| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * লকডাউনে বিয়ে: ইউএনও`র আগমনে খাবার রেখেই পালালো বরযাত্রী   * বার্সেলোনার সঙ্গে নেইমারের নতুন চুক্তি   * বগুড়ায় করোনায় নার্সের মৃত্যু   * একদিনে সর্বোচ্চ ১২৩ জন ডেঙ্গু রোগী হাসপাতালে ভর্তি   * চট্টগ্রামে বিধিনিষেধ অমান্য করায় ২১৮ মামলা, জরিমানা লাখ টাকা   * জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনের মার্কেটে আগুন   * তিউনিসে আল-জাজিরার ব্যুরো অফিসে অভিযান   * স্বজনের লাশ দেখতে গিয়ে সড়কে ঝরল নারীর প্রাণ   * কক্সবাজারের ঈদগাঁও-কে নতুন উপজেলা ঘোষনা   * করোনায় করণীয় নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠক বসছে  

   শিক্ষাঙ্গন -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ

অনলাইন ডেস্ক : এ বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতির অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে তিন সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। এসএসসির জন্য ১২ সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে শিক্ষার্থীদের। গ্রুপভিত্তিক তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে এসব অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে।

রোববার রাতে অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে এই অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করা হয়। অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ ও মূল্যায়ন নির্দেশিকাও প্রকাশ করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে এবার সব বিষয়ে না নিয়ে কেবল গ্রুপভিত্তিক নৈর্বাচনিক তিন বিষয়ে নেওয়া হবে। এই বিষয়গুলোর সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি শেষ করা হবে অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে।

গত বৃহস্পতিবার এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানিয়েছিলেন, করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে এলে মাধ্যমিক পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় হচ্ছে এসএসসি ও সমমান এ বছরের নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ।

এই পরীক্ষার জন্য অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির (সিলেবাস) ভিত্তিতে এসএসসি ও সমমানের অ্যাসাইনমেন্ট ১৮ জুলাই থেকে দেওয়া শুরু হবে। যেটি প্রকাশ করা হলো রোববার রাতে।

১২টি সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে প্রতি সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেবে শিক্ষার্থীরা। প্রতিটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে মোট আটটি করে অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। এর মাধ্যমে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি সম্পন্ন করো হবে।

তবে বাংলা, ইংরেজিসহ আবশ্যিক বিষয়ে এবং চতুর্থ বিষয়ে কোনো অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে না শিক্ষার্থীদের। আবশ্যিক বিষয়ের নম্বর জেএসসি, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ‘বিষয় ম্যাপিং’ করে নম্বর নির্ধারণ করা হবে। অর্থাৎ শুধু নৈর্বাচনিক তিনটি বিষয়ের মূল্যায়ন হবে।

এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : এ বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার প্রস্তুতির অংশ হিসেবে প্রথম পর্যায়ে তিন সপ্তাহের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর। এসএসসির জন্য ১২ সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে শিক্ষার্থীদের। গ্রুপভিত্তিক তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে এসব অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে।

রোববার রাতে অধিদপ্তরের ওয়েবসাইটে এই অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ করা হয়। অ্যাসাইনমেন্ট বিতরণ ও মূল্যায়ন নির্দেশিকাও প্রকাশ করা হয়েছে।

করোনা ভাইরাসের কারণে এবার সব বিষয়ে না নিয়ে কেবল গ্রুপভিত্তিক নৈর্বাচনিক তিন বিষয়ে নেওয়া হবে। এই বিষয়গুলোর সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি শেষ করা হবে অ্যাসাইনমেন্টের ভিত্তিতে।

গত বৃহস্পতিবার এক ভার্চ্যুয়াল সংবাদ সম্মেলনে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি জানিয়েছিলেন, করোনা পরিস্থিতি অনুকূলে এলে মাধ্যমিক পরীক্ষা হবে। পরীক্ষার সম্ভাব্য সময় হচ্ছে এসএসসি ও সমমান এ বছরের নভেম্বরের দ্বিতীয় সপ্তাহে এবং এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষা ডিসেম্বরের প্রথম সপ্তাহ।

এই পরীক্ষার জন্য অ্যাসাইনমেন্ট জমা দিতে হবে শিক্ষার্থীদের। সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচির (সিলেবাস) ভিত্তিতে এসএসসি ও সমমানের অ্যাসাইনমেন্ট ১৮ জুলাই থেকে দেওয়া শুরু হবে। যেটি প্রকাশ করা হলো রোববার রাতে।

১২টি সপ্তাহে মোট ২৪টি অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। তিনটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে প্রতি সপ্তাহে দুটি করে অ্যাসাইনমেন্ট জমা দেবে শিক্ষার্থীরা। প্রতিটি নৈর্বাচনিক বিষয়ে মোট আটটি করে অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে। এর মাধ্যমে সংক্ষিপ্ত পাঠ্যসূচি সম্পন্ন করো হবে।

তবে বাংলা, ইংরেজিসহ আবশ্যিক বিষয়ে এবং চতুর্থ বিষয়ে কোনো অ্যাসাইনমেন্ট করতে হবে না শিক্ষার্থীদের। আবশ্যিক বিষয়ের নম্বর জেএসসি, এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষার ‘বিষয় ম্যাপিং’ করে নম্বর নির্ধারণ করা হবে। অর্থাৎ শুধু নৈর্বাচনিক তিনটি বিষয়ের মূল্যায়ন হবে।

এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস না পরীক্ষা, ঘোষণা চলতি সপ্তাহে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : চলতি বছরের আটকে থাকা এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার ভবিষ্যৎ নির্ধারণ করা হয়েছে। সংক্ষিপ্ত আকারে পরীক্ষা নাকি অটোপাস দেয়া হবে সে সিদ্ধান্ত জানিয়ে দেবেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি। চলতি সপ্তাহে সংবাদ সম্মেলন করে শিক্ষামন্ত্রী এ বিষয়ে ঘোষণা দেবেন বলে জানা গেছে।

জানা গেছে, ২০২১ সালের ঝুলে থাকা এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে বিকল্প পদ্ধতিতে পাস করানোর চিন্তাভাবনা করছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এজন্য একাধিক প্রস্তাব তৈরি করে প্রধানমন্ত্রীর কাছে পাঠানো হয়েছে।

প্রস্তাবে বলা হয়েছে, রচনামূলক বা সৃজনশীল প্রশ্ন বাদ দিয়ে কেবল বহুনির্বাচনী প্রশ্নে (এমসিকিউ) পরীক্ষা নেয়া। বিষয় ও পূর্ণমান (পরীক্ষার মোট নম্বর) কমিয়ে পরীক্ষা নেয়া। এক্ষেত্রে প্রতি বিষয়ের দুই পত্র একীভূত করা।

পাশাপাশি ২০০ নম্বরের বদলে ১০০ নম্বরে পরীক্ষা নেয়া হবে। কিন্তু উভয়ক্ষেত্রেই করোনা পরিস্থিতির উন্নতি জরুরি। অর্থাৎ সংক্রমণ ১০ শতাংশের নিচে নেমে এলে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে পরীক্ষা নেয়া হবে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কেন্দ্রের সংখ্যা বর্তমানের তুলনায় দ্বিগুণ করে এই পরীক্ষা নেয়া হবে।

এমনটি সম্ভব না হলে এসএসসির ক্ষেত্রে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার ফলের ৫০ শতাংশ এবং অ্যাসাইনমেন্ট ও ক্লাস অ্যাকটিভিটিসের ওপর ৫০ শতাংশ ফলাফল নিয়ে ফল প্রস্তুত করা হতে পারে। এইচএসসির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর এসএসসির ফলের ৫০ শতাংশ, জেএসসির ২৫ শতাংশ এবং অ্যাসাইনমেন্টের ফলের ২৫ শতাংশ সমন্বয় করে ফল প্রকাশের জন্য প্রস্তাব করা হয়েছে।

সে বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী একটি প্রস্তাবে অনুমোদন দিয়েছেন। সেটি শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির কাছে পাঠানো হয়েছে। সে বিষয়টি তুলে ধরতে চলতি সপ্তাহে সংবাদ সম্মেলন করে তা জানিয়ে দেয়া হবে। এর ভিত্তিতে শিক্ষা বোর্ডগুলো ফলাফল প্রকাশের কাজ শুরু করবে বলে জানা গেছে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের সোমবার বলেন, চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার বিষয় নিয়ে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। কবে সেটি হবে এখনো নির্ধারিত দিন ধার্য করা না হলেও চলতি সপ্তাহে এ সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করা হবে।

জানা গেছে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬০ দিন এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ৮৪ দিনে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শেষ করা হবে। বর্তমানে শিক্ষার্থীরা সেটির ওপর প্রস্তুতি নিচ্ছেন। হঠাৎ করে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শেষ করে পরীক্ষা নেয়া অসম্ভব তা শিক্ষামন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছেন। বিকল্প পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

জানতে চাইলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. নেহাল আহমেদ বলেন, করোনা পরিস্থিতির কারণে চলতি বছরের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা আটকে আছে। সেটি আর নেয়া সম্ভব হবে কি না বা বিকল্প পদ্ধতিতে পাস করানো হবে সেসব বিষয়ে সিদ্ধান্ত জানাতে শিক্ষামন্ত্রী সংবাদ সম্মেলন করে ঘোষণা দেবেন।

সূত্র জানায়, চলতি সপ্তাহের ১৪ অথবা ১৫ জুলাই এ সংবাদ সম্মেলন আয়োজন করা হতে পারে। সেখানে শিক্ষামন্ত্রী যে দিকনির্দেশনা দেবেন, তা বাস্তবায়ন করে ফলাফল প্রকাশ করা হবে।

বিকল্প মূল্যায়নে এসএসসি-এইচএসসির ফল
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সারাদেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এসএসসি, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীদের পরীক্ষা বাদে বিকল্প পদ্ধতিতে মূল্যায়ন করে ফলাফল ঘোষণার সিদ্ধান্তের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়। এতে চলতি বছরে প্রায় ৪০ লাখ এসএসসি, এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষার্থীর ভাগ্য মূল্যায়ন পদ্ধতির ওপর নির্ভর করছে।

এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি গণমাধ্যমকে বলেছেন, করোনাভাইরাস সংক্রমণে শিক্ষার্থীরা যাতে বাড়িতে বসে পড়তে পারে সেজন্য সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দেয়া হয়েছে। করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় এখন কোনও না কোনও মূল্যায়ন তো হবেই।

তিনি বলেন, পরিকল্পনা ছিল সংক্ষিপ্ত সিলেবাস পড়িয়েই শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা নেয়া হবে। যদি পড়ানো না যায়, তা হলে অ্যাসাইনমেন্ট করা হচ্ছে, সেটা করেই মূল্যায়নে যাবো নাকি এসএসসির ওপর ভিত্তি করে এইচএসসির মূল্যায়ন করবো? তাহলে এসএসসির কী হবে? এ ক্ষেত্রে অষ্টম শ্রেণির মূল্যায়ন শুধু পাবো। কিভাবে মূল্যায়নটা হবে সে বিষয়ে শিগগিরই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

করোনা মহামারির কারণে গত বছর ১১টি শিক্ষা বোর্ডের অধীনে ১৩ লাখ ৬৫ হাজার ৭৮৯ জন পরীক্ষার্থী এইচএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় অংশ না নিয়েই আগের ফল মূল্যায়নের ভিত্তিতে অটোপাস করে যায়। এ ছাড়া ২০১৯ সালের এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষায় সারাদেশের ২১ লাখ ২৭ হাজার ৮১৫ জন শিক্ষার্থী পরীক্ষা অংশ নেয় এবং তাদের মধ্যে ১৭ লাখ ৪৯ হাজার ১৬৫ জন পাস করে। সেই হিসাবে এ বছর প্রায় সেই সাড়ে ১৭ লাখ শিক্ষার্থীর এইচএসসি পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার কথা।

সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, সংক্ষিপ্ত সিলেবাস দিয়ে এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়ার পরিকল্পনা আছে। যদি পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব না হয় তাহলে বিকল্প পদ্ধতিতে মূল্যায়নের দিকে যেতে হবে। এরপরও পরীক্ষার্থীদের ক্ষতির মুখে ফেলানো যাবে না।

প্রসঙ্গত, ২০২০ সালে ৮ মার্চ দেশে করোনাভাইরাস মানুষের শরীরে প্রথম শনাক্তের পর ১৭ মার্চ দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়। চলতি বছরেও করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে না আসায় আগামী ৩১ জুলাই পর্যন্ত বন্ধ সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

টিকার তথ্য দিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশনা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস সংক্রমণের ঝুঁকি এড়াতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সব কলেজের শিক্ষার্থীর কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণ সংক্রান্ত তথ্য পাঠাতে জরুরি নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। শুক্রবার (০৯ জুলাই) বিশ্ববিদ্যালয় থেকে এ নির্দেশনা দেয়া হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, বিষয়টি জাতীয় জনগুরুত্বপূর্ণ ও জনস্বাস্থ্য সম্পর্কিত জরুরি বিচেনায় অধিভুক্ত কলেজের সম্মানিত অধ্যক্ষকে নিজ নিজ কলেজের শিক্ষার্থীদের তথ্য ছক পুরণ নিশ্চিত করার জন্য নির্দেশক্রমে অনুরোধ করা হলো।

নির্দেশনায় তথ্য সংগ্রহের জন্য বর্ণিত লিংক http://103.113.200.29/student_covidinfo/

-এ প্রদত্ত ফর্ম পূরণ করে আগামী ১২ জুলাইয়ের মধ্যে submit করার জন্য বলা হয়েছে।

গত ১৭ মের অফিস আদেশ মোতাবেক জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সব কলেজ/শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে শিক্ষক/গবেষক, কর্মকর্তা, কর্মচারী ও শিক্ষার্থীদের কোভিড-১৯ টিকা গ্রহণ সংক্রান্ত তথ্যাবলী www.nubd.info/college এ login করে College Profile-এ জরুরি ভিত্তিতে অনলাইনে পাঠানোর জন্য বিশ্বদ্যিালয়ের পক্ষ থেকে অনুরোধ জানানো হয়।

এখন পর্যন্ত যেসব কলেজ যথাযথ তথ্য College Profile-এ subrit করেনি তাদেরকে অবিলম্বে submit করার জন্য বলা হয়েছে।

ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা অক্টোবরে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রাজধানীর সাত সরকারি কলেজের ২০২০-২১ সেশনের (স্নাতক) প্রথম বর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আগামী অক্টোবর মাসের প্রথম সপ্তাহে অনুষ্ঠিত হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) ও সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়কারী অধ্যাপক ড. এএসএম মাকসুদ কামাল শনিবার (৯ জুলাই) বিকেলে বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, বিজ্ঞান ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ১ অক্টোবর, কলা ও সামাজিক বিজ্ঞান ইউনিট ২ অক্টোবর এবং বাণিজ্য ইউনিটের ভর্তি পরীক্ষা ৮ অক্টোবর নির্ধারণ করা হয়েছে।

বিশ্ববিদ্যালয় সূত্রে আরও জানা গেছে, দেশের করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে নির্ধারিত তারিখেই ভর্তি পরীক্ষা নেয়া হবে৷ তবে পরিস্থিতি খারাপ হলে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ পরিবর্তন করা হতে পারে৷

উল্লেখ্য, ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হয় আগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে থাকা ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি শহীদ সোহরাওয়ার্দী কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, মিরপুর সরকারি বাঙলা কলেজ ও সরকারি তিতুমীর কলেজ। এরপর থেকেই কলেজগুলোতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে স্নাতক প্রথম বর্ষে শিক্ষার্থী ভর্তি করানো হয়।

এসএসসি-এইচএসসি : বিকল্প পদ্ধতির ঘোষণা ঈদের পর
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : চলতি বছরের ঝুলে থাকা এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে বিকল্প পদ্ধতি খুঁজছে শিক্ষা মন্ত্রণালয় গঠিত বিশেষজ্ঞ কমিটি। ইতোমধ্যে এ কমিটি একটি প্রস্তাব পাঠালেও তাতে কিছুটা সংশোধন করা হচ্ছে। পরীক্ষা নেয়া সম্ভব না হলে ঈদের পর বিকল্প পদ্ধতি সাংবাদিকদের সামনে তুলে ধরবেন শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনি।

জানা গেছে, করোনাভাইরাস পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের ৬০ দিন এবং এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের ৮৪ দিনে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শেষ করা হবে। বর্তমানে শিক্ষার্থীরা সেটির ওপর প্রস্তুতি নিচ্ছেন। হঠাৎ করে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু অস্বাভাবিক হারে বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা সম্ভব হচ্ছে না। এ কারণে সংক্ষিপ্ত সিলেবাস শেষ করে পরীক্ষা নেয়া অসম্ভব তা শিক্ষামন্ত্রী ইঙ্গিত দিয়েছেন। বিকল্প পদ্ধতি খোঁজা হচ্ছে বলেও জানিয়েছেন তিনি।

কমিটির একাধিক প্রস্তাবে দেখা গেছে, রচনামূলক বা সৃজনশীল প্রশ্ন বাদ দিয়ে কেবল বহু নির্বাচনী প্রশ্নে (এমসিকিউ) পরীক্ষা নেয়া। বিষয় ও পূর্ণমান (পরীক্ষার মোট নম্বর) কমিয়ে পরীক্ষা নেয়া। এক্ষেত্রে প্রতি বিষয়ের দুই পত্র একীভূত করা।

পাশাপাশি ২০০ নম্বরের বদলে ১০০ নম্বরে পরীক্ষা নেয়া হবে। কিন্তু উভয়ক্ষেত্রেই করোনা পরিস্থিতির উন্নতি জরুরি। অর্থাৎ সংক্রমণ ১০ শতাংশের নিচে নেমে এলে স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিত করে পরীক্ষা নেয়া হবে। স্বাস্থ্যবিধি নিশ্চিতে কেন্দ্রের সংখ্যা বর্তমানের তুলনায় দ্বিগুণ করে এই পরীক্ষা নেয়া হবে।

এমনটি সম্ভব না হলে এসএসসির ক্ষেত্রে জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) পরীক্ষার ফলের ৫০ শতাংশ এবং অ্যাসাইনমেন্ট ও ক্লাস অ্যাকটিভিটিসের ওপর ৫০ শতাংশ ফলাফল নিয়ে ফল প্রস্তুত করা হতে পারে। এইচএসসির ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীর এসএসসির ফলের ৫০ শতাংশ, জেএসসির ২৫ শতাংশ এবং অ্যাসাইনমেন্টের ফলের ২৫ শতাংশ সমন্বয় করে ফল দেয়া হতে পারে।

ঢাবি-জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও টিকার তালিকায় নেই সাত কলেজ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাসের প্রকোপে স্থবির শিক্ষাব্যবস্থা। গত বছরের ১৭ মার্চ থেকে বন্ধ দেশের সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। এরপর বিভিন্ন সময়ে খোলার ঘোষণা এলেও সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ায় তা সম্ভব হয়নি। এ অবস্থায় বিশ্ববিদ্যালয় খোলার প্রস্তুতি হিসেবে শিক্ষার্থীদের টিকা কার্যক্রম শুরু হয়েছে৷

এর অংশ হিসেবে টিকা দেয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি) অগ্রাধিকার ভিত্তিতে ৩৮ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক লাখ তিন হাজার ১৫২ জন আবাসিক শিক্ষার্থীর তালিকা স্বাস্থ্য অধিদফতরকে দিয়েছে। ইউজিসির ওই তালিকায় দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয়ের নাম থাকলেও নেই সাত কলেজের নাম।

এই সাত কলেজ এর আগে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আওতায় ছিল। সেই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়সহ দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যায় টিকা প্রাপ্তির তালিকায় রয়েছে।

তালিকার ওপর ভিত্তি করে গত বৃহস্পতিবার থেকে সুরক্ষা ডিজিটাল প্লাটফর্মে নিবন্ধন কার্যক্রম শুরু হয়েছে। কিন্তু তাতে নিবন্ধন করতে পারছেন না সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা।

প্রায় ৩০ হাজারেরও বেশি আবাসিক শিক্ষার্থী থাকার পরও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত রাজধানীর সরকারি সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা টিকা পাচ্ছেন না। কবে নাগাদ এ সমস্যার সমাধান হবে এ বিষয়েও কেউ সুনির্দিষ্টভাবে তথ্য দিতে পারেননি।

এ অবস্থায় টিকা প্রাপ্তি দেরি হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলতে দেরি হবে। সেই আভাস থেকে সেশনজট আরও দীর্ঘ হওয়ার আশঙ্কা করছেন এসব কলেজের শিক্ষার্থীরা ৷

ইউজিসি সূত্র জানায়, বর্তমানে দেশের পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে ২২০টি আবাসিক হল রয়েছে। এগুলোতে আবাসিক শিক্ষার্থী প্রায় এক লাখ ৩০ হাজার। এর মধ্যে অগ্রাধিকার ভিত্তিতে এক লাখ তিন হাজার শিক্ষার্থীকে টিকা দেয়া হবে।

টিকাদানের এই পরিস্থিতি নিয়ে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থী জুয়েল রানা বলেন, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় যদি আমাদের দায়িত্ব না নেয়, তাহলে কে নেবে? উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় এবং দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা টিকার তালিকায় আসলেও আমাদের নামই নেই সেখানে! এমন বৈষম্য কেন? আমরা চাই টিকা দিয়ে দ্রুত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেয়া হোক।’

ঢাবি অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের মধ্যে ঢাকা কলেজ, ইডেন মহিলা কলেজ, সরকারি তিতুমীর কলেজ, বেগম বদরুন্নেসা সরকারি মহিলা কলেজ, কবি নজরুল সরকারি কলেজ ও সরকারি বাঙলা কলেজে আবাসিক হল রয়েছে। এসব কলেজে প্রায় ৩০ হাজার আবাসিক শিক্ষার্থী রয়েছে।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) ও অধিভুক্ত সরকারি সাত কলেজের প্রধান সমন্বয়ক অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, ‘ইউজিসি বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে আবাসিক শিক্ষার্থীদের তালিকা চেয়েছে। আমরা আমাদের আবাসিক শিক্ষার্থীদের তালিকা পাঠিয়েছি। সাত কলেজের শিক্ষার্থীদের বিষয়ে আমরা কিছু জানি না। এ বিষয়ে সাত কলেজ অধ্যক্ষ ও শিক্ষকরা ভালো বলতে পারবেন।’

সরকারি সাত কলেজের সমন্বয়ক (ফোকাল পয়েন্ট) ও ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ সেলিম উল্লাহ খোন্দকার বলেন, ‘এখন পর্যন্ত শিক্ষা মন্ত্রণালয় বা ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেউ আমাদের কাছে কোনো ধরনের তথ্য চায়নি। আমাদের ডিজিটাল ডাটাবেজে সব শিক্ষার্থী এবং আবাসিক শিক্ষার্থীদের তালিকা করা রয়েছে। যেকোনো মুহূর্তে তারা চাইলেই আমরা সেটি দিতে পারব। কেন এখন পর্যন্ত সাত কলেজ শিক্ষার্থীদের তালিকা করা হলো না সে বিষয়ে আমি অবগত নই। বিষয়টি নিয়ে আমি মন্ত্রণালয়ে কথা বলব।’

এইচএসসির ফরম পূরণ স্থগিত
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার অনলাইন ফরম পূরণ কার্যক্রম স্থগিত ঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ২৯ জুন থেকে এই ফরম পূরণ শুরু হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণের হার বেড়ে যাওয়ায় তা স্থগিত করা হলো।

রোববার (২৭ জুন) ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এস. এম. আমিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তি থেকে এ তথ্য জানা যায়।

চিঠিতে বলা হয়েছে, করোনা পরিস্থিতি উদ্বেগজনক পর্যায়ে চলে যাওয়ায় ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ কার্যক্রম স্থগিত করা হলো। সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনায় পরবর্তীতে এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ কার্যক্রমের তারিখ ঘোষণা করা হবে।

এর আগে গত শুক্রবার (২৫ জুন) এক বিজ্ঞপ্তিতে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড জানিয়েছিল, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৯ জুন থেকে ফরম পূরণের কাজ শুরু হবে। চলবে ১১ জুলাই পর্যন্ত। পুরো প্রক্রিয়াটি অনলাইনে সম্পন্ন করবে শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

ফরম পূরণের ক্ষেত্রে বিজ্ঞান শাখার জন্য ২ হাজার ৫০০ টাকা, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য ১ হাজার ৯৪০ টাকা ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

করোনাভাইরাস মহামারিতে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। জেএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ওপর এইচএসসির ফল ঘোষণা করা হয়। তবে এ বছর ৮৪ দিনের পাঠ পরিকল্পনার ভিত্তিতে পরীক্ষা নেয়ার চিন্তা-ভাবনা রয়েছে।

আবারও ছুটি বাড়ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনা পরিস্থিতিতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আবারও বাড়ানো হতে পারে। আগামী ৩০ জুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কথা থাকলেও আগামী এক সপ্তাহ ধরে কঠোর লকডাউন চলার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা নেই।

শিক্ষামন্ত্রণালয়ের এক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা সাংবাদিকদের এ তথ্য জানিয়েছেন।

তিনি বলেন, ‘ গতকালও করোনা সংক্রমণ ২১ শতাংশের বেশি ছিল। ৫ শতাংশের নিচে না আসলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হচ্ছে না। ৩০ জুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সম্ভাবনা নেই। তবে পরিস্থিতি বুঝে কয়েক দিনের মধ্যে শিক্ষামন্ত্রী চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানাবেন।’

শুক্রবার স্বাস্থ্য অধিদফতর জানিয়েছে, গত ২৪ ঘণ্টায় নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২৮ হাজার ২৪৭ জনের। পরীক্ষা করা হয়েছে ২৭ হাজার ৬৫৩টি। নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ২১ দশমিক ৯৩ শতাংশ। দেশে এ পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৬৪ লাখ ৬৩ হাজার ১১৯টি। মোট পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৬০ শতাংশ।

এ ব্যাপারে শিক্ষা মন্ত্রণালয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, ‘পরিস্থিতি খারাপ হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার কোনো সুযোগ নেই। আমরা কাউকে ঝুঁকির মধ্যে দেখতে চাই না। শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের টেকনিক্যাল কমিটির সঙ্গে আলোচনা করে চলমান ছুটি আরও বাড়ানো হতে পারে।’

এইচএসসির ফরম পূরণের সময় পরিবর্তন
                                  

 

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের প্রকোপের মধ্যে পরীক্ষা হবে কি না এমন অনিশ্চয়তার মধ্যে ২০২১ সালের এইচএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, ২৯ জুন থেকে ১১ জুলাই পর্যন্ত চলবে ফরম পূরণের কাজ। প্রক্রিয়াটি অনলাইনেই সম্পন্ন করবে শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

শুক্রবার (২৫ জুন) বিকেলে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এস এম আমিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে ফরম পূরণের এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনলাইনে আবেদন করার পর শিক্ষার্থীদের তথ্য সম্বলিত সম্ভাব্য তালিকা ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের ওয়েবসাইটে প্রকাশ করা হবে আগামী ২৯ জুন। এ সম্ভাব্য তালিকা থেকে আগামী ২৯ জুন থেকে ফরম পূরণ শুরু হবে।

এর আগে বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ফরম পূরণের সময়সীমা দেয়া হয় ২১ জুন থেকে ২৭ জুন। একদিন পরই ফরম পূরণের সময়সীমায় পরিবর্তন এনেছে ঢাকা শিক্ষা বোর্ড। সংশোধিত বিজ্ঞপ্তিতে ফরম পূরণের সময় পেছানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এবারের এইচএসসি পরীক্ষার আগে কোনো নির্বাচনী পরীক্ষা হবে না। তাই এ সংক্রান্ত কোনো ফি নেয়া যাবে না। বিজ্ঞান শাখার জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকা, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য এক হাজার ৯৪০ টাকা করে ফি নির্ধারণ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, নির্ধারিত ফিয়ের অতিরিক্ত ফি আদায় করা যাবে না। এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট কলেজের ফরম পূরণ প্যানেল বন্ধ করাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, কেবল বৈধ রেজিস্ট্রেশনধারী শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে। যারা এক বা একাধিক বিষয়ে মান উন্নয়নের জন্য পরীক্ষা দেবে তাদেরও নির্বাচনী কোনো পরীক্ষায় অংশগ্রহণের প্রয়োজন নেই। কোনো শিক্ষার্থী তার রেজিস্ট্রেশন বর্হিভূত কোনো বিষয়ে পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করলে এ বিষয়ের পরীক্ষা কোনরূপ যোগাযোগ ছাড়াই বাতিল করা হবে।

এর আগে করোনার কারণে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। জেএসসি এবং এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ওপর এইচএসসির ফল দেয়া হয়। এ বছর ৮৪ দিনের পাঠ পরিকল্পনার ভিত্তিতে পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দিতে পারছে না সরকার। ফলে চলতি বছরের বাকি সময়ে সরাসরি ক্লাসরুমে ৮৪ দিন পড়িয়ে পরীক্ষা নেয়া কতটুকু সম্ভব হবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে।

এইচএসসির ফরম পূরণ শুরু ২৭ জুন
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : মহামারি করোনাভাইরাসের প্রকোপে পরীক্ষা নিয়ে অনিশ্চয়তার মধ্যে ২০২১ সালের এইচএসসির ফরম পূরণের বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে ঢাকা শিক্ষাবোর্ড।

বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী, স্বাস্থ্যবিধি মেনে আগামী ২৭ জুন থেকে ফরম পূরণ শুরু হবে। আর শেষ হবে ৭ জুলাই। ফর্ম পূরণ প্রক্রিয়াটি অনলাইনের সম্পন্ন করবে শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

বৃহস্পতিবার (২৪ জুন) ঢাকা শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক এস এম আমিরুল ইসলাম স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে ফরম পূরণের এসব তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, বিজ্ঞান শাখার জন্য দুই হাজার ৫০০ টাকা, মানবিক এবং ব্যবসায় শিক্ষা শাখার জন্য এক হাজার ৯৪০ টাকা করে ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। এবারের এইচএসসি পরীক্ষা উপলক্ষে কোনো নির্বাচনী পরীক্ষা হবে না। তাই এ সংক্রান্ত কোনো ফি’ও নেয়া যাবে না বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, নির্ধারিত ফি’র চেয়ে অতিরিক্ত টাকা আদায় করা যাবে না। এ সংক্রান্ত কোনো তথ্য পাওয়া গেলে সংশ্লিষ্ট কলেজের ফরম পূরণ প্যানেল বন্ধকরাসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

করোনার কারণে গত বছর এইচএসসি পরীক্ষা নেয়া সম্ভব হয়নি। জেএসসি ও এসএসসি পরীক্ষার ফলের গড়ের ওপর এইচএসসির ফল দেয়া হয়। এ বছর ৮৪ দিনের পাঠ পরিকল্পনার ভিত্তিতে পরীক্ষা নেয়ার পরিকল্পনা রয়েছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের। কিন্তু করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় পূর্বঘোষিত ৩০ মার্চ এবং ১৩ জুন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলো খুলে দেয়ার ঘোষণা দিয়েও সেখান থেকে সরে এসেছে সরকার। এর ফলে চলতি বছরের বাকি সময়ে সরাসরি ক্লাসরুমে ৮৪ দিন পড়িয়ে পরীক্ষায় নেয়া কতটুকু সম্ভব হবে তা নিয়ে অনিশ্চয়তা দেখা দিয়েছে।

বেশকিছু পরিবর্তন আসছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনাভাইরাস সংক্রমণের সময়ে উচ্চশিক্ষার ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে বেশকিছু পরিবর্তন আনতে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে নির্দেশনা দিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)।

ইউজিসির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে শিক্ষাবর্ষের সময় কমানো, বিভিন্ন ছুটি বাতিলসহ ছয়টি প্রস্তাব দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ও রেজিস্ট্রারদের ‘রিকভারি গাইডলাইন’ পাঠানো হয়েছে। সারা দেশের সব পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে গত মঙ্গলবার এই গাইডলাইন পাঠায় ইউজিসি।

ইউজিসির পাঠানো ছয় প্রস্তাবনা বাস্তবায়নে বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে একাডেমিক কাউন্সিলের অনুমোদন নিতে হবে।

গাইডলাইনে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত একাডেমিক ক্যালেন্ডারের সময় ‘উল্লেখযোগ্য ও গ্রহণযোগ্যভাবে’ কমিয়ে আনতে বলা হয়েছে। এ ছাড়া ব্যবহারিকসহ সব বিষয়ের ক্লাস, ক্লাস টেস্ট, অ্যাসাইনমেন্ট, কুইজ, চূড়ান্ত পরীক্ষা প্রচলিত সময়ের চেয়ে কম সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করতে বিভিন্ন ছুটি কমানো বা বাতিল করার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে।

সেই সঙ্গে একাডেমিক ক্যালেন্ডারের সময় কমানোর স্বার্থে ক্লাস টেস্ট, কুইজ, মিডটার্ম পরীক্ষা, অ্যাসাইনমেন্ট, টার্ম পেপারের মতো মূল্যায়ন পদ্ধতির বিষয়ে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো নতুনভাবে চিন্তা-ভাবনা করতে পারবে।

তত্ত্বীয় ও ব্যবহারিক ক্লাসের সময় আগের মতোই থাকবে। লেকচারের সংখ্যা কমানোর প্রয়োজন হলেও পুরো সিলেবাসের পাঠ শেষ করতে হবে।

চূড়ান্ত পরীক্ষার ক্ষেত্রে পরীক্ষার প্রস্তুতিমূলক ছুটি, দুই পরীক্ষার মাঝের ছুটি এবং দুটি বর্ষ বা সেমিস্টারের মাঝের ছুটি কমাতে পারবে বিশ্ববিদ্যালয়গুলো।

উল্লেখ্য করোনার কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ দেশের সব বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়। তবে অনলাইনে অনেক পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ক্লাস নিয়েছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠনের চলমান ছুটি আরেক দফায় বাড়ানো হয়েছে। এ ছুটি আগামী ৩০ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

শনিবার (১২ জুন) শিক্ষামন্ত্রণালয়ের তথ্য ও জনসংযোগ কর্মকর্তা এম এ খায়ের স্বাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে করোনা পরিস্থিতি আরও অবনতি হওয়ায় এবং দেশের কোন কোন অঞ্চলে আংশিকভাবে কঠোর লকডাউন কার্যকর থাকায়, শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা ও সার্বিক নিরাপত্তার বিবেচনায় এবং কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির সাথে পরামর্শক্রমে দেশের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এবং এবতেদায়ী ও কওমি মাদরাসাসমূহে চলমান ছুটি আগামী ৩০ জুন ২০২১ তারিখ পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

উল্লেখ্য, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি সাপেক্ষে ১৩ জুন দেশের সকল মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার কথা জানিয়েছিল শিক্ষা মন্ত্রণালয়। করোনাভাইরাসের কারণে প্রায় ১৫ মাস ধরে দেশের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ।

গুচ্ছভর্তি পরীক্ষা স্থগিত
                                  

বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিবেদক : প্রাণঘাতী করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বাড়ায় দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। একইসঙ্গে গুচ্ছভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদনের সময়সীমা ২৫ জুন পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে।

আজ শুক্রবার (১১ জুন) গুচ্ছভুক্ত ২০টি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের ভার্চুয়াল বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন গুচ্ছভর্তি পরীক্ষার সদস্য সচিব ও জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার প্রকৌশলী মো. ওহিদ্দুজ্জামান।

আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী- আগামী ১৯ জুন থেকে জুলাই মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত তিনদিনে তিনটি বিভাগের (বিজ্ঞান, মানবিক ও ব্যবসায় শিক্ষা) গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার কথা ছিল।

জানতে চাইলে গুচ্ছভুক্ত বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. ছাদেকুল আরেফিন মাতিন বলেন, ‌‘করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় গুচ্ছভুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষার পূর্বঘোষিত তারিখ স্থগিত করা হয়েছে। আপাতত পরীক্ষা গ্রহণ করা সম্ভব হচ্ছে না।’

তিনি বলেন, ‘সেজন্য আগামী ২৫ জুন পর্যন্ত প্রাথমিক আবেদনের সময়সীমা বাড়ানো হয়েছে। এখন ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী ২৫ জুন রাত ১১টা ৫৯ মিনিট পর্যন্ত আবেদন করতে পারবে। পরবর্তীতে করোনা পরিস্থিতিতি বিবেচনা করে পরীক্ষা গ্রহণের তারিখ জানানো হবে।’

জানা গেছে, এবার প্রথমবারের মতো ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা নিচ্ছে। গত শিক্ষাবর্ষে সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষির প্রাধান্য থাকা বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু করেছিল। গুচ্ছভিত্তিক পরীক্ষার মাধ্যমে একজন ভর্তিচ্ছুক শিক্ষার্থী নিজ নিজ বিভাগে একটি পরীক্ষা দিয়েই যোগ্যতা ও আসন অনুযায়ী যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাবেন।

আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য মোট তিনটি পরীক্ষা হবে। এরমধ্যে একটি পরীক্ষা হবে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য, আরেকটি মানবিকের জন্য এবং অন্যটি ব্যবসায় শিক্ষা শাখার শিক্ষার্থীদের জন্য।

সিদ্ধান্ত অনুযায়ী- আগামী ১৯ জুন মানবিক বিভাগের, ২৬ জুন বাণিজ্যের ও আগামী ৩ জুলাই বিজ্ঞান বিভাগের যে ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিলো তা স্থগিত করা হয়েছে।

প্রথমবারের মতো অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া গুচ্ছ পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিয়েছে দেশের ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

সেগুলো হলো-

জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

২০ বিশ্ববিদ্যালয়ে পেছাচ্ছে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : করোনাভাইরাসের কারণে ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভিত্তিক ভর্তি পরীক্ষা পিছিয়ে যাচ্ছে। ১৯ জুন থেকে আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহ পর্যন্ত তিনদিনে তিনটি বিভাগে এই ভর্তি পরীক্ষা হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখনো এ বিষয়ে চূড়ান্ত সময় ঘোষণা করা হয়নি।

এই গুচ্ছে থাকা সিলেটে অবস্থিত শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, করোনা পরিস্থিতির উন্নতি না হওয়ায় ভর্তি পরীক্ষা পেছানো ছাড়া উপায় নেই। কারণ প্রাথমিক আবেদনের কাজই শেষ করা যায়নি। চলমান বিধিনিষেধের পর প্রাথমিক আবেদনের জন্য ১০ দিন সময় বাড়ানো হবে।

তিনি আরও বলেন, এখন যদি ১৬ জুন পর্যন্ত বিধিনিষেধ থাকে তাহলেও প্রাথমিক আবেদন করতে ২৬ জুন পর্যন্ত চলে যাবে। তারপর আবার চূড়ান্ত আবেদন। এসব করতে সময় লাগবে। এই অবস্থায় কবে এই পরীক্ষা হবে, তার তারিখও ঘোষণা করা যাচ্ছে না। আগামী শুক্রবার সভা করে পরীক্ষা স্থগিতের কথা জানিয়ে দেয়া হবে।

এবার প্রথমবারের মতো ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা নিচ্ছে। গত শিক্ষাবর্ষে সাতটি কৃষি বিশ্ববিদ্যালয় ও কৃষির প্রাধান্য থাকা বিশ্ববিদ্যালয় গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা শুরু করেছিল। গুচ্ছভিত্তিক পরীক্ষার মাধ্যমে একজন ভর্তি ইচ্ছুক শিক্ষার্থী নিজ নিজ বিভাগে একটি পরীক্ষা দিয়েই যোগ্যতা ও আসন অনুযায়ী যেকোনো বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির সুযোগ পাবেন।

আগের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, ২০টি সাধারণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য মোট তিনটি পরীক্ষা হবে। এর মধ্যে একটি পরীক্ষা হবে বিজ্ঞানের শিক্ষার্থীদের জন্য, আরেকটি মানবিকের জন্য এবং অন্যটি ব্যবসায় শিক্ষায় শিক্ষার্থীদের জন্য।

১৯ জুন মানবিক বিভাগের, ২৬ জুন বাণিজ্যের ও আগামী ৩ জুলাই বিজ্ঞান বিভাগের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা ছিল। এখন পর্যন্ত সিদ্ধান্ত হলো অনলাইনে নয়, সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা হবে এসব বিশ্ববিদ্যালয়ে। ভর্তি পরীক্ষার প্রশ্ন হবে উচ্চ মাধ্যমিকের পাঠ্যসূচির ভিত্তিতে। কিন্তু কবে এই পরীক্ষা হবে, তা অনিশ্চিত। শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ ও আর্থিক খরচ কমাতে গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা নেয়ার সিদ্ধান্ত হয়।


যে ২০ বিশ্ববিদ্যালয়ে গুচ্ছভিত্তিতে ভর্তি পরীক্ষা

ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়, হাজী মোহাম্মদ দানেশ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, মাওলানা ভাসানী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, নোয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়, কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয়, যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, পটুয়াখালী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়, পাবনা বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়, রাঙামাটি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়, রবীন্দ্র বিশ্ববিদ্যালয়, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ডিজিটাল ইউনিভার্সিটি, শেখ হাসিনা বিশ্ববিদ্যালয় এবং বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন্নেছা মুজিব বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়।

বর্তমানে দেশে ৪৯টি সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, ইসলামী আরবি বিশ্ববিদ্যালয় ও চারটি মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি শিক্ষার্থী ভর্তি করা হয় না। বাকি ৩৯টি বিশ্ববিদ্যালয়ে সরাসরি ভর্তি পরীক্ষা করা হয়। এগুলোতে ৬০ হাজারের কিছু বেশি আসন আছে।

বেরোবির নতুন উপাচার্য হাসিবুর রশীদ
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) নতুন উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন ট্রেজারার ড. মো. হাসিবুর রশীদ।

বুধবার (৯ জুন) শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের উপ-সচিব মাহমুদুল আলম স্বাক্ষরিত এক প্রজ্ঞাপনে তাকে নিয়োগ দেয়া হয়।

প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যানেজমেন্ট ইনফরমেশন সিস্টেম বিভাগের অধ্যাপক ও বেরোবির বর্তমান ট্রেজারার ড. মো. হাসিবুর রশীদকে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য হিসেবে নিয়োগ দেয়া হলো।

সেখানে বলা হয়, উপাচার্য হিসেবে তার মেয়াদ চার বছর। তিনি বর্তমান পদের সমপরিমাণ বেতন-ভাতা পাবেন। বিধি অনুযায়ী পদসংশ্লিষ্ট অন্যান্য সুবিধা ভোগ করবেন। বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান নির্বাহী হিসেবে সার্বক্ষণিক ক্যাম্পাসে অবস্থান করবেন। এ নিয়োগ ১৪ জুন কার্যকর হবে। যে কোনো সময় এ নিয়োগ বাতিল করতে পারবেন মহামান্য চ্যান্সেলর।

এদিকে উপাচার্য ড. নাজমুল আহসান কলিমুল্লাহর মতো ক্যাম্পাসে অনুপস্থিতির অভিযোগ উঠেছে ড. হাসিবুর রশীদের বিরুদ্ধেও। বঙ্গবন্ধু পরিষদের তথ্য অনুযায়ী বিশ্ববিদ্যালয়ে যোগদানের ৪৪৫ দিনের মধ্যে ক্যাম্পাসে উপস্থিত ছিলেন মাত্র ২৫ দিন।

বঙ্গবন্ধু পরিষদের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান বলেন, ২০২০ সালের ১০ মার্চ ট্রেজারার নিয়োগের প্রজ্ঞাপন জারি হয় ও অধ্যাপক ড. হাসিবুর রশীদ যোগদান করেন। সেদিন থেকে তিনি মাত্র ২৫ দিন ক্যাম্পাসে উপস্থিত ছিলেন।


   Page 1 of 28
     শিক্ষাঙ্গন
এসএসসি পরীক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট প্রকাশ
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসিতে অটোপাস না পরীক্ষা, ঘোষণা চলতি সপ্তাহে
.............................................................................................
বিকল্প মূল্যায়নে এসএসসি-এইচএসসির ফল
.............................................................................................
টিকার তথ্য দিতে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্দেশনা
.............................................................................................
ঢাবি অধিভুক্ত সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা অক্টোবরে
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসি : বিকল্প পদ্ধতির ঘোষণা ঈদের পর
.............................................................................................
ঢাবি-জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থাকলেও টিকার তালিকায় নেই সাত কলেজ
.............................................................................................
এইচএসসির ফরম পূরণ স্থগিত
.............................................................................................
আবারও ছুটি বাড়ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের
.............................................................................................
এইচএসসির ফরম পূরণের সময় পরিবর্তন
.............................................................................................
এইচএসসির ফরম পূরণ শুরু ২৭ জুন
.............................................................................................
বেশকিছু পরিবর্তন আসছে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ল ৩০ জুন পর্যন্ত
.............................................................................................
গুচ্ছভর্তি পরীক্ষা স্থগিত
.............................................................................................
২০ বিশ্ববিদ্যালয়ে পেছাচ্ছে গুচ্ছ ভর্তি পরীক্ষা
.............................................................................................
বেরোবির নতুন উপাচার্য হাসিবুর রশীদ
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নাতক শ্রেণিতে ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক ভর্তি কার্যক্রম স্থগিত
.............................................................................................
চার শর্তে খুলবে পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়
.............................................................................................
৫৪ হাজার শিক্ষক নিয়োগে বাধা কাটল
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসি পরীক্ষার সংক্ষিপ্ত সিলেবাস প্রকাশ
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি বাড়লো ১২ জুন পর্যন্ত
.............................................................................................
ফের বাড়ছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি
.............................................................................................
জুনে স্কুল-কলেজ খুলতে চায় শিক্ষা মন্ত্রণালয়
.............................................................................................
দেশের চলমান কিন্ডারগার্টেন ও প্রার্থমিক বিদ্যালয়ের ছুটি বাড়ল
.............................................................................................
কওমি মাদ্রাসায় সব ধরনের ক্লাস-পরীক্ষা বন্ধ রাখার নির্দেশ
.............................................................................................
বিশ্ববিদ্যালয় খোলার সময় পেছাল
.............................................................................................
২৩ মে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে না
.............................................................................................
পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে ২৩ মে
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
.............................................................................................
ঢাবি ক্যাম্পাসে গণজমায়েত ও মঙ্গল শোভাযাত্রা হবে না
.............................................................................................
রমজানে মাদরাসা বন্ধের আদেশ প্রত্যাহার দাবি
.............................................................................................
এসএস সি ও এইচ এস সি পরীক্ষার্থীদের অটো পাস কি হবে ?
.............................................................................................
বুয়েটে ভর্তি আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল
.............................................................................................
বুয়েটে ভর্তি: আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল, পরীক্ষা দুই ধাপে
.............................................................................................
এসএসসির ফরম পূরণ স্থগিত, বাড়ছে সময়
.............................................................................................
বিক্রি শুরু হতেই বন্ধ হলো মেলা
.............................................................................................
পিছিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ
.............................................................................................
সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২৫ ও ২৬ মার্চ পালনের নির্দেশ
.............................................................................................
১ এপ্রিল শুরু এসএসসির ফরম পূরণ, হবে না নির্বাচনী পরীক্ষা
.............................................................................................
আজ থেকে বইমেলা
.............................................................................................
১১২৮ শিক্ষক-কর্মচারী নতুন করে এমপিওভুক্ত হলেন
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জরুরি নির্দেশনা
.............................................................................................
পরিবর্তন আসছে চার শ্রেণির পাঠ্যক্রমে
.............................................................................................
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন স্থগিত
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষা হবে দুবারে
.............................................................................................
দেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষামেলা ১২-১৩ মার্চ
.............................................................................................
৫৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু
.............................................................................................
উপবৃত্তির পাশাপাশি এবার টিউশন ফি পাবে শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop