| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ঢাকায় সু-প্রভাত বাস চলবে না : আতিকুল   * মোজাম্বিকে ঝড়ে ১ হাজারের বেশি লোকের মৃত্যু   * সন্ত্রাসীর নাম মুখে দিতে নারাজ নিউজিল্যান্ডের প্রধানমন্ত্রী   * নাটোরে মার্কেটে আগুন   * দুর্ঘটনা ঘটানো বাসের রুট পারমিট বাতিলের দাবি   * রংপুরে বাস-কাভার্ডভ্যানের সংঘর্ষে নিহত ৩   * মোশাররফ রুবেলের সফল অস্ত্রোপচার সম্পন্ন   * রাঙ্গামাটিতে আ.লীগ নেতাকে গুলি করে হত্যা   * রাজধানীতে বাসচাপায় বিইউপির ছাত্র নিহত, সড়ক অববোধ   * ডিএসইতে লেনদেন ও সূচক কমেছে  

   শিক্ষাঙ্গন -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে ভিসি কার্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীদের অবস্থান

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বাতিল এবং পুনঃতফসিল ঘোষণাসহ পাঁচ দফা দাবিতে ভিসি কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

সোমবার (১৮ মার্চ) দুপুরে রাজু ভাস্কর্য থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ভিসি কার্যালয়ের সামনে এসে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এসময় আন্দোলনকারীরা ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের পদত্যাগসহ পাঁচ দফা দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানায়। অন্যথায় কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারী দেয় নির্বাচন বর্জনকারী প্যানেলগুলো।

দাবিগুলো হলো- জালিয়াতির ডাকসু নির্বাচন বাতিল, পুনঃতফসিল ঘোষণা, ভিসির পদত্যাগ দাবি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতকরণ।

এদিকে নির্বাচন বাতিলসহ পাঁচ দফা দাবিতে চলছে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচিও। তবে এতে শিক্ষার্থীদের তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। অধিকাংশ বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা স্বাভাবিক রয়েছে।

নির্বাচন বর্জনকারী পাঁচটি প্যানেল হলো- কোটা সংস্কার আন্দোলন, প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্য, স্বতন্ত্র জোট, স্বাধিকার স্বতন্ত্র পরিষদ ও ছাত্র ফেডারেশন।

ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে ভিসি কার্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীদের অবস্থান
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনের ফলাফল বাতিল এবং পুনঃতফসিল ঘোষণাসহ পাঁচ দফা দাবিতে ভিসি কার্যালয়ের সামনে অবস্থান নিয়েছে আন্দোলনকারীরা।

সোমবার (১৮ মার্চ) দুপুরে রাজু ভাস্কর্য থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে ভিসি কার্যালয়ের সামনে এসে অবস্থান নেয় শিক্ষার্থীরা। এসময় আন্দোলনকারীরা ভিসি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামানের পদত্যাগসহ পাঁচ দফা দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানায়। অন্যথায় কঠোর কর্মসূচির হুশিয়ারী দেয় নির্বাচন বর্জনকারী প্যানেলগুলো।

দাবিগুলো হলো- জালিয়াতির ডাকসু নির্বাচন বাতিল, পুনঃতফসিল ঘোষণা, ভিসির পদত্যাগ দাবি, মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার, হামলাকারীদের শাস্তি নিশ্চিতকরণ।

এদিকে নির্বাচন বাতিলসহ পাঁচ দফা দাবিতে চলছে ক্লাস-পরীক্ষা বর্জন কর্মসূচিও। তবে এতে শিক্ষার্থীদের তেমন সাড়া পাওয়া যায়নি। অধিকাংশ বিভাগে ক্লাস-পরীক্ষা স্বাভাবিক রয়েছে।

নির্বাচন বর্জনকারী পাঁচটি প্যানেল হলো- কোটা সংস্কার আন্দোলন, প্রগতিশীল ছাত্র ঐক্য, স্বতন্ত্র জোট, স্বাধিকার স্বতন্ত্র পরিষদ ও ছাত্র ফেডারেশন।

অনশন ভাঙলেন শিক্ষার্থীরা
                                  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ নির্বাচনে (ডাকসু) পুনর্নির্বাচনের দাবিতে অনশনরত শিক্ষার্থীরা কর্মসূচি স্থগিত করেছেন। 

শুক্রবার রাত সাড়ে ১১টার পর শিক্ষার্থীদের মুখে পানি ও লাচ্ছি তুলে আশ্বাস দিয়ে অনশন ভাঙান অধ্যাপক মুহাম্মদ সামাদ।
তিনি বলেন, প্রশাসনের পক্ষ থেকে যত ধরনের সহযোগিতা করা দরকার আমরা করব। আমরা চাই না বিশ্ববিদ্যালয় কোনও ধরনের ক্ষতিগ্রস্ত হোক।

এসময় উপস্থিত ছিলেন প্রক্টর অধ্যাপক গোলাম রব্বানী, ঢাবি শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক মাকসুদ কামাল, নির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর, ডাকসুর জিএস গোলাম রাব্বানী, এজিএস সাদ্দাম হোসেনসহ অনেকে।

গত ১১ মার্চ অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া ডাকসু নির্বাচনে ব্যাপক কারচুপির অভিযোগ তুলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচজন শিক্ষার্থী গত মঙ্গলবার সন্ধ্যায় রাজু ভাস্কর্যে অনশনে বসেন। এসময় তাদের সঙ্গে যোগদেন আরও তিন শিক্ষার্থী।

শুক্রবার তিনজন শিক্ষার্থী অসুস্থ হয়ে ঢাকা মেডিকেলে যান। সেখান থেকে চিকিৎসা নিয়ে তারা আবারও অনশনে বসেন। চারদিন ধরে অনশনে বসলেও বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কেউ সেখানে না যাওয়ায় ব্যাপক সমালোচনা হচ্ছিল।

গত সোমবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের (ডাকসু) নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

রোকেয়া হলের প্রভোস্টকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে : ভিপি নুর
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রোকেয়া হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক ড. জিনাত হুদাকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে বলে মন্তব্য করেছেন ডাকসুর নবনির্বাচিত ভিপি নুরুল হক নুর।

আজ (বৃহস্পতিবার) দুপুর দেড়টায় রোকেয়া হলের অনশনরত ছাত্রীদের সমর্থনে সেখানে এসে তিনি এ মন্তব্য করেন।

এ সময় ডাকসু ভিপি বলেন, রোকেয়া হলের নির্বাচনে কারচুপি ও অনিয়ম হয়েছে। সে কারণে অধ্যাপক ড. জিনাত হুদার প্রভোস্ট হিসেবে থাকার নৈতিক অধিকার নাই।

একনজরে ডাকসু নির্বাচনের ফলাফল
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনের পূর্ণাঙ্গ ফল ঘোষণা করা হয়েছে। ঘোষিত ফলাফলে কোটা সংস্কার আন্দোলনের প্ল্যাটফর্ম ‘বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ’ প্যানেলের নুরুল হক নুর ১১ হাজার ৬২ ভোট পেয়ে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী সম্মিলিত শিক্ষার্থী সংসদের ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন পেয়েছেন ৯ হাজার ১২৯ ভোট।

এছাড়া জিএস পদে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ১০ হাজার ৪৮৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাধারণ কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ খান পান ৬ হাজার ৬৩ ভোট।
এজিএস পদে ছাত্রলীগের ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় শাখার সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন ১৫ হাজার ৩০১ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা ফারুক হোসেন পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৯৬ ভোট।

সোমবার দিবাগত রাত সাড়ে ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও ডাকসুর সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন।
নিচে পূর্ণাঙ্গ ফলাফল দেওয়া হলো-

সভাপতি : নুরুল হক নুর (১১০৬২) ভোট
সাধারণ সম্পাদক : গোলাম রাব্বানী ( ১০৪৮৪) ভোট
সহসাধারণ সম্পাদক : সাদ্দাম হোসেন (১৫৩০১) ভোট
স্বাধীনতা সম্পাদক ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক : সাদ বিন কাদের চৌধুরী (১২১৮৭) ভোট
বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক : আরিফ ইবনে আলী (৯১৫৪) ভোট
কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক : লিপি আক্তার (৮৫২৪) ভোট
আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক : শাহরিমা তানজিনা অর্নি (১০৬০৪) ভোট
সাহিত্য সম্পাদক : মাজহারুল কবির শয়ন (১০৭০০) ভোট
সংস্কৃতি সম্পাদক : আসিফ তালুকদার (১০৭৯৯) ভোট
ক্রীড়া সম্পাদক : শাকিল আহমেদ তানভীর (৯০৪৭) ভোট
ছাত্র পরিবহন সম্পাদক : শামস ই নোমান (১২১৬৩) ভোট
সমাজসেবা সম্পাদক : আক্তার হোসেন (৯১৯০) ভোট

সদস্য :
যোশীয় সাংমা চিবল (১২৮৬৮) ভোট
রকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য(১১২৩২) ভোট
তানভীর হাসান সৈকত(১০৮০৫) ভোট
তিলোত্তমা শিকদার(১০৪৬৬) ভোট
নিপু ইসলাম তন্বী(১০৩৯৩) ভোট
রাইসা নাসের(৯৭৬৮) ভোট
সাবরিনা ইতি(৯৪৫০) ভোট
রাকিবুল হাসান রাকিব(৮৬৭৩) ভোট
নজরুল ইসলাম(৮৫০৯) ভোট
ফরিদা পারভীন(৮৪৬৯) ভোট
মাহমুদুল হাসান(৭৯৭৮) ভোট
সাইফুল ইসলাম রাসেল(৭৮১২) ভোট
রফিকুল ইসলাম সবুজ(৬৫১৭) ভোট

ঢাবি ভিসির বাসভবন ঘিরে রেখেছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ভিপি পদের ফলাফল প্রত্যাখ্যান করে ভিসির বাসভবন ঘিরে রেখেছে ছাত্রলীগের কর্মীরা। এসময় ভিসির বাসভবনের সামনে টায়ার জ্বালিয়ে বিক্ষোভ করে তারা।

কোনো রকম অপ্রীতিকর ঘটনা যেন না ঘটে সেই সতর্কতায় বিশ্ববিদ্যালয়ে বিপুল সংখ্যক অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন
করা হয়েছে।

নির্বাচনকে প্রহসনের নির্বাচন আখ্যা দিয়ে স্লোগান দেয় ছাত্রলীগের কর্মীরা। শিবিরের ভিপি মানি না বলেও স্লোগান দেয় তারা। বিভিন্ন হল থেকে দলে দলে ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা উপাচার্যের (ভিসি) বাসবভনের সামনে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করে।
এদিকে, ভোর পৌনে ৬টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের মল চত্বর এলাকায় কয়েক রাউন্ড গুলির শব্দ শোনা গেছে। তবে কে বা কারা গুলি চালিয়েছে তা জানা যায়নি।

সোমবার রাত সাড়ে ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও ডাকসুর সভাপতি অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন।

ফলাফলে বাংলাদেশ সাধারণ শিক্ষার্থী অধিকার সংরক্ষণ পরিষদের নুরুল হক নূর ডাকসু নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হন। এর পরপরই ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা ভিপি পদে নূরকে মানতে অস্বীকার করে বিক্ষোভ শুরু করেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভনকে হারিয়ে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে নির্বাচিত হয়েছেন নুরুল হক নুরু। তবে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী সাধারণ সম্পাদক (জিএস) ও বিশ্ববিদ্যালয় শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) নির্বাচিত হয়েছেন।

ডাকসু ভিপি নুরুল হক, জিএস গোলাম রাব্বানী
                                  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে ২৫টি পদের মধ্যে ভিপি ও সমাজসেবা সম্পাদক বাদে বাকিগুলোতে ছাত্রলীগের প্রার্থীরাই বিজয়ী হয়েছেন।

সহ-সভাপতি (ভিপি) নির্বাচিত হয়েছেন কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা মো. নুরুল হক। তিনি পেয়েছেন ১১ হাজার ৬২ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ছাত্রলীগ সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন পেয়েছেন ৯ হাজার ১২৯ ভোট।
নির্বাচনে সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে জয়লাভ করেছেন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। রাব্বানী ১০ হাজার ৪৮৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী সাধারণ কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা রাশেদ খান পেয়েছেন ৬ হাজার ৬৩ ভোট।

এ ছাড়া সহ-সাধারণ সম্পাদক (এজিএস) নির্বাচিত হয়েছেন ঢাবি শাখা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসেন। তিনি পেয়েছেন ১৫ হাজার ৩০১ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী কোটা সংস্কার আন্দোলনের নেতা ফারুক হোসেন পেয়েছেন ৫ হাজার ৮৯৬ ভোট।

সোমবার (১১ মার্চ) দিনগত রাত সোয়া ৩টার দিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবন মিলনায়তনে ফলাফল ঘোষণা করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান। এ সময় উপস্থিত ছিলেন উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমেদ, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ, চিফ রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক এস এম মাহফুজুর রহমান প্রমুখ।

এ ছাড়া মুক্তিযুদ্ধ সম্পাদক সাদ বিন কাদের, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক আরিফ ইবনে আলী, কমনরুম ও ক্যাফেটরিয়া সম্পাদক বিএম লিপি আক্তার, আন্তর্জাতিক সম্পাদক শাহরিমা তানজিনা অর্নি, সাহিত্য সম্পাদক মাজহারুল কবির নয়ন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক আসিফ তালুকদার, ক্রীড়া সম্পাদক শাকিল আহামদ তানভীর, ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে শামস-ই-নোমান বিজয়ী হয়েছেন। কোটা সংস্কার আন্দোলনের অপর বিজয়ী প্রার্থী হলেন সমাজসেবা সম্পাদক পদে আখতার হোসেন।

অন্যদিকে নির্বাচিত সদস্যরা হলেন চিবল সাংমা, নজরুল ইসলাম, রাকিবুল হাসান, রাকিবুল ইসলাম ঐতিহ্য, তানভীর হাসান সৈকত, রাইসা নাসের, সাবরিনা ইতি, ফরিদা পারভীন, নিপু ইসলাম তন্বী, হায়দার মোহাম্মদ জিতু, তিলোত্তমা শিকদার, জুলফিকার আলম রাসেল ও মাহমুদুল হাসান।

ঢাবির ৫ ছাত্রী হলের চারটিতেই ভিপি স্বতন্ত্ররা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) হল ছাত্র সংসদ নির্বাচনে ৬৬ ভাগ সাফল্য এসেছে ছাত্রলীগের। তবে ছাত্রী হলগুলোর ভিপি জিএস পদের অধিকাংশ পদগুলোই চলে গেছে স্বতন্ত্র প্যানেলের দখলে।

ছাত্রীদের পাঁচটি হলের মধ্যে শামসুন্নাহার, কবি সুফিয়া কামাল ও বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী- এ তিন হলেই ভিপি-জিএস উভয় পদেই জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। এছাড়াও ফজিলাতুন্নেসা মুজিব হলের ভিপি পদটিও জিতেছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী রিকি হায়দার আশা। এসব হলের অন্যান্য পদেও স্বতন্ত্র প্রার্থীদের অনেকে জয়ী হয়েছেন।

অপরদিকে ছাত্রদের ১২টি হলের মধ্যে অমর একুশে হল ও ফজলুল হক হলে ভিপি পদে নির্বাচিত হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। এরা হচ্ছেন মেহেদী হাসান সুমন ও মাহমুদুল হাসান তমাল। এর বাইরে সার্জেন্ট জহুরুল হক হলের জিএস পদে জয় পেয়েছেন আরেক স্বতন্ত্র প্রার্থী তৌফিকুল ইসলাম। বাকিগুলোর ভিপি-জিএসসহ বেশিরভাগ পদে ছাত্রলীগ মনোনীত প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন।

সোমবার (১১ মার্চ) ডাকসু নির্বাচন শেষে হলগুলোর নির্বাচনের দায়িত্বে থাকা হল সংসদ রিটার্নিং অফিসাররা এই ফল ঘোষণা করেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট হলের সংখ্যা ১৯টি। এর মধ্যে স্যার ফিলিপ হার্টগ ইন্টারন্যাশনাল হলটি বিদেশি শিক্ষার্থীদের জন্য হওয়ায় এটি ভোটের আওতাধীন নয়। অবশিষ্ট ১৮টি হল সংসদে সোমবার (১১ মার্চ) ১৩টি পদে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়।

ডাকসু নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে : উপাচার্য
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান আজ বলেছেন ডাকসু নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে। বেলা ২টায় নির্বাচন শেষ হলে তিনি এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ‘ছাত্র-ছাত্রিরা সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ভোট প্রদান করে এক উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। উদ্যমী ছাত্র-ছাত্রীরা উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের ভোট প্রদান করে।’

এদিকে বামপন্থী কোটা সংস্কার ও স্বতন্ত্র জোট নেতাও কর্মীবৃন্দের প্রতিবাদে বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রি হলের নির্বাচন বিলম্বিত হওয়ায় বিকাল ৫টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলবে। আন্দোলনের কারণে রোকেয়া হলের ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়ে পড়ে। বিকাল ৩টায় আবার ভোট গ্রহণ শুরু হবে। বাসস

ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের বিপুল বিজয়
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বহু প্রতিক্ষীত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ বিপুল বিজয় অর্জন করেছে।

এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত যেসব হল সংসদের ফলাফল পাওয়া গেছে তাদের মধ্যে হাজী মুহাম্মদ মুহসীন হল ছাত্রসংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগ মনোনীত প্রার্থী শহীদুল হক শিশির সহ-সভাপতি (ভিপি), মো. মেহেদী হাসান মীর্জা সাধারণ সম্পাদক (জিএস) এবং সাদিল আব্বাস সহ-সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয়েছেন।

অন্যান্য সম্পাদকীয় পদে নির্বাচিত হয়েছেন, সাহিত্য সম্পাদক আবদুল্লাহ আল মামুন, সংস্কৃতি বিষয়ক সম্পাদক ইমরান হোসেন, রিডিং রুম সম্পাদক বিল্লাল হোসেন, আন্তঃক্রিড়া সম্পাদক শাহরিয়ার সনেট, বহিঃক্রিড়া সম্পাদক জাহিদুল ইসলাম এবং সদস্য পদে আবদুর রহমান, শাহ ইবনে সৈয়দ, জাহাঙ্গীর আলম এবং মুজাহিদুল ইসলাম নির্বাচিত হয়েছেন।
হাজী মুহম্মদ মুহসীন ও স্যার সলিমুল্লাহ মুসলিম হলে পূর্ণাঙ্গ প্যানেলে জয়ী হয় ছাত্রলীগ। তবে বঙ্গবন্ধু হলে ভিপি-জিএসসহ ১১টি পদে জয়ী হয় এই প্যানেল। বাকি দুইটি পদে জয় পান স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
এছাড়া সার্জেন্ট জহুরুল হক হলে ভিপিসহ ১২ পদেই জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্রার্থীরা। কেবল জিএস হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থী। ফজলুল হক মুসলিম হলের হল সংসদ নির্বাচনে ভিপিসহ পাঁচ পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। হল সংসদের বাকি আটটি পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের প্রার্থীরা।

শামসুন নাহার হল সংসদে ১৩ পদের মধ্যে ভিপি ও জিএসসহ আট পদেই জয় পান স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেসা হলের হল সংসদ নির্বাচনেও ভিপি এবং সাহিত্য ও সংস্কৃতি সম্পাদক পদে বিজয়ী হন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্জেন্ট জহুরুল হক হল সংসদ নির্বাচনে সহ-সভাপতি (ভিপি) পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্রার্থী সাইফুল্লা আব্বাছী অনন্ত। তবে এই হলে সাধারণ সম্পাদক (জিএস) পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র জোটের প্রার্থী তৌফিকুল ইসলাম। হল সংসদের বাকি পদগুলোতে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের সদস্যরা।
এদিকে, ফজলুল হক মুসলিম হলের হল সংসদ নির্বাচনে ভিপিসহ পাঁচ পদে জয় পেয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। হল সংসদের বাকি আটটি পদে জয় পেয়েছেন ছাত্রলীগের প্যানেলের প্রার্থীরা।
আজ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা তাদের নিজ নিজ আবাসিক হলে গিয়ে ডাকসু এবং হল সংসদের নেতাদের নির্বাচিত করতে তাদের ভোটাধিকার প্রয়োগ করে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রায় ৪৩ হাজার ২৫৬ শিক্ষার্থী এ নির্বাচনে ভোটাধিকার প্রয়োগ করেন। তার মধ্যে ১৬ হাজার ২৯২ ছাত্রী এবং ২৬ হাজার ৯৬৪ ছাত্র ভোটধিকার প্রয়োগ করেন।
বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি হলের ৫শ’ বুথে সকাল ৮টা থেকে দুপুর ২টা পর্যন্ত বিরতিহীনভাবে ভোট গ্রহণ চলে।
প্রতিটি ভোটার ডাকসু এবং হল সংসদের নির্বাচনে দু’টি আলাদা ব্যালট পেপারে ৩৮ জনকে নির্বাচিত করে। তাদের মধ্যে ডাকসুর ২৫ জন এবং হল সংসদের ১৩ জনকে নির্বাচিত করে।

ডাকসুর ২৫টি পদে মোট ২২৯ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। তাদের মধ্যে ২১ জন ভাইস প্রেসিডেন্ট (ভিপি) এবং ১৪ জন সাধারণ সম্পাদক এবং ১৩ জন সহ-সাধারণ সম্পাদক পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।
এছাড়াও ডাকসুর মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক সম্পাদক পদে ১১ জন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক এবং কমন রুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদ দুটিতে ৯ জন করে, আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে ১১ জন, সাহিত্য সম্পাদক পদে ৮ জন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদে ১২ জন, ক্রীড়া সম্পাদক পদে ১১ জন, পরিবহন সম্পাদক পদে ১০ জন, সমাজকল্যাণ সম্পাদক পদে ১৪ জন এবং সদস্য পদে ৮৬ জন প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি আবাসিক হলের প্রতিটিতে ১৩টি পদে হল সংসদের নির্বাচনে মোট ৫০৯ জন শিক্ষার্থী প্রতিদ্বন্ধিতা করেন।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) উপাচার্য অধ্যাপক মো. আখতারুজ্জামান বলেন, ডাকসু নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে।
‘ছাত্র-ছাত্রীরা সুশৃঙ্খলভাবে তাদের ভোট প্রদান করে এক উদাহরণ সৃষ্টি করেছে। উদ্যমী ছাত্র-ছাত্রীরা উৎসবমুখর পরিবেশে তাদের ভোট প্রদান করে।’

এদিকে বামপন্থী কোটা সংস্কার ও স্বতন্ত্র জোট নেতা ও কর্মীবৃন্দের প্রতিবাদে বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রি হলের নির্বাচন বিলম্বিত হওয়ায় বিকাল ৫টা ৩০ মিনিট পর্যন্ত ভোট গ্রহণ চলে। আন্দোলনের কারণে রোকেয়া হলের ভোট গ্রহণ স্থগিত হয়। বিকাল ৩টায় আবার ভোট গ্রহণ শুরু হয়। বাসস

তিন ঘণ্টা পর মৈত্রী হলে ভোট শুরু
                                  

অনলাইন ডেস্ক : এক বস্তা সিল মারা ব্যালট পেপার উদ্ধারের ঘটনায় স্থগিত হওয়া বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের ভোটগ্রহণ শুরু হয়েছে। সোমবার (১১ মার্চ) বেলা ১১টা ১০ মিনিটে ভোট শুরু হওয়ার কথা জানিয়েছেন ডাকসু নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এস এম মাহফুজুর রহমান। এই কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ চলবে বিকেল ৫টা ১০ মিনিট পর্যন্ত।


এর আগে অনিয়মের কারণে হলের প্রাধ্যক্ষ শবনম জাহানকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে। নতুন প্রাধ্যক্ষ করা হয়েছে ডিজাস্টার ম্যানেজমেন্ট ইনস্টিটিউটের পরিচালক অধ্যাপক মাহবুবা নাসরীনকে।

এছাড়া বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন ) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদকে আহ্বায়ক করে চার সদস্যবিশিষ্ট একটি তথ্যানুসন্ধান কমিটি গঠন করা হয়েছে।

বস্তা ভর্তি সিল মারা ব্যালট, মৈত্রী হলে ভোট গ্রহণ স্থগিত
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বস্তা ভর্তি সিল মারা ব্যালট পেপার উদ্ধার হওয়ার পর বাংলাদেশ কুয়েত মৈত্রী হলের ভোটগ্রহণ স্থগিত করা হয়েছে। সকাল ৮টায় ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচন শুরু হওয়ার কথা থাকলেও ছাত্রীদের প্রতিবাদের মুখে এই হলে অবশ্য ভোটগ্রহণ শুরুই করা যায়নি।

ভোট স্থগিতের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন প্রো ভিসি (প্রসাশন) অধ্যাপক ড. মু. সামাদ।

ডাকসু নির্বাচনের প্রধান রিটার্নিং কর্মকর্তা অধ্যাপক ড. এসএম মাহফুজুর রহমান জানান, বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। আপাতত ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে।

ডাকসু নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সকল জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটিয়ে দীর্ঘ ২৮ বছর পর অনুষ্ঠিত হচ্ছে ‘দেশের মিনি পার্লামেন্ট’ খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচন। একইসঙ্গে অনুষ্ঠিত হচ্ছে বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮টি আবাসিক হল সংসদের নির্বাচন।

আজ (১১ মার্চ) সকাল ৮টা থেকে শুরু হওয়া এই নির্বাচনে ভোট গ্রহণ করা হবে দুপুর ২টা পর্যন্ত। এদিকে নির্বাচনকে কেন্দ্র করে যাবতীয় প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। ১৮ হলে প্রস্তুত করা হয়েছে ৫০৮টি বুথ। ৪২ হাজার ৯২৩ ভোটারের জন্য এসব বুথ তৈরি করা হয়েছে।

কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫টি ও হল সংসদের ১৩টিসহ মোট ৩৮টি পদের জন্য ভোট দেবেন শিক্ষার্থীরা। কেন্দ্রীয় সংসদে ২৫টি পদের বিপরীতে নির্বাচনে অংশ নিচ্ছেন ২২৯ জন। আর প্রতিটি হল সংসদে ১৩টি পদের জন্য ১৮টি হলে ৫০৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন।

এর আগে সর্বশেষ ১৯৯০ সালের ৬ জুন ডাকসু নির্বাচন হয়। এরপর ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত সাত বছরে তিনবার তফসিল ঘোষণা করা হয়েও শেষ পর্যন্ত নির্বাচন হয়নি। ১৯৯৮ সালে ডাকসুর কমিটি ভেঙে দেয়া হয়। ওই সময় পরবর্তী ছয় মাসের মধ্যে নির্বাচনের ঘোষণা দেয়া হলেও তা বাস্তবায়ন হয়নি।

২০১২ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ২৫ জন শিক্ষার্থীর করা একটি রিট আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে ২০১৮ সালের ১৭ জানুয়ারি হাইকোর্ট পরবর্তী ছয় মাসের মধ্যে ডাকসু নির্বাচন করতে আদেশ দেন। পরের মাসে বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেট সিদ্ধান্ত নেয়, ২০১৯ সালের মার্চের মধ্যে এই নির্বাচন হবে। সেই সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ১১ মার্চ এই নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা করা হয়।

আগামীকাল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ডাকসু নির্বাচন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ২৮ বছরের অচলায়তন ভেঙ্গে সোমবার (১১ মার্চ) হতে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) ও হল সংসদ নির্বাচন। এ নিয়ে শেষ মুহূর্তে জোর প্রচারণা চালিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। শনিবার রাত ১২ টায় শেষ হয় প্রচারণা। একদিকে সুষ্ঠু নির্বাচন নিয়ে শঙ্কা অন্যদিকে ভোটের অধিকার নিশ্চিত হওয়ার আশাবাদ ছিলো প্রচারণায় অংশ নেয়া প্রার্থীদের মুখে।


শনিবার (৯ মার্চ) রাত ১২ টার কিছু আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রের সামনে উৎসবের আমেজে ছাত্রলীগের শোভন-রব্বানী-সাদ্দাম প্যানেলের শিক্ষার্থীরা চালাচ্ছিলেন শেষ মুহূর্তের প্রচারণা।

তবে নিয়ম মেনে ১২টার ঠিক আগ মুহূর্তে প্রচারণা শেষ করে হলে ফিরে যেতে দেখা যায় শিক্ষার্থীদের।

ক্যাম্পাসের নিরাপত্তা ঠিক রাখতে তৎপর আছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষীবাহিনীকে।

এবার ডাকসু নির্বাচনের চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকায় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের ২৫ পদের বিপরীতে ২২৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। এর মধ্যে ভিপি পদে ১১ জন, জিএস পদে ১৪ জন আর এজিএস পদে লড়ছেন ১৩ জন প্রার্থী।

নতুন গ্রেডে উন্নীত হচ্ছেন প্রাথমিকের শিক্ষক-কর্মকর্তারা
                                  

নতুন গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত হতে যাচ্ছেন সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক ও প্রাথমিক শিক্ষা কার্যালয়ের কর্মকর্তারা। বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টির প্রস্তাবও রয়েছে। ইতোমধ্যে ‘শিক্ষক নিয়োগ বিধিমালা’ চূড়ান্ত অনুমোদন দেয়া হয়েছে। আগামী এক মাসের মধ্যে গ্রেড পরিবর্তনের নির্দেশনা জারি করা হতে পারে। প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয় সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, দীর্ঘদিনের আন্দোলনের পর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতনস্কেল বৈষম্য দূরীকরণের সিদ্ধান্ত নেয় প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়। কয়েক দফায় শিক্ষক নেতৃবৃন্দের সঙ্গে বৈঠক করে সহকারী শিক্ষকদের বেতন স্কেল ১২তম গ্রেড ও প্রধান শিক্ষক পদ ১০তম গ্রেড, উপজেলা সহকারী শিক্ষা কর্মকর্তা ৯ম গ্রেড ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ৭তম গ্রেডে উন্নীত করা হবে।


জানা গেছে, গত দুই মাস আগে এ প্রস্তাব জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হয়। শিক্ষক-কর্মকর্তারা যোগদানের পরই উল্লিখিত গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত হবেন। তবে যোগদানের পর শিক্ষকরা প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হলে তাদের গ্রেড পরিবর্তন না করে বাড়তি ভাতা দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে।

পাশাপাশি বিদ্যালয়ে নতুন পদ হিসেবে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টির প্রস্তাব করা হয়েছে। এ পদ সৃষ্টি হলে সারাদেশে প্রায় ৬৫ হাজার সহকারী প্রধান শিক্ষক নিয়োগ দেয়া হবে।

মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তারা জানান, বর্তমানে এটি প্রক্রিয়াধীন। কিন্তু এতদিন শিক্ষক নিয়োগের সংশোধনী নীতিমালা চূড়ান্ত না হওয়ায় এ কার্যক্রমের তেমন অগ্রগতি হয়নি। গত ৩ ফেব্রুয়ারি নিয়োগ বিধিমালার অনুমোদন করেন রাষ্ট্রপতি। বর্তমানে এর ভাষাগত সংশোধনের জন্য আইন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে। এরপর তা গেজেট আকারে প্রকাশ করতে বিজি প্রেসে দেয়া হবে। আগামী এক সপ্তাহের মধ্যে এটির গেজেট প্রকাশ হবে। তাই শিক্ষক-কর্মকর্তাদের গ্রেড পরিবর্তনের কার্যক্রম চূড়ান্ত করতে আর কোনো বাধা রইল না।

কর্মকর্তাদের তথ্য মতে, বর্তমানে প্রধান শিক্ষক পদটি দ্বিতীয় শ্রেণির হলেও তারা বেতন পান ১১তম গ্রেডে। অথচ দ্বিতীয় শ্রেণির অন্য সব চাকরিজীবী ১০ম গ্রেডে বেতন পান। এমনকি ৩৪তম বিসিএস থেকে যখন দ্বিতীয় শ্রেণির পদে নিয়োগের সুপারিশ করা হয় তখন সবাই ১০ম গ্রেড পেলেও শুধু সরকারি প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকরা পাচ্ছেন ১১তম গ্রেড। ফলে প্রধান শিক্ষকদের একাধিক সংগঠন ১০ম গ্রেডে বেতনের দাবিতে আন্দোলনে নামেন।

বর্তমানে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত সহকারী শিক্ষকরা বেতন পান ১৪তম গ্রেডে। ফলে প্রধান শিক্ষকদের সঙ্গে তাদের বেতনের পার্থক্য তিন ধাপ। কোনোভাবেই সেটি মেনে নিতে রাজি নন সহকারী শিক্ষকরা। তারা প্রধান শিক্ষকের এক ধাপ নিচে বেতন চান। এ নিয়ে একাধিকবার আন্দোলনও করেছেন সহকারী শিক্ষকরা।

এছাড়া সহকারী উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা ১০ম গ্রেড ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা ৯ম গ্রেডে বেতন পাচ্ছেন। সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা ৯ম গ্রেড ও জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা পাচ্ছেন ষষ্ঠ গ্রেড। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা পদ দুটি ষষ্ঠ গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করা এবং জেলার প্রধান পদ জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাকে ৫ম গ্রেডে উন্নীত করার দাবি কর্মকর্তাদের।

উল্লেখ, বর্তমানে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তারা ৯ম গ্রেডে ১২ থেকে ১৫ বছর দায়িত্ব পালনের পর সহকারী জেলা প্রাথমিক কর্মকর্তা পদে পদোন্নতি পান। এ ক্ষেত্রে ৭ম গ্রেডে বেতন আহরণ করলেও তাদের ৯ম গ্রেডে পদোন্নতি দেয়া হচ্ছে।

জানা যায়, প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন স্কেলের এ পরিবর্তনের কাজে প্রধান শিক্ষকরা খুশি হলেও সহকারী শিক্ষকরা খুশি নন। তারা সহকারী প্রধান শিক্ষকের নতুন পদটি চান না।

তারা মনে করছেন, এ পদ সৃষ্টি হলে প্রধান শিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি পেতে সহকারী শিক্ষকদের দুটি ধাপ অতিক্রম করতে হবে। আর সহকারী প্রধান শিক্ষক পদটি না থাকলে এক ধাপ পদোন্নতি পেলেই প্রধান শিক্ষক হওয়া যাবে। তারা প্রধান শিক্ষকের পরের ধাপেই বেতন চান।

জানতে চাইলে বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় সহকারী শিক্ষক সমিতির সভাপতি মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ বলেন, আমাদের দাবি প্রধান শিক্ষকের পরের গ্রেড। কিন্তু সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টি হলে আমরা যখন ওই পদে পদোন্নতি পাব, তখন এমনিতেই আমরা ওই পদের স্কেলে বেতন পাব। তাহলে সহকারী শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য থেকেই যাবে। তাই আমরা এ মুহূর্তে সহকারী প্রধান শিক্ষকের পদ চাই না। আমরা প্রধান শিক্ষকের পরের গ্রেডে বেতন চাই। তবে, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের গ্রেড পরিবর্তনের কার্যক্রমকে তিনি সাধুবাদ জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (উন্নয়ন) গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, শিক্ষক-কর্মকর্তাদের নতুন গ্রেডে অন্তর্ভুক্ত করতে জনপ্রশাসন ও অর্থ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে।

তিনি বলেন, নতুন প্রস্তাব অনুযায়ী সহকারী শিক্ষকদের ১২তম গ্রেড, প্রধান শিক্ষকদের ১০তম গ্রেড, সহকারী উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ৯তম গ্রেড ও উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের ৭ম গ্রেডে উন্নীত করার নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

‘এরই ধারাবাহিকতায় সহকারী জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা ও জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পদেও বর্তমান গ্রেড পরিবর্তন আনা হবে। তবে এ দুই বিষয়ে এখনও সিদ্ধান্ত নেয়া হয়নি। নতুন পদ হিসেবে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টি করার প্রস্তাবও পাঠানো হয়েছে’,- যোগ করেন তিনি।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, একটি স্তরে গ্রেড পরিবর্তন করতে হলে আগে-পরে অন্য পদগুলোরও গ্রেড পরিবর্তন করতে হয়। এটি একটি চেইন সিস্টেম, সেই অনুযায়ী প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। বর্তমানে সংশোধিত নীতিমালার অনুমোদন দিয়েছেন রাষ্ট্রপতি। তাই আলোচনা করে বিষয়টি চূড়ান্ত করা হবে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক পদ সৃষ্টি নিয়ে শিক্ষকদের মিশ্র প্রতিক্রিয়া রয়েছে উল্লেখ করে গিয়াস উদ্দিন আহমেদ বলেন, যেহেতু এ বিষয়ে আপত্তি রয়েছে, তাই পদ সৃজনের কার্যক্রম চূড়ান্ত করার আগে শিক্ষকদের সঙ্গে আবারও আলোচনা করা হবে। যদি তারা আপত্তি জানান তবে সে অনুযায়ী সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এখন দ্রুতগামী ট্রেন : শিক্ষামন্ত্রী
                                  

শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে আগে বলা হতো এটা মালটানা রেলগাড়ির মতো। কিন্তু এখন এটি সম্পর্কে বলা হয় দ্রুতগামী আন্তঃনগর ট্রেন। বিশ্ববিদ্যালয়টির এই যে অগ্রযাত্রা সেটি অব্যাহত থাকবে বলে আমি প্রত্যাশা করি।

শনিবার (২ মার্চ) রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউট মিলনায়তনে ‘কলেজ পারফরমেন্স র্যাংকিং ২০১৬ ও ২০১৭’ অ্যাওয়ার্ড ও সনদ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

শিক্ষামন্ত্রী বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় সারাবিশ্বে দ্বিতীয় বৃহত্তম বিশ্ববিদ্যালয়। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী সংখ্যা ২৮ লাখ। এই বিশ্ববিদ্যালয় সম্পর্কে আগে অনেক নেতিবাচক তথ্য আমরা জানতাম। কিন্তু বর্তমান উপাচার্যের নেতৃত্বে এই বিশ্ববিদ্যালয় আজকে ইতিবাচক ধারায় ফিরেছে। তবে এই বিশ্ববিদ্যালয়ের একাডেমিক বিষয়ে মৌলিক বই রচনা করতে হবে। এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজগুলোতে নোট-গাইডের বেশ প্রাধান্য। সেটি আমাদের রোধ করতে হবে।

অনুষ্ঠানে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক হারুন অর রশীদ বলেন, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল্য চ্যালেঞ্জ ছিল সেশনজট নির্মূল করা, ক্রাশ প্রোগ্রামের মাধ্যমে সেই সেশনজট দূর করা হয়েছে। বর্তমানে একাডেমি ক্যালেন্ডার প্রণয়ন করা হচ্ছে। সেখানে সারা বছরের ভর্তি, পরীক্ষা, ফল প্রকাশসহ একাডেমিক সকল কার্যক্রমের অগ্রিম দিন-তারিখ ঘোষণা করা হচ্ছে।

এর আগে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত ৭১৮টি স্নাতক (সম্মান) পাঠদানকারী কলেজের মধ্যে জাতীয়ভিত্তিক স্কোরে ২০১৭ সালের ৫টি সেরা কলেজ, ১টি সেরা মহিলা কলেজ, ১টি সেরা সরকারি কলেজ ও ১টি সেরা বেসরকারি কলেজের নাম ঘোষণা করেন বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন-অর-রশিদ। এছাড়া শিক্ষার মানোন্নয়নের প্রতি দৃষ্টি রেখে বিভিন্ন র্যাংকিংয়ে সেরা অঞ্চলভিত্তিক আরও ৬৮টি কলেজের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। এসব কলেজকে অ্যাওয়ার্ড, সনদ ও চেক তুলে দেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

সারাদেশে পাঁচটি সেরা কলেজ হচ্ছে- রাজশাহী কলেজ, রাজশাহী (৭২.৯৬), সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ, বরিশাল (৬৬.১৫), সরকারি আজিজুল হক কলেজ, বগুড়া (৬৬.১১), সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ, পাবনা (৬৫.৯৬) ও কারমাইকেল কলেজ, রংপুর (৬৫.৭৯)। জাতীয় পর্যায়ে সেরা মহিলা কলেজটি হচ্ছে লালমাটিয়া মহিলা কলেজ (৫৯.১০), সেরা সরকারি কলেজ রাজশাহী কলেজ, (৭২.৯৬) ও সেরা বেসরকারি কলেজ হচ্ছে ঢাকা কমার্স কলেজ (৬১.৮৪)।

ঢাকা অঞ্চলে সেরা হচ্ছে ঢাকা কমার্স কলেজ (৬১.৮৪), সরকারি সা’দত কলেজ, টাঙ্গাইল, (৬১.৭৮), তেজগাঁও কলেজ (৫৯.৮৯), সিদ্ধেশ্বরী ডিগ্রি কলেজ, ঢাকা (৫৯.৬৪), লালমাটিয়া মহিলা কলেজ, ঢাকা (৫৯.১০), সিদ্ধেশ্বরী গার্লস কলেজ ঢাকা (৫৯.১০), সরকারি রাজেন্দ্র কলেজ, ফরিদপুর (৫৮.৫০), সরকারি গুরুদয়াল কলেজ, (৫৮.৩৮), হাবিবুল্লাহ বাহার কলেজ, ঢাকা (৫৭.৯৩) ও আদমজী ক্যান্টনমেন্ট কলেজ, ঢাকা (৫৬.৮৩)।

চট্টগ্রাম অঞ্চলে সেরা সরকারি ভিক্টোরিয়া কলেজ, কুমিল্লা, (৬২.৪৬), ফেনী সরকারি কলেজ, ফেনী (৬০.০৩), চট্টগ্রাম সরকারি কলেজ, চট্টগ্রাম (৫৯.৯৪), সরকারি সিটি কলেজ, চট্টগ্রাম (৫৭.২৭), ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরকারি কলেজ (৫৬.০০), নোয়াখালী সরকারি কলেজ (৫৪.৫৬), হাটহাজারী কলেজ, চট্টগ্রাম (৫৪.৪১), সরকারি হাজী মুহাম্মদ মহসীন কলেজ, চট্টগ্রাম (৫৩.৫২), চট্টগ্রাম সরকারি মহিলা কলেজ, (৫৩.০১) ও চাঁদপুর সরকারি কলেজ (৫২.৩৪)।

রাজশাহী অঞ্চলে সেরা হচ্ছে রাজশাহী কলেজ, (৭২.৯৬), সরকারি আজিজুল হক কলেজ, বগুড়া, (৬৬.১১), সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ, পাবনা (৬৫.৯৬), ভবানীগঞ্জ কলেজ, রাজশাহী (৫৬.৮৪), সৈয়দ আহমদ কলেজ, বগুড়া (৫৩.৭২), হাজী ওয়াহেদ মরিয়ম কলেজ, সিরাজগঞ্জ (৫৩.২৪), সিরাজগঞ্জ সরকারি কলেজ (৫২.৯৫), দাওকান্দি কলেজ, রাজশাহী (৫২.৬৩), রাজশাহী কোর্ট কলেজ (৫১.৯০) ও এনএস সরকারি কলেজ, নাটোর (৫০.৭৮)।

খুলনায় সেরা হচ্ছে সরকারি ব্রজলাল (বিএল) কলেজ, খুলনা (৬৩.২১), সরকারি এমএম কলেজ, যশোর (৬১.৫৮), কুষ্টিয়া সরকারি মহিলা কলেজ (৬১.১৫), সীমান্ত আদর্শ কলেজ, সাতক্ষীরা (৫৭.০৭), যশোর ক্যান্টমেন্ট কলেজ (৫৫.৭৭), ঝিকরগাছা মহিলা কলেজ, যশোর (৫৫.৫৫), এমএসজোহা ডিগ্রি কলেজ, আলমডাঙ্গা (৫২.৩১), কুমিরা মহিলা ডিগ্রি কলেজ, সাতক্ষীরা (৫১.৮১) ও খানজাহান আলী আদর্শ কলেজ, খুলনা (৫১.৬২) ও যশোর সরকারি মহিলা কলেজ (৫১.৫৮)।

বরিশাল অঞ্চলে সেরা কলেজ হচ্ছে সরকারি ব্রজমোহন (বিএম) কলেজ, বরিশাল, ৬৬.১৫, সরকারি সৈয়দ হাতেম আলী কলেজ, বরিশাল (৫১.২৪), সরকারি সোহরাওয়ার্দী কলেজ, পিরোজপুর (৪৫.৪৮) ও ভোলা সরকারি কলেজ (৪৪.৮৬)।

সিলেট অঞ্চলে সেরা কলেজ হচ্ছে সিলেটে এমসি কলেজ, সিলেট, (৫৯.৫১), দক্ষিণ সুরমা কলেজ, সিলেট (৫৩.৫১), মৌলভীবাজার সরকারি কলেজ (৫২.৪৩), বৃন্দাবন সরকারি কলেজ, হবিগঞ্জ (৫২.১১), সরকারি মহিলা কলেজ, সিলেট (৫০.৩৬), মদনমোহন কলেজ, সিলেট (৪৯.৭৯) ও সরকারি শ্রীমঙ্গল কলেজ, মৌলভীবাজার (৪৮.৫৫)।

রংপুরে কারমাইকেল কলেজ, রংপুর, (৬৫.৭৯), দিনাজপুর সরকারি কলেজ, দিনাজপুর (৬০.২৮), রংপুর সরকারি কলেজ, রংপুর (৫৮.৫২), উত্তরবাংলা কলেজ, লালমনিরহাট (৫৭.০২), হাতিবান্ধা আলিমুদ্দিন কলেজ, লালমনিরহাট, (৫৫.৬০), সরকারি বেগম রোকেয়া কলেজ, রংপুর (৫৪.৯৩), কুড়িগ্রাম সরকারি কলেজ (৫১.৪৪), লালমনিরহাট সরকারি কলেজ (৫০.৫৬), গাইবান্ধা সরকারি কলেজ, (৫০.২৭), কেবিএম কলেজ, দিনাজপুর (৪৯.১৬)।

ময়মনসিংহে সেরা কলেজ হচ্ছে সরকারি আনন্দমোহন কলেজ (৬৪.৬৮), জাহানারা লতিফ মহিলা কলেজ (৫৫.০৩), মুমিনুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ (৫২.২১), ইসলামপুর কলেজ, জামালপুর (৫১.৩৫), নেত্রকোনা সরকারি কলেজ (৪৯.১৪), শহীদ স্মৃতি সরকারি কলেজ, মুক্তাগাছা, (৪৯.০৭) ও কৃষ্ণপুর হাজী আলী আকবর পাবলিক কলেজ (৪৮.৪৫)।

ডাকসু নির্বাচনে প্যানেল ঘোষণা করলো কোটা আন্দোলনকারীরা
                                  

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে পূর্ণাঙ্গ প্যানেল ঘোষণা করেছে কোটা সংস্কার আন্দোলনকারীদের সংগঠন বাংলাদেশ সাধারণ ছাত্র অধিকার সংরক্ষণ পরিষদ। আজ সোমবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের ডাকসু ভবনের সামনে সংবাদ সম্মেলনে এ প্যানেল ঘোষণা করা হয়।

প্যানেলে ভিপি (সহসভাপতি) হিসেবে সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক নুরুল হক নুর, জিএস (সাধারণ সম্পাদক) পদে মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন ও সহসাধারণ সম্পাদক (এজিএস) পদে মো. ফারুক হোসেনের নাম ঘোষণা করা হয়েছে।

বাকি পদগুলোর মধ্যে রয়েছেন স্বাধীনতা সংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক পদে নাজমুল হুদা, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সম্পাদক পদে মো. সোহরাব হোসেন, কমনরুম ও ক্যাফেটেরিয়া সম্পাদক পদে শেখ জামাল, আন্তর্জাতিক সম্পাদক পদে হাবিবুল্লাহ বেলালী, সাহিত্য সম্পাদক পদে আকরাম হোসেন, সাংস্কৃতিক সম্পাদক পদ নাহিদ ইসলাম, ক্রীড়া সম্পাদক পদে মামুনুর রশীদ (মামুন), ছাত্র পরিবহন সম্পাদক পদে রাজিবুল ইসলাম ও সমাজসেবা সম্পাদক পদে আখতার হোসেন।

এ ছাড়া ডাকসু নির্বাচনে সদস্য হিসেবে লড়বেন উম্মে কুলসুম বন্যা, রাইয়ান আবদুল্লাহ, সাব আল মাসানী, ইমরান হোসেন ও শাহরিয়ার আলম সৌম্য।


   Page 1 of 10
     শিক্ষাঙ্গন
ডাকসুর পুনর্নির্বাচনের দাবিতে ভিসি কার্যালয়ের সামনে শিক্ষার্থীদের অবস্থান
.............................................................................................
অনশন ভাঙলেন শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
রোকেয়া হলের প্রভোস্টকে অবশ্যই পদত্যাগ করতে হবে : ভিপি নুর
.............................................................................................
একনজরে ডাকসু নির্বাচনের ফলাফল
.............................................................................................
ঢাবি ভিসির বাসভবন ঘিরে রেখেছে ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা
.............................................................................................
ডাকসু ভিপি নুরুল হক, জিএস গোলাম রাব্বানী
.............................................................................................
ঢাবির ৫ ছাত্রী হলের চারটিতেই ভিপি স্বতন্ত্ররা
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচন শান্তিপূর্ণভাবে সম্পন্ন হয়েছে : উপাচার্য
.............................................................................................
ডাকসু ও হল সংসদ নির্বাচনে ছাত্রলীগের বিপুল বিজয়
.............................................................................................
তিন ঘণ্টা পর মৈত্রী হলে ভোট শুরু
.............................................................................................
বস্তা ভর্তি সিল মারা ব্যালট, মৈত্রী হলে ভোট গ্রহণ স্থগিত
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচনে ভোটগ্রহণ শুরু
.............................................................................................
আগামীকাল অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে ডাকসু নির্বাচন
.............................................................................................
নতুন গ্রেডে উন্নীত হচ্ছেন প্রাথমিকের শিক্ষক-কর্মকর্তারা
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এখন দ্রুতগামী ট্রেন : শিক্ষামন্ত্রী
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচনে প্যানেল ঘোষণা করলো কোটা আন্দোলনকারীরা
.............................................................................................
এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচন : ছাত্রলীগের প্যানেল ঘোষণা
.............................................................................................
ঢাবি উপাচার্যের কার্যালয়ের সামনে ছাত্রদলের অবস্থান
.............................................................................................
ডাকসুর মনোনয়নপত্র বিতরণ শুরু, চলবে ২৫ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচন : ছয় দফা দাবিতে ঢাবি ভিসির কার্যালয় ঘেরাও
.............................................................................................
প্রশ্নপত্রে ত্রুটি, যশোর বোর্ডের আইসিটি পরীক্ষা বাতিল
.............................................................................................
ডাকসু নির্বাচনের তফসিল, মনোনয়ন বিতরণ ১৯ ফেব্রুয়ারি
.............................................................................................
ইজতেমার কারণে পেছাল এসএসসির তিন পরীক্ষা
.............................................................................................
রাত ১০টার পর মিছিল-মিটিং নয় : ঢাবি ছাত্রলীগ
.............................................................................................
জবিতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপে সংঘর্ষ
.............................................................................................
এসএসসি`র প্রথম দিনে অনুপস্থিত ১০৩৮৭, বহিষ্কার ২৪
.............................................................................................
আজ থেকে শুরু এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা
.............................................................................................
এইচএসসি ফরম পূরণে সময় বাড়ল
.............................................................................................
পিইসি-ইবতেদায়িতে ৯৮, জেএসসিতে ৮৫ ও জেডিসিতে ৮৯ শতাংশ পাস
.............................................................................................
শীর্ষে থেকেই বড় দিনের ছুটিতে লিভারপুল
.............................................................................................
জেএসসি ও প্রাথমিক সমাপনীর ফল ২৪ ডিসেম্বর
.............................................................................................
নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ে প্রো-ভিসি নিয়োগে টালবাহানা
.............................................................................................
ঢাবির ঘ ইউনিটের ফল প্রকাশ স্থগিত
.............................................................................................
কোটা বাতিলসহ ৬ দফা দাবি মুক্তিযোদ্ধার সন্তানদের
.............................................................................................
এটা কি ভামন্ত্রিসভা বৈঠকে উঠছে কোটা বাতিলের প্রস্তাব
.............................................................................................
ঢাবির ‘খ’ ইউনিটে ৮৬ শতাংশই ফেল
.............................................................................................
রাজশাহীর জেলা পরিষদের বৃত্তি পেলেন ৩৫৭ শিক্ষার্থী
.............................................................................................
ইনক্রিমেন্ট ও বৈশাখী ভাতা পাচ্ছেন শিক্ষকরা
.............................................................................................
কোটা আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির নেত্রী লুৎফুর নাহার লুমা গ্রেপ্তার
.............................................................................................
ঢাবি ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত সভাপতিকে হল ছাড়ার নির্দেশ
.............................................................................................
বুধবার সকাল ১০টার মধ্যে শিক্ষার্থীদের হল ছাড়ার নির্দেশ
.............................................................................................
দাবি আদায়ে বৃহস্পতিবার ১২টা পর্যন্ত আল্টিমেটাম
.............................................................................................
ফের রাজপথে শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
র‌্যাবের জালে মাদরাসা শিক্ষক আটক
.............................................................................................
বাস থেকে নর্থ সাউথের ছাত্র নিখোঁজ, অতঃপর লাশ
.............................................................................................
৫৫ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সবাই ফেল
.............................................................................................
এইচএসসিতে কমেছে পাসের হার ও জিপিএ-৫
.............................................................................................
আগামীকাল এইচএসসি পরীক্ষার ফল প্রকাশ
.............................................................................................
ঢাবিতে কোটা আন্দোলনকারীদের ওপর হামলা, শিক্ষক লাঞ্ছিত
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]