বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * রাজধানীতে মাদক সেবন ও বিক্রির অভিযোগে গ্রেফতার ৭৪   * ঝাড়খণ্ডে মধ্যরাতে ভয়াবহ বিস্ফোরণ, বহু রুটের ট্রেন বন্ধ   * সাত বছরে প্রথমবার তেলের দাম ৯০ ডলার ছুঁলো   * বিরোধী দলের পদত্যাগের ডাক প্রত্যাখ্যান করেছেন বরিস জনসন   * ভারতে `অসমতা` নিরসনের বাজেট চায় আইএমএফ   * মিসরের কাছে ২৫০ কোটি ডলারের অস্ত্র বিক্রি করছে আমেরিকা   * বিশ্বজুড়ে করোনায় আক্রান্ত আরও ৩৫ লাখ   * সাফারি পার্কে ৯ জেব্রার মৃত্যু তদন্তে পাঁচ সদস্যের কমিটি   * সিঁড়িতে খেলতে গিয়ে প্রাণ গেলো শিশুর   * মিশরকে ২৫০ কোটি ডলারের সামরিক সহায়তা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র  

   মতামত
  আফগানিস্তানের ঘৃণ্য তালেবানরা বেইজিংয়ের এক নতুন বন্ধু
 

মোঃ মজিবর রহমান শেখ : চীন একটি নতুন বন্ধু পেয়েছে মৌলবাদী ইসলামী গোষ্ঠী তালেবান স্পষ্টবাদী শক্তি যা নারীদের শিক্ষার বিরুদ্ধে এবং চায় তারা যেন তাদের ঘর থেকে বের না হয়। আফগানিস্তান থেকে মার্কিন শান্তিরক্ষা বাহিনী প্রত্যাহার করে এবং বিভিন্ন দেশ হয় তাদের কূটনৈতিক মিশন বন্ধ করে দেয় বা কান্দাহার এবং মাজার-ই-শরীফ এর মত জায়গা থেকে কর্মীদের সরিয়ে দেয় এই শহরগূলির নিয়ন্ত্রণে তালেবান জঙ্গিদের অগ্রসর হওয়ার মুখে, তালেবান মুখপাত্র সুহেল শাহিন ঘোষণা করেছেন যে চীন আফগানিস্তানের একটি ``বন্ধু" এবং বেইজিংকে আশ্বস্ত করেছে যে এটি চীনের জিনজিয়াং প্রদেশের ইসলামিক "জঙ্গিদের" আতিথ্য দেবে না। জিনজিয়াং এ চীন কর্তৃক সংঘটিত গণহত্যার বিরুদ্ধে লড়াইরত উইঘুরদেরকে তালেবানের জন্য জঙ্গী বলা যেমন একজন পর্যবেক্ষক বলেছেন, পাত্র কেটলিকে কালো বলে ডাকার মত; একই তালেবান, যারা নিউইয়র্কের ওয়ার্ল্ড ট্রেড সেন্টারের টুইন টাওয়ার গুলিকে টেনে ফেলার ষড়যন্ত্রের জন্য আফগানিস্থানে আল-কায়েদাকে হোস্ট করেছিলো।

(২)-- সেই একই তালেবান যাদের বিরুদ্ধে ঘোর প্রদেশের আফগান মহিলারা রাইফেল এবং রকেট লঞ্চার নিয়ে বিক্ষোভ করছে। এই প্রতিবাদী মহিলারা ১৯৯০ এর দশকের অন্ধকার যুগে ফিরে পেতে চান না যখন তালেবান শাসনে তারা তাদের ঘর থেকে বের হতে পারতো না, স্কুলে যেতে পারতো না এবং বোরকা পড়তে হতো। তারা চায় না তাদের অধিকার আবার খর্ব হোক। মার্কিন সৈন্য প্রস্থানের পর থেকে তালেবানের নিয়ন্ত্রণে থাকা প্রদেশগুলোতে ইতিমধ্যেই মহিলাদের ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করা হয়েছে, এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে। চিন অবশ্য আফগান নারীদের দুর্দশা নিয়ে খুব একটা মাথা ঘামায় না। যখন সুহেল শাহিন একটি সংবাদ সম্মেলনে আশ্বস্ত করেছিলেন যে তালেবানরা কাউকে আফগানিস্তানের মাটি চীনের বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেবে না, তখন অবশ্যই বেইজিংয়ের কানে মিউজিক বেজেছিল।

(৩)-- উইঘুরদের দুর্দশার কথা জানিয়ে জিনজিয়াংয়ের "সহকর্মী মুসলমান" সুহেল আশ্বস্ত করেছেন যে তালেবান উইঘুরদের সাহায্য করার জন্য চিনা সরকারের সাথে কথা বলবে। সুহেল সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট কে যা বলেছেন তাতে বেইজিং বিব্রত বলে মনে হচ্ছে না, "আমরা অনেকবার চিনি গিয়েছি এবং তাদের সাথে আমাদের ভালো সম্পর্ক রয়েছে", অতীতে তালেবান প্রতিনিধিদের জন্য চীন দ্বারা আয়োজিত বৈঠক গুলি স্মরণ করে। চীন একটি বন্ধুত্বপূর্ণ দেশ। চীনাদের বিনিয়োগ থাকলে অবশ্যই আমরা তাদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করবো। সুহেল যখন কাউকে মাটি ব্যবহার করতে না দেওয়ার কথা উল্লেখ করেন। চীনের বিরুদ্ধে আফগানিস্তান সম্ভবত উইঘুরদের ওই নয়, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রকে ও উল্লেখ করেছিলেন। কারণ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সাথে তার সম্পর্কের সাম্প্রতিক অবনতির পর চীন চিন্তিত যে আমেরিকা বেইজিং থেকে স্বাধীনতা চাওয়া উইঘুর ভিন্ন মতাবলম্বীদের সমর্থন করার জন্য আফগানিস্তানে তার বিস্তৃত যোগাযোগ ব্যবহার করতে পারে।

(৪) --- চীনের কমিউনিস্ট পার্টির মুখপত্র গ্লোবাল টাইমস ও তালেবানদের সমর্থনে বেরিয়ে এসেছে। মর্যাদাপূর্ণ ওয়াল স্ট্রিট জার্নালকে অভিযুক্ত করে "তালেবান এবং বেইজিং এর মধ্যে ঝামেলা বাড়ানোর চেষ্টা করা হচ্ছে" এটি আশ্বস্ত করেছে যে "তালেবানরা সহজে ফাঁদে পড়বে না"। একটি প্রতিবেদনে ইংগিত দেয়া হয়েছে যে চীন তালেবানকে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের কাছ থেকে আরও বোঝাপড়া প্রচেষ্টায় সহায়তা করবে। তালেবান আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে একা রাখার প্রয়াসে, এমনকি সহকর্মী আফগানরাও তালেবান সম্পর্কে বিশ্বাসী বলে মনে হচ্ছে না। `যে কেউ আফগানিস্তান থেকে পালাতে পারে` যেমন সানডে টাইমস একটি সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে লিখেছে। রাশিয়া, পাকিস্তান,ইরান এবং ভারত উত্তর আফগানিস্তানে তাদের কনস্যুলেট গুলিতে কার্যক্রম সীমিত করার অন্যান্য প্রতিবেদন রয়েছে এবং তার পরিপ্রেক্ষিতে তালেবানরা এই এলাকায় আঞ্চলিক লাভ করেছে। ভারত কান্দাহারে কনস্যুলেট থেকে ৫০ জন কূটনৈতিক কর্মী এবং নিরাপত্তা কর্মীকে সরিয়ে নিয়েছে, যদিও কনস্যুলেট এখনো কাজ করছে।

(৫) --- অন্তত দুটি দেশের কনস্যুলেট উত্তর আফগানিস্থানের মাজার-ই-শরীফ ক্রমবর্ধমান সহিংসতার কারণে কার্যক্রম বন্ধ করে দিয়েছে। কাবুলে তুর্কি দূতাবাস তার নাগরিকদের ভ্রমণ না করার পরামর্শ দিয়েছে। ‌ আফগানিস্থানে কাজ করার অভিজ্ঞতা সম্পন্ন কূটনীতিকরা লিখেছেন যে চীন ১৯৯৯ সাল থেকে তালেবানদের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখতে শুরু করেছে। ডিসেম্বর ২০০০ সালে, পাকিস্তানে চীনা রাষ্ট্রদূত কান্দাহারে তালেবান নেতা মোল্লা ওমরের সাথে দেখা করেছিলেন। চীন যখন তালেবানের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক স্থাপনের জন্য তার সর্ব আবহাওয়ার বন্ধু পাকিস্তানের সাথে যোগাযোগ ব্যবহার করেছে, আফগানিস্তানের মৌলবাদী গোষ্ঠী আন্তর্জাতিক বৈধতা এবং সাহায্য পাওয়ার জন্য বেইজিংয়ের সমর্থন চেয়েছে। চীন দ্বৈততার একটি সাধারণ প্রদর্শনীতে তালেবান এবং আফগান সরকার উভয়ের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক বজায় রাখে।

(৬)---কূটনীতিকরা লিখেছেন, অসংখ্য তালেবান প্রতিনিধি দল এর মধ্যে বেইজিংয়ের স্বাগত জানিয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য হলো তালেবানের উপনেতা মোল্লা আব্দুল গনি বারাদারের ২০১৯ সালের জুন মাসে বেইজিং সফর। এই সফরের বিষয়ে আফগান সরকারকে ব্রিফ করতে চীনের অনিচ্ছা পরবর্তীদের অসন্তুষ্ট করেছে। ‌ হামিদ কারজাই এবং আশরাফ ঘানির মত আফগানিস্তানের রাষ্ট্রপতি রা এই আশা নিয়ে বেইজিংয়ের আদালতে যাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন যে চীন তালেবানের সাথে তার সম্পর্ক ছিন্ন করতে পাকিস্তানকে রাজি করাবেন কিন্তু চীন সেরকম কিছুই করেনি। ‌‌তবে এটা বিশ্বাস করা কঠিন যে, চীন শুধুমাত্র পূর্ব তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্টকে চীনের জিনজিয়াং অঞ্চলে পা রাখা ঠেকাতে তালেবানের প্রতি অনুগ্রহ করছে। স্বৈরাচারী শাসনের অধীনে একটি বৈশ্বিক শক্তি পূর্ব তুর্কিস্তান ইসলামিক মুভমেন্ট এর মত একটি অস্পষ্ট গোষ্ঠীকে নিয়ন্ত্রণে রাখার জন্য চীনের পর্যাপ্ত সম্পদ রয়েছে। আফগানিস্থানে তামা, কয়লা, লোহা, গ্যাস, কোবাল্ট, পারদ, সোনা, লিথিয়াম এবং থোরিয়ামের বিশ্বের বৃহত্তম অব্যবহৃত মজুদ রয়েছে। ‌ যার মূল্য এক অনুমান অনুসারে, ১ ট্রিলিয়ন ডলারেরও বেশি।

(৭)---চীন আফগানিস্তানের প্রাকৃতিক সম্পদকে ব্যাপকভাবে কাজে লাগাতে চাইছে এটি তার বেল্টের নিচে ২৫ বছর ধরে তিনটি তেলক্ষেত্র খনন করার এবং তামার খনি করার বিড করেছে। তালেবানের পুনরুত্থানের সাথে সাথে পাকিস্তানের সাথে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক রয়েছে, আফগানিস্তানের চীনের স্বার্থ পূরণ হবে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রস্থানের সাথে চীনের জন্য আফগানিস্থানে তার বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ প্রকল্পগুলি প্রসারিত করার ক্ষেত্র এমন উন্মুক্ত। এখন পর্যন্ত আফগানিস্তানের তামার খনি এবং তেল খনন করার মতো বি‌আর আই (BRI) প্রকল্প গলিতে খুব বেশি অগ্রগতি হয়নি, তবে এখন তালেবানের সমর্থনে চীন কাবুলকে তার ঋণ জালের কূটনীতিতে জড়িয়ে পড়ার আশা করছে যার বিরুদ্ধে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্থান এবং পাকিস্তানের মতো দেশ গুলিকে সতর্ক করেছে। পরিস্থিতির পরিহাস এই যে, চীনও মনে হয় বুঝতে পেরেছে যে তালেবানের মত চরমপন্থী শক্তির সঙ্গে বন্ধুত্ব করা বাঘে চরার মত। এটাও নিশ্চিত নয় যে তার সমস্ত আশ্বাস সত্ত্বেও তালেবানরা এখনো ETIM কে আশ্রয় দেবে না , বা এটা নিশ্চিত নয় যে তালেবান‌ শাসনের অধীনে আফগানিস্তানে যে গ্রহযুদ্ধ বড় আকার করেছে তার বেল্ট অ্যান্ড রোড এ বিনিয়োগ নিরাপদ হবে।

(৮)-- ২০০৪ সালের জুন মাসে উত্তর আফগানিস্থানে ১১ জন চীনা শ্রমিককে গুলি করে হত্যার ঘটনা বেইজিং ভুলতে পারেনা। সবাই জানত যে এটি একটি তালেবান হামলা ছিল যদিও চীনা মিডিয়া এখন ওএই হামলার জন্য বিদ্রোহীদের দায়ী করে গ্রুপটিকে নাম দিয়ে চিহ্নিত করতে অস্বীকার করে। ‌ এই নিরাপত্তাহীনতার কারণে, চীন এমন স্থিতিশীলতা নিশ্চিত না করেই আফগানিস্তান থেকে আমেরিকান সৈন্য প্রত্যাহার করার জন্য ওয়াশিংটনকে দোষারোপ করছে। ‌ একই নিরাপত্তাহীনতা বেইজিংকে আফগানিস্তান সংলগ্ন পাকিস্তানি ভূখণ্ডে গাড়ি বিস্ফোরণের তদন্তের জন্য একটি দলকে পাকিস্তানে ছুটে যেতে প্ররোচিত করেছে যেখানে ৯ জন চীনা শ্রমিক নিহত হয়েছিল ঠিক আমেরিকান সৈন্য প্রত্যাহারের পর পরই।

মোঃ মজিবর রহমান শেখ
ঠাকুরগাঁও জেলা।



সংবাদটি পড়া হয়েছে মোট : 87        
   শেয়ার করুন
Share Button
   আপনার মতামত দিন
     মতামত
জিনজিয়াং চীনের ফাঁসি বাদী চরিত্রকে উন্মোচিত করেছে
.............................................................................................
আফগানিস্তানের ঘৃণ্য তালেবানরা বেইজিংয়ের এক নতুন বন্ধু
.............................................................................................
হাতিরঝিলের দুর্গন্ধযুক্ত পানি: পরিচ্ছন্ন পরিবেশ ফিরিয়ে আনতে হবে
.............................................................................................
করোনা ভাইরাস: সরকারী ত্রাণ, প্রণোদনা ও রাজনৈতিক দুর্বৃত্তায়ন
.............................................................................................
ছুটি শেষে সচল দেশ: স্বাস্থ্যবিধি ও সামাজিক দূরত্ব মেনে চলা জরুরি
.............................................................................................
প্রাথমিকে প্রয়োজন কাঠামোগত সংযোজন বা সংশোধন
.............................................................................................
দুর্গম পথচলা সুগম করতে হবে
.............................................................................................
সাইবার অপরাধ
.............................................................................................
প্রসঙ্গ ভ্রাম্যমাণ ফায়ার সার্ভিস ও Fire hydrant
.............................................................................................
পরমাণু অস্ত্র নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের দ্বিমুখী আচরণ
.............................................................................................
আমার গেলাস সদাই থাক অর্ধেক পূর্ণ
.............................................................................................
লাখো কন্ঠে বিদ্রোহী কবিতা
.............................................................................................
বৈশাখ বাঙালির সার্বজনীন অসাম্প্রদায়িক উৎসব
.............................................................................................
সিরিয়া হামলায় মধ্যপ্রাচ্য বনাম রুশ হিসাব
.............................................................................................
Digital Truck Scale | Platform Scale | Weighing Bridge Scale
Digital Load Cell
Digital Indicator
Digital Score Board
Junction Box | Chequer Plate | Girder
Digital Scale | Digital Floor Scale

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Dynamic Scale BD