| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * মতিঝিলে `বিচ্ছু বাহিনী`র ৫ সদস্য গ্রেফতার   * ফরিদপুরে করোনা-উপসর্গে আরও ১২ জনের মৃত্যু   * করোনাকালে ডেঙ্গু নিয়ে অবহেলা না করার অনুরোধ   * ফেরিতে উঠতে গিয়ে নদীতে পড়ে গেলেন ৩ যাত্রী   * করোনায় আরও ২২৮ জনের মৃত্যু   * মাস্কবিহীন কাউকে ছাড় দেয়া হচ্ছে না   * মহারাষ্ট্রে ভারি বৃষ্টি ও ভূমিধস, নিহত বেড়ে ১৩৮   * টিকা নিতে ১ কোটির বেশি মানুষের নিবন্ধন   * দৌলতদিয়ায় উভয়মুখী যাত্রীর চাপ   * পদ্মা সেতুর পিলারে ধাক্কা: ফেরির ২ চালককে দায়ী করে প্রতিবেদন  

   খেলাধুলা -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
টোকিওতে ইতিহাস গড়ে যে বার্তা দিলো শিশু জাজা

অনলাইন ডেস্ক : টোকিওতে পা রাখতেই ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছে হেন্ড জাজা। ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ খ্যাত অলিম্পিকের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী অ্যাথলেটের মধ্যে অন্যতম সে। টেবিল টেনিসে পশ্চিম এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন হওয়া জাজা সিরিয়ার হয়ে অলিম্পিকে অংশ নেয়। যদিও প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় হয়েছে তার। যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া থেকে ক্রীড়া বিশ্বের সর্বোচ্চ আসরে অংশ নিয়ে মন জয় করে নিয়েছেন ক্রীড়ামোদিদের।

মাত্র ১২ বছর ২০৫ দিন বয়সে অলিম্পিকে অভিষেক হয়েছে শিশু জাজার। জাজাই টেবিল টেনিস ইভেন্টে সবচেয়ে কম বয়সী অ্যাথলেট। সব মিলিয়ে কম বয়সীদের মধ্যে পঞ্চম। ১৯৬৮ সালে উইন্টার অলিম্পিকে রোমানিয়ার বেটরিক হুসটিও ফিগার স্কেটিংয়ে অংশ নিয়েছিল ১১ বছর ১৫৮ দিন বয়সে। যা এখনও পর্যন্ত রেকর্ড।

২০০৯ সালে সিরিয়ার হামা শহরে হেন্ড জাজা জন্ম। ২০১১ সালের মার্চ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে শুরু গৃহযুদ্ধ। যা এখনও শেষ হয়নি। পাঁচ বছর বয়সে পরিবারের কাছ থেকে টেবিল টেনিসের হাতে খড়ি তার।

জাজা বলেন, ‘শেষ পাঁচ বছরে আমার অনেক কিছুর অভিজ্ঞতা হয়েছে। বিশেষ করে আমাদের দেশে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে তা থেকে। বারবার অলিম্পিকে আসার জন্য পৃষ্ঠপোষকতা পেতে বঞ্চিত হচ্ছিলাম। সত্যি অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়েছে।’

২০১৬ সালে কাতারে আন্তর্জাতিক টেবিল টেনিস ফেডারেশনের টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে নজর কাড়েন জাজা। ২০১৯ সালে জর্ডানে অনুষ্ঠিত পশ্চিম এশিয়ান টেবিল টেনিস বাছাইয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে অলিম্পিকের টিকিট নিশ্চিত করেন।

‘আমি লড়াই করে এই পর্যন্ত এসেছি। আমার এই বার্তা তাদের জন্য যারা আমার মতো পরিস্থিতিতে রয়েছে। যুদ্ধ করতে হবে স্বপ্ন বাস্তব করার জন্য। যতই সমস্যা থাকুক, নিজের লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে, সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। তাহলেই সফলতা মিলবে।’ যোগ করেন জাজা।

টোকিওতে ইতিহাস গড়ে যে বার্তা দিলো শিশু জাজা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : টোকিওতে পা রাখতেই ইতিহাসের পাতায় নাম লিখিয়েছে হেন্ড জাজা। ‘গ্রেটেস্ট শো অন আর্থ’ খ্যাত অলিম্পিকের ইতিহাসে সবচেয়ে কম বয়সী অ্যাথলেটের মধ্যে অন্যতম সে। টেবিল টেনিসে পশ্চিম এশিয়ান চ্যাম্পিয়ন হওয়া জাজা সিরিয়ার হয়ে অলিম্পিকে অংশ নেয়। যদিও প্রথম রাউন্ড থেকেই বিদায় হয়েছে তার। যুদ্ধবিধ্বস্ত সিরিয়া থেকে ক্রীড়া বিশ্বের সর্বোচ্চ আসরে অংশ নিয়ে মন জয় করে নিয়েছেন ক্রীড়ামোদিদের।

মাত্র ১২ বছর ২০৫ দিন বয়সে অলিম্পিকে অভিষেক হয়েছে শিশু জাজার। জাজাই টেবিল টেনিস ইভেন্টে সবচেয়ে কম বয়সী অ্যাথলেট। সব মিলিয়ে কম বয়সীদের মধ্যে পঞ্চম। ১৯৬৮ সালে উইন্টার অলিম্পিকে রোমানিয়ার বেটরিক হুসটিও ফিগার স্কেটিংয়ে অংশ নিয়েছিল ১১ বছর ১৫৮ দিন বয়সে। যা এখনও পর্যন্ত রেকর্ড।

২০০৯ সালে সিরিয়ার হামা শহরে হেন্ড জাজা জন্ম। ২০১১ সালের মার্চ থেকে মধ্যপ্রাচ্যের দেশটিতে শুরু গৃহযুদ্ধ। যা এখনও শেষ হয়নি। পাঁচ বছর বয়সে পরিবারের কাছ থেকে টেবিল টেনিসের হাতে খড়ি তার।

জাজা বলেন, ‘শেষ পাঁচ বছরে আমার অনেক কিছুর অভিজ্ঞতা হয়েছে। বিশেষ করে আমাদের দেশে যে পরিস্থিতি বিরাজ করছে তা থেকে। বারবার অলিম্পিকে আসার জন্য পৃষ্ঠপোষকতা পেতে বঞ্চিত হচ্ছিলাম। সত্যি অনেক কঠিন পথ পাড়ি দিতে হয়েছে।’

২০১৬ সালে কাতারে আন্তর্জাতিক টেবিল টেনিস ফেডারেশনের টুর্নামেন্টে অংশ নিয়ে নজর কাড়েন জাজা। ২০১৯ সালে জর্ডানে অনুষ্ঠিত পশ্চিম এশিয়ান টেবিল টেনিস বাছাইয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়ে অলিম্পিকের টিকিট নিশ্চিত করেন।

‘আমি লড়াই করে এই পর্যন্ত এসেছি। আমার এই বার্তা তাদের জন্য যারা আমার মতো পরিস্থিতিতে রয়েছে। যুদ্ধ করতে হবে স্বপ্ন বাস্তব করার জন্য। যতই সমস্যা থাকুক, নিজের লক্ষ্যে পৌঁছতে হলে, সর্বোচ্চ চেষ্টা করতে হবে। তাহলেই সফলতা মিলবে।’ যোগ করেন জাজা।

অলিম্পিকের প্রথম স্বর্ণ জিতলেন চীনের ইয়াং কিয়ান
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : শুক্রবার উদ্বোধনের পর আজ থেকে শুরু হয়ে গেল টোকিও অলিম্পিকের মেডেল রাউন্ড। যেখানে প্রথম স্বর্ণ নিয়ে গেলেন আসরের অন্যতম ফেবারিট দেশ চীনের ইয়াং কিয়ান।

শনিবার সকালে আসাকা শ্যুটিং রেঞ্জে নারীদের ১০ মিটার এয়ার রাইফেলে স্বর্ণপদক জিতেছেন ইয়াং কিয়ান।

২৫১.৮ পয়েন্ট স্কোর করে আসরের প্রথম স্বর্ণটি জিতেছেন কিয়ান। যা কি না অলিম্পিক ইতিহাসে নারীদের দশ মিটার এয়ার রাইফেলে সর্বোচ্চ পয়েন্টের রেকর্ড।

এই ইভেন্টে দ্বিতীয় হয়ে রৌপ্যপদক জিতেছেন রাশিয়ার আনাস্তাসিয়া গালাশিনা। কিয়ানের সঙ্গে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই হয়েছে গালাশিনার। তিনি পেয়েছেন ২৫১.১ পয়েন্ট।

২৩০.৬ পয়েন্ট নিয়ে ব্রোঞ্জপদক পেয়েছেন সুইজারল্যান্ডের নিনা ক্রিশ্চেন।

৫৩ রানেই ৫ উইকেট নেই বাংলাদেশের
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : লক্ষ্য ১৬৭ রানের। টি-টোয়েন্টিতে যেটি বেশ চ্যালেঞ্জিংই। আর এই লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে যদি ৫৩ রানে ৫ উইকেট হারাতে হয়, তবে তো হারের শঙ্কাও পেয়ে বসে।

হ্যাঁ, হারারেতে সিরিজের দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে হারের শঙ্কাতেই আছে বাংলাদেশ। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত ১০ ওভার শেষে টাইগারদের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ৬০ রান। ৬০ বলে করতে হবে আরও ১০৭ রান।

উইকেটে আছেন আফিফ হোসেন ধ্রুব (৪*) আর নুরুল হাসান সোহান (৩*)। সাজঘরে ফিরে গেছেন মোহাম্মদ নাইম (৫), সৌম্য সরকার (৮), মাহেদি হাসান (১৫), সাকিব আল হাসান (১২) এবং মাহমুদউল্লাহ (৪)।

এর আগে টস হেরে ফিল্ডিংয়ে নেমে গা-ছাড়া ভাব দেখিয়েছে টাইগাররা। একের পর এক ফিল্ডিং মিস হয়েছে, হয়েছে এক রানের জায়গায় দুই রান। ক্যাচ ড্রপও করেছেন ফিল্ডাররা। ফলে জিম্বাবুয়েকে এবার আর অল্প সংগ্রহের মধ্যে রাখা যায়নি। ৬ উইকেটে ১৬৬ রানের লড়াকু সংগ্রহ পেয়ে যায় স্বাগতিকরা।

তাসকিন আহমেদ বোলিংয়ের সূচনা করেন। ডানহাতি এই পেসারের ওভারের প্রথম বলে ৩ আসলেও পরের পাঁচ বলে মাত্র ১ রান নিতে পারেন জিম্বাবুইয়ান দুই ওপেনার তাদিওয়ানাশে মারুমানি আর ওয়েসলে মাদভেরে।

দ্বিতীয় ওভারে মাহেদি হাসানকে আক্রমণে নিয়ে আসেন অধিনায়ক মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। এবার তার ওপর চড়াও হন মাদভেরে। প্রথম দুই বলে ছক্কা আর চার হাঁকিয়ে বসেন। তবে এমন মার খেয়েও ঘাবড়ে যাননি মাহেদি।

টাইগার অফস্পিনার ওভারের পঞ্চম বলে দারুণ এক ডেলিভারিতে বোল্ড করেন মারুমানিকে (৩)। প্রথম দুই বলে ১০ তুলে ফেলা ওই ওভারে সবমিলিয়ে জিম্বাবুয়ে নিতে পারে ১১ রান।

এরপর বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে খেলছিলেন রেগিস চাকাভা আর মেদভেরে। তবে ষষ্ঠ ওভারে বল হাতে নিয়েই দারুণ ফর্মে থাকা চাকাভাকে ফেরান সাকিব আল হাসান।

টাইগার অলরাউন্ডারকে সজোরে হাঁকাতে গিয়ে টাইমিং হয়নি, মিডঅফে শরিফুলের সহজ ক্যাচ হন চাকাভা (৯ বলে ১৪)। পাওয়ার প্লের প্রথম ৬ ওভারে জিম্বাবুয়ের স্কোর ছিল ২ উইকেটে ৪৮।

তৃতীয় উইকেটে পঞ্চাশোর্ধ্ব এক জুটি গড়ে তোলেন মাদভেরে আর ডিয়ন মায়ার্স। তবে টাইগার বোলারদের খুব আক্রমণ করে খেলতে পারেননি তারা। ব্যক্তিগত ফিফটি ছুঁতে মাদভেরে খেলেন ৪৫ বল।

শেষ পর্যন্ত ১৪তম ওভারে এসে এই জুটিটি ভাঙেন শরিফুল ইসলাম। তার বাউন্সি ডেলিভারি তুলে মারতে গিয়ে ডিপ পয়েন্টে মাহেদি হাসানের সহজ ক্যাচ হন মায়ার্স (২১ বলে ২৬)।

বেশিক্ষণ টিকতে পারেননি জিম্বাবুয়ে অধিনায়ক সিকান্দার রাজা (৪)। সাকিবের করা ১৬তম ওভারে দ্রুত এক রান নিতে গিয়ে তিনি রানআউট হয়েছেন সৌম্যের দুর্দান্ত সরাসরি থ্রোতে।

তবে ৪৫ বলে ফিফটি ছোঁয়ার পর অনেকটাই মারমুখী ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছিলেন মাদভেরে। চার-ছক্কায় নিজের ইনিংসটা এগিয়ে নিচ্ছিলেন, এগিয়ে নিচ্ছিলেন দলকেও।

ভয়ংকর হয়ে ওঠা এই ব্যাটসম্যানকে শরিফুল ফিরিয়েছেন ১৮তম ওভারে এসে। বাঁহাতি এই পেসারের ওপর আগ্রাসী হতে গিয়ে এক্সট্রা কভারে আফিফ হোসেনের সহজ ক্যাচ হন মাদভেরে। ৫৭ বলে গড়া তার ৭৩ রানের ইনিংসে ছিল ৫টি বাউন্ডারির সঙ্গে ৩টি ছক্কার মার। শেষদিকে রায়ান বার্ল ১৯ বলে ৩৪ রানের ঝড়ে লড়াকু সংগ্রহ এনে দেন জিম্বাবুয়েকে।

বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে সফল ছিলেন শরিফুল ইসলাম। ৩৩ রান খরচায় ৩টি উইকেট নিয়েছেন তিনি। একটি করে উইকেট নেন সাকিব আল হাসান আর মাহেদি হাসান। অভিষিক্ত শামীম পাটোয়ারী ১ ওভারে মাত্র ৭ রান দিলেও পরে আর বোলিংয়ের সুযোগ পাননি।

পর্দা উঠল টোকিও অলিম্পিকের
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হলো বিশ্বের সবচেয়ে বড় ক্রীড়া আসর অলিম্পিকের। বর্ণিল আলোকসজ্জা, জাপানের নানা সংস্কৃতি ফুটিয়ে তোলার মধ্যদিয়ে পর্দা উঠল টোকিও অলিম্পিকের। উদ্বোধন ঘোষণা করেন জাপানের রাজা নারুহিতো।

নেই সেই জাঁকজমক। দর্শক নেই, স্বল্প সংখ্যক অ্যাথলেট, অনেক অনেক ফেসমাস্ক এবং জীবাণু-বিহীন ফ্ল্যাগ-এসব নিয়েই আজ (শুক্রবার) শুরু হলো টোকিও অলিম্পিক। বাংলাদেশ সময় বিকেল ৫টায় উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে পর্দা উঠেছে গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় আন্তর্জাতিক এই ক্রীড়াযজ্ঞের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত আছেন হাতেগোনা ৯৫০ জন। প্রধান অতিথি হিসেবে আছেন জাপানের সম্রাট নারুহিতো। গত বছরের স্থগিত গেমসের উদ্বোধনী করেছেন তিনি।

করোনার মহামারির এই সময়ে চলে গেছে অনেক প্রাণ। তাদের উদ্দেশে শুরুতেই সমবেদনা জানিয়ে নীরবতা পালন করা হয় অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে।

গত বছর হওয়ার কথা থাকলেও করোনার জন্যই পিছিয়ে যায় টোকিও অলিম্পিক। ভিলেজের মধ্যে করোনা সংক্রমণ ধরা পড়ায় এবারও শেষ মুহূর্তে আসর বাতিল হতে পারে বলে আশঙ্কা তৈরি হয়েছিল আয়োজক প্রধানের কথায়। তবে শেষ পর্যন্ত অলিম্পিক শুরু হওয়ায় স্বস্তি ফিরল ক্রীড়াপ্রেমীদের মনে।

অনুষ্ঠানে অলিম্পিক লরেল নামের বিশেষ সম্মাননা দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের নোবেল পদকজয়ী অর্থনীতিবিদ ড. মুহাম্মদ ইউনূসকে। অ্যাথলেটদের প্যারেড শুরুর আগে ভার্চুয়ালি তাকে এই সম্মাননা দেওয়া হয়।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আসরের আয়োজক জাপানের সংস্কৃতি বিশ্বের সামনে তুলে ধরা হয়েছে। জাপানের অক্ষর অনুযায়ী মার্চ পাস্টে অংশ নেয় অংশগ্রহণকারী দেশগুলো।

অলিম্পিকে অংশগ্রহণকারী অ্যাথলেটের সংখ্যা ১১ হাজারের বেশি। নিয়মানুযায়ী প্রতিটি দেশের অ্যাথলেটরাই মার্চপাস্টে অংশগ্রহণ করে থাকেন।

এবারের অলিম্পিকে ৩৩টি খেলার ৫০টি ডিসিপ্লিনে ৩৩৯টি ইভেন্ট তথা স্বর্ণপদকের জন্য লড়বেন প্রায় ২০৫টি দেশের ১১ হাজার ৩২৪ জন ক্রীড়াবিদ। বাংলাদেশ থেকে ৬ জন ক্রীড়াবিদ রয়েছেন এবারের আসরে।

অলিম্পিকে প্রথমবারেই ব্যক্তিগত রেকর্ড দিয়ার
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : বাংলাদেশ সময় শুক্রবার বিকেল ৫টায় হবে টোকিও অলিম্পিকের উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। এর আগেই শুরু হয়ে গেছে দ্য গ্রেটেস্ট শো অন আর্থের বিভিন্ন ইভেন্টের খেলা। যেখানে প্রথম দিনই আরচারিতে ব্যক্তিগত রেকর্ড গড়েছেন বাংলাদেশের দিয়া সিদ্দিকী।

শুক্রবার ভোরে হয়ে গেছে আরচারি নারী এককের র‍্যাংকিং রাউন্ড। যেখানে ৭২০ পয়েন্টের মধ্যে ৬৩৫ পয়েন্ট অর্জন করে ৩৬তম হয়েছেন দিয়া সিদ্দিকী। এটিই তার ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ পয়েন্ট। দিয়ার আগের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ ছিল ৬৩৪ পয়েন্ট।

র‍্যাংকিং রাউন্ডের শুরুটা খুব একটা ভাল ছিল না ১৭ বছর বয়সী দিয়ার। প্রথমার্ধে ৩৬০ পয়েন্টের মধ্যে পেয়েছিলেন মাত্র ৩০৭ পয়েন্ট, ছিলেন ৫৯ নম্বরে। তবে দ্বিতীয়ার্ধে আরও ৩২৬ পয়েন্ট অর্জন করে ৩৬ নম্বরে উঠে আসেন তিনি।

সবমিলিয়ে ৭২টি তীরের মধ্যে ১৯টিতে ১০ পয়েন্ট করে পেয়েছেন দিয়া। এছাড়া এক্স পেয়েছেন ৬টি। প্রথমার্ধের পঞ্চম রাউন্ডের শেষ শটে মাত্র ৬ পয়েন্ট পেয়েছিলেন তিনি।

দিয়ার ব্যক্তিগত রেকর্ডের দিন অবশ্য অলিম্পিক রেকর্ড গড়ে ফেলেছেন দক্ষিণ কোরিয়ার আরচার আন সান। প্রায় ২৫ বছর আগে ১৯৯৬ সালের অলিম্পিকে ৬৭৩ পয়েন্ট পেয়ে রেকর্ড গড়েছিলেন ইউক্রেনের লিনা হেরাসিমেনকো।

সেই রেকর্ড ভেঙে এবার র‍্যাংকিং রাউন্ডেই ৬৮০ পয়েন্ট পেয়েছেন আন সান। শুধু তিনি একাই নয়, দক্ষিণ কোরিয়ার অন্য দুই আরচার জাঙ মিনহি ৬৭৭ ও কাঙ চায়ইয়ঙ পেয়েছেন ৬৭৫ পয়েন্ট। দক্ষিণ কোরিয়ার এ তিনজনই হয়েছেন প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয়।

শততম টি-টোয়েন্টিতে দাপুটে জয় বাংলাদেশের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথম ম্যাচে ৮ উইকেটে জয় পেয়েছে বাংলাদেশ। হারারেতে প্রথমে ব্যাট করে মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ নেতৃত্বাধীন দলের সামনে ১৫৩ রানের লক্ষ্য দিয়েছিল স্বাগতিকরা। ব্যাট হাতে নেমে ৭ বল বাকি থাকতে ও ২ উইকেট হারিয়ে ১৫৩ তুলে নেয় টাইগাররা।

বৃহস্পতিবার (২২ জুলাই) ১০১ রানের জুটি গড়েন ওপেনার সৌম্য সরকার ও নাঈম শেখ। ২০২০ সালের মার্চে ঢাকায় তামিম ইকবাল ও লিটন দাসের করা ৯২ রানের ওপেনিং জুটি টপকে যান তারা।

১৪তম ওভারের প্রথম বলে রান আউট হন সৌম্য। ৪৫ বলে ৫০ রান তুলে মাঠ ছাড়েন তিনি। চারটি চার ও ছয়টি ছক্কায় ইনিংসটি সাজান তিনি।

তিন নম্বরে ব্যাট করতে নেমে একটি চার মেরে ১২ বলে ১৫ রান তুলেন মাহমুদুল্লাহ। ১৭তম ওভারের তৃতীয় বলে রান আউট হয়ে মাঠ ছাড়েন অধিনায়ক নিজেও।

নাঈমের সঙ্গে যোগ দেন সাড়ে চার বছর পর একাদশে জায়গা পাওয়া নুরুল হোসেন সোহান। দুইজনের ৩৩ রানের অপরাজিত জুটি শেষ করে দেয় ম্যাচ।

চারটি চারের সাহায্যে ৫১ বলে ৬৩ রান তুলেন নাঈম শেখ। তার সঙ্গে ৮ বলে ১ ছয় ও ১ চার হাঁকিয়ে ৮ বলে ১৬ রান করেন সোহান।

এর আগে ২২ বলে ৪৩ রান করা রেজিস চাকাভা ও ডিওন মায়ার্সের ২২ বলে ৩৫ রানের সুবাদে ৪৯ ওভারে ১৫২ রানে অলআউট হয় জিম্বাবুয়ে।

বাংলাদেশের হয়ে মুস্তাফিজ রহমান তিনটি উইকেট নেন। দুটি করে উইকেট তুলেন মোহাম্মদ সাইফ উদ্দিন ও শরিফুল ইসলাম। একটি করে উইকেট লাভ করেন সাকিব আল হাসান ও সৌম্য সরকার। বল হাতে একটি উইকেট ও ব্যাট হাতে অর্ধশতক রান তুলে ম্যাচ সেরা হয়েছেন সৌম্য সরকার।

উল্লেখ্য, শততম ওয়ান‌ডে ও শততম টে‌স্টের পর শততম টি-টো‌য়ে‌ন্টি‌ ম্যাচও জিত‌লো বাংলা‌দেশ। এমন কী‌র্তি এত‌দিন ছিল শুধু পা‌কিস্তান ও অস্ট্রে‌লিয়ার।

জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ, ঈদ আনন্দ দ্বিগুণ করল বাংলাদেশ দল
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : ৩৫তম ওভারে গুরুত্বপূর্ণ ২ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ শিবিরে কাঁপন ধরিয়েছিলেন ডোনাল্ড তিরিপানো। ওভারের প্রথম ও দ্বিতীয় বলে তামিম ও মাহমুদউল্লাহকে ফিরিয়ে দিয়ে হ্যাটট্রিক চান্স পান।

যদিও মিরাজের ইঞ্জুরিতে একাদশে ঠাঁই পাওয়া নুরুল হাসান সোহান তা হতে দেনটি। শেষ কাজটি ভালোভাবেই সেরে এসেছেন তিনি।

তামিমের সেঞ্চুরির পর সোহানের ৪৫ রান ভর করে জিম্বাবুয়ের ছোড়া ২৯৯ রানের লক্ষ্য পেরিয়ে গেছে বাংলদেশ।

১২ বল বাকি থাকতেই তৃতীয় ও শেষ ওয়ানডেতে ৫ উইকেটের জয় পেয়েছে টাইগাররা। একমাত্র টেস্ট জয়ের পর তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজেও জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ করে ঈদ আনন্দ দ্বিগুণ করে দিল বাংলাদেশ দল। আইসিসি ক্রিকেট বিশ্বকাপ সুপার লিগে প্রত্যাশিত ৩০ পয়েন্টও ধরা দিল।

শেষ ৩ ওভারে প্রয়োজন পড়ে ১৮ রানের। অলরাউন্ডার আফিফকে সঙ্গী করে তা অনায়াসেই পূরণ করেন সোহান।

সোহান বলে অপরাজিত থাকেন রানে ৪৫ রান। আর আফিফ ১৭ বলে ২৬ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন।

আজ নিজের ক্যারিয়ারের ২০০তম ওয়ানডে খেলেছেন পঞ্চপাণ্ডবের অন্যতম মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ। বল হাতে দুর্দান্ত খেললেও ব্যাট হাতে মাইলফলকের ম্যাচ রাঙাতে পারেননি। তিরিপানোর বলে গোল্ডেন ডাক মেরে ফিরেছেন।

তিরিপানোর অফ স্টাম্পের বাইরের ডেলিভারি কাট করে হালকা ঢোকে ভেতরে। মাহমুদউল্লাহ ক্রস ব্যাটে শট খেলার চেষ্টা করেন। বল তার ব্যাটের ভেতরের কানায় লেগে যায় কিপার চাকাভার গ্লাভসে জমা হয়।

আর আগের বলটি অনেকটা আলসেমির মতো জায়গায় দাঁড়িয়ে আলতো করে ব্যাট পেতে দেন তামিম। ব্যাটের কানায় লেগে বল যায় কিপারের কাছে।

৯৭ বলে ১১২ রান করে সাজঘরে ফিরেন তামিম।

এর আগে সাকিবের সঙ্গে ৬৯ বলে ৫৯ রানের জুটি গড়েন তামিম। ৪২ বলে ৩০ রান করে আউট হয়েছেন সাকিব।

২৬ তম ওভারে লুক জঙ্গুয়ের অফ স্টাম্পের বেশ বাইরের লেংথের স্লোয়ার জায়গায় দাঁড়িয়েই খেলেন সাকিব। ব্যাটে-বলে হয়নি। বল চলে যায় কিপারের গ্লাভসে। সাকিব ওয়াইড চাইলেও আম্পায়ার তুলে দেন আঙুল।

সাকিবের হতাশময় আউটের পর তামিমের সঙ্গী হন মোহাম্মদ মিঠুন। তামিম ও মিঠুনের জুটিতেও পঞ্চাশ রান আসে।

মাত্র ৪৫ বলে এসেছে জুটির ফিফটি। তাতে কৃতিত্ব মূলত তামিমের। তিনি করেছেন ৩০, মিঠুন ১১।

৫৭ বলে ৩০ রান করে আউট হন মোহাম্মদ মিঠুন।

আজ ২৯৯ রানের তাড়ায় দুর্দান্ত শুরু করে বাংলাদেশ। উদ্বোধনী জুটি ৮৮ রান এনে দেয়।

দারুণ খেলছিলেন দুই ওপেনার তামিম ও লিটন। তামিম ফিফটিও করে ফেলেন। পেসাররা ব্যর্থ হলে স্পিন আক্রমণে এনে প্রথম ওভারেই সাফল্য পায় জিম্বাবুয়ে।

১৪তম ওভারে অফ স্পিনার ওয়েসলি মাধেভেরের ডেলিভারিতে পা বাড়িয়ে সুইপের চেষ্টা করেন লিটন দাস। বল তার ব্যাটের কানায় লেগে সহজ ক্যাচ শর্ট ফাইন লেগে।

৩৭ বলে ৩২ রান করে আউট হন লিটন।

জিম্বাবুয়ের পক্ষে দুটি করে উইকেটে নিয়েছেন তিরিপানো ও মাধেভেরে। একটি পেয়েছেন লুক।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

জিম্বাবুয়ে: ৪৯.৩ ওভারে ২৯৮ (চাকাভা ৮৪, মারুমানি ৮, টেইলর ২৮, মায়ার্স ৩৪, মাধেভেরে ৩, রাজা ৫৭, বার্ল ৫৯, জঙ্গুয়ে ৪* টিরিপানো ০, চাতারা ১, মুজারাবানি ০; তাসকিন ১০-১-৪৮-১, সাইফ ৮-০-৮৭-৩, মুস্তাফিজ ৯.৩-০-৫৭-৩, মাহমুদউল্লাহ ১-০-৪৫-২, সাকিব ১০-০-৪৬-১, মোসাদ্দেক ২-০-১৩-০)।

বাংলাদেশ: ৪৮ ওভারে ৩০২/৫ (লিটন ৩২, তামিম ১১২, সাকিব ৩০, মিঠুন ০, মাহমুদউল্লাহ ০, সোহান ৪৫*, আফিফ ২৬*; মুজরাবানি ৮-০-৪৩-০, চাতারা ৮-০-৫৬-০, জঙ্গুয়ে ৭-০-৪৪-১, টিরিপানো ৭-০-৬১-২, মাধেভেরে ১০-০-৪৫-২, রাজা ৫-০-২৩-০, বার্ল ৩-০-২৩-০)।

মুসলিম বান্ধবীকে বিয়ে করলেন ভারতীয় ক্রিকেটার
                                  

অনলাইন ডেস্ক : মুসলিম বান্ধবী আঞ্জুম খানের সঙ্গে চুপিসারে বিয়ে সেরে ফেললেন ভারতীয় আলরাউন্ডার শিবম দুবে। ছিল না কোন জমকালো অনুষ্ঠিত, না ছিল ক্যামেরা ম্যানের ভিড়। কয়েকজন ঘনিষ্ঠ আত্মীয়দের নিয়েই মুম্বাইয়ে নিজের বাড়িতে বিবাহ অনুষ্ঠান করেন দুবে।

ভারতীয় গণমাধ্যম ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, শিবম মুসলিম বান্ধবীকে বিয়ে করার সময় ইসলামিক রীতি অনুসারে বিয়ে সেরেছেন। তবে এই বিয়ের খবর ও ছবি গণমাধ্যমে আসতেই সোশ্যাল মিডিয়ায় মিশ্রপ্রতিক্রিয়া দেখাচ্ছেন নেটিজেনরা।

উল্লেখ্য, শিবম দুবে আইপিএল -২০২১-এ রাজস্থান রয়্যালস দলের হয়ে মাঠে নেমেছিলেন। তিনি আইপিএল স্থগিত হওয়া পর্যন্ত ৬ টি ম্যাচ খেলেছিলেন, যেখানে তিনি ১১৭.৮৮ এর স্ট্রাইক রেটে ১৪৫ রান করেছিলেন। যদিও তিনি বোলিংয়ে ফ্লপ ছিলেন। তার নামে একটিও উইকেট ছিল না। সব মিলিয়ে শিবাম দুবে আইপিএলে ২১ ম্যাচ খেলে ৩১৪ রান করেছেন। তিনি নিয়েছেন ৪ উইকেট।
শিবাম দুবেই ২০১৮ সালের নভেম্বরে আন্তর্জাতিকভাবে আত্মপ্রকাশ করলেন। তিনি এ পর্যন্ত ১৩ টি টি-টোয়েন্টি এবং একটি ওয়ানডে খেলেছেন। এই অলরাউন্ডারের নাম টি ২০তে ১৩৬.৩৬ এর স্ট্রাইক রেটে ১০৫ রান। শিবাম দুবের সর্বোচ্চ ৫৪ রান ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে ডিসেম্বর ২০১৯-এ এসেছিল। তিনি ৩০ বলে ইনিংসে তিনটি বাউন্ডারি এবং চারটি ছক্কা মারেন।

টি-টোয়েন্টি আন্তর্জাতিক ম্যাচে শিবম দুবে পাঁচ উইকেট নিয়েছেন, তবে দশকেরও বেশি অর্থনৈতিক হারে। তিনি ২০১৮ সালের নভেম্বরে নাগপুরে বাংলাদেশের বিপক্ষে ৩০ রানে তিন উইকেট নিয়েছিলেন। এটিই তার সেরা বোলিং।

সূত্র : ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।

এআরবি কলেজ এসসি রানার্সআপ
                                  

বিশেষ সংবাদদাতা : নারী প্রিমিয়ার ফুটবলে রানার্সআপ হয়েছে নতুন দল আতাউর রহমান ভূঁইয়া (এআরবি) কলেজ স্পোর্টিং ক্লাব। লিগের দ্বিতীয় স্থানে থাকা আগেই নিশ্চিত ছিল ক্লাবটির। গাণিতিকভাবে একটা সম্ভাবনা ছিল চ্যাম্পিয়ন হওয়ার। কিন্তু কঠিন সেই সমীকরণ মেলেনি শনিবার বসুন্ধরা কিংস ১৩ নম্বর ম্যাচ জেতায়।

বসুন্ধরার মেয়েদের চ্যাম্পিয়নশিপ উদযাপন দেখতে দেখতেই শনিবার দিনের তৃতীয় ম্যাচে মাঠে নেমেছিল এআরবি কলেজ স্পোর্টিং ক্লাব। সদ্যপুস্করনী যুব সংঘকে তারা হারিয়েছে ৯-০ গোলে।

হ্যাটট্রিক করেছেন অনিকা তানজুম। দুটি গোল স্বপ্না রানীর। একটি করে গোল করেছেন শাহেদা আক্তার রিপা, নাসরিন আক্তার, নওশন জাহান ও আকলিমা খাতুন।

১৩ ম্যাচে আতাউর রহমান ভুঁইয়া কলেজ স্পোর্টিং ক্লাবের পয়েন্ট ৩৬। আরো এক ম্যাচ বাকি আছে তাদের।

দিনের প্রথম ম্যাচে কুমিল্লা ইউনাইটেড ২-১ গোলে হারিয়েছে নাসরিন স্পোর্টস একাডেমিকে। কুমিল্লার দুটি গোলই করেছেন রোজিনা। নাসনির স্পোর্টস একাডেমির গোল করেছেন শিরিনা আক্তার।

বার্সায় মেসির বেতন হচ্ছে অর্ধেক!
                                  

অনলাইন ডেস্ক : গত ৩০ জুন বার্সেলোনার সঙ্গে মেসির চুক্তি শেষ হয়ে গেছে। ফলে তিনি আর বার্সেলোনার খেলোয়াড় নন। বার্সেলোনা ছাড়তে পারেন লিওনেল মেসি, এমন গুঞ্জনও ছড়িয়েছিল। কিন্তু সমস্ত গুঞ্জন ও জল্পনা উড়িয়ে সেই বার্সেলোনাতেই থাকছন মেসি। বার্সেলোনার সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন নয় বরং সম্পর্ক আরও দীর্ঘস্থায়ী হল।

নতুন করে আরও ৫ বছরের চুক্তি করা হচ্ছে মেসির সঙ্গে। বার্সেলোনার সঙ্গে পুরনো চুক্তি শেষ হয়ে গিয়েছিল মেসির। আর নতুন চুক্তি নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই বাড়ছিল ধোঁয়াশা। তবে শেষপর্যন্ত সেই বার্সেলোনাতেই থেকে যাচ্ছেন ঘরের ছেলে মেসি।

বার্সার অ্যাকাডেমি লা মাসিয়া থেকে উঠে এসেছিলেন মেসি। ২০০৪ সালে বার্সার যুব দলে সুযোগ পান মেসি। তারপর সেখান থেকেই সিনিয়র টিমে জায়গা করে নেন মেসি। তারপর বার্সেলোনার হয়ে লা লিগা, চ্যাম্পিয়ন্স লিগ-সহ একাধিক টুর্নামেন্টে সাফল্য পান তিনি। ফিফার বর্ষসেরা ফুটবলারও একাধিক বার নির্বাচিত হন মেসি। দীর্ঘদিন ধরেই বার্সাতেই খেলে চলেছেন তিনি।

জানা গেছে, এই নতুন চুক্তিতে মেসি ৫০ শতাংশ বেতন কমাতে রাজি হয়েছেন! মেসির বিশ্বস্ত সাংবাদিকদের একজন বলে পরিচিত রুবেন উরিয়াও গোলডটকমেরে প্রতিবেদনে এই তথ্য দিয়েছেন।

বার্সেলোনাভিত্তিক স্প্যানিশ দৈনিক স্পোর্ত জনিয়েছে, বার্সায় মেসি সর্বশেষ চুক্তি অনুযায়ী, পাঁচ বছরে ক্লাবে মৌসুমপ্রতি ৭ কোটি ৫০ লাখ ইউরো আয় করেছেন মেসি। এখন তা অর্ধেকে নামিয়ে আনছেন। কারণ, বার্সেলোনার আর্থিক দুরাবস্থা।

স্পোর্ত লিখেছে, ক্লাবের এই অবস্থা বুঝতে পেরেছেন মেসি আর তার মনে হয়েছে, এই পরিস্থিতিতে সবচেয়ে বড় উদাহরণটা তারই রাখা উচিত। চুক্তি নবায়নের ক্ষেত্রে বেতন কমানো নিয়ে কখনোই মেসির সঙ্গে বার্সেলোনার ঝামেলা বাধেনি বলেও লিখেছে স্পোর্ত।

যদিও এই নতুন চুক্তি এখনও আনুষ্ঠানিকভাবে হয়নি। বার্সেলোনা ও মেসির মধ্যে চুক্তি নবায়নের প্রাথমিক সমঝোতা হয়ে গেছে। এখন শুধুমাত্র আনুষ্ঠানিকতাই বাকি। স্পোর্ত জানিয়েছে, চুক্তি নবায়নের ব্যাপারে দুইপক্ষের সমঝোতা যে পর্যায়ে পৌঁছেছে, সেখান থেকে এটি বাতিল হয়ে যাওয়া বিরল ঘটনাই হবে।

এর আগেও বেশ কয়েকবার মেসির বার্সা ছাড়া নিয়ে জল্পনা তৈরি হলেও বাস্তবে তা রূপান্তরিত হয়নি। ক্লাব বদল না করে সেই বার্সার জার্সিতেই ক্লাব ফুটবলে সমস্ত বড় সাফল্য পেয়েছেন মেসি। আর্জেন্টিনার জার্সিতেও এবার সাফল্য পেলেন তিনি। কোপা আমেরিকায় চিরশত্রু ব্রাজিলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে আর্জেন্টিনা। এবারের কোপায় দুরন্ত ছন্দে পাওয়া যায় মেসিকে। মেসির অধিনায়কত্বে দীর্ঘ কয়েক দশক বাদে কোপায় চ্যাম্পিয়ন হল আর্জেন্টিনা।

মুশফিকের মা-বাবা করোনায় আক্রান্ত
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জিম্বাবুয়ে সফরের টেস্ট মিশন শেষ। ২২০ রানের বড় ব্যবধানে জিতে ফুরফুরে মেজাজে ওয়ানডে সিরিজ শুরু করতে যাচ্ছে টাইগাররা। পুরো দল উজ্জীবিত। ওয়ানডেতেও সাফল্য পেতে চলছে পুরোদ্যমে প্রস্তুতি।

এর মধ্যে আজ দুপুরে হঠাৎ খবর, বুধবারই দেশে ফিরে আসছেন মুশফিকুর রহীম। খেলবেন না তিন ম্যাচের ওয়ানডে আর টি-টোয়েন্টি সিরিজ। হারারে থেকে জানানো হয়েছে এ তথ্য। বিসিবি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে নিশ্চিত করেছে, আজ (বুধবার) রাতেই দেশে ফিরে আসছেন মুশফিক।

কিন্তু কেন এই ফিরে আসা? কেন হঠাৎ ওয়ানডে সিরিজ শুরুর দু`দিন আগে জিম্বাবুয়ে থেকে বিমানে উড়ে দেশে ফেরত আসছেন মিস্টার ডিপেন্ডেবল?

বিসিবি হেড অব মিডিয়া রাবিদ ইমামের পাঠানো প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে অবশ্য কারণ দেয়া নেই। মুশফিক নিজেও তা জানাননি।

হারারেতে টিম লিডার আহমেদ সাজ্জাদুল আলম ববির কাছে ফোন দিয়েও কিছু জানা যায়নি। তিনি বলেন, ‌‘যেহেতু মুশফিকুর রহীম নিজে থেকে কারণ ব্যাখ্যা করেননি, তাই আমাদের যেচে কারণ না বলাই যুক্তিযুক্ত।’

মুশফিকের পারিবারিক সমস্যা এবং বাবা-মার অসুস্থতার ইঙ্গিতই দেন ববি। যদিও সমস্যাটা আসলে কী, খোলাসা করে বলতে রাজি হননি জিম্বাবুয়ে সফরে টাইগারদের টিম লিডার।

হারারে থেকে টাইগারদের টিম ম্যানেজমেন্ট প্রকৃত কারণ না জানালেও বিসিবির একদম উচ্চ পর্যায়ের দায়িত্বশীল সূত্র নিশ্চিত করেছে, মুশফিকের বাবা এবং মা দুজনই শারীরিকভাবে অসুস্থ এবং তাদের দুজনারই করোনা পজিটিভ। তাই মুশফিক অসুস্থ পিতা-মাতার এ সময়ে পাশে থাকতেই দেশে ফিরে আসছেন।

সাত ছক্কায় ১৪ হাজার রান পূর্ণ হলো গেইলের
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : ক্রিস গেইলের ঝড়ো অর্ধশতকে উড়ে গেল অস্ট্রেলিয়া। সেই সঙ্গে হ্যাটট্রিক জয়ে সিরিজ জয়ও নিশ্চিত করে ফেলল ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

৭ ছক্কা ও ৪ চারে ৩৮ বলে ৬৭ রান করে ম্যাচের সেরা গেইল। এই ইনিংসের পথে টি-টোয়েন্টিতে (আন্তর্জাতিক ও ঘরোয়া) প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে ১৪ হাজার রানও পূর্ণ হলো তার।

তৃতীয় টি-টোয়েন্টিতে অস্ট্রেলিয়াকে ৬ উইকেটে হারিয়েছে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। ৫ ম্যাচের সিরিজ ক্যারিবিয়ানরা জিতে গেল প্রথম তিন ম্যাচেই।

বাংলাদেশ সময় মঙ্গলবার সকালে সেন্ট লুসিয়ায় এই ম্যাচে ২০ ওভারে অস্ট্রেলিয়া করতে পারে ১৪১ রান। গেইলের সৌজন্যে ওয়েস্ট ইন্ডিজ জিতে যায় ৩১ বল বাকি রেখেই।

২০১৬ টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সেঞ্চুরির পর এই প্রথম আন্তর্জাতিক টি-টোয়েন্টিতে ফিফটি ছুঁতে পারলেন তিনি।

মাঝের সময়টায় ম্যাচ খেলেছেন ১৯টি। বাইরে ছিলেন অনেক দিন। এই বছরের শুরুতে দলে ফেরার পর ৯ ইনিংস মিলিয়ে রান ছিল ১০২। সেই খরা অবশেষে কাটালেন তিনি।

ইংলিশদের কাঁদিয়ে ৫৩ বছর পর চ্যাম্পিয়ন ইতালি
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : ‘কামিং হোম’ হলো না, হলো ‘রিটার্নিং রোম’। তাও এক-দুই বছর পর নয়, ৫৩টি বছর পর। ১৯৬৮ সালে সর্বশেষ ইউরো জিতেছিল ইতালি। এরপর ২০০০ এবং ২০১২ সালেও ইউরোর ফাইনাল খেলেছিল আজ্জুরিরা। কিন্তু ফিরতে হয়েছিল খালি হাতে। এবার আর খালি হাতে ফিরতে হচ্ছে না কিয়েল্লিনিদের। টাইব্রেকারে ইংল্যান্ডকে কাঁদিয়ে ৫৩ বছর পর ইউরোর ট্রফিটা রোমে ফিরিয়ে নিয়ে যাচ্ছে আজ্জুরিরা।

খেলার নির্ধারিত সময় ছিল ১-১ ড্র। এরপর যোগ করা হয় আরো ৩০ মিনিট। সেখানেও গোল করতে ব্যর্থ হন দুই দলের ফুটবলাররা। যার ফলে খেলা গড়ায় টাইব্রেকারে।

শেষ পর্যন্ত টাইব্রেকারেই হলো নিষ্পত্তি। ইংল্যান্ডের সমস্ত স্বপ্ন চূর্ণ হলো টাইব্রেকার নামক লটারিতে। যেখানে ইংলিশ ফুটবলাররা একের পর এক মিস করেছেন। অন্যদিকে ইতালিও মিস করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত গোলরক্ষক জিয়ানলুইজি ডোনারুমার অসাধারণ নৈপূণ্যে জয় হলো ইতালির। ৫৩ বছর পর আবারও ইউরোর শিরোপা উঠলো ইতালিয়ানদের হাতে।

টাইব্রেকারে ইতালির প্রথমটি গোল। শট নেন ডোমেনিকো বেরারদি। ১-০। ইংল্যান্ডের প্রথম শট নেন অধিনায়ক হ্যারি কেইন, গোল। ১-১। ইতালির দ্বিতীয় শট নেন আন্দ্রে বেলোত্তি। ঠেকিয়ে দেন জর্ডান পিকফোর্ড। ১-১। ইংল্যান্ডের দ্বিতীয় শট, হ্যারি মাগুইরে। ১-২। ইতালির তৃতীয় শট নেন লিওনার্দো বনুচ্চি। গোল। ২-২।

ইংল্যান্ডের তৃতীয় শট নেন মার্কাস রাশফোর্ড। কিন্তু বলটি তিনি মেরে দেন বাম পাশের পোস্টে। গোল হলো না। ২-২। ইতালির চতুর্থ শট নেন ফেডেরিকো বার্নার্ডেশি গোল। ৩-২। ইংল্যান্ডের চতুর্থ শট নেন জ্যাডন সানচো। ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষ ডোনারুমা। ৩-২।

ইতালির পঞ্চম তথা শেষ নন জর্জিনহো। কিন্তু তার শট ঠেকিয়ে দেন পিকফোর্ড। ৩-২। ইংল্যান্ডের শেষ শট নেন বুকাইয়ো সাকা। তার শটও ঠেকিয়ে দেন ডোনারুমা। ৩-২ ব্যবধানে জিতে ইউরো চ্যাম্পিয়ন ইতালি।


ইংলিশদের কাঁদিয়ে ৫৩ বছর পর চ্যাম্পিয়ন ইতালি

১৯৬৬ সালের বিশ্বকাপ জয়ের পর এই প্রথম বড় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে উঠেছিল ইংলিশরা। ইউরোতে তো এই প্রথম। নিজেদের মাঠ ওয়েম্বলি স্টেডিয়ামে ফাইনালে। প্রায় ৬৬ হাজার দর্শক-সমর্থকের অধিকাংশই গলা ফাটালেন হ্যারি কেইনদের হয়ে। কিন্তু লাভ হলো না। এবারও আফসোস নিয়েই ফিরতে হলো ইংলিশদের।

বড় মঞ্চে আবারও ইতালির কাছে হারতে হলো ইংল্যান্ড। এর আগে কোপা এবং বিশ্বকাপ মিলিয়ে চারবার দেখা হয়েছিল দু’দেশের। প্রতিবারই পরাজয় বরণ করতে হয়েছিল। এবারও তার ব্যতিক্রম হলো না। শেষ হাসি হাসলো ইতালিয়ানরাই।

২০১৮ বিশ্বকাপে খেলার যোগ্যতা অর্জন করতে পারেনি যে দলটি, তারাই কি না নিজেদেরকে আমূল পরিবর্তন করে ফেললো কিভাবে, তা এই ইউরো প্রমাণ করে দেখাল। কোচ রবার্তো মানচিনির অধীনে গত দুই বছর কোনো পরাজয় নেই ইতালির। টানা ৩৪টি ম্যাচ অপরাজিত থাকার রেকর্ড গড়লো ইতালি। সে সঙ্গে চতুর্থ দেশ হিসেবে দুটি করে ইউরো জয়ের রেকর্ড গড়লো তারা।

ইংল্যান্ড আর ইতালির মধ্যে ইউরোর ফাইনালকে মেগা ফাইনাল এ কারণেই হয়তো বলা হচ্ছিল। টান টান উত্তেজনা। ওয়েম্বলি স্টেডিয়াম কানায় কানায় পূর্ণ। এমন ফাইনালেই কি না শুরুর চাপটা নিতে পারলো না ইতালি। বরং, প্রচণ্ড গতির এক প্রদর্শণীতেই শুরুতেই গোল আদায় করে নিয়েছিলো ইংল্যান্ড।

ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই এগিয়ে যায় স্বাগতিকরা। প্রথমে কর্নার কিক পায় ইতালি। ইনসিগনের করা কর্নার থেকে ভেসে আসা বল ক্লিয়ারই করা নয় শুধু নিজেদের নিয়ন্ত্রণেও ধরে রাখে ইংল্যান্ড। উঠে যায় কাউন্টার অ্যাটাকে।

ইতালির বক্সের ডান পাশ থেকে বাম পাশে লম্বা পাস দেন কিয়েরান ট্রিপিয়ার। দ্রুত গতিতে এগিয়ে আসা লুক শ ডান পায়ের দুর্দান্ত এক শট নেন তাতে। মুহূর্তেই বলটি জড়িয়ে গেলো ইতালির জালে।

বুকাইয়ো সাকার পরিবর্তে কেন গ্যারেথ সাউথগেট কিয়েরান ট্রিপিয়ারকে মাঠে নামালেন, সেটা শুরুতেই বুঝিয়ে দিলেন অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের এই মিডফিল্ডার। তার ঠিকানা লেখা নিখুঁত পাসে যেভাবে বাঁ-পায়ের শটে ইতালির জালে বল জড়ালেন, তা রীতিমত বিস্ময়কর।

শুরু থেকেই ইতালি এবং ইংল্যান্ড গতিময় ফুটবল উপহার দেয়া শুরু করেছে। প্রতি মুহূর্তেই বল ছুটে চলেছে মাঠের এ প্রান্ত থেকে ও প্রান্ত। যে কারণে প্রথম মিনিটেই গোলের চেষ্টা ইতালির। হ্যারি ম্যাগুইরে কর্নারের বিনিময়ে সে চেষ্টা প্রতিহত করেন।

কিন্তু সেই কর্নার কিকই যে ইতালির জন্য উল্টো বিভীষিকা হয়ে দেখা দেবে, তা কে জানতো? বাম প্রান্ত ধরে ইংল্যান্ড বল নিয়ে এগুনো শুরু করে। মুহূর্তের মধ্যেই বল দিক বদলে চলে যায় ডানপ্রান্তে। সেখানে দ্রুত গতিতে বল নিয়ে এগিয়ে যান ট্রিপিয়ার। ইতালির ডিফেন্ডার সামনে থাকলেও সময় নিয়ে, দেখে-শুনে ক্রস নেন তিনি। পাঠিয়ে দেন আবারও বাঁ-প্রান্তে। যেখানে বাজিমাত করলেন লুক শ।

এই একটি গোল করেই রক্ষণকে জমাট বাধিয়ে ফেলে ইংলিশরা। গতিময় ফুটবল এবং পাল্টা আক্রমণের ধার যতটা আছে, ততটা নিজেদের গোল রক্ষায় যেন বেশি মনযোগ দেখা গেছে ইংল্যান্ডকে।

যে কারণে ম্যাচের দ্বিতীয়ার্ধের অর্ধেক সময় পার হওয়ার পরই (৬৭ মিনিটে) দুর্দান্ত এক গোলে ইতালিকে সমতায় ফিরিয়ে আনেন অভিজ্ঞ ফুটবলার বনুচ্চি। ইনসিগনের নেয়া কর্নার কিক থেকে ভেসে আসা বলটিকে হেড করেন ভেরাত্তি। ইংলিশ গোলরক্ষক জর্ডান পিকফোর্ড সেটিকে ফেরানোর চেষ্টা করলেও সাইড বারে লেগে ফিরে আসে।

কিন্তু ফিরতি বলটি আর রক্ষা পেলো না। বনুচ্চির বিদ্যুৎ গতির শট ইংল্যান্ডের জাল এফোঁড়-এফোঁড় করে দেয়।

দ্বিতীয় মিনিটে গোল হজম করার পর জ্বলে ওঠে ইতালিয়ানরা। ৮ম মিনিটের মাথায় ইংল্যান্ডের পোস্টে শট নেন ইনসাইন। যদিও তার শট লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। ২৮ মিনিটের মাথায় ইংল্যান্ডের জালে বল জড়ানোর চেষ্টা করেন ইনসিগনে। যদিও তার আক্রমণ লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়।

৩৫ মিনিটের মাথায় গোলের সুযোগ নষ্ট করেন সিয়েসা। তার আক্রমণ লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। গোল বঞ্চিত হয় ইতালি। প্রথমার্ধ শেষ হওয়ার খানিক আগে (৪৫+২) ভেরাত্তির আক্রমণ প্রতিহত করেন ইংল্যান্ডের গোলরক্ষক পিকফোর্ড। ২ মিনিট পর আক্রমণে আসেন বনুচ্চি। সেটাও ব্যর্থ হয়।

৫১ ও ৫৩ মিনিটের মাথায় আবারও গোলের চেষ্টা। কিন্তু এবারও ইনসিগনেনের শট টার্গেটে ছিল না। ৫৬ মিনিটে হ্যারি ম্যাগুইরে বল নিয়ে ঢুকে পড়েন ডি বক্সের মধ্যে; কিন্তু আপাতত রক্ষা মেলে ইতালির।

৫৭ মিনিটের মাথায় ইনসিগনে শট নেন ইংল্যান্ডের পোস্ট লক্ষ্য করে। আক্রমণ প্রহিত হয় পিকফোর্ডের দস্তানায়। ৬২ মিনিটের মাথায় ফের ইংল্যান্ডের পতন রোধ করেন পিকফোর্ড। সিয়েসার আক্রমণ প্রতিহত করেন তিনি। ৬৭ মিনিটে এসেই গোলরক্ষক পিকফোর্ডকে পরাস্ত করে গোলের দেখা যায় ইতালি।

জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ ভেঙে বড় জয় বাংলাদেশের
                                  

ক্রীড়া প্রতিবেদক : হারারে টেস্টে অপেক্ষা করছিল শেষ দিনের রোমাঞ্চ। লড়াইটা উত্তেজনা ছড়াতে পারতো। সেটা আর হলো না। সফরের একমাত্র টেস্টটিতে পঞ্চম দিনে স্বাগতিক দল প্রতিরোধ গড়লেও ২২০ রানের বড় জয় নিয়েই মাঠ ছেড়েছে বাংলাদেশ।

জিম্বাবুয়ের সামনে লক্ষ্য ছিল ৪৭৭ রানের। জিততে হলে বিশ্বরেকর্ডই গড়তো হতো। বাংলাদেশের হারের সম্ভাবনা কার্যত ছিল না, তবে হারারের উইকেট ব্যাটসম্যানদের পক্ষে থাকায় ড্র করার চেষ্টা ছিল জিম্বাবুয়ের।

শেষ দিনে স্বাগতিকদের হাতে ছিল ৭ উইকেট, দরকার ৩৩৭ রান। যে কোনো পিচেই কঠিন লক্ষ্য। জিম্বাবুয়ে সেই লক্ষ্য তাড়া করার চেষ্টাও করেনি।

বরং ১৬৪ রানে ৭ উইকেট হারানোর পর ড্রয়ের অসাধ্য সাধন করার চেষ্টা করে স্বাগতিকরা। শেষ তিন উইকেটে তারা ৩৪.৩ ওভার কাটিয়ে দিয়েছিল। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি।

অবাক করার বিষয় হলো, পঞ্চম দিনে জিম্বাবুয়ের এই লড়াকু মানসিকতায় সামনে থেকে নেতৃত্ব দিয়েছেন নাইটওয়াচম্যান হিসেবে আগের দিন ব্যাটিংয়ে নামা ডোনাল্ড তিরিপানো।

হাতে মাত্র ৩ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ে যখন নিশ্চিত হারের মুখে। তখন মাটি কামড়ে পড়ে ছিলেন তিরিপানো। সঙ্গী যাকেই পেয়েছেন, ওভার কাটানোর চেষ্টা করেছেন।

শেষ পর্যন্ত সেই চেষ্টা থেমেছে এবাদত হোসেনের শিকার হয়ে। ১৪৪ বল মোকাবেলায় ৬ বাউন্ডারিতে ৫২ রান করে তিরিপানো দিয়েছেন উইকেটের পেছনে ক্যাচ। তারপর বেশি সময় অপেক্ষা করতে হয়নি। রিচার্ড এনগারাভাকে (১০) বোল্ড করেন মেহেদি হাসান মিরাজ। ব্লেসিং মুজারবানি ৩০ রানে অপরাজিত থেকে যান।

বাংলাদেশি বোলারদের মধ্যে তাসকিন আহমেদ আর মেহেদি হাসান মিরাজ-দুজনই নিয়েছেন ৪টি করে উইকেট। বাকি দুই উইকেটের একটি সাকিব আল হাসান, অপরটি এবাদতের।

ডিওন মায়ার্স এবং ডোনাল্ড তিরিপানো ব্যাট করতে নামেন পঞ্চম দিনে। মায়ার্স ১৮ এবং তিরিপানো ছিলেন ৭ রানে অপরাজিত। শেষ দিন আজ ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই আউট হয়ে যান মায়ার্স। নামের পাশে কেবল ৮ রান যোগ করতে সক্ষম হন তিনি। ২৬ রান করে আউট হন তিনি মিরাজের বলে।

এরপর মাঠে নেমেই একই ওভারে মিরাজের শিকারে পরিণত হন তিমিসেন মারুমা। নামের পাশে কোনো রানই যোগ করতে পারেরনি তিনি। এরপর ব্যাট করতে নামেন রয় কাইয়া। ৫টি বল খেলতে পারলেও কোনো রান করতে পারেননি। এলবিডব্লিউ হয়ে ফিরে যান তাসকিনের বলে।

রেগিস চাকাভা মাঠে নেমে জুটি বাঁধার চেষ্টা করেন ডোনাল্ড তিরিপানোর সঙ্গে। কিন্তু তার জুটিও টেকার কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি। কারণ, তাসকিন আহমেদের বলে বোল্ড হয়ে যান চাকাভা, করেন মাত্র ১ রান। ৭ উইকেটে ১৭৬ রান নিয়ে লাঞ্চ বিরতিতে যায় জিম্বাবুয়ে।

লাঞ্চের পরও অনেকটা সময় বাংলাদেশকে উইকেটের জন্য অপেক্ষায় রাখেন ডোনাল্ড তিরিপানো আর ভিক্টর নিয়াচি। ১৫ ওভারের বেশি উইকেটে কাটিয়ে দেন তারা। যোগ করেন ৩৪ রান।

শেষ পর্যন্ত এই জুটিটি ভেঙেছেন বল হাতে আগুন ঝরানো তাসকিন। ডানহাতি এই পেসারের দ্রুতগতির এক শর্ট ডেলিভারি বুঝতে না পেরে বুক সমান উচ্চতায় ব্যাট ধরে দেন নিয়াচি।

বল ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় প্রথম স্লিপে। সেখানে সাকিব প্রথম দফায় হাত ফস্কালেও পরের চেষ্টায় ধরে ফেলেন ক্যাচটি। জিম্বাবুইয়ান লোয়ার অর্ডারের ৫৪ বলে ১০ রানের প্রতিরোধ ভাঙে তাতে।

নিয়াচি ফেরার পর আবার ব্লেসিং মুজারবানিকে নিয়ে ১৩ ওভারের বেশি কাটিয়ে দেন তিরিপানো। তবে আর পারেননি। ১৪৪ বলে ৫২ রান করে জিম্বাবুইয়ান নাইটওয়াচম্যান এবাদতের শিকার হওয়ার পর আর বেশিদূর এগোতে পারেনি জিম্বাবুয়ে। ৯৪.৪ ওভারে অলআউট হয়েছে ২৫৬ রানে।

এর আগে জিম্বাবুয়েকে জয়ের জন্য ৪৭৭ রানের লক্ষ্য বেঁধে দেয় বাংলাদেশ। চতুর্থ দিন শেষ বিকেলে ব্যাট করতে নেমে ৩ উইকেট হারিয়ে ১৪০ রান তোলে স্বাগতিকরা। ওয়ানডে স্টাইলে খেলে ৭৩ বলে ৯২ রান করেন ব্রেন্ডন টেলর। তিনি ছাড়া টপঅর্ডারের বাকি ব্যাটসম্যানরা ভয় ছড়াতে পারেননি।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

বাংলাদেশ প্রথম ইনিংস : ৪৬৮/১০ (মাহমুদউল্লাহ ১৫০*, লিটন দাস ৯৫, তাসকিন আহমেদ ৭৫, মুমিনুল হক ৭০, সাদমান ইসলাম ২৩; ব্লেসিং মুজারবানি ৪/৯৪)

জিম্বাবুয়ে প্রথম ইনিংস : ২৭৬/১০ (তাকুজওয়ানাশে কাইতানো ৮৭, ব্রেন্ডন টেলর ৮১, রেগিস চাকাভা ৩১*; মেহেদি মিরাজ ৫/৮২, সাকিব আল হাসান ৪/৮২)

বাংলাদেশ দ্বিতীয় ইনিংস : ২৮৪/১ ডিক্লে. (সাদমান ইসলাম ১১৫*, নাজমুল হোসেন শান্ত ১১৭*, সাইফ হাসান ৪৩)

জিম্বাবুয়ে দ্বিতীয় ইনিংস : ২৫৬/১০ (ব্রেন্ডন টেলর ৯২, ডোনাল্ড তিরিপানো ৫২; মেহেদি মিরাজ ৪/৬৬, তাসকিন আহমেদ ৪/৮২)

ফল : বাংলাদেশ ২২০ রানে জয়ী।

আগে কষ্ট দূর করতে ছুটিতে চলে যেতাম : মেসি
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক : নির্ধারিত সময়ের পর ইনজুরি টাইমের জন্য যোগ করা ৫ মিনিট শেষ হওয়া বাঁশি বাজতেই, যেখানে ছিলেন সেখানেই বসে পড়লেন লিওনেল মেসি। দূর থেকে ছুটে এলেন রদ্রিগো ডি পল, মার্কোস আকুনা, নিকোলাস তালিয়াফিকোরা। আনন্দের কান্নারত মেসিকে ঘিরে উদযাপন শুরু করেন সবাই।

খানিক পরেই উঠে সারা মাঠ ঘুরে সতীর্থদের সঙ্গে উদযাপনে যোগ দেন মেসি। ছুটে আসা কোচ লিওনেল স্কালোনি তুলে নেন নিজের কোলে। আর দলের সব খেলোয়াড়রা মিলে হাওয়ায় ভাসার মেসিকে, দিতে থাকেন হর্ষধ্বনি। নিজেদের উদযাপন শেষ হওয়ার পরপরই পরিবারের কথা মনে পড়ে মেসির।

মাঠে বসেই মোবাইল ফোনে কল করেন স্ত্রী আন্তোলেনা রকুজ্জোকে এবং প্রায় এক মিনিটের বেশি সময় ভিডিও কলে কথা বলেন স্ত্রী ও তিন ছেলে থিয়াগো মেসি, মাতেও মেসি ও সিরো মেসিদের সঙ্গে। আর্জেন্টিনা জাতীয় দলের জার্সি গায়ে এই অনুভূতিটি পুরোপুরি নতুন মেসির জন্য।

কেননা এর আগে ২০১৪, ২০১৫ ও ২০১৬ সালে বিশ্বকাপ ও কোপা আমেরিকার ফাইনালে উঠেও শিরোপা জিততে পারেননি মেসি। তখন পরিবারের সঙ্গে আনন্দ উদযাপনের বদলে করতে হয়েছে দুঃখ ভাগাভাগি। এমনকি ফাইনাল হারের কষ্ট দূর করতে ছুটিতেও চলে যেতেন বলে জানালেন মেসি।

তবে এবার ব্রাজিলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হওয়ার পর সবকিছুই ভিন্ন। ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে মেসি বলেছেন, ‘ম্যাচ শেষ হওয়ার পরপর পরিবারের কথা মনে হয়েছে আমার। এর আগে অনেকবার আমাদের ভুগতে হয়েছে। প্রথম কয়েকদিন দুঃখ ভুলতে আমরা ছুটিতে ঘুরতে চলে যেতাম। কিন্তু এবার এটা পুরোপুরি ভিন্ন।’

ওদিকে আর্জেন্টিনায় বসে রকুজ্জোও অধীর আগ্রহে অপেক্ষায় রয়েছেন মেসির সঙ্গে শিরোপা উদযাপনের জন্য। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ইন্সটাগ্রামে মেসিদের উদযাপনের একটি ছবি আপলোড করে আন্তোলেনা লিখেছেন, ‘আমরা চ্যাম্পিয়ন। এগিয়ে যাও আর্জেন্টিনা। এগিয়ে যাও ভালোবাসা (মেসি), এগিয়ে যাও।’

তিনি আরও লিখেছেন, ‘এতদিন ধরে যা স্বপ্ন দেখেছ, অবশেষে তা পেয়েছ। তুমি সত্যিই এটির যোগ্য দাবিদার। তোমাকে দেখতে ও একসঙ্গে উদযাপনের তর সইছে না আমার।’

সংবাদ সম্মেলনে মেসি আরও বলেছেন ‘আমরা এখনও ঠিক বুঝতে পারছি না যে আমরা চ্যাম্পিয়ন বা আমরা কী অর্জন করেছি! তবে এটা এমন একটা ম্যাচ যা সবসময় ইতিহাসে লেখা থাকবে। শুধু আমরা চ্যাম্পিয়ন হয়েছি বলেই, ব্রাজিলকে তাদেরই মাটিতে হারিয়েছি বলে।’

এসময় মেসি জানান, আগে অনেকবার খালি হাতে ফিরলেও, এ দিনটি আসবেই তিনি জানতে। মেসির ভাষ্য, ‘এটা দুর্দান্ত। যে আনন্দ অনুভূত হচ্ছে, তা অবর্ণনীয়। আমাকে অনেকবার কষ্ট নিয়ে ফিরতে হয়েছে। তবে আমি জানতাম এটা একবার হবেই।’

নিজ দলের ওপর থাকা আত্মবিশ্বাসের কথা জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এই দলের ওপর আমার অনেক আত্মবিশ্বাস ছিল। গত কোপা আমেরিকার পর থেকে শক্তিশালী হয়ে গড়ে উঠেছে দলটি। ভালো মানুষদের নিয়া গড়া এই দল। যারা সবসময় সামনে এগুতে মুখিয়ে থাকে এবং কোনো কিছু নিয়ে অভিযোগ করে না।’

মেসির শেষ কথা, ‘অনেকদিন ধরে আমাদের (জৈব সুরক্ষা বলয়ে) বন্দী থাকতে হয়েছে। তবে আমাদের লক্ষ্যটা পরিষ্কার ছিল এবং আমরা চ্যাম্পিয়ন হতে পরেছি। এই আনন্দ অপরিসীম। অনেকবার আমি এই সময়ের স্বপ্ন দেখেছি।’

নেইমারের কান্না, হাসছেন মেসি
                                  

স্পোর্টস ডেস্ক: কারো পৌষ মাস কারো সর্বনাশ - এই বাঙালি প্রবাদের অন্তর্নিহিত তাৎপর্য বুঝতে আজ দেখতে হতো কোপা আমেরিকার ফাইনালের শেষ বাঁশি বাজার পরের কয়েকটি দৃশ্য।

তখন হয়তো প্রবাদের অনুকরণে অনেকে বলবেন - হাসছেন মেসি কাঁদছেন নেইমার।

অবশ্য খেলা মানেই এমন দৃশ্যের অবতারণা। আনন্দ, সুখ ও উল্লাসে মাতেন বিজিতরা। একই মাঠে বিষাদ, দুঃখ ও হতাশায় মুখ ঢাকেন পরাজিতরা।

ব্রাজিলের ঐতিহ্যবাহী স্টেডিয়াম মারাকানায় কোপা আমেরিকার ফাইনালে সেলেকাওদের ১-০ গোলে হারিয়েছে আর্জেন্টিনা। একমাত্র গোলটি এসেছে ফরোয়ার্ড ডি মারিয়ার পা থেকে।

ফাইনালে একাদশে বিরাট পরিবর্তন আনেন আর্জেন্টাইন কোচ লিওনেল স্কালোনি। আগের ম্যাচগুলোতে ডি মারিয়া নামতেন বদলি হিসেবে শেষ দিকে। আজ শুরুতেই তাকে দেখা গেল মাঠে। আর সুযোগের সদ্ব্যবহার করলেন ডি মারিয়া। আস্থার প্রতিদান দিলেন।

রেফারির শেষ বাঁশিতে মেসি যখন জয়োল্লাসে ব্যস্ত, বন্ধু নেইমার তখন ডুকরে ডুকরে কাঁদছেন। আস্তিনে মুখ লুকাচ্ছেন।

চোখ ভাসিয়েছেন কান্নার নোনা জলে। সেটাই স্বাভাবিক। একটা শিরোপার খোঁজে মাঠে নেমেছিলেন তিনিও। ২০১৯ সালের শিরোপা ঘরে তুললেও ইনজুরির কারণে সে টুর্নামেন্টে খেলতে পারেননি তিনি। সে শিরোপায় কোনো অবদান নেই নেইমারের। তাই এবারের কোপা চ্যাম্পিয়ন হতে মরিয়া ছিলেন তিনি। ছুতে চেয়েছিলেন ট্রফিটা।

কিন্তু তা আর হলো কই। বুক ভরা হতাশাই পেয়েছেন শেষ ম্যাচে।


   Page 1 of 93
     খেলাধুলা
টোকিওতে ইতিহাস গড়ে যে বার্তা দিলো শিশু জাজা
.............................................................................................
অলিম্পিকের প্রথম স্বর্ণ জিতলেন চীনের ইয়াং কিয়ান
.............................................................................................
৫৩ রানেই ৫ উইকেট নেই বাংলাদেশের
.............................................................................................
পর্দা উঠল টোকিও অলিম্পিকের
.............................................................................................
অলিম্পিকে প্রথমবারেই ব্যক্তিগত রেকর্ড দিয়ার
.............................................................................................
শততম টি-টোয়েন্টিতে দাপুটে জয় বাংলাদেশের
.............................................................................................
জিম্বাবুয়েকে হোয়াইটওয়াশ, ঈদ আনন্দ দ্বিগুণ করল বাংলাদেশ দল
.............................................................................................
মুসলিম বান্ধবীকে বিয়ে করলেন ভারতীয় ক্রিকেটার
.............................................................................................
এআরবি কলেজ এসসি রানার্সআপ
.............................................................................................
বার্সায় মেসির বেতন হচ্ছে অর্ধেক!
.............................................................................................
মুশফিকের মা-বাবা করোনায় আক্রান্ত
.............................................................................................
সাত ছক্কায় ১৪ হাজার রান পূর্ণ হলো গেইলের
.............................................................................................
ইংলিশদের কাঁদিয়ে ৫৩ বছর পর চ্যাম্পিয়ন ইতালি
.............................................................................................
জিম্বাবুয়ের প্রতিরোধ ভেঙে বড় জয় বাংলাদেশের
.............................................................................................
আগে কষ্ট দূর করতে ছুটিতে চলে যেতাম : মেসি
.............................................................................................
নেইমারের কান্না, হাসছেন মেসি
.............................................................................................
মেসির হাতে উঠলো শিরোপা
.............................................................................................
২৮ বছর পর কোপা চ্যাম্পিয়ন মেসির আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
মেসি-নেইমারের কাকে হাসাবে মারাকানা?
.............................................................................................
টাইব্রেকারে কলম্বিয়াকে হারিয়ে ফাইনালে আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
পেরুকে হারিয়ে ফাইনালে ব্রাজিল
.............................................................................................
অনন্য রেকর্ডের দ্বারপ্রান্তে ব্রাজিল কোচ তিতে
.............................................................................................
রোমাঞ্চকর টাইব্রেকারে সুয়ারেসদের বিদায়, সেমিতে কলম্বিয়া
.............................................................................................
চিলি`র বিদায় : কোপার সেমিতে ব্রাজিল
.............................................................................................
তিনবারের চ্যাম্পিয়নদের বিপক্ষে ইতিহাস গড়ার হাতছানি সুইসদের
.............................................................................................
বাংলাদেশের বিপক্ষে জিম্বাবুয়ের টেস্ট দল ঘোষণা
.............................................................................................
২১ ঘণ্টা ভ্রমণ শেষে হারারেতে পৌঁছাল জাতীয় দলের বহর
.............................................................................................
ওমান এবং আরব আমিরাতে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ : আইসিসি
.............................................................................................
জিম্বাবুয়ের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হলো বাংলাদেশ দল
.............................................................................................
মেসি ম্যাজিকে উড়ে গেল বলিভিয়া, গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন আর্জেন্টিনা
.............................................................................................
কিংসের মেয়েদের আরেকটি বড় জয়
.............................................................................................
৮২ বছরের রেকর্ড ভেঙে ইতিহাস গড়ল মানচিনির দল
.............................................................................................
বোলিং-ব্যাটিংয়ে দুই বিদেশি কোচ পেল বাংলাদেশ
.............................................................................................
গোল মিস করায় মোরাতাকে হুমকি!
.............................................................................................
শাস্তির মুখে নারী লিগের দল কাচিঝুলি এসসি
.............................................................................................
এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতল ইংল্যান্ড
.............................................................................................
ইউরো-২০: শেষ ষোলোতে উঠল যেসব দল
.............................................................................................
ভারতকে হারিয়ে টেস্টে বিশ্বচ্যাম্পিয়ন নিউজিল্যান্ড
.............................................................................................
রেফারির বদান্যতায় কলম্বিয়াকে হারাল ব্রাজিল
.............................................................................................
এক গোলের জয়ে গ্রুপ চ্যাম্পিয়ন ইংল্যান্ড
.............................................................................................
আর্জেন্টিনার হয়ে আরেক রেকর্ড গড়লেন মেসি
.............................................................................................
কোচ-ফুটবলারসহ মোহামেডানের ১৭ জন করোনা আক্রান্ত
.............................................................................................
জাপান অলিম্পিক, স্টেডিয়ামে ঢুকতে পারবে না ১০ হাজারের বেশি দর্শক
.............................................................................................
ফটোগ্রাফিতেও `সেরা` রোনালদো
.............................................................................................
এবার কোকাকোলা সরালেন ইতালির তারকা ফুটবলার
.............................................................................................
প্যারিসে আনুষ্ঠানিক অনুশীলন সারলেন রোমান সানারা
.............................................................................................
পেরুকে উড়িয়ে দিল ব্রাজিল
.............................................................................................
আত্মঘাতী গোলে সর্বনাশ জার্মানির
.............................................................................................
কেন্দ্রীয় চুক্তিতে ফিরলেন সাকিব আল হাসান
.............................................................................................
আন্তর্জাতিক রেটিং দাবা শুরু
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT Dynamic Scale BD & BD My Shop