| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * ঢাকাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল খুলনা   * ঢাকাকে হারিয়ে জয়ে ফিরল খুলনা   * ব্রহ্মপুত্রে বাঁধ দিচ্ছে চীন, পানি সংকটের আশঙ্কা ভারতে   * চূড়ান্ত ফল প্রকাশ, ৯৪% কার্যকর মডার্নার ভ্যাকসিন   * সাপাহারে বে-সরকারি ক্লিনিকে অভিযান, অর্থদন্ড ৭৫ হাজার টাকা   * ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা বিভ্রান্তি-উস্কানির অপচেষ্টা মাত্র : তথ্যমন্ত্রী   * ২৩ পৌরসভায় বিএনপির মনোনয়ন পেলেন যারা   * ৯৯৯-এ ফোন করে মিথ্যা তথ্য দিলে শাস্তি   * ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটির নির্বাচনে নোমানী সভাপতি, মশিউর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত   * কক্সবাজার দক্ষিণ বন বিভাগের উদ্যোগে ২ দিন ব্যাপী জনসচেতনতামূলক কার্যক্রমের সূচনা  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা বিভ্রান্তি-উস্কানির অপচেষ্টা মাত্র : তথ্যমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা করে বিভ্রান্তি ছড়ানো ও উস্কানি দেয়ার অপচেষ্টা পরিহার করার আহবান জানিয়েছেন। তিনি আজ দুপুরে সচিবালয় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এসময় `বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে মূর্তি বলে এর বিরুদ্ধে কথা বলছেন কেউ কেউ, কিন্তু জিয়াউর রহমানের ভাস্কর্য নিয়ে তারা কিছু বলছেন না কেন` এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী একথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, `বিশ্বের আর সব দেশের মতো আমাদের দেশেও অনেকের ভাস্কর্য বহু বছর আগে নির্মিত হয়েছে। তখন কিন্তু কেউ প্রশ্ন উত্থাপন করেনি। এখন এটি নিয়ে প্রশ্ন করা মানে এটি নিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা। আর আমরা প্রথম থেকেই বলে এসেছি, ভাস্কর্য আর মূর্তির মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। একটি মহল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা করে সমাজকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।` পুরো পৃথিবী এমনকি যদি ইসলামী দেশগুলোর দিকেই তাকাই, তাহলেও আমরা দেখতে পাই, ইরানে যেখানে ইসলামী বিপ্লবের মাধ্যমে ইসলামী সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, সেখানে আয়াতুল্লাহ খোমেনীর ভাস্কর্য আছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ইরাকেও রাস্তায় রাস্তায় ভাস্কর্য আছে। তুরস্কে সেখানে ইসলামী ডানপন্থী দলই ক্ষমতায়, সেখানে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের ভাস্কর্য আছে। পৃথিবীর অন্যান্য ইসলামী দেশ, মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে নানা ভাস্কর্য এমনকি সেখানকার শাসকদের ছবি সম্বলিত ভাস্কর্যও রাস্তায় রাস্তায় আছে।

সৌদি আরবের উদাহরণ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, `সৌদি আরবে আমাদের মক্কা শরীফ, মসজিদে নববী অবস্থিত, সেখানে জেদ্দাসহ বিভিন্ন শহরে ঘোড়া, উট এমনকি সৌদি প্রশাসকদের ছবি সম্বলিত ভাস্কর্য আছে। এছাড়া জেদ্দায় পৃথিবীর বিখ্যাত ভাস্করদের দিয়ে ভাস্কর্য বানিয়ে তৈরি করা হয়েছে স্কাল্পচার মিউজিয়াম, যার আরবীয় নাম হচ্ছে আল-হামরা। নারী-পুরুষ, জীবজন্তুসহ বহুকিছুর ভাস্কর্য সেখানে আছে।` তুরস্কে কবি ফেরদৌসি, সেখ সাদী, হযরত জালাল উদ্দীন রুমী`র ভাস্কর্য আছে, এমনকি সেখানে মসজিদের সামনেও ভাস্কর্য আছে, বলেন হাছান মাহমুদ।

ভাস্কর্য একটি দেশের কৃষ্টি-সংস্কৃতি- ইতিহাসের অংশ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ নিয়ে সৌদি আরবেও কেউ প্রশ্ন তোলেনি। আর যারা পাকিস্তানী ভাবধারায় এ নিয়ে প্রশ্ন করছেন, তাদের অতীত ইতিহাস ঘাঁটলে দেখতে পাবো, তাদের পূর্বপুরুষরা বা তারা ১৯৭১ সালে পাকিস্তনের জন্য লড়াই করেছিলেন কিম্বা পাকিস্তানের পক্ষাবলম্বন করেছিলেন। তাদের সেই সাধের পাকিস্তানে মোহাম্মদ আলীর জিন্নাহ`র ভাস্কর্য আছে, কবি ইকবালের ভাস্কর্য আছে, লিয়াকত আলী খানসহ আরো বহুজনের ভাস্কর্য আছে। সেখানেও কেউ কখনো প্রশ্ন তোলেনি।

ইতিহাসের দিকে তাকিয়ে মন্ত্রী বলেন, পলাশীর যুদ্ধের পর ইংরেজরা শাসন ক্ষমতা নেবার আগে উপমহাদেশে সরকারি ভাষা ছিল ফার্সি এবং সেনাবাহিনীর মধ্যে উর্দু ভাষা চালু করা হয়েছিল। ইংরেজ শাসনের শুরুতে তারা ইংরেজি চালু করলো, সরকারি ভাষা হয়ে গেল ইংরেজি। আজকে যারা ভাস্কর্য নিয়ে কথা বলছে তাদের মতো অনেকেই তখন ইংরেজি শিক্ষাকে হারাম বলে ফতোয়া দিয়েছিল। এবং এই ফতোয়া দেয়ার কারণে কিন্তু বহু বছর অনেক মুসলিম ইংরেজি শেখেনি, সে কারণে উপমহাদেশে মুসলিমরা চাকুরিতে পিছিয়ে গিয়েছিল।

ড. হাছান বলেন, আবার যখন মানুষ চাঁদে গেল, তখন অনেকে ফতোয়া দিয়েছিল মানুষ চাঁদে গেছে এটি বিশ্বাস করা হারাম, শিরক। যখন টেলিভিশন চালু হলো, অনেকে টেলিভিশন দেখা হারাম বলেছিল। আবার অনেকে হজে যাওয়ার সময় ছবি দিয়ে দরখাস্ত করা যাবে না, এটা বলেও বিতর্ক তৈরি করা হয়েছিল। এখন যারা এই সমস্ত কথা বলেন, তারা কিন্তু টেলিভিশনে বক্তব্য দেন, টেলিভিশনে বক্তব্য তাদেরটা গেলে তারা খুশি হন এবং তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও নানা ধরণের পোস্ট দেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, `যারা এই সমস্ত কথা বলে সমাজকে বিভ্রান্ত করতে চায়, আমি আশা করবো, এ ধরণের বিভ্রান্তিমূলক, উস্কানিমূলক বক্তব্য তারা পরিহার করবেন। এগুলো কখনো জনগণ মেনে নেয়নি, মেনে নেবেনা। এসবের বিরুদ্ধে জনগণ বক্তব্য দিয়েছে। এ ধরণের উস্কানিমূলক বক্তব্য যদি ক্রমাগতভাবে দেয়া হতে থাকে সেক্ষেত্রে সরকার নিশ্চয়ই বসে থাকবে না। বাংলাদেশে কোনো মৌলবাদের স্থান নেই, কোনো জঙ্গিবাদের স্থান নেই।`

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী জানান, তদন্ত রিপোর্ট প্রাপ্তিসাপেক্ষে অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিবন্ধন একটি চলমান প্রক্রিয়া এবং এ নিয়ে উদ্বেগের কোনো কারণ নেই। বাসস

ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা বিভ্রান্তি-উস্কানির অপচেষ্টা মাত্র : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা করে বিভ্রান্তি ছড়ানো ও উস্কানি দেয়ার অপচেষ্টা পরিহার করার আহবান জানিয়েছেন। তিনি আজ দুপুরে সচিবালয় তথ্য মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে সাংবাদিকদের বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন। এসময় `বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্যকে মূর্তি বলে এর বিরুদ্ধে কথা বলছেন কেউ কেউ, কিন্তু জিয়াউর রহমানের ভাস্কর্য নিয়ে তারা কিছু বলছেন না কেন` এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী একথা বলেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, `বিশ্বের আর সব দেশের মতো আমাদের দেশেও অনেকের ভাস্কর্য বহু বছর আগে নির্মিত হয়েছে। তখন কিন্তু কেউ প্রশ্ন উত্থাপন করেনি। এখন এটি নিয়ে প্রশ্ন করা মানে এটি নিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা। আর আমরা প্রথম থেকেই বলে এসেছি, ভাস্কর্য আর মূর্তির মধ্যে পার্থক্য রয়েছে। একটি মহল উদ্দেশ্য প্রণোদিতভাবে ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা করে সমাজকে বিভ্রান্ত করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে।` পুরো পৃথিবী এমনকি যদি ইসলামী দেশগুলোর দিকেই তাকাই, তাহলেও আমরা দেখতে পাই, ইরানে যেখানে ইসলামী বিপ্লবের মাধ্যমে ইসলামী সরকার প্রতিষ্ঠিত হয়েছে, সেখানে আয়াতুল্লাহ খোমেনীর ভাস্কর্য আছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, ইরাকেও রাস্তায় রাস্তায় ভাস্কর্য আছে। তুরস্কে সেখানে ইসলামী ডানপন্থী দলই ক্ষমতায়, সেখানে প্রেসিডেন্ট এরদোগানের ভাস্কর্য আছে। পৃথিবীর অন্যান্য ইসলামী দেশ, মধ্যপ্রাচ্যের দেশগুলোতে নানা ভাস্কর্য এমনকি সেখানকার শাসকদের ছবি সম্বলিত ভাস্কর্যও রাস্তায় রাস্তায় আছে।

সৌদি আরবের উদাহরণ দিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, `সৌদি আরবে আমাদের মক্কা শরীফ, মসজিদে নববী অবস্থিত, সেখানে জেদ্দাসহ বিভিন্ন শহরে ঘোড়া, উট এমনকি সৌদি প্রশাসকদের ছবি সম্বলিত ভাস্কর্য আছে। এছাড়া জেদ্দায় পৃথিবীর বিখ্যাত ভাস্করদের দিয়ে ভাস্কর্য বানিয়ে তৈরি করা হয়েছে স্কাল্পচার মিউজিয়াম, যার আরবীয় নাম হচ্ছে আল-হামরা। নারী-পুরুষ, জীবজন্তুসহ বহুকিছুর ভাস্কর্য সেখানে আছে।` তুরস্কে কবি ফেরদৌসি, সেখ সাদী, হযরত জালাল উদ্দীন রুমী`র ভাস্কর্য আছে, এমনকি সেখানে মসজিদের সামনেও ভাস্কর্য আছে, বলেন হাছান মাহমুদ।

ভাস্কর্য একটি দেশের কৃষ্টি-সংস্কৃতি- ইতিহাসের অংশ উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী বলেন, এ নিয়ে সৌদি আরবেও কেউ প্রশ্ন তোলেনি। আর যারা পাকিস্তানী ভাবধারায় এ নিয়ে প্রশ্ন করছেন, তাদের অতীত ইতিহাস ঘাঁটলে দেখতে পাবো, তাদের পূর্বপুরুষরা বা তারা ১৯৭১ সালে পাকিস্তনের জন্য লড়াই করেছিলেন কিম্বা পাকিস্তানের পক্ষাবলম্বন করেছিলেন। তাদের সেই সাধের পাকিস্তানে মোহাম্মদ আলীর জিন্নাহ`র ভাস্কর্য আছে, কবি ইকবালের ভাস্কর্য আছে, লিয়াকত আলী খানসহ আরো বহুজনের ভাস্কর্য আছে। সেখানেও কেউ কখনো প্রশ্ন তোলেনি।

ইতিহাসের দিকে তাকিয়ে মন্ত্রী বলেন, পলাশীর যুদ্ধের পর ইংরেজরা শাসন ক্ষমতা নেবার আগে উপমহাদেশে সরকারি ভাষা ছিল ফার্সি এবং সেনাবাহিনীর মধ্যে উর্দু ভাষা চালু করা হয়েছিল। ইংরেজ শাসনের শুরুতে তারা ইংরেজি চালু করলো, সরকারি ভাষা হয়ে গেল ইংরেজি। আজকে যারা ভাস্কর্য নিয়ে কথা বলছে তাদের মতো অনেকেই তখন ইংরেজি শিক্ষাকে হারাম বলে ফতোয়া দিয়েছিল। এবং এই ফতোয়া দেয়ার কারণে কিন্তু বহু বছর অনেক মুসলিম ইংরেজি শেখেনি, সে কারণে উপমহাদেশে মুসলিমরা চাকুরিতে পিছিয়ে গিয়েছিল।

ড. হাছান বলেন, আবার যখন মানুষ চাঁদে গেল, তখন অনেকে ফতোয়া দিয়েছিল মানুষ চাঁদে গেছে এটি বিশ্বাস করা হারাম, শিরক। যখন টেলিভিশন চালু হলো, অনেকে টেলিভিশন দেখা হারাম বলেছিল। আবার অনেকে হজে যাওয়ার সময় ছবি দিয়ে দরখাস্ত করা যাবে না, এটা বলেও বিতর্ক তৈরি করা হয়েছিল। এখন যারা এই সমস্ত কথা বলেন, তারা কিন্তু টেলিভিশনে বক্তব্য দেন, টেলিভিশনে বক্তব্য তাদেরটা গেলে তারা খুশি হন এবং তারা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমেও নানা ধরণের পোস্ট দেন। তথ্যমন্ত্রী বলেন, `যারা এই সমস্ত কথা বলে সমাজকে বিভ্রান্ত করতে চায়, আমি আশা করবো, এ ধরণের বিভ্রান্তিমূলক, উস্কানিমূলক বক্তব্য তারা পরিহার করবেন। এগুলো কখনো জনগণ মেনে নেয়নি, মেনে নেবেনা। এসবের বিরুদ্ধে জনগণ বক্তব্য দিয়েছে। এ ধরণের উস্কানিমূলক বক্তব্য যদি ক্রমাগতভাবে দেয়া হতে থাকে সেক্ষেত্রে সরকার নিশ্চয়ই বসে থাকবে না। বাংলাদেশে কোনো মৌলবাদের স্থান নেই, কোনো জঙ্গিবাদের স্থান নেই।`

অপর এক প্রশ্নের জবাবে তথ্যমন্ত্রী জানান, তদন্ত রিপোর্ট প্রাপ্তিসাপেক্ষে অনলাইন নিউজ পোর্টাল নিবন্ধন একটি চলমান প্রক্রিয়া এবং এ নিয়ে উদ্বেগের কোনো কারণ নেই। বাসস

২৩ পৌরসভায় বিএনপির মনোনয়ন পেলেন যারা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আসন্ন ২৫ পৌরসভার মধ্যে ২৩ পৌরসভায় দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে বিএনপি। পাবনার চাটমোহর ও ঢাকার ধামরাই পৌরসভায় এখনও প্রার্থী ঘোষণা করেনি দলটি।

সোমবার (৩০ নভেম্বর) এই প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। দলের মহাসচিবের সই করা প্রত্যয়নপত্র প্রার্থীদের হাতে তুলে দেন বিএনপির চেয়ারপারসনের একান্ত সচিব এ বি এম আবদুস সাত্তার ও দলের ভারপ্রাপ্ত তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক রিয়াজুদ্দিন।

প্রার্থীরা হলেন- পঞ্চগড় পৌরসভায় তৌহিদুল ইসলাম, পীরগঞ্জে রেজাউল করিম, ফুলবাড়ীতে মো. শাহাদাৎ আলী, বদরগঞ্জে ফিরোজ শাহ, কুড়িগ্রামে শফিকুল ইসলাম, পুঠিয়ায় আল মামুন, কাটাখালীতে সিরাজুল হক, শাহজাদপুরে মাহমুদুল হাসান, খোকসায় রাজু আহম্মেদ, চুয়াডাঙ্গায় সিরাজুল ইসলাম, চালনায় আবুল খায়ের খান, বেতাগীতে হুমায়ুন কবির, কুয়াকাটায় আবদুল আজিজ, উজিরপুরে শহিদুল ইসলাম খান, বাকেরগঞ্জে এস এম মনিরুজ্জামান, গফরগাঁওয়ে শাহ আবদুল্লাহ আল-মামুন, মদনে এনামুল হক, মানিকগঞ্জে আতাউর রহমান, শ্রীপুরে শহিদুল্লাহ শহিদ, দিরাইয়ে ইকবাল হোসেন চৌধুরী, বড়লেখায় আনোয়ারুল ইসলাম, শায়েস্তাগঞ্জে এম এফ আহমেদ অলি ও সীতাকুণ্ডে আবুল মুনছুর।

এদিকে ২৮ নভেম্বর ২৫টি পৌরসভায় দলীয় প্রার্থী মনোনয়ন দেয় আওয়ামী লীগ।

উল্লেখ্য, গত ২২ নভেম্বর ২৫টি পৌরসভায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন ফরম দাখিলের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর, মনোনয়ন বাছাই ৩ ডিসেম্বর ও প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেখ দিন ১০ ডিসেম্বর। আর ভোটগ্রহণ হবে ২৮ ডিসেম্বর।

ইসির জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর হোসেন জানান, প্রথম ধাপে ২৫টি পৌরসভায় ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম ধাপের সবকটি পৌরসভায় ইভিএমে ভোট হবে।

`মাই ম্যান` দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না : কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : নিজস্ব বলয় তৈরি করতে মাই ম্যান দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না বলে সাফ জানিয়ে দিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ রোববার সংসদ ভবন এলাকায় তাঁর সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, `যেসব জেলায় আওয়ামী লীগের সম্মেলন হয়নি এবং কমিটির মেয়াদ উত্তীর্ণ হয়েছে, সেসব জেলায় দ্রুত কাউন্সিল করার নির্দেশনা দিয়েছেন দলীয় সভাপতি শেখ হাসিনা। জেলা সম্মেলনের আগে উপজেলা, ইউনিয়ন এবং ওয়ার্ড পর্যায়ে কাউন্সিলের মাধ্যমে কমিটি গঠন করতে হবে। নিজস্ব বলয় তৈরি করতে মাই ম্যান দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না।`

কঠোরভাবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে কাউন্সিল করার নির্দেশ দিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, চিহ্নিত অপরাধী, চাঁদাবাজ, দখলদার ও সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠীর কাউকে দলে নেওয়া যাবে না। ত্যাগী নেতাকর্মীদের জন্য রাজনীতিতে টিকে থাকার এবং এগিয়ে যাওয়ার পথ সৃষ্টি করে দিতে হবে।

বিএনপির গণতন্ত্র হচ্ছে `মুখে শেখ ফরিদ আর বগলে ইট` মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক বলেন, নির্বাচনকে উদ্দেশ্যমূলক প্রশ্নবিদ্ধ করে, গোপনে সরকার পতনের অলিগলি পথ খুঁজে আর দেশ বিদেশে গোপন বৈঠক করে গণতন্ত্র পুনঃপ্রতিষ্ঠা করতে চায় বিএনপি। নির্বাচনের পথে না হেঁটে ক্ষমতায় যেতে নানান অগণতান্ত্রিক পথ খোঁজা বিএনপির পুরনো অভ্যাস।

বিএনপিকে দলের ভেতরে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠার আহ্বান জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিবৃতি আর গুজব অপপ্রচার চালিয়ে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করা যায় না। তাদের দুঃশাসন এখনো মানুষকে তাড়া করে, তাই তারা জনমানুষের আস্থা হারিয়েছে। তাই আগে নিজের দলে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করুন।
সরকার না কি শাসন দীর্ঘায়িত করতে চায়, বিএনপি মহাসচিবের এমন বক্তব্য প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ জনগণের ভোটে নির্বাচিত হয়ে ক্ষমতায় এসেছে সুতরাং সংবিধান অনুযায়ী যথাসময়ে পরবর্তী নির্বাচন হবে-, তাই শাসন দীর্ঘায়িত করার সরকারের কোন ইচ্ছাও নাই, সুযোগও নাই।

মাগুরা জেলা বিএনপির কার্যালয়ে হামলা প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, কারা হামলা করেছে তা তদন্ত হওয়া দরকার। এ ঘটনা তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের বহিঃপ্রকাশ কি না তা খতিয়ে দেখাও দরকার।
তিনি বলেন, অপরাধী কোন দলের নয় কিন্তু কোনো ঘটনায় অভিযুক্ত কাউকে গ্রেফতার করা হলে বিএনপি আবার অভিযোগ করে বলে সরকার দমন – পীড়ন চালাচ্ছে। বাসস

বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী বিতর্কের সৃষ্টি করছে : ওবায়দুল কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে একটি ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী অনাহুত বিতর্কের সৃষ্টি করছে বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেুতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

আজ শনিবার সকালে সংসদ ভবনস্থ তাঁর সরকারি বাসভবনে সমসাময়িক বিষয় নিয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।
আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, `বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে মনগড়া ব্যাখ্যা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও দেশের সংস্কৃতির প্রতি চ্যালেঞ্জ। স্বাধীন বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে একটি ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী ইসলামের অপব্যাখ্যা দিয়ে ধর্মপ্রিয় মানুষের মনে বিদ্বেষ ছড়ানোর অপচেষ্টা করছে।`

ওবায়দুল কাদের বলেন, `সরকারের সরলতাকে দুর্বলতা ভাববেন না, জনগনের শান্তি বিনষ্টের যে কোন অপচেষ্টায় জনগণই রুখে দাঁড়াবে।দেশের মুক্তিযুদ্ধ, মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, সংবিধান এবং রাষ্ট্রবিরোধী কোন বক্তব্য বরদাশত করা হবে না।`
যারা দেশের স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে,বিশ্বাস করে মুক্তিযুদ্ধের চেতনায়,তাদের সকলকে এক হয়ে মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিরোধী সকল কর্মকান্ডের বিরুদ্ধে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, সরকার প্রধান আগেই বলেছেন, দেশে কোরআান – সুন্নাহ বিরোধী কোনো আইন হবে না। তাই অন্য কোন পথ নাপেয়ে ধর্মীয় ইস্যুকে সামনে এনে ধর্মীয় সহনশীলতা বিনষ্টের অপচেষ্টা করা হচ্ছে, যা কঠোর হস্তে দমন করা হবে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে এদেশে ইসলাম সম্পর্কে গবেষণা, চর্চা এগিয়ে নিতে বঙ্গবন্ধু প্রতিষ্ঠা করেছিলেন ইসলামিক ফাউন্ডেশন।
ধর্মীয় শিক্ষা প্রসারে মাদ্রাসা বোর্ড পুনর্গঠনসহ ইসলাম প্রচারে তাবলিগ জামাতকে জমি প্রদান করেছিলেন জানিয়ে তিনি বলেন, এরই ধারাবাহিকতায় বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা পবিত্র ধর্মের একজন নিবেদিত প্রাণ ও অনুসারি হিসেবে ইসলামের সাথে জ্ঞানবিজ্ঞানের সমন্বয় করে প্রকৃত ইসলামের চর্চা এগিয়ে নিতে জনমানুষের ধর্মানুরাগের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে দেশের প্রতিটি উপজেলায় নির্মাণ করেছেন মডেল মসজিদ কমপ্লেক্স।

ওবায়দুল কাদের বলেন, একজন ধর্মপ্রাণ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন সরকার পরিচালনার দায়িত্বে তখন এদেশে ইসলাম বিরোধী কোন কার্যক্রম হবে, তা বিশ্বাস করার কোন কারন নেই।
তিনি বলেন, ভাস্কর্যকে যারা মূর্তি বলে অপপ্রচারে নেমেছে তারা নিজেরাই ভ্রান্তিতে আছে, দেশের আলেম সমাজ এবং বিশেষজ্ঞগণ ইতিমধ্যেই বারবার বলেছেন মূর্তি আর ভাস্কর্য এক নয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, ইসলাম আমাদের ধর্ম,এ ধর্মের বিধিবিধানে ধর্মীয় ইস্যুতে বাড়াবাড়ির সুযোগ নেই। নিরুৎসাহিত করা হয়েছে ধর্মীয় বিষয়ে বিতর্ক করতে,নিষেধ করা হয়েছে ফিতনা – ফ্যাসাদ সৃষ্টিতে।
বাংলাদেশের স্থপতির ভাস্কর্য টেনে হেঁচড়ে নামাবে বলে কোন কোন ধর্মীয় নেতা ঔদ্ধত্যপূর্ণ বক্তব্য রাখছেন, তাদের এমন রুচি এবং ভাষা ব্যবহার দেখে তাদের ধর্মচর্চা ও ইসলামি রুচিবোধ নিয়ে জনমনে প্রশ্ন তৈরি হয়েছে বলেও মন্তব্য করেন ওবায়দুল কাদের।

প্রকৃত ইসলাম চর্চার আহবান জানিয়ে তিনি বলেন, ধর্ম নিয়ে বাড়াবাড়ি করা থেকে সবাই বিরত থাকি। ধর্মকে রাজনৈতিক ইস্যুতে ব্যবহার না করি। বাসস

২৫ পৌরসভায় আ. লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আসন্ন ২৫ পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী চূড়ান্ত করেছে ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগ। শনিবার (২৮ নভেম্বর) বিকালে প্রধানমন্ত্রীর সরকারি বাসভবন গণভবনে দলের স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের সভায় এই প্রার্থী তালিকা চূড়ান্ত করা হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন আওয়ামী লীগ সভানেত্রী ও স্থানীয় সরকার জনপ্রতিনিধি মনোনয়ন বোর্ডের প্রধান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এদিন সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়।

সভার সিদ্ধান্ত মোতাবেক পৌরসভা নির্বাচনে (প্রথম ধাপ) মনোনীত প্রার্থীরা হলেন-

রংপুর বিভাগের ৫টি পৌরসভার মধ্যে পঞ্চগড় জেলার পঞ্চগড় সদরে জাকিয়া খাতুন, ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে মো. কশিরুল আলম, দিনাজপুরের ফুলবাড়ীতে খাজা মইন উদ্দীন, রংপুরের বদরগঞ্জ আহাসানুল হক চৌধুরী এবং কুড়িগ্রামের কুড়িগ্রাম সদরে কাজিউল ইসলামকে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হয়েছে। রাজশাহী বিভাগে ৪টি পৌরসভার মধ্যে রাজশাহী জেলার পুঠিয়াতে রবিউল ইসলাম, কাটাখালী আব্বাস আলী, সিরাজগঞ্জের শাহজাদপুরে মনির আক্তার খান তরু লোদী এবং পাবনার চাটমোহরে সাখাওয়াত হোসেন সাখো মনোনয়ন পেয়েছেন।

খুলনা বিভাগের ৩টি পৌরসভার মধ্যে কুষ্টিয়ার খোকসায় আল মাছুম মুর্শেদ, খুলনা জেলার দাকোপ চালনায় সনত কুমার বিশ্বাস, চুয়াডাঙ্গার চুয়াডাঙ্গা সদরে রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার। বরিশাল বিভাগের ৪টি পৌরসভার মধ্যে- বরগুনার বেতাগীতে এ,বি. এম গোলাম কবির, পটুয়াখালীর কুয়াকাটায় আ. বারেক মোল্লা, বরিশালের উজিরপুরে গিয়াস উদ্দিন বেপারী ও বাকেরগঞ্জে লোকমান হোসেন ডাকুয়াকে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

ঢাকা বিভাগে ৩টি পৌরসভার মধ্যে মানিকগঞ্জের মানিকগঞ্জ সদরে রমজান আলী, ঢাকার ধামরাইয়ে গোলাম কবির ও গাজীপুরের শ্রীপুর আনিছুর রহমান। ময়মনসিংহ বিভাগে ২টি পৌরসভার মধ্যে ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ে এস.এম. ইকবাল হোসেন (সুমন) এবং নেত্রকোনা মদনে আব্দুল হান্নান তালুকদারকে মনোনয়ন দেয়া হয়েছে।

সিলেট বিভাগের ৩টি পৌরসভার মধ্যে সুনামগঞ্জের দীরাই বিশ্বজিৎ রায়, মৌলভীবাজারের বড়লেখায় আবুল ইমাম কামরান চৌধুরী ও হবিগঞ্জের শায়েস্তাগঞ্জে মাসুদউজ্জামান মাসুক এবং চট্টগ্রাম বিভাগ একটি পৌরসভা নির্বাচনে দলীয় প্রার্থী দেয়া হয়েছে। সেটা হলো চট্টগ্রাম জেলার সীতাকুণ্ডে বদিউল আলমকে দলীয় মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ।

এদিকে, শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে বৈঠকে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সদস্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন দলের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য আমির হোসেন আমু ও তোফায়েল আহমেদ, সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের, প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফর উল্লাহ, লে. কর্নেল (অব) মুহাম্মদ ফারুক খান, আব্দুর রহমান এবং প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ।

উল্লেখ্য, গত ২২ নভেম্বর ২৫টি পৌরসভায় নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, মনোনয়ন ফরম দাখিলের শেষ তারিখ ১ ডিসেম্বর, মনোনয়ন বাছাই ৩ ডিসেম্বর ও প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেখ দিন ১০ ডিসেম্বর। আর ভোটগ্রহণ হবে ২৮ ডিসেম্বর।

জ্যেষ্ঠ সচিব মো. আলমগীর হোসেন জানান, প্রথম ধাপে ২৫টি পৌরসভায় ২৮ ডিসেম্বর ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। প্রথম ধাপের সবকটি পৌরসভায় ইভিএমে ভোট হবে।

সপরিবারে করোনা আক্রান্ত বরকত উল্লাহ বুলু
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান, সাবেক মন্ত্রী বরকত উল্লাহ বুলু সপরিবারে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন।

বৃহস্পতিবার করোনা ভাইরাস পরীক্ষায় বুলুসহ তার সহধর্মিণী শামীমা বরকত লাকী, বড় ছেলে ওমর শরীফ মোহাম্মদ ইমরান (সানিয়াত) ও ছোট ছেলে মাহাথির মোহাম্মদ ইরকানের ফল পজিটিভ আসে। এরপর রাতে তারা রাজধানীর গ্রীন লাইফ হাসপাতালে ভর্তি হন।

সেখানে বুলু পরিবার ইউজিসি অধ্যাপক মেডিসিন বিশেষজ্ঞ অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহর অধীনে চিকিৎসাধীন রয়েছেন। এ তথ্য জানিয়েছেন যুবদলের কেন্দ্রীয় চট্টগ্রাম বিভাগীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক মনজুরুল আজিম সুমন।

তিনি বলেন, হাসপাতালে ভর্তি হলেও বুলু পরিবারের সবাই ভালো আছেন। দেশবাসীর কাছে দোয়া চেয়েছেন বরকত উল্লাহ বুলু।

সরকারকে টেনে নামাতে গিয়ে রশি ছিঁড়ে পড়ে গেছে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, সরকারকে টেনে নামাতে গিয়ে বিএনপি রশি ছিঁড়ে পড়ে গেছে।

তিনি বলেন, “বিএনপির কয়েকজন নেতা বক্তব্য দিয়েছেন যে, এই সরকারকে টেনে নামিয়ে ফেলতে হবে। তবে, উনাদের টেনে নামানোর হুমকির মধ্যে প্রায় একযুগ ধরে বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা দেশের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করছেন। ২০০৯ সালে সরকার গঠন করার মাসখানেক পর থেকেই তারা আমাদের টেনে নামানোর চেষ্টা করে যাচ্ছেন। সরকারকে টেনে নামাতে গিয়েই রশি ছিঁড়ে নিচে পড়ে গেছে বিএনপি।”

তথ্যমন্ত্রী আজ সন্ধ্যায় জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের আয়োজনে চট্টগ্রাম জেলা আইনজীবী সমিতি অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, `দেশ যখন এগিয়ে যাচ্ছে তখন নানামুখি ষড়যন্ত্র হচ্ছে, বিএনপির মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর সাহেব যখন বলেন স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃতির কথা, তখন হাসি পায়। যারা ইতিহাসকে বছরের পর বছর, দশকের পর দশক ধরে বিকৃত করেছেন। তাদের মুখে এসব কথা শোভা পায়না।`

আজকে যখন দেশের মানুষ সঠিক ইতিহাস জানতে পারছে তখন তাদের গাত্রদাহ হচ্ছে উল্লেখ করে ড. হাছান বলেন, `তারা ইতিহাসের খল নায়ককে নায়ক বানিয়েছিলেন, স্কুলের দপ্তরিকে তারা হেড মাষ্টার বানানোর চেষ্টা করেছিলেন।` ক্রমাগতভাবে এধরণের হাস্যকর বক্তব্য না দিয়ে বরং নিজেদের দলকে গুছিয়ে, নিজেদের ঘরটাকে সংগঠিত করার পরামর্শ দেন তথ্যমন্ত্রী।

হাছান মাহমুদ বলেন, “খালেদা জিয়া বলেছিলেন, এই সরকার কখনো পদ্মা সেতু করতে পারবেনা, তাদের বলবো, পদ্মা পাড়ে গিয়ে দেখে আসুন। ঢাকা শহরে মেট্টোরেল ও চট্টগ্রামে কর্ণফুলি বঙ্গবন্ধু টানেল আগামী বছর চালু হবে। ইতিমধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে ঘোষণা করা হয়েছে চট্টগ্রামেও মেট্টোরেল প্রকল্প হাতে নেয়া হবে। এই ধারা অব্যাহত থাকলে ২০৪১ সাল নয় তার অনেক আগেই ইনশাআল্লাহ বাংলাদেশ একটি উন্নত ও সমৃদ্ধ দেশ হবে। সিঙ্গাপুর মালয়েশিয়ার মতো বদলে যাওয়ার অগ্রগতির গল্প যদি বিশ^বাসীকে জানান দিতে হয়, শেখ হাসিনাকে একটু সময় দিতে হবে। তার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে।”

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক বলেন, শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণে অদম্য গতিতে এগিয়ে চলছে। বঙ্গবন্ধুর সফলতা সেখানেই যেই পাকিস্তান সংশয় প্রকাশ করতো বাংলাদেশ রাষ্ট্র হিসেবে ঠিকবে কিনা। সেই পাকিস্তানের মানুষ শুধু নয় তাদের প্রধানমন্ত্রীও আজকে বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি দেখে আক্ষেপ করেন।

তিনি বলেন, আমরা সামাজিক অর্থনৈতিক ও মানব উন্নয়নের সমস্ত সূচকে পাকিস্তানকে অতিক্রম করেছি কয়েকবছর আগে। বাংলাদেশের মানুষের গড় আয়ু ৭৩ বছর পাকিস্তানের ৭০ বছর, বাংলাদেশের রিজার্ভ ৪১ বিলিয়ন ডলার, পাকিস্তানের রিজার্ভ আমাদের তিনভাগের এক ভাগ। বাংলাদেশের মানুষের মাথাপিছু আয় ২ হাজার ৬৪ ডলার, পাকিস্তানের ১৮`শ ডলারের নিচে। শুধু পাকিস্তানকে নয়, সামাজিক ও মানব উন্নয়ন সুচকে আমরা ভারতকে অতিক্রম করেছি অনেক আগেই। এই করোনাকালে যেখানে পৃথিবীর মাত্র ২২টি দেশ পজিটিভ ইকোনোমিক জিডিপি গ্রোথ রাখতে সক্ষম হয়েছে তারমধ্যে বাংলাদেশ অন্যতম।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের উন্নয়ন অগ্রগতি নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ও ভারত পাকিস্তানের গণমাধ্যমে ঝড় উঠছে, বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রশংসা করছে। কিন্তু একটি পক্ষ প্রশংসা করতে পারেননা। বিএনপি আর তার দোসরেরা দেখেও দেখেনা, শোনেও শোনেনা, চোখ থাকিতে তারা অন্ধ, কান থাকতেও বধির।

তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু মুজিব শুধু বাঙালির নেতা নয়, তিনি বিশ^ প্রেক্ষাপটে একজন বিশ^ নেতা ও নিপীড়িত ও শোষিত মানুষের কণ্ঠস্বর। ১৯৭১ সালে আমরা যখন স্বাধীনতা অর্জন করি, তখন সমগ্র দেশকে পুড়িয়ে ছারখার করে দিয়েছিল হানাদাররা। তারা সব ব্রীজ কালভার্ট বিধ্বস্ত করেছিল। সেই দেশকে বঙ্গবন্ধু মুজিব পুনর্গঠিত করেছিলেন। ৭৫ সালে যখন বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয় তখন বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ছিল ৭ দশমিক ৪ শতাংশ।

`অনেকে বঙ্গবন্ধুকে হত্যার অনেক কারণ উপস্থাপন করেন` উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ বলেন, পুরো ক্যানভাসটা আমাদের বিশ্লেষণ করা প্রয়োজন। বাসন্তিকে জাল জড়িয়ে কাগজের পাতায় ছবি ছাপিয়ে নানা ধরণের অপবাদ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু যারা সেই বাসন্তির ছবি তুলে কাগজের পাতায় ছাপিয়েছিল তারা তাকে কাপড় কিনে দেননি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনা ১৯৮১ সালে দেশে আসার পর সেই বাসন্তিকে দেখতে গিয়ে কাপড় কিনে দিয়েছেন এবং ঘর বানিয়ে দিয়েছেন।
হাছান মাহমুদ বলেন, বঙ্গবন্ধুর অর্জিত অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির রেকর্ড ছিল ৭ দশমিক ৪ শতাংশ। তাকে হত্যা করার ৪০ বছর পর পর্যন্ত কেউ সে রেকর্ড অতিক্রম করতে পারেনি। বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে ২০১৬-১৭ অর্থবছরে আমরা সেই রেকর্ড অতিক্রম করতে সক্ষম হয়েছি। বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা না হলে দক্ষিণ কোরিয়া, সিঙ্গাপুর ও মালয়েশিয়ার বহু আগেই বাংলাদেশের সমৃদ্ধির গল্প শুনতো পৃথিবীর মানুষ।

বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবি সমন্বয় পরিষদের সভাপতি এডভোকেট সৈয়দ মোক্তার হোসেনের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব এডভোকেট মেজবাহ উদ্দিনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে অনলাইনে সংযুক্ত হয়ে উদ্বোধনী বক্তব্য দেন বঙ্গবন্ধু আওয়ামী আইনজীবী সমন্বয় পরিষদের কেন্দ্রিয় সদস্য সচিব ও ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের মেয়র ব্যারিস্টার ফজলে নূর তাপস, কেন্দ্রিয় যুগ্ন আহবায়ক এডভোকেট ইউসুফ হোসেন হুমায়ুন, যুগ্ম আহবায়ক এডভোকেট বাসেত মজুমদার।
এছাড়াও, চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক ও সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মো. রেজাউল করিম চৌধুরী, এডভোকেট ইব্রাহীম হোসেন চৌধুরী বাবুল, রতন কুমার রায়, ইফতেখার সাইমুল চৌধুরী, আবু মো. হাশেম প্রমূখ বক্তব্য রাখেন। বাসস

দেশে এখন গণতন্ত্র নয় আওয়ামী-তন্ত্র চলছে : গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : বর্ষীয়ান সম্পাদক আবুল আসাদ, বিএফইউজের সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী, ফটো সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলসহ কারাবন্দি সাংবাদিকদের মুক্তি, সাগর-রুনিসহ সব সাংবাদিক হত্যা, নির্যাতন, নিপীড়নের বিচার দাবিতে বিএফইউজের উদ্যোগে প্রতীক পালিত হয়েছে। আওয়ামীতন্ত্র প্রতিহত না করলে গণতন্ত্র ফিরবে না। বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য প্রধান অতিথির বক্তব্যে গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বলেছেন, দেশে এখন গণতন্ত্র নয়, আওয়ামী-তন্ত্র চলছে। এই আওয়ামীতন্ত্র প্রতিহত না করতে পারলে গণতন্ত্র কখনোই ফিরে আসবে না। আজ ২৩ নভেম্বর ২০২০ সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেসক্লাবের মূল ফটকের সামনে বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন (বিএফইউজে) আয়োজিত এক প্রতীকী অনশন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে দেয়া বক্তৃতায় তিনি এসব কথা বলেন। তিনি বলেন, সাংবাদিকরা কখনো ক্ষমতার জন্য আন্দোলন করে না।তারা অন্দোলন করে মানুষের অধিকার, তাদের পেশাগত অধিকার আদায়ের জন্য। মৌলিক অধিকার আদায়ের লক্ষ্যে সরকার পরিবর্তনের জন্য তারা রাজপথে নামে।

বর্ষীয়ান সম্পাদক আবুল আসাদ, বিএফইউজে`র সাবেক সভাপতি রুহুল আমিন গাজী ও ফটো সাংবাদিক শফিকুল ইসলাম কাজলসহ কারাবন্দি সকল সাংবাদিকের মুক্তি দাবি এবং সাগর-রুনিসহ হত্যাকাণ্ডের শিকার সকল সাংবাদিকের খুনীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে অনশনের আয়োজন করা হয়।

বিএফইউজের নবনির্বাচিত সভাপতি এম আব্দুল্লাহ`র সভাপতিত্বে এবং সহকারি মহাসচিব শফিউল আলম দোলন ও ডিইউজে নেতা এইচ এম আলামিনের পরিচালনায় অনশন কর্মসূচিতে সংহতি প্রকাশ করে বক্তব্য রাখেন জাতীয় প্রেসক্লাব ও বিএফইউজে`র সাবেক সভাপতি শওকত মাহমুদ, দৈনিক নয়া দিগন্ত সম্পাদক আলমগীর মহিউদ্দিন, বিএফইউজে`র নবনির্বাচিত মহাসচিব দৈনিক এশিয়া বাণীর বার্তা সম্পাদক নূরুল আমিন রোকন, বিএফইউজে`র সাবেক মহাসচিব এমএ আজিজ, বাংলাদেশ লেবার পার্টির চেয়ারম্যান ডা. মুস্তাফিজুর রহমান ইরান, বিএনপির সহ-প্রচার সম্পাদক ও বাংলাদেশ কৃষিবিদ ইন্সস্টিটিউটের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক কৃষিবিদ শামীমুর রহমান শামীম, ডিআরইউ`র সাবেক সভাপতি ইলিয়াস হোসেইন, সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট আব্দুল আউয়াল ঠাকুর, ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়নের সাবেক সাধারণ সম্পাদক বাকের হোসেন, জাহাঙ্গির আলম প্রধান, উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক মিয়া আবদুল হান্নান, আমিরুল ইসলাম অমর, এইচ এম আল আমিন, জেসমিন জুঁই প্রমুখ। পরে বিএনপি স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায় বিএফইইজে সভাপতি এম আব্দুল্লাহ ও মহাসচিব নূরুল আমিন রোকনকে পানি পান করিয়ে অনশন ভঙ্গ করান।

ক্ষমতায় যেতে ওঁত পেতে থাকা বিএনপির জন্মগত অভ্যাস : ওবায়দুল কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ক্ষমতায়যেতে ওঁত পেতে থাকা বিএনপির জন্মগত অভ্যাস।

আজ সোমবার সকালে নোয়াখালী জেলার তাঁর নির্বাচনী এলাকার কোম্পানিগঞ্জ উপজেলায় বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প ও অসচ্ছল, ত্যাগী এবং প্রয়াত নেতাকর্মীদের পরিবারের মাঝে অনুদান বিতরন ও প্রয়াত নেতাকর্মীদের স্মরণ সভায় তিনি একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তাঁর সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

অসচ্ছল ও অসুস্থ লোক যে দলেরই হোক তাদের সাহায্য সহযোগিতা করতে দলের নেতাকর্মীদের প্রতি আহবান জানিয় আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ক্ষমতা চিরস্থায়ী নয়,তাই ক্ষমতার অপব্যবহার করবেন না। অসচ্ছল ও অসুস্থ লোকযে দলেরইহোক তাদের সব সময় সাহায্য সহযোগীতা করবেন।
তিনি বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকায় নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি অনুযায়ী ইতিমধ্যেই প্রায় সবকিছুই পূরণ করা হয়েছে, প্রতিটি ঘরে বিদ্যুৎ পৌঁছে গেছে এবং গ্যাস সরবরাহ শিগগিরই দেয়া হবে।

নোয়াখালীতে ইতিমধ্যেই সড়ক যোগাযোগ অবকাঠামো উন্নয়নে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে উল্লেখ করে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, ফেনী-চৌমুহনী-সোনাপুর চারলেন প্রকল্প চলমান রয়েছে এবংরেল যোগাযোগ আরও উন্নত করতে নেয়া হচ্ছে পরিকল্পনা। দাগনভূইয়া-বসুরহাট-কবিরহাট-সোনাপুর সড়ক প্রশস্তকরণ ছাড়াও কবিররহাট-সোনাপুর সড়কের বাঁক সরলীকরণ করা হয়েছে।
একটি দল আন্দোলন এবং নির্বাচনে একের পর এক ব্যর্থ হয়ে জনগণের উপর প্রতিশোধ নিতে আবার আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নির্লজ্জভাবে বলে তারা নাকি আগুন সন্ত্রাসে বিশ্বাসী নয়! গানপাউডার দিয়ে মানুষ পোড়ানো বিএনপির অপরাজনীতির ধারাবাহিকতা।
বিএনপিকে হুঁশিয়ার করে দিয়ে তিনি বলেন, এখনও সময় আছে আগুন নিয়ে খেলবেন না। মানুষের জীবন এবং সম্পদ ধ্বংসের রাজনীতি প্রকারান্তরে জনগণের কাছে আপনাদের রাজনীতির অপমৃত্যু ঘটতে পারে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি মুখে গণতন্ত্রের কথা বলে প্রকাশ্যে এবং গোপনে অগণতান্ত্রিক চর্চায় কোন ফল আসবে না। জনগণ আপনাদের কাছে রাজপথ লিজ দেয় নি যে দখলে নিবেন। অপদখল থেকে কিভাবে রাজপথ মুক্ত করতে হয় জনগণ তা জানে।

দলের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, রাজনীতিতে নেতারা হবেন আদর্শগত শিক্ষক, তাদের অনুসরণ করতে হবে। ভূমিদস্যু, সন্ত্রাসী, চাঁদাবাজ, নারী অবমাননাকারীর সাথে যারাই জড়িত তাদের জন্য আওয়ামী লীগে দরজা চিরকালের জন্য বন্ধ।

এসময় কোম্পানিগঞ্জ প্রান্তে বক্তব্য রাখেন কোম্পানিগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি খিজির হায়াত খান,সাধারণ সম্পাদক নূরনবী চৌধুরী, উপজেলা চেয়ারম্যান মোঃ শাহাবুদ্দিন এবং বসুরহাট পৌরসভার মেয়র আবদুল কাদের মির্জা। বাসস

স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করাই বিএনপির গণতন্ত্র
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করাই হচ্ছে বিএনপির গণতন্ত্র।

রোববার (২২ নভেম্বর) সকালে কক্সবাজার জেলার বাংলাদেশ নৌবাহিনী শেখ হাসিনা ঘাঁটি সংযোগ সড়কের নির্মাণ প্রকল্পের সূচনা উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন।

ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

সম্প্রতি বাসে আগুন দেয়ার পর বিএনপি আবার ফিরে গেছে জ্বালাও পোড়াও রাজনীতিতে উল্লেখ করে ওবায়দুল কাদের বলেন, অপরাজনীতির জন্য জনগণ তাদের আন্দোলনে সাড়া না দেওয়ায় তারা আবার প্রতিশোধ নিতে আগুন সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে।

তিনি হুঁশিয়ার করে দিয়ে বলেন, শান্তিপূর্ণ রাজনৈতিক কর্মসূচি পালনের অধিকার সকল দলের রয়েছে, কিন্তু কর্মসূচির নামে জনগণের শান্তি ও স্বস্তি বিনষ্টের কোন অপচেষ্টা করলে সমুচিত জবাব দিবে সরকার।

বিএনপি অস্বীকার করলেও ভিডিও চিত্রে সব প্রকাশিত হয়েছে জানিয়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, মুখচ্ছবি কখনো মুখোশ দিয়ে ঢাকা যায় না, কথামালার চাতুরী দিয়ে সব ভুলিয়ে রাখা যায় না।

ওবায়দুল কাদের মন্তব্য করে বলেন, বিএনপি যে কোন নির্বাচনে পরাজিত হলেই দোষ চাপায় সরকারের ও নির্বাচন কমিশনের উপর, আর জয়ী হলে বলে সরকার হস্তক্ষেপ না করলে আরো বেশি ভোটে জিততে পারতো।

তিনি গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করতে বিএনপির যে দলগত ভূমিকা জনগণ প্রত্যাশা করে, তা থেকে তারা অনেক দূরে অবস্থান করে বলেও জানান।

প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয় : ওবায়দুল কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয়, আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিশোধের রাজনীতি করে না।

আজ শনিবার সকালে মিরপুর-নারায়ণগঞ্জ রুটে বিআরটিসি`র দোতলা বাস সার্ভিসের উদ্বোধনকালে তিনি একথা বলেন। ওবায়দুল কাদের তার সরকারি বাসভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে অনুষ্ঠানে যুক্ত হন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, `আওয়ামী লীগ এদেশের সবচেয়ে সহিষ্ণু রাজনৈতিক দল। আওয়ামী লীগ ৭৫ এর ১৫ আগস্টের নির্মমতা দেখেছে, দেখেছে ৩ নভেম্বরের অমানবিকতা, গ্রেনেড হামলাসহ ২০ বারের মতো শেখ হাসিনাকে হত্যার অপপ্রয়াস চালাতেও দেখেছে। আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিশোধের রাজনীতি করে না। প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয়।`
তিনি বলেন, গণতন্ত্র একটি বিকাশমান প্রক্রিয়া, সকল রাজনৈতিক দলের অংশগ্রহণ এবং পরিচর্যায় গণতন্ত্র বিকশিত হয়। কিন্তু দুঃখজনকভাবে বিএনপি গণতন্ত্রের কথা বললেও গণতন্ত্রকে এগিয়ে নিতে যে ভূমিকা দরকার তা থেকে তারা অনেক দূরে অবস্থান করে।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপি নির্বাচনে অংশ নেয় নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করতে। বিএনপি একদিকে গণতন্ত্রের কথা বলে অপরদিকে নির্বাচন প্রক্রিয়াকে প্রশ্নবিদ্ধ করার অপপ্রয়াস চালায়।
তিনি বলেন, এদেশের রাজনীতিতে সন্ত্রাসনির্ভরতা, ষড়যন্ত্র আর হত্যার জনক বিএনপি, তারা সেটাই চর্চা করে চলেছে। আওয়ামী লীগ জনগণের সংগঠন বলেই জনগণের সাথে ছিলো, আছে এবং থাকবে।
সমালোচনা রুখতে না কি সরকার বিরোধীদের গুম করছে, বিএনপি নেতাদের এমন অভিযোগের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, এটা তাদের চিরাচরিত মিথ্যাচার। সমালোচনা করলে গুম করা হয় এমন কোন তথ্য কি বিএনপির কাছে আছে? এ ধরনের মিথ্যা তথ্য উপস্থাপন পরিহার করুন।
আওয়ামী লীগ সমালোচনাকে ভয় পায় না জানিয়ে তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ গঠনমূলক সমালোচনাথেকে শিক্ষা নেয়ার সৎসাহস রাখে।
এ সময়ে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের সুস্বাস্থ্য ও রোগমুক্তি কামনা করেন।

অদক্ষ গাড়ি চালক যেন কোনভাবেই গাড়ির ড্রাইভিং সিটে না বসতে পারে সে বিষয়ে সংশ্লিষ্টদের নির্দেশ দিয়ে সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী বলেন, বাসের চালকসহ সব স্টাফদের বাধ্যতামূলক নির্ধারিত ড্রেস পরিধান করতে হবে। অদক্ষ চালকরা যেন গাড়ির সিটে বসতে না পারে, সে ব্যাপারে সবাই শতর্ক থাকবেন। বাসস

হাজী মোঃ সেলিম ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামিলীগের কমিটিতে
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ৭৩ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।বৃহস্পতিবার ১৯ (নভেম্বর) ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন কবির স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।এই কমিটিতে ২৭ জনকে উপদেষ্টা করা হয়েছে, যার মধ্যে রয়েছেন আলোচিত-সমালোচিত ঢাকা-৭ আসনের সংসদ সদস্য হাজী সেলিম। এর আগের কমিটিতে তিনি সদস্য হিসেবে ছিলেন। তারও আগে অবিভক্ত ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগের কমিটিতে যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ছিলেন তিনি। এই কমিটিতে ২৭ জনকে উপদেষ্টা করা হয়েছে। এ ছাড়া খন্দকার এনায়েত উল্ল্যাহসহ ১১ জনকে সহসভাপতি করা হয়েছে।যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক পদে আছেন- মোরশেদ হোসেন কামাল, মো. মিরাজ হোসেন ও মহিউদ্দিন আহমেদ মহি।অন্যান্য সম্পাদকীয় পদের মধ্যে আইনবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট জগলুল কবির, কৃষি ও সমবায়বিষয়ক সম্পাদক আবদুর রহমান, তথ্য ও গবেষণাবিষয়ক সম্পাদক আনিস আহম্মেদ, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক শেখ মো. আজহার, দফতর সম্পাদক রিয়াজউদ্দিন রিয়াজ, ধর্মবিষয়ক সম্পাদক মো. ইসমাইল হোসেন, প্রচার ও প্রকাশনাবিষয়ক সম্পাদক চৌধুরী সাইফুন্নবী সাগর, বন ও পরিবেশবিষয়ক সম্পাদক নাঈম নোমান, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক সম্পাদক এফ এম শরিফুল ইসলাম, মহিলাবিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট তাহমিনা সুলতানা, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক সম্পাদক মোজাম্মেল হোসেন হেলাল, যুব ও ক্রীড়াবিষয়ক সম্পাদক সাইদুল ইসলাম খান পল, শিক্ষা ও মানবসম্পদ বিষয়ক সম্পাদক এস কে বাদল, শিল্প ও বাণিজ্যবিষয়ক সম্পাদক মো. নাসির, শ্রমবিষয়ক সম্পাদক আবুল কালাম আজাদ, সাংষ্কৃতিকবিষয়ক সম্পাদক আবদুল মতিন ভুইয়া, স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যাবিষয়ক সম্পাদক হয়েছেন ডা. নজরুল ইসলাম।সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পেয়েছেন গোলাম আশরাফ তালুকদার, মো. আকতার হোসেন ও গোলাম সরোয়ার কবির।ফজলে নূর তাপস ও শাহ আলম মুরাদসহ ৩৬ জনকে কমিটিতে সদস্য হিসেবে রাখা হয়েছে।সম্প্রতি হাজী সেলিমের ছেলে ইরফান সেলিমের সহযোগীরা রাস্তায় নৌবাহিনীর একজন কর্মকর্তাকে মারধর করার পর ব্যাপক আলোচনা হয়। ২৫ অক্টোবর রাতের ওই ঘটনার পর দিন পুরান ঢাকার সোয়ারিঘাটে হাজী সেলিমের বাসায় অভিযান চালিয়ে মদ্যপান ও অবৈধভাবে ওয়াকিটকি রাখায় তার ছেলে ইরফান সেলিমকে দেড় বছরের কারাদণ্ড দেয় র‌্যাবের ভ্রাম্যমাণ আদালত।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের ৭৩ সদস্যবিশিষ্ট পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু আহমেদ মন্নাফী ও সাধারণ সম্পাদক হুমায়ূন কবির স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা করা হয়।

ঢাকা মহানগর দক্ষিণের ৩৬ জন আওয়ামী লীগ নেতা এ কমিটিতে স্থান পেয়েছেন। এ ছাড়া ১৬ জনকে উপদেষ্টা করা হয়েছে।

কমিটিতে সহ-সভাপতি হিসেবে আছেন- নুরুল আমিন রুহুল এমপি, ডা. দিলীপ কুমার রায়, শহীদ সেরনিয়াবাত, হাজী মো. সাহিদ, খন্দকার এনায়েত উল্ল্যাহ, মিজবাউর রহমান ভূইয়া রতন, আবদুস সাত্তার মাসুদ, সাজেদা বেগম, আওলাদ হোসেন, শরফুদ্দিন আহমেদ সেন্টু, হেদায়েতুল ইসলাম স্বপন।

এর আগে বুধবার (১৮ নভেম্বর) ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির অনুমোদন দেয় কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগ।

ঢাকা মহানগর উত্তর আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন
                                  

অনলাইন ডেস্ক : ঢাকা মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন দেয়া হয়েছে।

বুধবার (১৮ নভেম্বর) রাতে ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে উত্তর আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ বজলুর রহমান ও সাধারণ সম্পাদক এসএম মান্নান কচির হাতে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হস্তান্তর করেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এ সময় মহানগর উত্তর আওয়ামী লীগের ১৬ সদস্যবিশিষ্ট উপদেষ্টা পরিষদের অনুমোদন দেওয়া হয়। এ ছাড়া শেখ বজলুর রহমান ও এস এম মান্নান কচির নেতৃত্বে ৭৫ সদস্যের কমিটি অনুমোদন দেওয়া হয়।

কমিটিতে সহ-সভাপতি হিসেবে আছেন- আসাদুজ্জামান খান কামাল এমপি, সাদেক খান এমপি, আসলামুল হক এমপি, আবদুল কাদের খান, নাজিম উদ্দিন, জাহানারা বেগম, ওয়াকিল উদ্দিন, মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ, আনোয়ার হোসেন মজুমদার, হাজী মো. বশির আহম্মেদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল কাশেম খান। সূত্র: সময় সংবাদ

রাজধানীতে বাস পুড়ানো মামলায় গয়েশ্বরসহ শতাধিক নেতা-কর্মীদের আগাম জামিন
                                  

মিয়া আবদুল হান্নান : বাসে আগুনের ঘটনায় রাজধানীর বিভিন্ন থানায় দায়ের করা মামলায় আগাম জামিন পেয়েছে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য গয়েশ্বর চন্দ্র রায়সহ দলের শতাধিক নেতা-কর্মী। বুধবার (১৮ নভেম্বর) হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি হাবিবুল গনি ও বিচারপতি মো. রিয়াজ উদ্দিন খানের সমন্বয়ে গঠিত দ্বৈত বেঞ্চ আগামী ৫ জানুয়ারি পর্যন্ত আগাম জামিনের এই আদেশ দেন। একই সঙ্গে আগাম জামিনের মেয়াদ শেষ হলে নেতা-কর্মীদের নিম্ন আদালতে আত্মসমর্পণ করারও নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।পুলিশের তথ্য অনুযায়ী, গত ১২ নভেম্বর ২০২০ বৃহস্পতিবার দুপুরের পর থেকে রাত সাড়ে আটটা পর্যন্ত রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় মোট ১১টি বাস পোড়ানো হয়।

এসব ঘটনায় বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতা-কর্মীদের দায়ী করে রাজধানীর বিভিন্ন থানায় ১০টির বেশি মামলা হয়। এসব মামলায় বিএনপির কয়েক শ নেতা-কর্মীকে আসামি করা হয়।গত ১৬ নভেম্বর রোববার বিএনপির আইন সম্পাদক কায়সার কামাল জানান, ১৪টি মামলায় বিএনপির ১৪০ জন নেতা-কর্মী হাইকোর্টে আগাম জামিনের আবেদন করেছেন। এর ধারাবাহিকতায় আজ পৃথক জামিন আবেদনগুলো হাইকোর্টে শুনানির জন্য ওঠে।বিএনপির নেতা-কর্মীরা আদালতে হাজির হয়ে আইনজীবীর মাধ্যমে জামিন চান। আদালতে জামিন আবেদনকারীদের পক্ষে শুনানিতে অংশ নেন আইনজীবী নিতাই রায় চৌধুরী, শাহজাহান ওমর, সালাউদ্দিন দোলন, রুহুল কুদ্দুস, মজিবুর রহমান ও কাজী মো. জয়নাল আবেদিন। বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেনসহ, ছাত্রদল, যুবদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের শতাধিক নেতাকর্মীর জামিন হয় এ দিন। জামিন নিয়ে বিএনপি নেতা ইশরাক হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, মামলা হামলা দিয়ে কাজ হবে না। আমাদের আন্দোলন দমাতে পারবে না। তবে জামিন আদেশের বিরুদ্ধে আপিল করা হবে কিনা সে ব্যাপারে পরে সিদ্ধান্ত হবে বলে জানিয়েছেন রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী। রাষ্ট্রপক্ষে শুনানিতে অংশ নেন সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মাহফুজুর রহমান।

* * পুলিশের ১৩ মামলায় আসামি বেড়ে ৫ শতাধিকে দাড়িয়েছে।
রাজধানীতে বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনায় বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইশরাক হোসেনসহ ৫ শতাধিক ব্যক্তিকে আসামি করে ১৩টি মামলা করেছে পুলিশ। মামলাগুলোতে গ্রেফতার হওয়া ৪১ জনের মধ্যে ৩২ জনকে রিমান্ড করেছেন আদালত। ডিএমপি সূত্রে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীজুড়ে নাশকতার ঘটনায় ভাড়াটে অপরাধীরা অংশ নেয়। তাদের উদ্দেশ্য ছিল, জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টি করা।ডিএমপি জানিয়েছে, ঘটনাস্থলের ও আশপাশের সিসিটিভি ফুটেজ দেখে নাশকতাকারীদের শনাক্তের চেষ্টা করা হচ্ছে। বৃহস্পতিবার (১২ নভেম্বর) রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় ১০টি বাস পোড়ানোর ঘটনায় জড়িতদের ধরতে বেশির ভাগকে এরই মধ্যে শনাক্ত করা হয়েছে বলে দাবি পুলিশের।বাস পোড়ানোর ঘটনায় রাজধানীর পল্টন থানায় সর্বোচ্চ ৯ জনসহ ৮ থানায় মোট ২৫ জনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। এর মধ্যে ৪১ জনকে আদালতে তুলে ৭ দিন করে রিমান্ড চাইলে বিচারক ৩২ জনের বিভিন্ন মেয়াদে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী বিএনপি, যুবদল, ছাত্রদল ও স্বেচ্ছাসেবক দলের ৫১৭ জনকে আসামি করে ৮ থানায় ১১টি মামলা করেছে পুলিশ। শাহবাগ ও মতিঝিল থানার ৬ মামলায় আসামি করা হয়েছে বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, ইশরাক হোসেন, যুবদল সাধারণ সম্পাদক টুকু এবং ছাত্রদলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকসহ ২৩৪ জনকে। একটি মামলায় সর্বোচ্চ ৯৫ জনকে আসামি করেছে ভাটারা থানা।ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া অ্যান্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগে পরিচালক উপপুলিশ কমিশনার ওয়ালিদ হোসেন সময় সংবাদকে বলেন, নাশকতায় ভাড়াটে অপরাধীরা অংশ নেয়। জনমনে আতঙ্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যেই বাস পোড়ানো হয়। রাজনৈতিক পরিচয়ধারী অনেক আসামি রয়েছেন যারা আগেও এ ধরনের ঘটনা ঘটিয়েছে। বৃহস্পতিবারের ঘটনার পর রাজধানীজুড়ে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

অপরাজনীতি না ছাড়লে বিএনপি নিজেদের আগুনেই পুড়ে নিঃশেষ হবে : তথ্যমন্ত্রী
                                  

অনলাইন ডেস্ক : তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, অপরাজনীতি থেকে বেরিয়ে এলেই বিএনপির রাজনীতি টিকবে, অন্যথায় বিএনপি নিজেদের আগুনে পুড়ে নি:শেষ হয়ে যাবে ।

তিনি আজ দুপুরে ঢাকায় জাতীয় প্রেসক্লাবে মজলুম জননেতা মওলানা আবদুল হামিদ খান ভাসানীর ৪৪তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি (ন্যাপ) ভাসানী আয়োজিত অনুষ্ঠানে সরকারি বাসভবন থেকে অনলাইনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় একথা বলেন।

বিএনপি নেতৃবৃন্দের সাম্প্রতিক বক্তব্য প্রসঙ্গে তথ্যমন্ত্রী বলেন, `মির্জা ফখরুল এবং তাদের নেতারা নানা কথা বলছেন। ২০১৩-১৪-১৫ সালে তারা যেভাবে আগুন দিয়ে মানুষ পোড়ানোর খেলায় মেতেছিল, এখনও যদি আগুন নিয়ে খেলে, তারাই সে আগুনে জ্বলে পুড়ে নিঃশেষ হয়ে যাবে।`

`বিএনপির অস্তিত্ব জানান দেয়ার জন্য, রাজনীতিতে টিকে থাকার জন্য কি বাস পোড়াতে হবে` প্রশ্ন রেখে ড. হাছান বলেন, `অনেকে যখন প্রশ্ন করছে- বিএনপি আজকে মাথা তুলে দাঁড়াতে পারছে কি না, তখন আমি বলবো, বিএনপি দাঁড়িয়ে আছে, তবে পা এবং হাঁটু খুব নড়বড়ে। আমরা দেশে শক্তিশালী বিরোধী দল চাই। আমরা আশা করবো, বিএনপি হাঁটুকাঁপুনি ছাড়া দাঁড়াতে পারবে এবং তারা এই অপরাজনীতি থেকে বেরিয়ে আসবে। তাহলেই বিএনপির রাজনীতি টিকবে, অন্যথায় তারা নিজেদের আগুনেই পুড়ে নি:শেষ হয়ে যাবে।`

তথ্যমন্ত্রী বলেন, `আজকে বিএনপি করোনাভাইরাসে উদ্বিগ্ন মানুষের পাশে না দাঁড়িয়ে বরং বাসে আগুন দিচ্ছে, অতীতের মতো মানুষ পোড়ানোর নোংরা খেলায় মেতেছে এবং এটি করার পর এমনভাবে অস্বীকার করছে, অবলীলায় মিথ্যা বলছে, যে আমাকে আবারও বলতে হচ্ছে, মিথ্যা বলায় পুরস্কার থাকলে বিএনপিনেতারা প্রথম পুরস্কার পেতেন। এটি দিবালোকের মতো স্পষ্ট, তারা এখন এই ঘটনা ঘটিয়েছে, অতীতেও ঘটিয়েছে।`

`আজকে বিএনপি`র বড় বড় নেতাদের অনেকেই মওলানা ভাসানীর অনুসারী ছিলেন, যারা সবাই ক্ষমতার লোভে জিয়াউর রহমানের বিতরণকৃত ক্ষমতার উচ্ছিষ্ট নিতে মওলানা ভাসানীর আদর্শচ্যুত হয়ে বিএনপিতে যোগদান করেছিলেন` উল্লেখ করেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক। `দলছুট, রাজনীতির হাটে বিক্রি হওয়া, আদর্শচ্যুত রাজনীতিবিদরা আসলে কোনো দলকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারেনা, সেটিই আজকে আমরা দেখতে পাচ্ছি` বলেন ড. হাছান।

এসময় বিএনপি`র ভাইস প্রেসিডেন্ট মেজর হাফিজের `ভোটের মাধ্যমে নয়, গণঅভ্যুত্থানে সরকারপতন ঘটাতে হবে` বক্তব্য প্রসঙ্গে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, `প্রথমত: বিএনপি তো ভোটের রাজনীতিতে বিশ্বাস করেনা। এবং দ্বিতীয়ত: রাজপথে গণঅভ্যুত্থানের মাধ্যমে সরকারের পতন ঘটানো হবে, এই কথা গত প্রায় ১২ বছর ধরে তারা বলে আসছে। তারা আসলে ভোটে যেমন বিশ্বাস করেনা, রাজপথে আন্দোলনের মাধ্যমে কখনো যে সরকারের পতন হবেনা, সেটিও তারা বোঝে। আসলে তারা অতীতে যেমন ষড়যন্ত্রের পথ বেছে নিয়েছিল, এখনও নানা ষড়যন্ত্র আঁটছে, ষড়যন্ত্র নিয়েই ব্যস্ত আছে।`

মওলানা ভাসানীর প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানিয়ে ড. হাছান বলেন, `তিনি কখনো ক্ষমতার জন্য রাজনীতি করেননি, ক্ষমতার সাথে আপোষ করেননি। মুসলিম লীগের ড্রইংরুমকেন্দ্রিক রাজনীতিকে জনগণের কাতারে আনার জন্য মজলুম জননেতা মওলানা ভাসানীর নেতৃত্বে প্রথমে আওয়ামী মুসলিম লীগ ও পরবর্তীতে অসাম্প্রদায়িক চেতনাকে সমুন্নত করতে গঠিত আওয়ামী লীগের নেতৃত্বেই বাংলাদেশে স্বাধিকার আদায়ের আন্দোলন হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে স্বাধীনতা সংগ্রাম-মুক্তিযুদ্ধে বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। সুতরাং এদেশের রাজনীতির ইতিহাসে জাতীয় নেতা মওলানা ভাসানীর নাম স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ থাকবে।`

ন্যাপ ভাসানী চেয়ারম্যান এম এ ভাসানীর সভাপতিত্বে সভায় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব এডভোকেট নূরুল আমীন রুহুল, মুক্তিযোদ্ধা সমন্বয় পরিষদের ভাইস প্রেসিডেন্ট বীর মুক্তিযোদ্ধা আকরাম হোসেন, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম, এডভোকেট বলরাম পোদ্দার, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের সভাপতি লায়ন মো. গণি মিয়া বাবুল, আওয়ামী স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মো. আজগর আলী প্রমুখ আলোচনায় অংশ নেন। বাসস


   Page 1 of 77
     রাজনীতি
ভাস্কর্যকে মূর্তির সাথে তুলনা বিভ্রান্তি-উস্কানির অপচেষ্টা মাত্র : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
২৩ পৌরসভায় বিএনপির মনোনয়ন পেলেন যারা
.............................................................................................
`মাই ম্যান` দিয়ে কমিটি গঠন করা যাবে না : কাদের
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য স্থাপন নিয়ে ধর্মীয় সাম্প্রদায়িক গোষ্ঠী বিতর্কের সৃষ্টি করছে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
২৫ পৌরসভায় আ. লীগের মনোনয়ন পেলেন যারা
.............................................................................................
সপরিবারে করোনা আক্রান্ত বরকত উল্লাহ বুলু
.............................................................................................
সরকারকে টেনে নামাতে গিয়ে রশি ছিঁড়ে পড়ে গেছে বিএনপি : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
দেশে এখন গণতন্ত্র নয় আওয়ামী-তন্ত্র চলছে : গয়েশ্বর চন্দ্র রায়
.............................................................................................
ক্ষমতায় যেতে ওঁত পেতে থাকা বিএনপির জন্মগত অভ্যাস : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
স্বাধীনতার ইতিহাস বিকৃত করাই বিএনপির গণতন্ত্র
.............................................................................................
প্রতিশোধের রাজনীতি গণতন্ত্রের জন্য সুখকর নয় : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
হাজী মোঃ সেলিম ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামিলীগের কমিটিতে
.............................................................................................
ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন
.............................................................................................
ঢাকা মহানগর উত্তর আ.লীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি অনুমোদন
.............................................................................................
রাজধানীতে বাস পুড়ানো মামলায় গয়েশ্বরসহ শতাধিক নেতা-কর্মীদের আগাম জামিন
.............................................................................................
অপরাজনীতি না ছাড়লে বিএনপি নিজেদের আগুনেই পুড়ে নিঃশেষ হবে : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
বাংলাদেশ ফেডারেল সাংবাদিক ইউনিয়ন নির্বাচনে এম আবদুল্লাহ সভাপতি, নুরুল আমিন রোকন মহাসচিব নির্বাচিত হয়েছেন
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে যুবলীগের নব গঠিত কমিটির শ্রদ্ধা
.............................................................................................
যুবলীগের কমিটিতে নতুন মুখ যারা
.............................................................................................
যুবলীগের নতুন দায়িত্ব পেলেন নিক্সন চৌধুরী
.............................................................................................
যুবলীগের প্রেসিডিয়াম সদস্য হলেন মাশরাফি
.............................................................................................
বিএনপি মানুষ পুড়িয়ে প্রতিশোধ নিতে চাচ্ছে: কাদের
.............................................................................................
রাজধানীতে বাসে আগুন মামলায় ইশরাকসহ আসামী চার শতাধিক
.............................................................................................
যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি ঘোষণা শনিবার
.............................................................................................
আগুন দেওয়ার এই ন্যক্কারজনক ঘটনা পূর্বপরিকল্পিত ও উদ্দেশ্যমূলক : মির্জা ফখরুল ইসলাম
.............................................................................................
বিরোধিতাই বিএনপির একমাত্র রাজনৈতিক কৌশল : সেতুমন্ত্রী
.............................................................................................
গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় বিএনপিই বড় প্রধান বাধা: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বি এন পি এখন লাইফ সাপোর্টে : ড. হাছান মাহমুদ
.............................................................................................
নিজের লোক দিয়ে কমিটি করা যাবে না: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিএনপি অবিরাম অভিযোগের তীর ছুড়ে যাচ্ছে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিএনপির দৃষ্টি ঘন কুয়াশায় আচ্ছন্ন: কাদের
.............................................................................................
ওবায়দুল কাদের নাটকে চমৎকার অভিনয় করতেন, আমিও নাটক করতাম : মির্জা ফখরুল ইসলাম
.............................................................................................
করোনা আক্রান্ত মির্জা আব্বাস দম্পতি
.............................................................................................
১৫ আগস্ট ৩ নভেম্বর দুই হত্যাকাণ্ডেই জিয়া জড়িত
.............................................................................................
খোকার প্রথম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ৮ দিনব্যাপী কর্মসূচি শুরু
.............................................................................................
হাসপাতাল থেকে বাসায় ফিরলেন রিজভী
.............................................................................................
বাংলাদেশ সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির এক অনন্য উদাহরণ : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
আন্দোলনের নামে বিএনপি`র কেবল তর্জন-গর্জনই সার : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বিএনপির নেতৃত্বের ওপর দলের কর্মীরা আস্থা হারিয়ে ফেলেছে: ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
জনগণকে বুঝতে না পারাই বিএনপির ব্যর্থতা: কাদের
.............................................................................................
শ্রমিক লীগের কেন্দ্রীয় পূর্ণাঙ্গ কমিটির ৩৩ জনের নাম ঘোষণা
.............................................................................................
ঢাকা-১৮ উপনির্বাচন বিনা চ্যালেঞ্জে ছেড়ে দেওয়া হবে না: আলহাজ আমান উল্লাহ আমান
.............................................................................................
ঢাকা-৫ উপনির্বাচনে বিপুল ভোটে আ’লীগ প্রার্থী জয়ী
.............................................................................................
যুক্তরাষ্ট্র, ভারত ও চীন সবাই বাংলাদেশের পাশে থাকতে চায়: নৌ পরিবহন প্রতিমন্ত্রী
.............................................................................................
রিজভীর শারীরিক অবস্থার উন্নতি
.............................................................................................
বিএনপির হাত ধরেই দেশে বিচারহীনতার সংস্কৃতি চালু: কাদের
.............................................................................................
লহাজ আমান উল্লাহ আমান বিএনপি`র নির্বাচন পরিচালনা কমিটির প্রধান
.............................................................................................
হঠাৎ অসুস্থ রিজভী
.............................................................................................
ফখরুলের বাসায় হামলার ঘটনায় ১২ নেতাকর্মী বহিষ্কার
.............................................................................................
১০ অক্টোবর শহীদ নাজির উদ্দিন জেহাদ দিবস পালিত হয়েছে
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamic Solution IT & Dynamic Scale BD