| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ১ অক্টোবর সৌদিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু : ল্যান্ডিং পারমিশন মেলেনি   * স্ত্রীর স্বপ্ন পূরণে ১৭ লাখ টাকায় হাতি কিনে দিলেন স্বামী   * অ্যাটর্নি জেনারেলের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন   * স্বাস্থ্য খাতের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ ২০ জনের সম্পদের বিবরণী চেয়ে দুদকের নোটিশ   * সাভারে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে তরুণীকে ধর্ষণ, গ্রেফতার ৬   * ইয়াঙ্গুনে লকডাউন জারি   * করোনার প্রভাব বেড়ে যাওয়ায় চেক রিপাবলিকের স্বাস্থ্যমন্ত্রীর পদত্যাগ   * তিন দিনের মাথায় উঠে যাচ্ছে সড়কের পিচ   * ইরাক দিয়ে তেল চুরি করে যাচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র: সিরিয়া   * অনুমতি মিলেছে এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের  

   জাতীয় -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
১ অক্টোবর সৌদিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু : ল্যান্ডিং পারমিশন মেলেনি

অনলাইন ডেস্ক : ১ অক্টোবর থেকে বিমানের বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে সৌদি আরব। আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার আগে ল্যান্ডিং পারমিশন আবশ্যক। কিন্তু ল্যান্ডিং পারমিশন পাওয়া যায় নি।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে এ তথ্য জানিয়েছেন বিমান বাংলাদেশে এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোকাব্বির হোসেন।

তিনি বলেন, সৌদি আরব ১ অক্টোবর ২০২০ থেকে বিমানের বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে। আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার আগে ল্যান্ডিং পারমিশন আবশ্যক। কিন্তু ল্যান্ডিং পারমিশন পাওয়া যায় নি। ফলে যাত্রীদের আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার জন্য ফ্লাইট এখনই ঘোষণা করা সম্ভব হচ্ছে না। ল্যান্ডিং পারমিশন প্রাপ্তির সাথে সাথেই ফ্লাইট ঘোষণা করা হবে এবং যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলে অবহিত করা হবে। ফ্লাইট ঘোষণার পূর্বে কাউন্টারে অহেতুক ভিড় না করার জন্য যাত্রীদের অনুরোধ করা যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যে সকল যাত্রীর নিকট সৌদি আরব যাওয়ার টিকিট রয়েছে কেবল তাদের আসন বরাদ্দ করা হবে; আপাতত নতুন টিকিট বিক্রি করা হবে না। আসন বরাদ্দের বিস্তারিত তথ্য আগামীকাল (মঙ্গলবার) বিমানের ওয়েব সাইটে পাওয়া যাবে।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, সৌদি এয়ারলাইন্সকে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। সেই অনুমতি বাতিল হয়নি। তবে ফ্লাইট পরিচালনা সংক্রান্ত দুটি তথ্য তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। সেই তথ্য জানতে পারলে ফ্লাইটের বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এদিকে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা রুটে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয় সৌদিয়াকে। তবে রোববার আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে সৌদির ফ্লাইট বাতিলের বিষয়ে আলোচনা হয়। ২-১ দিনের মধ্যেই বেবিচক এ বিষয়ে তাদের আপডেট জানাবে।

১ অক্টোবর সৌদিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু : ল্যান্ডিং পারমিশন মেলেনি
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ১ অক্টোবর থেকে বিমানের বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে সৌদি আরব। আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার আগে ল্যান্ডিং পারমিশন আবশ্যক। কিন্তু ল্যান্ডিং পারমিশন পাওয়া যায় নি।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) রাতে এ তথ্য জানিয়েছেন বিমান বাংলাদেশে এয়ারলাইনসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোকাব্বির হোসেন।

তিনি বলেন, সৌদি আরব ১ অক্টোবর ২০২০ থেকে বিমানের বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনা সিদ্ধান্ত প্রদান করেছে। আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার আগে ল্যান্ডিং পারমিশন আবশ্যক। কিন্তু ল্যান্ডিং পারমিশন পাওয়া যায় নি। ফলে যাত্রীদের আসন বরাদ্দ আরম্ভ করার জন্য ফ্লাইট এখনই ঘোষণা করা সম্ভব হচ্ছে না। ল্যান্ডিং পারমিশন প্রাপ্তির সাথে সাথেই ফ্লাইট ঘোষণা করা হবে এবং যাত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলে অবহিত করা হবে। ফ্লাইট ঘোষণার পূর্বে কাউন্টারে অহেতুক ভিড় না করার জন্য যাত্রীদের অনুরোধ করা যাচ্ছে।

তিনি আরও বলেন, যে সকল যাত্রীর নিকট সৌদি আরব যাওয়ার টিকিট রয়েছে কেবল তাদের আসন বরাদ্দ করা হবে; আপাতত নতুন টিকিট বিক্রি করা হবে না। আসন বরাদ্দের বিস্তারিত তথ্য আগামীকাল (মঙ্গলবার) বিমানের ওয়েব সাইটে পাওয়া যাবে।

এর আগে সোমবার সন্ধ্যায় বেবিচক চেয়ারম্যান এয়ার ভাইস মার্শাল মফিদুর রহমান বলেন, সৌদি এয়ারলাইন্সকে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয়েছিল। সেই অনুমতি বাতিল হয়নি। তবে ফ্লাইট পরিচালনা সংক্রান্ত দুটি তথ্য তাদের কাছে জানতে চাওয়া হয়েছে। সেই তথ্য জানতে পারলে ফ্লাইটের বিষয়ে পরবর্তী সিদ্ধান্ত জানানো হবে।

এদিকে আগামী ২৩ সেপ্টেম্বর থেকে ঢাকা রুটে সপ্তাহে দুটি ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি দেয়া হয় সৌদিয়াকে। তবে রোববার আন্তঃমন্ত্রণালয়ের এক বৈঠকে সৌদির ফ্লাইট বাতিলের বিষয়ে আলোচনা হয়। ২-১ দিনের মধ্যেই বেবিচক এ বিষয়ে তাদের আপডেট জানাবে।

অ্যাটর্নি জেনারেলের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ঢাকার সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের অবস্থা সংকটাপন্ন। সোমবার সকালে তার অবস্থা খারাপ হয়েছে বলে অ্যাটর্নি জেনারেল কার্যালয় সূত্র জানিয়েছে। সোমবার রাতে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক গণমাধ্যমকে বলেন, উনার ফুসফুসে কাজ করছে না। ফুসফুসে পানি জমেছে। অবস্থা খুব একটা ভালো না, শংকামুক্ত নয়। দোয়া করবেন।

জ্বর ও গলা ব্যথা নিয়ে গত ৪ সেপ্টেম্বর সিএমএইচ হাসপাতালে ভর্তি হন অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলম। ওই দিনই করোনা পরীক্ষা করালে রিপোর্ট পজিটিভ আসে। গত শনিবার তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে আইসিইউতে স্থানান্তর করা হয়। পরদিন রবিবার মাহবুবে আলমের স্ত্রী বিনতা মাহবুব সাংবাদিকদের জানান, নমুনা পরীক্ষায় মাহবুবে আলমের রিপোর্টে ``করোনা নেগেটিভ`` এসেছে।

মাহবুবে আলমের সুস্থতার জন্য প্রধানমন্ত্রী ও দেশবাসীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়ে তিনি আরও বলেন, প্রধানমন্ত্রী সার্বক্ষণিক মাহবুবে আলমের খোঁজখবর নিচ্ছেন। তার সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে আবারও দোয়া প্রত্যাশা করেন তিনি। ৭১ বছর বয়সী মাহবুবে আলম ২০০৯ সাল থেকে অ্যাটর্নি জেনারেলের দায়িত্বে রয়েছেন। সুপ্রিম কোর্ট আইনজীবী সমিতির সাবেক এই সভাপতি ১৯৭৫ সালে হাইকোর্টে আইন পেশায় যুক্ত হন।

কে হচ্ছেন আল্লামা শফীর উত্তরসূরি
                                  

অনলাইন ডেস্ক : কওমি অঙ্গন ও সাধারণ ধর্মপ্রাণ মানুষের মাঝে এখন আলোচনার বিষয়- কে হচ্ছেন সদ্যপ্রয়াত আল্লামা আহমদ শফীর উত্তরসূরি? একই সঙ্গে আরও তিনটি গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব পালন করবেন কে? এ প্রতিষ্ঠানগুলো হচ্ছে- হেফাজতে ইসলাম, বাংলাদেশ কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড (বেফাক) এবং আল-হাইআতুল উলয়া লিল-জামিআতিল কওমিয়া।

দেশের প্রবীণ আলেম আল্লামা শফীর মৃত্যুর পর এখন কে বা কারা আসছেন এই তিন প্রতিষ্ঠানের প্রধান হিসেবে, সেদিকেই এখন সবার দৃষ্টি। কওমি নেতারা বলছেন, এতদিন হাটহাজারী মাদ্রাসা, বেফাক-হাইয়া ও হেফাজতে ইসলামের নেতৃত্ব এককেন্দ্রিক থাকলেও এখন তিনটি আলাদাভাবে পরিচালিত হবে। কারণ আল্লামা শফীর মতো সর্বজনমান্য এমন কেউ নেই। তাই এসব পদে সবার গ্রহণযোগ্য এবং রাজনৈতিক কোনো অভিলাষ নেই এমন কাউকে নির্বাচিত করা হোক।

শুক্রবার রাতে সংবাদ সম্মেলনে এ সম্পর্কে হেফাজতের মহাসচিব ও হাটহাজারী মাদ্রাসার শিক্ষা পরিচালক আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী জানিয়েছেন, হেফাজতে ইসলামের পরবর্তী আমীর কে হবেন, তা কাউন্সিলের মাধ্যমে নির্ধারণ করা হবে। আল্লামা শফীর ইন্তেকালের পর সংগঠনের কার্যক্রমে কোনো প্রভাব পড়বে কি না- এমন প্রশ্নের জবাবে বাবুনগরী বলেন, প্রভাব তো কিছু পড়বেই। তার মতো মানুষ আর পাওয়া যাবে না। এখন আমার দায়িত্ব কাউন্সিল ডাকা। কাউন্সিল যে সিদ্ধান্ত নেবে, সেটাই হবে।

এদিকে হেফাজতে ইসলামের আমীর হিসেবে ৩ জনের নাম আলোচনায় আসছে। তারা হলেন হেফাজতের কেন্দ্রীয় নায়েবে আমীর আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী, বর্তমান মহাসচিব জুনায়েদ বাবুনগরী এবং ঢাকা মহানগর আমীর মাওলানা নূর হোসাইন কাসেমী।

তবে চট্টগ্রাম অঞ্চলের হেফাজত কর্মীরা মনে করছেন, আল্লামা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী বা আল্লামা জুনায়েদ বাবুনগরী দুজনের যে কোনো একজনই হবেন হেফাজতের পরবর্তী আমীর। হাটহাজারী মাদ্রাসার সহকারী পরিচালক শেখ আহমদও বিবেচনায় আসতে পারেন বলে শোনা যাচ্ছে।

এছাড়া কে হবেন কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড এবং সরকার স্বীকৃত সম্মিলিত বোর্ডের প্রধান- এ নিয়েও আলোচনা চলছে জোরেশোরেই। একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, গঠনতান্ত্রিকভাবে বেফাকের চেয়ারম্যান যিনি হবেন, তিনিই আল-হাইআতুল উলয়ার চেয়ারম্যান হওয়ার কথা।

তবে বেফাকের বর্তমান মহাসচিব ও ঢাকার ফরিদাবাদ মাদ্রাসার পরিচালক মাওলানা আবদুল কুদ্দুছের সম্ভাবনা এই তালিকায় দেখছেন না অনেকে। আপাতত আলোচনায় যাদের নাম আসছে তারা হলেন- বেফাকের বর্তমান সহ-সভাপতি নূর হোসাইন কাসেমী ও নুরুল ইসলাম, ঢাকার যাত্রাবাড়ী মাদ্রাসার প্রিন্সিপাল মাওলানা মাহমুদুল হাসানসহ আরও কয়েকজন।

কিছু সূত্র জানিয়েছে, খুব শিগগিরই বেফাক ও হাইয়া কর্তৃপক্ষ এসব বিষয়ের সমাধানে বসবে।

স্বাস্থ্য খাতের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ ২০ জনের সম্পদের বিবরণী চেয়ে দুদকের নোটিশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জ্ঞাত আয় বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের গাড়ি চালক আব্দুল মালেক ও তার স্ত্রীসহ ২০ জনের সম্পদের হিসাব বিবরণী দাখিলের নির্দেশ দিয়েছে দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)। এদের মধ্যে স্বাস্থ্য খাতের ১২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারী রয়েছেন। দুদকের পরিচালক (জনসংযোগ) প্রণব কুমার ভট্টাচার্য্য সোমবার জানান, জ্ঞাত আয়বহির্ভূত সম্পদ অর্জনের অভিযোগে স্বাস্থ্য খাতের ১২ জন কর্মকর্তা-কর্মচারীসহ ২০ জনের সম্পদের হিসাব বিবরণী চেয়ে নোটিশ দিয়েছে দুদক।

তিনি জানান, পরিচালক সৈয়দ ইকবাল হোসেনের স্বাক্ষরিত নোটিশ গত ১৫ সেপ্টেম্বর পাঠানো হয়েছে। নোটিশে বলা হয়েছে, `দুর্নীতি দমন কমিশন আইন-২০০৪` এর ধারা ২৬ এর উপ-ধারা (১) দ্বারা অর্পিত ক্ষমতাবলে তাদের নিজের এবং তাদের ওপর নির্ভরশীল ব্যক্তিদের স্বনামে অথবা বেনামে অর্জিত যাবতীয় স্থাবর অথবা অস্থাবর সম্পত্তি , দায়-দেনা , আয়ের উৎস ও অর্জনের বিস্তারিত বিবরণী এই আদেশ প্রাপ্তির ২১ কার্যদিবসের মধ্যে নির্ধারিত ছকে দাখিল করার নির্দেশ দেয়া হলো।

নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পদের বিবরণী দাখিল করতে ব্যর্থ হলে, অথবা মিথ্যা বিবরণী দাখিল করলে দুদক আইনের ২৬ (২) উপ-ধারায় তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের যেসব কর্মকর্তা ও করমচারীর বিরুদ্ধে সম্পদের হিসেব বিবরণী চেয়ে নোটিশ দেয়া হয়েছে তারা হলেন, অধিদফতরের ইপিআই বিভাগের হিসাব রক্ষণ কর্মকর্তা মো. মজিবুল হক মুন্সি, তার স্ত্রী মিসেস রিফাত আক্তার, ইপিআই বিভাগের ডাটা অ্যান্ট্রি অপারেটর তোফায়েল আহমেদ ভূইয়া, তার স্ত্রী খাদিজা আক্তার, গাড়ি চালক মো. আব্দুল মালেক, তার স্ত্রী নার্গিস বেগম, গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. ওবাইদুর রহমান, তার স্ত্রী বিলকিচ রহমান, ফরিদপুর মেডিকেল কলেজের স্টাফ নার্স রেহেনা আক্তার, রংপুর মেডিকেল কলেজের হিসাব রক্ষক ইমদাদুল হক, তার স্ত্রী উম্মে রুমান ফেন্সী, জাতীয় হৃদরোগ ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের প্রশাসনিক কর্মকর্তা মো. মাহমুদুজ্জামান, তার স্ত্রী সাবিনা ইয়াছমিন, গাজীপুর শহীদ তাজউদ্দিন মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের স্টোর অফিসার মো. নাজিম উদ্দিন, তার স্ত্রী ফিরোজা বেগম, স্বাস্থ্য অধিদফতরের অফিস সহকারী (হাসপাতাল ও ক্লিনিক) কামরুল হাসান, তার স্ত্রী ডা. উম্মে হাবিবা, শেখ সায়েরা খাতুন মেডিকেল কলেজের স্টেনোগ্রাফার কাম কম্পিউটার অপারেটর মো. সাইফুল ইসলাম, সাবেক সহকারি প্রধান (নন মেডিকেল) বর্তমানে সহকারি প্রধান পরিসংখ্যান কর্মকর্তা,পরিচালক (স্বাস্থ্য) এর কার্যালয়, বরিশাল বিভাগ মীর রায়হান আলী এবং রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের হিসাব রক্ষক মো. আনোয়ার হোসেন।

২০১৯ সাল থেকে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীর অবৈধ সম্পদের বিষয়ে অনুসন্ধান করছে দুদক। এছাড়াও ইতোমধ্যে কয়েকজনের বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। বাসস

অনুমতি মিলেছে এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বেশ কয়েক মাস ধরে জটিলতার পর অবশেষে করোনাভাইরাসের জন্য সরকারি স্বাস্থ্যসেবা কেন্দ্রগুলোতে এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টিংয়ের অনুমতি দিয়েছে সরকার।

২১ সেপ্টেম্বর স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের উপসচিব বিলকিস বেগম স্বাক্ষরিত এক আদেশে এ অনুমতি দেয়া হয়েছে। তবে আদেশে তারিখ উল্লেখ করা হয়েছে ১৭ সেপ্টেম্বর।

আদেশে বলা হয়, সারা দেশে এন্টিজেন টেস্টের চাহিদার পরিপ্রেক্ষিতে অতি স্বল্প সময়ে কোভিড-১৯ শনাক্তকরণের জন্য মহাপরিচালক স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রস্তাবনা এবং বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার গাইডলাইন অনুসরণপূর্বক দেশের সব সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, সরকারি পিসিআর ল্যাব এবং সকল স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউটে এন্টিজেনভিত্তিক টেস্ট চালুর অনুমতি নির্দেশক্রমে প্রদান করা হলো। তবে শর্ত থাকে যে, যাচাই-বাছাইয়ের নিমিত্তে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রক্রিয়াধীন কোভিড-১৯ ল্যাব সম্প্রসারণ নীতিমালাটি চূড়ান্ত হলে তা যথাযথভাবে অনুসরণ করতে হবে।

এর আগে গত ৫ জুলাই এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের অনুমোদন দেয়ার বিষয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে অনুরোধ করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক। করোনাভাইরাস সম্পর্কিত জাতীয় পরামর্শক কমিটিও এন্টিজেন র‌্যাপিড টেস্টের অনুমোদন দেয়ার বিষয়ে একাধিকবার সুপারিশ জানিয়েছে।

নুরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর শাহবাগ থেকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক সহ-সভাপতি (ভিপি) নুরুল হক নুরকে আটকের ঘণ্টাখানেকের মধ্যেই ছেড়ে দেয়া হয়েছে। ডিবির যুগ্ম কমিশনার মাহবুব আলম গণমাধ্যমকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, `নুরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে`।

এর আগে সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) সন্ধ্যা সাড়ে ৮টার দিকে তাকে আটক করা হয়। ধর্ষণের মামলার পাশাপাশি পুলিশের ওপর হামলার অভিযোগেও তাকে আটক করা হয়। এরপর তাকে নেয়া হয় ডিবি কার্যালয়ে। এর কিছুক্ষণ পরই তাকে ছেড়ে দেয়া হয়।

নুরসহ ছয়জনের বিরুদ্ধে লালবাগ থানায় ঢাবি ছাত্রীর করা ধর্ষণের মামলার প্রতিবাদে রাজু ভাস্কর্যে সোমবার বিকেলে বিক্ষোভ করে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ। সেখানেই পুলিশের ওপর হামলা করা হয়েছে বলে অভিযোগ আনা হয়।

এর আগে রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থী লালবাগ থানায় এ মামলাটি করেন। মামলায় মোট ছয়জনকে আসামি করা হয়েছে। তাদের মধ্যে ধর্ষণে সহযোগী হিসেবে নুরুল হক নুরের নাম উল্লেখ করা হয়েছে।

এদিকে এ মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৭ অক্টোবর দিন ধার্য করেছেন আদালত। সোমবার ঢাকা মহানগর হাকিম বেগম ইয়াসমিন আরা মামলার এজাহার গ্রহণ করে প্রতিবেদন দাখিলের জন্য এ দিন ধার্য করেন।

মামলার প্রধান আসামি করা হয়েছে বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের আহ্বায়ক হাসান আল মামুনকে। ধর্ষণের স্থান হিসেবে লালবাগ থানার নবাবগঞ্জ বড় মসজিদ রোডে হাসান আল মামুনের বাসার কথা উল্লেখ করা হয়েছে।

বাদী শিক্ষার্থী ঢাবির বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব হলে থাকেন।

নুর ও মামুন ছাড়া মামলার অন্য আসামিরা হলেন- বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক নাজমুল হাসান সোহাগ, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদের যুগ্ম-আহ্বায়ক (২) মো. সাইফুল ইসলাম, ছাত্র অধিকার পরিষদের সহ-সভাপতি মো. নাজমুল হুদা এবং ঢাবি শিক্ষার্থী আবদুল্লাহ হিল বাকি।

মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মার্কেট-শপিংমলে অভিযান যেকোনো সময়
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে যেকোনো সময় মার্কেট-শপিংমলে অভিযান পরিচালনার কথা জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব খন্দকার আনোয়ারুল ইসলাম। তিনি বলেন, রাষ্ট্রীয় নির্দেশনা থাকলেও মাস্ক পরতে জনসাধারণের অনীহা থাকায় যেকোনো সময় মার্কেট-শপিংমলে অভিযান চালানোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

সোমবার ভার্চুয়াল মন্ত্রিসভার বৈঠকে করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভ নিয়ে আলোচনা হয়েছে বলেও জানিয়েছেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব। এতে সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গণভবন থেকে প্রধানমন্ত্রী ও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রীরা অংশ নেন।

বৈঠক শেষে সচিবালয়ে ব্রিফিংয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, অনেক দেশেই, বিশেষ করে শীত প্রধান দেশে দ্বিতীয় দফায় সংক্রমণ হচ্ছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, নভেম্বরের শেষ থেকে সেকেন্ড ওয়েভ আসে কিনা, সেই প্রিপারেশন রাখতে হবে। ম্যাসিভ প্রিপারেশন যেন থাকে।

সরকারপ্রধানও করোনাভাইরাসের দ্বিতীয় ওয়েভ নিয়ে গুরুত্ব দিচ্ছেন জানিয়ে মন্ত্রিপরিষদ সচিব জানান, প্রধানমন্ত্রীও বলেছেন- আমাদের যেন প্রস্তুতি থাকে।

‘প্রধানমন্ত্রী বলে দিয়েছেন সেকেন্ড ওয়েভ যদি আসে, আমাদের অভিজ্ঞতা কাজে লাগিয়ে যদি সচেতন হই, তাহলে আমাদের জন্য এটা সুবিধা হবে। পাশাপাশি উনি নির্দেশনা দিয়েছেন অক্টোবরের শেষ বা নভেম্বরের মাঝামাঝি থেকে ঠাণ্ডার প্রকোপটা বাড়তে পারে। সেক্ষেত্রে আমাদের লোকজনের নিউমোনিয়া, সর্দি, জ্বর বা অ্যাজমাটিক সমস্যা থাকে, সবাইকে প্রস্তুতি নিতে বলেছেন। এসবে আক্রান্ত হলে যেন চিকিৎসা করান। কোভিডের সেকেন্ড ওয়েভ এলে মাঠ পর্যায়ে সেটাকে কীভাবে মোকাবিলা করতে হবে সেটার জন্য এখন থেকেই প্রস্তুতি নিতে বলেছেন।

ধর্ষণ মামলা: মেয়েটির সঙ্গে মাত্র একবার কথা হয়েছিল; ভিপি নুর
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক (ডাকসু) ভিপি নুরুল হক নূরের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা হয়েছে। এ বিষয়ে সোমবার সময় নিউজকে ভিপি নুর জানান, চরিত্র হননের জন্য আমার বিরুদ্ধে এমন মামলা হয়েছে। এটা সরকার ও গোয়েন্দা সংস্থার কারসাজি। আমাদের কার্যক্রম বাধাগ্রস্ত করতে এই মামলা। মিথ্যা ভিত্তিহীন মামলা।

নূর বলেন, এগুলো আসলে আমাকে হেয় এবং বিতর্কিত করার জন্য। এটা তাদেরই একটা গোয়েন্দা সংস্থার কারসাজি। এই মেয়ের সাথে আমার মাত্র একবার কথা হয়েছে, সেখানে কিভাবে সম্ভব? এখানে ধর্ষণ মামলায় আমার নাম কেন আসবে? আসলে ভিপি নূরকে এরকম একটা কিছুতে প্যাঁচালে এটার একটা ভ্যালু আছে। মিডিয়াতে একটা শিরোনাম হবে এই জন্যি। পুরোটাই রাজনীতি কর্মকাণ্ড বন্ধ করার জন্য করা হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) এক শিক্ষার্থী বাদী হয়ে রাজধানীর লালবাগ থানায় মামলাটি করেছেন। মামলায় নূরসহ একাধিক জনকে আসামি করা হয়েছে।

লালবাগ থানার ওসি সময়নিউজকে বিষয়টি নিশ্চিত করে জানান, রোববার (২০ সেপ্টেম্বর) রাতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের এক শিক্ষার্থী নূরের বিরুদ্ধে একটি ধর্ষণ মামলা করেছেন। আমরা বিষয়টি তদন্ত করছি।

নূরের পরিচয়:
নুরুল হক নুর বরিশাল বিভাগের পটুয়াখালী জেলার গলাচিপা উপজেলার বৃহত্তর চর কাজল ইউনিয়নে (বর্তমান চর বিশ্বাস ইউনিয়নে) জন্মগ্রহণ করেন। তার বাবা ইদ্রিস হাওলাদার একজন ব্যবসায়ী এবং সাবেক ইউনিয়ন পরিষদ সদস্য এবং মায়ের নাম নিলুফা বেগম। তিন ভাই ও পাঁচ বোনের মধ্যে নূর দ্বিতীয়।

নূরের লেখাপড়া:
নূর পটুয়াখালীর চর বিশ্বাস জনতা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে সপ্তম শ্রেণি পর্যন্ত পড়াশুনা করেন। এরপর গাজীপুরের কালিয়াকৈর গোলাম নবী মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বিজ্ঞান বিভাগ থেকে ২০১০ সালে মাধ্যমিক এবং ঢাকার উত্তরা হাই স্কুল অ্যান্ড কলেজ থেকে ২০১২ সালে উচ্চ মাধ্যমিক সম্পন্ন করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগে ২০১৩–১৪ শিক্ষাবর্ষে ভর্তি হন।

নূরের ছাত্র আন্দোলন:
নুরুল হক নূর বাংলাদেশের অন্যতম আলোচিত ছাত্র আন্দোলন কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অন্যতম যুগ্ম-আহ্বায়ক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

নূরের ছাত্র রাজনীতি:
এর আগে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্রলীগের মুহসিন হলের উপ-মানব উন্নয়ন বিষয়ক সম্পাদক ছিলেন। স্কুল জীবনে তিনি ছাত্রলীগের স্কুল কমিটির দপ্তর সম্পাদক ছিলেন। এছাড়াও তিনি বিতর্ক, অভিনয়সহ বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গে যুক্ত।

ভিপি নূর:
২০১৮ সালের কোটা সংস্কার আন্দোলনের সময় বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের অন্যতম যুগ্ম-আহ্বায়ক হিসেবে তিনি আলোচনায় আসেন। তিনি ২০১৯ সালের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হন।

জুন ২০২০ সালে নুর তরুণদের নেতৃত্বে একটা নতুন রাজনৈতিক দল তৈরি করার ব্যাপারে প্রকাশ্যে ঘোষণা দেন। সূত্র: সময় সংবাদ

বিমানের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে সৌদি প্রবাসীদের বিক্ষোভ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলের পাশে সৌদি এয়ারলাইন্সের অফিসের সামনে রাস্তা অবরোধ করে বিক্ষোভ করেছেন টিকিট প্রত্যাশীরা। পরে, রাস্তা থেকে উঠে গেলেও, সরকারের সহযোগিতা চেয়েছেন ভুক্তভোগীরা।

অনিশ্চয়তা নিয়ে সকাল থেকেই টিকিটের অপেক্ষায় ছিলেন হাজারো মানুষ। বেশিরভাগেরই এই মাসে শেষ হচ্ছে ভিসার মেয়াদ। অনেকের আবার সময় মতো সৌদি না যেতে পারলে চাকরিই চলে যাবে।

তাই নিরুপায় হয়েই টিকিটের জন্য হাজির হয়েছেন তারা। অভিযোগ রয়েছে সমস্যা সমাধানে মিলছে না, ঢাকায় সৌদি দূতাবাসের সহযোগিতা।

গত ১৭ সেপ্টেম্বর, শর্তসাপেক্ষে বাণিজ্যিক ফ্লাইট পরিচালনার ঘোষণা দিলেও পরে, শুধু সৌদি এয়ারলাইন্স ছাড়া বাকিদের ফ্লাইটের অনুমতি দেয়নি সৌদি সিভিল এভিয়েশন কর্তৃপক্ষ।

পাঁচ কোম্পানির ভ্যাকসিন নিয়ে আলোচনা চলছে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব আব্দুল মান্নান বলেছেন, স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতি করে পার পাওয়ার আর কোনো সুযোগ নেই। ইতোমধ্যেই স্বাস্থ্যখাতের দুর্নীতি অনেকটাই কমিয়ে আনা হয়েছে। আরো যেসব জায়গায় আছে সেগুলোকেও নজরদারির মধ্যে রাখা হয়েছে।

সুতরাং স্বাস্থ্যখাতে দুর্নীতি করে আর কেউ পার পাবে না।

সোমবার (২১ সেপ্টেম্বর) দুপুরে সচিবালয়ে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে কোভিড-১৯ এর দ্বিতীয় পর্যায়ে দেশের সার্বিক প্রস্তুতি প্রসঙ্গে একটি বিশেষ সভা শেষে প্রেস ব্রিফিংয়ে সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন তিনি।

ভ্যাকসিন টিকা আমদানি প্রসঙ্গে স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব জানান, বিশ্বে বর্তমানে ৯ টি কোম্পানি টিকা আবিষ্কারের শেষ পর্যায়ে রয়েছে। অন্তত ৫ টি কোম্পানির সাথে বাংলাদেশের আলোচনা চলছে। চীনের সাইনোভ্যাক যেকোনো সময়ে ট্রায়াল শুরু করতে পারে। রাশিয়া বাংলাদেশেই তাদের ভ্যাকসিন উৎপাদন নিয়ে কাজ করতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। ভারত, রাশিয়ার ভ্যাকসিনের পাশাপাশি ফ্রান্স ও বেলজিয়ামের ভ্যাকসিন পাওয়া নিয়েই কাজ চলছে।

ফ্রান্স ও বেলজিয়াম ইতোমধ্যেই তাদের ভ্যাকসিন ট্রায়ালের জন্য বাংলাদেশ সরকারের কাছে আবেদন করেছে। ভ্যাকসিন আগে পেতে সরকারের আর্থিকসহ সব রকম প্রস্তুতি নেয়া রয়েছে বলেও জানান সচিব আব্দুল মান্নান।

বিশ্বের যেকোনো দেশের সাধারণ মানুষের মাঝে ভ্যাকসিন প্রয়োগ করা শুরু হলে বাংলাদেশেও সেই ভ্যাকসিন একইসাথে প্রয়োগ শুরু হবে বলেও জানান তিনি।

ভ্যাকসিন আমদানি করলে প্রথম পর্যায়ে কি পরিমাণ আমদানি করা হতে পারে এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে সচিব জানান, প্রাথমিকভাবে অন্তত আড়াই থেকে তিন মিলিয়ন ভ্যাকসিন আমদানি করার পরিকল্পনা সরকারের রয়েছে। এই ভ্যাকসিন প্রথমে ফ্রন্ট লাইনার ও বয়স্ক ব্যক্তিদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে দেয়া হবে। এরপর ধীরে ধীরে তা সাধারণ জনগণের শরীরেও প্রয়োগ করার উদ্যোগ নেয়া হবে।

একটি নক্ষত্রের চির বিদায় লাখো মানুষের ঢল ও অজানা জীবনী
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী ১৯৪৬ সালে চট্টগ্রামে ফিরে আসেন এবং আল-জামিয়াতুল আহলিয়া দারুল উলুম মুঈনুল ইসলামে শিক্ষকতার মাধ্যমে কর্মজীবন শুরু করেন। ১৯৮৬ সালে মাদ্রাসাটির মজলিশে শুরা তাকে মহাপরিচালক বা মুহতামিম নিযুক্ত করে। পরবর্তীতে তিনি মাদ্রাসাটির শায়খুল হাদিসের দায়িত্ব পান। ২০০৮ সালে তিনি কওমি মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড – বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়ার চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন। ২০১০ সালের ১৯ জানুয়ারি হাটহাজারী মাদরাসা মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত এক সম্মেলনে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ গঠন করা হলে আহমদ শফীকে এর আমির মনোনীত করা হয়।

আল্লামা শাহ আহমদ শফী হেফাজতে ইসলামের ১৩ দফা আন্দোলন এবং কওমি মাদ্রাসাগুলোর সরকারি স্বীকৃতির দাবিতে অনুষ্ঠিত আন্দোলনের নেতৃত্ব দেন। এর প্রেক্ষিতে ২০১৭ সালে সরকার কওমি মাদরাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিসের সনদকে মাস্টার্স ডিগ্রির সমমান প্রদান করলে আইন অনুসারে কওমি মাদরাসার ৬টি বোর্ডের সমন্বয়ে আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিআতিল কওমিয়া বাংলাদেশ গঠন করা হয়। এ সংস্থার নেতৃত্বও আহমদ শফীর উপর ন্যস্ত করা হয়।
২০২০ সালের ১৬ সেপ্টেম্বর আহমদ শফীর পদত্যাগ এবং তার ছেলে আনাস মাদানীকে মাদ্রাসা থেকে বহিষ্কারসহ ৫ দফা দাবি নিয়ে দারুল উলুম হাটহাজারীর ছাত্ররা আন্দোলন শুরু করে। দুপুর থেকে এ আন্দোলন শুরু হয়, রাত্রে আনাস মাদানীকে বহিষ্কার করা হয় এবং পরদিন আহমদ শফী স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেন। স্বাস্থ্যবিধি লঙ্ঘনের কারণ দেখিয়ে সরকার অনির্দিষ্টকালের জন্য হাটহাজারী মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা করে। ছাত্ররা সরকারের এ ঘোষণা প্রত্যাখ্যান করে আন্দোলন চালিয়ে যায়, আহমদ শফী পদত্যাগ করলে আন্দোলন সাময়িকভাবে স্থগিত ঘোষণা করা হয়।
ব্যক্তিগত জীবন-: আহমদ শফী ২ ছেলে ও ৩ মেয়ের জনক। বড় ছেলে মোহাম্মদ ইউসুফ পাখিয়ারটিলা কওমি মাদ্রাসার পরিচালক এবং ছোট ছেলে আনাস মাদানি হাটহাজারী মাদরাসার সাবেক সহকারী শিক্ষাসচিব এবং হেফাজতে ইসলামের প্রচার সম্পাদক।
দৃষ্টিভঙ্গি: শফী ২০০৯ সালে আজিজুল হক ও অন্যান্য বয়োজ্যেষ্ঠ ইসলামী ব্যক্তিদের সাথে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতি একটি যৌথ বিবৃতি প্রদান করেন যেখানে, ইসলামের নামে সন্ত্রাস ও জঙ্গি কার্যক্রমের নিন্দা জ্ঞাপন করা হয়।
সমালোচনা : ২০১৩ সালে চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে আহমেদ শফীর দেওয়া একটি বক্তৃতাকে অত্যন্ত নারী বিদ্বেষী বলে দাবী করা হয়। বক্তৃতায় তিনি নারীদের চতুর্থ শ্রেণির বেশি পড়াতে নিষেধ করেন, সমালোচনা করেন সহশিক্ষার। নারীদের চাকরি না করে বাড়িতে রাখার পরামর্শ দেন তিনি, ঐ বক্তৃতায় তিনি বলেছিলেন: "আপনি কেন আপনার মেয়েকে গার্মেন্টস ফ্যাক্টরিতে কাজ করতে পাঠাচ্ছেন?... সে ফজরের পর ৭/৮টায় কাজে যায় আর রাত ৮/১০/১২টায়ও ফিরে আসেনা... আপনি তো জানেননা সে কোন পুরুষের সাথে মেলামেশা করছে। আপনি তো জানেননা সে কি পরিমাণ যিনায় লিপ্ত হচ্ছে।
বক্তব্যটি নারী অধিকার কর্মীদের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভ সৃষ্টি করে। তারা তাকে জেলে পাঠানোর দাবী তোলে।বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তার এই বক্তব্যকে "নোংরা" এবং "জঘন্য" বলে উল্লেখ করেন।[২১]

মৃত্যু: ১৮ সেপ্টেম্বর ২০২০ সালে ১০৩ বছর বয়সে শাহ আহমদ শফী বার্ধক্যজনিত কারণে ঢাকার আজগর আলী হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন। তিনি দীর্ঘদিন যাবৎ বার্ধক্যজনিত দুর্বলতার পাশাপাশি ডায়াবেটিস, উচ্চ রক্তচাপ ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিলেন। পরদিন হাটহাজারী মাদ্রাসায় তার জানাযা অনুষ্ঠিত হয়। জানাযায় ইমামতি করেন তার বড় ছেলে ইউছুফ মাদানি। স্থান সংকুলান না হওয়ায় তার লাশ ডাকবাংলোতে নিয়ে আসা হয়। পুরো হাটহাজারীর সব প্রবেশ পথে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দিতে প্রশাসন বাধ্য হয়। ৪ উপজেলায় ১০ প্লাটুন বিজিবি, র্যাব ও পুলিশ এবং ৭ জন ম্যাজিস্ট্রেট মোতায়েন করা হয়। জানাযা শেষে তাকে হাটহাজারী মাদ্রাসা ক্যাম্পাসের অভ্যন্তরে বায়তুল আতিক জামে মসজিদের সামনের কবরস্থানে দাফন করা হয়। মিডিযা গুলো সংবাদ প্রচার করা হয়েছে: বাংলাদেশের স্মরণকালের সর্ববৃহৎ জানাযা বলে অবহিত করে।
গ্রন্থাবলী/টীকা/তথ্যসূত্র: "হাটহাজারী মাদ্রাসা ও হেফাজতে ইসলাম- একটি প্রস্তাবনা"। সারাবাংলা। ২০২০-০৬-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৭। "আহমদ শফী ফের বেফাকের সভাপতি। বাংলা ট্রিবিউন: সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৮-০৭। হেফাজত আমির আল্লামা আহমদ শফী আর নেই"।দৈনিক এশিয়া বাণী সংগ্রহের তারিখ: ২০২০-০৯-১৮।"স্বেচ্ছায় পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন আল্লামা আহমদ শফী"। যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭।"ইসলামি সভ্যতা বিকাশে আল্লামা শফী সারাজীবন কাজ করেছেন: আ`লীগ"। যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৮।"আহমদ শফীর বর্ণাঢ্য জীবন"। বিভিন্ন প্রিন্ট ও ইলেক্ট্রনিক মিডিয়া, অনলাইন। ২০২০-০৯-১৮। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৮।"হেফাজত আমির আল্লামা শফীর ইন্তেকাল"। দৈনিক নয়া দিগন্ত। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৮। "আল্লামা শফীর মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রীর শোক | সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৮।

"আল্লামা শফীর জীবনী"। সময় টিভি সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৮।
"Qawmi degree recognised"। The Daily Star (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-০৪-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১১-২৬।"হাটহাজারী মাদ্রাসা অনির্দিষ্টকালের জন্য বন্ধ"। বিবিসি বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭।
"হাটহাজারী মাদ্রাসায় পরিস্থিতি থমথমে, পুলিশ মোতায়েন"। বিবিসি বাংলা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭।

"স্বেচ্ছায় পদ থেকে সরে দাঁড়ালেন আল্লামা আহমদ শফী"। দৈনিক এশিয়া বাণী ও যুগান্তর। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭। "অবশেষে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করলেন আল্লামা শাহ আহমদ শফী"। ২০২০-০৯-১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭। "শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে শফী পুত্র আনাস মাদানীকে অব্যাহতি | সারাদেশ"। ইত্তেফাক। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭।

"সরে দাঁড়ালেন আল্লামা শফী, থমথমে হাটহাজারী"। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-১৭। প্রতিবেদক, নিজস্ব। "শাহ আহমদ শফী আর নেই"। প্রথম আলো- দৈনিক এশিয়া বাণীর সংগ্রহের তারিখ ২০২০- ডেইলি ষ্টার, (ইংরেজি ভাষায়)।

পরিবেশবান্ধব উন্নত বাংলাদেশ গড়তে ইঞ্জিনিয়াদের আরো অবদান রাখতে হবে : নসরুল হামিদ বিপু
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান: বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু বলেছেন, পরিবেশবান্ধব উন্নত বাংলাদেশ গড়তে দেশিয় ইঞ্জিনিয়ারদের আরো অবদান রাখতে হবে। গ্রাহক সেবা দেওয়াই ব্রত থাকা প্রয়োজন। গ্রাহক সন্তুষ্টি নিশ্চিত করতে সর্বদা একাগ্রচিত্তে কাজ করতে হবে।

প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ বিপু আজ ২১ সেপ্টেম্বর ২০২০, সোমবার অনলাইনে বাংলাদেশ পাওয়ার ম্যানেজমন্টে ইনস্টিটিউট ( বিপিএমআই ) আয়োজিত “ডেসকো-তে নব-নিযুক্ত প্রকৌশলীদের ৫০ কর্ম দিবসব্যাপী বুনিয়াদী প্রশিক্ষণ”-এর সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।

ফি আদায়ে বেপরোয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর ম্যাপল লিফ স্কুলে নবম শ্রেণিতে টিউশন ফি ৮ হাজার ৫৫০ টাকা। করোনা উপলক্ষে প্রতিষ্ঠানটি ৫০ টাকা ছাড় দিয়েছে। অন্যদিকে টিকাটুলির শেরেবাংলা মহিলা মহাবিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে টিফিন ফিও আদায় করা হয়েছে। মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল ও কলেজে টিউশনের পাশাপাশি অন্যান্য খাতের ফি আদায় করা হয়েছে।

উদয়ন উচ্চ মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে শুধু বিলম্ব ফি মাফ করে অন্যান্য ফি শতভাগ আদায় করা হচ্ছে। আবাসিক স্কুল-কলেজগুলো শিক্ষার্থীদের থাকা-খাওয়ার ফিও আদায় করছে। অথচ সব শিক্ষার্থী এখন বাসায় অবস্থান করছে।

করোনাকালে এভাবে ফি আদায়ের কারণে নাভিশ্বাস উঠেছে অভিভাবকদের। মন্ত্রণালয়ের নির্লিপ্ততায় হতাশ তারা। দেশে প্রাথমিক থেকে উচ্চ মাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত শিক্ষার্থী সংখ্যা প্রায় ৩ কোটি।

অনুসন্ধানে জানা গেছে, রাজধানীসহ দেশের অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের চিত্র প্রায় একইরকম। ফি আদায়ে অনেকটাই রুদ্রমূর্তিতে আবির্ভূত হয়েছে প্রতিষ্ঠানগুলো। এ ক্ষেত্রে নানা কৌশলের আশ্রয় নেয়া হয়েছে। কোনো প্রতিষ্ঠান ইউটিউবে পাঠ তুলে (আপলোড) দিচ্ছে।

কোনো প্রতিষ্ঠান মেসেঞ্জারে বা হোয়াটসঅ্যাপে আর কোনোটি জুমে পাঠদানের ব্যবস্থা করেছে। এছাড়া ফেসবুকে শিক্ষকের পাঠদানের ভিডিও তুলে দেয়া হচ্ছে। এখানেই শেষ নয়, কিছু প্রতিষ্ঠান অনলাইনে পরীক্ষাও নিচ্ছে।

গোটা অর্থ পরিশোধ না করলে এ পরীক্ষায় শিক্ষার্থীদের যুক্ত করা হচ্ছে না। অভিভাবকরা বলছেন, করোনায় স্কুল-মাদ্রাসা ও কলেজ বন্ধ থাকায় পানি, বিদ্যুৎ, আপ্যায়নসহ বিভিন্ন খাতে ব্যয় বন্ধ আছে। শুধু শিক্ষকদের বেতন-ভাতা দেয়া হচ্ছে। কোনো কোনো প্রতিষ্ঠান আবার টিউশন ফি অনাদায়ি দেখিয়ে শিক্ষক-কর্মচারীদের আংশিক বেতন-ভাতা দিয়েছে।

এমন পরিস্থিতিতে এভাবে ফি আদায় অনৈতিক এবং অবৈধ হিসেবে উল্লেখ করেন তারা। পাশাপাশি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, সরকার এ ব্যাপারে নির্লিপ্ত। শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে সুনির্দিষ্ট কোনো নির্দেশনা না দেয়ায় প্রতিষ্ঠানগুলো অভিভাবকদের এক ধরনের শোষণ করছে।

এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, ইতিপূর্বে অভিভাবক এবং শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান উভয়পক্ষকে এ ব্যাপারে মানবিক হওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী। আমাদের প্রত্যাশা ছিল উভয়পক্ষ মানবিক হবে। অভিভাবকরা শিক্ষকের বেতন-ভাতা অব্যাহত রাখার স্বার্থে প্রয়োজনীয় ফি পরিশোধ করবেন।

আর টিফিন বা হোস্টেল চার্জসহ যেসব খাতে শিক্ষার্থীকে সেবা দেয়া যায়নি সেই ফি প্রতিষ্ঠান নেবে না। কিন্তু সেবা না দেয়া খাতে ফি আদায় অনাকাক্সিক্ষত। এ ব্যাপারে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদফতরকে বলব। তবে উচ্চ আদালতে এ নিয়ে মামলা বিচারাধীন থাকায় উদ্যোগ নিয়েও আদেশ জারি করা যায়নি।

অভিভাবকদের অভিযোগ, অনলাইনে এসব পাঠ আর পরীক্ষার বেশির ভাগই নামমাত্র। শিক্ষার্থীরা এর থেকে তেমন একটা উপকৃত হচ্ছে না। এরপরও অনেক প্রতিষ্ঠান অনলাইন ক্লাস আর পরীক্ষাকে জিম্মি করার হাতিয়ার বানিয়েছে। পাওয়া অর্থ পরিশোধ না করলে ক্লাসের লিঙ্ক দেয়া হচ্ছে না। ফি আদায়ে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো অনেকটাই বেপরোয়া।

ম্যাপল লিফ স্কুলের অভিভাবক মিজানুর রহমান বলেন, প্রতিষ্ঠানের কাছে অভিভাবক ফি কমানোর আবেদন করলে হাস্যকরভাবে ৫০ টাকা কমিয়েছে। বিভিন্ন ধরনের সেবা শিক্ষার্থীরা না পেলেও সেসব খাতের ফি আদায় করা হচ্ছে। মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল ও কলেজের আশরাফুল ইসলাম নামে একজন অভিভাবক জানান, করোনাকালে যেখানে ফি মওকুফ করবে সেখানে প্রতিষ্ঠানটি আগাম ফি নিয়েছে।

পরিচ্ছন্নতা, লাইব্রেরিসহ বিভিন্ন খাতের ফি পর্যন্ত আদায় করেছে। একই প্রতিষ্ঠানের মুজিবুর রহমান নামে আরেক অভিভাবক বলেন, প্রতিষ্ঠানটি শ্রেণি শিক্ষকদের লেলিয়ে দিয়েছিল শিক্ষার্থীর পেছনে। অনলাইন ক্লাসের নামে কোমলমতি শিক্ষার্থীদের ফেসবুকের সঙ্গে পরিচিত করায়। একদিকে ফি আদায় করেছে, আরেকদিকে শিক্ষার্থীদের ফেসবুকে ভিড়িয়ে দেয়া হয়েছে।

অথচ ক্লাস না নিলেও অনলাইনে শিক্ষার্থীদের ‘ট্রমা’মুক্ত (মানসিক আঘাত) করার ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠান ভূমিকা রাখতে পারত। রাজধানীর দনিয়ায় একে হাইস্কুলের একাধিক অভিভাবক জানান, আগস্টে প্রতিষ্ঠানটিতে অনলাইনে পরীক্ষা নেয়া হয়। পরীক্ষায় প্রতিষ্ঠানের খরচ না থাকলেও ২০০ টাকা করে আদায় করা হয়। এছাড়া জুন পর্যন্ত টিউশন ফি বাধ্যতামূলক আদায় করা হয়।

ওয়ারীর শেরেবাংলা মহিলা মহাবিদ্যালয়ের অভিভাবক রেজা রায়হান বলেন, প্রতিষ্ঠান টিফিনের টাকাটা পর্যন্ত মওকুফ করেনি। তার দুই কন্যা দ্বিতীয় ও নবম শ্রেণিতে পড়ে। সম্পূর্ণ পাওনা আদায় করে নিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

শেরেবাংলা মহিলা মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ মনওয়ার হোসাইন বলেন, টিফিন ফি আদায়ের কথা সঠিক নয়। তারা এটা মওকুফ করেছেন। এছাড়া কেউ সমস্যা জানিয়ে আবেদন করলে সেটা বিবেচনা করা হয়েছে।

করোনাকালীন ৬ মাসের টিউশন ফি মওকুফের দাবিতে গত কয়েক মাস ধরে বাংলা ও ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলের অভিভাবকরা আন্দোলন করছেন। আগামীকাল ইংরেজি মাধ্যমের স্কুলের অভিভাবকদের একটি সংবাদ সম্মেলন আছে জাতীয় প্রেস ক্লাবে।

এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজকদের একজন শমি ইব্রাহিম বলেন, উচ্চ আদালতের এক আদেশে নির্দেশনা ছিল যে শিক্ষার্থীদের অনলাইন ক্লাস থেকে বিরত রাখা যাবে না। কিন্তু মাস্টারমাইন্ডসহ কিছু স্কুল ক্লাসের লিঙ্ক দিচ্ছে না। প্রায় শতভাগ ফি আদায় করছে। এ ঘটনার প্রতিবাদে তারা কর্মসূচিতে যাবেন।

অভিভাবক ঐক্য ফোরামের চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা জিয়াউল কবির দুলু বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে ১৭ মার্চ থেকে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ। মহামারী পরিস্থিতিতে বর্তমানে অনেক অভিভাবক আর্থিক সংকটে। কেউ চাকরিচ্যুত আবার কেউ ব্যবসা-বাণিজ্যে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। এমন পরিস্থিতিতে অভিভাবকদের পক্ষে টিউশন ফি ও অন্যান্য চার্জ পরিশোধ করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

এ পরিস্থিতিতে অনেকটা কসাইয়ের ভূমিকায় আবির্ভূত হয়েছে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান। অভিভাবকদের অসুবিধার কথা লিখিতভাবে মন্ত্রণালয়কে একাধিকবার জানিয়ে ৬ মাসের টিউশন ফি মওকুফে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা চেয়েও আমরা তা পাইনি। এটা খুবই হতাশাজনক। সূত্র: যুগান্তর

তথ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দের গভীর শোক প্রকাশ
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ এর আমীর ও চট্টগ্রামের দারুল উলূম মঈনুল ইসলাম হাটহাজারী মাদরাসার মহাপরিচালক আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীর ইন্তেকালে তথ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দের গভীর শোক প্রকাশ অব্যাহত রয়েছে। নেতৃবৃন্দ মরহুমের রূহের মাগফিরাত কামনা এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদন জ্ঞাপন করেছেন। নেতৃবৃন্দ বলেন, আল্লামা শাহ আহমদ শফী ছিলেন মুসলিম উম্মাহর অন্যতম রাহবার। আল্লামা শাহ আহমদ শফী নাস্তিক মুরতাদ ও বাতিল বিরোধী আন্দোলনের অগ্রনায়ক। কুরআন হাদিস প্রচার প্রসারে তাঁর অপরিসীম ত্যাগ ও অবদান জাতির কাছে চির স্মরণীয় হয়ে থাকবে। চট্টগ্রাম ব্যুরো জানায়, আল্লামা শাহ আহমদ শফীর ইন্তেকালে চট্টগ্রামে বিভিন্ন মহলের শোক অব্যাহত রয়েছে। ব্রাসেলস সফররত তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ এক শোকবার্তায় মরহুম আল্লামা শফীর রূহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবার ও গুণগ্রাহীদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান। ড. হাছান মাহমুদ তার শোকবার্তায় বলেন, আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী দীর্ঘ তিন দশকেরও বেশি দেশের কওমি মাদরাসাগুলোর মধ্যে প্রাচীন ও বৃহত্তম চট্টগ্রামের হাটহাজারী দারুল উলুম মুঈনুল ইসলাম মাদরাসার মহাপরিচালক হিসেবে কওমি মাদরাসাগুলোর নেতৃত্ব দিয়েছেন। দেশে ইসলামী শিক্ষার বিস্তার ও স্বীকৃতি অর্জনে তার ভূমিকা অনস্বীকার্য। আরো যারা শোক প্রকাশ করেছেন, তারা হচ্ছে, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ, শিক্ষা উপমন্ত্রী ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী, সিটি কর্পোরেশনের প্রশাসক খোরশেদ আলম সুজন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, চিটাগাং চেম্বার সভাপতি মাহাবুবুল আলম।

বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন: আল্লামা শাহ্ আহমদ শফির ইন্তেকালে গভীর শোক প্রকাশ করেছেন বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের আমীরে শরীয়ত মাওলানা আতাউল্লাহ ইবনে হাফেজ্জী হুজুর, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাজী মোঃ জাজাল উদ্দিন বকুলসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ। এক শোক বার্তায় নেতৃবৃন্দ বলেছেন, আল্লামা শাহ্ আহমদ শফী ছিলেন, ভারত স্বাধীনতা আন্দোলনের সিপাহসালার সায়্যেদ হুসাইন আহমাদ মাদানী (রহ.) এর অন্যতম খলিফা ও উপমহাদেশের প্রখ্যাত হাদিস বিশারদ। তিনি ছিলেন নাস্তিক মুরতাদ ও বাতিল বিরোধী আন্দোলনের অগ্রনায়ক। আল্লামা আহমদ শফী ছিলেন মুসলিম উম্মাহর একজন অন্যতম রাহবার ও ওলামায়ে কেরামের ঐক্যের প্রতীক। আল্লামা শাহ্ আহমদ শফীর ইন্তেকালে আরো যেসব নেতৃবৃন্দ গভীর শোক প্রকাশ এবং মরহুমের রূহের মাগফিরাত কামনা করেছেন তারা হচ্ছে, ঈমান আকিদা সংরক্ষণ কমিটি বাংলাদেশ আমীর আলহাজ হযরত মাওলানা অাব্দুল হামিদ পীর সাহেব মধুপুর (মুন্সিগঞ্জ) ইসলামী আন্দোলনের আমীর মুফতী সৈয়দ মুহাম্মদ রেজাউল করীম পীর সাহেব চরমোনাই, বাংলাদেশ মুসলিম লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট বদরুদ্দোজা সুজা, মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, নির্বাহী সভাপতি আব্দুল আজিজ হাওলাদার ও স্থায়ী কমিটির সদস্য আতিকুল ইসলাম, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলনের মহাসচিব মাওলানা হাবীবুল্লাহ মিয়াজী, নায়েবে আমীর মাওলানা মুজিবুর রহমান হামিদী, মুফতি সুলতান মহিউদ্দীন, মাওলানা সানাউল্লাহ হাফেজ্জী ও মাওলানা সাইফুল ইসলাম সুনামগঞ্জী, বাংলাদেশ ইসলামী ঐক্যজোট চেয়ারম্যান আলহাজ মিছবাহুর রহমান চৌধুরী, ইন্টারন্যাশনাল কওমি কাউন্সিলে চেয়ারম্যান মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানী ও মহা সচিব চৌধুরী হাসান মাহমুদ, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ এর প্রেসিডিয়াম সদস্য প্রিন্সিপাল মাওলানা সৈয়দ মোসাদ্দেক বিল্লাহ আল মাদানী, বাংলাদেশ খেলাফত আন্দোলন নারায়ণগঞ্জ জেলার আমীর আলহাজ আতিকুর রহমান নান্নু মুন্সি ও সাধারণ সম্পাদক মাওলানা মোহাম্মদ শেখ সাদী, ইসলামী ঐক্যজোটের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী ও মহাসচিব মুফতী ফয়জুল্লাহ,জাতীয় ইমাম সমাজ বাংলাদেশ এর সভাপতি ক্বারী আবুল হোসেন ও মহাসচিব মুফতী মিনহাজ উদ্দিন, বাতিল প্রতিরোধ পরিষদ বাংলাদেশ এর সভাপতি হাজী মোঃ জালাল উদ্দিন বকুল, ধর্মশুর হামিদিয়া মাদরাসার মোহতামীম আলহাজ্ব হযরত মাওলানা নুরুল হক হামিদী খলিফা পীরসাহেব মধুপুর (মুন্সিগঞ্জ)।জামিআতু ইব্রাহীম (আঃ) মাদ্রাসা ঝাউচর পশ্চিমপাড়া হেমায়েতপুর সাভার ঢাকার প্রতিষ্ঠাতা মোহতামীম আলহাজ্ব হযরত মূফতি শায়খুল হাদীস জাহিদুল ইসলাম, বাংলাদেশ জনসেবা আন্দোলনের চেয়ারম্যান মুফতী ফখরুল ইসলাম ও মহাসচিব মাওলানা ইয়ামিন হোসেন আজমী, ইসলামিক ফাউন্ডেশনের আওতাধীন বাংলাদেশ দারুল আরকাম শিক্ষক কল্যাণ সমিতির কেন্দ্রীয় সভাপতি মুফতী জয়নুল আবেদীন ও মহাসচিব জাকির হোসেন গোপালগঞ্জী, ইসলামী ঐক্যজোটের চেয়ারম্যান মাওলানা আব্দুর রকীব অ্যাডভোকেট ভাইস চেয়ারম্যান শাহ আলম চৌধুরী, মহাসচিব অধ্যাপক মাওলানা আবদুল করিম খান, মাওলানা শওকত আমিন, যুগ্ম মহাসচিব মাওলানা ইলিয়াস আতহারি ও জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের একাংশের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল্লামা শায়খ জিয়া উদ্দীন।

শীতে করোনার খারাপ পরিস্থিতির শঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সবার আন্তরিক চেষ্টায় দেশে করোনা মোকাবিলা করা সম্ভব হয়েছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, শীতে মহামারি পরিস্থিতি খারাপ হতে পারে। তাই আগাম প্রস্তুতি রাখতে হবে সবাইকে।

সকালে (২০ সেপ্টেম্বর) প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে অনুদানের চেক গ্রহণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

ভার্চুয়াল আয়োজনে অনুষ্ঠিত হয় এবারের অনুদান গ্রহণের কার্যক্রম। এতে গণভবন থেকে অনলাইনে যুক্ত ছিলেন শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মুখ্যসচিবের হাতে ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে চেক তুলে দেন দেশের বিভিন্ন ব্যক্তি-প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তারা।

এসময়, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকস- বিএবি`সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে মোট ১৬৫ কোটি ৬০ লাখ টাকার চেক দেয়া হয় প্রধানমন্ত্রীর ত্রাণ ও কল্যাণ তহবিলে। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো সুষ্ঠুভাবে পরিচালনায় কাজ করে যাচ্ছে সরকার।

আবরার হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ পিছিয়েছে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ পিছিয়েছে। আজ এ মামলার সাক্ষ্য গ্রহণ শুরু হওয়ার কথা ছিল। আবরারের বাবা এ মামলার বাদী বরকত উল্লাহ জন্ডিসে আক্রান্ত হওয়ায় সাক্ষ্য দেয়ার অবস্থায় নেই জানিয়ে সাক্ষ্য গ্রহণ পেছানোর আবেদন করেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীরা। এ আবেদনের প্রেক্ষিতে ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ এর বিচারক আবু জাফর মো. কামরুজ্জামান রাষ্ট্রপক্ষের সময় আবেদন মঞ্জুর করে আগামী ৫ অক্টোবর থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত সাক্ষ্য গ্রহণের তারিখ ধার্য করেন। রাষ্ট্রপক্ষের অন্যতম কৌসুলি আবু আবদুল্লাহ ভূইঁয়া এ কথা জানান।

এর আগে গত ১৫ সেপ্টেম্বর ২৫ আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠনের মাধ্যমে বিচার শুরুর আদেশ দেয়া হয়। একই সঙ্গে মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের জন্য আজ ২০ সেপ্টেম্বর দিন ধার্য করে আদেশ দিয়েছিল আদালত।

আসামিরা হলেন- বুয়েট ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক মেহেদী হাসান রাসেল, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মুহতামিম ফুয়াদ, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো. অনিক সরকার ওরফে অপু, সাংগঠনিক সম্পাদক মেহেদী হাসান রবিন ওরফে শান্ত, আইন বিষয়ক উপ-সম্পাদক অমিত সাহা, উপ-সমাজসেবা বিষয়ক সম্পাদক ইফতি মোশাররফ সকাল, ক্রীড়া সম্পাদক মো. মেফতাহুল ইসলাম জিয়ন, গ্রন্থ ও প্রকাশনা বিষয়ক সম্পাদক ইশতিয়াক আহম্মেদ মুন্না, কর্মী মুনতাসির আল জেমি, খন্দকার তাবাখখারুল ইসলাম তানভীর, মো. মুজাহিদুর রহমান, মো. মনিরুজ্জামান মনির, আকাশ হোসেন, হোসেন মোহাম্মদ তোহা, মো. মাজেদুর রহমান মাজেদ, শামীম বিল্লাহ, মুয়াজ ওরফে আবু হুরায়রা, এএসএম নাজমুস সাদাত, আবরারের রুমমেট মিজানুর রহমান, শামসুল আরেফিন রাফাত, মোর্শেদ অমত্য ইসলাম, এস এম মাহমুদ সেতু, মুহাম্মদ মোর্শেদ-উজ-জামান মন্ডল ওরফে জিসান, এহতেশামুল রাব্বি ওরফে তানিম ও মুজতবা রাফিদ। আসামিদের মধ্যে প্রথম ২২ জন কারাগারে রয়েছে। শেষের তিনজন পলাতক। আর ৮ জন আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।

গত বছর ৬ অক্টোবর রাতে বুয়েটের শেরে বাংলা হলে ছাত্রলীগের কিছু উচ্ছৃঙ্খল কর্মীর হাতে নির্দয় পিটুনির শিকার হয়ে মারা যান বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার ফাহাদ। এ ঘটনায় পরদিন নিহতের বাবা বরকত উল্লাহ বাদী হয়ে ১৯ জনকে আসামি করে চকবাজার থানায় একটি মামলা করেন। পরে নির্যাতনের সময়ের ভিডিও ফুটেজ ও পুলিশি তদন্তে এ হত্যাকান্ডে আরও ৬ জনের সম্পৃক্ততা পাওয়ায় তাদেরও এ মামলায় আসামি করা হয়।
তদন্তে অভিযুক্তদের ছাত্রলীগ ও বুয়েট থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। বাসস


   Page 1 of 208
     জাতীয়
১ অক্টোবর সৌদিতে বাণিজ্যিক ফ্লাইট চালু : ল্যান্ডিং পারমিশন মেলেনি
.............................................................................................
অ্যাটর্নি জেনারেলের শারীরিক অবস্থা সংকটাপন্ন
.............................................................................................
কে হচ্ছেন আল্লামা শফীর উত্তরসূরি
.............................................................................................
স্বাস্থ্য খাতের ১২ কর্মকর্তা-কর্মচারিসহ ২০ জনের সম্পদের বিবরণী চেয়ে দুদকের নোটিশ
.............................................................................................
অনুমতি মিলেছে এন্টিজেনভিত্তিক র‌্যাপিড টেস্টের
.............................................................................................
নুরকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে
.............................................................................................
মাস্ক পরা নিশ্চিত করতে মার্কেট-শপিংমলে অভিযান যেকোনো সময়
.............................................................................................
ধর্ষণ মামলা: মেয়েটির সঙ্গে মাত্র একবার কথা হয়েছিল; ভিপি নুর
.............................................................................................
বিমানের টিকিট বিক্রয় কেন্দ্রে সৌদি প্রবাসীদের বিক্ষোভ
.............................................................................................
পাঁচ কোম্পানির ভ্যাকসিন নিয়ে আলোচনা চলছে
.............................................................................................
একটি নক্ষত্রের চির বিদায় লাখো মানুষের ঢল ও অজানা জীবনী
.............................................................................................
পরিবেশবান্ধব উন্নত বাংলাদেশ গড়তে ইঞ্জিনিয়াদের আরো অবদান রাখতে হবে : নসরুল হামিদ বিপু
.............................................................................................
ফি আদায়ে বেপরোয়া শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
.............................................................................................
তথ্যমন্ত্রীসহ বিভিন্ন ইসলামী দলের নেতৃবৃন্দের গভীর শোক প্রকাশ
.............................................................................................
শীতে করোনার খারাপ পরিস্থিতির শঙ্কা প্রধানমন্ত্রীর
.............................................................................................
আবরার হত্যা মামলায় সাক্ষ্য গ্রহণ পিছিয়েছে
.............................................................................................
করোনামুক্ত অ্যাটর্নি জেনারেল
.............................................................................................
সাউদিয়ার ঢাকা থেকে ফ্লাইট পরিচালনার অনুমতি বাতিল
.............................................................................................
দেশে করোনায় মৃত্যু বেড়ে ৪৯৩৯, আক্রান্ত কমেছে
.............................................................................................
সিঙ্গাপুর ফিরে যাচ্ছেন ড. বিজন কুমার শীল
.............................................................................................
ওএসডি সেই ইউএনও ওয়াহিদা, স্বামীকেও বদলি
.............................................................................................
কুকুর অপসারণ নিয়ে ফেসবুকের ছবি বানোয়াট: ডিএসসিসি
.............................................................................................
দেশে বেড়েছে করোনায় মৃত্যু ও আক্রান্ত
.............................................................................................
আল্লামা শাহ্ আহমাদ শফী জানাজা নামাজ সম্পন্ন, লাখো মানুষের ঢল
.............................................................................................
আল্লামা শাহ্ আহমাদ শফীর ইন্তেকালে বিভিন্ন ইসলামী নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ
.............................................................................................
আল্লামা শফীর মৃত্যুতে ব্রাসেলস থেকে তথ্যমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
আল্লামা শফীর জীবনী
.............................................................................................
তিন মাস পর মিয়ানমার থেকে এলো পেঁয়াজ
.............................................................................................
আল্লামা শফীর জানাজার সময় ও স্থান
.............................................................................................
আল্লামা আহমদ শফী আর নেই
.............................................................................................
দ্রুত ভ্যাকসিন পেতে অগ্রিম টাকা দেওয়ার পরামর্শ জাতীয় কমিটির
.............................................................................................
আল্লামা শফীকে আনা হল ঢাকায়
.............................................................................................
হাসপাতালে ভর্তি আল্লামা আহমদ শফী
.............................................................................................
১৪ অক্টোবর থেকে ৪ নভেম্বর পর্যন্ত ইলিশ ধরা নিষিদ্ধ
.............................................................................................
হাটহাজারী মাদ্রাসা বন্ধ ঘোষণা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের
.............................................................................................
ফুটপাতের পুলিশ বক্সও গুঁড়িয়ে দিলেন ভ্রাম্যমাণ আদালত
.............................................................................................
সরকারি চাকরি প্রার্থীদের বয়সসীমা নির্ধারণ করতে প্রজ্ঞাপন
.............................................................................................
আগামী বছরের শুরুতে ঢাকা সফরে আসবেন এরদোয়ান
.............................................................................................
ভারতকে ফাইনাল ওয়ার্নিং দেয়া উচিৎ : জাফরুল্লাহ
.............................................................................................
কুয়েতে শুরু হচ্ছে পাপুলের বিচার
.............................................................................................
প্রাথমিকের সংক্ষিপ্ত পাঠ পরিকল্পনা প্রকাশ
.............................................................................................
২০ সেপ্টেম্বর থেকে সৌদি আরবে বিমানের ফ্লাইট শুরু
.............................................................................................
৩ দিনে ভারতে গেল ১৯৭ মেট্রিক টন ইলিশ
.............................................................................................
রাষ্ট্র পরিচালনায় পরবর্তী প্রজন্মের জন্য দিক-নিদের্শনা তৈরির ওপর প্রধানমন্ত্রীর গুরুত্বারোপ
.............................................................................................
অনলাইনেও বিক্রি হবে টিসিবির পেঁয়াজ
.............................................................................................
ভারতে গেল আরও ৬৩ মেট্রিক টন ইলিশ
.............................................................................................
বিলবোর্ড বা সাইনবোর্ড স্থাপনে নীতিমালা মানতে হবে : ডিএনসিসি মেয়র
.............................................................................................
বুধবার থেকে শতভাগ আসনে যাত্রী নিয়ে চলবে ট্রেন
.............................................................................................
সরকারি চাকরি প্রার্থীদের বয়সে ছাড়
.............................................................................................
চূড়ান্ত ধাপে গ্লোবের টিকা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD