| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * শিক্ষাসনদ ও মালামাল গায়েব, কারাগারে ছাত্রাবাসের মালিক   * করোনা নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৩২ দেশের ২৩৯ গবেষকের চ্যালেঞ্জ   * আবারও হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে ‘না’ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা   * বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড আজ   * সৌদিতে করোনায় পাঁচ শতাধিক বাংলাদেশির মৃত্যু, আক্রান্ত প্রায় ২০ হাজার   * ট্রাম্পের বিপক্ষে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন কার্দাশিয়ানের স্বামী কেনি   * মৃত্যু বেড়ে ২০৫২, মোট শনাক্ত ১৬২৪১৭   * কাতার বিশ্বকাপের চমক ‘রোবট রেফারি’   * শ্রীলঙ্কার কুশল মেন্ডিস গ্রেফতার   * ১ কোটি ১৩ লাখ ছাড়াল আক্রান্ত, মৃত্যু ৫ লাখ ৩৩ হাজার  

   আন্তর্জাতিক -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
করোনা নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৩২ দেশের ২৩৯ গবেষকের চ্যালেঞ্জ

করোনাভাইরাস নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একেক সময় একেক রকম ব্যাখ্যা নিয়ে বিভ্রান্ত হচ্ছেন মানুষ। এরই মধ্যে করোনা নিয়ে ডব্লিউএইচও`র আনুষ্ঠানিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন ৩২ দেশের ২৩৯ জন গবেষক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে লেখা এক খোলা চিঠিতে ওই গবেষকেরা বলেছেন, করোনাভাইরাস দীর্ঘসময় বাতাসে ভেসে থাকার মধ্য দিয়ে যে ভয়াবহ ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে; ডব্লিউএইচও সে ব্যাপারে যথাযথ সতর্কতা জারি করতে ব্যর্থ হয়েছে।

লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন কেবল মাত্র দুই ধরনের সংক্রমণের মাধ্যমকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছে। একটি হলো আশপাশের সংক্রমিত ব্যক্তির কাছ থেকে শ্বাস প্রশ্বাসের ফোঁটা বা ড্রপলেটের মাধ্যমে অন্যের শরীরে ভাইরাস ঢুকে যাওয়া। অপরটি হচ্ছে কোনো কিছুর দূষিত পৃষ্ঠ স্পর্শ করার পর চোখ, নাক বা মুখ স্পর্শ করার মাধ্যমে সংক্রমিত হওয়া।

তবে বিশেষজ্ঞরা যুক্তি দেখিয়ে বলছেন, এসব কারণ ছাড়াও তৃতীয় আরেকটি মাধ্যমে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। কিন্তু সেটাকে উপেক্ষা করছে ডব্লিউএইচও।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, অতি ক্ষুদ্র কণা বা অ্যারোসোল কণা দীর্ঘ সময় ধরে বাতাসে ভেসে থাকতে পারে। এমনকি এসব কণা ছয় ফুট পর্যন্ত ভেসে থাকে। ফলে যে সব জায়গায় বাতাস কম বা আবদ্ধ, সে সব স্থানগুলো বিপজ্জনক করে তোলে করোনাভাইরাস। এসব জায়গায় ১ দশমিক ৮ মিটার দূরত্ব রেখেও কোনো লাভ হয় না। যেমন- ঘর, যাত্রীবাহী বাস, অন্যান্য যানবাহন ইত্যাদি।

অথচ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে ভাইরাস সংক্রমণের এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না। তারা শুধু বলছে এটি কেবল ইনটিউবেশনের মতো চিকিৎসা কার্যক্রমের সময় ছড়াতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনের কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি ও পরিবেশ প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক লিডিয়া মোরাওস্কা বলেছেন, ‘করোনা ভাইরাস বাতাসে ভেসে থাকার বিষয়টি আমরা শতভাগ নিশ্চিত।’

বাতাসে ভাইরাস ভেসে থাকার বিষয়টি গুরুত্ব না দেওয়ায় তিনি জাতিসংঘের সংস্থাটিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে একটি খোলা চিঠি লিখেন। যেখানে ৩২টি দেশের মোট ২৩৯ জন গবেষক স্বাক্ষর করেছেন। যা আগামী সপ্তাহে একটি বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এই চিঠিতে স্বাক্ষরকারী কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নবিদ জোসে জিমনেজ বলেন, ‘অ্যারোসোল সংক্রমণ মানুষকে আতঙ্কিত করার জন্য নয়, আর ভাইরাস যে পরিবর্তন হয়েছে এমনটিও নয়। আমরা মনে করি ভাইরাসটি এইভাবেই (বাতাসে) সংক্রামিত হয়েছে। সুতরাং বিষয়টি জেনে পদক্ষেপ নিয়ে আমরা নিজেদের রক্ষা করতে পারি।’

সূত্র- লস অ্যাঞ্জেলস টাইমস।

করোনা নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৩২ দেশের ২৩৯ গবেষকের চ্যালেঞ্জ
                                  

করোনাভাইরাস নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) একেক সময় একেক রকম ব্যাখ্যা নিয়ে বিভ্রান্ত হচ্ছেন মানুষ। এরই মধ্যে করোনা নিয়ে ডব্লিউএইচও`র আনুষ্ঠানিক দৃষ্টিভঙ্গির প্রতি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিয়েছেন ৩২ দেশের ২৩৯ জন গবেষক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে লেখা এক খোলা চিঠিতে ওই গবেষকেরা বলেছেন, করোনাভাইরাস দীর্ঘসময় বাতাসে ভেসে থাকার মধ্য দিয়ে যে ভয়াবহ ঝুঁকি সৃষ্টি করতে পারে; ডব্লিউএইচও সে ব্যাপারে যথাযথ সতর্কতা জারি করতে ব্যর্থ হয়েছে।

লস অ্যাঞ্জেলস টাইমসের প্রতিবেদনে বলা হয়, ওয়ার্ল্ড হেলথ অর্গানাইজেশন এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেন্টারস ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন কেবল মাত্র দুই ধরনের সংক্রমণের মাধ্যমকে গুরুত্ব দিয়ে দেখছে। একটি হলো আশপাশের সংক্রমিত ব্যক্তির কাছ থেকে শ্বাস প্রশ্বাসের ফোঁটা বা ড্রপলেটের মাধ্যমে অন্যের শরীরে ভাইরাস ঢুকে যাওয়া। অপরটি হচ্ছে কোনো কিছুর দূষিত পৃষ্ঠ স্পর্শ করার পর চোখ, নাক বা মুখ স্পর্শ করার মাধ্যমে সংক্রমিত হওয়া।

তবে বিশেষজ্ঞরা যুক্তি দেখিয়ে বলছেন, এসব কারণ ছাড়াও তৃতীয় আরেকটি মাধ্যমে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হচ্ছে মানুষ। কিন্তু সেটাকে উপেক্ষা করছে ডব্লিউএইচও।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একাধিক গবেষণায় দেখা গেছে, অতি ক্ষুদ্র কণা বা অ্যারোসোল কণা দীর্ঘ সময় ধরে বাতাসে ভেসে থাকতে পারে। এমনকি এসব কণা ছয় ফুট পর্যন্ত ভেসে থাকে। ফলে যে সব জায়গায় বাতাস কম বা আবদ্ধ, সে সব স্থানগুলো বিপজ্জনক করে তোলে করোনাভাইরাস। এসব জায়গায় ১ দশমিক ৮ মিটার দূরত্ব রেখেও কোনো লাভ হয় না। যেমন- ঘর, যাত্রীবাহী বাস, অন্যান্য যানবাহন ইত্যাদি।

অথচ বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার পক্ষ থেকে ভাইরাস সংক্রমণের এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে না। তারা শুধু বলছে এটি কেবল ইনটিউবেশনের মতো চিকিৎসা কার্যক্রমের সময় ছড়াতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেনের কুইন্সল্যান্ড ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজি ও পরিবেশ প্রকৌশল বিভাগের অধ্যাপক লিডিয়া মোরাওস্কা বলেছেন, ‘করোনা ভাইরাস বাতাসে ভেসে থাকার বিষয়টি আমরা শতভাগ নিশ্চিত।’

বাতাসে ভাইরাস ভেসে থাকার বিষয়টি গুরুত্ব না দেওয়ায় তিনি জাতিসংঘের সংস্থাটিকে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে একটি খোলা চিঠি লিখেন। যেখানে ৩২টি দেশের মোট ২৩৯ জন গবেষক স্বাক্ষর করেছেন। যা আগামী সপ্তাহে একটি বৈজ্ঞানিক জার্নালে প্রকাশিত হওয়ার কথা রয়েছে।

এই চিঠিতে স্বাক্ষরকারী কলোরাডো বিশ্ববিদ্যালয়ের রসায়নবিদ জোসে জিমনেজ বলেন, ‘অ্যারোসোল সংক্রমণ মানুষকে আতঙ্কিত করার জন্য নয়, আর ভাইরাস যে পরিবর্তন হয়েছে এমনটিও নয়। আমরা মনে করি ভাইরাসটি এইভাবেই (বাতাসে) সংক্রামিত হয়েছে। সুতরাং বিষয়টি জেনে পদক্ষেপ নিয়ে আমরা নিজেদের রক্ষা করতে পারি।’

সূত্র- লস অ্যাঞ্জেলস টাইমস।

আবারও হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে ‘না’ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
                                  

প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত রোগীর চিকিৎসায় ম্যালেরিয়ার ওষুধ হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন এবং এইচআইভির চিকিৎসায় ব্যবহৃত লোপিনাভির/রিটোনাভির পরীক্ষামূলক ব্যবহারে আবার মানা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে একবার ‘না’, পরে ‘হ্যাঁ’ বলার পর তৃতীয় দফায় সিদ্ধান্ত বদলে আবার ‘না’ বললো জাতিসংঘের সংস্থাটি। করোনা ভাইরাস চিকিৎসায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনসহ ওষুধ তিনটির কার্যকারিতা খতিয়ে দেখতে গঠিত আন্তর্জাতিক স্টিয়ারিং কমিটির পরামর্শে এই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে জানানো হয়েছে। গতকাল শনিবার (৪ জুলাই) বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ওয়েবসাইটে প্রকাশিত এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানানো হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, অন্তর্বর্তীকালীন ব্যবস্থা হিসেবে হাসপাতালে ভর্তি হওয়া কোভিড-১৯ রোগীর চিকিৎসায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন এবং লোপিনাভির/রিটোনাভিরের মাধ্যমে চিকিৎসা করা হয়েছিল। কিন্তু এসব ওষুধ মৃত্যু কমাতে কোনো ভূমিকা রাখতে পারেনি। তাই এই ওষুধ দিয়ে চিকিৎসা বন্ধ করা হলো। বিশ্বকে বিপর্যস্ত করে দেয়া কোভিড-১৯ রোগের চিকিৎসায় এখন পর্যন্ত কোনো ওষুধ আবিষ্কার হয়নি। তবে বিশ্বের চিকিৎসকরা নানা ধরনের ওষুধের পরীক্ষামূলক প্রয়োগ চালাচ্ছেন। এরই অংশ হিসেবে ভারত, যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ট্যাবলেট প্রয়োগ করা হতে থাকে রোগীদের ওপর।

কিন্তু গত ২৫ মে ট্যাবলেটটির পরীক্ষামূলক ব্যবহার বন্ধ রাখতে বলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। সপ্তাহ গড়াতেই ৪ জুন ওই সিদ্ধান্ত পাল্টে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মহাপরিচালক তেদ্রোস আধানম গেব্রিয়েসুস বলেন, কোভিড-১৯ চিকিৎসায় হাইড্রক্সিক্লোরোকুইনের পরীক্ষামূলক ব্যবহারে বাধা নেই। গবেষক দল যাচাই করে দেখেছে যে হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন সেবনে রোগীদের ঝুঁকিতে পড়ার কোনো প্রমাণ নেই। কিন্তু মাস পেরোতেই আগের সিদ্ধান্ত থেকে সরে এসে আবার ‘না’ বলল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা।

বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড আজ
                                  

বিশ্বে একদিনে রেকর্ড দুই লাখ ১২ হাজার ৩২৬ জনের শরীরে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। যা মহামারিটি ছড়িয়ে পড়ার পর একদিনে সর্বোচ্চ। এক বিবৃতিতে রোববার (৫ জুলাই) এটা নিশ্চিত করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। তারা জানায়, গেল ২৪ ঘন্টায় আক্রান্তের হিসেবে অর্ধেকই শনাক্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ও ব্রাজিলে। বিশ্বে একক দেশ হিসেবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। রোববার (৫ জুলাই) সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২৯ লাখ ৩৫ হাজার ৭৭০ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩২ হাজার ৩১৮ জনের।

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। আক্রান্ত ও মৃত্যু উভয় বিবেচনায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৭৮ হাজার ৩২৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬৪ হাজার ৩৬৫ জনের।

এরপরের অবস্থানে আছে দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলো। দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে আক্রান্ত বিবেচনায় বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ স্থানে উঠে আসা ভারতে রোববার সকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ৭৪ হাজার ৫১৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ২৭ জনের।

তবে, ইউরোপে কমেছে করোনার সংক্রমণ। বিশ্বব্যাপী এখন পর্যন্ত মোট করোনায় মৃতের সংখ্যা পাঁচ লাখ ৩৩ হাজার ছয়শো ছাড়িয়েছে। আর আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১৪ লাখের কাছাকাছি। রোববার (৫ জুলাই) বিকেল ৩টা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১৩ লাখ ৯৫ হাজার ৪৪২ জনে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৭৭৩ জনের।

সৌদিতে করোনায় পাঁচ শতাধিক বাংলাদেশির মৃত্যু, আক্রান্ত প্রায় ২০ হাজার
                                  

 প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে সৌদি আরবে ৭ জন চিকিৎসক সহ ৫১৮জন প্রবাসী বাংলাদেশি মৃত্যুবরণ করেছেন। আক্রান্ত হয়েছেন প্রায় ২০হাজার বাংলাদেশি।

সৌদি আরবে এ পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা দুই লাখ ছাড়িয়ে গেছে। মারা গেছেন ১৮৫৮জন। মোট আক্রান্ত ২ লাখ ৫ হাজার ৯২৯জন। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ১ লাখ ৪৩ হাজার ২৫৬জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৬০হাজার ৮১৫জন।
বাংলাদেশ দূতাবাস রিয়াদের তথ্য অনুযায়ী করোনায় প্রাণ যাওয়া ৭ বাংলাদেশি চিকিৎসক হলেন, ডা. আফাক হোসেন মোল্লা, ডা. রওনক মোঃ সফি উল্লাহ্‌, ডা. গোলাম মোস্তফা, ডা. আনোয়ার উল হাসান, ডা. আব্দুর রহিম, ডা. ফারহানা হক তানিয়া। অপরজনের নাম জানা যায়নি।

এছাড়া রিয়াদের দুটি বেসরকারী ক্লিনিকে কর্মরত বাংলাদেশি চিকিৎসক ডা. আনোয়ারুল হক এবং ডা. শফিকুল হকের স্ত্রী রিয়াদে মৃত্যুবরণ করেছেন। এদিকে সৌদি আরবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণকারীদের প্রতি শোক জানিয়ে তাদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেছেন সৌদি আরবে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত গোলাম মসিহ।

ট্রাম্পের বিপক্ষে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন কার্দাশিয়ানের স্বামী কেনি
                                  

সামনেই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচন। নভেম্বরেই হবে প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়াই। আর এবার প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়বেন কিম কার্দাশিয়ানের স্বামী ব়্যাপার কেনি ওয়েস্ট। এক টুইট বার্তায় তিনি এ তথ্য জানিয়েছেন। কেনি ওয়েস্ট বলেন, এখন সময় এসেছে ঈশ্বরের ওপর বিশ্বাস করেই এখন আমেরিকার সকল প্রতিশ্রুতি রাখতে পারি, ঐক্যের প্রতি দৃষ্টি ঠিক রেখে আমাদের ভবিষ্যত গড়তে হবে।। আমি আসন্ন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী।`

এই টুইটার নিয়ে ইতোমধ্যে হইচই পড়ে গেছে পুরো যুক্তরাষ্ট্রে। কেননা এতে লাইক পড়েছে প্রায় ৬ লাখ ৫৪ হাজার। রিটুইট হয়েছে প্রায় সাড়ে ৩ লাখ। এই টুইট পোস্ট ক্রমশ ছড়িয়ে পড়ছে মার্কিনিদের টুইটার দেয়ালে। কেননা কিম কার্দাশিয়ান বিভিন্ন সময় নানা কথা ও আচরণের কারণেই আলোচনার কেন্দ্রে চলে আসেন। তাই বলে তার স্বামী কেনি ওয়েস্ট এমন একটি ঘোষণা দিয়ে দেবেন তা হয়তো কল্পনাও করেননি কেউ।

ঠিক মার্কিন সাম্রাজ্যে বর্ণবাদ আন্দোলন ও বর্ণবৈষম্য সোচ্চার সব শ্রেণীর মার্কিনিরা, সেই সময়ে একজন কৃষ্ণাঙ্গের ব্যক্তির নিকট থেকে এমন ঘোষণা খুব ইতিবাচক ভাবেই নিয়েছে দেশটির জনগণ।

ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থক হিসাবেই পরিচিত ছিলেন কেনি, কিন্তু আচমকা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে নির্বাচনী আসরে নামার ঘোষণা দিলেন এই তারকা ব়্যাপার। তাও প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের মাত্র মাস চারেক আগে। বর্তমান মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প এবং তাঁর প্রধান বিরোধী,ডেমোক্র্যাটিক দলের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বিডেনের বিরুদ্ধে নির্বাচনী ময়দানে লড়াই করতে হবে কেনি ওয়েস্টকে।

মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে স্বাধীন প্রার্থীদের মনোনয়ন জমার কোনও সময়সীমা অনেক স্টেটেই এখনও বেঁধে দেওয়া হয়নি। এর আগে বহুবার মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সঙ্গে হোয়াইট হাউসে সাক্ষাত্ করেছেন কেনি ওয়েস্ট ও তাঁর পত্নী কিম কার্দাশিয়ান। ২০১৮ সালে কেনির হোয়াইট হাউস ভ্রমণ নিয়ে কম চর্চা হয়নি। সেই সময় লাল রঙের টুপিতে ‘মেক আমেরিকা গ্রেট এগেন’ স্লোগান সহ ট্রাম্পকে আলিঙ্গনরত কেনির ছবি ভাইরাল হয়েছিল সোশ্যাল মিডিয়ায়। সংবাদমাধ্যমের সামনে কেনি ওয়েস্ট ট্রাম্পের উদ্দেশ্যে বলেছিলেন ‘এই মানুষটাকে আমি ভালোবাসি’।

সূত্র-নিউজ নাউ, টুইটার

করোনার বিরুদ্ধে দীর্ঘমেয়াদী প্রতিরোধ গড়বে অক্সফোর্ডের টিকা
                                  

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনাভাইরাসের (কভিড-১৯) টিকাটির শেষ পর্যায়ের ট্রায়াল চলছে। তৃতীয় তথা শেষ পর্যায়ের ট্রায়ালে আট হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এটি প্রয়োগ করা হয়েছে। এই পরিস্থিতিতে করোনার বিরুদ্ধে দীর্ঘমেয়াদী প্রতিরোধ গড়তে সক্ষম তাঁদের তৈরি টিকা, এমনটাই দাবি করলেন অক্সফোর্ডের প্রতিষেধক গবেষণার প্রধান ড. সারা গিলবার্ট।

ড. গিলবার্ট জানান, করোনার বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে সফল হয়েছে এই টিকা। একাধিক পরীক্ষায় তার প্রমাণও মিলেছে। শুধু তাই নয়, তাঁদের তৈরি এই প্রতিষেধক করোনার বিরুদ্ধে বছরখানেক ধরে প্রতিরোধ গড়তে সক্ষম বলে দাবি গিলবার্টের।

অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীদের তৈরি করোনা টিকার সুরক্ষার মেয়াদ নিয়ে আগেই জানিয়েছিলেন ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ‘অ্যাস্ট্রা জেনিকা’র কার্যনির্বাহী প্রধান পাস্কাল সরিওট। তিনি জানান, এই প্রতিষেধক এক বছর পর্যন্ত করোনার থেকে সুরক্ষা দিতে পারবে বলেই অনুমান করা হচ্ছে।

অক্সফোর্ডের প্রতিষেধক বিশেষজ্ঞ ড. সারা গিলবার্ট অবশ্য দাবি করেন, তাঁদের তৈরি করোনার টিকা বেশ কয়েক বছর পর্যন্ত ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়তে সক্ষম। শরীরের সাধারণ প্রতিরোধ ক্ষমতার চেয়ে অনেকটাই শক্তিশালী প্রতিরোধ গড়তে পারবে অক্সফোর্ডের এই প্রতিষেধক।

ইতিমধ্যেই এই প্রতিষেধকের উৎপাদনের কাজ শুরু করে দিয়েছে ব্রিটিশ ফার্মাসিউটিক্যাল জায়ান্ট ‘অ্যাস্ট্রা জেনিকা’ এবং ভারতের সিরাম ইনস্টিটিউট। টিকাটি উৎপাদনের কাজ শুরু হবে ব্রাজিলেও।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে ৩০ হাজার, ইংল্যান্ডের ১০ হাজার এবং ব্রাজিলে অন্তত দুই হাজার স্বেচ্ছাসেবকের ওপর এই টিকার অন্তিম পর্বের হিউম্যান ট্রায়াল হবে। তবে সব কিছুর আগে প্রতিষেধকের সুরক্ষার বিষয়টিতেই জোর দিয়েছেন অক্সফোর্ডের বিজ্ঞানীরা। এ ক্ষেত্রে তাড়াহুড়ো করতে চাইছেন না তাঁরা। সূত্র : জি নিউজ।

চীন সীমান্তে প্রস্তুতির কোন কমতি রাখছে না ভারতীয় বিমান বাহিনী
                                  

সীমান্তে উত্তেজনা কমানোর জন্য আলোচনা চলছে। তার মধ্যে প্রস্তুতিতে কোনও কমতি রাখতে চাইছে না ভারতীয় বিমান সেনা। তাই সীমান্তের পাশেই বিমানঘাঁটি থেকেই  মাঝেমধ্যেই উড়ে যাচ্ছে সুখোই-৩০এমকেআই, মিগ-২৯এসের মতো যুদ্ধবিমান। সামরিক ভূমিকা পালনের নিজেদের আরও তৈরি করে নিচ্ছে বিমান বাহিনীর সেনারা।

গালওয়ান সংঘর্ষের পর থেকেই লাদাখ এবং সংলগ্ন এলাকায় বেড়েছে ভারতীয় বিমান বাহিনীর  যুদ্ধবিমান এবং হেলিকপ্টারের আনাগোনা। চীনের সীমান্ত সংলগ্ন সেই বিমান ঘাঁটিতেও বেড়েছে তৎপরতা। বাড়ানো হচ্ছে সামরিক প্রস্তুতি।

সেজন্য বায়ুঘাঁটি থেকে প্রায়শই মার্কিন সি-১৭ ও সি-১৩০জে এবং রাশিয়ান ইলুশিন-৭৬ ও অ্যান্তোনোভ-৩২-র মতো বিমান উড়ে যাচ্ছে।পূর্ব লাদাখ সেক্টরে সামরিক প্রস্তুতির জন্য আমেরিকান অ্যাপাচে হেলিকপ্টার ঘোরাঘুরি করছে। অপর এক মার্কিন হেলিকপ্টার চিনুকেরও আনাগোনা বেড়েছে। এছাড়াও পুরোদমে ব্যবহার করা হচ্ছে রাশিয়ান এমআই-১৭ ভি৫ কপ্টারও।

বিমান ঘাঁটির সামরিক প্রস্তুতির সঙ্গে যুক্ত এক উইং কমান্ডার বলেন, যে কোনও অভিযানের জন্য প্রস্তুত ভারতীয় বিমান সেনা এবং যে কোনও চ্যালেঞ্জের মোকাবেলায় তৈরি। যুদ্ধের ক্ষেত্রে বিমান সেনা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। সামরিক এবং সহযোগিতামূলক - উভয ক্ষেত্রেই গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে বিমান বাহিনীর সেনা। তিনি জানান, যে কোনও প্রতিকূলতার মুখোমুখি হওয়ার জন্য আমাদের যাবতীয় লোকবল এবং সরঞ্জাম আছে। একইসঙ্গে তিনি আরো জানান, মাটিতে সামরিক অভিযানের সঙ্গে আকাশপথে যে কোনও সাহায্যের জন্য পুরোপুরি প্রস্তুত বিমান সেনা।

১ কোটি ১৩ লাখ ছাড়াল আক্রান্ত, মৃত্যু ৫ লাখ ৩৩ হাজার
                                  

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা ১ কোটি ১৩ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। আর মৃত্যুর সংখ্যা ছাড়িয়েছে ৫ লাখ ৩৩ হাজার। করোনা ভাইরাসে আক্রান্তদের সংখ্যা ও প্রাণহানির পরিসংখ্যান রাখা ওয়েবসাইট ওয়ার্ল্ডোমিটারে দেয়া তথ্য অনুযায়ী, রোববার (৫ জুলাই) সকাল ১১টা পর্যন্ত বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে ১ কোটি ১৩ লাখ ৮২ হাজার ৯৫৪ জনে। এদের মধ্যে মৃত্যু হয়েছে ৫ লাখ ৩৩ হাজার ৪৭৭ জনের।

পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থও হয়েছেন অনেকে। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৬৪ লাখ ৪০ হাজার ২২৮ জন। বর্তমানে চিকিৎসাধীন ৪৪ লাখ ৯ হাজার ২৪৯ জন। এদের মধ্যে ৪৩ লাখ ৫০ হাজার ৭২৩ জনের মৃদু সংক্রমণ রয়েছে, ৫৮ হাজার ৫২৬ জনের অবস্থা গুরুতর।

বিশ্বে একক দেশ হিসেবে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা সবচেয়ে বেশি যুক্তরাষ্ট্রে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২৯ লাখ ৩৫ হাজার ৭৭০ জন। আর মৃত্যু হয়েছে ১ লাখ ৩২ হাজার ৩১৮ জনের।

যুক্তরাষ্ট্রের পর করোনায় সবচেয়ে ক্ষতিগ্রস্ত দেশ হচ্ছে ব্রাজিল। আক্রান্ত ও মৃত্যু উভয় বিবেচনায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা লাতিন আমেরিকার দেশ ব্রাজিলে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ১৫ লাখ ৭৮ হাজার ৩২৬ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৬৪ হাজার ৩৬৫ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইউরোপের দেশ যুক্তরাজ্য, তবে আক্রান্তের দিক থেকে দেশটির অবস্থান এখন আট নম্বরে। রোববার সকাল পর্যন্ত দেশটিতে আক্রান্তের সংখ্যা ২ লাখ ৮৪ হাজার ৯০০ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৪৪ হাজার ১৯৮ জনের।

মৃত্যু বিবেচনায় চতুর্থ স্থানে রয়েছে ইউরোপের আরেক দেশ ইতালি, তবে আক্রান্ত বিবেচনায় দেশটির অবস্থান এখন ১০-এ। ইতালিতে রোববার সকাল পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৪১ হাজার ৪১৯ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ৩৪ হাজার ৮৫৪ জনের।

আক্রান্ত বিবেচনায় রাশিয়ায় মৃত্যুর হার বেশ কম। আক্রান্তের দিক থেকে তৃতীয় স্থানে থাকা দেশটিতে রোববার সকাল পর্যন্ত শনাক্ত রোগীর সংখ্যা ৫ লাখ ২০ হাজার ১২৯ এবং মৃত্যু হয়েছে ৬ হাজার ৮২৯ জনের।

দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে আক্রান্ত বিবেচনায় বিশ্বের মধ্যে চতুর্থ স্থানে উঠে আসা ভারতে রোববার সকাল পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৬ লাখ ৭৪ হাজার ৫১৫ জন এবং মৃত্যু হয়েছে ১০ হাজার ২৭ জনের।

গত বছরের ডিসেম্বরে চীন থেকে সংক্রমণ শুরু হওয়ার পর বিশ্বব্যাপী এ পর্যন্ত ২১৩টি দেশ ও অঞ্চলে ছড়িয়েছে প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস। গত ১১ মার্চ করোনাভাইরাস সংকটকে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

এদিকে, বাংলাদেশে শনিবার (০৪ জুলাই) আরও ৩ হাজার ২৮৮ জন করোনা রোগী শনাক্ত হয়েছেন। এ নিয়ে দেশে মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ায় ১ লাখ ৫৯ হাজার ৬৭৯ জন। এছাড়া আরও ২৯ জনের মৃত্যুর মধ্য দিয়ে মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ১ হাজার ৯৯৭ জনে। বাংলাদেশে গত ৮ মার্চ প্রথম করোনা ভাইরাসের রোগী শনাক্ত হলেও প্রথম মৃত্যুর খবর আসে ১৮ মার্চ।

করোনায় মৃত্যুর তালিকায় পাঁচে মেক্সিকো
                                  

 করোনাভাইরাসের তাণ্ডবে বিপর্যস্ত পুরো বিশ্ব। প্রতিদিনই বাড়ছে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা। মেক্সিকোতেও হানা দিয়েছে প্রাণঘাতী এই ভাইরাস। মৃত্যুর তালিকায় ফ্রান্সকে টপকে শীর্ষ পাঁচে উঠে এসেছে দেশটি।

কভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়ে মেক্সিকোতে এখন পর্যন্ত মোট ৩০ হাজার বেশি মানুষের প্রাণহানি হয়েছে। তাতে বৈশ্বিক মৃত্যুর তালিকায় দেশটির স্থান এখন পাঁচ নম্বরে।
মৃত্যুতে মেক্সিকোর উত্থানে ষষ্ঠস্থানে নেমে গেছে ফ্রান্স। ইউরোপের দেশটিতে মৃত্যুর সংখ্যা ৩০ হাজার থেকে কিছু কম।

ওয়ার্ল্ডোমিটারের তথ্য অনুযায়ী, মেক্সিকোতে এখন পর্যন্ত আক্রান্ত হয়েছে ২ লাখ ৫২ হাজার ১৬৫ জন। মৃত্যু হয়েছে ৩০ হাজার ৩৬৬ জনের।

করোনার যেসব ওষুধের পরীক্ষা বন্ধ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
                                  

সারা বিশ্ব জুড়ে প্রতিদিনই হু হু করে বেড়ে চলেছে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা। এরই মধ্যে করোনার ওষুধ তৈরিতে কাজ করে যাচ্ছে বিশ্বের সব খ্যাতনামা গবেষকরা। এই পরিস্থিতিতে করোনার ওষুধ হাইড্রোক্সোক্লোরোকুইন, লোপিনাভির ও রিটোনাভিরের ক্লিনিকাল ট্রায়াল বন্ধ ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের তেমন কোন উন্নতির লক্ষণ না পাওয়ায় এমন সিদ্ধান্ত নিয়েছে ডাব্লিউএইচও।

হাসপাতাল থেকে পাওয়া প্রমাণের উপর ভিত্তি করে এমন সিদ্ধান্ত নিযেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। এই অন্তর্বর্তীকালীন পরীক্ষার ফলাফলগুলি দেখায় যে হাইড্রোক্সাক্লোরোকুইন এবং লোপিনাভির / রিটোনাভির মানের তুলনায় হাসপাতালে ভর্তি করোনা রোগীদের মৃত্যুর পরিমাণ কমাতে সামান্যতম ভূমিকা রাখছে।

তবে সংস্থাটি বলছে এ সিদ্ধান্ত শুধুমাত্র হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের ক্ষেত্রে। তবে অন্যান্য রোগের ক্ষেত্রে এসব ওষুধের ব্যবহার আগের মতই থাকবে। গেল মার্চ থেকে হাসপাতালে ভর্তি রোগীদের হাইড্রোক্সেক্লোরোকু্ন দেওয়া শুরু হয়। করোনা রোগীদের মূলত হাসপাতালে এই ওষুধের পাঁচটি ট্রায়াল দেওয়া হয়েছিল।

হাইড্রোক্সোক্লোরোকুইন মূলত আর্থাইটিসের চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয় আর লোপিনাভির , রিটোনাভির এইচআইভির চিকিৎসায় ব্যবহৃত হয়ে আসছে। 

২৪ ঘন্টায় অবস্থার অবনতি, করোনায় আক্রান্ত পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি
                                  

পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেশিকে শনিবার রাওয়লপিণ্ডির সামরিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। শুক্রবারেই তার করোনা ধরা পড়ে। প্রথমে বাড়িতে আইসোলোশনে থাকার সিদ্ধান্ত নিলেও স্বাস্থ্যের অবনতি হলে তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।তবে তাঁর শারীরিক অবস্থা সম্পর্কে হাসপাতাল থেকে এখনও পর্যন্ত কোনও বিবৃতি দেওয়া হয়নি।

শুক্রবার শাহ মহম্মদ কুরেশি ঘোষণা করেছিলেন, দুপুরে হালকা জ্বর আসায় কোভিড টেস্ট করতে দিয়েছেন। সন্ধ্যায় জানতে পারেন রিপোর্ট পজিটিভ। রিপোর্ট আসার আগেই দুপুর থেকে তিনি হোম কোয়ারানটিনে রয়েছেন বলে জানিয়েছিলেন। সেই সাথে ঘরে বসে যাবতীয় কাজ সামলাবেন বলেও জানিয়েছিলেন। সেই সাথে বলেন, `করোনা হলেও আল্লার কৃপায় ভালোই আছি। শরীরে কোনও দুর্বলতা নেই। যথেষ্ট চাঙ্গা বোধ করছি। ঘরে বসেই আমার যাবতীয় কাজকর্ম করব।

পাকিস্তানের একাধিক নেতা এরই মধ্যে কোভিড সংক্রমণের শিকার। দু-সপ্তাহ আগে মুত্তাহিদা কওমি আন্দোলন পাকিস্তান (এমকিউএম-পি) নেতা, তথ্য-প্রযুক্তি ও টেলিযোগাযোগ বিষয়ক ফেডারেল মন্ত্রী সৈয়দ আমিনুল হকের রিপোর্ট করোনা পজিটিভ আসে।
গত জুনে করোনা সংক্রমণ থেকে সুস্থ হয়ে ওঠার কয়েক দিনের মধ্যেই মারা গিয়েছেন জাতীয় সংসদ সদস্য মুনির খান ওরাকজাই। খাইবার পাখতুনখোয়া বিধানসভার আট সদস্যও করোনা পজিটিভ। জাতীয় সংসদের স্পিকার আসাদ কাইসেরও করোনা সংক্রমণের হাত থেকে রেহাই পাননি।

জুনের মাঝামাঝি পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইউসুফ রাজা গিলানিরও করোনাভাইরাস সংক্রমণ ধরা পড়ে। একটি জালিয়াতির মামলায় ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টেবিলিটি ব্যুরোতে শুনানির জন্য গিয়েছিলেন গিলানি। সেখানে থেকেই তিনি আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা যায়।  
তার আগে পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজের শেহবাজ শরিফের রিপোর্টও পজিটিভ আসে। তিনিও ওই জালিয়াতি মামলার শুনানিতে হাজির দিতে গিয়েছিলেন ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টেবিলিটি ব্যুরোর দফতরে।

এবার রাশিয়ার শহর নিজের বলে দাবি চীনের!
                                  

লাদাখে ভারতের সঙ্গে সীমান্ত সমস্যা তুঙ্গে। অনেকটা যুদ্ধাবস্থা বিরাজ করছে প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় (এলএসি)। অতি আগ্রাসী মনোভাব চীনের। শুনতে হাস্যকর লাগলেও, এবার রাশিয়ার ভ্লাদিভোস্টক শহর নিজেদের বলে দাবি করেছে বেইজিং। স্বাভাবিকভাবেই বিষয়টি যে মস্কো মোটেও ভাল চোখে দেখছে না, তা বলাই বাহুল্য। অতি আগ্রাসী হতে গিয়ে ক্রমে নিজের বিপদ ডেকে আনছে না তো চীন?

শুক্রবার (৩ জুলাই) ভ্লাদিভোস্টক শহরের ১৬০তম বর্ষপূর্তিতে চীনা মাইক্রোব্লগিং ওয়েবসাইট উইবো-তে অনুষ্ঠানের ভিডিও পোস্ট করে বেইজিংয়ের রুশ দূতাবাস। আর তা নিয়ে আপত্তি তোলেন চীনা কূটনীতিকদের একাংশ। তাদের সমর্থন করেন চীনা সাংবাদিক ও বুদ্ধিজীবীরাও।

চীনা কুটনীতিকদের বক্তব্য, ভ্লাদিভোস্টক শহরের আদি নাম ছিল ‘হাইশেনওয়াই’। কুইং সাম্রাজ্যের আমলে এই শহরটি চীনের অংশ ছিল। তারপর, ইউরোপে শিল্প বিপ্লব ঘটায় শুরু হয় উপনিবেশ স্থাপনের লড়াই। ফলে বিশ্ব মানচিত্রে ঘটে যায় বড়সড় রদবদল। চীন দখল করতে লড়াই শুরু করে ব্রিটেন ও ফ্রান্স। দ্বিতীয় আফিম যুদ্ধে চীনের পরাজয়ের পর ১৮৬০ সালে ভ্লাদিভোস্টক শহর দখল করে নেয় রাশিয়া।

এদিকে, রুশ দূতাবাসের ভিডিওটি নিয়ে চীনা সরকার নিয়ন্ত্রিত সংবাদমাধ্যমের এক কর্মী শেন শিওয়েই বলেন, `১৮৬০ সালে ভ্লাদিভোস্টক শহরে সামরিক বন্দর তৈরি করে রাশিয়া। কিন্তু ওই শহরটি আসলে হাইশেনওয়াই। অসমান বেইজিং চুক্তির ফলে চীনের ওই শহরটি হাতিয়ে নেয় রাশিয়া। তাই উইবো-তে অনুষ্ঠানের ভিডিও কাম্য নয়।`

এটা সর্বজনবিদিত যে বেইজিংয়ের অনুমতি ছাড়া কোনো চীনা কূটনীতিক নিজের নাম পর্যন্ত বলেন না। সে ক্ষেত্রে ভ্লাদিভোস্টক নিয়ে বিতর্ক উসকে কী আদায় করত চাইছে চীন? বিশ্লেষকদের মতে, সম্প্রতি লাদাখ নিয়ে ভারতের সঙ্গে সংঘর্ষের আবহে নয়াদিল্লিকে অস্ত্র জোগান দিচ্ছে মস্কো। ফলে চিন্তা বেড়েছে লাল ফৌজের। তাই `হাইশেনওয়াই` শহরের কথা তুলে মস্কোর উপর চাপ সৃষ্টি করতে চাইছেন শি জিন পিং প্রশাসন।

সূত্র- টাইমস নাউ, সংবাদ প্রতিদিন।

ট্রাম্পের পরিবারে ঢুকে গেছে করোনা, ছেলের প্রেমিকা আক্রান্ত
                                  

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের বড় ছেলের প্রেমিকা করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছেন। মার্কিন গণমাধ্যমগুলোর প্রতিবেদনে এ খবর জানানো হয়েছে। জানা গেছে, ট্রাম্পের বড় ছেলের প্রেমিকা ৫১ বছর বয়সী কিমবার্লে গুইলফয়লে করোনা আক্রান্ত হিসেবে চিহ্নিত হওয়ার পরপরই আইসোলেশনে রয়েছেন।

ফক্স নিউজ টেলিভিশনের এই তারকা করোনা সংক্রমিত জানার পর ডোনাল্ড ট্রাম্প যেন সংক্রমিত না হন, সে ব্যাপারে মার্কিন কর্মকর্তারা উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছেন বলে নিউইয়র্ক টাইমসের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। জানা গেছে, করোনা আক্রান্ত হলেও তার শরীরে কোনো উপসর্গ দেখা দেয়নি। বর্তমানে তার শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল।

তবে ট্রাম্পের ছেলে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হননি।  তার পরেও তিনি আইসোলেশনে রয়েছেন। ট্রাম্পের সংস্পর্শে যাওয়া তৃতীয় ব্যক্তি হিসেবে আক্রান্ত হলেন এই নারী।
এর আগে ট্রাম্পের সংস্পর্শে যাওয়া দু`জন করোনা রোগী চিহ্নিত হয়েছেন। এদিকে যুক্তরাষ্ট্রে এখন পর্যন্ত করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হিসেবে শনাক্ত হয়েছে ২৮ লাখ ৯০ হাজার পাঁচশ ৮০ জন এবং মারা গেছে এক লাখ ৩২ হাজার একশ একজন।

সূত্র : নিউইয়র্ক টাইমস

আবারো রাশিয়ার আয়োজনে ভারত- চীন বৈঠক
                                  

গালওয়ান সংঘর্ষে ভারত চীন উত্তেজনা বেড়েই চলেছে। এই পরিস্থিতিতে দু সপ্তাহের মধ্যে দ্বিতীয়বারের জন্য রাশিয়ার আয়োজনে বৈঠকে অংশ নিয়েছে দুই দেশ। ব্রিকসভুক্ত দেশগুলোর প্রতিনিধিদের বৈঠকে যোগ দিয়েছেন ভারতীয় প্রতিনিধি। রাশিয়া আয়োজিত এই ভার্চুয়াল বৈঠকে অংশ নিয়েছে চীনও। ভারতের পক্ষ থেকে ব্রিকসভুক্ত দেশগুলোর প্রতিনিধিদের বৈঠকে অংশ নেন পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিব  সঢ্জয় ভট্টাচার্য। টুইটে তিনি জানিয়েছেন, ‘ব্রিকসের এই বৈঠকে যোগ দিতে পেরে সম্মানিত বোধ করছি। এই প্রতিষ্ঠানের সম্ভাবনা, বিভিন্ন কাজের অগ্রগতি, বাস্তব পরিস্থিতি মোকাবেলায় নতুন ধারনা ও সদস্য রাষ্ট্রগুলোর মধ্যে সুসম্পর্ক বজায় রাখার বিষয়ে আলোচনা হয়েছে।’

ব্রাজিল, রাশিয়া, ভারত, চীন ও দক্ষিণ আফ্রিকাকে নিয়ে এই ব্রিকস গোষ্ঠী গঠিত। গালওয়ান উপত্যকায় ১৫ জুন রক্তপাতের পরেই গত ২৩ জুন রাশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী ল্যাভরভের আয়োজনে বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে পাঁচ লাখ ২৬ হাজার ৪১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে
                                  

বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ১০ লাখ ছাড়িয়েছে। শুক্রবার দিবাগত মধ্যরাতে আন্তর্জাতিক জরিপ সংস্থা ওয়ার্ল্ডোমিটারস এ তথ্য জানিয়েছে। প্রতিষ্ঠানটির ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, করোনাভাইরাস বৈশ্বিক মহামারিতে এ পর্যন্ত বিশ্বের ২১৫টি দেশ ও অঞ্চল আক্রান্ত হয়েছে। এ পর্যন্ত বিশ্বজুড়ে মোট আক্রান্তের সংখ্যা এক কোটি ১০ লাখ ৮৭ হাজার ৪৩৯। এর মধ্যে পাঁচ লাখ ২৬ হাজার ৪১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে। চিকিৎসা গ্রহণের পর সুস্থ হয়ে উঠেছে ৬২ লাখ ১২ হাজার ৪০৪ জন।

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের হুবেই প্রদেশের রাজধানী উহান থেকে ছড়িয়ে পড়ে করোনাভাইরাস। উৎপত্তিস্থল চীনে ৮৩ হাজারেরও বেশি মানুষ আক্রান্ত হলেও সেখানে ভাইরাসটির প্রাদুর্ভাব কমে গেছে। তবে বিশ্বের অন্যান্য দেশে এই ভাইরাসের প্রকোপ বাড়ছে। চীনের বাইরে করোনাভাইরাসের প্রকোপ ১৩ গুণ বৃদ্ধি পাওয়ার প্রেক্ষাপটে গত ১১ মার্চ দুনিয়াজুড়ে মহামারি ঘোষণা করে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)।

আমেরিকার দুই মহাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ায় সংক্রমণ এখনও দ্রুত বাড়ছে। অন্যদিকে ইউরোপকে লণ্ডভণ্ড করে দিয়ে করোনা কিছুটা স্তিমিত হলেও সেখানে আবারও নতুন করে রোগটির প্রাদুর্ভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। তবে আশার কথা হচ্ছে, এখন আক্রান্তের পর সুস্থ হওয়ার হার দ্রুত বাড়ছে।

ওয়ার্ল্ডোমিটারস-এর তথ্য অনুযায়ী, এখন পর্যন্ত সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা যুক্তরাষ্ট্রে। সেখানে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ২৮ লাখ ৬০ হাজার ৯৩২। মৃত্যু হয়েছে এক লাখ ৩১ হাজার ৮০৮ জনের।

আক্রান্তের হিসাবে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে ব্রাজিল। দেশটিতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ১৫ লাখ আট হাজার ৯৯১। এর মধ্যে ৬২ হাজার ৩০৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

রাশিয়ায় আক্রান্তের সংখ্যা ছয় লাখ ৬৭ হাজার ৮৮৩। এর মধ্যে ৯ হাজার ৮৫৯ জনের মৃত্যু হয়েছে।

উৎপত্তিস্থল চীনে আক্রান্তের সংখ্যা ৮৩ হাজার ৫৪২। এর মধ্যে চার হাজার ৬৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। যদিও দেশটির বিরুদ্ধে প্রকৃত পরিস্থিতি গোপন করার অভিযোগ রয়েছে। উহানের একজন স্বেচ্ছাসেবী বলেন, ‘বুদ্ধি-বিবেচনাসম্পন্ন যেকোনও মানুষ এই সংখ্যা (সরকারি পরিসংখ্যান) নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করবেন।’

পাল্টা ব্যবস্থায় ভারতের ওয়েবসাইটে প্রবেশ বন্ধ করল চীন
                                  

চীনের ৫৯টি অ্যাপ নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছে ভারত। পাল্টা ব্যবস্থা হিসেবে এবার চীন বন্ধ করল ভারতের উইঅন ওয়েবসাইটের অ্যাকসেস। এবার থেকে চীনে এই ভারতীয় ওয়েবসাইট দেখা যাবে না বলে জানিয়েছ চীনা কর্তৃপক্ষ।

ভারত-চীন সীমান্ত সংঘর্ষের জেরে উভয় দেশের ব্যবস্থা-পাল্টা ব্যবস্থা উত্তরোত্তর বৃদ্ধি পাচ্ছে। এর মধ্যেই সীমান্তের প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখায় দুই দেশই একে অপরের চোখে চোখ রেখে দাঁড়িয়ে রয়েছে। এরই মাঝে রাতারাতি ৫৯টি চীনা অ্যাপ বাতিল ঘোষণা করে ডিজিটাল স্ট্রাইক ঘোষণা করেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি।

ভারতের ব্যবস্থা গ্রহণের সেই পথে হেঁটেই এবার চীনের মূল ভূখণ্ডে উইওনিউজ অ্যাকসেস বন্ধ করে দিল চীন। চীনের ইন্টারনেট মনিটরিং সংস্থা জানাচ্ছে চীনে এই ওয়েবসাইটটি পুরোপুরি বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

মূলত এই ওয়েবসাইটটি লাদাখে চীনের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লেখালেখি করছিল, তাতে ক্ষুব্ধ হয় বেইজিং। এরপরেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

মার্চ মাসেই চীনের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র জানিয়েছিলেন সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ব্লক করা হয়েছে উইঅন ওয়েবসাইটকে। ভারতে চীনা রাষ্ট্রদূতও এই ওয়েবসাইটের চীনবিরোধী কনটেন্ট নিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছিলেন। শুধু লাদাখে ভারত-চীন সংঘর্ষ নয়, করোনা বিস্তারে চীনের ভূমিকা নিয়ে এই ওয়েবসাইটের বিষয়বস্তু পছন্দ হয়নি বেইজিংয়ের।

এর আগে, কথিত ‘ডিজিটাল স্ট্রাইক’ চালিয়ে মোদী সরকার চীনকে হাতে নয়, ভাতে মারতে উদ্যোগী হয়। সোমবার রাত থেকে ভারতে নিষিদ্ধ করা হয় চীনের সঙ্গে সম্পর্কিত ৫৯টি মোবাইল অ্যাপ। এর পরই এই ইস্যুতে বিবৃতি দেয় ভারত সরকার। আর সেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, এসব অ্যাপের ডেটা গিয়ে জমা হত ভারতের বাইরে থাকা কোনো সার্ভারে। সেসব সার্ভার চীনে রয়েছে বলেই জানা যায়। তাই এসব অ্যাপ ভারতের নিরাপত্তার জন্য ক্ষতিকর হয়ে উঠছিল বলে অভিযোগ রয়েছে।
 
এতে চীনকে উচিৎ শিক্ষা দেওয়া হবে বলেও মন্তব্য অনেক ভারতীয়র। লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতে চীনা হামলার পর থেকেই চীনা দ্রব্য বয়কট করার পক্ষে জনমত গড়ে ওঠে ভারতে। সূত্র: কলকাতা ২৪।


   Page 1 of 164
     আন্তর্জাতিক
করোনা নিয়ে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থাকে ৩২ দেশের ২৩৯ গবেষকের চ্যালেঞ্জ
.............................................................................................
আবারও হাইড্রক্সিক্লোরোকুইন ব্যবহারে ‘না’ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
.............................................................................................
বিশ্বব্যাপী করোনা আক্রান্তের সর্বোচ্চ রেকর্ড আজ
.............................................................................................
সৌদিতে করোনায় পাঁচ শতাধিক বাংলাদেশির মৃত্যু, আক্রান্ত প্রায় ২০ হাজার
.............................................................................................
ট্রাম্পের বিপক্ষে দাঁড়ানোর ঘোষণা দিলেন কার্দাশিয়ানের স্বামী কেনি
.............................................................................................
করোনার বিরুদ্ধে দীর্ঘমেয়াদী প্রতিরোধ গড়বে অক্সফোর্ডের টিকা
.............................................................................................
চীন সীমান্তে প্রস্তুতির কোন কমতি রাখছে না ভারতীয় বিমান বাহিনী
.............................................................................................
১ কোটি ১৩ লাখ ছাড়াল আক্রান্ত, মৃত্যু ৫ লাখ ৩৩ হাজার
.............................................................................................
করোনায় মৃত্যুর তালিকায় পাঁচে মেক্সিকো
.............................................................................................
করোনার যেসব ওষুধের পরীক্ষা বন্ধ করল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা
.............................................................................................
২৪ ঘন্টায় অবস্থার অবনতি, করোনায় আক্রান্ত পাক পররাষ্ট্রমন্ত্রী হাসপাতালে ভর্তি
.............................................................................................
এবার রাশিয়ার শহর নিজের বলে দাবি চীনের!
.............................................................................................
ট্রাম্পের পরিবারে ঢুকে গেছে করোনা, ছেলের প্রেমিকা আক্রান্ত
.............................................................................................
আবারো রাশিয়ার আয়োজনে ভারত- চীন বৈঠক
.............................................................................................
বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে পাঁচ লাখ ২৬ হাজার ৪১৬ জনের মৃত্যু হয়েছে
.............................................................................................
পাল্টা ব্যবস্থায় ভারতের ওয়েবসাইটে প্রবেশ বন্ধ করল চীন
.............................................................................................
সব করোনা রোগীকে এক চিকিৎসা দেওয়া যাবে না, রাজ্যের নতুন নির্দেশ
.............................................................................................
মিয়ানমারে জেড খনিতে ভূমিধস, মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৬১
.............................................................................................
উত্তর প্রদেশে আসামি ধরতে গিয়ে ৮ পুলিশ গুলিতে নিহত
.............................................................................................
চীনের বিরুদ্ধে হঠাৎ ‘বন্ধু সেজে ছুরি মারা’র অভিযোগ মিয়ানমারের!
.............................................................................................
মিয়ানমারে খনি ধসে নিহত ১১৩, আটকে আছে ২০০ জনের বেশি
.............................................................................................
মেক্সিকোতে ড্রাগ রিহ্যাব সেন্টারে এলোপাথাড়ি গুলি, নিহত ২৪
.............................................................................................
মিয়ানমারে খনিতে ধস, নিহত ৫০
.............................................................................................
ভারতের সঙ্গে বৈরিতা: নেপালে লবণের কেজি ১০০ রুপি, সরষের তেল ২৫০
.............................................................................................
২০৩৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় থাকার অনুমোদন পেলেন পুতিন
.............................................................................................
আমেরিকায় করোনায় মৃত্যু এক লাখ ২৬ হাজার: চাপে ট্রাম্প
.............................................................................................
চীনা নিরাপত্তা আইন কার্যকর, প্রতিবাদের মধ্য দিয়ে জীবন শুরু হংকংবাসীর
.............................................................................................
রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে বিনামূল্যে আনারস-লেবুর জুস খাওয়াবেন ত্রিপুরার মুখ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
চীনের সোশ্যাল মিডিয়া থেকে ডিলিট করে দেওয়া হলো মোদির ছবি
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থান খুবই ধ্বংসাত্মক: রাশিয়া
.............................................................................................
ভারতে করোনায় মৃত্যু ১৭ হাজার ছাড়িয়েছে, মোট আক্রান্ত ৫ লাখ ৮৫ হাজার
.............................................................................................
চীনে নতুন একটি ভাইরাসের খোঁজ পেয়েছেন বিজ্ঞানীরা
.............................................................................................
চীনের ওপর নজর রেখে টহল বাড়িয়েছে ভারতীয় নৌবাহিনী
.............................................................................................
চীনের পার্লামেন্টে পাস হল হংকং নিরাপত্তা আইন
.............................................................................................
করোনার উৎস খুঁজতে আবারো চীন যাচ্ছে ডাব্লিউএইচও`র বিশেষজ্ঞরা
.............................................................................................
ভুটানকে কাছে টানল ভারত, বড় প্রকল্পের চুক্তি স্বাক্ষর
.............................................................................................
৫৪ নয়, শেনজেন ভিসা পাচ্ছে ১৪ দেশ, বাদ পড়ল ভারত-চীনও
.............................................................................................
হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বেই বাংলাদেশ-ভারত সোনালি অধ্যায়ে
.............................................................................................
দ্বিতীয় ধাপের সংক্রমণের শঙ্কা, চীনে চার লাখ মানুষ লকডাউনে
.............................................................................................
সাহস থাকলে চীনের নাম নিয়ে হুমকি দিন, মোদিকে কংগ্রেস নেতা
.............................................................................................
পাকিস্তান স্টক এক্সচেঞ্জ ভবনে বন্দুকধারীর হামলা, নিহত ৬
.............................................................................................
চীনের জন্য দ্বিতীয় সীমান্ত খুলে দিচ্ছে নেপাল
.............................................................................................
১ কোটি ২ লাখের বেশি করোনায় আক্রান্ত, মৃত্যু ছাড়িয়েছে ৫ লাখ
.............................................................................................
কলকাতায় ১৪ শতাংশের বেশি মানুষের শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি মিলেছে!
.............................................................................................
মেক্সিকোয় একদিনে প্রাণ গেল ৬০২ জনের
.............................................................................................
মিয়ানমারের রাখাইন ছেড়ে পালাচ্ছে হাজারো মানুষ
.............................................................................................
বাংলাদেশের পাওনা টাকা আটকে রেখেছেন কিম জং উন
.............................................................................................
সীমান্তে পাকিস্তানের সেনা সমাবেশ, হুঁশিয়ারি ভারতের
.............................................................................................
বিশ্বে করোনায় মারা গেছেন ৫ লাখের বেশি মানুষ
.............................................................................................
ভারত-চীন সংঘাত চলাকালেই সীমান্তে সেনা মোতায়েন করছে পাকিস্তান
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD