| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * হাওরের ধান কাটা শেষ   * ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট : ঝুঁকিতে বেনাপোলের ২০ হাজার মানুষ   * বোরো ধান-চাল সংগ্রহ সফল করতে ১৩ নির্দেশনা   * দেশে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত আরও কমল   * ফেরিতে গাদাগাদি করে ভ্রমণে সংক্রমণ বাড়ছে: স্বাস্থ্যমন্ত্রী   * খিলক্ষেতে ক্রেনের ধাক্কায় শ্রমিক নিহত   * চালের বাজারে কিছুটা স্বস্তি, বেড়েছে মাছ-মুরগি-চিনির দাম   * বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা সরকারি হিসাবের দ্বিগুণ: আইএইচএমই   * দৌলতদিয়ায় ঘরমুখো মানুষের উপচেপড়া ভিড়   * স্বাস্থ্যবিধির বালাই নেই গণপরিবহনে, চলছে আন্তঃজেলা বাসও  

   শিক্ষাঙ্গন -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে ২৩ মে

অনলাইন ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী ২৩ মে থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে। এ ব্যাপারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) এক ভার্চুয়াল সংলাপে এ কথা জানান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন। 

`করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে করোনায় বিপর্যস্ত বাজেট কেমন হওয়া উচিৎ` শীর্ষক সংলাপে মাহবুব হোসেন বলেন, করোনার মধ্যে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে নিতে আমরা টেলিভিশন, অনলাইন ও রেডিওতে ক্লাস সম্প্রচার শুরু করেছি। তার পাশাপাশি মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের বাসায় অ্যাসাইনমেন্টের কাজ দেওয়া হচ্ছে।

মাহবুব হোসেন আরো বলেন, করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আগামী বছরের জাতীয় বাজেটে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়ানো হবে। বাজেটে শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে বাজেটের আকার বড় করলেও সমস্যা সমাধান হয় না, এটি ব্যবহারে পরিকল্পনা, সক্ষমতা ও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়।

শিক্ষাসচিব বলেন, দেশের পরিস্থিতির উন্নতি হলে আগামী ২৩ মে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে। আমাদের আগের ঘোষণা অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত ছিল তা এখনো বহাল রয়েছে। এটি বাস্তবায়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২৫ মার্চ করোনাভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির বৈঠক শেষে ২৩ মে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে ও কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী ঈদুল ফিতরের পর ২৩ মে ক্লাস শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তবে এই সময়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়। একইসঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর গত ১৭ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। এমনকি গত ১ এপ্রিল এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা স্থগিত রাখা হয়। এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। 

সুত্র ঃ কালের কন্ঠ

পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে ২৩ মে
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে আগামী ২৩ মে থেকে দেশের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা হবে। এ ব্যাপারে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

আজ বৃহস্পতিবার (২৯ এপ্রিল) এক ভার্চুয়াল সংলাপে এ কথা জানান শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের (মাউশি) সচিব মো. মাহবুব হোসেন। 

`করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ২০২১-২০২২ অর্থবছরে করোনায় বিপর্যস্ত বাজেট কেমন হওয়া উচিৎ` শীর্ষক সংলাপে মাহবুব হোসেন বলেন, করোনার মধ্যে শিক্ষাকার্যক্রম চালিয়ে নিতে আমরা টেলিভিশন, অনলাইন ও রেডিওতে ক্লাস সম্প্রচার শুরু করেছি। তার পাশাপাশি মাধ্যমিকের শিক্ষার্থীদের বাসায় অ্যাসাইনমেন্টের কাজ দেওয়া হচ্ছে।

মাহবুব হোসেন আরো বলেন, করোনার ক্ষতি পুষিয়ে নিতে আগামী বছরের জাতীয় বাজেটে শিক্ষার বরাদ্দ বাড়ানো হবে। বাজেটে শিক্ষাকে অধিক গুরুত্ব দেওয়া হবে বলে অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে আমাদের নিশ্চিত করা হয়েছে। তবে বাজেটের আকার বড় করলেও সমস্যা সমাধান হয় না, এটি ব্যবহারে পরিকল্পনা, সক্ষমতা ও অভিজ্ঞতার প্রয়োজন হয়।

শিক্ষাসচিব বলেন, দেশের পরিস্থিতির উন্নতি হলে আগামী ২৩ মে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে। আমাদের আগের ঘোষণা অনুযায়ী যে সিদ্ধান্ত ছিল তা এখনো বহাল রয়েছে। এটি বাস্তবায়নে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।

এর আগে গত ২৫ মার্চ করোনাভাইরাস সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির বৈঠক শেষে ২৩ মে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার ঘোষণা দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় শিক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মচারী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা এবং সার্বিক নিরাপত্তার বিষয়টি বিবেচনা করে ও কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় পরামর্শক কমিটির পরামর্শক্রমে মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক পর্যায়ের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে আগামী ঈদুল ফিতরের পর ২৩ মে ক্লাস শুরুর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

তবে এই সময়ে অনলাইন শিক্ষাকার্যক্রম অব্যাহত থাকবে বলে জানানো হয়। একইসঙ্গে শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলার আহ্বান জানান শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

গত ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর গত ১৭ মার্চ থেকে সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখা হয়। এমনকি গত ১ এপ্রিল এইচএসসি পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও তা স্থগিত রাখা হয়। এখন পর্যন্ত বন্ধ রয়েছে দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। 

সুত্র ঃ কালের কন্ঠ

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
                                  

অনলাইন ডেস্ক: জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাগবে ২০১৯ সালের অনার্স ৪র্থ বর্ষের মৌখিক পরীক্ষা অনলাইনে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়েছে। শিগগিরই মৌখিক নেওয়ার তারিখসহ বিস্তারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের (www.nu.ac.bd) মাধ্যমে সংশ্লিষ্ট সবাইকে জানানো হবে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) অধ্যাপক ড. মো. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে কলেজ অধ্যক্ষদের সঙ্গে ভার্চুয়াল মতবিনিময় সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

দুই ঘণ্টাব্যাপী এই ভার্চুয়াল সভায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, শিক্ষক, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষসহ সংশ্লিষ্টরা যুক্ত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা ও অন্যান্য বিষয় আলোচনা হয়। আলোচনায় চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের ভাইভা পরীক্ষা অনলাইনে গ্রহণের সিদ্ধান্ত জানান উপাচার্য। এছাড়া অন্যান্য বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরবর্তী বর্ষে উন্নতি হওয়ার বিষয়েও মতামত নেওয়া হয়।

উপাচার্য জানান, ‘শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন যাতে সংকটাপন্ন না হয় এবং একই বর্ষে যাতে দীর্ঘদিন আটকে থাকতে না হয় সে বিষয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় গভীরভাবে চিন্তা ভাবনা করছে। পর্যায়ক্রমে আরও সিদ্ধান্ত জানানো হবে।’

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত কলেজের শিক্ষার্থীদের দুর্ভোগ লাঘবে ২০১৯ সালের অনার্স ৪র্থ বর্ষের ভাইভা পরীক্ষা অনলাইনে গ্রহণের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

অনতিবিলম্বে ভাইভা গ্রহণের তারিখসহ বিস্তারিত তথ্য জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটের www.nu.ac.bd মাধ্যমে সকল শিক্ষার্থীকে জানানো হবে।

শনিবার (২৪ এপ্রিল) সকাল ১১টায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য (রুটিন দায়িত্ব) প্রফেসর ড. মো. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে অনলাইন প্লাটফর্ম জুম অ্যাপের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত কলেজ অধ্যক্ষদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এই সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়।

দুই ঘণ্টাব্যাপী এই ভার্চুয়াল সভায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন অনুষদের ডিন, শিক্ষক, রেজিস্ট্রার, পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক, বিভিন্ন কলেজের অধ্যক্ষসহ অনেকেই যুক্ত ছিলেন।

মতবিনিময় সভায় জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা ও অন্যান্য বিষয় আলোচনা হয়। আলোচনায় উপাচার্য চতুর্থ বর্ষের শিক্ষার্থীদের ভাইভা পরীক্ষা অনলাইনে গ্রহণের সিদ্ধান্ত জানান। এছাড়া অন্যান্য বর্ষের শিক্ষার্থীদের পরবর্তী বর্ষে উন্নতি হওয়ার বিষয়েও মতামত গ্রহণ করা হয়।

উপাচার্য জানান, `শিক্ষার্থীদের শিক্ষা জীবন যাতে সংকটাপন্ন না হয় এবং একই বর্ষে যাতে দীর্ঘদিন আটকে থাকতে না হয় সে বিষয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় গভীরভাবে চিন্তা ভাবনা করছে। পর্যায়ক্রমে আরও সিদ্ধান্ত জানানো হবে।`

ঢাবি ক্যাম্পাসে গণজমায়েত ও মঙ্গল শোভাযাত্রা হবে না
                                  

অনলাইন ডেস্ক : করোনার উদ্ভূত পরিস্থিতিতে পহেলা বৈশাখ-১৪২৮ বাংলা নববর্ষ উপলক্ষে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) ক্যাম্পাসে সশরীরে কোনও মঙ্গল শোভাযাত্রা করা হবে না।

আজ সোমবার (১২ এপ্রিল) বিশ্ববিদ্যালয়ের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

তবে প্রতীকী কর্মসূচি হিসেবে চারুকলা অনুষদের শিল্পীদের তৈরি মঙ্গল শোভাযাত্রার বিভিন্ন মুখোশ ও প্রতীক প্রদর্শন এবং সম্প্রচারের উদ্যোগ নেওয়া হবে ইলেকট্রনিক মিডিয়ায়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এ বছর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে কোনও ধরনের মেলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও গণজমায়েত করা যাবে না। মহামারি উদ্ভূত পরিস্থিতি উত্তরণে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সবার সদয় সহযোগিতা কামনা করেছে।

মঙ্গল শোভাযাত্রার ইতিহাস
প্রতিবছর দেশে বাংলা নববর্ষ বা পহেলা বৈশাখ নানা আনুষ্ঠানিকতার মধ্য দিয়ে পালন করা হয়, যার মধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো ঢাকার চারুকলা ইন্সটিটিউট থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা। ২০১৬ সালে পহেলা বৈশাখ বরণ করে নেয়ার অপেক্ষাকৃত নতুন এই উৎসবটি ইউনেস্কোর অপরিমেয় বিশ্ব সংস্কৃতি হিসেবে স্বীকৃতি পায়। চারুকলা থেকে এই শোভাযাত্রার শুরুটা হয়েছিল ১৯৮৯ সালে।

১৯৮৫ সালে যশোরে চারুপীঠ নামের একটি সংগঠন এ ধরণের একটি শোভাযাত্রা করেছিল। যার উদ্যোক্তারা ঢাকায় মঙ্গল শোভাযাত্রা আয়োজনে ভূমিকা রাখেন এবং সেখান থেকে অনুপ্রাণিত হয়ে চারুকলায়ও মঙ্গল শোভাযাত্রার শুরু হয়।

ষোড়শ শতকে যখন মোঘল সম্রাট আকবরের সময়ে বর্তমান বাংলা বর্ষপঞ্জি তৈরি হয়, তখন সেটি মূলত: ফসল রোপণ এবং কর আদায় সহজ করার উদ্দেশ্যেই করা হয়।

বাংলা বর্ষ ছাড়াও দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার বিভিন্ন দেশে প্রায় একই সময়ে নানা নামে নতুন বছরের শুরু হয়। তবে শাসকরা যে উদ্দেশ্যেই বর্ষপঞ্জি করুক না কেন, এই নববর্ষ উদযাপনের সংস্কৃতিও বাংলায় বেশ প্রাচীন।

হালখাতা, মেলা, পিঠা-পুলি বানানো নানাভাবে পহেলা বৈশাখ উদযাপন হয়ে আসছে বহু বছর ধরে। ১৯৬৬ সালে বাংলা বর্ষের গণনা সংস্কার করা হয়, এবং যার পর থেকে বাংলাদেশে পহেলা বৈশাখ উদযাপন হয়ে আসছে ১৪ এপ্রিল।

রমজানে মাদরাসা বন্ধের আদেশ প্রত্যাহার দাবি
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ রমজান মাসে মাদরাসা, মক্তব, হিফজ বিভাগ বন্ধের আদেশ প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের আমির জুনায়েদ বাবুনগরী। রোববার (১১ এপ্রিল) বিকেলে চট্টগ্রামের হাটহাজারী মাদরাসায় হেফাজতের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ পর্যায়ের এক জরুরি বৈঠকের পর সরকারের কাছে এ দাবি জানান তিনি।

বিভিন্ন স্থানে নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে দায়ের হওয়া মামলা ও গ্রেফতারের নিন্দা জানান বাবুনগরী একইসাথে দেশে লকডাউনের নামে রমজান মাসে মাদরাসা, মকতব, হিফজ বিভাগ বন্ধের আদেশ প্রত্যাহারের জন্য সরকারের কাছে দাবি জানান তিনি।

বাবুনগরী আরও বলেন, কোরআন তিলাওয়াত এবং দোয়ার মাধ্যমে বালা-মুসিবত দূর হয়ে যায়। সেই হিসেবে দেশের স্বার্থে কওমি মাদরাসার কোরআন তিলাওয়াতের পরিবেশ অব্যাহত রাখার অনুমতি প্রদান করা হোক।

বাবুনগরী বলেন, আমরা সরকার সরকারের পতন চাই না। তাদের কোন অনুদান ও আমরা গ্রহণ করি না। সরকারের সাথে আমাদের কোন বিরোধ নেই।  তবে ইসলাম ও কওমি অঙ্গনের বিরুদ্ধে কোনো কোনো হটকারী পদক্ষেপ গ্রহণ করলে তা কখনো আমরা মেনে নিব না।

তিনি আরও বলেন, বর্তমান কার্যক্রম দেখে মনে হচ্ছে কওমিদের সাথে সরকার যুদ্ধ ঘোষণা করেছে। তবে আমাদের দাবিগুলো সরকার যদি মেনে না নেয় আমরা কেন্দ্রীয় নেতাদের সাথে পরামর্শক্রমে কঠোর কর্মসূচি দিতে বাধ্য হবো।

এ সময় মামুনুল হকের রিসোর্ট কাণ্ডকে ‘ব্যক্তিগত’ বিষয় বলে মন্তব্য করেন বাবুনগরী। তার অব্যাহতির বিষয়ে জানতে চাইলে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বাবুনগরী বলেন, আজকের বৈঠকে কাউকে বহিষ্কার বা অব্যাহতির বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। এ বিষয়ে আজকের সভায় কোনো আলোচনা হয়নি। এছাড়া আগামী ২৯ মে হাটহাজারী মাদরাসায় ওলামা-মাশায়েখ সম্মেলন হবে বলেও সংবাদ সম্মেলনে জানান তিনি।

এর আগে দুপুর ১২টায় হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ নেতাদের এ বৈঠক শুরু হয়, যা চলে বিকাল ৩টা পর্যন্ত। বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন সংগঠনটির প্রধান উপদেষ্টা মুহিব্বুল্লাহ বাবুনগরী। এতে হাতেগোনা হেফাজতের শীর্ষ পর্যায়ের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

সুত্র ঃ দৈনিক শিক্ষা

এসএস সি ও এইচ এস সি পরীক্ষার্থীদের অটো পাস কি হবে ?
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : মরণঘাতী মহামারি করোনা ভাইরাস পরিস্থিতির কারণে গত বছর এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষার্থীদের অটো পাস দেওয়া হয়। কিন্তু চলতি বছর এমনটি করা হবে না জানিয়ে ৩০ মার্চ থেকে স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়ার ঘোষণা দেয় সরকার। অটো পাস এড়াতে সিদ্ধান্ত হয় ৬০ দিন ক্লাস করিয়ে এসএসসি এবং ৮০ দিন ক্লাস করিয়ে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হবে। কিন্তু হঠাৎ করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি আগামী ২২ মে পর্যন্ত বাড়ানো হয়েছে। এতে ২০২১ সালের পরীক্ষা আবারও অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। চলতি বছরের জুন-জুলাইয়ে পরীক্ষা নেওয়ার লক্ষ্যে গত ১ এপ্রিল থেকে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের কার্যক্রম শুরু হয়। কিন্তু সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতি রোধে চলমান বিধিনিষেধের কারণে ৫ এপ্রিল থেকে ফরম পূরণ স্থগিত করা হয়। তবে বিলম্ব ফি ছাড়াই এ ফরম পূরণের সময় বাড়ানোর ঘোষণা দেওয়া হয়েছে।এ বিষয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক এসএম আমিরুল ইসলাম বলেন, কোভিড-১৯ বিস্তারের কারণে বিধিনিষেধে ফরম পূরণ স্থগিত করা হয়েছে। লকডাউন শেষে বিলম্ব ফি ছাড়া এসএসসি পরীক্ষা-২০২১-এর ফরম পূরণের সময় বর্ধিত করে নতুন সময়সূচি জানিয়ে দেওয়া হবে। তবে এ জন্য কোনো বিলম্ব ফি দিতে হবে না। এএসসি পরীক্ষা অনুষ্ঠানের লক্ষ্যে পরীক্ষা কেন্দ্রে তালিকা প্রকাশ, প্রশ্নপত্র প্রণয়ন করে তা ছাপানোর জন্য বিজি প্রেসে পাঠানো ছাড়াও পরীক্ষা সংক্রান্ত সব প্রস্তুতি প্রায় শেষ করেছে শিক্ষা বোর্ড।ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন, বিদ্যমান পরিস্থিতিতে পরীক্ষা কবে অনুষ্ঠিত হবে, না-কি অটো পাস করিয়ে দেওয়া হবে তা কিছুই বলা যাচ্ছে না। সবই নির্ভর করছে সরকারের সিদ্ধান্তের ওপর।তবে শিক্ষাবোর্ড পরীক্ষার প্রস্তুতি নিয়ে রাখছে জানিয়ে ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের সচিব তপন কুমার সরকার গণমাধ্যমকে বলেছেন, পরীক্ষার ফরম পূরণ, প্রশ্ন প্রণয়ন ও ছাপার কাজ এগিয়ে রাখছেন তারা। যাতে সিদ্ধান্ত হলেই দ্রুত পরীক্ষা নেওয়া যায়।শিক্ষাবোর্ডের একজন ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, তাদের পরিকল্পনা ছিল ৬০ দিন ক্লাস শেষে আগামী জুলাই মাসে এএসসি পরীক্ষা এবং দুই মাস বিরতি দিয়ে সেপ্টেম্বর মাসে এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া। কিন্তু চলমান পরিস্থতির কারণে সব পরিকল্পনাই বাদ দেওয়া হয়েছে।মহামারির কারণে ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে দেশে সব স্কুল-কলেজ বন্ধ রয়েছে। সে সময় যারা নতুন নবম ও একাদশ শ্রেণিতে উঠেছিল, হিসাব অনুযায়ী ২০২২ সালে যথাক্রমে তাদের এসএসসি ও এইচএসসি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের কথা। কিন্তু প্রকৃতপক্ষে তারা কোনো ক্লাস করতেই পারেনি। চলতি বছর স্কুল-কলেজ কবে খুলবে তারও অনিশ্চয়তা রয়েছে। যদি এমন পরিস্থিতি চলতে থাকে, তবে কোনো ক্লাস না করে আগামী বছর এসব শিক্ষার্থীরা কীভাবে পরীক্ষায় বসবে, তা নিয়েও দুশ্চিন্তার শেষ নেই অভিভাবকদের।এ বিষয়ে শিক্ষাবিদ অধ্যাপক মনজুর খান পরামর্শ দেন- করোনার কারণে শিক্ষার দীর্ঘমেয়াদি ক্ষতি হচ্ছে, এটি মাথায় রেখে ‘শিক্ষা উদ্ধার’ কর্মসূচি হাতে নিতে হবে।

বুয়েটে ভর্তি আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষে স্নাতক ভর্তি পরীক্ষার আবেদন ১৫ এপ্রিল সকাল ১০টা থেকে শুরু হচ্ছে। অনলাইনে ২৪ এপ্রিল বিকাল ৩টা পর্যন্ত ভর্তিচ্ছু শিক্ষার্থীরা আবেদন করতে পারবে।

মেধাবী শিক্ষার্থীদের বেছে নিতে এবার দুই ধাপে ভর্তি পরীক্ষা নেবে বুয়েট। যেটির প্রথম ধাপ অনুষ্ঠিত হবে ৩১ মে ও ১ জুন।

৫ জুন মূল ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য যোগ্য প্রার্থীদের নাম প্রকাশ করবে বুয়েট। আগামী ১০ জুন মূল ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

শনিবার এক বিজ্ঞপ্তিতে এসব তথ্য জানিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

ভর্তি পরীক্ষার বিষয়ে বুয়েটের ছাত্রকল্যাণ উপদেষ্টা অধ্যাপক মিজানুর রহমান বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,”প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষার মাধ্যমে সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্ত ছয় হাজার শিক্ষার্থীকে মূল পরীক্ষার জন্য বেছে নেওয়া হবে। ভর্তি পরীক্ষার জন্য তাদেরকে আর দ্বিতীয়বার আবেদন করতে হবে না।“

গত বছর ৬০০ নম্বরের ভর্তি পরীক্ষা হয়েছিল জানিয়ে তিনি আরও বলেন, “এ বছর মূল পরীক্ষায় মডিউল ‘এ’-তে ‘ক’ গ্রুপ ও ‘খ’ গ্রুপে গণিত, পদার্থ, রসায়নের উপর ৪০০ নম্বরের পরীক্ষা হবে। তবে ‘খ’ গ্রুপে আবেদনকারীকে মডিউল ‘বি’- তে মুক্তহস্ত অঙ্কন, দৃষ্টিগত ও স্থানিক ধীশক্তি পরীক্ষা দিতে হবে।”

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, করোনাভাইরাস মহামারী পরিস্থিতিতে জেএসসি ও এসএসসির গড় ফলের ভিত্তিতে এইচএসসি পরীক্ষার মূল্যায়ন করায় ভর্তির পদ্ধতিতে পরিবর্তন আনা হয়েছে। যোগ্যদের বাছাই করতে দুই ধাপে পরীক্ষা নেওয়া হবে।

এতে আরো বলা হয়, “‘ক’ গ্রুপে (প্রকৌশল ও বিভাগসমূহ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পন বিভাগ) আবেদন, প্রাক-নির্বাচনী ও মূল ভর্তি পরীক্ষার আবেদন বাবদ এক হাজার এবং ‘খ’ গ্রুপে (প্রকৌশল ও বিভাগসমূহ, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পন বিভাগ, স্থাপত্য বিভাগে) এক হাজার ২০০ টাকা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ফি দিয়ে এই প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে।”

কোভিড-১৯ মহামারীর কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে দুটি গ্রুপে আবেদন করা শিক্ষার্থীদের নিয়ে চার শিফটে আগামী ৩১ মে ও ১ জুন ১০০ নম্বরের এমসিকিউ পদ্ধতিতে প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা নেওয়া হবে।

তবে সেখানে কোনো পাশ নম্বর থাকবে না। পরীক্ষায় সর্বোচ্চ নম্বর প্রাপ্ত ৬ হাজার শিক্ষার্থীকে মূল পরীক্ষার জন্য বেছে নেওয়া হবে।

প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা থেকে যোগ্য প্রার্থীদের বাছাই প্রক্রিয়া সম্পর্কে বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, “পরিসংখ্যানভিত্তিক পদ্ধতি অনুসরণ করে প্রতিটি শিফটে প্রার্থীদের মেধার বিন্যাসের সমতুল্যতা নিশ্চিত করা হবে। প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষার ফলাফলের মেধাক্রম অনুসারে ১ম থেকে ৬০০০তম (প্রতি শিফটের ১ম থেকে ১৫০০ তম) শিক্ষার্থীকে মূল ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য নির্বাচিত করা হবে।”

৫ জুন প্রাক-নির্বাচনীর ফল প্রকাশের পর মূল ভর্তি পরীক্ষা হবে ১০ জুন।

এবার পার্বত্য চট্টগ্রাম এবং অন্যান্য এলাকার ক্ষুদ্র জাতিগোষ্ঠীভুক্ত প্রার্থীদের প্রকৌশল বিভাগ এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পনা বিভাগের জন্য মোট তিনটি এবং স্থাপত্য বিভাগে ১টি সংরক্ষিত আসনসহ মোট আসনসংখ্যা ১ হাজার ২১৫।

ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নিতে শিক্ষার্থীকে বাংলাদেশের যে কোনো মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড, মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ড ও কারিগরি শিক্ষা বোর্ড থেকে গ্রেড পদ্ধতিতে বিজ্ঞান বিভাগে (গণিত, পদার্থবিজ্ঞান ও রসায়নসহ) জিপিএ ৪.০০ পেয়ে পাশ করতে হবে।

বিদেশি শিক্ষা বোর্ড থেকে সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড নম্বর পেয়ে পাশ করতে হবে।

তবে উচ্চ মাধ্যমিক, আলিম বা সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান ও রসায়ন এই তিনটি বিষয়ে রেজিস্ট্রেশনসহ গ্রেড পদ্ধতিতে জিপিএ ৫.০০ এবং মাধ্যমিক, দাখিল বা সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান ও রসায়ন এই তিনটি বিষয়ে ৩০০ নম্বরের মধ্যে ন্যূনতম ২৭০ নম্বর পেয়ে পরীক্ষায় পাশ করতে হবে।

বিদেশি শিক্ষা বোর্ড থেকে সমমানের পরীক্ষায় কমপক্ষে সমতুল্য গ্রেড নম্বর পেয়ে পাশ করতে হবে।

অপরদিকে ইংরেজি মাধ্যমে ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেল পাশ করা প্রার্থীদের প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য ‘ও’ লেভেল পরীক্ষায় কমপক্ষে পাঁচটি বিষয় (গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান, রসায়ন এবং ইংরেজিসহ) এর প্রতিটিতে কমপক্ষে ‘ বি’ গ্রেড এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ বিজ্ঞান ও রসায়ন এই তিন বিষয়ের বিষয়ের প্রতিটিতে কমপক্ষে ‘এ’ গ্রেড পেয়ে পাশ করতে হবে।

ন্যূনতম যোগ্যতা পূরণ সাপেক্ষে ‘ও’ লেভেল এবং ‘এ’ লেভেল পরীক্ষার ফলাফল প্রাপ্ত সকল সঠিক আবেদনকারীকে প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযাগ দেয়া হবে বলে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

এছাড়া নূনতম যোগ্যতা পূরণ সাপেক্ষে ক্ষুদ্র নৃ-গোষ্ঠীর সকল সঠিক আবেদনকারীকে প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া হবে।

বিশ্ববিদ্যালয়ের ওয়েবসাইটে প্রদত্ত নির্দেশনা অনুযায়ী আবেদন ফরম যথাযথভাবে পূরণ করে তা অনলাইনে সাবমিট করতে হবে।

সাবমিট করা শেষে একটি অ্যাপ্লিকেশন সিরিয়াল নম্বর দেওয়া হবে। পরের ধাপে এই নম্বরের বিপরীতে সোনালী ব্যাংকের অনলাইন পোর্টালে, সোনালী ব্যাংকের মোবাইল অ্যাপে এবং নগদ, রকেট, নেক্সাস পে, বিকাশসহ মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে আবেদন ফি জমা দিতে হবে।

বুয়েটে ভর্তি: আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল, পরীক্ষা দুই ধাপে
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আগামী ১৫ এপ্রিল থেকে শুরু হচ্ছে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) স্নাতক ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার প্রাথমিক আবেদন প্রক্রিয়া। ওইদিন সকাল ১০ টা থেকে শুরু করে আবেদন প্রক্রিয়া চলবে ২৪ এপ্রিল বিকেল ৩টা পর্যন্ত। অনলাইনে আবেদন করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা।

শনিবার (১০ এপ্রিল) এ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে বুয়েট কর্তৃপক্ষ। বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, এবার ভর্তি কার্যক্রম কোভিড ১৯ মহামারির কারণে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রাক-নির্বাচনী ও মূল ভর্তি পরীক্ষার মাধ্যমে দুই ধাপে অনুষ্ঠিত হবে।

আবেদনকারীকে দেশের যে কোনও মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড থেকে এসএসসিতে বিজ্ঞান বিভাগ থেকে জিপিএ- ৪.০০ এবং এইচএসসিতে জিপিএ-৫.০০ পেতে হবে। মাধ্যমিক ও সমমানের পরীক্ষায় গণিত, পদার্থ ও রসায়নে ৩০০ নম্বরের মধ্যে পেতে হবে ২৭০ নম্বর। ইংরেজি মাধ্যমের শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রেও পেতে হবে সমমানের গ্রেড/নম্বর।

প্রাক-নির্বাচনী ও মূল ভর্তি বাবদ `ক` গ্রুপের (প্রকৌশল ও বিভাগগুলো এবং নগর ও অঞ্চল পরিকল্পন বিভাগ) জন্য ১ হাজার টাকা এবং `খ` গ্রুপের (প্রকৌশল ও বিভাগগুলো, নগর ও অঞ্চল পরিকল্পন বিভাগ ও স্থাপত্য বিভাগে) জন্য ১ হাজার ২০০ টাকা মোবাইল ব্যাংকিংয়ের মাধ্যমে ফি দিয়ে আবেদন প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে হবে শিক্ষার্থীদের।

চার শিফটে ১০০ নম্বরের ঘণ্টাব্যাপী এমসিকিউ টাইপ প্রাক-নির্বাচনী পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে আগামী ৩১ মে ও ১ জুন।পরবর্তীতে ৫ জুন মূল ভর্তি পরীক্ষায় অংশগ্রহণের জন্য প্রকাশ করা হবে যোগ্য আবেদনকারীদের নামের তালিকা। মূল ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে ১০ জুন। এরপর আগামী ১ জুলাই নির্বাচিত ও অপেক্ষমাণ প্রার্থীদের নামের তালিকা প্রকাশ করবে বুয়েট কর্তৃপক্ষ।

এসএসসির ফরম পূরণ স্থগিত, বাড়ছে সময়
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : লকডাউনের কারণে সারাদেশে এসএসসির ফরম পূরণ স্থগিত রাখা হয়েছে। তবে বিলম্ব ফি ছাড়া নতুন করে ফরম পূরণের সময় বাড়ানো হবে বলে আন্তঃশিক্ষা সমন্বয় বোর্ড থেকে জানা গেছে।

গত ১ এপ্রিল থেকে এসএসসির ফরম পূরণ শুরু হয়। ৭ এপ্রিল পর্যন্ত ফরম পূরণ চলার কথা ছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় সোমবার (৫ এপ্রিল) থেকে সারাদেশে লকডাউন শুরু হয়। এ কারণে এসএসসির ফরম পূরণও স্থগিত রাখা হয়।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে সোমবার আন্তঃশিক্ষা সমন্বয়ক বোর্ডের সভাপতি ও ঢাকা শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান অধ্যাপক নেহাল আহমেদ বলেন, `লকডাউনের কারণে এসএসসির চলমান ফরম পূরণ স্থগিত রাখা হয়েছে। বর্তমানে মহামারি একটি জাতীয় সমস্যা, তাই লকডাউন শেষে ফরম পূরণের সময় বাড়ানো হবে। বিলম্ব ফি ছাড়া পরীক্ষার্থীরা ফরম পূরণ করতে পারবেন।`

কতদিন সময় বাড়ানো হতে পারে এমন প্রশ্নে তিনি বলেন, `ইতোমধ্যে অধিকাংশ শিক্ষার্থী নিজেদের ফরম পূরণের কাজ শেষ করেছে। এখনো যারা বাকি রয়েছে তাদের সুবিধার্থে লকডাউন শেষে নতুন করে বিলম্ব ফি ছাড়া ৪ থেকে ৫ দিন সময় বাড়ানো হবে। যেহেতু এসএসসি পরীক্ষার সময় এখনো নির্ধারণ হয়নি, সেহেতু প্রয়োজনে এ সময় আরও বাড়ানো হতে পারে।`

সংশ্লিষ্ট সূত্র মতে, ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া ফরম পূরণ করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফি জমা দেয়ার সময় ৮ এপ্রিল শেষ হবে।

বিলম্ব ফিসহ ১০ থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত অনলাইনে ফরম পূরণ করতে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করবে দেশের সব শিক্ষা বোর্ডগুলো।

বিক্রি শুরু হতেই বন্ধ হলো মেলা
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ দুপুরের রোদ পড়ে আসতেই মেলা জমে উঠতে শুরু করেছিল। ছুটির দিনে বিকালে যখন মানুষের আনাগোনা বেড়েছে ঠিক তখনই মেলা বন্ধ হওয়ার ঘোষণা এলো বাংলা একাডেমির মাইকে। স্টল গুছিয়ে প্রকাশকরা, মেলায় আসা পাঠকরা ধরলেন বাড়ির পথ। মেলার নতুন সময়সূচি প্রকাশকের জন্য তো বটেই, পাঠকের জন্যও সুবিধাজনক হয়নি। প্রকাশকরা বিক্রি করতে না পেরে ক্ষতির মুখে পড়েছেন। আর পাঠকরা বই কেনা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।

কাগজে-কলমে মেলা যতই সাড়ে তিন ঘণ্টা খোলা থাকুক না কেন রোদ পড়ে না এলে কেউ মেলায় আসেন না। তাই মেলার সময় যদি কমাতেই হয় তাহলে দিনের বেলা কমিয়ে তা বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত চার ঘণ্টা খোলা রাখলে সবার জন্যই তা মঙ্গলের হবে। কিন্তু এ কথা কে কাকে বোঝাবে!

গতকাল শুক্রবার ছুটির দিন থাকায় মেলায় পাঠকের আনাগোনা বেড়েছিল। ছিল দল বেঁধে তরুণদের ঘোরাফেরাও। মেলার দুয়ার খুলে গিয়েছিল সকাল এগারোটায়। কিন্তু এই গরমের মধ্যে পাঠকের আনাগোনা একেবারেই ছিল না। দুপুরের পর রোদের তেজ কমে এলে মানুষর ভিড় বাড়তে শুরু করে।

গতকাল মেলা জুড়ে আলোচনার বিষয়ই ছিল মেলার এমন অদ্ভুত সময়সূচি করার কারণ কী? এদিকে, মেলা ঘুরে দেখা যায়, প্রকাশনী প্রতিষ্ঠানগুলোর বিক্রেতারা হতোদ্যম হয়ে বসে আছে। করোনার পর এক বছর বিক্রি বন্ধ থাকার পর মেলা করে যেখানে তারা কিছুটা আয়ের পথ খুঁজছিলেন, নতুন এ সময়সূচি তাদের সেই আয়ের পথও বন্ধ করে দিয়েছে। বরং আর্থিক ক্ষতি হবে সবারই।

অবসর প্রকাশনীর ব্যবস্থাপক মাসুদ রানা বলেন, ‘মেলা হচ্ছে দেখে নতুন করে ৫০টি গ্রন্থ প্রকাশ করা হয়েছে। এর বাইরে পুরোনো বইও প্রিন্ট করা হয়েছে। নতুন করে লাখ লাখ টাকা লগ্নি করার পর এখন যে অবস্থা তাতে প্যাভিলিয়ন বানানোর যে খরচ সেটাই উঠে আসা কঠিন।’

অনুপম প্রকাশনীর প্রকাশক মিলন কান্তি নাথ বলেন, ‘যে সময়টায় বিক্রি শুরু হয় তখনই বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মেলা। ফলে, দোকান খোলা আর বন্ধই হচ্ছে, বই বিক্রি তেমন হচ্ছে না। ফেব্রুয়ারিতে যখন মেলা হয় তখন শীতকাল থাকে। মানুষ ৩টার সময়ই মেলায় চলে আসে। এখন গরম পড়েছে। তাই রোদ না পড়লে কেউ মেলায় ঢুকছেন না।

শিশু চত্বর আছে নেই শিশুদের হুটোপুটি

করোনাকালীন সময়ে বইমমেলায় শিশুপ্রহর না থাকায় ছুটির দিনের সকালে শিশুদের দেখা মেলে না এখন। বেলা ১২টায় সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ছিল কিছু মানুষের পদচারণা। এসময় কয়েক জন অভিভাবকের সঙ্গে দেখা মেলে এক-দুজন শিশুরও।

চিলড্রেন বুকস সেন্টারের স্বত্বাধিকারী জগলুল সরকার জানান, মেলার প্রথম পহরে শিশুরা না এলে আমাদেরও ভালো লাগে না। বই বিক্রি বড় বিষয় না, কিন্তু আমরা শিশুদের বই প্রকাশ করি, তাদের জন্য কাজ করি, এমন অবস্থায় শিশুরাই যদি না আসে, তাহলে কীভাবে চলে।

মেলায় আসা জাকিয়া সুলতানা বলেন, সকাল সকাল বাচ্চাদের নিয়ে মেলায় এলাম। কিন্তু এখানে এসে বেশ হতাশ হলাম। ভেবেছিলাম শিশুপ্রহর না থাকলেও অন্তত অনেকেই আসবেন। অথচ শিশু চত্বরসহ পুরো মেলাই একেবারে ফাঁকা।

নতুন বই :একুশে বইমেলার ১৬তম দিন গতকাল নতুন বই এসেছে ১৯৯টি। এতে রয়েছে গল্প-৩৩, উপন্যাস-৩৭, প্রবন্ধ-৭, কবিতা-৫৪, গবেষণা-৯, ছড়া-৪, শিশুসাহিত্য-১, জীবনী-৪, রচনাবলি-৩, মুক্তিযুদ্ধ-৬, নাটক-০, বিজ্ঞান-২, ভ্রমণ-৪, ইতিহাস-২, রাজনীতি-১, চিঃ/স্বাস্থ্য-২, বঙ্গবন্ধু-২, রম্য/ধাঁধা-১, ধর্মীয়-৩, অনুবাদ-১, অভিধান-০, সায়েন্স ফিকশন-২ এবং অন্যান্য-২১টি বই। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্যহচ্ছে—অনুপম প্রকাশনী এনেছে আনিসুল হকের ‘ভয় নয়, জয় দেখান’, আগামী প্রকাশনী এনেছে আসাদ চৌধুরীর ‘বঙ্গবন্ধু-মুক্তিযুদ্ধ’, ময়ূরপঙ্খি এনেছে মঞ্জু সরকারের ‘খোকা সব পারে’, কথাপ্রকাশ এনেছে আহমদ রফিকের ‘একান্তবিচারে বিদেশি মনীষা’, অনিন্দ্য প্রকাশ এনেছে খালেক বিন জয়েনউদদীনের ‘বঙ্গবন্ধু ও রাসেলের গল্প’, মোশতাক আহমেদের ‘নক্ষত্রের রাজারবাগ’, আসলাম সানীর ‘বাংলাদেশের কনিষ্ঠ ভূমিপুত্র শেখ রাসেল’, অক্ষর প্রকাশনী এনেছে সুজাতা আজিমের ‘চলচ্চিত্রে আমার ৫৫ বছর’, দ্য পপ আপ ফ্যাক্টরি এনেছে মুহম্মদ জাফর ইকবালের ‘ব্যাঙ আর বনের পশু’, রেনেসাঁ এনেছে প্রত্যয় জসীমের ‘ইতিহাস প্রসিদ্ধ বিপ্লব’, শিকড় এনেছে রেজাউদ্দিন স্ট্যালিনের ‘একুশের দিনগুলো’ প্রভৃতি।

সুত্র ঃ দৈনিক ইত্তেফাক

পিছিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ৩০ মার্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত থাকলেও সেদিন শবে বরাতের ছুটি থাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলা হবে না। সেজন্য ছুটি আরও পিছিয়ে দেয়া হবে বলে শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে জানানো হয়েছে। তবে করোনাভাইরাস বেড়ে যাওয়ায় ঈদুলফিতর পর্যন্ত ছুটি বাড়ানো হতে পারে।

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বুধবার (২৪ মার্চ) গণমাধ্যমকে বলেন, সরকারি সিদ্ধান্ত অনুযায়ী আগামী ৩০ মার্চ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খুলে দেয়ার সিদ্ধান্ত থাকলেও সেদিন শবে বরাতের ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে। এ কারণে সেদিন স্কুল-কলেজ খোলা হবে না।’

তিনি আরও বলেন, ‘ছুটির বিষয় নিয়ে দুই-একদিনের মধ্যে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালকের সঙ্গে আলোচনা করা হবে। আগামী ৩০ মার্চ ছুটি ঘোষণা করে মাউশিকে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করতে বলা হবে।’

শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের একাধিক কর্মকর্তা মনে করেন, ‘করোনা পরিস্থিতি বেড়ে যাওয়ায় বর্তমানে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্ত পিছিয়ে দেয়ার চিন্তা-ভাবনা করা হচ্ছে। শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার কথাটি আগে বিবেচনা করে স্কুল-কলেজ খোলার সিদ্ধান্ত নেয়া হবে।

তবে ছুটি বাড়ানোর বিষয়ে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সচিব মো. মাহবুব হোসেন বলেন, ‘শিক্ষার্থীদের সুরক্ষার বিষয়টি বিবেচনা করে এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হবে। দ্রুত সময়ের মধ্যে এ বিষয়ে ঘোষণা দেয়া হবে বলেও জানান তিনি।’

সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২৫ ও ২৬ মার্চ পালনের নির্দেশ
                                  

অনলাইন ডেস্ক: সারা দেশে কারিগরি ও মাদরাসাসহ সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস ও ২৬ মার্চ স্বাধীনতা দিবস পালনের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

মঙ্গলবার (২৩ মার্চ) মাদরাসা বোর্ডের রেজিস্ট্রার মো. সিদ্দিকুর রহমান স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করা হয়েছে। চলতি সপ্তাহে দেশের সাধারণ সকল স্কুল-কলেজে এই দুই দিবস পালনের নির্দেশনা দিয়েছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগ।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা বিভাগ হতে নির্দেশনা মোতাবেক আগামী ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস ও ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবস পালন করতে হবে। এ দুই বিশেষ দিন পালনে কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেয়া হয়েছে। এসব কর্মসূচি বাস্তবায়নে সকল মাদরাসা ও কারিগরি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রধানদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে বিশিষ্ট ব্যক্তি/বীর মুক্তিযোদ্ধাদের কণ্ঠে ২৫ মার্চ গণহত্যার স্মৃতিচারণ ও আলোচনা সভা করতে হবে। ২৬ মার্চ জাতীয় পতাকা উত্তোলন, সকালে কুচকাওয়াজ, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষার্থী সমাবেশ, জাতীয় সংগীত পরিবেশন এবং ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে হবে।

জাতীয় পর্যায়ে রচনা ও বিতর্ক প্রতিযোগিতার আয়োজনসহ সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করতে বলা হয়েছে।

সুত্র ঃ আরটিভি 

১ এপ্রিল শুরু এসএসসির ফরম পূরণ, হবে না নির্বাচনী পরীক্ষা
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক : ২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণ আগামী ১ এপ্রিল থেকে শুরু হতে যাচ্ছে। রোববার (২১ মার্চ) ঢাকা বোর্ড থেকে জারি করা এক বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়েছে, আগামী ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া ফরম পূরণ করতে পারবেন শিক্ষার্থীরা। আর বিলম্ব ফি’সহ ১০ এপ্রিল থেকে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত অনলাইনে ফরম পূরণ করা যাবে। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে এ বছর যোগ্যতা নির্ধারণী হিসেবে এসএসসির নির্বাচনী পরীক্ষা হবে না বলেও জানিয়েছে ঢাকা বোর্ড।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, শিক্ষার্থীদের তথ্য ও সম্ভাব্য তালিকা ঢাকা বোর্ডের ওয়েবসাইটে ২৮ মার্চ প্রকাশ করা হবে। সম্ভাব্য তালিকা থেকে আগামী ১ এপ্রিল থেকে ৭ এপ্রিল পর্যন্ত বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফরম পূরণ করতে পারবেন এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে ইচ্ছুক শিক্ষার্থীরা। বিলম্ব ফি ছাড়া অনলাইনে ফি জমা দেয়ার শেষ সময় ৮ এপ্রিল।

আর বিলম্ব ফিসহ ১০ এপ্রিল থেকে ১৪এপ্রিল পর্যন্ত এসএসসির ফরম পূরণ করা যাবে। পরীক্ষার্থীপ্রতি ১০০ টাকা বিলম্ব ফি’সহ ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত ফি জমা দেয়া যাবে।

২০২১ সালের এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে ইচ্ছুক জিপিএ উন্নয়ন পরীক্ষার্থীসহ ২০২০ সালের পরীক্ষায় ফেল করা পরীক্ষার্থীদের ১ এপ্রিলের মধ্যে নিজ প্রতিষ্ঠানের প্রধান বরাবর সাদা কাগজে আবেদন করতে বলা হয়েছে।

এ বছর প্রতিষ্ঠানগুলোকে বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে এসএসসির ফরম পূরণ বাবদ সর্বোচ্চ ১ হাজার ৯৭০ টাকা, ব্যবসায় শিক্ষা বিভাগের পরীক্ষার্থীদের থেকে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৮৫০ টাকা এবং মানবিক বিভাগের শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে সর্বোচ্চ ১ হাজার ৮৫০ টাকা ফি নিতে বলেছে ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ড।

এসএসসি পরীক্ষার ফি বাবদ শিক্ষার্থীদের কাছ থেকে পত্রপ্রতি ১০০ টাকা, ব্যবহারিকের ফি বাবদ পত্রপ্রতি ৩০ টাকা, একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্টের ফি বাবদ পরীক্ষার্থীপ্রতি ৩৫ টাকা, মূল সনদ বাবদ শিক্ষার্থীপ্রতি ১০০ টাকা, বয়েজ স্কাউট ও গার্লস গাইড ফি বাবদ ১৫ টাকা এবং জাতীয় শিক্ষা সপ্তাহ ফি বাবদ পরীক্ষার্থী প্রতি ৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

এছাড়া অনিয়মিত শিক্ষার্থীদের ক্ষেত্রে পরীক্ষার্থী প্রতি ১০০ টাকা অনিয়মিত ফি নির্ধারণ করা হয়েছে। এছাড়া জিপিএ উন্নয়ন পরীক্ষার্থীদের তালিকাভুক্তি ফি ১০০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

আজ থেকে বইমেলা
                                  

অনলাইন ডেস্কঃ করোনা পরিস্থিতিতে দুই সপ্তাহের বেশি সময় পিছিয়ে আজ শুরু হচ্ছে ‘অমর একুশে বইমেলা’। বাংলাদেশের বই কেন্দ্রিক সবচেয়ে বড় আয়োজনটির ৩৭তম আসর বসছে এবার, চলবে ১৪ এপ্রিল পর্যন্ত।

জাতীয় জীবনে বাংলাদেশ গুরুত্বপূর্ণ মাইলফলক পার করছে চলতি বছরে। এক দিকে স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী ও অন্যদিকে শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবর্ষ, দুই উপলক্ষই এবারের মেলার থিম।

মঙ্গলবার মেলার বিস্তারিত তুলে ধরে বাংলা একাডেমি। সেদিন জানানো হয়, ১৮ মার্চ বিকেল ৩টায় বইমেলা উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। একই অনুষ্ঠানে দেওয়া হবে বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার।

এবার বই মেলা অনুষ্ঠিত হবে বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণ এবং ঐতিহাসিক সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের প্রায় ১৫ লাখ বর্গফুট জায়গায়। একাডেমি প্রাঙ্গণে ১০৭টি প্রতিষ্ঠানকে ১৫৪টি এবং সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে ৪৩৩টি প্রতিষ্ঠানকে ৬৮০টি ইউনিটসহ মোট ৫৪০টি প্রতিষ্ঠানকে ৮৩৪টি ইউনিট বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। মেলায় ৩৩টি প্যাভিলিয়ন থাকবে। এ ছাড়া লিটল ম্যাগাজিন চত্বর স্থানান্তরিত হয়েছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মূল মেলা প্রাঙ্গণে। সেখানে ১৩৫টি লিটলম্যাগকে স্টল বরাদ্দের পাশাপাশি ৫টি উন্মুক্ত স্টলসহ ১৪০টি স্টল দেওয়া হয়েছে।

 

তবে করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এবার প্রথমদিকে শিশু প্রহর থাকছে না এবার।

এ ছাড়া সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানের ব্যবস্থা থাকবে।

এবার সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের পূর্ব পাশে নতুন একটি প্রবেশ পথ করা হয়েছে। প্রকাশকদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল রমনা প্রান্তে একটি প্রবেশ পথ ও পার্কিং-এর ব্যবস্থা করা। যার ফলে ইঞ্জিনিয়ারিং ইনস্টিটিউটের পাশ দিয়ে অতিথিরা প্রবেশ করতে পারবেন। সব মিলিয়ে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ৩টি প্রবেশ পথ ও ৩টি বাহির হওয়ার পথ থাকবে।

ছুটির দিন ব্যতীত প্রতিদিন বিকেল ৩টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত খোলা থাকবে। ছুটির দিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৯টা চলবে বইমেলা।

করোনার কথা বিবেচনায় রেখে এবার মাস্ক ছাড়া প্রবেশ করা যাবে না বইমেলায়।

১১২৮ শিক্ষক-কর্মচারী নতুন করে এমপিওভুক্ত হলেন
                                  

অনলাইন ডেস্ক: নতুন করে এক হাজার ১২৮ শিক্ষক-কর্মচারীকে মান্থলি পেমেন্ট অর্ডার (এমপিওভুক্তি) করা হয়েছে।

সোমবার (১৫ মার্চ) মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদফতরের (মাউশি) মহাপরিচালক অধ্যাপক সৈয়দ গোলাম মো. ফারুকের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় তাদের এমপিও দেয়া হয়।

সভায় সংশ্লিষ্ট বিভাগের তিনজন প্রতিনিধি, পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতরের একজন, অধিদফতরের নয়টি আঞ্চলিক উপ-পরিচালকসহ ৩০ জনের বেশি কর্মকর্তা অংশ নেন।

এবিষয়ে মাউশির পরিচালক (মাধ্যমিক) প্রফেসর বেলাল হোসাইন সাংবাদিকদের বলেন, নিয়মিত এমপিও বৈঠকে মোট ১৪২০টি আবেদন ছিল। তার মধ্যে যাচাই-বাছাই করে ১১২৮ জন শিক্ষক-কর্মচারীকে এমপিওভূক্ত করা হয়েছে। যেসব আবেদনের অসঙ্গতি ছিল সেগুলো আরও যাচাই করে পরবর্তীতে এমপিও সভায় তোলা হবে।

জানা গেছে, নাম ও বয়স সংশোধন, টাইম স্কেল, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিবর্তন, জটিলতার আবেদনের মধ্যে চার হাজার ৯৭৫টি আবেদন গ্রহণ করা হয়।

নিয়ম অনুযায়ী, প্রতি বিজোড় মাসে একবার এমপিও কমিটির সভা অনুষ্ঠিত হয়। সে হিসেবে সোমবার (১৫ মার্চ) এ সভা ডাকা হয়। এ সভায় শিক্ষক-কর্মচারীদের এমপিও দেয়ার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জরুরি নির্দেশনা
                                  

অনলাইন ডেস্ক: পূর্বঘোষিত সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, আগামী ৩০ মার্চ দেশের সরকারি-বেসরকারি স্কুল, কলেজ, মাদরাসা ও কারিগরি পর্যায়ের সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে আন্তঃমন্ত্রণালয় সভায় গৃহীত সিদ্ধান্তগুলো বাস্তবায়ন সংক্রান্ত জরুরি নির্দেশনা জারি করেছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

রোববার (১৪ মার্চ) রাতে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের কারিগরি ও মাদরাসা শিক্ষা বিভাগ থেকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনা জারি করা হয়। নির্দেশনাগুলো হলো-

১. স্বাস্থ্য ও শিক্ষা মন্ত্রণালয় সমন্বিতভাবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট শিক্ষক-কর্মচারীদের টিকা দেওয়ার বিষয়টি আগামী ৩০ মার্চের আগেই সম্পন্ন করতে হবে।

 ২. কোনো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সংস্কার অথবা মেরামতের প্রয়োজন হলে তা ৩০ মার্চর আগে সম্পন্ন করতে হবে।

 ৩. এ বিষয়ে শিক্ষা প্রকৌশল অধিদপ্তর, স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে গণপূর্ত অধিদপ্তর সংশ্লিষ্ট শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান সংস্কার অথবা মেরামতের ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

 ৪. মাঠ পর্যায়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও পরিবার পরিকল্পনা অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা পর্যায়ক্রমে প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করবেন এবং স্বাস্থ্য সুরক্ষা মেনে চলার বিষয়টি মনিটরিং করবেন।

৫. শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এসএসসি শিক্ষার্থীদের ৬০ কর্মদিবস ও এইচএসসি শিক্ষার্থীদের ৮০ কর্মদিবস পাঠদান শেষে সংক্ষিপ্ত সিলেবাসে পরীক্ষা নেওয়া হবে।

গত ২৭ ফেব্রুয়ারি শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি আন্তঃমন্ত্রণালয় বৈঠকে বলেন, আগামী ৩০ মার্চ দেশের সব স্কুল-কলেজ খুলে দেওয়া হবে। অপরদিকে, গত শুক্রবার (১২ মার্চ) শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেন, করোনা সংক্রমণ বাড়তে থাকলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ পেছাতে পারে। এ বিষয়টি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। শিক্ষার্থী, শিক্ষক, অভিভাবকদের নিরাপত্তা আগে। করোনা সংক্রমণ ঊর্ধ্বগতি থাকলে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার সিদ্ধান্তের তারিখ পেছাতে পারে।


   Page 1 of 26
     শিক্ষাঙ্গন
পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলবে ২৩ মে
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স চতুর্থ বর্ষের ভাইভা অনলাইনে
.............................................................................................
ঢাবি ক্যাম্পাসে গণজমায়েত ও মঙ্গল শোভাযাত্রা হবে না
.............................................................................................
রমজানে মাদরাসা বন্ধের আদেশ প্রত্যাহার দাবি
.............................................................................................
এসএস সি ও এইচ এস সি পরীক্ষার্থীদের অটো পাস কি হবে ?
.............................................................................................
বুয়েটে ভর্তি আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল
.............................................................................................
বুয়েটে ভর্তি: আবেদন শুরু ১৫ এপ্রিল, পরীক্ষা দুই ধাপে
.............................................................................................
এসএসসির ফরম পূরণ স্থগিত, বাড়ছে সময়
.............................................................................................
বিক্রি শুরু হতেই বন্ধ হলো মেলা
.............................................................................................
পিছিয়ে যাচ্ছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার তারিখ
.............................................................................................
সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ২৫ ও ২৬ মার্চ পালনের নির্দেশ
.............................................................................................
১ এপ্রিল শুরু এসএসসির ফরম পূরণ, হবে না নির্বাচনী পরীক্ষা
.............................................................................................
আজ থেকে বইমেলা
.............................................................................................
১১২৮ শিক্ষক-কর্মচারী নতুন করে এমপিওভুক্ত হলেন
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের জরুরি নির্দেশনা
.............................................................................................
পরিবর্তন আসছে চার শ্রেণির পাঠ্যক্রমে
.............................................................................................
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তির আবেদন স্থগিত
.............................................................................................
এইচএসসি পরীক্ষা হবে দুবারে
.............................................................................................
দেশের সবচেয়ে বড় শিক্ষামেলা ১২-১৩ মার্চ
.............................................................................................
৫৭ হাজার শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া শুরু
.............................................................................................
উপবৃত্তির পাশাপাশি এবার টিউশন ফি পাবে শিক্ষার্থীরা
.............................................................................................
প্রাথমিকের প্রধান শিক্ষকদের ৮ম ও সহকারি শিক্ষকদের ১০ম গ্রেড!
.............................................................................................
ঢাবির ১২ শিক্ষার্থীকে স্থায়ী বহিষ্কার
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলছে ৩০ মার্চ
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের স্থগিত পরীক্ষার সময়সূচি প্রকাশ
.............................................................................................
ঢাবির হল খুলবে ১৭ মে, টিকা নিতে হবে এক মাস আগে
.............................................................................................
জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের সব পরীক্ষা স্থগিত
.............................................................................................
বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার আগের সব সিদ্ধান্ত বাতিল
.............................................................................................
জাবির হল না ছাড়লে ব্যবস্থা
.............................................................................................
ঢাবি ভর্তি পরীক্ষার আবেদন শুরু ৮ মার্চ
.............................................................................................
গুচ্ছ পদ্ধতিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ
.............................................................................................
২১ মে থেকে ঢাবির ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তাব
.............................................................................................
আবারো শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়ল
.............................................................................................
এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষায় চার ঘণ্টায় আবেদন ৩৫ হাজারের বেশি
.............................................................................................
এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ
.............................................................................................
এসএসসি-এইচএসসির সংশোধিত সিলেবাস প্রকাশ
.............................................................................................
নতুন অধ্যক্ষ পেল ৪৬ সরকারি কলেজ
.............................................................................................
উচ্চশিক্ষার ভর্তিতে আসন সঙ্কট হবে না
.............................................................................................
১৩ মার্চ খুলছে ঢাবির হল
.............................................................................................
এইচএসসিতে রেকর্ড সংখ্যক জিপিএ ৫
.............................................................................................
এইচএসসি ও সমমান পরীক্ষার ফল প্রকাশ
.............................................................................................
আপত্তি থাকলে রিভিউ করা যাবে এইচএসসি পরীক্ষার ফল
.............................................................................................
এইচএসসির ফলাফল জানতে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে জমায়েতে নিষেধাজ্ঞা
.............................................................................................
আবারো বাড়ল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি
.............................................................................................
জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ শিক্ষার্থী বহিষ্কার
.............................................................................................
দ্রুত স্কুল খোলার পক্ষে ৭৫ শতাংশ শিক্ষার্থী
.............................................................................................
ঢাবির সাত কলেজে ৪ ঘণ্টার পরীক্ষা হবে ২ ঘণ্টায়
.............................................................................................
শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে ছুটি বাড়ল ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত
.............................................................................................
শীতে খুলছে না স্কুল-কলেজ!
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop