| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * একাদশ জাতীয় সংসদের ১৫তম অধিবেশন শুরু ১৪ নভেম্বর   * আগামীকাল প্রেসক্লাব কোলকাতায় `বঙ্গবন্ধু সংবাদ কেন্দ্র` উদ্বোধন করবেন তথ্যমন্ত্রী   * শীতে ত্বক ও পা ফাটা রোধে এখনই যা করবেন   * ২০২২ সালের পর উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য থাকবে না: তাপস   * আফগান ইস্যুতে ইরানে ছয় দেশের বৈঠক   * অভিমান করে হাঁটছিলেন রেললাইনে, বাঁশঝাড়ে নিয়ে ধর্ষণ   * গুলশানের দগ্ধ ৩ জন শেখ হাসিনা বার্ন ইনস্টিটিউটে   * এসএসসি পরীক্ষায় নজরদারি থাকবে ফেসবুক-টুইটারে   * বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের এক সপ্তাহের মধ্যেই টিকাদান   * জাতীয় প্রয়োজনে সেনাবাহিনী সর্বোচ্চ ত্যাগ স্বীকারে প্রস্তুত থাকবে  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পীরগঞ্জের ঘটনায় ছাত্রলীগকে জড়ানোর অপচেষ্টা ব্যর্থ : তথ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, পীরগঞ্জের ঘটনায় ষড়যন্ত্রকারীরা ছাত্রলীগকে জড়ানোর যে অপচেষ্টা করেছিল তা ব্যর্থ হয়েছে ।

তিনি আজ দুপুরে রাজশাহী সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন। সংসদ সদস্য মো: আয়েন উদ্দিন ও আদিবা আঞ্জুম মিতা, রাজশাহীর ডেপুটি কমিশনার আব্দুল জলিল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, সহ-সভাপতি নওশের আলী, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান পরিষদের সভাপতি অনিল কুমার সরকার প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের অপরাধে গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে মো: সৈকত মন্ডলকে নানা অপকর্মের কারণে ছাত্রলীগ থেকে অনেক আগেই বের করে দেয়া হয়েছে। তাকে কারমাইকেল কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য বলে অপপ্রচার চালানো হয়েছে।’
ড. হাছান বলেন, রংপুর মহানগর ছাত্রলীগ এবিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে তারা বলেছে, সে একজন অনুপ্রবেশকারী ছিলো এবং কোনোভাবে একটা বিভাগের একেবারে সর্বনিম্ন পর্যায়ের কমিটিতে তার নাম ছিলো। পরে তাকে বের করে দেয়া হয়েছে। যাকে আগেই ছাত্রলীগ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে, সে যখন কোনো অপকর্ম করে, তখন সে দায় কখনো ছাত্রলীগের ওপর দেয়া যায় না।’
‘ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সব সময় একটি বিরূপ প্রচারণা চালানো হতে দেখা যায়’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দুর্নীতি খোঁজার নামে বা কোনো কিছুর গন্ধ পাওয়া যায় কি না, সেভাবেও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু এটি পরিষ্কার যে, পীরগঞ্জের ক্ষেত্রে কোনোভাবেই ছাত্রলীগকে দোষারোপ করার সুযোগ নেই।’
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘লন্ডনে বসে ষড়যন্ত্র করার কারণে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হচ্ছে। বাংলাদেশে দুর্গাপূজা উপলক্ষে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার উদ্দেশ্যে পূজামন্ডপে যে কোরআন শরীফ রেখে এসেছিল, সে কারো ফরমায়েশে এ অপকর্ম করেছে। এবং এই ঘটনার পর ভিডিও করা হয়েছে এবং সেটি আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে, নানা ধরণের পোস্ট দেয়া হয়েছে। উত্তেজনা ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই দেশে শান্তি-সম্প্রীতি বিনষ্ট করা হয়েছে। কারা এর পেছনে আছে সহসাই বের হবে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এটি খুবই স্পষ্ট যে, কারা সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে রাজনীতি করে। সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে রাজনীতি করে বিএনপি-জামাত এবং ধর্মান্ধ উগ্রগোষ্ঠী। অপরাধীদের যারা প্ররোচনা দিয়েছে, তারা আমাদের পবিত্র ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করেছে, হিন্দু ধর্মকেও অবমাননা করেছে, একইসাথে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করেছে। তাদেরকে খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে সরকার বদ্ধপরিকর।’

এ আগে, সকালে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাজশাহী উপকেন্দ্র পরিদর্শন করেন এবং আগামী সংসদ নির্বাচনের আগেই সেখানে বিটিভি’র পূর্ণাঙ্গ স্টেশন স্থাপনের ঘোষণা দেন। বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন। পরে ড. হাছান মাহমুদ বিটিভি উপকেন্দ্রের চত্বরে একটি আম গাছের চারা রোপণ করেন। বাসস

পীরগঞ্জের ঘটনায় ছাত্রলীগকে জড়ানোর অপচেষ্টা ব্যর্থ : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, পীরগঞ্জের ঘটনায় ষড়যন্ত্রকারীরা ছাত্রলীগকে জড়ানোর যে অপচেষ্টা করেছিল তা ব্যর্থ হয়েছে ।

তিনি আজ দুপুরে রাজশাহী সার্কিট হাউজে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন। সংসদ সদস্য মো: আয়েন উদ্দিন ও আদিবা আঞ্জুম মিতা, রাজশাহীর ডেপুটি কমিশনার আব্দুল জলিল, মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ডাবলু সরকার, সহ-সভাপতি নওশের আলী, হিন্দু বৌদ্ধ খ্রিস্টান পরিষদের সভাপতি অনিল কুমার সরকার প্রমুখ এসময় উপস্থিত ছিলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘রংপুরের পীরগঞ্জে হিন্দু সম্প্রদায়ের ঘরবাড়িতে অগ্নিসংযোগের অপরাধে গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে মো: সৈকত মন্ডলকে নানা অপকর্মের কারণে ছাত্রলীগ থেকে অনেক আগেই বের করে দেয়া হয়েছে। তাকে কারমাইকেল কলেজ ছাত্রলীগের সদস্য বলে অপপ্রচার চালানো হয়েছে।’
ড. হাছান বলেন, রংপুর মহানগর ছাত্রলীগ এবিষয়ে একটি বিবৃতি দিয়েছে। বিবৃতিতে তারা বলেছে, সে একজন অনুপ্রবেশকারী ছিলো এবং কোনোভাবে একটা বিভাগের একেবারে সর্বনিম্ন পর্যায়ের কমিটিতে তার নাম ছিলো। পরে তাকে বের করে দেয়া হয়েছে। যাকে আগেই ছাত্রলীগ থেকে বের করে দেয়া হয়েছে, সে যখন কোনো অপকর্ম করে, তখন সে দায় কখনো ছাত্রলীগের ওপর দেয়া যায় না।’
‘ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে সব সময় একটি বিরূপ প্রচারণা চালানো হতে দেখা যায়’ উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘দুর্নীতি খোঁজার নামে বা কোনো কিছুর গন্ধ পাওয়া যায় কি না, সেভাবেও ছাত্রলীগের বিরুদ্ধে অপপ্রচারের চেষ্টা করা হয়। কিন্তু এটি পরিষ্কার যে, পীরগঞ্জের ক্ষেত্রে কোনোভাবেই ছাত্রলীগকে দোষারোপ করার সুযোগ নেই।’
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘লন্ডনে বসে ষড়যন্ত্র করার কারণে দেশের সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট হচ্ছে। বাংলাদেশে দুর্গাপূজা উপলক্ষে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার উদ্দেশ্যে পূজামন্ডপে যে কোরআন শরীফ রেখে এসেছিল, সে কারো ফরমায়েশে এ অপকর্ম করেছে। এবং এই ঘটনার পর ভিডিও করা হয়েছে এবং সেটি আবার সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড করে সারাদেশে সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা ছড়িয়ে দেয়া হয়েছে, নানা ধরণের পোস্ট দেয়া হয়েছে। উত্তেজনা ছড়িয়ে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এই দেশে শান্তি-সম্প্রীতি বিনষ্ট করা হয়েছে। কারা এর পেছনে আছে সহসাই বের হবে।’

তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘এটি খুবই স্পষ্ট যে, কারা সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে রাজনীতি করে। সাম্প্রদায়িকতা নিয়ে রাজনীতি করে বিএনপি-জামাত এবং ধর্মান্ধ উগ্রগোষ্ঠী। অপরাধীদের যারা প্ররোচনা দিয়েছে, তারা আমাদের পবিত্র ইসলাম ধর্মকে অবমাননা করেছে, হিন্দু ধর্মকেও অবমাননা করেছে, একইসাথে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করেছে। তাদেরকে খুঁজে বের করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিতে সরকার বদ্ধপরিকর।’

এ আগে, সকালে তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী বাংলাদেশ টেলিভিশনের রাজশাহী উপকেন্দ্র পরিদর্শন করেন এবং আগামী সংসদ নির্বাচনের আগেই সেখানে বিটিভি’র পূর্ণাঙ্গ স্টেশন স্থাপনের ঘোষণা দেন। বাংলাদেশ টেলিভিশনের মহাপরিচালক সোহরাব হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন। পরে ড. হাছান মাহমুদ বিটিভি উপকেন্দ্রের চত্বরে একটি আম গাছের চারা রোপণ করেন। বাসস

অপপ্রচারই বিএনপি’র শেষ আশ্রয়স্থল : সেতুমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, যে কোন ইস্যুকে রাজনৈতিক রূপ দিয়ে বিতর্কিত করাই বিএনপি’র কাজ।

আজ সকালে তাঁর সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত নিয়মিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
সেতু মন্ত্রী বলেন, অপপ্রচার করাই বিএনপি’র শেষ আশ্রয়স্থল। দোষারোপের রাজনীতি যেহেতু বিএনপি’র আদর্শ সেহেতু সরকারের বিরুদ্ধে কিছু না কিছু বলতেই হবে। এ ধরণের কল্পিত ও অন্তঃসারশূন্য অভিযোগ তারই ধারাবাহিকতা।
‘কুমিল্লাসহ বিভিন্ন পূজামন্ডপে হামলা সরকারের নীলনকশা, সরকার হামলাকারীদের বিচারের উদ্যোগ নেয়নি’ বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এ সব অভিযোগ বিএনপি নেতাদের মিথ্যাচার গোয়েবলসকেও হার মানায়।

পূজামন্ডপে হামলার পর থেকে বিএনপি মিথ্যাচার এবং অপপ্রচারের ফানুস উড়িয়েই যাচ্ছে উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, তাদের এ সব অভিযোগ কল্পনাপ্রসূত। যার সাথে বাস্তবতার কোন সম্পর্ক নেই। কোন সরকার কি চায় দেশের পরিস্থিতি অস্থিতিশীল করতে? আর তা করে সরকারের কি লাভ?
বিএনপি নেতারা হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য মায়াকান্না করলেও প্রকৃতপক্ষে পূজামন্ডপে হামলার বিচার তারা চাননি এমনই দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, ভিডিও ফুটেজ অনুযায়ী সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে মামলা হলেও তারা বলছেন বিরোধীদের হেনস্তা করার জন্য মামলা করা হয়েছে। এটা বিএনপি’র ডাবল স্ট্যান্ডার্ড।
সেতুমন্ত্রী বলেন, ঘটনার পর বিএনপি’র পক্ষ থেকে কেউ হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়ায়নি অথচ এখন প্রায় দুই সপ্তাহ পর বিএনপি দলীয় টিম বিভিন্ন মন্দির পরিদর্শন করছেন। ঘটনার রেশ কেটে যাওয়ার পর এই লোক দেখানো পরিদর্শন দলীয়ভাবে বিএনপি’র দায়িত্বহীনতাকেই স্পষ্ট করছে।
‘সরকার পুরোহিতদের বিএনপি নেতাদের সাথে কথা বলতে বাধা দিয়েছে’ বিএনপি নেতারা অভিযোগের জবাবে সেতু মন্ত্রী বলেন, এমন সৃজনশীল মিথ্যাচার বিএনপি’র মুখেই মানায়। বাসস

গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা দরকার: জি এম কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা দরকার বলে জানিয়েছেন জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জি এম) কাদের। তিনি বলেছেন, শোষণের জন্য তৈরি ব্রিটিশদের প্রশাসনিক কাঠামো ভেঙে গণমানুষের জন্য সেবাধর্মী নানা সংস্কার কর্মসূচি ঘোষণা করেছিলেন পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ।

মঙ্গলবার (২৬ অক্টোবর) দুপুরে জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় মিলনায়তনে প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি। গণমাধ্যমে পাঠানো এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বিষয়টি জানানো হয়।

সভায় জি এম কাদের বলেন, ব্রিটিশরা শাসন করতে প্রশাসক নিয়োগ করেছিলেন। শোষণের জন্য রাজা-বাদশারাও শাসক নিয়োগ করেছে। কিন্তু, পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ চেয়েছিলেন, গণমানুষের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের দিয়েই শাসনের বিপরীতে কল্যাণময় সেবা চালু করতে। তাই, বর্তমান বাস্তবতায় পল্লীবন্ধুর স্বপ্নের প্রাদেশিক সরকার পদ্ধতি বাস্তবায়ন জরুরি হয়ে পড়েছে।

তিনি বলেন, নতুন নতুন প্রশাসনিক বিভাগ তৈরি হচ্ছে। তা উপনিবেশিক শাসন পদ্ধতিতেই প্রশাসক নিয়োগের মাধ্যমে কাজ করছে। কিন্তু, প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু হলে, জনগণের ভোটে নির্বাচিত প্রতিনিধিদের মাধ্যমেই পরিচালিত হবে সব কর্মকাণ্ড। প্রাদেশিক পর্যায়ে জনপ্রতিনিধিদের সরকার প্রতিষ্ঠিত হলে দুর্নীতি কমে যাবে। গণমানুষের কাছে জনপ্রতিনিধিদের জবাবদিহিতা নিশ্চিত হবে। গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা চালু করা জরুরি হয়ে পড়েছে।

জি এম কাদের আরও বলেন, প্রাদেশিক ব্যবস্থায় রাষ্ট্র ক্ষমতা বিকেন্দ্রীকরণ হবে, এতে কেন্দ্রীয় সরকারের ওপর থেকে চাপ কমে যাবে।

সভায় উপস্থিত ছিলেন প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সভাপতি ও জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান ব্যারিস্টার আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সাধারণ সম্পাদক সুনীল শুভ রায়, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সমন্বয়ক মীর আব্দুস সবুর আসুদ, প্রেসিডিয়াম সদস্য ও প্রাদেশিক ব্যবস্থা বাস্তবায়ন জাতীয় সমন্বয় কমিটির সদস্য জেনারেল (অব.) মাসুদ উদ্দিন চৌধুরী, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা মনিরুল ইসলাম মিলন, ভাইস চেয়ারম্যান আহসান আদেলুর রহমান প্রমুখ।

আইসিইউ থেকে কেবিনে খালেদা জিয়া
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : বায়োপসির পর কয়েক ঘণ্টা আইসিইউতে রেখে কেবিনে নেওয়া হয়েছে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে।

খালেদা জিয়ার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এজেডএম জাহিদ হোসেন বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, এটা আসলে ওই অর্থে অপারেশন না। ডায়াগনস্টিকের একটি পার্ট। যেকোনো ছোট কিছুর পরেও আইসিইউতে রাখা হয়। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কয়েক ঘণ্টা আইসিইউতে রেখে রাতেই তাকে কেবিনে শিফট করা হয়েছে।

এর আগে সোমবার দুপুরে খালেদা জিয়ার বায়োপসি করা হয়।

পরে জরুরি সংবাদ সম্মেলন করে তার ব্যক্তিগত চিকিৎসক এজেডএম জাহিদ হোসেন বলেন, বিএনপি চেয়ারপারসনের ছোট একটি অপারেশন হয়েছে। শারীরিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা করার পর চিকিৎসকরা দেখলেন, উনার একটি বায়োপসি করা দরকার। ছোট একটি লাম্প (পিণ্ড) আছে এক জায়গায়। যেহেতু লাম্প আছে, তার ন্যাচার অব ভিউ জানার জন্য বায়োপসি করা হয়েছে।

রুহুল আমিন হাওলাদারকে দেখতে হাসপাতালে জিএম কাদের
                                  

জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন। গত শনিবার (২৩ অক্টোবর) বুকে ব্যথা নিয়ে রাজধানীর ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি।

জাপার সাবেক এই মহাসচিবের অসুস্থতার কথা শুনে পার্টির নেতাকর্মীরা হাসপাতালে ছুটে যান। সোমবার (২৫ অক্টোবর) তাকে দেখতে গেছেন পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের।

দুপুরে জিএম কাদের অসুস্থ রুহুল আমিন হাওলাদারকে দেখতে ইউনাইটেড হাসপাতালে আসেন। এসময় তার শারীরিক অবস্থার খোঁজ নেন এবং কর্তব্যরত চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলেন।

এছাড়াও জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা, সালমা ইসলাম, সাহিদুর রহমান টেপা, প্রেসিডিয়াম সদস্য সুনীল শুভ রায়, লিয়াকত হোসেন খোকা, রেজাউল ইসলাম ভুইয়া, এমএ কুদ্দুছ খান, ইয়াহইয়া চৌধুরী, বেলাল হোসেনসহ অন্যান্য নেতাকর্মী ও শুভানুধ্যায়ী হাওলাদারকে দেখতে হাসপাতালে আসেন।

শনিবার বিকেলে পার্টির একটি অনুষ্ঠানে যাওয়ার পথে বুকে ব্যথা অনুভব করেন রুহুল আমিন হাওলাদার। পরে তাকে ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি সিনিয়র কনসালট্যান্ট ডা. কাইসার নসরুল্লাহ খানের তত্ত্বাবধানে আছেন।

রুহুল আমিন হাওলাদারের সহধর্মিণী রত্না আমিন হাওলাদার তার স্বামীর সুস্থতার জন্য দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন।

বিএনপি আরো একটি ওয়ান ইলেভেনের স্বপ্নে বিভোর : সেতুমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, বিএনপি আরো একটি ওয়ান ইলেভেনের স্বপ্নে বিভোর।

তিনি বলেন, ‘বিএনপি ক্ষমতায় যেতে চায়, তবে তা ব্যালটের মাধ্যমে নয়, ভিন্ন কোনো অগণতান্ত্রিক এবং চোরাগলি পথে। বিএনপি আরো একটি ওয়ান ইলেভেনের স্বপ্নে বিভোর। এ দেশে আর এমন পরিস্থিতি তৈরি হবে বলে মনে হয় না।’
ওবায়দুল কাদের আজ সোমবার সকালে সচিবালয়ে তাঁর দপ্তরে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন।

‘আওয়ামী লীগের অধীনে বিএনপি নির্বাচনে যাবে না’ বিএনপি নেতাদের এমন বক্তব্য সম্পর্কে ওবায়দুল কাদের বলেন, মীমাংসিত ইস্যু নিয়ে একটি দায়িত্বশীল রাজনৈতিক দলের বক্তব্য আত্মঘাতী প্রবণতা ছাড়া আর কিছুই নয়।
নির্বাচনে অংশগ্রহণ প্রশ্নে বিএনপি এখনো পুরনো ধুসর পথে হাঁটছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, প্রকৃতপক্ষে সময় ও ¯্রােতের মত নির্বাচনও বসে থাকবে না। নির্বাচন আওয়ামী লীগ সরকারের অধীনে হবে না, নির্বাচন হবে নির্বাচন কমিশনের অধীনে।
যারা গুজব ও অপপ্রচারকে রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে নিয়েছে তাদের চেহারা জনগণের কাছে স্পষ্ট হয়ে গেছে জানিয়ে সড়ক পরিবহন মন্ত্রী বলেন, বিএনপি নিজেরাই নিজেদের ফাঁদে আটকা পড়েছে। তাইতো তারা এখন উভয় সংকটে, না পারছে আন্দোলন জমাতে, না পারছে নির্বাচনে যেতে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ নয়, প্রকৃত অর্থে বিএনপিই এখন দেউলিয়া হয়ে গেছে। তারা এখন জনবিচ্ছিন্ন। তাই তারা নির্বাচনকে ভয় পায় এবং তাদের আন্দোলনের কথা শুনলে মানুষ হাসে।
বিএনপি ষড়যন্ত্র ও গুজব নির্ভর, তাদের রাজপথে কোন অস্তিত্ব নেই উল্লেখ করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তাদের অস্তিত্ব শুধু ফেসবুক আর অনলাইনে।
স্থানীয় সরকার নির্বাচনে তৃণমূল থেকে নাম প্রেরণের ক্ষেত্রে বিতর্কিতদের বাদ দিয়ে দলের পরিক্ষীত ও ত্যাগীদের নাম কেন্দ্রে পাঠানোর নির্দেশনা দেওয়া হচ্ছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, কোন প্রার্থীর বিরুদ্ধে সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকলে দলের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী আপিল করার সুযোগ রয়েছে। সুনির্দিষ্ট অভিযোগ সভানেত্রীর রাজনৈতিক কার্যালয়ে জমা নেওয়া হচ্ছে। ইতিমধ্যেই অভিযোগের প্রেক্ষিতে কিছু কিছু স্থানে প্রার্থী পরিবর্তন করা হয়েছে।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, তৃণমূল একটি নির্দিষ্ট প্রক্রিয়ার মধ্য দিয়ে স্থানীয় সরকার পরিষদের মনোনয়নের জন্য প্রস্তাবিত প্রার্থীর তালিকা কেন্দ্রে পাঠানো হয়। ইউনিয়ন থেকে উপজেলা তারপর জেলা হয়ে কেন্দ্রে নামের সুপারিশ আসে।
ওবায়দুল কাদের জানান, এর আগে নাম তালিকাভুক্তির ক্ষেত্রে কোনোরূপ স্বজনপ্রীতি ও লোভের বশবর্তী না হয়ে এবং প্রার্থী সম্পর্কে তথ্য গোপন না করে নাম প্রেরণের জন্য দলীয় ভাবে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বাসস

খালেদা জিয়ার অবস্থার অবনতি, দেখতে এলেন কোকোর স্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া দীর্ঘদিন ধরে আর্থারাইটিস, ডায়াবেটিস, দাঁত ও চোখের সমস্যাসহ নানা জটিলতায় ভুগছেন। ছোট একটা অপারেশনের জন্য তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয়েছে। চিকিৎসক ও দলের দায়িত্বশীল সূত্র এ তথ্য নিশ্চিত করেছে।

চিকিৎসক সূত্র বলছে, বর্তমানে খালেদা জিয়ার শরীরের তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণে রাখতে তাকে এন্টিবায়োটিক দেওয়া হচ্ছে। নতুন করে কিডনি সমস্যা বেড়েছে, রক্তের হিমোগ্লোবিনেরও ঘাটতি রয়েছে। এর মধ্যে আবার থেমে থেমে জ্বর আসায় একাধিক স্বাস্থ্য পরীক্ষা করানো হচ্ছে।

সোমবার (২৫ অক্টোবর) দুপুরের দিকে তাকে অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয় বলে বিএনপি চেয়ারপারসনের প্রেস উইং সূত্র নিশ্চিত করেছে।

এদিকে, রোববার লন্ডন থেকে ঢাকায় এসে বিএনপি চেয়ারপারসনকে দেখতে হাসপাতালে যান আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী সৈয়দা শর্মিলা রহমান সিঁথি। রাত সোয়া ৯টার দিকে এভারকেয়ার হাসপাতালে প্রবেশ করেন তিনি। এরপর বের হন রাত ১১টায়। বর্তমানে তিনি খালেদা জিয়ার গুলশানের বাসভবন ফিরোজায় রয়েছেন বলে আরেকটি সূত্র জানিয়েছে।

বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান জানান, শর্মিলা সিঁথি এসেছেন এ বিষয়টি আমার জানা নেই। কখন গেলেন তাও জানি না। তবে ম্যাডামের চিকিৎসার বিষয়ে আজ বিকেল ৪টায় গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের রাজনৈতিক কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলন করবেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি আজ বেলা ১১টা ২০ মিনিটের দিকে চেয়ারপারসনকে দেখতে এভারকেয়ার হাসপাতালে যান।

গত ১২ অক্টোবর জ্বর আসায় খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে তিনি এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এর আগে করোনাভাইরাসসহ বিভিন্ন রোগে আক্রান্ত হয়ে টানা ৫৪ দিন একই হাসপাতালে ভর্তি ছিলেন।

আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই হিন্দুদের পাশে দাঁড়িয়েছে, দায় এড়াতে পারে না সামাজিক মাধ্যম : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এবং তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, কুমিল্লার ঘটনা থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়িয়েছে, অন্য কোনো দল দাঁড়ায়নি।

একইসাথে ঘটনাটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়ানোর ফলে যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছিল, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তার দায় এড়াতে পারে না, বলেন তিনি।
তথ্যমন্ত্রী আজ দুপুরে সচিবালয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সম্পাদক ফোরামের সাথে মতবিনিময় শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে একথা বলেন। সচিব মো: মকবুল হোসেন এসময় উপস্থিত ছিলেন।

সম্পাদক ফোরামের আহ্বায়ক রফিকুল ইসলাম রতন, মহাসচিব ফারুক আহমেদ তালুকদার ও সদস্যদের মধ্যে দুলাল আহমেদ চৌধুরী, বেলায়েত হোসেন, শরীফ সাহাবুদ্দিন, মফিজুর রহমান, উপদেষ্টা আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়া সভায় যোগ দেন।
ড. হাছান মাহমুদ বলেন, কুমিল্লার ঘটনার পরপর আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আমরা প্রত্যেকটি উপজেলা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে নির্দেশনা পাঠিয়েছিলাম যাতে দুর্গাপূজা চলাকালীন পূজামন্ডপে আমাদের দলের লোকজন থাকে এবং কেউ কোনো বিশৃঙ্খলা তৈরি করতে না পারে। আমাদের নেতাকর্মীরা সেইভাবে ছিল। যারা এই ঘটনাগুলো ঘটিয়েছে তাদের আরো বড় পরিকল্পনা ছিল, আমাদের দল হিন্দুদের পাশে দাঁড়িয়েছে বিধায় ষড়যন্ত্রকারীরা তা করতে পারেনি। কয়েক ঘন্টার নোটিশে আমাদের দল সারাদেশে শান্তি সমাবেশ ও বিক্ষোভ মিছিল করেছে। আমরা এখনো সতর্ক দৃষ্টি রাখছি।

‘আমরাই শুধু পাশে দাঁড়িয়েছি, বাকিরা মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেবরা এমনকি গয়েশ্বর বাবুসহ অন্যরা শুধু টেলিভিশনের সামনেই গলা ফাটান, মানুষের পাশে দাঁড়াননি, বরং তারা এই ঘটনায় ইন্ধন দিয়েছেন এবং সমুদ্রের ওপার থেকে এই ঘটনার পরিকল্পনা হয়েছিল’ বলেন তথ্যমন্ত্রী। ’
সম্প্রচারমন্ত্রী বলেন, সরকার দ্রুততম সময়ের মধ্যে ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। ১০২টি মামলা হয়েছে, ৬শ’ মানুষ গ্রেপ্তার হয়েছে। রংপুরের পীরগঞ্জে কয়েক দিনের মধ্যে সবার ঘরবাড়ি তৈরি করে দেয়া হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত প্রত্যেক পরিবার এক লাখ টাকার বেশি নগদ সহায়তা পেয়েছে। অন্যান্য জায়গায় যে কয়েকটি মন্দিরে হামলা হয়েছে, সেগুলো মেরামতের জন্য সরকার ব্যবস্থা নিয়েছে এবং প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করেছেন যে বা যারা ঘর হারিয়েছে সবার ঘর করে দেয়া হবে।

সম্পাদক ফোরাম সদস্যদের বক্তব্য ‘সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নানা ধরণের প্রচারণার ফলে সামাজিক অস্থিরতা তৈরি হয়’ এর প্রেক্ষিতে মন্ত্রী বলেন, কুমিল্লার ঘটনাটি যদি সোশ্যাল মিডিয়ায় আপলোড না হতো তাহলে এই ঘটনা বিস্তৃত হয়ে এই পরিস্থিতি তৈরি হতো না। রংপুরের পীরগঞ্জের ঘটনাও সোশ্যাল মিডিয়ার একটি পোস্টের কারণে। ফেইসবুকের পোস্টের কারণেই এটি হয়েছে এমন নয়। তবে অবশ্যই ফেইসবুকে যদি এই পোস্ট না যেতো তাহলে এই পরিস্থিতি হতো না। এটার সাথে যারা যুক্ত ছিল সবাই দায়ী। যে কোরআন শরিফ রেখে এসেছে, যে প্ররোচনা দিয়েছে, যারা একটি পোস্টের প্রেক্ষিতে যাচাই বাছাই না করে সমাজে হানাহানি তৈরি করলো, তারা সবাই দায়ী। একইসাথে ফেইসবুক কর্তৃপক্ষও দায়ী কারণ তাদের মাধ্যম ব্যবহার করে সমাজে অস্থিরতা তৈরি করা হয়েছে, এখানে তারা দায় এড়াতে পারে না। অতীতেও নাসিরনগরে, কক্সবাজারে, রামুতে যে ঘটনাগুলো ঘটেছে সেখানেও সোশ্যাল মিডিয়াকে ব্যবহার করা হয়েছে।

এসময় সরকার সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম নিয়ন্ত্রণ করতে চায় কি না সাংবাদিকরা এ প্রশ্ন করলে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমরা অবশ্যই কোনো কিছু নিয়ন্ত্রণ করতে চাই না। কিন্তু সবকিছুই এমনভাবে পরিচালিত হওয়া প্রয়োজন সেটি যাতে খারাপ কাজে ব্যবহৃত না হয়। সেখানে যাতে স্বচ্ছতা থাকে। ফেইসবুকে পরিচয় গোপন করে ফেইক আইডি দিয়ে পোস্ট দেয়া হয়, তাকে আর খুঁজে পাওয়া যায় না। এটির তো প্রতিকার হওয়া দরকার। সামাজিক মাধ্যম আজকের পৃথিবীর বাস্তবতা। এটির অনেক ভালো দিক আছে। এটির যে খারাপ দিকগুলো এটি যাতে দূরীভূত হয়, সেজন্য ফেইসবুক কর্তৃপক্ষের অবশ্যই দায় আছে, আমরা সেটিই বলতে চাচ্ছি। সরকারের পক্ষ থেকে অনেক আগেই সোশ্যাল মিডিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হয়েছিল বাংলাদেশে যেন আইডি কার্ড দিয়ে ফেইসবুক একাউন্ট খুলতে পারে। কিন্তু ফেইসবুক কর্তৃপক্ষ রাজি হয়নি।

এর আগে সভায় মন্ত্রী জানান, অনিয়মিত অনেকগুলো দৈনিক পত্রিকা বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। আরো অন্তত ২শ’ পত্রিকা যেগুলো বের হয় না, সেগুলোর ব্যাপারেও আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে। সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপনের বকেয়া বিল প্রসঙ্গে তিনি বলেন, সংবাদপত্র যদি সঠিকভাবে বিল না পায় তাহলে তাদের পক্ষে সংবাদপত্র পরিচালনা করা, সংশ্লিষ্ট সাংবাদিক, কর্মচারিসহ সবার বেতনভাতা পরিশোধ করা কঠিন হয়ে দাঁড়ায়। সার্বিকভাবে রাষ্ট্রের চতুর্থ স্তম্ভ গণমাধ্যম ক্ষতিগ্রস্ত হয়। সুতরাং এটি যাতে না হয় সেটি আমরা খেয়াল রাখছি।

সভাশেষে তথ্যমন্ত্রী সিনিয়র সাংবাদিক আজিজুল ইসলাম ভূঁইয়ার ‘বঙ্গবন্ধুর জীবনই বাঙালি জাতির রাষ্ট্রবিজ্ঞান’ এবং সাংবাদিক জান্নাতুল বাকেয়া কেকা’র ‘বঙ্গবন্ধুর ভাবনায় নারী উন্নয়ন ও স্বাস্থ্য ব্যবস্থা’ গ্রন্থ দু’টির মোড়ক উন্মোচন করেন। বাসস

বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় কুমিল্লার ঘটনা কিভাবে ঘটেছে তারাই ভালো জানেন : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, মির্জা ফখরুল সাহেবের কথা শুনে মনে হয়, কুমিল্লার ঘটনা কিভাবে ঘটানো হয়েছে, তা তাকে জিজ্ঞাসা করলেই ভালো জানা যাবে।

আজ ঢাকার মিন্টো রোডে সরকারি বাসভবনে সাংবাদিকদের সাথে মতবিনিময়কালে এক প্রশ্নের জবাবে তিনি একথা বলেন।

কুমিল্লার ঘটনায় সরকারকে দোষারোপ করে এবং কক্সবাজারে ইকবালের গ্রেফতার হওয়া নিয়ে বিএনপি মহাসচিবের মন্তব্যের জবাবে ড. হাছান বলেন, ‘প্রথম থেকেই মির্জা ফখাংল সাহেবের বক্তব্যের ধরণ হচ্ছে, `ঠাকুর ঘরে কে রে, আমি কলা খাই না` এবং মনে হচ্ছে তিনিই ভালো বলতে পারবেন ইকবালকে কারা কক্সবাজারে পাঠিয়েছে। যারা এ ঘটনায় ইন্ধন দিয়েছে, তারাই ইকবালকে কক্সবাজার পাঠিয়েছে এবং রাজনৈতিক উদ্দেশ্যে ঘটনা ঘটিয়ে আবার বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপচেষ্টা করছে।`

এ ঘটনার প্রেক্ষিতে সরকার কঠোর ও দ্রুততম ব্যবস্থা নিয়েছে এবং আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হিন্দু সম্প্রদায়ের পাশে দাঁড়িয়েছে জানান তথ্য ও সম্প্রচারমন্ত্রী।
তিনি বলেন, `আপনারা জানেন, দেশে সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করার রাজনৈতিক হীন উদ্দেশ্যে এ ঘটনা ঘটানো হয়েছে এবং সরকার দ্রুততম সময়ে এর বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নিয়েছে। একশ`র বেশি মামলা হয়েছে, কয়েকশ` জন গ্রেফতার হয়েছে এবং পূজামন্ডপে যে কোরআন শরিফ রেখে এসেছিল তাকেও গ্রেফতার করা হয়েছে। তদন্ত ও জিজ্ঞাসাবাদে বাকি তথ্য বেরিয়ে আসবে।`

একইসাথে স্বল্পতম সময়ে পীরগঞ্জে পোড়া ঘরগুলো মেরামত, নতুন ঘর নির্মাণ এবং সরকার ও আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে ক্ষতিগ্রস্তদের অর্থ এবং খাদ্য সহায়তা দেয়ার কথা জানিয়ে ড. হাছান এসময় তার আইপ্যাড থেকে পীরগঞ্জে নতুন নির্মিত ঘর ও মানুষের রান্নাবান্নাসহ গৃহকর্মের চিত্র সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরেন।

মন্ত্রী বলেন, সরকার যখন দ্রুততম সময়ে এসকল ব্যবস্থা নিয়েছে, তখন বিএনপি-জামাতসহ ধর্মান্ধগোষ্ঠি যারা ঘটনা ঘটিয়েছে, তারা ক্রমাগত মিথ্যাচার করে জনমনে বিভ্রান্তি ছড়ানোর অপচেষ্টা চালাচ্ছে। এবিষয়ে সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।

সরকারের দ্রুত ব্যবস্থা নেয়া সত্ত্বেও কোথাও কোথাও রাস্তা অবরোধের খবর পাওয়া গেছে এবিষয়ে প্রশ্নের জবাবে আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, এই ঘটনা অত্যন্ত ন্যাক্কারজনক ও আমাদের চেতনার বেদিমূলে আঘাত, আমরাও এর প্রতিবাদ জানাই ও প্রতিকারে সচেষ্ট। কিন্তু প্রতিবাদ জানাতে গিয়ে জনগণ যেন ভোগান্তির শিকার না হয় এবং আবেগতাড়িত হলেও যেন কারো বক্তব্য বাস্তবতাবিবর্জিত না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে।` বাসস

মেয়র জাহাঙ্গীরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত ১৯ নভেম্বর
                                  

অনলাইন ডেস্ক : গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র ও গাজীপুর মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর আলমের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হবে কি না, সে বিষয়ে আগামী ১৯ নভেম্বর সিদ্ধান্ত হবে।

শনিবার (২৩ অক্টোবর) সাংবাদিকদের এক প্রশ্নে জবাবে এমন কথা জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।


তিনি জানান, গাজীপুরের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম এবং স্থানীয় সরকার নির্বাচনসহ অন্যান্য আরও কিছু সাংগঠনিক শৃঙ্খলাবিরোধী উপস্থাপনীয় অভিযোগ আগামী ১৯ নভেম্বর শুক্রবার বিকেল ৪টায় গণভবনে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সভায় উত্থাপিত হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, সভায় রাজনৈতিক ও সাংগঠনিক আলোচনার পাশাপাশি দলীয় আদর্শ এবং শৃঙ্খলাবিরোধী বক্তব্যের জন্য গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমকে প্রদত্ত শোকজ নোটিশের ওপর আলোচনা ও সিদ্ধান্ত গৃহীত হবে।

এদিকে, কুমিল্লার ঘটনায় গ্রেফতার ইকবালের বিষয়ে বিএনপি মহাসচিবের বক্তব্যে অনুমান হয় যে তার (মির্জা ফখরুল) কাছে অধিকতর তথ্য রয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন ওবায়দুল কাদের। শনিবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক তার বাসভবনে ব্রিফিংকালে বিএনপি মহাসচিবের কাছে প্রশ্ন রেখে আরও জানতে চেয়ে বলেন, আপনিই তথ্য-প্রমাণ দিয়ে বলুন, এ কয়দিন ইকবাল কোথায় ছিল?

ভিডিও ফুটেজে চিহ্নিত হওয়া কুমিল্লার পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখা ইকবাল হোসেনকে গ্রেফতারের পর বিএনপি মহাসচিব প্রশ্ন তুলেছেন গ্রেফতার যুবক এতদিন কোথায় ছিল? তার এমন প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, আসলে যেকোনো অর্জন বা সাফল্যকে বিতর্কিত করা বিএনপির স্বভাব। তিনি বলেন, প্রতিটি বিষয়ে সন্দেহ করার বিরল প্রজাতির ভাইরাস আক্রান্ত বিএনপি।

অবস্থাদৃষ্টে জনমনে প্রশ্ন ও সন্দেহ দেখা দিয়েছে যে, বিএনপির এই অতিপ্রতিক্রিয়া বা আগবাড়িয়ে কথা বলা তাদের নিজেদের অপরাধ লুকোনোর কৌশল কি না, এমনটা মনে করে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, বিএনপির দ্বিচারিতা সম্পর্কে দেশের মানুষ ভালো করেই জানেন। তারা চোরকে বলে চুরি কর, আর গৃহস্থকে বলে সজাগ থাক।

বিএনপি হিন্দু সম্প্রদায়ের সদস্যদের সবসময় প্রতিপক্ষ ভেবে আসছে দাবি করে ওবায়দুল কাদের বলেন, এখন তারা সরকারের ওপর দায় চাপাচ্ছেন আর হিন্দু সম্প্রদায়ের জন্য মায়াকান্না করছেন।

ওবায়দুল কাদের বিএনপি মহাসচিবের কাছে জানতে চেয়ে বলেন, ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে আপনাদেরকে ভোট না দেওয়ার কথিত অপরাধে হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর নির্মম নির্যাতন চালিয়েছিলেন কেন? কেন ঘরবাড়ি পুড়িয়েছিলেন, সম্পদ লুট করেছিলেন? নারীরা কেন নির্যাতনের শিকার হয়েছিল?

সরকারের মদত ছাড়া নাকি সাম্প্রদায়িক সমস্যা তৈরি হয় না, বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, তাহলে ২০০১ সালের সমস্যার দায় কি বিএনপি স্বীকার করে নিচ্ছে?

তিনি আশা প্রকাশ করে বলেন, বিএনপি নেতারা এসব বিষয়ে স্পষ্ট করবেন।

বিএনপি আগামী নির্বাচনে ভরাডুবির আশঙ্কায় সংখ্যালগুদের উপর হামলা করছে : কামরুল ইসলাম
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : বিএনপি আগামী নির্বাচনে ভরাডুবির আশঙ্কায় সংখ্যালগুদের ওপরে হামলা করে যাচ্ছে এবং সাম্প্রদায়িক বিষবাষ্প ছড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগ নেতা এডভোকেট কামরুল ইসলাম এমপি আজ ২০ অক্টোবর ২০২১ বুধবার সকালে রাজধানী ঢাকার কেরানীগঞ্জের ঘাটারচরে, কেরানীগঞ্জ মডেল থানা আওয়ামী লীগের প্রধান কার্যালয়ের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ মন্তব্য করেন। এডভোকেট কামরুল ইসলাম বলেন, তারা নির্বাচনে পরাজিত হয়ে যে তান্ডব চালিয়েছিল সে কথা আপনারা ভুলেন নাই। তারা সেদিন নির্বাচনে পরাজিত হয়ে এই সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা চালিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, আগামী নির্বাচনকে সামনে রেখে আজকে তারা সংখ্যালঘুদের ওপর হামলা করেছে। তারা বিভিন্ন মন্দিরে পরিকল্পিতভাবে আক্রমণ করছে। তারা সম্প্রীতির বন্ধন নস্যাৎ করার চেষ্টা করছে।

আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক মির্জা আজম এমপি বলেন, সাম্প্রদায়িক সহিংসতার চক্রান্ত সফল হতে দেওয়া হবে না। এসময় অন্য নেতারা বলেন, আগামী নির্বাচন সামনে রেখে পরিকল্পিতভাবে হামলা চালাচ্ছে বিএনপি-জামায়াত। যারা দেশের বিরুদ্ধে সন্ত্রাস করতে চায় তাদেরকে ঐক্যবদ্ধভাবে মোকাবিলা করার আহ্বান জানান তারা। কেরানীগঞ্জ মডেল থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক ইউসুফ আলী চৌধুরী সেলিমের সভাপতিত্বে এবং যুগ্ম-আহবায়ক হাজী আলতাফ হোসেন বিপ্লব ও হাজী শফিউল আজম খান বারকুর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠিত সভায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সাবেক মন্ত্রী এডভোকেট কামরুল ইসলাম ঢাকা-২ সংসদীয় আসনের এমপি, বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব বেনজির আহমেদ ঢাকা-২০ সংসদীয় আসনের এমপি, কেরানীগঞ্জ উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও দক্ষিণ কেরানীগঞ্জ থানা আওয়ামী লীগের আহবায়ক শাহীন আহমেদ প্রমুখ।

বিএনপি সাম্প্রদায়িক শক্তিকে উসকে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় : ওবায়দুল কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, নির্বাচন সামনে রেখে আন্দোলনে ব্যর্থ বিএনপি আজকে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে উসকে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়।

তিনি বলেন, হিন্দু ভাই ও বোনদের বলব, আপনাদের ভয় নেই। শেখ হাসিনা আপনাদের সঙ্গে আছেন, আওয়ামী লীগ আছে।বিএনপি আজকে সাম্প্রদায়িক শক্তিকে উসকে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায়। আমরা জানি, কাদের উসকানিতে এই অপশক্তি মাথাচাড়া দিয়ে উঠেছে।
ওবায়দুল কাদের আজ মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) সকালে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে আয়োজিত এক সমাবেশে এ কথা বলেন। সাম্প্রদায়িক সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে আওয়ামী লীগ ‘সম্প্রীতি সমাবেশ’-এর আয়োজন করে।
সাম্প্রদায়িক অপশক্তির বিরুদ্ধে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা মাঠে থাকবে জানিয়ে কাদের বলেন, যতদিন না সাম্প্রদায়িক শক্তির বিষদাঁত ভেঙে দিতে পারব, ততদিন আওয়ামী লীগ রাজপথে থাকবে। আওয়ামী লীগ এই অপশক্তিকে মোকাবিলা করবে।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, যারা এই সাম্প্রদায়িকতার বিষবাক্য ছড়াচ্ছে তাদের ভুলে যাওয়া উচিত নয়, এই দেশে যত মুসলমান, তার চেয়ে বেশি মুসলমান প্রতিবেশী দেশ ভারতে আছে। এখানে মাইনরিটিকে যদি আমরা ঝুঁকির মুখে ঠেলে দিই, ভারতে আমাদের চেয়ে বেশি সংখ্যক মুসলমান; তাদের জীবনের কথা, জানমালের কথা আমাদের ভাবতে হবে। বাসস

এক প্রতিমন্ত্রী উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন: জিএম কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জাতীয় পার্টি চেয়ারম্যান ও সংসদে বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ (জিএম) কাদের বলেছেন, সাম্প্রদায়িক ষড়যন্ত্র মোকাবিলা ও পূজামণ্ডপের নিরাপত্তা রক্ষায় সরকার পুরোপুরি ব্যর্থ হয়েছে। গোয়েন্দা সংস্থা ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা কেন ব্যর্থ হলো তা অবশ্যই খতিয়ে দেখতে হবে।

তিনি বলেন, উত্তেজনাকর পরিস্থিতিতে একজন প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রধর্ম মানি না বলে উস্কানিমূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন। তার বক্তব্য কোটি কোটি ধর্মপ্রাণ মানুষের অন্তরে আঘাত করেছে। তিনি প্রতিমন্ত্রী হিসেবে সংবিধান সংরক্ষণের শপথ ভঙ্গ করেছেন।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে জাতীয় পার্টি কেন্দ্রীয় কার্যালয় কাকরাইল মিলনায়তনে ঈদে মিলাদুন্নবী (স.) উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

২০১১ সালে আওয়ামী লীগ সরকার পঞ্চদশ সংশোধনীতে রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম বহাল রেখেছে উল্লেখ করে জিএম কাদের বলেন, তাই রাষ্ট্রধর্ম ইসলামের বিরুদ্ধে কথা বলে ওই মন্ত্রী দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গ করেছেন। তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। কেউ যদি রাষ্ট্রধর্ম বাতিল করতে চায়, জাতীয় পার্টি তা আনচ্যালেঞ্জ ছেড়ে দেবে না।

এসময় জাতীয় পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু বলেন, ধর্মনিরপেক্ষ আওয়ামী লীগ ও বিএনপি দেশ পরিচালনা করলেই সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটে। বর্তমান সরকার সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি রক্ষায় চরমভাবে ব্যর্থ হয়েছে। সম্প্রতি এক প্রতিমন্ত্রীর উস্কানিমূলক বক্তব্যের সঙ্গে সাম্প্রদায়িক হামলার যোগসূত্র আছে কিনা তা খতিয়ে দেখতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

আলোচনা সভায় আরও উপস্থিত ছিলেন জাতীয় পার্টির প্রেসিডিয়াম সদস্য মো. সাহিদুর রহমান টেপা, মীর আব্দুস সবুর আসুদ, হাজী সাইফুদ্দিন আহমেদ মিলন, মো. শফিকুল ইসলাম সেন্টু, অ্যাডভোকেট মো. রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, নাজমা আক্তার এমপি, লিয়াকত হোসেন খোকা প্রমুখ।

দেশব্যাপী তাণ্ডব সরকারের গভীর চক্রান্তের অংশ: ফখরুল
                                  

অনলাইন ডেস্ক : কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে দেশব্যাপী যে তাণ্ডব শুরু হয়েছে তা সরকারের গভীর চক্রান্তের অংশ বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতি বিনষ্ট করে, সমাজে নৈরাজ্য তৈরি করে রাজনৈতিক সুবিধা আদায়ের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে সরকার। দেশের মানুষের জানমালের নিরাপত্তা এক বিপজ্জনক পরিস্থিতির দিকে ঠেলে দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) দলের সহ-দফতর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক বিবৃতিতে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

বিএনপি মহাসচিব অভিযোগ করেন, সরকারি দল, প্রশাসন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনী যৌথভাবে আইনের শাসন, নাগরিক অধিকার, বাক স্বাধীনতা তথা গণতন্ত্র উচ্ছেদ করতে সকল শক্তি প্রয়োগ করে আসছে। অথচ সম্প্রতি কুমিল্লার ঘটনার পর হিন্দু সম্প্রদায়ের নিরাপত্তার ব্যাপারে সরকার সম্পূর্ণরুপে উদাসীন ছিল।

তিনি বলেন, সকলেই জানে সরকারের ষড়যন্ত্রমূলক কর্মকাণ্ডের জন্য দেশের সংখ্যালঘু সম্প্রদায় এখন ভয়-ভীতি ও শঙ্কার মধ্যে দিনাতিপাত করছেন। কুমিল্লার ঘটনার রেশ ধরে চাঁদপুর, চট্টগ্রাম, ফেনী, নোয়াখালী, রংপুর, হবিগঞ্জসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে সংঘটিত ঘটনায় দিবালোকের মতো পরিষ্কার যে, আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর নির্লিপ্ততা ও তাদের চোখের সামনেই এধরনের অরাজক ঘটনা সংঘটিত হয়েছে। কুমিল্লার ঘটনাকে কেন্দ্র করে যে ঘটনা ঘটেছে তা নজিরবিহীন।

মির্জা ফখরুল বলেন, এখন উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপাতে দেশব্যাপী নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সাথে বিএনপি নেতাকর্মীদেরকে জড়িত করতে সরকার চক্রান্তমূলক নীলনকশা বাস্তবায়ন করছে। বিএনপি এবং এর অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে তাদেরকে পাইকারি হারে গ্রেফতার করছে। নোয়াখালীতে সংঘটিত ঘটনায় উদ্দেশ্যপ্রণোদিতভাবে নোয়াখালী জেলা যুবদলের সভাপতি মঞ্জুরুল আজিম সুমন, চৌমুহনী সরকারি কলেজের সাবেক জিএস নিজামুদ্দিন রুবেল, জেলা যুবদলের সহ-সাধারণ সম্পাদক আব্দুল বাতেন সুজন, চৌমুহনী পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক রাশেদ সুমন, হাতিয়া উপজেলা ছাত্রদলের আহ্বায়ক আরেফিন আলী, স্বেচ্ছাসেবক দলের আকরাম হোসেন, মোহাম্মদ আলী, সম্পদ হাওলাদার রাজু, যুবদল নেতা কামরুজ্জামান ও রফিকসহ অসংখ্য নেতাকর্মীর নামে মিথ্যা মামলা দায়ের করা হয়েছে। ইতোমধ্যে সূবর্ণচর উপজেলা যুবদলের আহ্বায়ক বেলাল উদ্দিন সুমন, হাতিয়া উপজেলা যুবদলের যুগ্ম আহ্বায়ক আমিরুল ইসলাম আমিরসহ ৬০ জনকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে। চট্টগ্রামের সাতকানিয়া উপজেলায় বিএনপি নেতা মজিবুর রহমানসহ অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বেশ কিছু নেতাকর্মীকে মিথ্যা মামলায় আসামি করা হয়েছে।

এ সময় বিএনপি এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের গ্রেফতার ও তাদের নামে মিথ্যা মামলা দায়েরে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করে এর তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। এছাড়া বিএনপি নেতাকর্মীদের নামে দায়ের মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের জোর দাবি জানান তিনি।

`সর্বদলীয় সরকার গঠন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করুন`
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সর্বদলীয় সরকার গঠন করে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অবসরে যাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা ডা. জাফরুল্লাহ চোধুরী।

তিনি বলেছেন, সর্বদলীয় সরকার গঠন না করে ইতিহাসের পাতায় বেশিদিন থাকতে পারবেন না। আপনাকে অনুরোধ করছি, অবসরে যান। আপনার বোন শেখ রেহানাকে আনুন, তোফায়েলকে আনুন। সর্বদলীয় সরকার গঠন করুন। মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করুন।

মঙ্গলবার (১৯ অক্টোবর) বেলা সাড়ে ১১টায় ধানমন্ডির গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতালের বীর উত্তম মেজর হায়দার মিলনায়তনে এক জরুরি সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

কুমিল্লা, চাঁদপুর, নোয়াখালী, রংপুরসহ দেশের বিভিন্ন জেলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের মন্দির ও ঘরবাড়িতে হামলা, ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগসহ সার্বিক বিষয়ে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠাতা জাফরুল্লাহ চোধুরী, ভাসানী অনুসারী পরিষদ, রাষ্ট্র সংস্কার আন্দোলন ও গণসংহতি আন্দোলন।

সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীকে প্রতিরোধে বিএনপির আরও সাহসী ভূমিকা পালন করা দরকার ছিল মন্তব্য করে ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, লন্ডনে কবে ঘণ্টা বাজবে সেটা লক্ষ্য না করে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা দমনে বেরিয়ে যাওয়া দরকার। আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের মতো ভাঙা আঙুলকে ভয় পাওয়ার দরকার নেই। কারণ, দেশের বহু মানুষ আপনাদের ভালোবাসে। কিন্তু প্রতিবাদ করার সাহস পাচ্ছে না।

জাফরুল্লাহ চোধুরী বলেন, হামলার সাতদিন হয়ে গেছে। কিন্তু প্রধানমন্ত্রী পরিদর্শনে যাননি। তিনি যদি প্রথম দিনেই পরিদর্শনে যেতেন, তাহলে এখন আর ঘটনাগুলো ঘটতো না। অন্যদিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরও নিজ এলাকায় যাননি। নিজের ভোটারদের খবর নেননি। তিনি শুধু পারেন টেলিভিশনে আঙুল নাড়িয়ে কথা বলতে।

গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জুনায়েদ সাকী বলেন, দেশে একের পর এক হিন্দু সম্প্রদায়ের ওপর হামলা, পুজামন্ডপ, মন্দির ও ঘরবাড়িতে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটছে। কিন্তু হামলাকারীদের বিরুদ্ধে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে না। এর দায় সরকারকে নিতে হবে। এখন যদি সরকার এই নৈরাজ্য বন্ধ করতে না পারে, তা হলে সরকার পতন আন্দোলন শুরু হবে।

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ চাইলেন জি এম কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ও বিরোধীদলীয় উপনেতা গোলাম মোহাম্মদ কাদের বলেছেন, তথ্য প্রতিমন্ত্রী রাষ্ট্রধর্ম মানি না বলে সংবিধান সংরক্ষণের শপথ ভঙ্গ করেছেন।

তথ্য প্রতিমন্ত্রীর উচিত পদত্যাগ করা। গতকাল জাতীয় পার্টির বনানী কার্যালয়ে টাঙ্গাইল জেলা জাতীয় পার্টির নেতাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় তিনি এ কথা বলেন।

জি এম কাদের বলেন, আওয়ামী লীগের উচিত দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ওই প্রতিমন্ত্রীকে বহিষ্কার করা। প্রধানমন্ত্রী ইচ্ছে করলে ব্যবস্থা নিতে পারেন। দেশের ৯২ ভাগ মুসলমানের মনের আশা পূরণ করতেই পল্লীবন্ধু হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম ঘোষণা করেন। এর বিরুদ্ধে কোনো ষড়যন্ত্র দেশের মানুষ মেনে নেবে না।
এ সময় বক্তব্য রাখেন পার্টির মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু, প্রেসিডিয়াম সদস্য রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, লিয়াকত হোসেন খোকা, যুগ্ম মহাসচিব বেলাল হোসেন, কেন্দ্রীয় নেতা নুরুচ্ছফা সরকার, মোজাম্মেল হক, ছাত্র সমাজ সাধারণ সম্পাদক আল মামুন।


   Page 1 of 109
     রাজনীতি
পীরগঞ্জের ঘটনায় ছাত্রলীগকে জড়ানোর অপচেষ্টা ব্যর্থ : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
অপপ্রচারই বিএনপি’র শেষ আশ্রয়স্থল : সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
গণমানুষের কল্যাণেই প্রাদেশিক সরকার ব্যবস্থা দরকার: জি এম কাদের
.............................................................................................
আইসিইউ থেকে কেবিনে খালেদা জিয়া
.............................................................................................
রুহুল আমিন হাওলাদারকে দেখতে হাসপাতালে জিএম কাদের
.............................................................................................
বিএনপি আরো একটি ওয়ান ইলেভেনের স্বপ্নে বিভোর : সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার অবস্থার অবনতি, দেখতে এলেন কোকোর স্ত্রী
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরাই হিন্দুদের পাশে দাঁড়িয়েছে, দায় এড়াতে পারে না সামাজিক মাধ্যম : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বিএনপির বক্তব্যে মনে হয় কুমিল্লার ঘটনা কিভাবে ঘটেছে তারাই ভালো জানেন : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
মেয়র জাহাঙ্গীরের বিষয়ে সিদ্ধান্ত ১৯ নভেম্বর
.............................................................................................
বিএনপি আগামী নির্বাচনে ভরাডুবির আশঙ্কায় সংখ্যালগুদের উপর হামলা করছে : কামরুল ইসলাম
.............................................................................................
বিএনপি সাম্প্রদায়িক শক্তিকে উসকে দিয়ে ঘোলা পানিতে মাছ শিকার করতে চায় : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
এক প্রতিমন্ত্রী উসকানিমূলক বক্তব্য দিয়ে যাচ্ছেন: জিএম কাদের
.............................................................................................
দেশব্যাপী তাণ্ডব সরকারের গভীর চক্রান্তের অংশ: ফখরুল
.............................................................................................
`সর্বদলীয় সরকার গঠন করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বাস্তবায়ন করুন`
.............................................................................................
তথ্য প্রতিমন্ত্রীর পদত্যাগ চাইলেন জি এম কাদের
.............................................................................................
সারাদেশে সম্প্রীতি সমাবেশ ও শান্তি শোভাযাত্রা করবে আওয়ামী লীগ
.............................................................................................
সরকারকে প্রশ্নবিদ্ধ করতেই পীরগঞ্জে হামলা : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বৈঠক করে সিরিজ সন্ত্রাস শুরু করেছে বিএনপি: নাছিম
.............................................................................................
বিএনপি সাম্প্রদায়িক অপশক্তির নাম্বার ওয়ান পৃষ্ঠপোষক : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
পালানোর রাজনীতি আওয়ামী লীগ নয় বিএনপি করে : কাদের
.............................................................................................
আওয়ামীলীগের প্রতি মানুষের আস্থা নেই : মির্জা ফখরুল ইসলাম
.............................................................................................
সরকার পতনের দিবা স্বপ্ন বিএনপি’র রঙিন খোয়াবে পরিণত হবে : সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
খালেদা জিয়া হাসপাতালে ভর্তি
.............................................................................................
বিএনপি প্রেসক্লাবের মর্যাদা ক্ষুন্ন করেছে : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
৯০-এর মতো গণঅভ্যুত্থান ঘটিয়ে এই সরকারকে হটাতে হবে : মির্জা ফখরুল ইসলাম
.............................................................................................
জাপার নতুন মহাসচিব মুজিবুল হক চুন্নু
.............................................................................................
জনবিচ্ছিন্ন দলই নির্বাচন বর্জনের কথা বলে : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ঘোমটা পরে ইউপি নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে বিএনপি: কাদের
.............................................................................................
আমরা এই সরকারকে শক্তিশালী মনে করিনা তারা পুলিশ আদালতের প্রভাব বিস্তার করে: গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
.............................................................................................
টাকা খেয়ে খারাপ লোকের নাম কেন্দ্রে পাঠাবেন না : কাদের
.............................................................................................
বিএনপি এখন কাগজের বাঘ, শক্তি নেই : কামরুল ইসলাম
.............................................................................................
শ্রদ্ধা-ভালোবাসায় জিয়াউদ্দিন বাবলুকে চিরবিদায়
.............................................................................................
নির্বাচনে ভরাডুবির শঙ্কায় বিএনপির হৃৎকম্পন শুরু হয়েছে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিএনপি প্রতিবার জনগণের ম্যান্ডেট নিয়ে ক্ষমতায় এসেছে : মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
জাতীয় পার্টির মহাসচিবের ইন্তেকালে তথ্যমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
জাপা মহাসচিব জিয়াউদ্দিন বাবলু আর নেই
.............................................................................................
একনজরে জিয়াউদ্দিন আহমেদ বাবলু : জন্ম ১৯৫৪-মৃত্যু ২০২১ ঈসায়ী
.............................................................................................
শেখ হাসিনার রাজনীতি গরীব-দু:খী মেহনতী মানুষের জন্য: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশকে স্বপ্নের ঠিকানায় নিতে শেখ হাসিনার বিকল্প নেই: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ফ্যসিস্ট সরকারকে পরাজিত করে জনগনের সরকার প্রতিষ্ঠিত করতে হবে
.............................................................................................
মেগা প্রকল্প উদ্বোধন হলে বিএনপি নেতারা চোখে সর্ষে ফুল দেখবে : সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
বিএনপি সবসময়ই চোরাগলি পথে ক্ষমতায় এসেছে: কৃষিমন্ত্রী
.............................................................................................
সরকার জবরদখল করে বসে আছে : মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
আমলারাই নিজেদের স্বার্থে সরকারকে ক্ষমতা ছাড়তে দিচ্ছে না : গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
.............................................................................................
সাহস থাকলে তারেককে দেশে ফিরিয়ে আনুন, বিএনপিকে কাদের
.............................................................................................
আজকে বাংলাদেশে কেউ ভালো নেই : মির্জা ফখরুল ইসলাম
.............................................................................................
তৃণমূল নেতাকর্মীরা আওয়ামী লীগের প্রাণ: তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
ই-কমার্স গ্রাহকদের লোভ কমিয়ে সচেতন হওয়ার পরামর্শ
.............................................................................................
জাতীয় পার্টির ভাইস চেয়ারম্যান হলেন শাফিন
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop