ে দিন।’

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে আদালত বলেন, ‘আপনি আমাদের বিষয়টির অগ্রগতি জানবেন। কোনো অনিয়ম দেখা দিলে আমরা তা নজরে রাখব।’ এ সময় আইনজীবী রুহুল কুদ্দুস এ বিষয়ে আদালতকে আদেশ দেয়ার আরজি জানান।

ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল জানান, ‘নিহত রিফাতের স্ত্রীসহ পরিবারকে সার্বিক নিরাপত্তা দেয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছে।’ আদালত বলেন, ‘এ ঘটনায় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর যতটা তৎপর হওয়া উচিৎ ছিল, তা মনে হয় হয়নি। বরগুনার পাশে সুন্দরবন ও তার পাশে কয়েকটি বর্ডার রয়েছে। আসামিরা যাতে বর্ডার ক্রস করতে না পারে সেজন্য পুলিশের আইজিপিকে পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দেওয়া হলো। আমরা আপাতত কোনো আদেশ বা রুল জারি করছি না। তবে, এ মামলায় কোনো অনিয়ম হয় কি না তা আমরা নজরে রাখব।’

এ পর্যায়ে আবদুল্লাহ আল মাহমুদ বাশার আদালতকে জানান, ঘটনার পর ভিকটিমের স্ত্রী ও স্বজনদের যেন কোনো রকম হয়রানি বা হুমকি না দেয়া হয় সেজন্য তাদের নিরাপত্তা দিতে বলেছি।

আদালত বলেন, ঘটনায় জড়িদের বিরুদ্ধে এর আগেরও মামলা ছিল, এদের বিষয়ে আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর আরও সচেতন থাকা উচিৎ ছিল। আগামী বৃহস্পতিবার (৪ জুলাই) আবার এ বিষয়ে শুনানির জন্য রাখছি। ওইদিন (৪ জুলাই) মামলার অগ্রগতির বিষয়ে আমরা শুনানি করব।

২৬ জুন বুধবার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে স্ত্রী আয়েশাকে বরগুনা সরকারি কলেজে নিয়ে যান রিফাত। কলেজ থেকে ফেরার পথে মূল ফটকে নয়ন, রিফাত ফরাজীসহ আরও দুই যুবক রিফাত শরীফের ওপর হামলা চালায়। এ সময় ধারালো অস্ত্র দিয়ে রিফাত শরীফকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে তারা। রিফাত শরীফের স্ত্রী আয়েশা দুর্বৃত্তদের নিবৃত্ত করার চেষ্টা করেন। কিন্তু কিছুতেই হামলাকারীদের থামানো যায়নি। তারা রিফাত শরীফকে উপর্যুপরি কুপিয়ে রক্তাক্ত করে চলে যায়। পরে স্থানীয় লোকজন রিফাত শরীফকে গুরুতর আহত অবস্থায় উদ্ধার করে বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যায়। পরে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হলে রিফাত শরীফের মৃত্যু হয়।

রিফাত হত্যা : তিন আসামি রিমান্ডে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বরগুনায় স্ত্রীর সামনে স্বামী রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যা মামলায় গ্রেফতার তিন আসামির রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। শুক্রবার বিকেলে বরগুনার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মো. রাসেল তাদের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর মধ্যে রিফাত হত্যা মামলার চার ও নয় নম্বর আসামি চন্দন ও মো. হাসানের সাতদিনের এবং অপর অভিযুক্ত নাজমুল আহসানের দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

বরগুনা জেলা আইনজীবী সমিতির সদস্য অ্যাডভোকেট গোলাম মোস্তফা কাদের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, বিকেলে আদালতে হাজির করে চন্দন ও মো. হাসানের ১০ দিন এবং নাজমুল আহসানের পাঁচদিনের রিমান্ড আবেদন করে পুলিশ। পরে আদালত শুনানি শেষে চন্দন ও মো. হাসানের সাতদিন এবং নাজমুল আহসানের দুইদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত বিভিন্ন স্থান থেকে তাদের গ্রেফতার করে পুলিশ।

২০১৭ সালের আগের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলদের পদত্যাগের নির্দেশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ২০১৭ সালের আগে নিয়োগ পাওয়া সব ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলকে পদত্যাগের নির্দেশ দিয়েছেন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) তিনি এই নির্দেশ দেন। এরইমধ্যে কয়েকজন পদত্যাগপত্র জমা দিয়েছেন বলে জানা গেছে।

এর আগে বুধবার দুপুরে বিচার প্রশাসন ও প্রশিক্ষণ ইনস্টিটিউটে লিগ্যাল এইডের উদ্যোগে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলদের সম্পর্কে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক বলেন, নতুন নিয়োগ হোক আর পুরান যারা আছে তারা থাকুক, কিন্তু নিয়োগ প্রক্রিয়া নতুন করে দেয়া হবে। ২০১৭ সালের আগে যারা ডেপুটি ও সহকারী আটর্নি জেনারেল হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন তাদের পদত্যাগ করতে হবে।

স্ত্রীর সামনে স্বামীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রগুনায় প্রকাশ্যে এক যুবককে তার স্ত্রীর সামনে কুপিয়ে হত্যার পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী কী কী পদক্ষেপ নিয়েছে তা জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট।

আজ বৃহস্পতিবার দুপুর ২টার মধ্যে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল ব্যারিস্টার এ বি এম আব্দুল্লাহ আল মাহমুদ বাসারকে বরগুনার ডিসি ও এসপির কাছ থেকে এ বিষয়ে জেনে হাইকোর্টকে জানাতে বলা হয়েছে।

বুধবার সকালে বরগুনার কলেজ রোড এলাকার ওই হত্যাকাণ্ডের ঘটনাটির ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। বিভিন্ন পত্রপত্রিকায় এ হত্যাকাণ্ডের প্রকাশিত প্রতিবেদন আজ বৃহস্পতিবার সকালে হাইকোর্টের নজরে আনেন ব্যারিস্টার রুহুল কুদ্দুস কাজল। পরে বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহাসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ স্বপ্রণোদিত হয়ে এ আদেশ দেন।

রণদা প্রসাদসহ ৭ জন হত্যা মামলায় মাহবুব রহমানের মৃত্যুদণ্ড
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় দানবীর রণদা প্রসাদ সাহা ও তার ছেলেসহ সাতজনকে হত্যার ঘটনায় টাঙ্গাইলের মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে মৃত্যুদণ্ডের রায় দিয়েছেন আদালত।

বৃহস্পতিবার (২৭ জুন) ট্রাইব্যুনালের চেয়ারম্যান বিচারপতি মো. শাহিনুর ইসলামের নেতৃত্বে তিন সদস্যের আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল এ রায় ঘোষণা করেন। অভিযুক্ত টাঙ্গাইলের মো. মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে আটকে রেখে নির্যাতন, হত্যা, অপহরণ ও গণহত্যার তিনটি ঘটনায় জড়িত থাকার অভিযোগ ছিল। তিন অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় ট্রাইব্যুনাল এ রায় দেন।

ট্রাইব্যুনালের অপর সদস্যরা হলেন, বিচারপতি আমির হোসেন ও আবু আহমেদ জমাদার।

আদালতে রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন প্রসিকিউটর রানা দাশগুপ্ত, তার সঙ্গে ছিলেন মো. মোখলেসুর রহমান বাদল, সাবিনা ইয়াসমিন খান মুন্নি, তাপস কান্তি বল ও জেসমিন সুলতানা চমন। অন্যদিকে, আসামিপক্ষে ছিলেন গাজি এমএইচ তামিম।

এর আগে রাষ্ট্রপক্ষের প্রসিকিউশন ও আসামি উভয় পক্ষের যুক্তিতর্ক উপস্থাপন শুনানি শেষে গত ২৪ এপ্রিল মামলাটি রায়ের জন্য অপেক্ষমান (সিএভি) রাখেন।

গত বছরের ২৮ মার্চ মো. মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের মামলায় অভিযোগ গঠন করে বিচার শুরু করার নির্দেশ দেন আন্তর্জাতিক অপরাধ ট্রাইব্যুনাল। এর আগে ২০১৮ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি এ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ আমলে নেন ট্রাইব্যুনাল।

২০১৬ সালের ১৮ এপ্রিল তদন্ত শুরু করে ২০১৭ সালের ২ নভেম্বর মাহবুবুর রহমানের বিরুদ্ধে যুদ্ধাপরাধের তদন্ত প্রতিবেদন প্রকাশ করে একাত্তরের মানবতাবিরোধী অপরাধের তদন্ত সংস্থা। আসামি মাহবুবুর রহমানের বাবা আব্দুল ওয়াদুদ মুক্তিযুদ্ধের সময় মির্জাপুর শান্তি কমিটির সভাপতি ছিলেন। মাহবুবুর রাহমান ও তার ভাই আব্দুল মান্নান সে সময় রাজাকার বাহিনীতে ছিলেন। আসামি একটা সময় জামায়াতে ইসলামির সমর্থক ছিলেন। তিনি নির্দলীয়ভাবে তিনবার ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও প্রতিবারই পরাজিত হন।

রণদা প্রসাদ সাহার পৈতৃক নিবাস ছিল টাঙ্গাইলের মির্জাপুরে। সেখানে তিনি একাধিক শিক্ষা ও দাতব্য প্রতিষ্ঠান গড়ে তোলেন। এক সময় নারায়ণগঞ্জে পাটের ব্যবসায় নামেন রণদা প্রসাদ সাহা। থাকতেন নারায়ণগঞ্জের খানপুরের সিরাজদিখানে। সে বাড়ি থেকেই তাকে, তার ছেলে ও অন্যদের ধরে নিয়ে যান আসামি মাহবুবুর রহমান ও তার সহযোগীরা।

ট্রাইব্যুনালের প্রসিকিউশনের তথ্য অনুযায়ী, ৭০ বছর বয়সী আসামি মাহবুবুর একাত্তরে টাঙ্গাইলের মির্জাপুর শান্তি কমিটির সভাপতি বৈরাটিয়া পাড়ার আব্দুল ওয়াদুদের ছেলে। মাহবুবুর ও তার ভাই আব্দুল মান্নান সে সময় রাজাকার বাহিনীতে ছিলেন।

দানবীর রণদা প্রসাদ সাহার ম্যুরাল দানবীর রণদা প্রসাদ সাহার ম্যুরাল যুক্তি তর্ক শুনানি শেষে রানা দাশগুপ্ত বলেছিলেন, ‘আসামির বিরুদ্ধে মানবতাবিরোধী অপরাধের তিনটি অভিযোগ এনেছিল প্রসিকিউশন। আমরা মনে করি সবকটি অভিযোগই আমরা সন্দেহাতীতভাবে প্রমাণ করতে সক্ষম হয়েছি। তদন্তকারী কর্মকর্তাসহ এ মামলায় ১৩ জন সাক্ষ্য দিয়েছেন। যেসব সাক্ষ্য-প্রমাণ আমরা উপস্থাপন করেছি তাতে আসামির সর্বোচ্চ শাস্তি মৃত্যুদণ্ড চেয়েছি।’

আসামিপক্ষের আইনজীবী গাজি এম এইচ তামিম বলেন, ‘এ মামলায় যে কয়জন সাক্ষ্য দিয়েছেন তারা প্রত্যেকেই বলেছেন আরপি সাহা নিখোঁজ হয়েছেন। তাকে হত্যা করা হয়েছে এ কথা কোনো সাক্ষীই বলেননি। প্রসিকিউশনের একজন প্রত্যক্ষ সাক্ষী ছিলেন, তিনি ধরে নিয়ে যাওয়ার কথা বলেছেন। আরপি সাহাকে তিনি চিনতেন না বলেছেন।

প্রতি মাসে রাসেলকে দিতে হবে ৫ লাখ, জানাতে হবে আদালতকে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বাসচাপায় পা হারানো রাসেল সরকারকে বাকি ৪৫ লাখ টাকা গ্রীনলাইন পরিবহন কর্তৃপক্ষকে দিতেই হবে। তবে ৪৫ লাখ টাকা একসঙ্গে না দিয়ে প্রতি মাসে পাঁচ লাখ টাকা করে পরিশোধ করতে বলেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে, এই টাকা প্রতি মাসের সাত তারিখের মধ্যে পরিশোধ করে সে বিষয়ে ওই মাসের ১৫ তারিখ আদালতকে তা জানাতে হবে।

আজ মঙ্গলবার হাইকোর্টের বিচারপতি এফ আর এম নাজমুল আহসান ও বিচারপতি কে এম কামরুল কাদেরের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চ এ আদেশ দিয়েছেন।


   Page 1 of 29
     আদালত
আদালতে খুন : বিচারকদের নিরাপত্তা চেয়ে রিট
.............................................................................................
শিমুল বিশ্বাসকে দুই সপ্তাহের মধ্যে আত্মসমর্পণে নির্দেশ
.............................................................................................
ওয়াসার পানিতে বর্জ্য ও ব্যাকটেরিয়ার বিষয়ে পদক্ষেপ জানতে চেয়েছে হাইকোর্ট
.............................................................................................
নুসরাতের শ্লীলতাহানির মামলা নারী ও শিশু ট্রাইব্যুনালে
.............................................................................................
গ্যাসের দাম বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত স্থগিতে আবেদনের শুনানি ৯ জুলাই
.............................................................................................
ডিআইজি মিজানকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
.............................................................................................
পুলিশের হাতে ডিআইজি মিজান
.............................................................................................
স্থগিতই থাকল সাবেক এমপি রানার জামিন
.............................................................................................
নুসরাত হত্যা : ওসি মোয়াজ্জেমের চার্জ গঠন শুনানি ১০ জুলাই
.............................................................................................
হাইকোর্টে ডিআইজি মিজানের জামিন আবেদন
.............................................................................................
রিফাতের খুনিদের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের নির্দেশনা চেয়ে রিট
.............................................................................................
রিফাত হত্যা : তিন আসামি রিমান্ডে
.............................................................................................
২০১৭ সালের আগের ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেলদের পদত্যাগের নির্দেশ
.............................................................................................
স্ত্রীর সামনে স্বামীকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় কী পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে, জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট
.............................................................................................
রণদা প্রসাদসহ ৭ জন হত্যা মামলায় মাহবুব রহমানের মৃত্যুদণ্ড
.............................................................................................
প্রতি মাসে রাসেলকে দিতে হবে ৫ লাখ, জানাতে হবে আদালতকে
.............................................................................................
অপ্রয়োজনীয় সিজার বন্ধে হাইকোর্টে ব্যারিস্টার সুমন
.............................................................................................
ফিটনেস লাইসেন্স নবায়ন না করা গাড়ি ও চালকের তথ্য চেয়েছে হাইকোর্ট
.............................................................................................
খালেদার জামিন আবেদনের শুনানি আগামী সপ্তাহের মধ্যে
.............................................................................................
লাইসেন্সবিহীন দুধ কোম্পানির তালিকা চেয়েছেন হাইকোর্ট
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধাদের বয়স নিয়ে হাইকোর্টের রায় বহাল
.............................................................................................
দুদকের মামলায় কারাগারে লতিফ সিদ্দিকী
.............................................................................................
যুবলীগ নেতা মনিরুল হত্যা মামলায় ৯ জনের মৃত্যুদণ্ড
.............................................................................................
রাজীবের পরিবারকে দুই মাসের মধ্যে ৫০ লাখ টাকা দেয়ার নির্দেশ
.............................................................................................
জামিনে মুক্তি পাচ্ছেন সাবেক এমপি রানা
.............................................................................................
মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ এক মাসের ভেতর সরানোর নির্দেশ
.............................................................................................
যুদ্ধাপরাধী আজহারের আপিল শুনানি শুরু
.............................................................................................
মেয়াদোত্তীর্ণ ওষুধ বিক্রি বন্ধে হাইকোর্টে রিট
.............................................................................................
ওসি মোয়াজ্জেমের জামিন নামঞ্জুর, কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ
.............................................................................................
হলমার্কের জেসমিনের জামিন বাতিল, আত্মসমর্পণের নির্দেশ
.............................................................................................
পণ্যের মান যাচাইয়ে ভোক্তা অধিকারকে হটলাইন চালুর নির্দেশ
.............................................................................................
নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের চেয়ারম্যান হাইকোর্টে
.............................................................................................
আগামীকাল সুপ্রিমকোর্ট খুলছে
.............................................................................................
খালেদার আদালত স্থানান্তরের রিটের শুনানি নিয়মিত বেঞ্চে
.............................................................................................
লিটন হত্যা: অস্ত্র মামলায় সাবেক এমপি কাদের খানের যাবজ্জীবন
.............................................................................................
নুসরাত হত্যা : চার্জশিট আমলে নিয়েছেন আদালত, খালাস ৫
.............................................................................................
কেরানীগঞ্জে খালেদা জিয়ার আদালত স্থানান্তরের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে রিট
.............................................................................................
চলন্ত বাসে পোশাক শ্রমিককে গণধর্ষণ, চারজনের যাবজ্জীবন
.............................................................................................
বিচারাধীন বিষয়ে সংবাদ প্রকাশে সুপ্রিমকোর্টের জারীকৃত বিজ্ঞপ্তি স্পষ্টীকরণ
.............................................................................................
সারাদেশের পাস্তুরিত দুধ পরীক্ষার নির্দেশ
.............................................................................................
আমে কেমিকেল আছে কি-না তদারকির নির্দেশ
.............................................................................................
রূপপুরের বালিশকাণ্ড : গণপূর্তের প্রতিবেদন দেখতে চান হাইকোর্ট
.............................................................................................
সুপ্রিমকোর্টের ওয়েবসাইটে অনলাইন কজ-লিষ্ট ব্যবহারের অনুরোধ
.............................................................................................
দুধে সীসা: এনএফএসএল এর ডা. শাহনীলাকে হাইকোর্টে তলব
.............................................................................................
হাজিরা দিলেন দুই সিটির সিইও, ফের প্রতিবেদন চান হাইকোর্ট
.............................................................................................
মুক্তিযোদ্ধা শব্দের পূর্বে `ভুয়া` বলা যাবে না : হাইকোর্ট
.............................................................................................
মওদুদের আবেদন খারিজ, মামলা চলবে
.............................................................................................
প্রাণের তিন পণ্যসহ ৫২ ভেজাল পণ্য প্রত্যাহারের নির্দেশ
.............................................................................................
বাজার থেকে ৫২ ভেজাল পণ্য সরানোর নির্দেশ হাইকোর্টের
.............................................................................................
যুদ্ধাপরাধে এবার ৩৮তম রায়ের অপেক্ষা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]