| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * এবার বগি লাইনচ্যুত হয়ে রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন   * ৪ উইকেট হারিয়ে ১০০ পার বাংলাদেশের   * আটকের পর ‘বন্দুকযুদ্ধে’ রোহিঙ্গা ডাকাত নিহত   * ৬৯ বার পেছাল সাগর-রুনি হত্যার তদন্ত প্রতিবেদন   * রোগীদের টাকায় চলে টাঙ্গাইল ডায়াবেটিক হাসপাতাল   * আয়কর মেলায় উপচেপড়া ভিড়   * চ্যারিটেবল ট্রাস্ট মামলায় খালেদার জামিন খারিজের বিরুদ্ধে আপিল   * ফোক ফেস্ট শুরু হচ্ছে আজ, প্রথমদিন মঞ্চ মাতাবেন যারা   * ধড়পাকড়ে স্বপ্ন এখন দুঃস্বপ্ন, ফিরলেন আরও ২১৫ কর্মী   * ৪৮ ঘণ্টায় ৩২ ফিলিস্তিনি নিহত  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
রাঙ্গার প্রতি রিজভীর ধিক্কার

স্টাফ রিপোর্টার

এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে নিহত শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা অশ্রাব্য বক্তব্য দিয়েছেন উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ রাঙ্গার প্রতি ধিক্কার জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমি শহীদ নূর হোসেন সম্পর্কে রাঙ্গার অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহারের তীব্র ধিক্কার জানাই, প্রতিবাদ জানাই।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে নয়াপল্টনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে মিছিল বের হয়। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মিছিলটি বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারও বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিল শেষে পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মশিউর রহমান রাঙ্গার সমালোচনা করে রিজভী আহমেদ বলেন, স্বৈরাচারের কুৎসিত আত্মা দিয়ে তৈরি জাতীয় পার্টি তৈরি বলেই মশিউর রহমান রাঙ্গাদের মতো রাজনৈতিক ‘ভবঘুরেরা’ গণতন্ত্রের জন্য জীবন উৎসর্গকারী নূর হোসেনের মতো শহীদদের বিরুদ্ধে অশ্রাব্য কথা বলতে পারেন। এরা লুটপাটের আদর্শে উদ্বুদ্ধ গণতন্ত্রের শত্রু বলেই গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ নূর হোসেনের বিরুদ্ধে কুৎসা রটাতে পারেন। সেজন্য তারা গণতন্ত্র হত্যাকারী আরেকটি শক্তি বর্তমান হানাদার শাসকদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে গণতন্ত্র এবং সকল গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। এই দুই স্বৈরাচার এখনও গণতান্ত্রিক প্রথা-প্রতিষ্ঠানকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য গণতান্ত্রিক শক্তিকে গুম ও খুনের মাধ্যমে বিভিষিকা তৈরি করে রেখেছে। অথচ শহীদ নূর হোসেন আওয়ামী লীগেরই কর্মী ছিলেন। কিন্তু নির্লজ্জভাবে ‘৯০ এর পরাজিত স্বৈরাচারের ‘পথকলিদের’ সঙ্গে জোট করে নূর হোসেনদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে গণতন্ত্রকে দেশের মাটি থেকে উচ্ছেদ করেছে।

রিজভীর ভাষ্য, ‘হেনস্তা ও অপমানের ভয়ে নাগরিক সমাজ এখন স্বাধীন মতো প্রকাশের সাহস হারিয়ে ফেলেছে। এই দুঃসহ অবস্থার মধ্যেও অবৈধ সরকারের পক্ষে একদল উচ্ছিষ্টভোগী কিছু লোক গুণকীর্ত্তনে মানুষ এখন অতীষ্ঠ হয়ে উঠেছে। দলীয়করণ, ভীতিপ্রদর্শন ও নানা অপকৌশলের মাধ্যমে দেশের বিচার ব্যবস্থাকে আজ প্রহসনে পরিণত করা হয়েছে। সারাদেশে প্রকাশ্য সন্ত্রাস করছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয় না। তাদের কোনো বিচার হয়না।’

তিনি বলেন, ‘মিডনাইট নির্বাচনের অবৈধ সরকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণভাবে গায়ের জোরে বন্দী করে রেখেছে। বন্দী করার মধ্য দিয়ে তারা শুধুমাত্র দেশের একজন জনপ্রিয় নেত্রীকেই বন্দী করে রাখেনি, বরং তারা গোটা দেশ, গণতন্ত্র, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, ব্যক্তি স্বাধীনতা এবং দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকেও এক শ্বাসরুদ্ধকর বন্দীশালায় আটকে রেখেছে।’

বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মনে করেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়েই গণতন্ত্র ফিরবে এবং দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব নিরাপদ হবে, দেশের মানুষ নিরাপত্তা ফিরে পাবে। তিনি বলেন, দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য আমাদের আর বসে থাকলে চলবে না, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।


খালেদা জিয়া বর্তমানে ভীষণ অসুস্থ বলে জানান রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। তিনি বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) চলাফেলা করতে পারছেন না, নিজ হাতে খেতে পারছেন না। এমতাবস্থায় সরকার প্রধানকে বলব-প্রতিহিংসার রাজনীতি ভুলে গিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিন। নইলে জনগণের তীব্র ক্ষোভে আপনার মসনদ ভেঙে চুরমার হয়ে যাবে।’

এ সময় অন্যদের মধ্যে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জাতীয়তাবাদী যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, ছাত্রদল নেতা কাউসারসহ বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

 
রাঙ্গার প্রতি রিজভীর ধিক্কার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

এরশাদ বিরোধী আন্দোলনে নিহত শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে জাতীয় পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা অশ্রাব্য বক্তব্য দিয়েছেন উল্লেখ করে বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ রাঙ্গার প্রতি ধিক্কার জানিয়েছেন। তিনি বলেছেন, আমি শহীদ নূর হোসেন সম্পর্কে রাঙ্গার অশ্রাব্য ভাষা ব্যবহারের তীব্র ধিক্কার জানাই, প্রতিবাদ জানাই।

মঙ্গলবার (১২ নভেম্বর) সকালে নয়াপল্টনে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তির দাবিতে অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের উদ্যোগে মিছিল বের হয়। বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ এ মিছিলে নেতৃত্ব দেন। মিছিলটি বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনের থেকে শুরু হয়ে নাইটিঙ্গেল মোড় ঘুরে আবারও বিএনপি কার্যালয়ের সামনে এসে শেষ হয়। মিছিল শেষে পথসভায় সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মশিউর রহমান রাঙ্গার সমালোচনা করে রিজভী আহমেদ বলেন, স্বৈরাচারের কুৎসিত আত্মা দিয়ে তৈরি জাতীয় পার্টি তৈরি বলেই মশিউর রহমান রাঙ্গাদের মতো রাজনৈতিক ‘ভবঘুরেরা’ গণতন্ত্রের জন্য জীবন উৎসর্গকারী নূর হোসেনের মতো শহীদদের বিরুদ্ধে অশ্রাব্য কথা বলতে পারেন। এরা লুটপাটের আদর্শে উদ্বুদ্ধ গণতন্ত্রের শত্রু বলেই গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ নূর হোসেনের বিরুদ্ধে কুৎসা রটাতে পারেন। সেজন্য তারা গণতন্ত্র হত্যাকারী আরেকটি শক্তি বর্তমান হানাদার শাসকদের সঙ্গে হাত মিলিয়ে গণতন্ত্র এবং সকল গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে দিয়েছে। এই দুই স্বৈরাচার এখনও গণতান্ত্রিক প্রথা-প্রতিষ্ঠানকে নিশ্চিহ্ন করার জন্য গণতান্ত্রিক শক্তিকে গুম ও খুনের মাধ্যমে বিভিষিকা তৈরি করে রেখেছে। অথচ শহীদ নূর হোসেন আওয়ামী লীগেরই কর্মী ছিলেন। কিন্তু নির্লজ্জভাবে ‘৯০ এর পরাজিত স্বৈরাচারের ‘পথকলিদের’ সঙ্গে জোট করে নূর হোসেনদের সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করে গণতন্ত্রকে দেশের মাটি থেকে উচ্ছেদ করেছে।

রিজভীর ভাষ্য, ‘হেনস্তা ও অপমানের ভয়ে নাগরিক সমাজ এখন স্বাধীন মতো প্রকাশের সাহস হারিয়ে ফেলেছে। এই দুঃসহ অবস্থার মধ্যেও অবৈধ সরকারের পক্ষে একদল উচ্ছিষ্টভোগী কিছু লোক গুণকীর্ত্তনে মানুষ এখন অতীষ্ঠ হয়ে উঠেছে। দলীয়করণ, ভীতিপ্রদর্শন ও নানা অপকৌশলের মাধ্যমে দেশের বিচার ব্যবস্থাকে আজ প্রহসনে পরিণত করা হয়েছে। সারাদেশে প্রকাশ্য সন্ত্রাস করছে আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীরা। তাদের বিরুদ্ধে মামলা হয় না। তাদের কোনো বিচার হয়না।’

তিনি বলেন, ‘মিডনাইট নির্বাচনের অবৈধ সরকার দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে সম্পূর্ণভাবে গায়ের জোরে বন্দী করে রেখেছে। বন্দী করার মধ্য দিয়ে তারা শুধুমাত্র দেশের একজন জনপ্রিয় নেত্রীকেই বন্দী করে রাখেনি, বরং তারা গোটা দেশ, গণতন্ত্র, মত প্রকাশের স্বাধীনতা, ব্যক্তি স্বাধীনতা এবং দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্বকেও এক শ্বাসরুদ্ধকর বন্দীশালায় আটকে রেখেছে।’

বিএনপির এই সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব মনে করেন, বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির মধ্য দিয়েই গণতন্ত্র ফিরবে এবং দেশের স্বাধীনতা-সার্বভৌমত্ব নিরাপদ হবে, দেশের মানুষ নিরাপত্তা ফিরে পাবে। তিনি বলেন, দেশনেত্রীর মুক্তির জন্য আমাদের আর বসে থাকলে চলবে না, জনগণকে সঙ্গে নিয়ে ঐক্যবদ্ধভাবে আন্দোলনে ঝাঁপিয়ে পড়তে হবে।


খালেদা জিয়া বর্তমানে ভীষণ অসুস্থ বলে জানান রুহুল কবির রিজভী আহমেদ। তিনি বলেন, ‘তিনি (খালেদা জিয়া) চলাফেলা করতে পারছেন না, নিজ হাতে খেতে পারছেন না। এমতাবস্থায় সরকার প্রধানকে বলব-প্রতিহিংসার রাজনীতি ভুলে গিয়ে বেগম খালেদা জিয়াকে অবিলম্বে মুক্তি দিন। নইলে জনগণের তীব্র ক্ষোভে আপনার মসনদ ভেঙে চুরমার হয়ে যাবে।’

এ সময় অন্যদের মধ্যে বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, জাতীয়তাবাদী যুবদল ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা শাহীন, ছাত্রদল নেতা কাউসারসহ বিএনপি এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

 
শহীদ নূর হোসেনকে মাদকাসক্ত বলে ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

শহীদ নূর হোসেনকে নিয়ে করা বিতর্কিত মন্তব্যের জন্য সকলের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা। সোমবার রাতে বেসরকারি এক টেলিভিশনকে দেয়া সাক্ষাৎকারে রাঙ্গা বলেন, হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ মারা যাওয়ার পরও তাকে যেভাবে অপমান করা হয়, সে ক্ষোভ থেকেই বিতর্কিত কিছু শব্দ ব্যবহার করে ফেলেছিলেন তিনি।

এজন্য তিনি সকলের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। সাক্ষাৎকারের এক পর্যায়ে রাঙ্গা প্রশ্ন তুলে বলেন, এক সাথে জোট করে এরশাদকে স্বৈরাচার বলা কতটা যৌক্তিক। এই বিষয়ে বিহীত করতে শিগগিরই প্রধানমন্ত্রীর সাক্ষাৎ চাইবেন বলেও জানান তিনি। বলেন, এরশাদ সাহেব মারা যাওয়ার পরও তাকে যেভাবে আওয়ামী লীগ থেকে অপমান করা হয়, সেটা মেনে নেয়া যায় না।

গত রোববার (১০ নভেম্বর) বনানীতে জাপা চেয়ারম্যানের কার্যালয়ে গণতন্ত্র দিবস উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা দলীয় এক সভায় নূর হোসেনকে মাদকাসক্ত বলে আখ্যায়িত করেন জাতীয় পার্টির মহাসচিব মসিউর রহমান রাঙ্গা।

রাঙ্গার এই বক্তব্য নিয়ে সমালোচনার ঝড় ওঠে সর্বত্রই। অনেকেই নিন্দা জানিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে এই সংসদ সদস্যের পদত্যাগও দাবি করেন। তবে ক্ষমা চাওয়ার বিষয় নিয়ে একাধিকবার চেষ্টা করা হলেও সংসদ সদস্য মসিউর রহমান রাঙ্গা রিসিভ করেননি।

 
অন্য দলেও কাদের আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়েছে, খোঁজ নেয়া হবে
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক 

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, অন্য দলের অনেকে বড় বড় কথা বলছেন, খোঁজ নেয়া হবে কার আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়েছে। সোমবার রাজধানীর রমনা ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্সটিটিউশন মিলনায়তনে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

 

ওবায়দুল কাদের বলেন, দশটা ভালো কাজকেও একটা খারাপ কাজ ঢেকে দিতে পারে, মলিন করে দিতে পারে। দশটা ভালো কাজ একটা খারাপ কাজের জন্য ম্লান হয়ে যেতে পারে। শুদ্ধি অভিযান শুরু হয়ে গেছে। শেখ হাসিনার অ্যাকশন শুরু হয়ে গেছে।

 

তিনি বলেন, নিজের ঘর থেকে তিনি শুদ্ধি অভিযানের সূচনা করেছেন। অন্যান্য দলেও অনেকে বড় বড় কথা বলছেন। খোঁজ নেওয়া হচ্ছে, দুর্নীতি করে কাদের আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়েছে। খোঁজ নেয়া হবে প্রশাসনে কারা দুর্নীতিবাজ। সব সেক্টরে খারাপ লোকদের খুঁজে বের করা হবে।

 

আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে কাদের বলেন, প্রিয় ভাই ও বোনেরা মাদককে না বলুন। দুর্নীতিকে না বলুন। সন্ত্রাসকে না বলুন। টেন্ডারবাজিকে না বলুন। চাঁদাবাজিকে না বলুন। ভূমি দখলকে না বলুন। অন্যের বাড়ি দখলকে না বলুন। পরিষ্কার ম্যাসেজ, প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনার। এই ম্যাসেজ আমি সম্মেলনের মাধ্যমে কর্মীদের কাছে, নেতাদের কাছে দিয়ে গেলাম।

 

তিনি বলেন, চাঁদাবাজরা, মাদক ব্যবসায়ীরা সাবধান। লুটেরারা সাবধান, সন্ত্রাসীরা সাবধান। দুর্নীতিবাজরা সাবধান। এদের ঠাঁই নেই শেখ হাসিনার আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগে। মনে রাখবেন, ক্ষমতা চিরদিন থাকে না। ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়। ক্ষমতার দাপট দেখাবেন না কেউ। বসন্তের কোকিলদের এনে দল ভারী করার চেষ্টা করবেন না। আমরা দুঃসময়ের কর্মী চাই, বসন্তের কোকিল চাই না।

 

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমাদের দলে পরিমাণগত ব্যাপকতার কমতি নেই। সংখ্যার আমাদের কর্মীর অভাব নেই। সমর্থকের অভাব নেই। আমাদের পার্টিতে দূষিত রক্ত আমরা আর চাই না। এই দূষিত রক্ত বের করে দিতে হবে। বিশুদ্ধ রক্ত সঞ্চালন করতে হবে। অশুদ্ধকে শুদ্ধ করতে হবে। কে কত প্রভাবশালী তারচেয়েও বড় কথা হচ্ছে আমরা চাইবো ক্লিন ইমেজের কর্মীদের নেতা বানাতে। খারাপ লোক কোনো দরকার নেই। খারাপ লোকেরা দলের দুর্নাম ডেকে আনে। দুঃসময় এলে এই খারাপ লোকেদের হাজার পাওয়ারের বাতি জ্বালিয়েও খুঁজে পাওয়া যাবে না।

 

 

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখা আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি দেবাশীস বিশ্বাসের সভাপতিত্বে সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম। সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার আবদুস সবুর, আওয়ামী লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, স্বেচ্ছাসেবক লীগের সম্মেলন প্রস্তুতি কমিটির আহ্বায়ক বাবু নির্মল রঞ্জন গুহ, সদস্য সচিব গাজী মেজবাউল হোসেন সাচ্চু, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ শাখার সাধারণ সম্পাদক মুহাম্মদ আরিফুর রহমান টিটু।

 
লতিফ সিদ্দিকীর জামিন স্থগিত
                                  

স্টাফ রিপোর্টার


দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) করা বগুড়ার এক মামলায় সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীকে হাইকোর্টের দেয়া ছয় মাসের জামিন স্থগিত করেছেন আপিল বিভাগ।

সোমবার (১১ নভেম্বর) শুনানি শেষে প্রধান বিচারপতি সৈয়দ মাহমুদ হোসেনের নেতৃত্বে সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগ তার জামিন স্থগিত করেন।

এর আগে গত বৃহস্পতিবার হাইকোর্টের জামিন স্থগিত চেয়ে আপিল বিভাগে আবেদন করেন দুদকের আইনজীবী খুরশীদ আলম খান।

গত ৪ নভেম্বর লতিফ সিদ্দিকীকে ছয় মাসের অন্তর্বর্তী জামিন মঞ্জুর করে আদেশ দেন হাইকোর্ট। পাটকলের প্রায় আড়াই একর জমি দরপত্র ছাড়াই বিক্রির মাধ্যমে সরকারের প্রায় ৪০ লাখ ৭০ হাজার টাকা আর্থিক ক্ষতির অভিযোগ এনে ২০১৭ সালের ১৭ অক্টোবর রাতে আদমদীঘি থানায় আব্দুল লতিফ সিদ্দিকীসহ দুজনের বিরুদ্ধে মামলা করেন দুদকের বগুড়া সমন্বিত জেলা কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আমিনুল ইসলাম।

মামলার অপর আসামি হলেন ওই জমির ক্রেতা বগুড়া শহরের কাটনারপাড়া এলাকার মৃত হারুন-অর-রশিদের স্ত্রী জাহানারা রশিদ।

গত ২০ জুন এ মামলায় বগুড়ার আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদনের পর তা নামঞ্জুর করেন আদালত। এরপর তিনি হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করলে তার ছয় মাসের জামিন মঞ্জুর করেন হাইকোর্ট।

 
সংসদের শোক প্রস্তাবে নেই খোকার নাম, সেলিমার ক্ষোভ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার  

একজন বীর মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে সংসদের শোক প্রস্তাবে সাদেক হোসেন খোকার নাম প্রধানমন্ত্রী উচ্চারণ না করায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য বেগম সেলিমা রহমান।

 

তিনি বলেন, ‘সংসদের শোক প্রস্তাবে আমাদের প্রধানমন্ত্রী সাদেক হোসেন খোকার নাম উচ্চারণ করেননি, এটা কি তাদের মুক্তিযুদ্ধের চেতনা? এই কি মুক্তিযোদ্ধাদের প্রতি ভালোবাসা?’

 

শনিবার (৯ অক্টোবর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস উপলক্ষে জাতীয়তাবাদী মৎসজীবী দল কর্তৃক আয়োজিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

 

সরকারের সমালোচনা করে সেলিমা আরও বলেন, ‘আ.লীগের ৭১-৭৫ শাসনামলের পুরাবৃত্তি ঘটছে। আজ একইভাবে জনগণকে নির্যাতন করা হচ্ছে। ক্ষমতার জন্য সরকার শিক্ষাঙ্গনকে কলুষিত করছে। সেখানে মেধাহীন করা হচ্ছে, ব্যবহার হচ্ছে অস্ত্রের।’

 

তিনি বলেন, ‘শিক্ষিত সমাজ ধ্বংস করা হচ্ছে, কারণ তারা জানে সমাজের শিক্ষিত থাকলে প্রতিবাদ আসবেই। তারা প্রতিবাদ সহ্য করতে পারে না। আজ সমস্ত বাংলাদেশ লোভ-লালসায় আচ্ছন্ন হয়ে গেছে। গুম-খুন-হত্যা একের পর এক চলছে। কোনো বিচার নাই।’

 

সেলিমা বলেন, ‘একের পর এক নারী ধর্ষণের শিকার হচ্ছে, হত্যার শিকার হচ্ছে। শুধুমাত্র নুসরাতের হত্যাকারীদের সারতে না পেরে তাদের ধরা হয়েছে। যখন সরকারের পায়ের তলায় মাটি নেই তখন দু-একটা ঘটনা দেখানো হচ্ছে মানুষের মনোযোগ ভিন্ন খাতে প্রবাহিত করার জন্য যে, আমরা সবকিছু করছি। দুর্নীতির জন্য তারা যে অভিযান চালাচ্ছে সেটাও একটা আই ওয়াশ। এভাবে তারা দুর্নীতি করে একের পর এক দেশকে ধ্বংস করে দিচ্ছে।‘

 

 

‘যারা মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী নয় তারা ৭ নভেম্বর মানতে চায় না’ মন্তব্য করে সেলিমা বলেন, ‘৭ নভেম্বর বাংলাদেশের একটা উজ্জ্বল দিবস, উজ্জ্বল অধ্যায়। জিয়াউর রহমান জনগণের আস্থা নিয়ে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল সৃষ্টি করেন। সেই জাতীয়তাবাদী দল এখন পর্যন্ত আধিপত্যবাদের বিরুদ্ধে লড়াই করে যাচ্ছে। জাতীয়তাবাদী দল সৃষ্টি না হলে আমরা এখন পর্যন্ত এভাবে লড়াই করে যেতে পারতাম না। জিয়াউর রহমান বাংলাদেশকে সাড়ে তিন বছরে আত্মনির্ভরশীল দেশ হিসেবে গড়ে তুলেছিলেন এবং বাংলাদেশে বহুদলীয় গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করেছিলেন।’

 

‘খালেদা জিয়াকে সরকার মুক্তি দেবে না’ উল্লেখ করে সেলিমা আরও বলেন, জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করে আরও সংগঠিত হতে হবে, ঐক্যবদ্ধ হয়ে আমরা দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে মুক্ত করব।

 

জাতীয়তাবাদী মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিকুল ইসলাম মাহাতাবের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব আব্দুর রহিমের সঞ্চলনায় অনুষ্ঠানে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মোক্তাদির, প্রচার সম্পাদক শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, মৎস বিষয়ক সম্পাদক লুৎফর রহমান কাজল প্রমুখ বক্তৃতা করেন।

 
বাদলের জানাজা সম্পন্ন, মরদেহে রাষ্ট্রপ্রতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

বাদলের জানাজা সম্পন্ন, মরদেহে রাষ্ট্রপ্রতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
চট্টগ্রাম-৮ আসনের সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন খান বাদলের প্রথম নামাজে জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। জানাজার পর তার মরদেহে শ্রদ্ধা জানিয়েছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

শনিবার সকালে সংসদ ভবনের ট্যানেলে তার প্রথম নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। তার জানাজায় সংসদ সদস্যরা ছাড়াও সংসদের কর্মকর্তা-কর্মচারী ও আশপাশের এলাকাবাসী অংশ নেন।

জানাজা শেষে মুক্তিযোদ্ধা হিসেবে তাকে গার্ড অব অর্নার দেয়া হয়। এরপর রাষ্ট্রপতির পক্ষে তার সামরিক সচিব মরহুমের মরদেহে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানান। এরপর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, স্পিকার সেখানে উপস্থিত থেকে তার মরদেহে শ্রদ্ধা জানান।

আওয়ামী লীগের পক্ষে দলের সভাপতি শেখ হাসিনা ও সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ সিনিয়র নেতৃবৃন্দ, সংসদের বিরোধীদলীয় নেতার পক্ষ থেকে ফখরুল ইমাম এমপি, ১৪ দলের পক্ষ থেকে মুখ্য সমন্বয়ক মো. নাসিমের নেতৃত্বে ১৪ দলীয় নেতৃবৃন্দ মঈন উদ্দীন খান বাদলে কফিনে পুষ্পার্ঘ্য অর্পণ করেন।

মরহুমের বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের বিভিন্ন দিক নিয়ে স্মৃতিচারণ করেন সংসদের হুইপ ইকবালুর রহিম এবং পরিবারের পক্ষ থেকে বাদলের ছেলে তাইমুর নূর।

এর আগে জানাজায় ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া, চিফ হুইপ নূর-ই- আলম চৌধুরী, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, হুইপ ইকবালুর রহিম, হুইপ মো. আতিউর রহমান আতিক, মো. নাসিম, তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ, পরিবেশ বন ও জলবায়ুমন্ত্রী মো. শাহাবুদ্দিন, শিক্ষা প্রতিমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, মাহবুব উল আলম হানিফ এমপি, ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, এ বি তাজুল ইসলাম, মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার, আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, নজরুল ইসলাম বাবু, শফিকুল ইসলাম শিমুল ও শিরীন আখতার এমপি এবং দলীয় নেতৃবৃন্দ।

পরে মরহুমের রুহের মাগফিরাত কামনা করে মোনাজাত করা হয়।

উল্লেখ্য, ভারতের বেঙ্গালুরুতে নারায়ণ হৃদরোগ রিসার্চ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ৭ নভেম্বর ভোর সাড়ে ৫ টার দিকে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি.....রাজিউন)। গতকাল শুক্রবার ভারত থেকে তার মরদেহ ঢাকায় আনা হয়।

মঈন উদ্দীন খান বাদল ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী উপজেলার সারোয়াতলীতে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে জীবন বাজি রেখে তিনি শত্রু বিরুদ্ধে লড়াই করেন। তিনি বাংলাদেশ জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কার্যকরী সভাপতি ও তিনবারের সংসদ সদস্য ছিলেন।

 
দলমত নির্বিশেষে মানুষের সেবা করে গেছেন খোকা : সাঈদ খোকন
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক 

ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের (ডিএসসিসি) মেয়র সাঈদ খোকন বলেছেন, একজন মেয়র হিসেবে নগরবাসীর সেবা করে গেছেন অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকা। নিষ্ঠার সঙ্গে তিনি দলমত নির্বিশেষে মানুষের জন্য সেবা করে গেছেন, এটাই ছিল তার আদর্শ।

 

বৃহস্পতিবার বিকেল ৩টার দিকে নগর ভবনে অবিভক্ত ঢাকার শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার নামাজে জানাজার আগে সংক্ষিপ্ত বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

 

সাঈদ খোকন বলেন, অবিভক্ত ঢাকার শেষ নির্বাচিত মেয়র বীর মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকা আমাদের মাঝে নেই। তার মৃত্যুতে ঢাকাসহ দেশবাসী শোক প্রকাশ করছে। তিনি তার জীবদ্দশায় এ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র হিসেবে নগরবাসীর সেবা করে গেছেন।

 

তিনি আরও বলেন, মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে মুক্তিসংগ্রামে তিনি অসামান্য ভূমিকা রেখে গেছেন। আমরা মহান রাব্বুল আল আমিনের কাছে দোয়া করি যেন, তার ভুল-ত্রুটি ক্ষমা করে জান্নাতুল ফেরদাউস নসিব করেন, আমিন।

 

সংক্ষিপ্ত বক্তব্য শেষে ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) নগর ভবন প্রাঙ্গণে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। জানাজায় ডিএসসিসি মেয়র সাঈদ খোকনসহ কর্পোরেশনের কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং সাধারণ মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

 

সাদেক হোসেন খোকা নিউইয়র্কে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গত সোমবার (৪ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় ইন্তেকাল করেন। ২০০২ সালের ২৫ এপ্রিল অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন তিনি।

 

 

অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে তার প্রতি সম্মান প্রদর্শন করে প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশন (ডিএসসিসি) ও ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি) অফিস ছুটি ঘোষণা করা হয়েছে।

 
বাংলাদেশের বিরোধিতায় আইওআরএ সদস্যপদ পায়নি মিয়ানমার
                                  

কূটনৈতিক প্রতিবেদক

রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসনের প্রতিশ্রুতি পালনের ঘাটতি রয়েছে মিয়ানমারের।
বাংলাদেশের বিরোধিতায় এ বছর মিয়ানমার ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশনের (আইওআরএ) সদস্য হতে চেয়েও পারেনি মিয়ানমার। বৃহস্পতিবার (৭ নভেম্বর) পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ তথ্য জানিয়েছে।

জানা যায়, বেশ কিছুু দেশ সমর্থন জানালেও সিএসও সভায় বাংলাদেশ মিয়ানমারের সদস্যপদ আবেদনের বিরোধিতা করে বলেছে দেশটির অসহযোগিতা এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের প্রত্যাবাসনের প্রতিশ্রুতি পালনের ঘাটতি রয়েছে।

বাংলাদেশ বলেছে, মিয়ানমার একটি দায়িত্বশীল রাষ্ট্র হওয়ার বিষয়ে তার ইচ্ছা প্রদর্শন করতে ব্যর্থ হয়েছে। দেশটির আন্তর্জাতিক মানদণ্ড এবং বিধিগুলোর প্রতি শ্রদ্ধার অভাব রয়েছে। যেহেতু, আইওআরএ সনদের মৌলিক নীতিমালার অধীনে অনুচ্ছেদ ২ (গ) অনুযায়ী, সমস্ত স্তরের সকল বিষয় ও ইস্যুতে সিদ্ধান্ত ঐকমত্যের ভিত্তিতে নেয়া হবে, তাই বাংলাদেশের বিরোধিতার কারণে মিয়ানমারের সদস্যপদ আবেদন বাতিল এবং মুলতবি করা হয়।

উল্লেখ্য, ৫-৭ নভেম্বর সংযুক্ত আরব আমিরাতের আবুধাবিতে ২১তম ইন্ডিয়ান ওশান রিম অ্যাসোসিয়েশন (আইওআরএ) কাউন্সিল অব সিনিয়র অফিসার্স (সিএসও) সভা অনুষ্ঠিত হয়। আইওআরএ’র ২২ সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধি এবং ৯ সংলাপ অংশীদার এ সভায় অংশ নেয়। এ সভায় বাংলাদেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের একটি প্রতিনিধি অংশ নেয়।

এ সভায় ২০১৯ সালের অক্টোবর থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর পর্যন্ত ভাইস চেয়ারম্যান পদটি আনুষ্ঠানিকভাবে বাংলাদেশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। পরবর্তী সময়ে ২০২১ সালের ২০ অক্টোবর থেকে দুই বছরের মেয়াদে বাংলাদেশ চেয়ারম্যানের দায়িত্ব গ্রহণ করবে। সংযুক্ত আরব আমিরাত আনুষ্ঠানিকভাবে ২০১৯ সালের অক্টোবর থেকে ২০২১ সালের অক্টোবর মেয়াদে চেয়ারের দায়িত্বভার গ্রহণ করে। এ সভায় অনেকগুলো গুরুত্বপূর্ণ বিষয় নিয়ে আলোচনা হয় এবং কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে।

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানায়, বাংলাদেশ তৃতীয় আইওআরএ ব্লু ইকোনমি মন্ত্রিসভা সম্মেলন সম্পর্কে প্রতিবেদনটিও উপস্থাপন করেছিল যা ২০১৯ সালের ৫ সেপ্টেম্বর ঢাকায় অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে আন্তরিকভাবে অংশ নেওয়ার জন্য বাংলাদেশ সমস্ত সদস্য দেশ এবং সংলাপ অংশীদারদের ধন্যবাদ জানায়। ব্লু অর্থনীতি বিষয়ক সম্মেলনের সফল আয়োজনের জন্য বাংলাদেশকে ধন্যবাদ জানানো হয় সভায় এবং ভারত মহাসাগর অঞ্চলে ব্লু অর্থনীতি বিকাশের কেন্দ্রে ঢাকা ঘোষণাপত্র রাখার প্রতিশ্রুতি পুনর্ব্যক্ত করে।

 
শেষবার নয়াপল্টনে খোকা
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে দলের সদ্য প্রয়াত ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার জানাজা সম্পন্ন হয়েছে।

বৃহস্পতিবার দুপুর ২টায় নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের সামনে তার জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। সংসদ ভবনে দ্বিতীয় নামাজে জানাজা ও কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সর্বস্তরের মানুষের শ্রদ্ধা জানানোর পর বৃহস্পতিবার দুপুর পৌনে দুইটার নয়াপল্টনে আনা হয় খোকার মরদেহ। নয়াপল্টনে জানাজা পড়ান জাতীয়তাবাদী ওলামা দলের মাওলানা নেসারুল হক।

জানাজার আগে খোকার মরদেহবাহী অ্যাম্বুলেন্স পৌঁছালে তাকে দলের নেতাকর্মীরা ফুলেল শ্রদ্ধা জানান। এ সময় বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, মির্জা আব্বাস, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ভাইস চেয়ারম্যান শাহ মোয়াজ্জেম হোসেন, আবদুল্লাহ আল নোমান, চৌধুরী কামাল ইবনে ইউসুফ, আলতাফ হোসেন চৌধুরী, জয়নাল আবদীন, শামসুজ্জামান দুদু, ব্যারিস্টার শাহজাহান ওমর, মো. শাহজাহান, বরকতউল্লাহ বুলু, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা আব্দুস সালাম, আতাউর রহমান ঢালী, মিজানুর রহমান মিনু, হাবিবুর রহমান হাবিব, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ, যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, খায়রুল কবির খোকন, হাবিব-উন-নবী খান সোহেল উপস্থিত ছিলেন।

আর উপস্থিত ছিলেন দলের সাংগঠনিক সম্পাদক ফজলুল হক মিলন, আসাদুল হাবিব দুলু, শামা ওবায়েদ, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদ উদ্দিন চৌধুরী এ্যানি, আজিজুল বারী হেলাল, এবিএম মোশাররফ হোসেন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণের সাধারণ সম্পাদক কাজী আবুল বাশার, উত্তরের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি বজলুল বাসিত আঞ্জু, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, স্বেচ্ছাসেবক দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কাদির ভূঁইয়া জুয়েল, সিনিয়র সহসভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক সাইফুল ইসলাম ফিরোজ, ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন শ্যামল, বিএনপি চেয়ারপারসনের বিশেষ সহকারী শামসুর রহমান শিমুল বিশ্বাস, প্রেস উইং সদস্য শামসুদ্দিন দিদার, শায়রুল কবির খান।

এছাড়া ২০ দলীয় জোটের জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান মোস্তফা জামাল হায়দার, প্রেসিডিয়াম সদস্য আহসান হাবিব লিংকন, জামায়াতের আব্দুল হালিম, শামীম সাঈদী, হামিদুর রহমান আযাদ, জাতীয় গণতান্ত্রিক পার্টির সাধারণ সম্পাদক খন্দকার লুৎফর রহমান, অপর অংশের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক আসাদুর রহমান খান, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির চেয়ারম্যান ড. ফরিদুজ্জামান ফরহাদ, মহাসচিব মোস্তাফিজার রহমান মোস্তফা, লেবার পার্টির সভাপতি মোস্তাফিজুর রহমান ইরান, জাতীয় দলের চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট সৈয়দ এহসানুল হুদা, বাংলাদেশ ন্যাপের মহাসচিব গোলাম মোস্তফা ভুইয়া প্রমুখ খোকার জানাজায় অংশ নেন।


এর আগে সকাল সাড়ে ৮টায় ২৮ মিনিটে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায় বিএনপির এই অন্যতম প্রভাবশালী নেতার মরদেহবাহী ফ্লাইটটি। বিমানবন্দরে খোকার মরদেহ গ্রহণ করেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য মির্জা আব্বাস ও ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু।

গত সোমবার (৪ নভেম্বর) বাংলাদেশ সময় দুপুর ১টায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কের ম্যানহাটনে স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যানসার সেন্টারে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন সাদেক হোসেন খোকা। মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৬৭ বছর।

এদিকে প্রিয় নেতাকে শেষবারের মতো একনজর দেখা ও তাকে শেষ শ্রদ্ধা জানানোর জন্য নয়াপল্টনে বিএনপি লাখ লাখ নেতাকর্মীদের ঢল নেমেছে। দুপুর ১২টার আগে থেকেই বুকে কালো ব্যাজ ধারণ করে নেতাকর্মীরা ধীরে ধীরে নয়াপল্টনে জড়ো হতে থাকেন।

নয়াপল্টনে সাদেক হোসেন খোকার তৃতীয় নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। এরপর বিকেল ৩টায় ঢাকা সিটি করপোরেশনে নিয়ে যাওয়া হবে খোকার লাশ। সেখানে চতুর্থ নামাজে জানাজা শেষে লাশ নেয়া হবে নিজ বাসভবনে। বাদ আসর ধুপখোলা মাঠে পঞ্চম নামাজে জানাজা শেষে জুরাইন কবরস্থানে বাবা-মায়ের পাশে চিরনিদ্রায় শায়িত করা হবে এই বীর মুক্তিযোদ্ধাকে।

 
বাদলের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

 

চট্টগ্রাম-৮ আসনের তিন বারের সংসদ সদস্য ও জাসদ নেতা মঈন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।


বৃস্পতিবার (৭ নভেম্বর) পৃথক বার্তা তারা এ শোক জানান।

শোকবার্তায় রাষ্ট্রপতি বলেন, মরহুম মইন উদ্দিন খান বাদল সংসদের বিভিন্ন কমিটিসহ বিভিন্ন ইস্যুতে গঠনমূলক মতামত দিয়ে সংসদ পরিচালনায় গুরুত্বপূর্ণ অবদান রেখেছেন। বাংলাদেশের সংসদীয় ইতিহাসে তার অবদান স্মরণীয় হয়ে থাকবে।

রাষ্ট্রপতি মরহুদের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করে এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের সস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।

এদিকে, শাহ আলমগীরের মৃত্যুতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন। একইসঙ্গে তিনি মরহুমের শোকাহত পরিবারের সদস্যদের প্রতি সমবেদনা জানিয়েছেন।

ভারতের বেঙ্গালুরুতে নারায়ণ হৃদরোগ রিসার্চ ইনিস্টিটিউট অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তিনি ইন্তেকাল করেন।

মঈন উদ্দীন খান বাদল ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী উপজেলার সারোয়াতলীতে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশ নেন। তিনি জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কার্যকরী সভাপতি এবং নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য ছিলেন।

 
বাদলের মৃত্যু জাতির অপূরণীয় ক্ষতি : স্পিকার
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

সংসদ সদস্য, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন স্পিকার ড. শিরীন শারমিন চৌধুরী।

বৃহস্পতিবার এক শোকবার্তায় স্পিকার বলেন, বীর মুক্তিযোদ্ধা মঈন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে দেশ একজন অকুতোভয় মুক্তিযোদ্ধা, রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব ও অভিজ্ঞ পার্লামেন্টারিয়ানকে হারালো। তার মৃত্যু দেশ ও জাতির জন্য এক অপূরণীয় ক্ষতি।

উল্লেখ্য, ভারতের বেঙ্গালুরুতে নারায়ণ হৃদরোগ রিসার্চ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হসপিটালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আজ ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তিনি ইন্তেকাল করেন (ইন্না লিল্লাহি.....রাজিউন)।

মঈনউদ্দীন খান বাদল ১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি চট্টগ্রাম জেলার বোয়ালখালী উপজেলার সারোয়াতলীতে এক সম্ভ্রান্ত মুসলিম পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কার্যকরী সভাপতি এবং নবম, দশম ও একাদশ জাতীয় সংসদের সংসদ সদস্য ছিলেন।

স্পিকার মরহুমের রুহের শান্তি কামনা করেন এবং তার শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জানান।

এ ছাড়া, মঈন উদ্দীন খান বাদলের মৃত্যুতে জাতীয় সংসদের ডেপুটি স্পিকার মো. ফজলে রাব্বী মিয়া এবং চিফ হুইপ নূর-ই-আলম চৌধুরী গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন।

 
যে দেশ স্বাধীন করেছি সে দেশে বক্সে ফেরত যেতে হবে?
                                  

 স্টাফ রিপোর্টার

 

অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার ছেলে ইঞ্জিনিয়ার ইশরাক হোসেন বলেছেন, ‘আমার বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা। আমি গত পাঁচ বছর তার সঙ্গে অনেক সময় কাটিয়েছি। উনি প্রায়শই একটা কথা বলতেন, যে দেশ নিজের হাতে স্বাধীন করেছি সে দেশে কি আমাকে বাক্সে করে ফেরত যেতে হবে?’

 

বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় সাদেক হোসেন খোকার প্রথম নামাজে জানাজা পর্বে স্মৃতিচারণ করতে গিয়ে এসব কথা বলেন তিনি।

 

জানাজায় উপস্থিত সবার উদ্দেশ্যে ইশরাক হোসেন বলেন, ‘সাদেক হোসেন খোকা আপনাদের অতি পরিচিত। দীর্ঘদিন ক্যান্সারের সঙ্গে যুদ্ধ করে গত ৪ নভেম্বর নিউইয়র্কের একটি হাসপাতালে তার মৃত্যু হয়েছে। আজকে আমার প্রথমবার সুযোগ হয়েছে সংসদ চত্বরে পা রাখার। আমি এর আগে কোনো দিনও এখানে আসিনি। যদিও আমার বাবা চারবার সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন।’

 

তিনি বলেন, ‘আমার বাবার জানাজা। এখনও বিশ্বাস করতে কষ্ট হচ্ছে, বাবা আমার সাথে নেই। তবে উনি আমাদের মাঝে বেঁচে থাকবেন। এখানে আগত সাবেক রাষ্ট্রপতি, সাবেক ও বর্তমান সংসদ সদস্যসহ অসংখ্য গণ্যমান্য ব্যক্তি আছেন, আপনাদেরকে আন্তরিক ধন্যবাদ জানাই আমার ও আমার পরিবারের পক্ষ থেকে। কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি আপনারা উনার জানাজায় অংশগ্রহণ করেছেন। তার সর্বজনীন যে একটা গ্রহণযোগ্যতা রয়েছে সেটা আপনারা আবার প্রমাণ করে দিয়েছেন।’

 

খোকার ছেলে বলেন, ‘আপনারা সবাই তার জন্য দোয়া করবেন, আল্লাহ যেন তাকে বেহেশত নসিব করেন। আপনারা সবাই দীর্ঘ সময় তার সঙ্গে চলেছেন, যদি কোনো ভুল করে থাকেন আমি উনার পক্ষ থেকে ক্ষমা চেয়ে নিচ্ছি। কারও যদি কোনো দেনা-পাওনা থাকে আমার সঙ্গে যোগাযোগ করবেন।’

 

ইশরাক হোসেন বলেন, ‘উনি বাংলাদেশে এসেছেন ট্রাভেল ডকুমেন্ট নিয়ে। উনার পাসপোর্ট আবেদন করা হয়েছিল ২০১৭ সালে। পরবর্তীতে কোনো সদুত্তর না পাওয়ায় উনি শেষ দিকে অনেক আক্ষেপ করেছেন। বলেছিলেন, যে দেশ যুদ্ধ করে স্বাধীন করলাম সেই দেশের পাসপোর্ট আমি পেলাম না!’

 

 

তিনি আরও বলেন, ‘উনার বুকের চাপা কষ্ট রয়ে গেল যে, উনি শেষ নিঃশ্বাস এই বাংলাদেশের মাটিতে থেকে ত্যাগ করতে পারলেন না। তারপরও আমি ধন্যবাদ জানাব সরকারকে এবং অন্যান্য যারা সহযোগিতা করে করেছেন উনার মরদেহ এখানে নিয়ে আসার জন্য। উনার অন্তিম ইচ্ছা, আমি যেদিন পৌঁছায় ওই দিনই উনি শেষ কথা বলতে পেরেছিলেন। তারপর উনি আর কথা বলতে পারেননি। তিনি বলেছিলেন, আমার জানাজা বাংলাদেশে করবা। আমাকে আমার বাবা-মায়ের সঙ্গে দাফন করবা।’

শহীদ মিনারে খোকার মরদেহ
                                  

স্টাফ রিপোর্টার

 

কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে নেয়া হয়েছে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ। বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টায় তার মরদেহ সেখানে নেয়া হয়।

 

সেখানে দলের কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দসহ বিভিন্ন অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা পুষ্প অর্পণের মাধ্যমে তার মরদেহের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করছেন।

 

এর আগে বেলা ১১টার দিকে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় খোকার মরদেহবাহী গাড়িটি পৌঁছায়)। পরে দক্ষিণ প্লাজায় অস্থায়ীভাবে স্থাপিত মঞ্চে মরদেহের কফিনটি রাখা হয়। সেখানে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হয়।

 

 

এর আগে আজ সকাল ৮টা ২৮ মিনিটের দিকে খোকার মরদেহ বহনকারী ফ্লাইটটি ঢাকায় হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। বাংলাদেশ সময় বুধবার (৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এমিরেটস এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে তার মরদেহ নিয়ে নিউইয়র্ক থেকে দেশের উদ্দেশে রওনা দেন তার স্বজনরা।

 

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ২৫ এপ্রিল অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন সাদেক হোসেন খোকা। ২৯ নভেম্বর ২০১১ সাল পর্যন্ত টানা ১০ বছর বিএনপি ও আওয়ামী লীগের শাসনামলে তিনি ঢাকা মহানগরের মেয়র ছিলেন।

 

 

 

চিকিৎসার জন্য ২০১৪ সালের ১৪ মে দেশ ছাড়েন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা। বিদেশে থাকা অবস্থায় দুটি মামলায় তার সাজা হয়।

 

গত ১৮ অক্টোবর নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে ভর্তি হন তিনি। গত সোমবার তার শ্বাসনালি থেকে টিউমার অপসারণ করা হয়। নিউইয়র্ক সময় রাত ২টা ৫০ মিনিটে ও বাংলাদেশ সময় সোমবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

 
এমপি মঈন উদ্দীন খান বাদল আর নেই
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক

চট্টগ্রাম–৮ আসন থেকে নির্বাচিত জাতীয় সংসদ সদস্য (এমপি) মঈন উদ্দীন খান বাদল আর নেই। ভারতের বেঙ্গালুরুতে নারায়ণ হৃদরোগ রিসার্চ ইনস্টিটিউট অ্যান্ড হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় বৃহস্পতিবার ভোর সাড়ে ৫টার দিকে তিনি মারা গেছেন (ইন্না লিল্লাহি...... রাজিউন)।

তার ভাই মনির উদ্দীন খান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

১৯৫২ সালের ২১ ফেব্রুয়ারি জন্ম নেয়া মঈন উদ্দীন খান বাদল জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) কার্যকরী সভাপতি ছিলেন। তিনি চট্টগ্রাম ৮ আসনের তিনবার সংসদ সদস্য ছিলেন।

এই মুক্তিযোদ্ধা তিন ছেলে, এক মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে গেছেন।

গত ১৮ অক্টোবর থেকে ভারতে প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ দেবী শেঠির তত্ত্বাবধানে ছিলেন তিনি। হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, চিকিৎসাধীন অবস্থায় হার্টফেল করায় মৃত্যুবরণ করেন তিনি।

দ্রুত সময়ের মধ্যে মরদেহ বাংলাদেশে আনা হবে বলে তার পরিবার জানিয়েছে।

 
জীবিত খোকাকে দেশে ঢুকতে দেয়নি সরকার : ফখরুল
                                  

স্টাফ রিপোর্টর

সাদেক হোসেন খোকার মতো একজন মুক্তিযোদ্ধাকে জীবিত অবস্থায় সরকার দেশে ঢুকতে দেয়নি বলে অভিযোগ করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

বৃহস্পতিবার সকালে রাজধানীর শেরেবাংলা নগরে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা প্রয়াত জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তিনি এ অভিযোগ করেন।

‘জাতীয় বিপ্লব ও সংহতি দিবস’ উপলক্ষে দলের অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর নেতাকর্মীদের নিয়ে জিয়াউর রহমানের সমাধিতে শ্রদ্ধা নিবেদন করেন বিএনপির সিনিয়র নেতারা।

ফখরুল বলেন,`সাদেক হোসেন খোকার মতো একজন মুক্তিযোদ্ধাকে জীবিত অবস্থায় দেশে ঢুকতে দেয়নি সরকার। এ রকম ঘটনার যেন আর পুনরাবৃত্তি না ঘটে।‘

৭ নভেম্বরের চেতনায় জনগণের ঐক্যবদ্ধ আন্দোলনের মাধ্যমে খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা হবে বলেও ঘোষণা দেন তিনি।

শ্রদ্ধা নিবেদনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন, ড. আবদুল মঈন খান, ভাইস চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, অ্যাডভোকেট আহমেদ আযম খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।


অবিভক্ত ঢাকার সাবেক মেয়র, বিএনপি নেতা ও মুক্তিযোদ্ধা সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ নিউইয়র্ক থেকে বৃহস্পতিবার ঢাকায় আনা হয়।

 
সংসদ ভবনে খোকার নিথর দেহ
                                  

নিজস্ব প্রতিবেদক 

 

বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের শেষ মেয়র সাদেক হোসেন খোকার মরদেহ জাতীয় সংসদ ভবনে পৌঁছেছে।

 

বৃহস্পতিবার বেলা ১১টার দিকে জাতীয় সংসদ ভবনের দক্ষিণ প্লাজায় খোকার মরদেহবাহী গাড়িটি পৌঁছায়। পরে দক্ষিণ প্লাজায় অস্থায়ীভাবে স্থাপিত মঞ্চে মরদেহের কফিনটি রাখা হয়। সেখানে তার নামাজে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

 

এর আগে আজ সকাল ৮টা ২৮ মিনিটের দিকে খোকার মরদেহ বহনকারী ফ্লাইটটি হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছায়। বাংলাদেশ সময় বুধবার (৬ নভেম্বর) সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এমিরেটস এয়ারলাইনসের ফ্লাইটে তার মরদেহ নিয়ে নিউইয়র্ক থেকে দেশের উদ্দেশে রওনা দেন তার স্বজনরা।

 

 

উল্লেখ্য, ২০০২ সালের ২৫ এপ্রিল অবিভক্ত ঢাকা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে মেয়র নির্বাচিত হন সাদেক হোসেন খোকা। ২৯ নভেম্বর ২০১১ সাল পর্যন্ত টানা ১০ বছর বিএনপি ও আওয়ামী লীগের শাসনামলে তিনি ঢাকা মহানগরের মেয়র ছিলেন।

 

চিকিৎসার জন্য ২০১৪ সালের ১৪ মে দেশ ছাড়েন বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান সাদেক হোসেন খোকা। বিদেশে থাকা অবস্থায় দুটি মামলায় তার সাজা হয়।

 

 

গত ১৮ অক্টোবর নিউইয়র্কের ম্যানহাটনের মেমোরিয়াল স্লোয়ান ক্যাটারিং ক্যান্সার সেন্টারে ভর্তি হন তিনি। গত সোমবার তার শ্বাসনালি থেকে টিউমার অপসারণ করা হয়। নিউইয়র্ক সময় রাত ২টা ৫০ মিনিটে ও বাংলাদেশ সময় সোমবার দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে তার মৃত্যু হয়।

 

   Page 1 of 61
     রাজনীতি
রাঙ্গার প্রতি রিজভীর ধিক্কার
.............................................................................................
শহীদ নূর হোসেনকে মাদকাসক্ত বলে ক্ষমা চাইলেন রাঙ্গা
.............................................................................................
অন্য দলেও কাদের আঙুল ফুলে কলা গাছ হয়েছে, খোঁজ নেয়া হবে
.............................................................................................
লতিফ সিদ্দিকীর জামিন স্থগিত
.............................................................................................
সংসদের শোক প্রস্তাবে নেই খোকার নাম, সেলিমার ক্ষোভ
.............................................................................................
বাদলের জানাজা সম্পন্ন, মরদেহে রাষ্ট্রপ্রতি-প্রধানমন্ত্রীর শ্রদ্ধা
.............................................................................................
দলমত নির্বিশেষে মানুষের সেবা করে গেছেন খোকা : সাঈদ খোকন
.............................................................................................
বাংলাদেশের বিরোধিতায় আইওআরএ সদস্যপদ পায়নি মিয়ানমার
.............................................................................................
শেষবার নয়াপল্টনে খোকা
.............................................................................................
বাদলের মৃত্যুতে রাষ্ট্রপতি-প্রধানমন্ত্রীর শোক
.............................................................................................
বাদলের মৃত্যু জাতির অপূরণীয় ক্ষতি : স্পিকার
.............................................................................................
যে দেশ স্বাধীন করেছি সে দেশে বক্সে ফেরত যেতে হবে?
.............................................................................................
শহীদ মিনারে খোকার মরদেহ
.............................................................................................
এমপি মঈন উদ্দীন খান বাদল আর নেই
.............................................................................................
জীবিত খোকাকে দেশে ঢুকতে দেয়নি সরকার : ফখরুল
.............................................................................................
সংসদ ভবনে খোকার নিথর দেহ
.............................................................................................
বিএনপি থেকে মোরশেদ খানের পদত্যাগ, জানেন না মির্জা ফখরুল
.............................................................................................
‘এরা কি ভিসি না ওসি’
.............................................................................................
খোকার মরদেহ ঢাকার পথে
.............................................................................................
শুদ্ধি অভিযানের সঙ্গে সঙ্গতিপূর্ণ রেখে কৃষক লীগে স্বচ্ছ নেতৃত্ব
.............................................................................................
ক্ষোভে বিএনপি ত্যাগ করলেন মোর্শেদ খান
.............................................................................................
‘৭৫ পরবর্তী সব হত্যাকাণ্ডে নেপথ্যের খলনায়ক জিয়া’
.............................................................................................
‘আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির আকার বাড়বে না’
.............................................................................................
রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফিরে যাক, এটা ফখরুলরা চান না : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
কৃষক লীগের সম্মেলন কাল : বর্ণিল সাজে সজ্জিত সোহরাওয়ার্দী উদ্যান
.............................................................................................
নিউইয়র্কে খোকার প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত
.............................................................................................
আইনজীবী ফোরাম নিয়ে বিএনপিতে গৃহদাহ, নেতাদের মুখে কুলুপ
.............................................................................................
রেসিডেনসিয়ালের ছাত্র আবরারের মৃত্যুতে মন্ত্রিসভায় উদ্বেগ
.............................................................................................
অসুস্থ খোকার শয্যাপাশে যুক্তরাষ্ট্র আ.লীগের সভাপতি
.............................................................................................
রোহিঙ্গা সংকটের সমাধান রাজনৈতিকভাবেই করতে হবে
.............................................................................................
ওয়ার্কার্স পার্টি কারও ছায়ায় থাকবে না: বাদশা
.............................................................................................
সম্মেলনে বিদেশি অতিথিদের আমন্ত্রণ জানাবে না আ.লীগ
.............................................................................................
দুর্নীতির কথা বিএনপির মুখে মানায় না: নাসিম
.............................................................................................
এখন পর্যন্ত প্রশ্নপত্র ফাঁসের ঘটনা ঘটেনি, ঘটবেও না
.............................................................................................
সিলেট বিএনপিতে গণপদত্যাগের শঙ্কা!
.............................................................................................
আ’লীগের অনেক নেতা বাদ পড়ার আতঙ্কে
.............................................................................................
জাসদের ৪৭তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী বৃহস্পতিবার
.............................................................................................
খোকার শারীরিক অবস্থার অবনতি
.............................................................................................
বিএনপির এমপি হারুনের হাইকোর্টে আপিল
.............................................................................................
দল থেকে উইপোকা ও ছারপোকাদের বের করতে হবে : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
মির্জা ফখরুল দেশে ফিরছেন আজ
.............................................................................................
পদত্যাগের প্রশ্নই আসে না: মেনন
.............................................................................................
সমাবেশ থেকে সরে আসল ঐক্যফ্রন্ট
.............................................................................................
‘যুবলীগে যাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ আছে তাদের অব্যাহতি দেয়া হয়েছে’
.............................................................................................
মেনন মন্ত্রী হলে কি এমন কথা বলতেন: কাদের
.............................................................................................
২২ অক্টোবর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে ঐক্যফ্রন্টের সমাবেশ
.............................................................................................
সম্রাটকে আদালতে নেওয়া হয়েছে
.............................................................................................
আবরার হত্যাকান্ডকে পুঁজি করে কেউ যেন তাদের স্বার্থ হাসিল করতে না পারে : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
সরকার ছাত্র রাজনীতি বন্ধের পক্ষে নয়: কাদের
.............................................................................................
বিএনপি নেতা হাফিজ গ্রেফতার
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]