| বাংলার জন্য ক্লিক করুন
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
শিরোনাম : * বাসচাপায় দুই মোটরসাইকেল আরোহী নিহত   * সৌদির তেলক্ষেত্রে আবারও হামলার হুমকি   * রোহিঙ্গাদের এনআইডি : ইসি কর্মচারীসহ পাঁচজনের বিরুদ্ধে মামলা   * অভিযোগ প্রমাণিত হলে জাবি ভিসির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা : কাদের   * ১৩২ বস্তা সরকারি চালসহ গুদাম মালিক আটক   * মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় ইউপি সদস্য নিহত   * নানাবাড়িতে বেড়াতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার শিশু   * পাকুন্দিয়ায় ২৫ বছর ধরে শিকলবন্দি রতন   * রিফাতকে একাই হাসপাতালে নিয়েছিলেন মিন্নি, নতুন ভিডিও প্রকাশ   * মালয়েশিয়ায় ধরপাকড় আতঙ্কে প্রবাসী বাংলাদেশিরা  

   রাজনীতি -
                                                                                                                                                                                                                                                                                                                                 
প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে : কাদের

অনলাইন ডেস্ক : দুর্নীতি ও অপকর্মপ্রতিরোধে প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের বিষয়টা একটি নজিরবিহীন ঘটনা ঘটল। ইতিহাসে যা ঘটেনি। গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে বলা হয়েছে রিপোর্ট নেয়ার জন্য, কোথাও কোনো অপকর্ম হলে যথাযথ তথ্য দিতে। ভবিষ্যতে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।
ওবায়দুল কাদের আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, অনিয়ম-দূর্নীতির সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। সরকার দূর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। আমাদের দলের কেউ যদি অন্যায় করে তাহলে তাকেও ছাড় দেওয়া হবে না। অপকর্ম করলে সবাইকে শাস্তি পেতে হবে।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এই প্রথম শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে নজিরবিহীন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হলো। তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং বাধ্যতামূলক পদত্যাগ করানো হয়েছে। বাংলাদেশের অন্য কোন ছাত্র সংগঠনে এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহনের নজির নেই।
আগামী ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আপনিসহ আরও কয়েকজনের নামও আসছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের পার্টির সভাপতি শেখ হাসিনা। আমাদের পার্টিতে বারে বারে যেটা হয় দলের কাউন্সিলরা সব সময় নেতৃত্ব নির্বাচনে নেত্রীর মাইন্ড সেটের উপর সবকিছু ছেড়ে দেয়। জেনারেল সেক্রেটারি পদটি পার্টি প্রধানের নির্দেশনায় চলে। এখানে প্রার্থী হওয়ার অধিকার সবার আছে।’

তিনি বলেন, নেত্রীর ইচ্ছার বাইরে আসলে কিছু হয় না। নেত্রী জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে যাকেই চয়েজ করেন আওয়ামী লীগের কর্মী-কাউন্সিলররা তার প্রতি সবাই ঝুঁকে পড়ে। আরেকবার আমি থাকব কিনা এটা নির্ভর করে নেত্রীর উপর। তিনি নতুন কিছুও ভাবতে পারেন। নতুন মুখও চাইতে পারেন। তিনি যদি বলেন থাকতে, থাকব। তিনি যদি বলেন দায়িত্বের পরিবর্তন হবে, আমার কোনো আপত্তি নেই।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভিসির পদত্যাগ কী কারণে, নৈতিক স্খলন। তিনি যদি কোনো অন্যায় করে থাকেন, এখানে যদি তার কোনো অপকর্মে সংশ্লিষ্টতা থাকে, তদন্তে যদি এটা প্রমাণিত হয় তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনিও তো আইনের ঊর্ধ্বে নন।’
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইমলাম আলমগীরের জাবি ভিসির পদত্যাগ দাবির বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুলতো সবার পদত্যাগ দাবি করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করেছেন। তিনি নিজেই নিজের পদত্যাগ দাবি করেছেন। তিনি নির্বাচনে জিতেও পদত্যাগ করেছেন। আবার কথা রাখতে পারেননি, ওই শূন্য জায়গায় নিজেই আরেকজনকে মনোনয়ন দিয়ে নির্বাচিত করে সংসদে পাঠিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সাধালণ সম্পাদক বলেন, এই দ্বিচারিতায় তাদের যে ভালো ভালো কথার দাম নেই। তারা নিজেরা বলে একটা, করে আরেকটা। তারা নিজেরাই গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। নিজের দলের যখন গণতন্ত্রের সংকট তারা দেশের গণতন্ত্র নিয়ে যখন কথা বলে তখন সাধারণ মানুষ বিষয়টিকে হাস্যকরই মনে করবে। বাসস

প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে : কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : দুর্নীতি ও অপকর্মপ্রতিরোধে প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।

তিনি বলেন, ‘ছাত্রলীগের বিষয়টা একটি নজিরবিহীন ঘটনা ঘটল। ইতিহাসে যা ঘটেনি। গোয়েন্দা সংস্থাগুলোকে বলা হয়েছে রিপোর্ট নেয়ার জন্য, কোথাও কোনো অপকর্ম হলে যথাযথ তথ্য দিতে। ভবিষ্যতে তাদের দেয়া তথ্যের ভিত্তিতে প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে। কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।
ওবায়দুল কাদের আজ মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভা কক্ষে সমসাময়িক ইস্যুতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, অনিয়ম-দূর্নীতির সাথে যারা জড়িত তাদের বিরুদ্ধে সরকার ব্যবস্থা নিচ্ছে। সরকার দূর্নীতির বিরুদ্ধে জিরো টলারেন্স নীতি গ্রহণ করেছে। আমাদের দলের কেউ যদি অন্যায় করে তাহলে তাকেও ছাড় দেওয়া হবে না। অপকর্ম করলে সবাইকে শাস্তি পেতে হবে।’

তিনি বলেন, বাংলাদেশে এই প্রথম শৃঙ্খলা ভঙ্গের অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিরুদ্ধে নজিরবিহীন শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়া হলো। তাদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে এবং বাধ্যতামূলক পদত্যাগ করানো হয়েছে। বাংলাদেশের অন্য কোন ছাত্র সংগঠনে এ ধরনের ব্যবস্থা গ্রহনের নজির নেই।
আগামী ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন, সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আপনিসহ আরও কয়েকজনের নামও আসছে- এ বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘আমাদের পার্টির সভাপতি শেখ হাসিনা। আমাদের পার্টিতে বারে বারে যেটা হয় দলের কাউন্সিলরা সব সময় নেতৃত্ব নির্বাচনে নেত্রীর মাইন্ড সেটের উপর সবকিছু ছেড়ে দেয়। জেনারেল সেক্রেটারি পদটি পার্টি প্রধানের নির্দেশনায় চলে। এখানে প্রার্থী হওয়ার অধিকার সবার আছে।’

তিনি বলেন, নেত্রীর ইচ্ছার বাইরে আসলে কিছু হয় না। নেত্রী জেনারেল সেক্রেটারি হিসেবে যাকেই চয়েজ করেন আওয়ামী লীগের কর্মী-কাউন্সিলররা তার প্রতি সবাই ঝুঁকে পড়ে। আরেকবার আমি থাকব কিনা এটা নির্ভর করে নেত্রীর উপর। তিনি নতুন কিছুও ভাবতে পারেন। নতুন মুখও চাইতে পারেন। তিনি যদি বলেন থাকতে, থাকব। তিনি যদি বলেন দায়িত্বের পরিবর্তন হবে, আমার কোনো আপত্তি নেই।

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের (জাবি) উপাচার্য অধ্যাপক ফারজানা ইসলামের দুর্নীতির অভিযোগ তদন্তে দোষী প্রমাণিত হলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে জানিয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভিসির পদত্যাগ কী কারণে, নৈতিক স্খলন। তিনি যদি কোনো অন্যায় করে থাকেন, এখানে যদি তার কোনো অপকর্মে সংশ্লিষ্টতা থাকে, তদন্তে যদি এটা প্রমাণিত হয় তাহলে অবশ্যই তার বিরুদ্ধেও ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনিও তো আইনের ঊর্ধ্বে নন।’
বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইমলাম আলমগীরের জাবি ভিসির পদত্যাগ দাবির বিষয়ে ওবায়দুল কাদের বলেন, মির্জা ফখরুলতো সবার পদত্যাগ দাবি করছেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর পদত্যাগও দাবি করেছেন। তিনি নিজেই নিজের পদত্যাগ দাবি করেছেন। তিনি নির্বাচনে জিতেও পদত্যাগ করেছেন। আবার কথা রাখতে পারেননি, ওই শূন্য জায়গায় নিজেই আরেকজনকে মনোনয়ন দিয়ে নির্বাচিত করে সংসদে পাঠিয়েছেন।

আওয়ামী লীগের সাধালণ সম্পাদক বলেন, এই দ্বিচারিতায় তাদের যে ভালো ভালো কথার দাম নেই। তারা নিজেরা বলে একটা, করে আরেকটা। তারা নিজেরাই গণতন্ত্রে বিশ্বাস করে না। নিজের দলের যখন গণতন্ত্রের সংকট তারা দেশের গণতন্ত্র নিয়ে যখন কথা বলে তখন সাধারণ মানুষ বিষয়টিকে হাস্যকরই মনে করবে। বাসস

জাবি ভিসির অপসারণ চাইলেন ফখরুল
                                  

জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক : বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যের এই মুহূর্তে পদত্যাগ করা উচিত অথবা তাকে পদচ্যুত করা উচিত।

বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে সোমবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে এক মানববন্ধনে এ কথা বলেন তিনি। এ মানববন্ধনের আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দল।

ফখরুল বলেন, ‘আজকে আমার কাছে একটি নতুন খবর আছে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে যে ঘুষ চাওয়ার অপরাধে ছাত্রলীগের যে দুই শীর্ষ নেতাকে পদচ্যুত করা হয়েছে, এটাকে আবার নতুন নাম দিয়েছে তারা। কি দিয়েছে বলুনতো? ফেয়ার শেয়ার। ৫% - ১০% ঘুষ যে নেবে, এটা হলো ফেয়ার শেয়ার। এই ফেয়ার শেয়ারের মধ্যে আবার এখন ভাইস-চ্যান্সেলরের নাম চলে এসেছে। উনি নাকি ইতোমধ্যে এক কোটি টাকা দিয়ে দিয়েছেন। দ্রুত তার পদত্যাগ করা উচিত। না হয় তাকে অব্যাহতি দেয়া দরকার।

সব ক্ষেত্রে দুর্নীতি চলছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, ছাত্রলীগের দুই নেতাকে বের করে দিয়ে তারা স্বীকার করেছেন যে করাপশন চলছে। এখন এমন অবস্থা হয়েছে যে, হাজার চেষ্টা করে থলের বিড়াল ঢেকে রাখা যাচ্ছে না। কালো বিড়ালের মতো বের হয়ে আসছে এবং এগুলো এখন জনগণের কাছে পুরোপুরি চলে গেছে।

তিনি বলেন, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি ছাত্র ভর্তি করছে রাতের বেলায়। কোথায় আছে দুর্নীতিমুক্ত জায়গা? প্রতিটি জায়গায় পরীক্ষা, স্বাস্থ্যব্যবস্থা, শিক্ষাব্যবস্থা, বিচারালয় কোথাও যাওয়া যায় না।

ফখরুল বলেন, কালকে আমাদের পুলিশ কমিশনার ভালো ভালো কথা বলেছেন। তার একটা কথা আমার কাছে খুব ইন্টারেস্টিং মনে হয়েছে। যদি কেউ কোনো কাজ না করে এবং সেবার বিনিময়ে যদি কোনো অর্থ দাবি করে, তাহলে আমাদের জানাবেন, আমরাই গিয়ে সেখানে বসবো।

ফখরুল বলেন, যারা মিথ্যা বলে জনগণের সঙ্গে প্রতারণা করে, জোর করে ভোট ডাকাতি করে ক্ষমতায় বসে থাকে, তাদের ক্ষমতায় থাকার কোনো অধিকার নেই। এটা অবৈধ সরকার, এই পার্লামেন্ট অবৈধ। সুতরাং অবিলম্বে পার্লামেন্ট বাতিল করে একটি নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়ে একটি নতুন নির্বাচন করতে হবে এবং সে নির্বাচনে নতুন সরকার নতুন পার্লামেন্ট গঠন হবে। আজকে এই হচ্ছে জনগণের দাবি।

তিনি বলেন, অবিলম্বে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। কারণ, জনগণের প্রতীক, গণতন্ত্রের প্রতীক, তিনি আইনসম্মতভাবে যেটি পান, সেই জামিন নিশ্চিত করতে হবে। কেন তাকে আটকে রেখেছেন? এত ভয় পান কেন? ছাত্রদলের কাউন্সিল নিয়ে একটি নাটক করলেন কেন? তাহলে গণতন্ত্রকে আপনারা চলতে দিতে চান না। যারা গণতান্ত্রিকভাবে কাজ করতে চায়, তাদের আপনারা কাজ করতে দিতে চান না।

আসামের নাগরিক পঞ্জি ও রোহিঙ্গা ইস্যু নিয়ে ফখরুল বলেন, ‘জনাব ওবায়দুল কাদের বলেছেন- আমরা ভারত সরকারকে বিশ্বাস করতে চাই। আমরা উদ্বিগ্ন। ধিক্কার জানাই এই নতজানু পররাষ্ট্রনীতিকে, ধিক্কার জানাই এই মানসিকতাকে। আমার দেশের স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব যদি একবিন্দু ক্ষতিগ্রস্ত হয়, বাংলার মানুষ কোনোদিন তা মেনে নেবে না। মুক্তিযুদ্ধ করেছে ১৯৭১ সালে। স্বাধীনতা রক্ষার জন্য দরকার হলে আমরা আরও বড় যুদ্ধে অবতীর্ণ হবো।’

ফখরুল বলেন, বাংলাদেশে ১০ লাখ রোহিঙ্গা ঢুকেছে। একজনকেও তাদের দেশে ফেরাতে পারেননি। ভারত-চীন নাকি আমাদের বড় বন্ধু। তাহলে বিষয়টা কী হলো। এদিকে আসামে এনআরসি প্রকাশ করা হয়েছে, সেখানে ১৯ লাখ লোক বাদ দেয়া হয়েছে। আসামের মন্ত্রী এবং বিজেপি নেতা বলেছেন, এদের বাংলাদেশে পাঠানো হবে।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আজকে এই সরকার সুপরিকল্পিতভাবে বাংলাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় নেত্রী, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া, যার হাতে গণতন্ত্র স্বাধীনতা সার্বভৌমত্ব নিরাপদ, তাকে হত্যা করার জন্য এইভাবে কারাগারে আটকে রেখেছে। যে মামলায় তাকে আটক করে রাখা হয়েছে, সাজা দেয়া হয়েছে, এরকম মামলাতেই আওয়ামী লীগের বহু নেতা জামিন নিয়ে বাইরে আছেন। অথচ দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া হচ্ছে না। কারণ, দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়া যদি বের হয়ে আসেন, তাহলে জনগণকে সংগঠিত করে এই অপশাসন, অন্যায়- অত্যাচার, গণতন্ত্রহীনতার বিরুদ্ধে নিজের প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। আর তা মোকাবেলা করার মতো ক্ষমতা তাদের নেই বলেই তাকে জেলখানায় বন্দি করে রাখা হয়েছে।’

বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী মুক্তিযোদ্ধা দলের সহ-সভাপতি মিজানুর রহমানের (বীর প্রতীক) সভাপতিত্বে ও সাধারাণ সম্পাদক সাদেক খানের সঞ্চলনায় মানববন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা অ্যাডভোকেট ফজলুর রহমান, বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, বিএনপির মুক্তিযোদ্ধাবিষয়ক সম্পাদক জয়নুল আবেদীন, বিএনপির স্বনির্ভরবিষয়ক সম্পাদক শিরীন সুলতানা প্রমুখ।

আমি অনুতপ্ত, ক্ষমাপ্রার্থী : রাব্বানী
                                  

ডেস্ক রিপাের্ট : প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের কাছে ক্ষমা চেয়েছেন চাঁদাবাজিসহ নানা অনিয়মের দায়ে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের পদ থেকে বরখাস্ত হওয়া গোলাম রাব্বানী। সোমবার নিজের ভেরিফাইড ফেসবুকে এক স্ট্যাটাসে এই ক্ষমা চান তিনি।

ছাত্রলীগের পদ হারানোর পর এটি তার প্রথম স্ট্যাটাস। এই স্ট্যাটাসে প্রথমেই তিনি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে ক্ষমা চান। তিনি লিখেছেন, ‘মমতাময়ী নেত্রী, আপনার মনে কষ্ট দিয়েছি, আমি অনুতপ্ত, ক্ষমাপ্রার্থী।’

এরপর তিনি ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশ্যে লিখেন, ‘প্রিয় অগ্রজ ও অনুজ, আপনাদের প্রত্যাশা-প্রাপ্তির পুরো মেলবন্ধন ঘটাতে পারিনি বলে আপনাদের কাছেও ক্ষমাপ্রার্থী।’

তিনি ‘গর্হিত কোনো অপরাধ’ করেননি বলে দাবি করেছেন তার স্ট্যাটাসে। রাব্বানী লেখেন, ‘মানুষ মাত্রই ভুল হয়। আমিও ভুলত্রুটির ঊর্ধ্বে নই। তবে বুকে হাত দিয়ে বলতে পারি, স্বেচ্ছায়-স্বজ্ঞানে আবেগ-ভালোবাসার এই প্রাণের সংগঠনের নীতি-আদর্শ পরিপন্থী ‘গর্হিত কোনো অপরাধ’ করিনি।’

তার বিরুদ্ধে উঠা অভিযোগকে ষড়যন্ত্র উল্লেখ করে তিনি লিখেছেন, ‘আনিত অভিযোগের কতটা ষড়যন্ত্রমূলক আর অতিরঞ্জিত, সময় ঠিক বলে দেবে।’

এরপর তিনি আবার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উদ্দেশ্যে লেখেন, ‘প্রাণপ্রিয় আপা, আপনি আদর্শিক পিতা বঙ্গবন্ধু মুজিবের সুযোগ্য তনায়া, ১৮ কোটি মানুষের আশার বাতিঘর। আপনার দিগন্ত বিস্তৃত স্নেহের আঁচল, এক কোণে যেন ঠাঁই পাই। আপনার ক্ষমা এবং বঙ্গবন্ধুর আদর্শ নিয়ে বাকিটা জীবন চলতে চাই।’

প্রসঙ্গত, চাঁদাবাজিসহ নানা অনিয়মের অভিযোগে ছাত্রলীগের শীর্ষ পদ থেকে অপসারণ করা হয়েছে শোভন-রাব্বানীকে। সিনিয়র সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান জয়কে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এবং সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক করা হয়েছে। শনিবার আওয়ামী লীগের সভায় এ সিদ্ধান্ত হয়।

ইতোমধ্যে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান আন্দোলনের মধ্যে আনীত দুর্নীতির অভিযোগের মধ্যেও সাবেক ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ও জাবি ছাত্রলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক সাদ্দাম হোসাইনের মোবাইল কথোপকথন ফাঁস হয়েছে।

গত ১৪ সেপ্টেম্বর ছাত্রলীগের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের পদ হারান রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও গোলাম রাব্বানী।

সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভারপ্রাপ্ত হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন সংগঠনের ১ নম্বর সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় ও ১ নম্বর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

রাব্বানীর ওই স্ট্যাটাসের নিচে কমেন্টে রুদ্র ইমরান নামে একজন লিখিছেন, ‘পদ বঞ্চিতদের কষ্টটা এখন বুঝতেছেন ভাই। প্রথম আন্দোলনটা তারাই করেছে। কিন্তু আপনি চাইলেই তাদের জন্য কিছু করতে পারতেন। সব কিছু মিলিয়ে শুভ কামনা রহিল।’

আজহার উদ্দীন শীমুল লিখেছেন, ‘ধন্যবাদ মি. রাব্বানী। এবার ডাকসু থেকে স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করে ইতিহাসের সাক্ষী হোন। নৈতিক স্থলনের অভিযোগ কিন্তু ভয়াবহ। ২৮ বছরের অচলায়তন ভেঙে ডাকসু নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধুর একজন কর্মী হিসেবে নিশ্চয় নৈতিক স্থলনের অভিযোগ মাথায় রেখে ডাকসুতে জিএস পদে আপনি থাকবেন না। আশা করি, বোধটা জাগবে। ভালো থাকুন। সৎ থাকুন। শুভেচ্ছা।

আসমাউল মুক্তাদির সিকদার লিখেছেন, ‘কথাটি কিন্তু সঠিক বলেছেন ভাইয়া..!!’। আশরাফুল ইসলাম নামে একজন লিখেছেন, ‘আল্লাহ্ রহম করবেন, ইনশাল্লাহ্। মন থেকে দোয়া ভালোবাসা রইল।

আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসছে নতুন চমক
                                  

অনলাইন ডেস্ক : কেন্দ্রীয় সম্মেলনের ২ মাস বাকি থাকলেও সম্পন্ন হয়নি আওয়ামী লীগের ৭৮টি জেলা ও মহানগরী ইউনিটের মধ্যে ৭৭টির সম্মেলন। এমন পরিস্থিতিতে প্রশ্ন উঠেছে ডিসেম্বরে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় সম্মেলনের ব্যাপারে।

তবে শঙ্কা উড়িয়ে দিয়ে নেতারা বলেছেন, সম্মেলন উপলক্ষে নতুন উদ্যোমে সাংগঠনিক তৎপরতা শুরু করেছে আওয়ামী লীগ। এবারের সম্মেলনে নতুন নেতৃত্ব আসছে বলেও ইঙ্গিত দেন তারা। আগামী ১০ ডিসেম্বরের মধ্যে মেয়াদোত্তীর্ণ সব কমিটির সম্মেলন সম্পন্ন করতেও নির্দেশ দিয়েছে হাইকমান্ড।

২০১৬ সালের অক্টোবরে অনুষ্ঠিত হয় আওয়ামী লীগের সর্বশেষ সম্মেলন। এরপর পুরো সময়ে সম্পন্ন হয়েছে মাত্র একটি জেলা ইউনিটের সম্মেলন।

দলের হাইকমান্ড থেকে নির্দেশ এসেছে, মূল সম্মেলনের আগে ডিসেম্বরের প্রথম ভাগেই মেয়াদোত্তীর্ণ সব ইউনিটের সম্মেলন সম্পন্ন করতে হবে।

চ্যালেঞ্জিং হলেও, নির্ধারিত সময়ে এ কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব বলে জানালেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খালিদ মাহমুদ চৌধুরী।

তিনি বলেন, জেলা থেকে আসা কাউন্সিলরদের লিস্টটাই আমাদের কাছে বেশি গুরুত্বপূর্ণ। আশা করি আগামী ২ মাসের মধ্যেই আমরা সব লিস্ট তৈরি করে ফেলতে পারব। এ ছাড়াও যে সমস্যাগুলো আছে সেগুলোও সমাধান হয়ে যাবে। বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের জাতীয় কাউন্সিল করতে এসব কোনো বাধাই নয়।

সম্মেলন সফল করতে এরই মধ্যে ৮ ভাগে ভাগ হয়ে দেশব্যাপী সাংগঠনিক সফর শুরু করেছে দলটি। বিভিন্ন উপ-কমিটি গঠন করে আগামী সপ্তাহের মধ্যেই গঠন করা হবে সম্মেলনের সবগুলো প্রস্তুতি কমিটি। আওয়ামী লীগের এ নীতি নির্ধারক বলছেন, নির্বাচনসহ নানা কারণে সাংগঠনিক স্থবিরতা বিপরীতে নতুন চমক থাকবে এবারের সম্মেলনে।

আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ড. আব্দুর রাজ্জাক বলেন, দলকে চাঙা করতে হলে মেধাবী ও তরুণ নেতৃত্ব প্রয়োজন। আমাদের নেত্রী সেটিকে মাথায় রেখেই এগুচ্ছেন। তিনি সংসদেও নতুনদের সুযোগ দিয়েছেন, দলকে চাঙা করতে আগামীতেও অনেক নতুন মুখকে সমানে নিয়ে আসবেন। কার হাতে দলটি ছেড়ে দিয়ে যাবেন, এটিই এখন নেত্রীর চাওয়া।

কমিটির মেয়াদ শেষ হওয়ায় অক্টোবরে সম্মেলন করার কথা থাকলেও ডিসেম্বরের ২১ থেকে ২২ তারিখ কাউন্সিলের সিদ্ধান্ত নেয় আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদ।

চাঁদাবাজদের প্রশ্রয় দেয় না ছাত্রলীগ : জয়
                                  

অনলাইন ডেস্ক : চাঁদাবাজি টেন্ডারবাজিসহ যে কোনো ধরনের অপরাধমূলক কর্মকাণ্ডকে প্রশ্রয় না দেয়ার কথা বলেছেন ছাত্রলীগের নতুন ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয়।

রোববার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিনে সংবাদ সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি। তার পাশে ছিলেন ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্য।

সুনির্দিষ্ট অভিযোগের ভিত্তিতে ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক রাব্বানীকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।

সংগঠনের নেতিবাচক কর্মকাণ্ড মোকাবিলায় কী ধরনের পদক্ষেপ নেয়া হবে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে জয় বলেন,আমরা দেশরত্নের হাতকে শক্তিশালী করার জন্য যেকোনো ধরনের পজিটিভ পদক্ষেপ নেবে। এজন্য আমরা সবসময় কাজ করে যাব। আশা রাখি, অতীতে যদি সংগঠনের কোন ইমেজ ক্ষুণ্ন হয় তাহলে পজিটিভ ইমেজ উদ্ধারের জন্য কাজ করব। বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কোন অন্যায়, চাঁদাবাজিকে প্রশ্রয় দেয় না। আমরা সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নেব।

নিজেদের বেলায় দুর্নীতি হবে কি না-এমন প্রশ্নে ছাত্রলীগ সভাপতি বলেন, আমি হলেও দায়িত্ব পালন করেছি। চেষ্টা করি আমাদের গায়ে কোন কালিমা যেন না লাগে। আমরা দেশরত্নের আস্থার জায়গাটা অবশ্যই রাখব, সে অনুযায়ী কাজ করব।

আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ২০ ও ২১ ডিসেম্বর
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলনের তারিখঘোষণা করা হয়েছে। আগামী ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

আজ শনিবার সন্ধ্যায় গণভবনে আওয়ামী লীগ সভাপতিশেখ হাসিনা’র সভাপতিত্বে দলের কার্যনির্বাহী কমিটির এক সভায় এ সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

সভাশেষে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ওসেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সাংবাদিকদের বলেন, ‘আজকের সভায় ২০ ও ২১ ডিসেম্বর আওয়ামী লীগের ২১তম জাতীয় সম্মেলন অনুষ্ঠানের সিদ্ধান্ত হয়েছে। ২০ ডিসেম্বর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে সম্মেলনের উদ্বোধন করা হবে।’
আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন হয় তিন বছর পর পর। ২০১৬ সালের ২৩ অক্টোবর সর্বশেষ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। সম্মেলনে সভাপতি পদে শেখ হাসিনা পুনঃনির্বাচিত হন এবং তার সঙ্গে সাধারণ সম্পাদক পদে নির্বাচিত হন ওবায়দুল কাদের। বাসস

ছাত্রলীগের নেতৃত্বে জয় ও লেখক ভট্টাচার্য
                                  

অনলাইন ডেস্ক : সমালোচনার মুখে থাকা ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীকে নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

আজ শনিবার গণভবনে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় তাদের বিরুদ্ধে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

বৈঠক শেষে আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এবং নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বাসসসকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, ছাত্রলীগ সভাপতি শোভন ও সাধারণ সম্পাদক রাব্বানীকে বাদ দিয়ে তাদের জায়গায় সহ-সভাপতি আল নাহিয়ান খান জয় এবং যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক লেখক ভট্টাচার্যকে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আগামী সম্মেলন না হওয়া পর্যন্ত তারা সংগঠনের দায়িত্ব পালন করবে বলেও জানান তিনি। বাসস

নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে মামলা করে ছাত্রদলের সম্মেলন বন্ধ হয়েছে: কাদের
                                  

নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে মামলা করে ছাত্রদলের সম্মেলন বন্ধ হয়েছে। এখানেও শেখ হাসিনার দোষ, আওয়ামী লীগের দোষ। যত দোষ নন্দ ঘোষ। এখানে আওয়ামী লীগের দোষ কি? এভাবেই প্রশ্ন করলেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। এটি বিএনপির নেতিবাচক রাজনীতির বহিঃপ্রকাশ বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

শনিবার (১৪ সেপ্টেম্বর) দুপুরে যুবলীগ ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আয়োজিত আওয়ামী লীগ সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জন্মদিন ‘জনগণের ক্ষমতায়ন দিবস’ উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভায় এ মন্তব্য করেন তিনি। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে এ আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

ওবায়দুল কাদের বলেন, বিএনপির যে সংকট সেটা তাদের নিজেদের অভ্যন্তরীণ সংকট। তাদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলের বহিঃপ্রকাশ ছাত্রদলের সম্মেলন বন্ধ। এটা তাদের নেতিবাচক রাজনীতিরও বহিঃপ্রকাশ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, আমরা ইতিবাচক রাজনীতি করি। আমাদের ভুলত্রুটি থাকতে পারে। আমরা পারফেক্ট নই, তবে আমরা এটা স্বীকার করি। এই সাহস আওয়ামী লীগের আছে। আওয়ামী লীগের মন্ত্রী, এমপিরা জেলে গেছেন। ভুলত্রুটি আমাদের থাকতে পারে, কিন্তু এই দলে তার শাস্তি আছে। ওরাতো শাস্তি দেয় না, ক্ষমতায় থেকেও দেয়নি। কারণ শেখ হাসিনার মতো সাহস কারো নেই।

আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না : হাছান মাহমুদ
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগ কখনো প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না এ কথা দৃঢ়তার সাথে উল্লেখ করে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বিএনপিকে দলটির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের প্রতিহিংসার রাজনীতির পথ পরিহারের আহ্বান জানিয়েছেন।

আওয়ামী লীগ বিরোধী দলমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে কাজ করছে এবং প্রতিহিংসার বশবর্তী হয়ে বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়েছে- বিএনপি মহাসচিবের সাম্প্রতিক এই অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করেন তথ্যমন্ত্রী।

তিনি আজ রাজধানীর বঙ্গবন্ধু এ্যাভেনিউতে ঢাকা মহানগর আওয়ামী লীগ দক্ষিণ শাখা কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট আয়োজিত এক আলোচনা সভায় বলেন, বাস্তবতা হচ্ছে এ দেশে জিয়াউর রহমানই প্রতিহিংসার রাজনীতি শুরু করেন এবং বেগম জিয়া এটাকে চরম পর্যায়ে নিয়ে যান।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোট উপমহাদেশের অন্যতম প্রভাবশালী নেতা হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ১২৭তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে এই আলোচনা সভার আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় তথ্যমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের অধিকাংশ সদস্যের হত্যাকান্ডের দিনে বেগম খালেদা জিয়া ১৯৯২ সাল থেকে ১৫ আগস্টে তার জন্মদিন পালন করছেন। কেবল প্রতিসিংসার কারণে তিনি তার জন্মদিন পরিবর্তন করেছেন।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, রাষ্ট্রীয় পৃষ্ঠপোষকতায় এবং তার ছেলে তারেক রহমানের নেতৃত্বে তদানীন্তন বিরোধী দলীয় নেতা শেখ হাসিনাকে হত্যা ও আওয়ামী লীগকে নেতৃত্বহীন করতে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট বঙ্গবন্ধু এ্যাভেনিউয়ে আওয়ামী লীগের জনসমাবেশে গ্রেনেড হামলা চালানো হয়েছিল।

তিনি আরো বলেন, বিএনপি যখন ক্ষমতায় ছিল তখন শাহ এ এম এস কিবরিয়া ও আহসানুল্লাহ মাস্টারসহ আওয়ামী লীগের অনেক নেতৃবৃন্দ বোমা হামলায় নিহত হয়েছেন, কিন্তু আওয়ামী লীগ সরকারের সময় বিএনপির ওপর হামলার এমন কোন ঘটনা ঘটেনি।

আওয়ামী লীগ নেতা বলেন, এ ঘটনাগুলেঅই প্রমাণ করে বিএনপি প্রতিহিংসার রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এজন্য তাদের জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া উচিৎ।

সোহরাওয়ার্দীকে ‘গণতন্ত্রের চ্যাম্পিয়ন’ আখ্যায়িত করে রাজনীতিতে তার অবদানের কথা স্মরণ করে হাছান বলেন, বাংলাদেশের বিভিন্ন অর্জনে তার নাম যুক্ত রয়েছে।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাঙালি জাতির প্রতিষ্ঠাতা। তিনি বাঙালি জাতিকে উচ্চ মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছিলেন। আর তাঁর কন্যা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জাতির পিতার অসমাপ্ত কাজ বাস্তবায়ন করছেন।

ড. হাছান বলেন, সোহরাওয়ার্দী তখন বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক বিচক্ষণতা দেখে ঘনিষ্ঠ হয়েছিলেন।
বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সভাপতি সারাহ্ বেগম কবরীর সভাপতিত্বে আলোচনায় আরো বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগের উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম আমিন, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শাহে আলম মুরাদ, যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদক বদিউল আলম বদি, বঙ্গবন্ধু সাংস্কৃতিক জোটের সাধারণ সম্পাদক অরুণ সরকার রানা, সংগীত শিল্পী রফিকুল আলম এবং অভিনেত্রী অরুণা বিশ্বাস। বাসস

নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির পথে হাঁটার জন্য বিএনপি’র প্রতি তথ্যমন্ত্রীর আহ্বান
                                  

অনলাইন ডেস্ক : বিএনপিকে ভবিষ্যতে দানবীয় রূপ ধারণ করার পরিকল্পনা না করার জন্য আহ্বান জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেছেন, নিয়মতান্ত্রিকভাবে রাজনীতির পথে হাঁটুন, সেটিই সবার জন্য শুভ হবে এবং জনগণের জন্যও শুভ হবে।

তিনি আজ মন্ত্রণালয়ে তার অফিস কক্ষে সাংবাদিকদের প্রেস ব্রিফিংকালে এ কথা বলেন।

বিএনপি নেতা গয়েশ্বর চন্দ্র রায়ের মানব বন্ধন নয়, দানব বন্ধন করতে হবে এই হুমকির জবাবে মন্ত্রী বলেন, এই হুমকি অশুভ কোন কিছুর ইঙ্গিত দিচ্ছে। কারণ বিএনপি অতীতেও দানবীয় রূপ ধারণ করেছিল। শতশত মানুষ তারা আগুনে পুড়িয়ে মেরেছে। সরকারি সম্পত্তি, বাস, ট্রেন, লঞ্চে আগুন দিয়েছে। তাই বিএনপির কাছে আমার আহ্বান তারা যেন নিয়মতান্ত্রিকভাবে রাজনীতির পথে হাঁটেন। বাসস

আসাম ইস্যুতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে : ফখরুল
                                  

অনলাইন ডেস্ক : স্বাধীনতার পর কোনো বাংলাদেশি ভারতে যায়নি বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, ‘আসাম ইস্যুতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে গভীর চক্রান্ত শুরু হয়েছে।’

দলের চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে বুধবার দুপুরে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটি আয়োজিত মানববন্ধনে সভাপতির বক্তব্যে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল।

‘নতজানু’ পররাষ্ট্র নীতির কারণে রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান হচ্ছে না দাবি করে ফখরুল বলেন, ‘আজকে সরকার রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে পারছে না। কারণ তাদের সেই বৈধতা নেই, সাহস নেই। নতজানু পররাষ্ট্র নীতির কারণে তারা আজ এ রোহিঙ্গা সমস্যার সমাধান করতে পারছে না।’

তিনি বলেন, ‘আসাম থেকে হুমকি দেয়া হচ্ছে, বাংলাদেশি অনুপ্রবেশকারীদের খুঁজে বের করে বাংলাদেশে পাঠিয়ে দেয়া হবে। আমরা পরিষ্কার ভাষায় বলতে চাই, কোনো বাংলাদেশি ভারতে যায়নি স্বাধীনতার পরে। বাংলাদেশকে আবারও বিপদগ্রস্ত করার জন্য গভীর চক্রান্ত শুরু হয়েছে।’

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসার দাবি জানিয়ে ফখরুল বলেন, ‘তিনি অত্যন্ত অসুস্থ। তার ডায়াবেটিস অত্যন্ত বেড়ে গেছে, গায়ের ব্যথা বেড়ে গেছে, তিনি কারও সাহায্য ছাড়া হাঁটতে পারেন না, চলতে পারেন না। হুইল চেয়ারে চলছেন। কিন্তু এ সরকার, তার কর্মকর্তারা এবং ডাক্তাররা বলছেন তিনি নাকি সুস্থ হয়েছেন। মূলত তিনি একেবারে সুস্থ নন। অসুস্থ অবস্থায় তিনি কারারুদ্ধ দিন পার করছেন। আমরা তার সুচিকিৎসার জন্য মুক্তি দাবি করছি।’

সরকারের সমালোচনা করে ফখরুল বলেন, ‘এ সরকার ভোট ডাকাতি করে জোর করে ক্ষমতায় বসে আছে। তারা অন্যায়ভাবে দেশনেত্রীকে আটকে রেখেছে। কারণ একটাই, তিনি বাইরে থাকলে এসব অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলবেন। এ অবৈধ সরকার রাষ্ট্রের সমস্ত প্রতিষ্ঠানগুলোকে ধ্বংস করে ফেলেছে। আজকে বিচার বিভাগ, প্রশাসন আইনশৃঙ্খলা বাহিনী এবং মিডিয়াকে নিয়ন্ত্রণ করে রেখেছে।`

তিনি আরও বলেন, ‘আপনারা দেখছেন কীভাবে লুট করছে; কীভাবে দুর্নীতি করছে। আজকে দুর্নীতির পাহাড় গড়ে তুলেছে। দুর্নীতির টাকা তারা দেশে-বিদেশে পাচার করে সম্পদের পাহাড় গড়ে তুলছে। বাংলাদেশের মানুষের প্রতি তাদের কোনও জবাবদিহিতা নেই। তারা বাংলাদেশের মানুষকে ভালোবাসে না বলেই গণতন্ত্রহীন একটা সরকার প্রতিষ্ঠা করেছেন।’

দেশবাসীর উদ্দেশে ফখরুল বলেন, ‘আসুন আজকে নিজেদের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, ভোটের অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য, কথা বলার অধিকার ফিরে পাওয়ার জন্য এ সরকারের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই। তাদের সরিয়ে একটা জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে।’

মানববন্ধনে স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, গয়েশ্বর চন্দ্র রায়, নজরুল ইসলাম খান, ভাইস চেয়ারম্যান আব্দুল আউয়াল মিন্টু, ডা. এ জেড এম জাহিদ হোসেন, আহমেদ আযম খান, চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা জয়নুল আবদিন ফারুক, সৈয়দ মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল, মজিবুর রহমান সরোয়ার, খায়রুল কবির খোকন, সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক আবদুল আউয়াল খান, কেন্দ্রীয় নেতা মফিকুল ইসলাম তৃপ্তি, যুবদলের সভাপতি সাইফুল আলম নীরব, স্বেচ্ছাসেব দলের সভাপতি শফিউল বারী বাবু, যুবদলের সাধারণ সম্পাদক সুলতান সালাউদ্দিন টুকু, কৃষক দলের সদস্য সচিব কৃষিবিদ হাসান জাফির তুহিন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

রওশন বিরোধী দলের নেতা, কাদের উপনেতা
                                  

অনলাইন ডেস্ক : জাতীয় পার্টির সিনিয়র কো-চেয়ারম্যান রওশন এরশাদকে জাতীয় সংসদের বিরোধীদলীয় নেতা ও দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান জিএম কাদেরকে উপনেতা করে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে।

অনেক নাটকীয়তার পর দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান দেবর জিএম কাদেরের পরিবর্তে ভাবি রওশন এরশাদকে ওই পদ দেয়ার জন্য রোববার সন্ধ্যায় স্পিকারের কাছে চিঠি দেয়া হয়। আর জিএম কাদেরকে বিরোধী দলীয় উপনেতা করার জন্য স্পিকারকে অনুরোধ করা হয়।

সোমবার সংসদ সচিবালয়ের সিনিয়র সচিব ড. জাফর আহমদ খান স্বাক্ষরিত প্রজ্ঞাপনে বলা হয়, জাতীয় সংসদের সরকারি দলের বিরোধিতাকারী সর্বোচ্চ সংখ্যক সদস্য নিয়ে গঠিত সংসদীয় দলের নেতা বেগম রওশন এরশাদকে (ময়মনসিংহ-৪) জাতীয় সংসদের কার্যপ্রণালী বিধি (২) (১) (ট) অনুযায়ী বিরোধী দলের নেতা এবং বিরোধীদলীয় নেতা ও এক উপনেতা (পারিতোষিক ও বিশেষাধিকার) অধ্যাদেশ, ১৯৭৯ মোতাবেক লালমনিরহাট-৩ থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে উপনেতা হিসেবে স্পিকার স্বীকৃতি দিলেন।

এর আগে দুজনকেই সংসদের বিরোধী দলের নেতা করার জন্য পাল্টাপাল্টি চিঠি দেয়া হয়েছিল। রওশন এরশাদের পক্ষ থেকে দলটির সাবেক মন্ত্রী আনিসুল ইসলাম মাহমুদ, সাবেক প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নু ও ফখরুল ইমামসহ কয়েকজন রওশনকে চেয়ারম্যান ও বিরোধী দলীয় নেতা হিসেবে মনোনীত করার জন্য স্পিকার বরাবর চিঠি দেন। এমনকি চেয়ারম্যান হিসেবে রওশনের নাম দিয়ে নির্বাচন কমিশনেও চিঠি পাঠান তারা।

অন্যদিকে কাজী ফিরোজ রশীদ, আবু হোসেন বাবলাসহ প্রায় ১৪-১৫ এমপি জিএম কাদেরকে বিরোধী দলীয় নেতা করার তৎপরতায় উঠেপড়ে লাগেন।

এর আগে শনিবার সংকট নিরসনে উভয় পক্ষের আটনেতা সমঝোতা বৈঠকে মিলিত হন। তিনটি এজেন্ডা নিয়ে দু’পক্ষের মধ্যে বৈঠক হয়েছে। তা হলো, জাপার নেতৃত্ব, রংপুর নির্বাচনে প্রার্থী ও বিরোধী দলের নেতা নির্বাচন।

শনিবার রাতে দলটির মহাসচিবসহ সিনিয়র নেতারা আন্তঃকোন্দল মিটিয়ে ফেলতে সমর্থ হন। সেখানে সিদ্ধান্ত হয় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হবেন প্রয়াত এরশাদের ভাই জি এম কাদের এবং বিরোধীদলীয় নেতার দায়িত্ব পালন করবেন এরশাদপত্নী রওশন এরশাদ। সব মিলিয়ে বিরোধী দল জাতীয় পার্টির বর্তমানে ২৫ জন এমপি আছেন। এরশাদের মৃত্যুতে শূন্য হওয়া রংপুর-৩ আসনটিতে বিজয়ী হলে তাদের সদস্য সংখ্যা ২৬ হবে।

প্রসঙ্গত, সংসদের বিরোধী দলের নেতা মন্ত্রী ও উপনেতা প্রতিমন্ত্রীর মর্যাদা পেয়ে থাকেন।

সমঝোতায় জাপা, রংপুর-৩ আসনে প্রার্থী হচ্ছেন সাদ এরশাদ
                                  

পাল্টাপাল্টি সংবাদ সম্মেলন, চিঠি চালাচালি আর নানা নাটকীয়তার পর অবশেষে সমঝোতায় এলো জাতীয় পার্টির দুই অংশ। রাজধানীর বনানী কার্যালয়ে সকালে প্রেস ব্রিফিং-এ দলের মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা জানান, জিএম কাদেরই থাকছেন পার্টির চেয়ারম্যান আর সংসদে বিরোধী দলীয় নেতা হচ্ছেন বেগম রওশন এরশাদ। সেই সঙ্গে মশিঊর রহমান রাঙ্গা জানান, সাদ এরশাদকে রংপুর-৩ আসনে দলীয় মনোনয়ন দেয়া হবে।

গত মঙ্গলবার থেকে শুরু হওয়া জাতীয় পার্টির নানা ঘটনা আর দুই পক্ষের মুখোমুখি অবস্থানের পর রোববার সংবাদ সম্মেলনের মাধ্যমে আপাতত ইতি টানেন দলের মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা।

দলের বনানী কার্যালয়ে আয়োজিত এই সংবাদ সম্মেলনে রাঙ্গা জানান, উভয় পক্ষের সম্মতিতে জিএম কাদেরই থাকছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান আর বিরোধী দলীয় নেতা হচ্ছেন বেগম রওশন এরশাদ।

তবে, অনুষ্ঠানে রওশনপন্থী কোনো নেতাদের দেখা যায়নি। এ বিষয়ে রাঙ্গা জানান, দুই পক্ষই যেহেতু তাকে মহাসচিব ঘোষণা করেছিলেন তাই সবার সম্মতিতেই তিনি এই সংবাদ সম্মেলন করেছেন।

এদিকে, দলে চলমান এই কয়েকদিনের সংকটে তিনি কেন জনসমক্ষে আসেননি সে বিষয়টিও পরিস্কার করেন। তবে, তাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম এবং মিডিয়ায় যে ধরণের সংবাদ প্রচার হয়েছে তা গ্রহণযোগ্য নয় বলেও উল্লেখ করেন রাঙ্গা।

এদিকে, দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য রওশনপন্থী নেতা মুজিবুল হক চুন্নুও একমত জাতীয় পার্টির বর্তমান সিদ্ধান্ত নিয়ে।

সংবাদ সম্মেলনের পর বনানী কার্যালয় নেতা কর্মীদের স্লোগান আর মিছিলে সরগরম হয়ে ওঠে।

ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি: কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানিয়েছেন, ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেওয়ার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

আজ রোববার সচিবালয়ে মার্কিন রাষ্ট্রদূত রবার্ট মিলারের সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে সেতুমন্ত্রী এ কথা বলেন।

তিনি বলেন, ছাত্রলীগের কিছু কিছু বিষয় নিয়ে প্রধানমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগ সভানেত্রীর ক্ষোভ থাকতে পারে, তবে কমিটি ভেঙে দেওয়ার বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

এর আগে শনিবার গণভবনে আওয়ামী লীগের স্থানীয় সরকার ও সংসদীয় মনোনয়ন বোর্ডের যৌথসভায় শেখ হাসিনা ছাত্রলীগ সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদকের বিষয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে কমিটি ভেঙে দিতে বলেছিলেন বলে খবর আসে গণমাধ্যমে।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে কর্মসূচি দিল বিএনপি
                                  

অনলাইন ডেস্ক : দলের চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসা দাবিতে দুই দিনের কর্মসূচি ঘোষণা করেছে বিএনপি। এছাড়া বন্যার কারণে স্থগিত হওয়া বিভাগীয় সমাবেশ আবারও শুরু করার ঘোষণা দিয়েছি দলটি।

রোববার রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এ কর্মসূচি ঘোষণা করেন।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার মুক্তি ও সুচিকিৎসা দাবিতে আগামী ১১ সেপ্টেম্বর কেন্দ্রীয় উদ্যোগে ঢাকা মহানগরে মানববন্ধন কর্মসূচি এবং একই দাবিতে ১২ সেপ্টেম্বর সারাদেশে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করা হবে।

এছাড়া বিএনপির অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলো পর্যায়ক্রমে কর্মসূচি পালন করবে বলেও জানান ফখরুল।

তিনি জানান, খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে আগামী ২১ সেপ্টেম্বর সিলেট, ২৬ সেপ্টেম্বর ময়মনসিংহ এবং ২৯ সেপ্টেম্বর রাজশাহীতে বিভাগীয় সমাবেশ হবে। এরপর রংপুরেও সমাবেশ হবে বলে জানান তিনি। তবে রংপুরে সমাবেশের তারিখ জানাননি তিনি।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যদের মধ্যে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার মওদুদ আহমদ, ড. মঈন খান, আমির খসরু মাহমুদ চৌধুরী, ইকবাল হাসান মাহমুদ টুকু, ভাইস চেয়ারম্যান ডা. এজেডএম জাহিদ হোসেন, সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শোকজ নোটিশ পাচ্ছেন বিদ্রোহী ১৫০ জন : কাদের
                                  

অনলাইন ডেস্ক : আগামীকাল থেকে ১৫০ এর মতো শোকজ নোটিশ ইস্যু হবে বলে জানিয়েছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে শনিবার (৭ সেপ্টেম্বর) দলের যুগ্ম সম্পাদক ও সাংগঠনিক সম্পাদকদের সঙ্গে সাধারণ সম্পাদকের বৈঠক হয়।

বৈঠক শেষে সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘উপজেলা পরিষদের নির্বাচনে যারা বিদ্রোহী ছিল, তাদের শোকজ করার সিদ্ধান্ত আগে থেকেই ছিল। আজকে সেটা বাস্তবায়নের প্রসেস কীভাবে দ্রুত করা যায়, সেটা আলোচনা করেছি। আগামীকাল থেকে ১৫০ এর মতো শোকজ নোটিশ ইস্যু হবে। শোকজের জবাবের জন্য তিন সপ্তাহ সময় দেয়া হবে।’

সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি জানান, এমপি-মন্ত্রী যারা মদদদাতা তারাও শোকজ পাবেন। তবে তাদের নাম প্রকাশ করতে চাননি কাদের।

তিনি বলেন, ‘মদদদাতাদের মধ্যে কেন্দ্রীয় নেতাও থাকতে পারেন। যাদের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ ও মদদ দেয়ার অভিযোগ আছে, তারা সবাই শোকজ পাবেন।’

বিএনপি না আসলে নির্বাচন উৎসবমুখর করার জন্য প্রার্থিতা উন্মুক্ত থাকবে-আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক নিজেই এমন কথা বলেছিলেন। তার নির্দেশনা অনুযায়ী আমরা মাঠে নেমেছি, কিন্তু এখন আবার কেনো শাস্তি দেবে? তৃনমূলের এমন বক্তব্যের বিষয়ে ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একথা বলেছেন, কোনো রেকর্ড আছে? হাওয়া থেকে বললে তো হবে না।’

গত ১৫ ফেব্রুয়ারি বলেছিলেন উল্লেখ করে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘এটা অনেক আগের কথা।’

সভায় উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম সম্পাদক মাহবুব উল আলম হানিফ, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আবদুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল, বিএম মোজাম্মেল হক, উপ দফতর সম্পাদক বিপ্লব বড়ুয়া প্রমুখ।


   Page 1 of 56
     রাজনীতি
প্রয়োজনে দলের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো হবে : কাদের
.............................................................................................
জাবি ভিসির অপসারণ চাইলেন ফখরুল
.............................................................................................
আমি অনুতপ্ত, ক্ষমাপ্রার্থী : রাব্বানী
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে আসছে নতুন চমক
.............................................................................................
চাঁদাবাজদের প্রশ্রয় দেয় না ছাত্রলীগ : জয়
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের জাতীয় সম্মেলন ২০ ও ২১ ডিসেম্বর
.............................................................................................
ছাত্রলীগের নেতৃত্বে জয় ও লেখক ভট্টাচার্য
.............................................................................................
নিজেদের অভ্যন্তরীণ কোন্দলে মামলা করে ছাত্রদলের সম্মেলন বন্ধ হয়েছে: কাদের
.............................................................................................
আওয়ামী লীগ প্রতিহিংসার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না : হাছান মাহমুদ
.............................................................................................
নিয়মতান্ত্রিক রাজনীতির পথে হাঁটার জন্য বিএনপি’র প্রতি তথ্যমন্ত্রীর আহ্বান
.............................................................................................
আসাম ইস্যুতে বাংলাদেশের বিরুদ্ধে চক্রান্ত চলছে : ফখরুল
.............................................................................................
রওশন বিরোধী দলের নেতা, কাদের উপনেতা
.............................................................................................
সমঝোতায় জাপা, রংপুর-৩ আসনে প্রার্থী হচ্ছেন সাদ এরশাদ
.............................................................................................
ছাত্রলীগের কমিটি ভেঙে দেয়ার সিদ্ধান্ত হয়নি: কাদের
.............................................................................................
খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে কর্মসূচি দিল বিএনপি
.............................................................................................
শোকজ নোটিশ পাচ্ছেন বিদ্রোহী ১৫০ জন : কাদের
.............................................................................................
গন্তব্য কোথায় জাপার?
.............................................................................................
জাপা নিয়ে মাথা ঘামাচ্ছে না আওয়ামী লীগ: কাদের
.............................................................................................
বিএনপি এবং ঐক্যফন্ট নেতাদের জনগণের ওপর আস্থা নেই : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
রওশনকে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান ঘোষণা
.............................................................................................
নিয়মের বাইরে কেউ চেয়ারম্যান ঘোষণা করতে পারেন না : জি এম কাদের
.............................................................................................
আওয়ামী লীগ কখনও ধর্মের বিভাজনে বিশ্বাস করে না : প্রধানমন্ত্রী
.............................................................................................
বৈঠকে দেশের সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে আলোচনা হয়েছে: ড. কামাল
.............................................................................................
কূটনীতিকদের সঙ্গে বৈঠকে জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট নেতারা
.............................................................................................
৮ সেপ্টেম্বর থেকে বিদ্রোহী প্রার্থীদের চিঠি দেয়া হবে : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের সাথে জড়িতদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করার দাবী জানিয়েছে ১৪ দল
.............................................................................................
বাবার আসনে লড়বেন সাদ এরশাদ
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের ফেরত নেয়ার প্রশ্নে কোনো দলবাজি নয়: নাসিম
.............................................................................................
আওয়ামী লীগের সম্পাদকমন্ডলীর সভা মঙ্গলবার
.............................................................................................
রোহিঙ্গাদের নিয়ে রাজনীতি করা বিএনপির মূল উদ্দেশ্য : তথ্যমন্ত্রী
.............................................................................................
আইভী রহমানের সমাধিতে আ. লীগের শ্রদ্ধা
.............................................................................................
একুশ আগস্টের মাস্টারমাইন্ড তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তি হওয়া উচিত : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
তারেকের সর্বোচ্চ শাস্তি চেয়ে আপিল করা হবে: কাদের
.............................................................................................
গ্রেনেড হামলা দিবসে আওয়ামী লীগের কর্মসূচি
.............................................................................................
দেড় বছরে দেড় মিনিটও আন্দোলন করতে পারেনি বিএনপি
.............................................................................................
বিএনপিতে যোগদান করলেন গাজীপুরের সাবেক পৌর মেয়র করিম
.............................................................................................
কাশ্মীর সংকট ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়: কাদের
.............................................................................................
সাফল্যের মুকুট পরেই চলে গেলেন সুষমা
.............................................................................................
মির্জা ফখরুলসহ বিএনপির চার শীর্ষ নেতার জামিন আবেদন
.............................................................................................
ষড়যন্ত্রকে ঘিরে সবাইকে সজাগ থাকার আহ্বান ওবায়দুল কাদেরের
.............................................................................................
ডেঙ্গু দমনের নামে ফটোসেশন চলছে : ফারুক
.............................................................................................
প্যারোলে নয়, খালেদার মুক্তিতে ঈদের পরে আন্দোলন
.............................................................................................
ডেঙ্গু প্রতিরোধে কার্যকর পদক্ষেপ বাস্তবায়নে মনিটরিং সেল গঠন করেছে আওয়ামী লীগ
.............................................................................................
ডেঙ্গু মোকাবিলায় সরকার ব্যর্থ : জিএম কাদের
.............................................................................................
জরুরি অবস্থা বিএনপির দরকার: কাদের
.............................................................................................
কাল আওয়ামী লীগের বিশেষ জরুরি সভা
.............................................................................................
ডেঙ্গু পরিস্থিতি উদ্বেগজনক : ওবায়দুল কাদের
.............................................................................................
বেগম জিয়ার স্বাস্থ্য নিয়ে বিএনপি অপরাজনীতি করছে : ড. হাছান মাহমুদ
.............................................................................................
বিএনপির কার্যালয় গুজবের কেন্দ্রীয় ফ্যাক্টরি : কাদের
.............................................................................................
জাতীয় পার্টিতে অনৈক্যের সুর
.............................................................................................

|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
|
প্রধান সম্পাদক ও প্রকাশক : মো: তাজুল ইসলাম
প্রধান কার্যালয়: ২১৯ ফকিরের ফুল (১ম লেন, ৩য় তলা), মতিঝিল, ঢাকা- ১০০০ থেকে প্রকাশিত । ফোন: ০২-৭১৯৩৮৭৮ মোবাইল: ০১৮৩৪৮৯৮৫০৪, ০১৭২০০৯০৫১৪
Web: www.dailyasiabani.com ই-মেইল: dailyasiabani2012@gmail.com
   All Right Reserved By www.dailyasiabani.com Developed By: Dynamicsolution IT [01686797756]